• বুলবুলভাজা  পড়াবই  শঙ্খ ঘোষ

  • গুজরাটি পাঠ : শঙ্খ ঘোষ—এই পৃথিবীর এক কবি

    প্রবোধ পারিখ
    পড়াবই | শঙ্খ ঘোষ | ২৫ এপ্রিল ২০২১ | ৭৪৩ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • আজ, ৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, শঙ্খ ঘোষের নবতিতম জন্মদিন। অন্তত সাড়ে ছয় দশক ধরে বাংলাভাষী মানুষ তাঁর কবিতা পড়ে আসছেন। চর্চা করে আসছেন। কিন্তু যাঁরা বাংলাভাষী নন, অথচ কবিতায় গভীর আগ্রহী, তাঁরা কীভাবে পড়ছেন তাঁর কবিতা? কবির জন্মদিনে রইল তেমনই সাত ভাষাভাষী তন্নিষ্ঠ কবিতা-পাঠকের ন-টি লেখা—কাশ্মীরি, মালয়ালম্‌, গুজরাটি, হিন্দি, ওড়িয়া, অসমিয়া এবং উর্দু। অমিয় দেবের পরামর্শ ও সক্রিয় সাহায্য ছাড়া এই শ্রদ্ধার্ঘ্যটি নির্মাণ করা সম্ভব হত না। বিশেষ সহায়তা করেছেন রামকুমার মুখোপাধ্যায় এবং শ্যামশ্রী বিশ্বাস সেনগুপ্ত। ত্রুটি-বিচ্যুতি, অসম্পূর্ণতার দায়িত্ব সম্পূর্ণ আমার — সম্পাদক


    ‘‘গান কেউ অন্ধকারে নিজে নিজে লেখেনি কখনো
    আমাদের সকলেরই বুকে মেঘ পাথর ভেঙেছে
    সে শুধু তোমার জন্য, গান্ধর্ব, তোমার হাত ছুঁয়ে
    এই শিলাগুল্মগুলি চিরজাগরূক বোধ নিয়ে আসে
    ’’



    শিল্পী প্রবোধ পারিখ। জলরং

    এ গ্রহের যতেক নদীতে তুমি স্বচ্ছন্দে আছো, এমনটাই আমি কল্পনা করতে চাই
    আছো অরণ্যের অজস্র অক্ষরে
    তোমায় সঙ্গ দেয় তারা
    ট্রামে জোড়াসাঁকোর পথে
    হাঁটে কদমে কদম রেখে তোমার সঙ্গেই
    যত মিছিলে, ধীরে, ভেসে-যাওয়া একফালি মেঘের মতন!

    কল্পনা করতে চাই, স্বচ্ছন্দে রয়েছো তুমি রাত্রি যখন বদলে যায়
    কথোপকথনে সেই সব পথের সঙ্গে কোনও মানচিত্রে নেই চিহ্নমাত্র যার
    উৎকণ্ঠিত শহরপটে ঢুকে পড়ছো তুমি
    কর্কশ শোরগোলে ভরা অন্ধকার যত অলিতে-গলিতে, যারা গান গায়
    সব ট্র্যাফিক জ্যাম ফিকে হয়ে গেলে



    শিল্পী প্রবোধ পারিখ। জলরং

    কল্পনা করতে চাই, মেঝেহীন অলিন্দগুলির এ কোণে ও কোণে
    স্বচ্ছন্দে সুস্থিত তুমি
    সকালের ধারালো রোদ্দুর যেন
    সন্ধের আকাশের মতো লেফাফার অন্দরে
    তখন নির্ভার, ভাসমান মেঘেদের লৌহ দরোজার থেকেও নির্ভার—
    দেখে চলেছো সব, করে চলেছো প্রতিধ্বনি
    হাতে হাত
    উৎসবমুখরতা থেকে চলেছো তুমি
    নিথর নীরবতায়
    চার দেয়ালের



    শিল্পী প্রবোধ পারিখ। জলরং

    হাতির সেই কানের খুব কাছে চলে যেতে চাই
    প্রতিটি তালের বদলে কেঁপে ওঠে যেই কান
    প্রদক্ষিণ করে চলে সেই সব মুখমণ্ডল, যারা হাতড়িয়ে ফেরে
    ঠিক সেই শব্দ যার খুবই প্রয়োজন
    আশ্রয় খুঁজে সেই সবকিছু থেকে যা নেই কোথাও কোনোখানে
    তাদের ভুবনে



    শঙ্খ ঘোষ—নিজের মতো করে নেওয়া


    শিল্পী প্রবোধ পারিখ। জলরং

    না, অপু আর দুর্গা কিংবা তেমনই অসংখ্য বাচ্চার মতো রেলগাড়ির খোঁজে দৌড় দেওয়া, পাকশী গ্রামে চরকি কাটা শঙ্খকে আমি দেখিনি। রবি, ঋত্বিক, সোমনাথ হোর বা আরও অনেকের মতোই পদ্মাপাড়ের রূপপুর, শাপুরের মতো প্রত্যন্ত গ্রাম ও ছোটো ছোটো জনপদের কোলে কোলে ডিঙি বেয়ে ভেসেও বেড়াইনি আমি।

    সে ১৯৮১-র কথা। মানবেন্দ্র বন্দ্যেপাধ্যায় আমায় পরিচয় করিয়ে দিলেন তাঁর সাদা-কালো সহকর্মীর সঙ্গে। যদি আমার খুব ভুল না হয়ে থাকে, আমরা যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি রুমে দু-এক রাউন্ড টেবিলটেনিসও খেলেছিলাম সেদিন।

    দুটো ছবি আমার মনের মধ্যে মিলেমিশে একাকার হয়ে যায় কেবলই: সারা দুনিয়া থেকে আসা পিকচার পোস্টকার্ড খচিত দেয়াল থেকে দেয়ালে ঠাসা বইয়ের আলমারি ঘেরা তাঁর ‘বই’ঠকখানায়(!) কথপোকথন চলছে রবীন্দ্রসংগীত ঘিরে, শুনছি মন্ত্রমুগ্ধের মতো, দেখছি তাঁর অনুপম শরীরী ভাষার নানা ভঙ্গিমা—এই এক ছবি; আর-এক ছবি—স্থিতি, গতি, লয়—এই তিনের ধারণার রকমফেরে কবি ও সুপণ্ডিত শঙ্খ ঘোষ রবীন্দ্রনাথ পাঠের যে পথরেখা তৈরি করেছেন, তা থেকে উৎসারিত কাব্যরস নিয়ে নাগাড়ে বলে চলেছেন প্রবাল দাশগুপ্ত।

    না, আরও একবার হেসে আমাকে শঙ্খ ঘোষ বলেন, মূর্খ বড়ো সামাজিক নয়।

    না, শঙ্খ ঘোষের জিনিয়াসের সঙ্গে যথেষ্ট পরিচিত নয় গুজরাট, যথেষ্ট পরিচিত নয় ‘ছন্দোময় জীবন’ কিংবা ‘ছন্দের ভিতরে এত অন্ধকার’-এর ইস্তেহারের সঙ্গেও।



    শিল্পী প্রবোধ পারিখ। জলরং




    প্রবোধ পারিখ কবি, ছোটোগল্প লেখক এবং চিত্রশিল্পী। গুজরাটি সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কারসহ একাধিক সম্মানে ভূষিত। পেশায় ছিলেন দর্শনের অধ্যাপক। এই কবিতাটি প্রবোধ পারিখ রচনা করেছেন ইংরেজিতে, এই সংখ্যার জন্য। সঙ্গের ছবিগুলি শঙ্খ ঘোষের কবিতায় অনুপ্রাণিত।

    কবিতা ও গদ্য ইংরেজি থেকে বাংলায় তরজমা : নীলাঞ্জন হাজরা

    শঙ্খ ঘোষের স্কেচটি এঁকেছেন হিরণ মিত্র।

    সম্পাদনা : নীলাঞ্জন হাজরা
  • বিভাগ : পড়াবই | ২৫ এপ্রিল ২০২১ | ৭৪৩ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লড়াকু মতামত দিন