• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • দিল্লি জ্বলছে

    Saikat Bandyopadhyay
    বিভাগ : টুকরো খবর | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৯৮১ বার পঠিত
  • দিল্লি জ্বলছে। ঠিক কী হয়েছে, কী হচ্ছে, পরিষ্কার করে জানা মুশকিল। যতটুকু জানা যাচ্ছে, সমর্থিত এবং অসমর্থিত সূত্রে, ব্যাপারটা শুরু হয়েছিল কিছু তথাকথিত সিএএ সমর্থকদের সংগঠিত হামলা থেকে। এরা উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে সিএএ বিরোধী বিক্ষোভের উপর আক্রমণ করে। ইন্টারনেটে ছড়িয়ে পড়া ছবি দেখে দেখা যাচ্ছে, এই গুন্ডাবাহিনী অবাধে পুলিশি ব্যারিকেড ডিঙোয়। বোমা এবং পাথর ছোঁড়ে। ছবিতে মসজিদের দিকে পেট্রোল বোমা ছুঁড়তে দেখা যাচ্ছে এই সংগঠিত গুন্ডাবাহিনীকে। হাতে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে পেটাতে দেখা যাচ্ছে সিএএ-বিরোধী বিক্ষোভকারীদের। তাদের সামনে রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটোচ্ছে মানুষ। এই তথাকথিত সিএএ সমর্থকরা আসলে কোন দলের গুন্ডাবাহিনী, আলাদা করে বলে দেবার অপেক্ষা রাখেনা।

    এখনও পর্যন্ত পাওয়া খবরে মারা গেছেন অন্তত পাঁচজন। ন্যক্করজনক পুলিশের ভূমিকা। পুলিশি ব্যারিকেড কীকরে ডিঙোল গুন্ডাবাহিনী, জানার কোনো পুরষ্কার নেই। পুলিশকে ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে মাটিতে পড়ে থাকা ছেলেদের 'আরও আজাদি চাই?' বলে মারধোর করতে। খুব সম্ভবত চিরতরে আজাদি দিয়ে দিতে পারলে নিশ্চিন্ত হয় এখনও ধর্মনিরপেক্ষ ভারতবর্ষের কেন্দ্রীয় সরকারের অধীনে থাকা পুলিশ।

    এসবই এখন নতুন 'স্বাভাবিক'। রোজই এখন নতুন নতুন ঘটনা ঘটছে। পশ্চিমবঙ্গেও বইমেলায় বিজেপির পক্ষ নিয়ে ঠেঙিয়েছে পুলিশ। এফআইআর করতে যাওয়া ছাত্রকে জেলে ভরেছে। একটি মেয়ের বাড়ি গিয়ে হুমকি দিয়েছে। কোনো জাদুমন্ত্র জানা নেই, কিন্তু বিজেপির পক্ষেই এসব করা হয়েছে। কিন্তু এসবই চাপা পড়ে গেছে, কারণ, সবকিছু নিয়ে লেখা যায়না। রোজই ঘটে চললে তো যায়ই না। তার উপর, অন্যত্র, বিশেষ করে উত্তরপ্রদেশে পুলিশ যা করেছে, তার কাছে এসব অতি সামান্য মনে হয়। কিন্তু সমস্ত কিছু গা-সওয়া হয়ে যাবার পরও কিছু কিছু জিনিস তবুও চমকে দেয়। দিল্লির ঘটনা যেমন। স্রেফ এইজন্য নয়, যে, পুলিশ নৃশংসতা দেখাচ্ছে। এইজন্যও নয়, যে, হিন্দুত্ববাদীদের নারকীয় গুন্ডামি নতুন কিছু। কিন্তু যা এখানে চমকে দিচ্ছে, সেটা হল প্রকাশ্যে, ইন্টারনেট যুগে যে খুল্লামখুল্লাভাবে জিনিসটা ঘটানো হচ্ছে। সরাসরি হামলা, বোমা এবং অস্ত্রের অবাধ ব্যবহার, পুলিশের পক্ষপাতদুষ্ট সক্রিয়তা, অব্যর্থভাবেই মনে করিয়ে দেয় গুজরাতের নরমেধ যজ্ঞের কথা। পদ্ধতিটা সেই একই। এবং সেটা কোথায় ঘটানো হচ্ছে? ভারত রাষ্ট্রের রাজধানীতে। যেদিন আমেরিকান রাষ্ট্রপতি (হলেনই বা তিনি ট্রাম্প) ভারতে পা রাখতে চলেছেন, এবং সারা পৃথিবীর মিডিয়ার নজর আছে ভারতের উপর। ঘটনাটা ঘটছে সেদিন। এবং ঘটানো হচ্ছে 'শেষ দেখে ছাড়ব' ভঙ্গীতে।

    বছর দুই আগেও এ ঘটনা অবিশ্বাস্য মনে হত। কিন্তু আর হচ্ছে না। সুররিয়েল মনে হচ্ছে কেবল। ভিডিও গুলো দেখলে সকলেরই মনে হবে মনে হয়।

    পুলিশের কীর্তি


    দিল্লি জ্বলছে
  • বিভাগ : টুকরো খবর | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ১৯৮১ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • | 162.158.167.193 | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০৯:১৩91069
  • একেবারেই গুজরাতের মত সেটাপ। প্রথমে একটি হিন্দু পুলিশ মারা যাতে পুরো গণহত্যা জাস্টিফাই করা যায়। (গোধরা স্টাইল)। তারপর গেরুয়া সন্ত্রাসবাদীরা বেছে বেছে মুসলমান ব্যবসায়ী, শ্রমিক ইত্যাদি আক্রমণ শুরু করল জয়শ্রীরাম চিল্লিয়ে। তখনকার মুখ্যমন্ত্রী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এখনকার প্রধাঃঅমন্ত্রী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, এরপ অমিত মালপোয়া নামবে ফেকছবি নিয়ে।
    (অমিত নামটাই মীরজাফরের মত ঘৃণ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে)
    এরমধ্যে পুনেতে কজন বাঙালিকে বাংলাদেশী সন্দেহে কিছু লোক হেনস্থা করেছে। যথারীতি পরে দেখা গেছে সকলেই ভারতীয়।
  • একলহমা | 108.162.238.232 | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০৯:৫১91070
  • গুজরাত দিয়ে দিল্লী-প্রাপ্তি। দিল্লী দিয়ে ???
    নিরন্কুশ সংখ‍্যাগরিষ্ঠ, বিরোধীরা প্রায় ভূমিকাহীন। তাও কেন শাসকের এত হিংস্রতা?
  • Amit | 162.158.2.115 | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১০:২৭91071
  • কারণ এরা জানে যে ২০২৪ এ দেখানোর মতো আর কিছু নেই। ইকোনমি জিজিতে গেছে। আগামী পাঁচ বছরে আরো বাজে হাল হবে। পাকিস্তান কে এতো খোঁচানো সত্ত্বেও যুদ্ধ করছে না, বারবার বালাকোট কাক মেরে লাভ হবে না। তাই সেই এক কুমির ছানা রাম মন্দির আর দাঙ্গাই ভরসা। এরা নেক দিন ধরেই গুটি সাজাচ্ছে, দিল্লী ইলেকশন অব্দি বসে ছিল, কিন্তু এটার টাইমিং তা একটু গড়বড় হয়ে গেলো আর কি। ট্রাম্প থাকাতে এই দাঙ্গা হওয়াতে গোটা দুনিয়ার মিডিয়ার নজরে আসছে এটা। নাহলে ইন্ডিয়ান মিডিয়া তো সব ই রিপাবলিক।
  • news | 162.158.255.93 | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১১:২৭91072
  • সে | 172.69.109.5 | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৪:৪২91074
  • এর নাম ভারতবর্ষ?! ছিঃ
  • | 162.158.167.193 | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৬:০০91075
  • TOI এর দিল্লির ফোটোগ্রাফারের অভিজ্ঞতা। বৃত্তটা অনেক ছোট হয়ে এসেছে

  • | 162.158.165.235 | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২০:৪৩91079
  • হাসপাতাল সূত্রে জানা যাচ্ছে মৃতের সংখ্যা ৩৫।
    খুব সম্ভবত এটাও অনেক কমিয়ে বলা।
  • দিল্লি গণহত্যা | 172.69.135.105 | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২১:১৪91081
  • আল হিন্দ হাসপাতালে নাকি প্রচুর গুলিবিদ্ধ আহত, পুলিশ নাকি ডাক্তারদেরও ঢুকতে দিচ্ছেনা।
  • রৌহিন | 162.158.119.58 | ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৮:৪৮91101
  • এখানে একের পর এক পোস্টে এক শ্রেনীর বাঙালি এসে হয় হাহা ইমোজি দিচ্ছে নয় গালাগাল করছে। মসজিদ জ্বালানোর পোস্টটা ফেক নিউজ হিসাবে লেজিটিমেট করার আপ্রাণ চেষতা করে যাচ্ছে। এবং এদের দেখে স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে যা যা ঘটছে তাতে এদের একটা চাপা উল্লাস হচ্ছে। কী বলব, কাকে বলব কিছুই বুঝে উঠতে পারি না।

    আগে একবার কোথাও বলেছিলাম, অনেকে ভর্ৎসনা করেছিলেন - এখন আরো একবার বলি। হিন্দুত্ব এখন আদতেই সন্ত্রাসবাদের সমনাম। এদের যদি যথেষ্ট রিসোর্স থাকত (যথেষ্ট বেড়েছে এবং বাড়ছে) - তাহলে আইসিসকে এদের কাছে শিশু মনে হত।

  • FB | 162.158.255.21 | ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২১:৩৮91105
  • খবরের লিঙ্কে যা দেখা যাচ্ছে,
    (১)
    দিল্লী সংঘর্ষে আট রাউন্ড গুলি চালানো ব্যক্তি শনাক্ত। নাম শাহরুখ।
    যে প্রতিবাদের অন্যতম নেতৃস্থানীয় ব্যক্তা শারজিল ইমাম শরীয়তি ভারত চান, সেখান থেকে অ্যাসিড অ্যাটাক পুলিশ ও আধাসেনার উপর।
    পুলিশ কনস্টেবল রতনলালের নৃশংস হত্যা।
    (২)
    জনৈক "সাদ্দাম" নামধারী দুষ্কৃতী দুইটি নারীকে গণধর্ষণের পর "তারা বেশ্যা ছিল" মর্মে প্রগতিশীল বাংলা নিউজ এজেন্সির প্রচার চলছে। ভাবটা এমন যেন "বেশ্যাবৃত্তি" বা অন্য কোন ভিক্টিমব্লেমিং গণধর্ষণের মতো অপরাধকে মানুষের চোখে লঘু করে দেয়।
    যে মহিলারা গণধর্ষিতা হবার আগেও "সাদ্দামকে" সাম্প্রদায়িক নজরে না দেখার জন্য প্রগতিশীল তকমা পেতে সক্ষম ছিলেন, সাদ্দামের হাতে ধর্ষিতা হবার পর সেই প্রগতিশীল মহলের কাছেই "অসচ্চরিত্রা" হয়েছেন। অভিযুক্তর নাম যদি আরবী শব্দে না হত, তবে প্রগতিশীলরা অবশ্যই ভিক্টিমের স্লাট শেমিং করতেন না। অভিযুক্তর সাথে হিন্দু রাজনীতির সম্পর্ক খুঁজে হিন্দুত্ববাদীরা কতটা ধর্ষক হয় সেটাই প্রমাণ করতে বড় বড় ন্যারেটিভ নামাতেন।
    .
    আমার নিজের বিশেষ কোন বয়ান নেই এখানে। মানুষ সব দেখছে। পড়ছে। তারাই আলোচনা করছে এইসব। তারা দিল্লির বর্তমান পরিস্থিতি দেখে বরং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপরই ক্রুদ্ধ হচ্ছে যে কেন ঐ বিচ্ছিন্নতাবাদী আন্দোলন কঠোর হাতে দমন করা হচ্ছে না, কেন ভারতরাস্ট্র এখনো এতটা দুর্বল যেখানে কোন ইসলামী নেতা অনায়াসে বলে দিতে পারেন, "পুলিশ তুলে নিলে, পনেরো কোটি মুসলিম বাকি একশো কোটি হিন্দুকে শাসন করবে"... অন্যদিকে কমলেশ তিওয়ারী দিনের আলোয় খুন হন, দিল্লি জুড়ে তান্ডব চালিয়ে যেতে পারে বিশেষ ধর্মীয় গোষ্ঠীর দুষ্কৃতিরা।
    এসব আলোচনা চায়ের দোকানেও চলে এসেছে।
    .
    ঠিক এই পরিস্থিতিতে মহম্মদ সেলিম, বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য নামক সিপিয়েম নেতারা, এবং তাদের মালিকমহল দিল্লীতে হিন্দুদের হাতে মসজিদ আক্রান্ত" মর্মে মিথ্যা খবর ছড়িয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চাইছেন। দিল্লী পুলিশ তাদের বয়ানে জানিয়েছে ওরকম কোন ঘটনা ঘটেনি। কিন্তু মিথ্যা ছাড়া বামপন্থার অস্তিত্ব নেই। সিপিয়েম মিথ্যাচারের শিল্প করেছিল। তাদের স্বভাব তাই বদলায়নি।
    বামপন্থীদের মিথ্যা প্রচারকে নস্যাৎ করুন।
    বামৈস্লামিক নেক্সাসকে ঘৃণা করুন।
    ওরা ফাঁদ পাতছে। ফাঁদে পা দেবার আগে ভাবুন ওরা চিরকাল বিদেশী শক্তির দালালীই করেছে। দেশটা কিন্তু আমাদের। দেশের স্থিতাবস্থাকে বিঘ্নিত করার যে কোন উদ্যোগের প্রতিবাদ-প্রতিরোধ আমাদেরই করতে হবে।
    সচেতন থাকুন। সচেতন রাখুন।
    ধন্যবাদ।
  • FB | 172.68.142.214 | ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২১:৪০91106
  • মিডিয়া জিনিসটা মজাদার। শুনবেন? আচ্ছা ছোট্ট করে একটা ম্যাজিক দেখাই। প্রথমটা হাসির। দ্বিতীয়টা.... ওয়েল, আমি হিন্দু। আমার জন্য হাসির নয়।
    .
    (১)
    কাল বা পরশুই হবে। দেখলাম এবিপি আনন্দ, মানে আনন্দবাজার আর কি, বাংলায় যেটা, ওটা সিএএ'র "ফ্যাসিজমে" কেঁদে ফেলে আর্টিকল লিখেছে। জনৈক ফুকরান বা এরকম কারো ঘটনা নিয়ে। মূল কথা হল, সিএএ ভারতীয় মুসলিমদের "ডরা হুয়া মুসলিম" করে দিচ্ছে।
    বিশ্বাস করে ফেলছিলাম প্রায়। তখনই চোখে পড়ল এবিপি নিউজ। সেখানে রুবিয়া লিয়াকত লিটারালি এমন খোরাক করছেন স্বরা ভাস্করকে, এত পরিষ্কারভাবে ভাস্করের প্রোপাগান্ডা বাস্ট করছেন প্রতি কথায় তথ্য দেখিয়ে চ্যালেঞ্জ করে করে, তাতে ভাস্কর এবিপির অনুষ্ঠানে আসা দর্শকদেরই "রাইট উইঙ্গার" বলে দাগিয়ে চেঁচামেচি করছেন।
    দুইটাই এবিপি গ্রুপ।
    দুইটাতেই টোটাল উল্টো। সেম খিল্লি জি গ্রুপেও। 24 ঘন্টা কাঁদছে যাতে, জি সেটাকেই ব্যাশিং করছে।
    আমি দর্শক, মজা পাই গেসি।
    (২)
    বাংলাদেশে প্রচারের বিবিসি বাংলা দিল্লি আনরেস্ট নিয়ে লিখছে, "আক্রমণের মূল টার্গেট মুসলিমরা।"
    আমরা এখানে আগে পেয়েছিলাম রতনলালের মৃতদেহ। এবার পেলাম অঙ্কিতের। কে জানে এদের নামের আগে পরে আরো কিছু আছে নাকি। কারণ কোন নিউজে না দেখলেও বন্দুকবাজ শাহরুখ নাকি শাহরুখ শুক্ল এটা সোশাল মিডিয়ায় প্রচার হচ্ছে দেখতে পাচ্ছি। তো "শাহরুখ শুক্ল"র পাশে ও পিছনের মারমুখী জনতা দেখে আমার মনে হচ্ছে রতনলাল বা অঙ্কিত ঠিক দুরারোগ্য কোন শারীরিক ব্যধিতে মারা যাননি। অন্য কোন কারণ থাকলেও থাকতে পারে। আবার বিবিসি বাংলার মতে যখন আক্রমণের মূল টার্গেট মুসলিমরাই, তখন কি করে রতনলাল বা অঙ্কিতবাবুর মৃত্যুর পিছনে সানস্ট্রোক বা ওরকম কোন অসুস্থতার কারণ ছাড়া আর কোন কারণ থাকতে পারে তা আমার বোধগম্য হল না।
    .
    আমি একজন অশিক্ষিত। আপনারা যারা শিক্ষিত, তাদের উচিত ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং করে আমাদের আলোকিত করা।
  • S | 162.158.107.84 | ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২২:৩৪91108
  • তা বদমায়েশ সংখ্যালঘু মুসলমানরা যে নিরীহ ত্রিশুলধারি শান্তিপ্রিয় পিওর ভ্যাজ হিন্দুদের উপর এত অত্যাচার করছে, সেটা দিল্লি পুলিশ বন্ধ করতে পারছেনা কেন? এটা নিস্চই হোম মিনিস্টার অমিত শাহের ব্যর্থতা নয়। হোয়াট্সাপে দেখুন তো আইটি সেল কি বলছে? আমাদের একটু আলোকিত করুন।
  • S | 108.162.246.112 | ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২২:৪৩91109
  • বামপন্থীরা তো মিথ্যা বলে বুঝলাম। সহমত।

    তবে আপনি বোধয় মোদিবাবুর ঐ কুমীরের গল্পটা শোনেননি। বা ১৯৮৯ না ৯০তে ডিজিটাল ক্যামেরা দিয়ে ছবি তুলে ইমেলে পাঠানোর গল্পটা? তেনার ডিগ্রীসমূহ বা সিরিয়াল ইরাণীর বিদেশি ডিগ্রীর গল্প? বা সব কালো ধন উনি নিজে হাতে ধরবেন সেই গল্প? আসলে ১৫ লক্ষ টাকা তো আমরা এখনও পাইনি, তাই এইসব মিথ্যা ছড়াচ্ছি। আপনার মতন বিজেপির থেকে টাকা হাতে পেলেই দেখবেন আপনার মতন সব সত্যি জেনে যাবো।
  • o | 162.158.255.249 | ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২২:৫৮91110
  • এইটা এখানে থাকুক।

    দিল্লির অশোকনগরে মসজিদ ভাঙা ও আগুন ধরিয়ে দেবার ভিডিওটি পোস্ট করেছিলেন রানা আয়ুব। তা সকলেই জানেন রানা আয়ুব যাই করেন, তাতে গোমাতার সন্তানদের খুব জ্বলে। তারা খুব চেল্লামিল্লি জুড়ে দেয় ফেক ফেক করে। এর মধ্যে দ্য ওয়ার তাদের রিপোর্টে ভুল করে সেন্ট্রাল দিল্লির অশোকনগরের জায়গায় নর্থ-ওয়েস্ট দিল্লির অশোক বিহারকে উল্লেখ করে। এএনআই নিউজ থেকে জানতে পারছি, ডিসিপি নর্থ-ওয়েস্ট জানান অশোক বিহারে কোনো মসজিদ ধ্বংস হয়নি। সঙ্গে সঙ্গে গোমাতার সন্তানেরা রানা আয়ুবকে সিরিয়াল অফেন্ডার ইত্যাদি গালাগাল দিয়ে অ্যারেস্টের দাবী করতে শুরু করে। অবশেষে ভিডিওটির সত্যতা যাচাই হওয়ার পর রানা আয়ুব ফের ভিডিওটি রিপোস্ট করেছেন এই লিখেঃ

    Rana Ayyub

    @RanaAyyub

    Important Verification: Video of mosque vandalised, set on fire is from Ashok Nagar in Delhi as tweeted by many of us today. Hope fake news peddlers denying the veracity of the video now slip into their ratholes https://altnews.in/verification-video-of-mosque-vandalised-set-on-fire-is-from-ashok-nagar-in-delhi/

    via @AltNews
  • বিপ্লব রহমান | 162.158.118.165 | ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ০৮:৩৩91115
  • দিল্লির আগুন না জানি কোন  লংকা ঘটায়!  মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। ...  

  • দোবরু পান্না | 162.158.227.25 | ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৫:১৬91128
  • ম্যাজিক দেখাতে গিয়ে ধরা পড়ে গেলে কী যেন হয়?

  • বিজেপি মাইনরিটি ভিপিই আক্রান্ত | 162.158.167.17 | ০২ মার্চ ২০২০ ০৮:৫১91181
  • ----
    “They were chanting slogans with religious overtones. Around 7pm, they started throwing stones at us. I called for police help. But the police asked me to leave. We managed to flee before they burnt my house and destroyed everything,” he said.

    He is Akhtar Raza, the BJP’s minority cell vice-president for the Delhi Northeast district.

    The façade of Raza’s house has been blackened by riot-ignited fire and smoke. He was present there then, along with his immediate family and cousin Zulfiker.

    “There are 19 houses of Muslims in this lane. All of them have been identified and burnt. The rioters were from outside. But some local residents identified the houses of Muslims,” Raza said.

    Six motorcycles and all the belongings in the house were burnt down, he said. A few metres away, the homes of two of Raza’s uncles were torched.

    Raza has been associated with the BJP for the past five years. “Nobody from the BJP contacted me (after the riots). There was no phone call. There was no relief or special treatment or anything,” Raza said.

    Raza had called some party leaders who were “positive”. He continues to be associated with the BJP.“I am related to the BJP. Maybe I will continue,” Raza said.
  • FB | 172.69.134.26 | ০২ মার্চ ২০২০ ১০:২৯91183
  • আহা ! যতগুলো "আমি হিন্দু , আমি লজ্জিত" কিংবা "আমি হিন্দু , আমি ক্ষমাপ্রার্থী" মার্কা দু:খপ্রকাশ দেখছি , তার সিকিভাগও যদি "আমি মুসলিম , আমি ক্ষমাপ্রার্থী" কিংবা "আমি মানুষ , আমি ক্ষমাপ্রার্থী" মার্কা কমেন্ট দেখতাম ?

    সকালে এক বাল্যবন্ধু মেসেজ করে সম্পর্ক ছিন্ন করলেন |

    - বুঝলি তো , বয়স বাড়ছে | দাঙ্গাবাজদের সাথে সম্পর্ক রাখব না |

    ভাবলাম ছোটবেলার বন্ধু , রাগের মাথায় বলেছে ! বিকেলে ফোন করলে ভুলে যাবে | ফোন তুলল না |

    বুঝলাম , পক্ষ নেওয়ার সময় হয়েছে | রাজনীতি আর ব্যক্তিগত জীবন বরাবর আলাদা রেখেছি | তবে আর না | লড়াই হোক , পক্ষটাও নেওয়া হোক | দেখাই যাক না , কে ঠিক আর কেই বা ভুল ?

    স্পষ্ট বলতে চাই , আমি নিরপেক্ষ নই | আগুনে পুড়তে হলে পুড়তেও রাজি!
  • FB | 172.69.134.248 | ০৪ মার্চ ২০২০ ০৯:৪৫91225
  • বামপন্থার মিথ্যাচার মনে করে রাখুন দিল্লী কান্ডের সিনপসিস থেকে।
    .
    ১. প্রথমে এল মসজিদ ভাঙার খবর। হুল্লাট প্রচার হল। সাতপার্সেন্ট হলে হবে কি, ঐ সাত পার্সেন্টই তো ফেসবুকে। ফলে বেশ জবরদস্ত হিন্দুফোবিয়া ছড়াতে ছড়াতে ছড়িয়ে লাট কেস হয়ে গেল, যখন দিল্লী পুলিশ জানিয়ে দিল অশোক বিহারের খবরটি ভুয়ো। এবং আর কোন স্ট‍্যান্ডার্ড দেশীয় কাগজেই সে খবর পাওয়া গেল না। ওয়াশিংটন পোস্ট যেমন বাগদাদির মৃত্যুতে "ধর্মীয় নেতার দেহান্ত" বলে চালিয়েছিল(নয়া লিবারাল সবজান্তার কথায় ঘাবড়াবেন না, সব তথ্যপ্রমাণ, ডিগবাজি ইত্যাদি আছে।), তেমনি বিলিতি কোন একজনের ঢপের চপ প্রচার হতে লাগল। কিন্তু আর কল্কে না পাওয়ায়, উল্টে কেজরিওয়াল কানুকে ডিজওন করায়, ব্লু আইড মাফলার বয়কে আরেসেস বলে গালি দিয়ে ও নাটক চেপে যাওয়া হল।
    ২. তারপর এল শাহরুখের খবর। বামপন্থী মুখপত্রপাত্ররা প্রাণপণে প্রচার করতে লাগলেন ঐটা আসলে শারুখ চন্দ্রাল শুক্লা। নামটা কোথা দিয়ে তারা বানালেন বোঝার আগেই নতুন নাম, ঐটা নাকি অনুরাগ মিশ্রা। তারপর সে কি প্রগতিসুশীল হিন্দুব্যাশিং। দিল্লি পুলিশ সাম্প্রদায়িক হিন্দু, তাই শাহরুখকে শুধু শাহরুখ বলছে, বাকিটা বলছে না। দিল্লি পুলিশের শ্রাদ্ধ হল। অতঃপর পুলিশ গ্রেফতার করেছে ভদ্রলোককে। এখন মিডিয়াও শুধু শাহরুখই বলছে। এক দুটো জায়গায় খালি পুরো নামটা লিখে ফেলে মরমে মরে যাচ্ছে। সেই পুরো নামটা আবার ভারতীয় ভাষার নয়। কী চাপ ভাবুন তো!
    ওহো হ্যাঁ, আমরা এসব মনে রাখব না। তাহির হুসেনের কর্মকাণ্ড উঠে এলে আমরা অবশ্যই বলব, কপিল মিশ্রই তাহির হুসেনকে দিয়ে চারশো কোপ মারিয়ে নিয়েছে। অ্যাসিড ও পাথর জমা করিয়েছে।
    আফটারঅল ভারত ধর্মনিরপেক্ষ দেশ। এখানে আমরা খালি কুমীরের রচনাই শিখেছি। হিমালয় নিয়ে রচনা এলেও আমরা টেথিস খুঁড়ে কুমীর বার করে নেবখন।
    ধন্যবাদ।
  • দোবরু পান্না | 162.158.227.55 | ০৪ মার্চ ২০২০ ১৭:২৭91227
  • FB বাবু পক্ষ যখন নিয়েই ফেলেছেন তখন এবারে একটু খোলাখুলি আসুন না - সম্পর্ক আমরাও ছিন্ন করতে আগ্রহী। বিজেপির বাঙালি ভক্ত একটি বিশেষ নমুনা প্রজাতি - একে চিড়িয়াখানায় দেখতেই ভালবাসব - আমার বসার `ঘরে না।

    কষ্ট করে চিড়িয়াখানায় অবশ্য আমাদের ভরার দরকার হবে না - আপনাদের প্রভুরাই ভরে দেবে খন নিজেরা যাবার আগে

  • FB | 172.68.189.168 | ০৬ মার্চ ২০২০ ১৫:১২91254
  • সম্পর্ক ছিন্ন করেই তো ৭ শতাংতে এসেছেন। পরের বার বিরল প্রাণী হয়ে চিরিয়াখানতেই থাকবেন না হয়।
  • b | 162.158.158.180 | ০৬ মার্চ ২০২০ ১৮:০১91255
  • দোবরু বাবু, তক্ক করার সময় জর্জ বার্নার্ড শ কুস্তি সম্পর্কে যে কথা বলেছিলেন মনে রাখবেন।
  • রৌহিন | 162.158.154.222 | ০৬ মার্চ ২০২০ ২১:৪৫91256
  • ৭% নিয়ে অ-বামদের কান্নাকাটি আর থামছেই না দেখি। খোদ শিপিয়েমও বোধ হয় এত চাপ নিচ্ছে না। বাকি বামদের কথা বলে আর কী করব

    @b - কী যেন বলেছিলেন বার্নার্ড বাবু?

  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত