• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • মৃগদাব

    Indrani
    ব্লগ | ২৩ অক্টোবর ২০১৬ | ১০৬ বার পঠিত

  • সুখ বলতে সুপর্ণার চোখে একটা ছবি ভাসত -সে ছবির কতখানি সত্য কতখানি মনগড়া না কি পুরোটাই স্বপ্ন -সুপর্ণা জানে না। সুখ ভাবলে কোথাও যেন কিরকির শব্দ করে প্রজেক্টর চালু হয়ে যেত আর সুপর্ণা একটা সাদা কালো ভিডিও ক্লিপ দেখতে পেত- চোখের একদম সামনে। সুপর্ণা দেখত একটা চওড়া রাস্তা-নতুন সব ঘরদোর তৈরি হচ্ছে একদিকে-পাঁজা পাঁজা ইঁট, সিমেন্ট , বালি, স্টোনচিপসের ঢিপি, ভারা বেঁধে কাজ , অন্যদিকে অজস্র কাশফুল আর মহালয়ার আগের দিন বেলা দশটা নাগাদ মা বাবা আর সুপর্ণা রিকশা করে যাচ্ছে। সে ছবিতে রোদ চড়া নয়-নীল আকাশ ; আর সেই আকাশের নিচে পিচঢালা নতুন রাস্তা ধরে যেন এক গৃহপ্রবেশের নেমন্তন্নে যাচ্ছে সুপর্ণা, যেন ফিরবে সন্ধ্যায় , যেন বিকেলে আর পড়াশোনা নেই তার। তারপর যেন শেষরাতে মহালয়া শুনবে, আর তারপরদিন রবিবার। সোমবারে যেন কোনো ক্লাস টেস্ট নেই বরং পুজোর ছুটি পড়ে যাবে দুপুরে। এব্যতীত গৃহপ্রবেশের নেমন্তন্নের মেনুতে ফিসফ্রাই একথাও যেন জানা গেছে আগেই। একের পর এক সুখবোধ, আনন্দ, ভালো লাগা যেন মুক্তোর মালার মত পরপর গাঁথা- যেন কোথাও কোনো ফাঁক নেই, যেন বিষাদ কিংবা দুঃখ ঢোকার কোনো পথই খোলা নেই। ঘটমান বর্তমান আর অদূর ভবিষ্যত মিলিয়ে সেই ভিডিও ক্লিপ কেই সুপর্ণা সুখ বলে জেনেছে এতকাল। মালার মত নিরবচ্ছিন্ন সুখ পেতে হ'লে দাম ধরে দিতে হয়-এই কথাটা অবশ্য সুপর্ণা ধীরে ধীরে জেনেছে। কোনো কোনো রাতে ব্যালকনিতে বসে থাকতে থাকতে করুগেটেড ফাইবারের শেডের ভেতর দিয়ে চাঁদের মালা দেখত সুপর্ণা। অখ্ন্ড একটানা। এই দেখার পিছনে কোনো এক শারীরবৃত্তীয় বা নিছক ভৌত কারণ আছে যেটা সুপর্ণা জানত না অথচ এই চাঁদের মালা যে চোখের আড়াল হতে দেওয়া চলবে না এই রকম তার মনে হ'ত। এইভাবে নিরবচ্ছিন্ন সুখবোধে সে মজতে থাকে, সেইমত নিজেকে ট্রেইন করে তারপর অভ্যস্ত হয়ে যায়। অখন্ড সুখবোধের মূল্য সে চুকিয়ে আসছে আজ চল্লিশ বছর। কারোর কোনো কথায় কোনোদিন না বলেনি সুপর্ণা।
    এই যেমন আজ এই ট্যুরিস্ট লজের ঘরে সে আর অতনু বিয়ের কুড়ি বছর উদযাপন করতে এসেছে, সেও অতনুর ইচ্ছায়, অতনুর পছন্দে। কোথায় যাবে, হোটেলে থাকবে না ট্যুরিস্ট লজে, কি খাবে সবই অতনুর ছকে দেওয়া। সুখবোধের চাঁদমালা সুপর্নার হস্তধৃত এতদিনে, সে তা হাতছাড়া করতে চায় নি, বলাই বাহুল্য। অতনুর সঙ্গে ওর বিয়েটাও এভাবেই- সুখের মডেল অনুসারী। মায়ের প্রতিটি কথায় সে হ্যাঁ বলেছিল-পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেওয়ায়, পাত্রপক্ষের মেয়ে দেখতে আসায়, অতনুকে কেমন লাগল প্রশ্নের উত্তরে সে হ্যাঁ বলেছে, ঘাড় কাত করে মাথা নেড়েছে। রোম্যান্সের সামান্য একটা সুতো ছিল অবশ্য-যেদিন অতনু ওকে দেখতে আসে সেই আশ্বিনের সকালে আকাশবাণী কলকাতা ক র সাতটা চল্লিশে 'শরতে আজ কোন অতিথি এল প্রাণের দ্বারে' বেজেছিল, সন্ধ্যায় অতনু সহ পাত্রপক্ষ সুপর্ণাদের বাড়ি থেকে ফিরে যাওয়ার এক ঘন্টার মধ্যেই ফোন এলে , ফোনের ওধারের হবু জা, ফোনের এধারের বা মা জেঠু জেঠিমা সুপর্ণার উত্তরের প্রত্যাশী হয়। সুপর্ণার কানে শরতে আজ কোন অতিথি বাজতে থাকে এবং সে এক সেকেন্ডের কম সময়ে হ্যাঁ বলে। এ বিষয়ে গিনেস রেকর্ড বুকে কোনো রেকর্ড আছে কি না জানা ছিল না কারোরই , তবু সুপর্ণার মা অবাক হয়ে বলতে থাকে-'আরেকটু সময় নিয়ে ভাবতে পারতি,' বাবা বলেছিল, 'স্বচ্ছন্দে না বলতেই পারিস'। এখন 'না' বললে , আবার কবে এই রকম পরিস্থিতি আসবে এবং আজকের আর সেই ভবিষ্যত পরিস্থিতির মাঝে ফারাক কতদিনের এবং সর্বোপরি সেই ফারাকে অখন্ড সুখবোধের মডেলটি বিপর্যস্ত হয়ে যাবে কি না সে বিষয়ে কোনো অদৃশ্য অঙ্ক কষা সুপর্ণার মনে চলতে থাকে এবং ফলশ্রুতি 'হ্যাঁ' তে দাঁড়ায়।

    এই সব ছিল পুরোনো কথা। আজ ওরা অন্য শহরে। এই শহরে সবাই হরিণ দেখতে আসে। রিসর্টের ঘরে ঘরে বিছানার চাদরে হরিণের মোটিফ, বিলবোর্ডে হরিণের ছবি, বাজারে হরিণ আঁকা টি শার্ট, হরিণের সফট টয়, রাস্তায় তীরচিহ্ন দিয়ে, একাধিক ভাষায় 'ডিয়ার পার্ক এই দিকে' লেখা। আজ সকালে রিসর্টে পৌঁছনোর পরেই অতনু দরজা বন্ধ করেছে, দুপুরে 'চলো তোমাকে এখানকার ফেমাস বিরিয়ানি খাওয়াই' বলেছে-এসবই সুপর্ণার হস্তধৃত সুখের মালায় একদম খাপে খাপে ফিট করে গেছে। রোদ পড়লে বিকেলে ওরা ডিয়র পার্কে হরিণ দেখতে যাবে-এরকমই কথা হয়ে আছে। সুপর্ণা এখন অতনুর পাশে শুয়ে , বালিশে মাথা, এ সি মেশিনের মৃদু আওয়াজ আসছে, ভারী পর্দার বাইরে দুপুরের রোদ, পাশের ঘরে বড় গোছের একটা গ্রুপ সদ্য চেক ইন করল। হাল্কা কথা শোনা যাচ্ছে করিডোরে, একটা বাচ্চা একটানা গাইছে, হুড় হুড় হুড় দাবাং দাবাং। এক কথায়, ঘটমান বর্তমান বা অদূর ভবিষ্যতে কোনো বেদনাবোধের স্থান নেই।

    ওদের রিসর্ট থেকে ডিয়ার পার্ক মিনিট পঁয়্তাল্লিশ, সূর্য ডোবার সময়ে হরিণরা দল বেঁধে জল খেতে আসে। ট্যুরিস্টরা সানসেট , জলস্রোত আর হরিণের পালকে এক ফ্রেমে ধরে নিয়ে বাড়ি যায়। বেরোনোর আগে অতনু ক্যামেরার ব্যাটারি চেক করল। রিসর্টের বাসে আরো দুটি দল , সানগ্লাস, টুপি, জলের বোতল। বাচ্চা ছেলেটা একই গান গেয়ে চলেছে -হুড় হুড় হুড় দাবাং দাবাং। হুড় হুড় হুড় দাবাং দাবাং।
    যদিও বিকেল, রোদ এখনও চড়া, উল্টো দিক থেকে হু হু ট্রাক , বাস, অ্যাম্বাসাডর মারুতি, দুপাশে ধানক্ষেত, কাশের গোছা, রাস্তায় কোথাও কোথাও ধান শুকোতে দেওয়া আছে। ড্রাইভারের পাশের সিটে অতনু যাত্রাপথের টানা ভিডিও তুলছে , পরে এডিট ক'রে ফেসবুকে আপলোড করে দেবে। দাবাং দাবাংএর দল আর অন্য দলটি সূর্যাস্তের সময়ে জলের কাছে পৌঁছোনো নিয়ে সামান্য চিন্তিত। বাসের ড্রাইভার 'বালম পিচকারি' চালিয়ে দিয়েছে। এই সময় , সামনে রাস্তার ওপরে একটা ভীড় দেখতে পেলো সুপর্ণা। অতনুও দেখেছে সম্ভবতঃ। ড্রাইভার গান বন্ধ করে বাসের গতি কমালো। যে ভীড়টা দূর থেকে ছোটো মনে হচ্ছিল, কাছ থেকে তাকে আর ছোটো লাগছিল না সুপর্ণার। উপরন্তু রাস্তার এদিকের ধানক্ষেত , ওদিকের ইঁটভাটা পেরিয়ে আরো কিছু মানুষ রাস্তায় এসে উঠতে লাগল। কিছু লোকের হাতে বাঁশ লাঠি আর টাঙ্গি দেখল সুপর্ণা। ভীড়ের মধ্যে থেকে দুজন হাতে গামছা নাড়তে নাড়তে বাসের দিকে এগিয়ে এলে, ড্রাইভার বাস থামিয়ে দাঁড়িয়ে পড়ল। দাবাংএর দল চেঁচিয়ে বলল, 'কেউ নামবেন না বাস থেকে, প্লীজ, প্লীজ', অতনু 'কি হ'ল' বলতে না বলতেই , বাসের গায়ে লাঠি ঠুকতে ঠুকতে কেউ বলল, 'এই রাস্তা বন্ধ, বলছি না ব্যাক করতে'। ড্রাইভারের পাশের জানলার কাচ নামানো ছিল, সেখানে মুখ বাড়িয়ে চিৎকার করে কেউ বলল-'বলছি না,ব্যাক করতে! কানে কথা যায় না?' অতনু মুখ বাড়িয়ে বলল, 'কি হয়েছে, কি হয়েছে ভাই'? ঐ ভীড়কে মোটামুটি দুভাগে ভাগ করতে পারছিল সুপর্ণা- একটা দল যাদের হাতে লাঠি, বাঁশ, অন্য ভাগটা স্রেফ দর্শক।, অতনুর দিকের ভীড়টা মূলতঃ দর্শকের।সেখান থেকেই কেউ বলল-'মোষ চুরির ধোলাই চলতেসে।' সুপর্ণা এই বার দেখতে পায় ভীড়ের ভেতরে আরেকটা ছোটো ভীড় , সেই ছোটো ভীড়ের মাঝখানে কেউ শুয়ে-বিকেলের রোদে শুধু শুষ্ক দুটি পায়ের পাতা ; লাঠি হাতে লোকদুটি বাসের জানলা ছেড়ে আবার ভীড়ের দিকে দৌড়ে যায়।
    অতনু কপাল মুছে বলে,' যত্তো সব ঝামেলা , ব্যাক করে ডানদিকের মাটির রাস্তায় চলো, ওখান থেকে হাইওয়ে ধরলে এখনও সানসেট দেখা যাবে।‘
    বাকি পথ একদম ঝামেলা রহিত ছিল। শেষ বিকেলে ওরা জলের কাছে, হরিণের কাছে, সূর্যাস্তের কাছে ঠিকই পৌঁছতে পেরেছিল, ছবি উঠেছিল অনেক, সেল্ফিও।

    সে রাতে রিসর্টের ডাইনিং হলের ৩৯ ইঞ্চি স্ক্রীনে সংবাদ্পাঠক মোষ চোর সন্দেহে এক কলেজ ছাত্র হত্যার খবর দেয়; জানা যায় দুষ্কৃতীরা অসনাক্ত-পুলিশ তদন্ত চালাচ্ছে। বুমের সামনে শীর্ণা বৃদ্ধাকে বিলাপ করতে দেখে সুপর্ণা, একটি কিশোরীকেও।মৃত ছাত্রর মা আর বোন যথাক্রমে। সুপর্ণার হস্তধৃত মালাটির জপ বন্ধ হয়ে যায় এই খানে।
    সুপর্ণা জিগ্যেস করে-‘তোমার ক্যামেরা অন ছিল না অতনু? ছবি ওঠে নি একজনেরও?’
    -‘তো?’
    -‘লোকাল থানায় গেলে হয় না?’
    -‘পাগল না কি তুমি? এই সব ঝামেলায় যেচে যায় কেউ? তার ওপর শিওর পোলিটিকাল পার্টি ইনভলবড। তিন আঠারোয় পুরো চুয়ান্ন ঘা হয়ে যাবে। দুদিনের জন্য বেড়াতে এসে এই সব কেউ করে?’

    সুপর্ণা খিদে নেই বলে উঠে যায়। অতনুও ওঠে।
    -‘মাথা ধরেছে তোমার? একটা স্যারিডন খেয়ে শুয়ে থাকো বরং। কাল ভোরে উঠতে হবে। গাড়ি বলা আছে।‘

    সমস্ত রাত গুম মেরে থাকে সুপর্ণা। বারে বারে জল খায়, বাথরুমে যেতে থাকে। ভারি পর্দার ফাঁক দিয়ে রিসর্টের বাগানের আলোর একফালি ওদের বিছানায়, অতনু ঘুমোচ্ছে। আলো জ্বালিয়ে ক্যামেরা খোঁজা সম্ভব নয়, জেগে যাবে । অন্ধকারে সুপর্ণা ভাবতে থাকে , 'ক্যামেরা কোথায় রেখেছে অতনু'?

    পর্দার যে ফাঁক দিয়ে বাগানের আলো ঢুকছিল রাতে, সেই ফাঁক দিয়ে সূর্যের আলো ঢুকলে , অতনুর দিকের সাইড টেবিলে ওর ক্যামেরা দেখতে পায় সুপর্ণা। এই সময় অতনু ঘুম ভেঙে সুপর্ণার চোখের দিকে তাকায় তারপর ক্যামেরার দিকে।
    -‘কি ভাবছটা কি? এই সব কি পাগলামি? কি হয়েছে কি তোমার?’
    -‘ক্যামেরাটা নিয়ে থানায় চলো অতনু, প্লীজ।‘
    -‘ও ভিডিও এক্ষুণি ডিলিট করে দেব-পুলিশকে দেখানোর কিছু থাকবে না।‘
    এক লাফে বিছানা ছেড়ে ওঠে অতনু। পর্দা সরিয়ে, চোখ কুঁচকে ক্যামেরা অন করে।
    পর্দা সরাতেই সূর্যের আলো হু হু করে ঢুকতে থাকে, বিছানায় থৈ থৈ করে রোদ, চাদরে হরিণের মোটিফে আলো-সবুজ ঘাস পরিস্ফুট হয় প্রথমে তারপর হরিণেরা জাগে। জেগে ওঠে, জ্যান্ত হয়, মাথা তুলে সুপর্ণার দিকে তাকায়। সেই চাহনিতে সুপর্ণার হস্তধৃত এতকালের সুখমালাটি ছিঁড়ে ঝরঝর করে মুক্তো গড়িয়ে পড়ে, মেঝেতে ছড়ায়। ঠিক তখনই মিনিটের ভগ্নাংশ সময়ে, এত বছরের অনুচ্চারিত সমস্ত ‘না’ গুলিকে সংহত করে বিছানার অন্য প্রান্তে পৌঁছতে সুপর্ণা ভল্ট খায় - দীপা কর্মকারের প্রাদুনোভা ভল্ট - যে ভল্ট না দিলে নতুন করে কিছু শুরু করা যায় না। হতবাক অতনুর হাত থেকে ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে দরজা খোলে সুপর্ণা।। উস্কোচুল, লাল চোখ আর রাতপোশাকেই রাস্তা দিয়ে ছুটতে থাকে। চল্লিশ বছরের সুপর্ণা স্প্রিন্ট টানে খালি পায়ে। সঙ্গে হরিণগুলি। সুপর্ণা যখন করিডোর দিয়ে দৌড়োচ্ছিল, পাশের ঘর, তার পাশের ঘর থেকে আরো হরিণ বেরিয়ে আসে। নিচের লবি, ডাইনিং হল, রিসেপশন থেকে আরো আরো হরিণ।

    কথিত আছে, সন চোদ্দোশো বাইশ বঙ্গাব্দে আশ্বিনের সকালে বড় রাস্তা ধরে এক দল হরিণকে দৌড়তে দেখা গিয়েছিল। যানবাহন রুদ্ধগতি , এবং পথচারীরা থমকে দাঁড়িয়েছিল। অজস্র টুরিস্ট আর স্থানীয় বাসিন্দা সে দৃশ্য প্রত্যক্ষ করেছিল। সেল্ফি তোলার সাহস করে নি কেউই। তীব্র গতিতে ছুটে যাওয়া সমস্ত হরিণের চোখ রক্তবর্ণ , গ্রীবাভঙ্গী গর্বিত , এবং শৃঙ্গ উন্নত ছিল।

    সন চোদ্দোশো বাইশের আশ্বিনের সকালে হরিণের বন শূন্য হয়ে গিয়েছিল।
  • বিভাগ : ব্লগ | ২৩ অক্টোবর ২০১৬ | ১০৬ বার পঠিত
আরও পড়ুন
ক্ষমা - Rumela Saha
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা

  • পাতা : 1
  • | 116.221.136.223 (*) | ২৩ অক্টোবর ২০১৬ ০২:১৮58813
  • পড়েই বলেছিলাম যা বলার। :-)
    আপাতত ভাসিয়ে দিই অন্যদের পড়ার জন্য।
  • Titir | 138.210.106.129 (*) | ২৪ অক্টোবর ২০১৬ ০৫:৫১58816
  • পড়ে ফেললাম একনিশ্বাসে। বড় বাস্তব চিত্র।
  • sch | 37.251.71.51 (*) | ২৪ অক্টোবর ২০১৬ ০৭:০৩58814
  • চাবুক
  • h | 213.132.214.85 (*) | ২৪ অক্টোবর ২০১৬ ১১:৩৪58815
  • দারুণ লাগলো।
  • kumu | 132.161.10.115 (*) | ২৫ অক্টোবর ২০১৬ ০২:০৭58818
  • খুব স্পর্শ করল লেখাটি।

    " সুপর্ণার হস্তধৃত এতকালের সুখমালাটি ছিঁড়ে ঝরঝর করে মুক্তো গড়িয়ে পড়ে, মেঝেতে ছড়ায়।"
  • aranya | 154.160.226.95 (*) | ২৫ অক্টোবর ২০১৬ ০৫:০৩58821
  • ছুঁয়ে যাওয়া লেখা। হরিণের দৃপ্ত, ক্রুদ্ধ দৌড়, উর্দ্ধশ্বাস অথচ সাবলীল - খুবই ভাল এসেছে।
  • শিবাংশু | 55.249.72.20 (*) | ২৫ অক্টোবর ২০১৬ ০৫:৩৮58822
  • সময় নিয়ে পড়বো বলে রাখা ছিলো। অনেকদিন পরে ইন্দ্রাণীর লেখা। প্রশ্নটা থিম নিয়ে নয়, ট্রিটমেন্ট নিয়ে। যথারীতি সফল ও স্পর্শ করা নির্মাণ। আরো একটি ব্যাপার নতুন লাগলো। আগের লেখাগুলির মতো অঢেল ইংরেজি শব্দ ও পরিভাষার ব্যবহার নেই। অথচ বাকভঙ্গি সমান সাবলীল। বাহ....
  • শিবাংশু | 55.249.72.20 (*) | ২৫ অক্টোবর ২০১৬ ০৫:৩৮58823
  • সময় নিয়ে পড়বো বলে রাখা ছিলো। অনেকদিন পরে ইন্দ্রাণীর লেখা। প্রশ্নটা থিম নিয়ে নয়, ট্রিটমেন্ট নিয়ে। যথারীতি সফল ও স্পর্শ করা নির্মাণ। আরো একটি ব্যাপার নতুন লাগলো। আগের লেখাগুলির মতো অঢেল ইংরেজি শব্দ ও পরিভাষার ব্যবহার নেই। অথচ বাকভঙ্গি সমান সাবলীল। বাহ....
  • de | 24.139.119.171 (*) | ২৫ অক্টোবর ২০১৬ ০৫:৪৬58819
  • "এত বছরের অনুচ্চারিত সমস্ত ‘না’ গুলিকে সংহত করে বিছানার অন্য প্রান্তে পৌঁছতে সুপর্ণা ভল্ট খায় - দীপা কর্মকারের প্রাদুনোভা ভল্ট - যে ভল্ট না দিলে নতুন করে কিছু শুরু করা যায় না" --

    বারবার পড়লাম -
  • Robu | 11.39.56.5 (*) | ২৫ অক্টোবর ২০১৬ ০৬:০৫58824
  • চাবুকই বটে। রাজীব আর মায়াকে মনে পড়ল। ঠিকই।
  • i | 134.149.125.168 (*) | ২৫ অক্টোবর ২০১৬ ১২:০৯58820
  • গল্প পড়বার জন্য সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ আর কৃতজ্ঞতা। লেখাটি একটি লিটল ম্যাগাজিনের শারদ সংখ্যার জন্য লিখেছিলাম, পত্রিকাটি সদ্য প্রকাশিত হয়েছে।
    অত্যন্ত সাধারণ থিমের গল্প। দর্পিত ভঙ্গিতে হরিণের দৌড়ে যাওয়া গল্পে ধরতে পারলাম কি না এটাই চ্যালেঞ্জ ছিল নিজের কাছে।

    এটুজেড,
    রাজীব আর মায়াকে মনে পড়া খুবই স্বাভাবিক। যেটুকু যা টিখেছি এযাবৎ, এরকম এক জোড়া গোছের গল্প আরও আছে। একটি লিখে মনে হয়, যদি এমন হোতো।

    পরে আরও কথা হবে।

    ইতি ছোটাই
  • Atoz | 161.141.85.8 (*) | ২৫ অক্টোবর ২০১৬ ১২:১৪58817
  • সুপর্ণাকে দেখে "নাইদার নাইট নর ডে" লেখাটার মায়াকে মনে পড়ে গেল। রাজীব আর মায়া ছিল সেখানে। এখানে অতনু আর সুপর্ণা।
  • সৌম্যদীপ | 122.133.223.2 (*) | ২৬ অক্টোবর ২০১৬ ১০:২৩58825
  • বেশ
  • i | 147.157.8.253 (*) | ২৭ অক্টোবর ২০১৬ ০৪:১৩58826
  • একটা বাতাস কাটার আওয়াজ কোনো কোনো পাঠক শুনলেন। ভালো লাগল।

    অরণ্য, শিবাংশুদা, রোবু আর সৌম্যদীপকে আন্তরিক ধন্যবাদ।

    আবার কোথাও টিখলে এখানে পড়িয়ে যাবো নিশ্চয়ই।

    পাঠককে নমস্কার।

    ইতি ছোটাই।
  • কুমু | 132.161.117.218 (*) | ২৭ অক্টোবর ২০১৬ ০৫:২১58827
  • হস্তধৃত এতকালের সুখমালাটি ছিঁড়ে যাওয়া,যা হয়তো বা নিশ্চিত ,সেই প্রাক মহালয়া সকালের পর থেকেই অস্তিত্বহীন-খুব গুরুত্বপূর্ণ লেগেছে।
  • কুমু | 132.161.117.218 (*) | ২৭ অক্টোবর ২০১৬ ০৫:৩৩58828
  • মৃগদাব নামটি ভাল লাগল,এটিও লেখা থাক।
  • U | 172.229.184.102 (*) | ২৮ অক্টোবর ২০১৬ ০৩:০৫58829
  • যাস্ট মুগ্ধ হয়ে গেলাম। অনেকদিন পরে ইন্দ্রাণীর লেখা পড়তে পেলাম। তাই মুগ্ধতা আর ভালোলাগা মিলে মিশে একাকার।
  • π | 233.231.47.181 (*) | ০১ নভেম্বর ২০১৬ ১০:০২58830
  • এই লেখাটা জমিয়ে রেখেছিলাম। কারুর কারুর লেখা জমিয়ে পড়তে ভাল লাগে, কারণ লেখাগুলো জমাতে ইচ্ছে করে।

    যেটা লিখতে যাচ্ছিলাম, দেখি ছোটাইদি নিজের মন্তব্যেই সেই প্রসঙ্গে বলে গেছে,
    'অত্যন্ত সাধারণ থিমের গল্প। দর্পিত ভঙ্গিতে হরিণের দৌড়ে যাওয়া গল্পে ধরতে পারলাম কি না এটাই চ্যালেঞ্জ ছিল নিজের কাছে।'
    এই চ্যালেঞ্জ নেওয়াতে ইন্দ্রাণীদি সফল, বলাই বাহুল্য।
    যে থিম হয়তো অন্য অনেকের হাতেই নারী থেকে নারীশক্তিতে উত্তরণের হয় খুব আবেগগদগদ নয় কিছুটা স্লোগানধর্মী লেখায় পরিণত হয়ে যেতে পারতো কিম্বা কিছুটা হলেও সেসব এলিমেণ্টের আনাগোণা হতই, সেইটা কতটা সুনিপুণভাবে এড়ানো যায়, অথচ ইম্প্যাক্ট হয় চাবুকের মতই, সেটা ইন্দ্রাণীদির লেখা থেকে শেখার।

    কিন্তু দিনের শেষে শুধু হরিণের দর্পিত ভঙ্গিটিই নয়, আমার প্রাপ্তি আরো কিছু।
    'সুপর্ণা এই বার দেখতে পায় ভীড়ের ভেতরে আরেকটা ছোটো ভীড় , সেই ছোটো ভীড়ের মাঝখানে কেউ শুয়ে-বিকেলের রোদে শুধু শুষ্ক দুটি পায়ের পাতা '

    এই ছবিটা মনে থেকে যাবে। জমিয়ে রেখে দেব। এই ছবির অস্বস্তিটা।
  • i | 147.157.8.253 (*) | ০৩ নভেম্বর ২০১৬ ০৯:০৩58831
  • থ্যাংকু পাই।

    একটু ব্যস্ততায় লিখলাম। পরে বিশদে কখনও।
  • করোনা

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত