• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • রামের মুখোশ ও তুলসীমানস

    শিবাংশু ফলো করুন
    ব্লগ | ২৯ মার্চ ২০১৮ | ১৩৫ বার পঠিত

  • ছোটোবেলায় দেখা একটি লোকপ্রিয় সিনেমায় মহানায়কের একটা উক্তি মনে পড়ে। কোনও চাকরির ইন্টারভিউ তে চাওয়া হয়েছিলো প্রার্থী যেন শেক্ষপিরের মতো ইংরিজি, রবীন্দ্রনাথের মতো বাংলা আর তুলসীদাসের মতো হিন্দি জানে। তা মহানায়ককে যখন প্রশ্ন করা হলো, তিনি কী বললেন? হ্যাঁ, আমি জানি। তবে একটু এদিকওদিক। মানে? তাঁর উত্তর, তিনি শেক্ষপিরের মতো বাংলা, রবীন্দ্রনাথের মতো হিন্দি আর তুলসীদাসের মতো ইংরিজি জানেন। হ্যাঁ, চাকরিটা তাঁর হয়ে গিয়েছিলো।
    গোস্বামী তুলসীদাস সম্বন্ধে বাঙালিদের ধারণা এর বেশি আর যায়নি কখনও। তবে শুধু তুলসীদাস কেন, বাঙালিদের কৃত্তিবাস ওঝা সম্বন্ধেও কোনও ধারণা নেই। দুজনেই প্রাচীনকালে নিজের ভাষায় 'রামায়ণ' রচনা করেছিলেন। ইশকুলের প্রথমযুগে বইয়ে পড়া এই তথ্যটুকু ছাড়া আর কিছু মনে থাকেনা। এমন কি যখন বাঙালিরা কবিতা বিষয়ে আগ্রহী ছিলো তখনও না। এখন তো কবিতা এক মুমূর্ষু শিল্প।
    এহ বাহ্য, রাম'কে বাঙালির তখনই মনে পড়ে, যখন তাঁর মুখোশ পরে এদেশে হিংস্র দুর্বৃত্তের দল নিরীহ নাগরিকদের থেকে 'হিন্দুত্বে'র বা অহিন্দুত্বের পরীক্ষা নেয়। 'রাম'কে চেনা বা না চেনার দায় এখন আর বিবেকী মানুষের কাছে ঐচ্ছিক বিকল্প হয়ে নেই। কারণ গোবলয়ের আগুনের তাত থেকে বাঙালি আজ খুব দূরে নয়। 'রাম' চিরকালই একটি শ্রেণীপ্রতীক। প্রাক ইতিহাসের উপজাতিক টোটেম হয়ে গেছেন তিনি, গত দেড় হাজার বছরের টানাপড়েনে। সেই বিখ্যাত কব্বালির শব্দগুলি দিন দিন আরো প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠছে। " ম্যাঁয় ক্যা জানুঁ, রাম তেরা গোরখধন্দা।" রাম'কে নিয়ে এই 'গোরখধন্দা'কে বুঝতে গেলে আগে জানতে হবে ভারতবর্ষে তুলসীদাস নামক একটি ইতিহাস-ধারণাকে। কারণ এই মূহুর্তে যে রাম'কে নিয়ে ক্ষমতার চক্রান্ত চলেছে, তিনি তুলসীর রাম। বাল্মীকির ন'ন।
    তুলসীদাস শুধুমাত্র কবি ন'ন। তিনি ছিলেন একটি বিস্তীর্ণ সভ্যতার বিবর্তিত মূল্যবোধের সেরিব্রাল প্রতিনিধি। এদেশে মধ্যযুগে সংখ্যাগরিষ্ঠের বিশ্বাসস্থল, সনাতনধর্মের স্রোতে বিরাট বাঁক নেওয়া বিবর্তনের একজন পথিকৃৎ। ব্রাহ্মণ্যধর্মের চেনা সমাজব্যবস্থার ছকটা আদি শংকরের সময় থেকে তিন চারশো বছর ধরে নিষ্প্রাণতার শিকার হয়ে পড়ছিলো। তাকে উদ্ধার করার জন্য যেসব মানুষেরা বড়ো উদ্যোগ নিয়েছিলেন, তুলসীদাস ছিলেন তার অগ্রগণ্য ব্যক্তিত্ব। ঐতিহাসিক ভিনসেন্ট স্মিথ তুলসীদাস সম্বন্ধে বলেছিলেন :......the greatest man of his age in India and greater than even Akbar himself." বিখ্যাত ভারততত্ত্ববিদ জর্জ গ্রিয়ার্সন বলেছিলেন, " "the greatest leader of the people after the Buddha" এবং "the greatest of Indian authors of modern times" (Notes on Tul'si Das) ।
    -----------------------------
    গল্পটা শুরু হবে আচার্য রামানুজের সময় থেকে। বেদান্ত অর্থাৎ মূলত উপনিষদের শিক্ষার পথেই শতধাবিভক্ত ভারতীয় লৌকিক ধর্মবিশ্বাস, অর্থাৎ শৈব, বৈষ্ণব, গাণপত্য, সৌর বা শাক্ত ইত্যাদি মতবাদী মানুষদের একটি ছাতার তলায় আনার কূট অধ্যাত্ম-রাজনৈতিক প্রয়াস শুরু হয়েছিলো কালাডির আদি শংকরাচার্যের কুশল নেতৃত্বে। দাক্ষিণাত্যের ব্রাহ্মণ রামানুজ সনাতন অধ্যাত্মদর্শনের স্তম্ভ আদিশংকরের পর প্রধানতম ধর্মীয় দিগদর্শক ছিলেন এদেশের। শংকরের অদ্বৈত বেদান্তবাদী ভাবধারার পরবর্তী মান্য নায়ক ছিলেন তিনি। সৃষ্টি করেছিলেন শ্রী সম্প্রদায়। শংকরের মোক্ষবাদী দর্শনকে বিবর্তিত করে প্রস্তাব করেছিলেন বিশিষ্ট অদ্বৈত দর্শনের। যার ছিলো তিনটি উৎস ধারা, নাম প্রস্থানত্রয়ী। উপনিষদ, ভাগবদগীতা এবং ব্রহ্মসূত্রের সারসংক্ষেপকে সম্মিলিত করেছিলেন অদ্বৈতবাদকে প্রতিষ্ঠিত করতে। তাঁর প্রধান শিষ্য ছিলেন বৌধায়ন, টঙ্ক, গুহদেব, দ্রামিড় প্রমুখ। এর মধ্যে বৌধায়ন ছিলেন পূর্ব মীমাংসা অথবা মীমাংসা ও উত্তর মীমাংসা বা বেদান্তের এক জন প্রবাদপ্রতিম ব্যাখ্যাকার। স্বামী রামানন্দ ছিলেন সম্ভবত প্রয়াগের মানুষ। কিন্তু তাঁর কর্মভূমি ছিলো বারাণসি। পরবর্তীকালে তিনি বিশিষ্ট অদ্বৈতবাদের শিক্ষা নিতে দাক্ষিণাত্যে যাত্রা করেছিলেন। দীর্ঘকাল সেদেশে রামানুজপন্থী গুরু রাঘবানন্দের কাছে শিক্ষা নিয়ে ফিরে আসেন বারাণসিতে। । কিন্তু তৎকালীন ব্রাহ্মণ্য রক্ষণশীলতায় পর্যুদস্ত বারাণসির অধ্যাত্ম আবহে তিনি স্বস্তি পাননি। নাথপন্থী যোগীদের সংস্পর্শে এসে ঔপনিষদিক অদ্বৈতবাদ ও লৌকিক বৈষ্ণব চেতনার সংশ্লেষণে প্রবর্তন করেন ভক্তিবাদী আন্দোলনের রূপরেখা। মধ্যযুগীয় ভারতবর্ষের অধ্যাত্মচেতনার জলবিভাজক আন্দোলন ছিলো সেটি। বৈদিক ব্রাহ্মণ্য বর্ণাশ্রমবাদী প্রস্তাবনার বিপরীত মেরুতে ইতর মানুষের অধ্যাত্মজিজ্ঞাসার উত্তর হয়ে ছড়িয়ে পড়েছিলো ভক্তি আন্দোলনের উদ্বেল ধারা। পঞ্চনদ থেকে বঙ্গদেশ, সর্বত্র।
    সনাতনপন্থীদের মধ্যে রামানন্দই এদেশে প্রথম একটি ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সূত্রপাত করেন, রামানন্দি সম্প্রদায়. যেখানে বর্ণবাদ আমল পায়নি। একটি বিখ্যাত দোহা, যা পরবর্তীকালে রামানন্দের বিশ্রুত শিষ্য সন্ত কবিরের নামেই অধিক প্রচলিত, তাঁর নবদর্শনের ভিত্তি ছিলো।
    " জাতি না পুছো সাধো কী, পুছ লিজিয়ে জ্ঞান,
    মোল করো তলওয়ার কো, পড়া রহন দো ময়্যান।।"
    অর্থাৎ সাধুর কোনও জাতি হয়না। তার জ্ঞানই তার পরিচয়। যেমন তলওয়ারের পরিচয় তার ধারে, খাপের ভূমিকা সেখানে অর্থহীন। মানুষের জন্মগত জাতিগত পরিচয় ঐ খাপের মতো। অর্থহীন। সেকালে একজন ব্রাহ্মণ্যসামর্থ্যের প্রতিভূ দিগ্বিজয়ী পণ্ডিতের এই অবস্থান শুধু দুঃসাহসীই নয়, যুগান্তকারী। রামানন্দ ছিলেন ক্রান্তদর্শী। তিনি বুঝেছিলেন ছিন্নবিচ্ছিন্ন ভারতীয় সনাতনবাদী বিপুল জনসমষ্টিকে যদি নবধর্ম ইসলামের বিধ্বংসী প্লাবনের থেকে রক্ষা করতে হয়, তবে নিম্নবর্গীয় সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষকে ধর্মের মূলস্রোতে নিয়ে আসতে হবে। এর একমাত্র পথ বর্ণাশ্রমের বিভেদবাদী নীতি থেকে সরে এসে ভালোবাসার সনিষ্ঠ আবেগকে আশ্রয় করা। যে নীতির প্রয়োগ আমরা আরো পাঁচশো বছর আগে ইসলামে মহাত্মা আলির অনুগামীদের মধ্যে দেখেছি। যাকে পরবর্তীকালে সুফিধর্ম বলা হয়েছে। রামানন্দ এক্ষেত্রে বৈদান্তিক ঈশ্বরের ভূমিকা অপসারণ করে 'হরি'কে আশ্রয় করলেন। এই হরি, কখনও রাম, কখনও বা কৃষ্ণ। তিনি কোনও রক্তচক্ষু প্রতিহিংসাপরায়ণ দেবতা ন'ন। নিতান্ত ঘরের লোক, প্রাণের আরাম। রামানন্দের প্রধান শিষ্যদের মধ্যে যেমন ছিলেন ব্রাহ্মণ অনন্তানন্দ, ভবানন্দ, সুখানন্দ, তেমনই ছিলেন ম্লেচ্ছ ও 'অচ্ছুত' কবির, রবিদাস, সেনা, সধনা ও ধন্না। ছিলেন সেকালের বিচারে প্রায় অবিশ্বাস্যভাবে দু'জন নারী সাধিকা সুরসরি ও পদ্মাবতী। বহুদিন পরে আমাদের বাংলার সাধক লালন সাঁইয়ের লেখায় যেমন পাই,
    " ভক্তের দ্বারে বাঁধা আছেন সাঁই
    হিন্দু কি যবন বলে কোনও জাতের বিচার নাই।"
    ------------------------
    যদিও আচার্য রামানুজের শিষ্য বল্লভাচার্য এবং নিম্বার্ক বৈষ্ণব ভক্তিবাদের পূর্ববর্তী পরিচিত প্রবক্তা ছিলেন, কিন্তু রামানন্দই ছিলেন এদেশে ভক্তি আন্দোলনের মূল স্রোতের প্রধান ভগীরথ। ভক্তি আন্দোলনকে একটা জন-আন্দোলনের আকার দেবার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন রামানন্দ। যে নামগুলি আগে করলাম, তাছাড়াও তাঁর অনুগামীদের মধ্যে ছিলেন শিখধর্মের প্রতিষ্ঠাতা গুরু নানক, সন্ত জ্ঞানদেব, সন্ত নামদেব, সন্ত তুকারাম, সন্ত নাভাদাস, সন্ত একনাথ এবং আমাদের একান্ত বাঙালি শ্রীচৈতন্য। রামানন্দের প্রস্তাবিত সংস্কার গুলির মধ্যে প্রধান,
    ১. আরাধ্য ঐশী লক্ষ্যলাভে জন্মগত জাতি বা বর্ণভেদ কোনও বাধা হবেনা,
    ২. যাবতীয় আরাধনা পদ্ধতির মধ্যে লৌকিকতার জটাজাল যথাসম্ভব পরিহার করতে হবে। ভক্তি ও নিষ্ঠাই একমাত্র শর্ত,
    ৩. 'ধর্মে'র নামে প্রচলিত যাবতীয় কুসংস্কারকে দূর করতে হবে,
    ৪. পণ্ডিত-পুরোহিত, মুল্লাহ-ইমাম ভিত্তিক লোকাচারকেন্দ্রিক অধ্যাত্মসন্ধান বিসর্জন দিয়ে ঐশী লক্ষ্যের সঙ্গে সরাসরি হৃদয়বন্ধন করতে হবে।
    ৫. সমস্ত উপাসনা বা আরাধনার মাধ্যম হবে মাতৃভাষা। সাবেকি সংস্কৃতভিত্তিক ব্রাহ্মণ্য আচারানুষ্ঠান গ্রাহ্য হবেনা।
    তুলসী'কে নিয়ে আলোচনা করতে গেলে ভক্তি আন্দোলনের প্রেক্ষাপটটি জানা বিশেষ জরুরি। রামানন্দের শিষ্যদের মধ্যে সগুণ ও নির্গুণব্রহ্ম, উভয় মতেরই সাধকেরা ছিলেন। রামানন্দ নিজে কিন্তু সগুণ বা নির্গুণ কোনও মতের প্রতিই প্রত্যক্ষ পোষকতা করতেন না। তাঁর জন্য ভক্তির গভীরতাই একমাত্র বিবেচ্য। তাই কেউই তাঁর বৌদ্ধিক আশ্রয় থেকে প্রত্যাখ্যাত হতেন না। তাঁর বিখ্যাততম শিষ্য সন্ত কবির ছিলেন নির্গুণপন্থী। আবার ভবানন্দ বা সুখানন্দ ছিলেন সগুণব্রহ্মের পক্ষপাতী। একটা উল্লেখযোগ্য সমীকরণ লক্ষ্য করা যায় এই বিভাজনের মধ্যে। ভক্তি আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত জন্মগত ব্রাহ্মণদের মধ্যে সগুণপন্থী সাধকরা সংখ্যাগুরু। আবার ইতরবর্গীয় সাধকেরা ছিলেন মূলত নির্গুণপন্থী। সগুণপন্থীরা উপাস্য হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন হয় রাম (তুলসীদাস) বা কৃষ্ণকে (সুরদাস)। রাম ও কৃষ্ণ, দুটি প্রতীকই সগুণ মনুষ্যমূর্তিতে কল্পিত হ'ন। নির্গুণপন্থীর আরাধ্য ছিলেন একটি ধারণা। যাঁর নাম শুধু 'হরি'। তিনি নিরাকার, নির্গুণ, নিরঞ্জন ও অখণ্ড। তবে একথাও সত্য, তুলসী নির্গুণপন্থী সাধকদের মতো বর্ণাশ্রমবাদী ব্রাহ্মণ্যতন্ত্রকে অস্বীকার করতে পারেননি। তিনি কোনও অবস্থাতেই 'বেদোক্ত' বর্ণবাদী অনুশাসনের বিরুদ্ধে যাবার সাহস দেখাতে সক্ষম হননি। এই নিয়ে অভিযোগও রয়েছে।
    ভক্তি আন্দোলনের পুরোধা সমস্ত সাধকই কাব্য ও সঙ্গীতচর্চার মাধ্যমে নিজস্ব মতবাদ প্রচার করতেন। তাঁদের মধ্যে কয়েকজনের কবিত্বশক্তি তো ঈর্ষণীয়ভাবে আকাশছোঁয়া। কিন্তু গোস্বামী তুলসীদাস ছিলেন সবার মধ্যে অনন্য। তাঁর কবিত্বশক্তির গভীরতা ও প্রভাব অতি বিপুল। আধুনিক যে হিন্দিভাষা পরবর্তীকালে লোকস্বীকৃত হয়েছে তার শিকড় ছিলো তুলসীর ব্রজভাষায় রচিত সুবৃহৎ রচনাবলির মধ্যে। তুলসীকে নিয়ে গড়ে ওঠা উপকথা, কিংবদন্তির কোনও শেষ নেই। যদিও এসব গল্পকথা আসলে ভক্তকথা। অর্ধেক কল্পনা, অর্ধেক অতিশয়োক্তি। কিন্তু তা প্রতিষ্ঠা করে তাঁর লোকপ্রিয়তা ও জনজীবনে আকাশচুম্বী প্রভাবকে। যেমন একটি লোককথা দেখা যাক।জন্মস্থান রাজপুর থেকে প্রথমে যখন তুলসী বারাণসি'তে আসেন, তখন অস্সিঘাট ছিলো একেবারে জনহীন, অরণ্যসংকুল স্থান। তাই তিনি প্রহ্লাদঘাটে'র কাছে বসবাস করতে থাকেন। সেই সময়েই তাঁর সংস্কৃতভাষায় কাব্য রচনার প্রয়াসও শুরু হয়। তিনি সারাদিন ধরে যা কিছু রচনা করতেন, রাত হলেই তা কোথায় হারিয়ে যেতো। এইরকম আটদিন চলার পর কাশীবিশ্বনাথ তাঁকে স্বপ্নাদেশ দে'ন সংস্কৃতভাষা পরিত্যাগ করে অওধিভাষায় কাব্য রচনা করতে। তাহলেই তুলসী'র কাব্য সামবেদের মতো গরিমা অর্জন করবে। এই আদেশটি যখন তুলসীদাসের কাছে এসেছিলো তখন তিনি ছিলেন আধো ঘুমে, আধো জাগরণে। আধো তন্দ্রায় তুলসীদাস নিজস্ব ভাষামাধ্যম বিষয়ে যে সিদ্ধান্তটি নেন তার তাৎপর্য ছিলো অসীম। সমাজতাত্ত্বিক রূপকের দিক দিয়ে দেখলে মনে হবে, ইতরবর্গের দেবতা শিব স্বাভাবিক ভাবেই চাইলেন তুলসী'র প্রতিভার ফল যেন শুধুমাত্র বিষ্ণুপূজক সংস্কৃতজ্ঞ ব্রাহ্মণসমাজের উপভোগের জন্যই সীমাবদ্ধ না থেকে যায়। ইতর মানুষও যেন এজাতীয় সৃষ্টির আশীর্বাদ সমানভাবে পেতে পারে। তুলসীর এই সিদ্ধান্তের পিছনে ছিলো রামানন্দীয় প্রভাব। যদিও সমপর্যায়ের ক্রান্তদর্শী সিদ্ধান্ত এর আগে আরেকজন মানুষ প্রথম নিয়েছিলেন, শাক্যমুনি বুদ্ধ। সারনাথ থেকে তাঁর প্রথম উপদেশাবলী প্রচার করার জন্য বেছে নিয়েছিলেন ইতরবর্গের ভাষা, পালি। উচ্চবর্ণের স্বীকৃত ভাবপ্রকাশের মাধ্যম দেবভাষা নয়। পঞ্চম শতক থেকে পঞ্চদশ শতক পর্যন্ত ভারতবর্ষে আলো-আঁধারির মধ্যযুগ পেরিয়ে আর্য-ব্রাহ্মণ্য-ইসলাম-সুফি-ভক্তিবাদী সমন্বয়ের সুফলসম্পন্ন ক্ল্যাসিক একটা সংস্কৃতিবোধ নির্মাণ হলো তুলসীদাসের রচনাবলির মধ্য দিয়ে।
    -----------------------------------------------------
    তুলসীদাস রামভক্তি আন্দোলনের প্রধান পুরুষ। রামানন্দ নিজে অনুগামীদের জন্য রাম, কৃষ্ণ বা অলখ নিরঞ্জন কোনও প্রতীকেরই নির্দিষ্ট রূপকল্প তৈরি করে দেননি। তাঁর এই উদার গণতন্ত্রপ্রিয়তা শিষ্যদের সৃজনশীলতার মধ্যে অশেষ বৈচিত্র্য এনে দিয়েছিলো। রামানন্দের একমাত্র শর্ত ছিলো তাঁর অনুগামীরা নিজের ইচ্ছেমতো ঐশীপ্রতিমা বেছে নিতে পারবেন। কিন্তু সেই আরাধ্যের প্রতি ভক্তি ও প্রেমে একবিন্দু ফাঁকি চলবে না। প্রশ্নহীন প্রেম, ব্যতিক্রমহীন ভক্তিই ছিলো এই আন্দোলনের একমাত্র চালিকা শক্তি। সগুণপন্থীদের মধ্যে যেমন ছিলো দুটি পক্ষ, রামভক্ত ও কৃষ্ণভক্ত; তেমনই নির্গুণপন্থীদের মধ্যে ছিলো দুটি ভার্টিক্যাল। জ্ঞানমার্গী ও প্রেমমার্গী। প্রেমমার্গীরাই পরবর্তীকালে ভারতীয় সুফিধর্মের অনুগামী হয়েছিলেন। বাল্মীকির রামায়ণ মূলত আর্য ও অনার্য সভ্যতার মধ্যে পরস্পর ধর্ম-সংস্কৃতি , নীতিবোধের টানাপড়েনের ইতিকথা। বাল্মীকির রাম কিন্তু দোষমুক্ত, ঈশ্বরপ্রতিম কোনও অধিনায়ক ন'ন। তিনি একজন আর্য রাজপুরুষ। মহৎ, কিন্তু রজোগুণ সম্পন্ন একজন মানুষের যা কিছু দোষ-গুণ থাকে, তাঁর মধ্যে সব কিছু রয়েছে। সারাজীবনে তিনি বহুবার ন্যায়ধর্ম থেকে বিচ্যুত হয়েছেন। যেকোনও সাধারণ মানুষের মতো'ই। কিন্তু তুলসী এই রামচরিত্রটিকে সৃষ্টি করলেন 'মর্যাদা পুরুষোত্তম' হিসেবে। যিনি মনুষ্যরূপেও বিষ্ণুর সাক্ষাৎ অবতার। একজন আদর্শ যোদ্ধা, পুত্র, ভ্রাতা, পতি, বন্ধু ও নৃপতি। তাঁর সবকিছুই শ্রেষ্ঠ। কোনও দোষ থাকতে পারেনা। আমাদের পরিচিত নানা মানুষী দুর্বলতায় বিড়ম্বিত, খন্ডিত রাজপুরুষ রাম চরিত্রটির প্রেক্ষিত বদলে দিয়েছিলেন তিনি। রাম তাঁর কাছে একজন লোকনায়ক। যিনি শূদ্রা শবরীর নিবেদিত উচ্ছিষ্ট ফল ভোজন করতে দ্বিধা করেননা। বাল্মীকির রামচরিত্রের যা কিছু ক্লিষ্ট লক্ষণ সব কিছুকে ভক্তি ও আনুগত্য দিয়ে তিনি ঢেকে দিতে চেয়েছিলেন। এর কিছু রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ রয়েছে বলে মনে হয়েছে আমার। নবধর্ম ইসলামে যেমন বার্তাবাহী পয়গম্বরের ভাবমূর্তির মধ্যে কোনও ধূসরতা বরদাস্ত করা হয়না। তাঁর আদর্শ উচ্চতম, প্রশ্নবিহীন। ভাবা হতো তার জোরেই তাঁর অনুগামীরা সংখ্যালঘিষ্ট হলেও এদেশের বিপুল জনসমষ্টিকে শাসন করার শক্তি অর্জন করতে পেরেছিলো। ইসলামের এই দৈবী একনায়কতন্ত্রী নৈতিক অনুপ্রেরণার বিকল্প হিসেবে মধ্যযুগের সনাতনধর্মীয় সেরিব্রাল শিল্পীরা রাম বা কৃষ্ণের ভাবমূর্তিকে গরিমাময় একনায়কতন্ত্রী একটি অবস্থান প্রদান করেন। তুলসীর রামচরিত্র এই চিন্তনেরই প্রকাশ। তাঁর রচনার নাম তুলসীরামায়ণ নয়। তিনি এর নাম দিয়েছিলেন 'রামচরিতমানস।' অর্থাৎ তুলসীদাসের মনোজগতে রামচরিত্র যে মহিমা, গরিমা, সর্বজয়ী নৈতিক শক্তি নিয়ে প্রতীত হয়েছিলো, তারই কাব্যরূপ। গত পাঁচ-ছশো বছর ধরে এদেশে যে রাম'কে মানুষ চেনে, তিনি তুলসীর রাম। মনে রাখতে হবে মহাদেবী বর্মা যেমন বলেছিলেন, আজকের ভারতীয় সমাজব্যবস্থা স্থাপিত হয়েছে তুলসীদাস নির্মিত মূল্যবোধের ভিত্তির উপর এবং আজ ভারত যে রাম'কে চেনে, তিনি তুলসীর রাম। বাল্মীকির নয়। আজ এই অন্ধকার সময়ে রামের নামে যা কিছু রাজনৈতিক পাপ, হননপর্ব আমরা দেখতে পাই, তার উৎস রয়েছে তুলসীসৃষ্ট সর্বশক্তিমান মর্যাদাপুরুষোত্তম রামচরিত্রের ক্লিষ্ট অপব্যাখ্যার মধ্যে।
    -----------
    দীর্ঘকাল ধরে গাঙ্গেয় অববাহিকায় গোস্বামী তুলসীদাস একটি ধারণা, ব্যক্তিবিশেষ ন'ন। মধ্যযুগের প্রধান সন্তদের মতো তাঁর সম্পর্কেও অগণিত কিংবদন্তি, লোককথা বা কল্পিত আখ্যান প্রচলিত আছে। তাঁর ব্যক্তিজীবন নিয়ে এতো ধরনের ভিন্নমুখী বর্ণনা রয়েছে যে কোনটি স্বীকৃত সত্য , কোনটা বা গল্পকথা ঠাহর হয়না। চার-পাঁচটি জন্মসন, প্রায় ততোগুলো জন্মস্থান নিয়ে লোকে নিজেদের মধ্যে বচসা করে। তবে সরকারিভাবে এখন ঘোষণা করা হয়েছে ১৫৩২ খ্রিস্টাব্দে চিত্রকূটের কাছে রাজপুর গাঁয়ে তাঁর জন্ম হয়। তাঁর সমসাময়িক ও পরবর্তীকালের বিশিষ্ট ভক্তকবি ও পন্ডিতেরা তাঁকে নিয়ে যতো লিখেছেন, ভারতবর্ষের আর কোনও সারস্বতসাধকের তা নসিব হয়নি। আমার নিজের ধারণায় বঙ্গদেশে বিশের শতকে যে মাত্রায় আমরা নিজেদের জীবনচর্যা ও যাপনবৃত্তে রবীন্দ্রনাথ'কে গ্রহণ করেছি, তিনচারশো বছর ধরে তুলসীদাস'কে বিস্তীর্ণ গাঙ্গেয় ভূভাগের আপামর মানুষ সেই মাত্রার গুরুত্ব ও প্রেয়ত্ব সহকারে গ্রহণ করে এসেছে। ব্রাহ্মণ্যচিন্তার বহুমুখী গভীরতা ও ঐশ্বর্য এবং ভক্তিবাদের প্রেম অনুভূতি, এই দু'টির সমন্বয়ে তুলসীদাস একটা স্বীকৃত মূল্যবোধের জনক। এই মূল্যবোধটি আজকের বিচারে হয়তো সামন্ততন্ত্র ও পিতৃতন্ত্রের ইশারা বহন করে আনে। কিন্তু ইতিহাসের বিচার সতত স্থান-কাল ও পাত্রের পরিপ্রেক্ষিতেই করতে হয়। সেই দৃষ্টিকোণে তুলসীদাসের অন্তর্দৃষ্টি ছিলো গভীরভাবে মানববাদী। জীবনকথার নানা ইঙ্গিত বিভিন্নসময়ে তাঁর রচনার মধ্যে পাওয়া যায়। কিংবদন্তির স্ফীত আবরণের ফাঁক দিয়ে তার সত্যবস্তু খুঁজে নেওয়া একটি চ্যালেঞ্জ। তবে এটা স্বীকৃত সত্য, যে সম্ভবত ব্রাহ্মণকুলে জন্ম নিলেও তিনি ছিলেন আজন্ম দরিদ্রতম, নিপীড়িত ভারতবর্ষের প্রতিনিধি। তাঁর পিতা-মাতা হিসেবে যাঁদের নাম পাওয়া যায়, আত্মারাম দুবে ও হুলসি দেবী ( কেউ বলেন তাঁরা সরযূপারিন, কেউ বলেন কনৌজিয়া) পুত্রের জন্মের সময় গ্রহনক্ষত্রের কিছু অশুভ যোগাযোগ থাকায় সদ্যোজাত সন্তানকে পরিত্যাগ করেন। শিশুটি পালিত হয় চুনিয়া নামে এক অন্ত্যজ নারীর আশ্রয়ে। শিশুটি প্রথম যে শব্দটি উচ্চারণ করে, তা ছিলো 'রাম। তাই লোকে তার নাম দিয়েছিলো 'রামবোলা'। এই তথ্যটি তিনি নিজে বিনয়পত্রিকায় লিখে গেছেন। শিশুটি মাত্র সাড়ে পাঁচ বছর বয়সে আবার অনাথ হয়ে যায় পালিকামাতার মৃত্যুতে। সেই বয়স থেকেই তাঁকে ক্ষুধা নিবৃত্তির জন্য ভিক্ষাবৃত্তি অবলম্বন করতে হয়। এই রকম কোনও একটা সময়ে রামানন্দস্বামীর শিষ্য সাধক নরহরিদাস তাঁকে আশ্রয় দেন। তুলসীদাসের শিক্ষাদীক্ষা এই গুরু'র কাছেই শুরু হয়। সম্ভবতঃ সাত বছর বয়সেই তিনি সাধুব্রত গ্রহণ করেন। রত্নাবলীর সঙ্গে তাঁর বিবাহ, পুত্রের জন্ম, পত্নীর ভৎর্সনায় গৃহত্যাগ ইত্যাদি আখ্যান পরবর্তীকালে কল্পিত হয়েছিলো। গুরু'র মৃত্যুর পর তিনি আবার রাজপুরে ফিরে যান এবং শুধুমাত্র রামকথাই তাঁর অবলম্বন হয়ে ওঠে। সারা জীবন তিনি আর্থিকভাবে হতদরিদ্র ভারতবাসীর প্রতিনিধি হয়েই জীবন কাটিয়েছেন।
    --------------------
    শুধু অওধি নয়, সঙ্গে সঙ্গে ব্রজভাষাতেও তিনি সমানে কাব্য রচনা করে গেছেন। এই দুটি ভাষার পাঠকগোষ্ঠী আলাদা।তাঁর লক্ষ্য ছিলো সর্বাধিক সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছে যাওয়া। তাঁর মাথার উপর রাম বা শিবের আশীর্বাদ ছিলো কি ছিলোনা তা অপ্রাসঙ্গিক। কিন্তু সম্পূর্ণ গাঙ্গেয় উপত্যকার মানুষের ভক্তিভালোবাসা অঝোরধারে তাঁর উপর বর্ষিত হয়েছিলো। রামচরিতমানসের (মানস) দু'টি মূল পাণ্ডুলিপি প্রায় অবিকৃত, উদ্ধার হয়েছে। তাই এই কাব্যটিতে অন্য কোনও কবির বিক্ষিপ্ত অংশযোজনার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তুলসীদাসের কাব্য পারদর্শিতা নিয়ে সারা পৃথিবীর পন্ডিত ও পাঠকদের মধ্যে কোনও দ্বিধা নেই। ১৫৭৫ খ্রিস্টাব্দের রামনবমীর দিন এই কাব্য তিনি লেখা শুরু করেন। শেষ হয় ১৫৭৭ খ্রিস্টাব্দের বিবাহপঞ্চমী'র দিন। এতে ১২৮০০ পংক্তি আর ১০৭৩টি চৌপাই বা স্তবক রয়েছে। বাল্মীকি রামায়ণের মতো'ই সাতটি কান্ড এবং সামগ্রিকভাবে ১৮ রকম ছন্দ ব্যবহার করা হয়েছে। তার মধ্যে দশটি শাস্ত্রীয় সংস্কৃত ছন্দ ও আটটি প্রাকৃত ছন্দ। ভারতবর্ষের কোনও কাব্যে ছন্দ নিয়ে এতো ব্যাপক পরীক্ষানিরীক্ষা করা হয়নি। মধ্যযুগের অন্যান্য প্রধান সাধক ও দীপস্তম্ভ, যেমন কবির, নানক, রহিম, নামদেব, রামদাস প্রভৃতির থেকে তুলসী ছিলেন বিশেষভাবে আলাদা। কারণ অধ্যাত্মসাধনার বিশাল পরিধি'কে ছাপিয়ে গিয়েছিলো তাঁর কাব্যশক্তির মহিমা।
    -------------------------------------------------
    ভারতীয় জনমানসে তুলসীদাসের দিগ্দর্শন ও প্রভাব এখনো সুদূরপ্রসারী ও দীর্ঘস্থায়ী। যদি কেউ সন্ধান করে তবে উত্তরভারতের বিস্তৃত প্রত্যন্ত গ্রামে-প্রান্তরে তার প্রমাণ পেয়ে যাবে আজকের দিনেও। ঐ পর্যায়ের একজন ধীমান স্রষ্টা কিন্তু নিবেদিত ছিলেন লোকজীবনের মূল শিকড়ের প্রতি। অসংখ্য কাল্ট, গোষ্ঠী, স্বার্থসন্ধ দল'উপদলে বিভক্ত মধ্যযুগের ভারতবর্ষে একটা স্বীকারযোগ্য রোলমডেল না থাকলে যে সব নিপীড়িত দরিদ্র মানুষের নৈতিক শক্তি ধ্বস্ত হয়ে যাবে সেটা তুলসীদাস হৃদয় দিয়ে বুঝতে পেরেছিলেন। তাঁর সৃষ্ট রাম নৈতিক শক্তির বাতিঘর। অন্ধকারে ডুবে থাকা মানুষ সেই দিকে তাকিয়ে জীবনের নৌকো বেয়ে যেতে পারে। ২০১৭'র বিশ্বদৃষ্টি দিয়ে তুলসীদাস'কে 'প্রতিক্রিয়াশীল' ফতোয়া দেবার মধ্যে নানা বিপদ আছে। মৃত্যু ও ইতিহাসের অভিঘাত নিয়ে নানামুখী ব্যাখ্যা চলতে পারে। কিন্তু তাদের কখনও অস্বীকার করা যায়না। ঊনিশ শতকে ফ্রেডরিক গ্রাউস সাহেব ইংরিজিতে অনুবাদ করেছিলেন রামচরিতমানস। তিনি বলেছিলেন সমগ্র 'বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি'তে, কলকাতা থেকে হরিদ্বার পর্যন্ত এই গ্রন্থের মতো প্রভাব ও অভিঘাত অন্য কোনও সাংস্কৃতিক সৃষ্টির নেই। তখনই রচনাটি পাশ্চাত্যের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। ভিনসেন্ট স্মিথ তো অনেক অভিভূত মন্তব্য করেছিলেন।
    ".....not merely as the greatest modern Indian epic, but as something like a living sum of Indian culture............the tallest tree in the magic garden of medieval Hindu poesy," (Akbar: The Great Mughal-Smith)
    গান্ধিজি তাঁর আত্মজীবনীতে বলেছিলেন, "the Bible of Northern India...............the best and most trustworthy guide to the popular living faith of its people."(Gandhi-Autobiography)। সন্ত নাভাদাস তুলসীর জীবৎকালেই 'শ্রীভক্তমাল' গ্রন্থে বলেছিলেন তুলসী আসলে বাল্মীকির অবতার। নবযুগে মানুষের কাছে নতুনভাবে রামায়ণকে প্রস্তুত করতে আবির্ভূত হয়েছেন। এহবাহ্য, আমার অভিজ্ঞতা অনুযায়ী জেনেছি বঙ্গভাষীরা ব্যক্তিত্ব হিসেবে তুলসীদাস বা সৃষ্টি হিসেবে রামচরিতমানস'কে নিয়ে বিশেষ ওয়কিফ'হাল ন'ন। এই মূহুর্তে যখন 'রাম' নামক পৌরাণিক চরিত্রটির ছায়ার আড়ালে মানুষের মুক্তচিন্তার উপর ক্রমাগত অস্ত্রাঘাত হয়ে চলেছে, তখন তুলসী ও তাঁর রাম আমাদের কাছে বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ হয়ে উঠছেন। রাজনীতির এঁটে দেওয়া ভয়ের মুখোশটি ছিঁড়ে ফেলে 'রামে'র পরিচয় জানতে চাইলে তুলসীর হাত আমাদের ধরতেই হবে। হয়তো একটু ফিলমি শোনাবে, কিন্তু এই সব গোমূর্খদের বলতে ইচ্ছে করে, “রাম কা নাম বদনাম না করো.. ”

    (সৌজন্যঃ চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম)
  • বিভাগ : ব্লগ | ২৯ মার্চ ২০১৮ | ১৩৫ বার পঠিত
আরও পড়ুন
ক্ষমা - Rumela Saha
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা

  • পাতা : 1
  • dd | 193.82.16.194 (*) | ২৯ মার্চ ২০১৮ ০৪:৩১63934
  • খুবি ভাল্লাগ্লো। তবে এটা কি আরো লেখা হবে? মানে আরেক কিস্তি? কিরম abruptly শেষ হলো মনে হচ্ছে।
  • শিবাংশু | 55.249.72.160 (*) | ২৯ মার্চ ২০১৮ ০৭:১৫63932
  • আবার আবার লাঠালাঠি। হ্যাঁ, সেই পৌরাণিক চরিত্রটির আড়াল নিয়ে। পাঁচ হাজার বছরের ইতিহাসেও যাঁর থেকে জমপেশ আইকন খুঁজে পাননা 'হিন্দুত্ব'বাদীদের দল। যাবতীয় মূর্খতা, হিংস্রতার দায়ভাগ লুকিয়ে রাখার নিরন্তর প্রয়াস হতভাগ্য চরিত্রটির মুখোশের আড়ালে। কীভাবে হলো এর উৎপত্তি? কেনই বা হলো?

    'চার নম্বর প্ল্যাটফর্ম' ওয়েবপত্রে প্রকাশিত হয়েছিলো এই লেখাটি। আগ্রহীজনেদের জন্য এখানেও থাক।
  • প্রতিভা | 125.96.131.90 (*) | ২৯ মার্চ ২০১৮ ০৮:৩৫63933
  • খুব ভালো লেখা। নিজের সংগ্রহে রাখলাম।
  • করোনা

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত