ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  ব্লগ

  • বর (Husband) সম্বন্ধে একটি প্রবন্ধ - বর কাকে বলে, তারা কত প্রকারের হয় ও কী কী

    ইন্দিরা ব্যানার্জী লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ০৭ মে ২০২২ | ৬০৩ বার পঠিত | রেটিং ৪ (৫ জন)
  • বৌদের প্রকারভেদ নিয়ে নানাপ্রকার নিন্দেমন্দ করা কিছু লেখা ফেসবুকে কয়েকদিন হল ঘুরতে দেখে, আমি শেষমেশ ভাবলাম, অনেক হয়েছে - এবার একটা উত্তর দিতেই হবে। তাই সমস্ত পত্নীসমাজের পক্ষ থেকে আমি এই নিম্নলিখিত উত্তর দিলাম –

    (কাঠামোটির খানিকটা সংগৃহীত, কিন্তু বাকি কাঠামো তৈরী এবং দুএকটি ছাড়া বাকি প্রত্যেকটির description সব আমার লেখা…)

    প্রশ্ন : বর কাকে বলে?
    উত্তর : বিবাহের মাধ্যমে শাশুড়ির একটি ধেড়ে বাচ্চাকে দত্তক নিয়ে সংসার শুরু করলে তাকে বর বলে।

    প্রশ্ন : বর  কত প্রকারের হয় ও কি কি?
    উত্তর : বর অনেক প্রকারের হতে পারে। কিছু কিছু বরের মধ্যে মাঝে মাঝে একাধিক টাইপের মিশ্রণ দেখা যায় । যেমন ধরুন..

    ) অলস বর (সারাদিন গেম খেলে বা খেলা দেখে।  কোনো কাজ করতে বললেই নানা অজুহাত দেখায়।)

    ) খেঁকুরে বর ( সারাদিন খ্যাচ খ্যাচ করে - কোনো কারণ থাকুক বা না থাকুক। )

    ) ফিচেল বর (এদের জীবনের এক এবং একমাত্র উদ্দেশ্য এবং পরমার্থ  হচ্ছে বৌয়ের লেগপুলিং করা। এদের যেদিন অফিস ছুটি থাকে সেদিন এরা সারাদিন ধরে শুধু বৌয়ের পেছনে লাগে। এরা বৌকে নানাভাবে রাগিয়ে নির্মল আনন্দ লাভ করে। জীবনে একটি বা দুটি শ্যালিকা থাকলে এদের প্রাণে আনন্দ আর ধরে না - শুধু আরেকটি প্রাণীর পেছনে লাগার সুযোগ পাওয়া যাবে এই খুশিতে। By the way, প্রিয় পাঠককূল, আমারটি হচ্ছে এই ভ্যারাইটির প্রাণী। )

    ) রোম্যান্টিক বর ( সবচেয়ে দামী ভ্যারাইটি - তাই সহজলভ্য নয় সবসময় )

    ) মায়ের পোলা বর (এদের কাছে কোন ন্যায়-অন্যায় নেই, ভালো-মন্দ নেই, ঠিক-বেঠিক নেই। শুধু মা আছে।)

    ) সিরিয়াস বর (এরা সর্বদাই কোনো অজ্ঞাত কারণে গম্ভীর হয়ে থাকে। এদের সাথে ঠাট্টা-ইয়ার্কি করতে গেলে এমন ভাব করে যেন তারা world hunger বা world poverty-র কোনো permanent solution বার করছে - এসময় তরল হাসি-ঠাট্টা করলে গর্হিত অপরাধ করা হবে। কিন্তু কোনো ‘কাজের কাজ’ করার প্রমাণ দেখাতে এরা কখনোই পারেনা।)

    ) পড়ুয়া বর (এরা সর্বদা বই মুখে করে বসে থাকে। এরা বইতে এতটাই বুঁদ হয়ে থাকে যে বই পড়ার সময় জগৎসংসার ভুলে যায়। এরা সাধারণত নিজেদের দিকে নজর দেয় না - খেতে দিলে খায় তাও বই হাতে নিয়ে বসে। এরা চুল আঁচড়াতে প্রায়ই ভুলে যায় আর জামাকাপড়ের পারিপাট্য এদের কাছ থেকে আশা করাটাও বোকামির পরিচয় হিসেবে গণ্য করা হয়। এরা  প্রথম জীবনে মা এবং বিবাহ-পরবর্তী জীবনে সম্পূর্ণভাবে বৌয়ের ওপর নির্ভরশীল হয় - তাই যত্নশীলা পত্নী না পেলে এরা জীবনে খুব বিপদে পড়ে যায়। এদের বেশিরভাগেরই কোনো বিষয় নিয়ে কোনো ঝামেলা করার মনোবৃত্তি থাকেনা। অনেক বৌয়েরা এই বিশেষ ভ্যারাইটিকে খুবই পছন্দ করেন। এদের একটি উপপ্রজাতি হচ্ছে রিসার্চার বর’ - এদের বৌদের দুঃখ শুধু সমগোত্রীয় বৌয়েরা বোঝে বলে শুনতে পাওয়া যায়।)

    ) ইমম্যাচিওর বর (এদের ধারণা পৃথিবীর সব সমস্যার সমাধান পাবজি খেলে, নিত্যনতুন ইলেট্রনিক গ্যাজেট কিনে, swiggy / zomato থেকে খাবার অর্ডার করে, বা এদের বন্ধুদের সাথে ঘুরতে বেরিয়ে, বা বৌ-এর সাথে হাসি-ঠাট্টা করে হয়ে যাবে। এদের প্রিয় ডায়লগ হচ্ছে – ‘সব ঠিক হয়ে যাবে।‘ কিন্তু কিকরে ঠিক হবে জিজ্ঞেস করলে এরা তার উত্তর দিতে পারে না।  কিছু কিছু রিসেন্ট সার্ভে অনুযায়ী এদের সংখ্যা আজকাল ডেঞ্জারাসলি বেড়ে গিয়েছে। )

    ) জ্ঞানদাতা বর (এদের কোনো রস-কষ নেই… শুধু নানা বিষয়ে জ্যাঠামশাই-মার্কা জ্ঞান ঝাড়ে সারাদিন। এদের ধারণা এরা ছাড়া কেউই কোনো কিছু জানেনা। এদের বৌয়েরা প্রায় সর্বদাই অসুখী হয়।)

    ১০) আহ্লাদী বর (সারাদিন মান-অভিমান করে। তবে এদের প্রিয় খাবার রান্না করে খাওয়ালে বা পছন্দের জিনিস কিনে উপহার দিলেই এরা সাধারণতঃ ঠান্ডা হয়ে যায়।)

    ১১) উদাস বর (এদের মোক্ষপ্রাপ্তি হয়ে গিয়েছে পৃথিবীতে। এদের কোনো বিষয়েই কোনো মতামত বা বক্তব্য থাকেনা। বৌ, মা, বা বাড়ির যে কেউ কোনো ব্যাপারে এদের ইনপুট চাইলে এদের প্রিয় ডায়লগ হচ্ছে – “যা মনে হয় করো / যা ভালো বোঝো করো - কিন্তু আমাকে টেনো না।“ এদের কোনো ব্যাপারে আজ অবধি উৎসাহিত হতে দেখা যায় নি। এদের তেমন কোনো বন্ধুবান্ধবও থাকেনা।)

    ১২) চা-তক বর  (এরা সারাদিন শুধু চা খেতে চায়। বাড়িতে থাকলে এরা অনায়াসে বৌকে তিরিশ চল্লিশ বার চা করার হুকুম দিয়ে থাকে। তাই এরা  অফিসে গেলে এদের বৌদের হাড় জুড়োয়।  এদের চা তৃষ্ণা সন্তোষজনকভাবে মেটাতে পারার  মতো বৌ আজ অবধি জন্ম নেয়নি - তবে ল্যাবরেটরিতে কৃত্রিমভাবে বানানোর চেষ্টা চলছে।)

    ১৩) খাদ্যরসিক বর (এরা খেতে এতই ভালোবাসে যে এদের মধ্যে বেশিরভাগই নিত্যনতুন বাজার করে নিয়ে আসাতে খুব পটু হয়।  এরা এমন এমন রান্না খেয়েছে যেগুলোর আপনি কোনোদিন নামও শোনেননি। এরা জীবনে রন্ধনপটীয়সী বৌ না পেলে ডিপ্রেশনে চলে যায়। এদের মধ্যে একটা উপপ্রজাতি আছে যারা আবার নিজেরাও ভালো রান্না করতে পারে এবং বৌয়ের জন্মদিনে রেঁধেও খাওয়ায় - তাদেরকে বলে রাঁধুনে বর - রিসেন্ট সার্ভে অনুযায়ী এই বিশেষ উপপ্রজাতির বৌয়েরা তাদের বরদের পারলে সিন্দুকে তুলে রাখে। )

    ১৪) পেটুক বর (এদের ঘন ঘন খিদে পায় এবং এদের সারাদিনই মুখ চলে। এরা অফিস যাওয়ার সময় চার-পাঁচ রকম আলাদা আলাদা টিফিন নেয় - তার ওপর অফিস পাড়ার সব দোকান থেকে খেয়ে আসে। এরা যে এলাকায় থাকে তার পঞ্চাশ কিলোমিটার রেডিয়াসের মধ্যে সমস্ত খাবারের দোকানের নাম জানে এবং কোন দোকানের কোন খাবারটা সবচেয়ে ভালো সেগুলো এদের অটোমেটিক্যালি মুখস্থ থাকে। এরা নেমন্তন্ন পেলে কোনো অবস্থাতেই ছাড়ে না। কারোর বাড়িতে নেমন্তন্ন থাকলে বা নিজের বাড়িতে একটু ভালোমন্দ রান্না হলে এরা খেয়ে খেয়ে পেটখারাপ করে ফেলে। রাতে নেমন্তন্ন থাকলে বা রেস্টুরেন্টে খেতে যাওয়ার কথা থাকলে এরা প্রায় সারাদিন অভুক্ত থেকে পেটে জায়গা তৈরী করে। নেমন্তন্ন বাড়িতে এরা  ঢিলা প্যান্ট বা পাজামা পরে যায় এবং বেল্ট ব্যবহার করে না।)

    ১৫) লোভী এবং অকৃতজ্ঞ বর (এদের জন্য বৌ বা শ্বশুরবাড়ির লোক যাই করুক না কেন এরা তাতে নাক সিঁটকোয়। কোনো কিছুতেই এদের মন পাওয়া যায় না বললেই চলে। শ্বশুরবাড়ির দিকে তাকিয়ে থাকে নেক্সট কি উপহার আসছে দেখার জন্য - কিন্তু উপহার পেলে সেটার নিন্দে না করে এরা সাধারণত জলস্পর্শ করে না। শ্বশুরবাড়ির কেউই বা কোনো কিছুই তাদের চোখে সমালোচনার উর্ধে নয়। জামাইষষ্ঠীর আয়োজনের খুঁত খুঁজে বের করা এদের অন্যতম প্রিয় বার্ষিক ইভেন্ট।)

    ১৬) রাগী বর (এরা কথায় কথায় রেগে যায়।  এবং রেগে গিয়ে তুলকালাম কান্ড ঘটায়। এদের নিয়ে এদের বৌরা কনস্ট্যান্ট চিন্তায় থাকে।)

    সঙ্গত কারণে হুমকি-ওয়ালা বর, বৌ-পেটানো বর, পণ/যৌতুক লোভী বর, চরিত্রহীন বর - ইত্যাদি প্রজাতিগুলিকে আজকের আলোচনার বাইরে রাখা হলো। 
  • | রেটিং ৪ (৫ জন) | বিভাগ : ব্লগ | ০৭ মে ২০২২ | ৬০৩ বার পঠিত
  • আরও পড়ুন
    চিঠি - Shomita Banerjee
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • dc | 2401:4900:2313:da09:a0ae:2b15:32b3:8ed0 | ০৭ মে ২০২২ ০৮:১১507333
  • আমি তো জানতাম বর মোটে তিন রকম। জবর জবর তিন বর। 
  • প্রত্যয় ভুক্ত | ০৭ মে ২০২২ ০৮:৫৮507334
  • ওমাগো,হাসতে হাসতে গেলুম .....আমার ভাই ৩,৪ আর ৭ খুব পছন্দ হল ,কিন্তু পাওয়া যাবে না ভাগ্যে :(
  • | ০৭ মে ২০২২ ০৯:৩২507335
  • হা হা হা হা হেব্বি পছন্দ হল। 
  • Amit | 120.22.114.226 | ০৭ মে ২০২২ ১০:২০507336
  • আমার অর্ধাঙ্গিনী অবশ্য বলেন সব বরই আদতে  বর্বর। মানে ট্যাক্সনমিতে ওটা এক ধাপ ওপরে আসবে- ফ্যামিলি বা জিনাস। বাকিগুলো তার নিচে - সাবক্লাস বা স্পেসিস। 
  • Mousumi Banerjee | ০৭ মে ২০২২ ১১:০৭507339
  • দারুণ! দারুণ!!! 
    মিল পেলাম বেশ!  কিন্তু স্বীকার করা যাবে না। 
     
    লেখার ধরণ বড়ই চিত্তাকর্ষক।
     
  • ঝর্না বিশ্বাস | ০৭ মে ২০২২ ১৯:১৮507358
  • হেবি হেবি :)
    আরও অনেক সাব টাইপ আছে যেমন - সোনা বর ,হিরো বর ...তবে অধিকাংশই সংখ্যালঘু  :)
    আর 'বর' এর ডেফিনেশনটা যা হয়েছে না।..সুপার্ব   একেবারে... 
  • ইন্দিরা ব্যানার্জী | ০৭ মে ২০২২ ১৯:৪০507362
  • যাঁরা যাঁরা কমেন্ট করেছেন, নিজেদের মতামত জানিয়েছেন, তাঁদের সব্বাইকে থ্যাংক ইউ।  আপনাদের ভালো লেগেছে এটাই আমার মতো আনকোরা আনাড়ির পরম প্রাপ্তি। :)
  • aranya | 2601:84:4600:5410:3d6e:4cf9:c913:b49b | ০৮ মে ২০২২ ০৪:৫৫507384
  • ভাল লাগল, ইন্দিরা। আরও লিখুন 
    প্রেমিক, সেনসিটিভ, দায়িত্বশীল - এমন কিছু ক্যাটাগরি বাদ পড়েছে :-)
  • Amit | 124.171.213.124 | ০৮ মে ২০২২ ০৫:০৩507386
  • প্রেমিক ক্যাটেগরি আছে তো। ওতেই সব কভার হয়ে যাবে। বলে গিয়ে এমনিতেই ওই ক্যাটেগরি রেয়ার স্পেসিস। 
  • aranya | 2601:84:4600:5410:3d6e:4cf9:c913:b49b | ০৮ মে ২০২২ ০৫:০৮507387
  • 'রোম্যান্টিক' ক্যাটাগরি আছে বটে। মিসিয়েছিলাম, মাত্তর এক লাইন বরাদ্দ বলে wink
  • Amit | 120.22.142.106 | ০৮ মে ২০২২ ০৫:৫০507388
  • হ্যা। মনে হয় এতই রেয়ার যে বেশি জানা যায়না এদের সম্পর্কে। অনেকটা স্নো লেপার্ড এর মতো.
     
    :) :)
  • Prabhas Sen | ০৮ মে ২০২২ ১১:২৫507396
  • আলোচনার বাইরে রাখা বর দের "বর্বর" গোষ্ঠী ভুক্ত করা যেতে পারে।
  • tufan banerjee | ০৯ মে ২০২২ ০১:০০507434
  • ami petuk bor!
  • ঝর্না বিশ্বাস | ০৯ মে ২০২২ ১৯:৩৯507463
  • এই লেখাটা এলেই একবার পড়ি।  এক ঝলক ঠান্ডা হাওয়া দিয়ে যায় যেন ...মাথাটাও বেশ  ফুরফুরে লাগে :)
    মায়ের পোলা বর-টা জাস্ট ফাটাফাটি রকমের...এবার প্রফেশন অনুযায়ী বরের ডেফিনেশন হোক। যেমন ডাক্তার বর ,ইঞ্জিনিয়র বর :)
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। পড়তে পড়তে মতামত দিন