• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • গণিত, সৌন্দর্য্য ও অমরত্ব

    সুকান্ত ঘোষ
    বিভাগ : ব্লগ | ৩১ মে ২০১৪ | ২১৮ বার পঠিত
  • আমি গণিতবিদ নই – কিন্তু গণিত ভালোবাসি। গণিতজ্ঞদের দিকে তাকাই সম্ভ্রমের চোখে – আর ঠিক এই কারণেই পাশের গ্রামে ফিরোজ, বন্ধু সুমন এরা ছিল আমার ঈর্ষা মিশ্রিত বিষ্ময়ের পাত্র। তাই এই লেখা শুরু করার আগেই সাফাইটা গেয়ে দিই – বলে রাখি যে এই প্রবন্ধ কোন নতুন তথ্য দেবার জন্য নয়, নয় কোন গালভরা গবেষণার গল্প বলার জন্য। এটা নিছকই সেই সব তথ্য, ঘটনা আর নাম সমৃদ্ধ, যা অনেক সময় আমরা খেয়াল করি না। অর্থাৎ ধরুন আপনি নিজের জামাটি রোজ পড়েন, কিন্তু সেই জামায় কয়টা বোতাম আছে তা কখনো খেয়াল করেছেন কি? এই লেখাও তেমন হবে আর কি! কিছু বিষয় নিয়ে প্রবন্ধ লিখতে গেলে ভুগতে হয় তথ্যে অপ্রতুলতায় – কিন্তু গণিত নিয়ে লিখতে গেলে ব্যাপারটা উলটো। এখানে তথ্যের প্রাচুর্য্য এতো বেশী যে সংক্ষেপে কিছু লেখাই মুশকিল! প্রচুর বই, রিপোর্ট, জার্নাল ছাড়াও তো আজকাল হাতের কাছে রয়েছে ইন্টারনেট! তাই অনুমান করছি যে এখানে যা লিখব তার অনেক কিছুই আপনারা ইন্টারনেট থেকে যাচাই করে নিতে পারবেন। অনেকের মত আমারও ছিল গণিতবিদদের জীবন নিয়ে একটা কৌতূহল – কেমন করে তাঁরা কাজ করেন, বাস্তবের সাথে তাঁদের যোগ কতখানি বা তাঁদের গবেষণা আমাদের জীবনের সাথে কতটা সরাসরি যুক্ত – এই সব প্রশ্ন ভাবতে ভাবতেই এই লেখার সূত্রপাত।

    কোনখান থেকে শুরু করবে বুঝতে পারছি না। সমস্ত বিজ্ঞানীদের মধ্যে যাঁরা গণিতের সাথে যুক্ত তাঁদের নিয়ে এত উপকথা, এত রটনা যে তার থেকে কোনটা সত্যি আর কোনটা মিথ্যে খুঁজে বের করাই মুশকিল। তাহলে আসুন একটা গল্প দিয়েই শুরু করা যাক।

    এক মনোরম গ্রীষ্মের সকালে তিন বন্ধু মিলে স্কটল্যান্ডের এক গ্রামের ধার দিয়ে ট্রেনে করে যাচ্ছিলেন। বন্ধুদের মধ্যে একজন ছিলেন জ্যোর্তিবিজ্ঞানী, এক জন পদার্থবিদ ও অপর জন গণিতজ্ঞ। হঠাৎ ট্রেনের পাশে মাঠে চরতে থাকা একটি কালো ভেড়াকে দেখে জ্যোর্তিবিজ্ঞানী বলে উঠলেন – কি আশ্চর্য!, স্কটল্যান্ডের সব ভেড়াই দেখি কালো। এই কথার প্রতিবাদ করে পদার্থবিদ বলে উঠলেন – না, না – স্কটল্যাণ্ডের কেবল কিছু ভেড়ার রঙ কালো। এইসব শুনে তাঁদের গণিতজ্ঞ বন্ধু আকাশের দিকে তাকিয়ে গম্ভীরভাবে বলে উঠলেন – এই ভেড়াটা দেখে আমরা কেবল এই সিদ্ধান্তে আসতে পারি যে, স্কটল্যান্ডে একটা মাঠ আছে ন্যূনতম পক্ষে, সেই মাঠে একটা ভেড়া চড়ে বেড়াচ্ছে, যেই ভেড়ার একটি দিক ন্যূনতম পক্ষে কালো।

    গণিতবিদ মানেই খুঁতখুঁতে, বাস্তবের সাথে যোগহীন, আপন ভোলা একটি মানুষের ছবি আমাদের মনে ভেসে ওঠে। এটা অনেক সময় সত্যি – আবার অনেকের ক্ষেত্রে নয়। স্বল্প পরিসরে ইতিহাস বলা সম্ভব নয়, এমন কি বিখ্যাত গণিতজ্ঞদের কেবল নাম মাত্র উল্লেখ করতে গেলেই অনেক জায়গার দরকার হবে। তাই আমরা এই আলোচনতে কেবল ‘সংখ্যাতত্ত্বের’ মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকব। অনেকের মতে গণিতের এই শাখাটাই নাকি সবচেয়ে আকর্ষনীয়। হতেও পারে বা, তবে যেটা অনস্বীকার্য সেটা হল আমাদের জীবনে সংখ্যার অবদান। সেই বিষ্ময়কর সাদৃশ্য নিয়ে আমরা পরে বিস্তারিত আলোচনাতে যাব।

    মানুষ চিরকাল ধরে গণিত সমন্ধীয় দুটি অনন্ত জিজ্ঞাসা নিয়ে বসে আছে – গণিতের প্রকৃতি (Nature of Mathematics) আর গণিতের দর্শন (Philosophy of Mathematics)। বিজ্ঞানের যে কোন শাখার এবং তার সাথে গণিতেরও বিশেষ কোন প্রশ্নের উৎপত্তি জানতে হলে আমাদের সেই প্রাচীন যুগে ফিরে যেতেই হবে। এটা বারবার প্রমাণিত হয়েছে যে, যেই সভ্যতা যত উন্নতি করেছে তার মনে ছিল ততই অনুসন্ধিৎসা আর নতুন কিছু খুঁজে বার করার উদগ্র ইচ্ছা। গণিতের উন্নতিতে সেই রকমই প্রাচীন দুটি সভ্যতা ছিল মিশরীয় এবং ব্যাবিলনীয়। সংখ্যাতত্ত্বেই হোক আর জ্যামিতির কোন বিষয়েই হোক, এদের ভিত্তি এখনও অনেক সময় সেই হাজার হাজার বছর আগেই আবিষ্কৃত তত্ত্বের উপর নির্ভর করে। আর ঠিক এখানেই প্রাচীন ভারতীয় সভ্যতার অবদানও কম নয়। আমার তো মাঝে মাঝে এখনও শূন্য লেখার সময় অবচেতন মনে গর্বিত হয়ে উঠি এই ভেবে যে এটা আমাদেরই দান! সে যাই হোন, আরও অনেক কিছু সাথে মানুষ জিজ্ঞাসা করে এসেছে যে – গণিত কি উদ্ভাবিত (invent) হয়েছিল নাকি মানুষ কেবল সংখ্যাগুলো আবিষ্কার (discover) করেছিল?

    গণিতের উন্নতি কি মানুষের চিন্তাধারার উপর নির্ভর করেই না করেই হয়ে চলেছে? এর উত্তর হয়তো কোনদিনও সম্পূর্ণ ভাবে পাওয়া যাবে না। তবে কোন এক বিখ্যাত মনীষী সুন্দরভাবে বলেছিলেন, “তুমি একজন দার্শনিককে জিজ্ঞাসা কর যে ‘দর্শন’ কি? বা একজন ঐতিহাসিককে ‘ইতিহাস’ কি? এবং তুমি দেখবে যে, এর উত্তর দিতে তাদের কোন অসুবিধাই হচ্ছে না। এদের মধ্যে কেউই তার নিজের বিষয়ে এগোতে পারবে না যদি সে না জানে কিসের সন্ধানে সে ঘুরছে। এবার সেই একই প্রশ্ন কর একজন গণিতবিদকে, ‘গণিত’ কি? সে যদি সত্যিই সৎ উত্তর দেয় তাহলে দেখবে সে বলছে এই প্রশ্নের উত্তর সে জানে না, কিন্তু এই না জানা তাকে গণিত নিয়ে কাজ করতে বাধা দিচ্ছে না। এর থেকে বড় কথা আর কি হতে পারে?”

    আমি হয়তো অঙ্ক তত ভালো জানি না – কিন্তু তাতেও তো এই প্রবন্ধে অঙ্ক নিয়ে ধস্তাধস্তি আটকাচ্ছে না!

    এটাতো আমরা সবাই জানি যে, লক্ষ্য ছাড়া মানুষ বাঁচতে পারে না – অনন্ত তার জিজ্ঞাসা আর অনন্ত তার উৎসাহ। সেই কবে থেকেই আমরা চলেছি প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে খুঁজতে। আগে মানুষ প্রকৃতিকে ঈশ্বর বলে পূজা করেছে, তারপর যত দিন গেছে প্রকৃতির খেয়ালিপনার উত্তর খুঁজতে আমরা নিয়োজিত হয়েছি। প্রকৃতি কি সত্যই কোন সূত্র মেনে চলে? সেই প্রাচীনকাল থেকে আজকের Theory of Everything পর্যন্ত আমরা সেই চরম সত্যের সন্ধানে ব্যপৃত। আর সেই সন্ধানে আমাদের হাতিয়ার হল গণিত। খাতার উপর ছোট ছোট আঁকা আঁকি আমাদের বলে দেয় পদার্থের চরম কাঠামো, গ্রহতারার গতিপথ, এমন কি আমাদের দেহের গঠনও। এগুলো সবই ঘটনা আর তার কারণ হতে পারে, কিন্তু ব্যাখ্যা নয়। কেন মেনে চলবে গ্রহ-তারা, অণু-পরমাণু আমাদের গ্রথিত সূত্র? কেন পৃথিবী নাচবে গণিতের সাথে তাল দিয়ে? এগুলো কি কেবলই ঘটনার সমানুপাত, নাকি অন্য কোন গোপন যোগ সত্যি আছে এদের মধ্যে? বাস্তবের একটা অভ্যাসই হল মানুষের কল্পনার সাথে পাল্লা দেওয়া – আমরা যে পরিকল্পনা করেছি তার থেকে বিচ্যুত হওয়া। কিন্তু একমাত্র গণিতি মনে হয় সেই নিয়মের বিষ্ময়কর ব্যতিক্রম যা কিনা নিয়মটাকেই প্রমাণ করে। গণিতের সূত্র মেনেই চারশো বছর পর ধূমকেতু আবার দেখা যায় তার চিহ্নিত জায়গায়। তাহলে নিয়মটি কি? এই সব ভেবেই কি আমরা আজও এই প্রবাদ বাক্যটি ব্যবহার করি – Mathematics is the finest language in the world?

    পৃথিবীর সবচেয়ে প্রাচীন সংখ্যা-পাগল গোষ্ঠীর খোঁজ পাওয়া যায় গ্রীসে খ্রীঃ পূঃ ষষ্ঠ ও পঞ্চম শতাব্দীতে। আমরা আধুনিক দুগে কম্পিউটারের সামনে বসেও মাঝে মাঝে সংখ্যার আচরণে ঘাবড়ে যাই, তা হলে সেই প্রাচীনকালে লোকেরা সংখ্যা নিয়ে আদিখ্যেতা করবে এতে আর আশ্চর্য কি? গ্রীসের ঐ প্রাচীন গোষ্ঠীকে বলা হত পিথাগোরিয়ান। এরা সংখ্যার ব্যবহারে এতই চমৎকৃত ছিল যে জীবনের সবকিছুই এরা সংখ্যা দ্বারা চালিত বলে মনে করতে শুরু করে। এদের বিশ্বাস ছিল প্রত্যেক বস্তুই আদতে সংখ্যা এবং এই সব সংখ্যা হল বাস্তবের মূল ভিত্তি। সমস্ত জিনিসই নাকি সংখ্যার সাহায্যে বিশ্লেষণ করা যাবে, কিন্তু সংখ্যাকে আর অন্য কিছু দিয়ে বিশ্লেষণ করা যাবে না! এ সেই অনেকটা ভগবান বিশ্বাসের মত ব্যাপার। সব কিছুই ভগবানের সৃষ্টি – তাহলে ভগবানের সৃষ্টিকর্তা কে? এদের বিশ্বাস মত কেবলমাত্র কোন বিশেষ বস্তু গণিতের সূত্র মেনে চলে তা নয় – সমগ্র জগত, তাতে প্রত্যেক বস্তুই সংখ্যার দ্বারা চালিত। এ পর্যন্ত ঠিক ছিল, কিন্তু এরা এরপর ‘ন্যায়বিচার’, ‘সুযোগ’ – এই সব অ্যাবস্ট্রাক্ট জিনিসও সংখ্যা দিয়ে ব্যাখ্যা শুরু করে। এর পর বলাই বাহুল্য এদের পিথাগোরাস ভ্রাতৃসংঘ বেশীদূর এগোয় নি। যদি সত্যই সবকিছু সংখ্যা স্বারা নির্মিত হয়, তাহলে বাস্তবের সঠিক প্রকৃতি বোঝার জন্য আমাদের দরকার হবে সংখ্যাদের চর্চা, তাদের ধর্ম, তাদের পারস্পরিক সম্পর্ক ইত্যাদি। এগুলো হতেই পারে আমাদের দৈনন্দিন কাজের সাথে সম্পর্ক-বিবর্জিত, যাকে আজকাল Pure Mathematics বলা হয়। তবে পিথাগোরাস সংঘের মূল দূর্বলতা ছিল সংখ্যাদের জীবিত বস্তুর মত বিচার করা।

    এর পর আসে Platonism – যে মতবাদের প্রবক্তা ছিলেন প্লেটো। এর মূল ভিত্তি ছিল তাঁর বিশ্বাস যে, আমরা গণিতের তত্ত্ব আর সত্যতা কেবল খুঁজে বের করি মাত্র। সংখ্যারা আমাদের আবিষ্কার নয় – তারা আগে থেকেই বর্তমান, সেই কোন দ্বীপ আবিষ্কারের মত। এই সব দেখে শুনেই মনে হয় চার্লস ডারউইন মন্তব্য করেছিলেন, “গণিতজ্ঞ একজন অন্ধ ব্যক্তি মাত্র – যে অন্ধকার ঘরে একটি অস্তিত্ত্ববিহীন কালো বেড়াল খুঁজে বেড়াচ্ছে”।

    তাহলে সংখ্যদের এমন কি বৈশিষ্ট যে প্রাচীনকাল থেকে মানুষ তার উপর এত আকর্ষণ বোধ করে আসছে? কিছু নমুনা দেওয়া যাক বিশ্লেষণ করে। আসুন একটা সংখ্যা শ্রেণী লিখে ফেলি,

    [ক্রমশঃ]
    1, 1, 2, 3, 5, 8, 13, 21, 34, 55, 89 …

    চেনা চেনা লাগছে? এই শ্রেণীটিকে বলা হয় Fibonacci’s series। লিওনার্দো ফিবোনাচি এই শ্রেণীটি প্রথম আবিষ্কার করেন। এই শ্রেণীর একটা সংখ্যা পাওয়া যায় তার ঠিক আগের দুটিকে যোগ করে। যেমন, 1 + 1 = 2, 1 + 2 = 3, 3 + 5 = 8, 5 + 8 = 13 ইত্যাদি।

    দেখতে এমনিতে সাদামাটা, কিন্তু মজা হচ্ছে কোন সংখ্যাকে তার আগেরটা দিয়ে ভাগ করলে পাওয়া যাবেঃ

    2/1=2.0, 3/2 = 1.5, 5/3=1.67, 8/5=1.6, 13/8=1.625, 21/13=1.615, 34/21=1.619, 55/34=1.618, 89/55=1.618

    সংখ্যাদের মান যত বড় হবে, অনুপাত ততই এগিয়ে আসবে নির্দিষ্ট মানে – যেটা হল 1.618 । এই সংখ্যাটাকে বলা হয় Golden Ratio (স্বর্ণ অনুপাত)। এই সংখ্যা আমাদের জীবনে এবং চারপাশের জিনিসের সাথে এমন ভাবে জড়িয়ে আছে যে এটাকে মনে করা হয় ভগমানের সৃষ্টি। গাণিতিক উপায়ে পাওয়া যেতে পারে একটা সরলরেখাকে ভাগ করে। একটা সরল রেখাকে বড় আর ছোট ভাগে ভাগ করা হল। ভাগটা এমন ভাবে হওয়া চাই যেন ছোট ভাগের সাথে বড় ভাগের অনুপাত, বড় ভাগের সাথে সম্পূর্ণ সরলরেখার ভাগের অনুপাতের সমান হয়, অর্থাৎ, a/b = (a+b)/a = 1.618 [দেখুন সাথের ছবি 1A]।

    <[url=

    <

    1.618 সংখ্যাটির মজা হচ্ছে এটি দিয়ে 1 কে ভাগ করলে পাওয়া যায় (1/1.618) = 0.618

    প্রাচীন গ্রীসে এই সংখ্যার আকর্ষণ এতই বেশী ছিল যে স্থপতিরা এটি তাদের কাজে ব্যবহার করতে শুরু করেন। সবচেয়ে বড় উদাহরন হল পার্থেনন। আমরা সবাই এর ধ্বংসাবশেষের ছবি দেখেছি [দেখুন সাথের ছবি 1B]। এখন যদি একটা কল্পিত আয়তক্ষেত্র আঁকা হয় এর সবচেয়ে বাঁ দিকের থাম বা পিলার থেকে ডানদিকের থাম এবং নীচ থেকে চূড়া পর্যন্ত, তাহলে দেখব সেই আয়তক্ষেত্রের দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের অনুপাত প্রায় 1.618। এছাড়া পার্থেননের একদম সামনে কিছু আয়তক্ষেত্র দেখা যায় যাদের দৈর্ঘ্য-প্রস্থের অনুপাতও Golden Ratio –র কাছাকাছি।

    শুধু স্থাপত্যশিল্প নয়, চিত্রকলাতেও এই অনুপাতের ব্যবহার অনেক। এমন শোনা যায় লিওনার্দো দা ভিঞ্জি নাকি এই ‘অনুপাত’ একান্তই ভালোবাসতেন। তার প্রমাণ পাওয়া যায় অবশ্য সেই বিখ্যাত ‘মোনালিসা’ ছবিতে। ছবিটির দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের অনুপাত 1.618 [দেখুন সাথের ছবি 1C]। তাছাড়া যদি একটি আয়তক্ষেত্র আঁকা হয় মোনালিসার ঠিক মুখমণ্ডলে তবে তার দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের অনুপাত হবে সেই Golden Ratio। এছাড়া আরো অনেক বিখ্যাত ছবিতেও (যেমন লাষ্ট সাপার, দ্যা সেইন্ট) Golden Ratio ব্যবহার লক্ষণীয়।

    এতো না হয় গেল মানুষের এই অনুপাত ব্যবহারের কথা। প্রকৃতিতেও Golden Ratio এত জায়গাতে চোখে পড়ে যে, মাঝে মাঝে সত্যই ভাবতে ইচ্ছে করে ভগবান একজন গণিতজ্ঞ! Golden Ratio মনে হয় প্রকৃতিরও ভালোবাসার সংখ্যা। আর এটাও ঠিক যে, যে সমস্ত আকার Golden Ratio মেনে চলে – সেগুলি বেশ নয়ন সুখকর হয়। কেন? আমি জানি না – হয়ত বা কেউই না!

    শামুক, শাঁখ দেখেছেন তো? শাঁখের পেঁচানো আকৃতি তো দেখতে বেশ লাগে। আসুন দেখি যে Fibonacchi series থেকে কি করে এমন আকার আসতে পারে। প্রথমে একক দৈর্ঘ্যের একটি বর্গক্ষেত্র আঁকুন। তারপাশে আরেকটা। তাহলে পাশাপাশি দুটি বর্গক্ষেত্রে মোট দৈর্ঘ হল দুই একক। আবার দুই একক বাহু বিশিষ্ট একটি বর্গক্ষেত্র আঁকুন ঠিক ওদের উপর। তাহলে এখন একটি নতুন বর্গক্ষেত্র হল যার বাহুর দৈর্ঘ্য হল তিন একক। এই ভাবেই এঁকে যান। এবার সাথের ছবি 1D এর মতন কোন গুলি পরস্পর যোগ করুন। কি পাচ্ছেন? একটা শাঁখের আদল না?

    আমরা তো পাইন গাছের ফুল দেখেছি (Pine Cone), কেমন সব চক্রাকারে সাজানো থাকে। যদি একটি বিশেষ চক্র (spiral) ধরে গুণতে থাকেন, তাহলে দেখবেন ওরা সংখ্যায় 21, 34, 55 ইত্যাদি – আশ্চর্য্য না? শুধু তাই না – যদি মাছ, ফড়িং, কচ্ছপ, পাখী এদের চারিদিকে একটি আয়তক্ষেত্রে আঁকেন, তাহলে অনেকক্ষেত্রে দেখা যাবে দৈর্ঘ্য ও প্রস্থের অনুপাত 1.618, অর্থাৎ জীবজগতের অনেক প্রাণীর আকারই Golden Ratio অনুযায়ী!
    মানুষের এক প্রিয় সহচর ঘোড়া – তার শরীরে তো Golden Ratio-র ছড়াছড়ি।

    অন্য অনেক প্রাণির মত মানুষের দেহেও Golden Ratio-র ছাপ রয়ে গেছে। সাথের ছবি 1E থেকে বোঝা যায় আমরা কতখানি সংখ্যার দ্বারা চালিত। কিছু কিছু হলিউডের তারকাকে (বা তাদের মুখের) বিশ্লেষণ করে Perfect Face বলা হয়ে থাকে। সেই Perfect Face-এও স্বর্ণ অনুপাত। মুখের লম্বা ও চওড়ার অনুপাত বিষ্ময়কর ভাবে Golden Ratio মেনে চলে।

    কত উদাহরণ দেব? কত সোসাইটি তৈরী হয়েছে যারা এই Golden Ratio-র উপস্থিতি খুঁজে বেড়াচ্ছে আমাদের চারিদিকে এবং আমাদের মধ্যে। যাঁরা এই বিষয়ে বিশদ জানতে ইচ্ছুক তাঁরা কেবল google.com এ গিয়ে Golden Ratio কথাটি টাইপ করে দেখবেন। তথ্যের ঠেলায় অস্থির হয়ে উঠবেন। তবে আন্তরিক পরামর্শ দেব যে, বেশী ঘাঁটাঘাঁটি করবেন না – ভগবানে বিশ্বাসী না হলে এরপর থেকে বিশ্বাসী হতে শুরু করবেন। আমাদের চারপাশ ঠিক ছিল, কিন্তু আমাদের ভিতর নিয়ে টানাটানি করে তাঁরা কি বের করেছেন তার কিছু উদাহরন দেবার লোভ সামলাতে পারলাম না। আমাদের কান টেনে দেখানো হয়েছে কানের স্পাইরালটা Fibonacci series থেকে পাওয়া। DNA-এর প্রস্থচ্ছেদ করেছেন – তাতে নাকি Golden Ratio! তবে হৃদয়ের যে ধাক্কাটি সামলাতে পারি নি, সেটা হল Heart Beat এর বিশ্লেষণ! এতেও Golden Ratio [দেখুন সাথের ছবি 1F]। । এঁরা বনে জঙ্গলে তছনছ করে Golden Ratio-র প্রয়োগ খুঁজছেন। হাতের কাছে সূর্যমুখীর spiraling গুণে গুণে দেখিয়েছেন তাতে হয় 34 নয় 55 টা spiral আছে। বাকি কিছু উদাহরন,

    ৩ পাপড়ি যুক্তঃ লিলি, আইরিস
    ৫ পাপড়ি যুক্তঃ বাটারকাপ, ওয়াইল্ড রোজ, লার্কস্পার
    ৮ পাপড়ি যুক্তঃ ডেল্‌ফিরিয়ামাস
    ১৩ পাপড়ি যুক্তঃ কর্ণ মেরিগোল্ড, সিনেরারিয়া, রোগওয়ার্ট
    ২১ পাপড়ি যুক্তঃ ব্ল্যাক-আইড সুজান, অ্যাষ্টার
    ৩৪ পাপড়ি যুক্তঃ প্ল্যান্টেইন, পাইরেথ্রাম

    এদের বেশীর ভাগই আমি চোখে দেখি নি, আপনিও না দেখে থাকলে ঘাবড়াবার কিছু নেই, তবে এরা সত্যিই আছে। ছবি দেখতে চাইলে চলে যানঃ

    http://www.math.smith.edu/~phyllo/Gallery/Pages/Frameset.htm

    সংখ্যা নিয়ে আলোচনায় আবার পরে ফিরে আসা যাবে – এবার একটু মুখ ফেরানো যাক গণিতবিদদের দিকে। এই স্বল্প পরিসরে কারও জীবনী বর্ণনা করা যাবে না আর সেটাই ইচ্ছেও নেই আমার। তাই আসুন কিছু গালগল্প করে সময় কাটানো যাক। এই ইন্টারনেট প্রসারের সাথে সাথে মানুষের একটা প্রবণতা চলে এসেছে ভোটাভুটি করার। কম সময়ে বেশী লোকের কাছে পৌঁছবার কুফল আর কি! সব বিষয়েই ভোট – শতাব্দীর সেরা অভিনেতা, সেরা খেলোয়াড়, সেরা মণীষী, সেরা সব কিছু বেছে নেবার প্রতিযোগীতা। তাই সেরা গণিতজ্ঞ বিষয়টাই বা বাদ থাকে কেন! কিছু কাল আগে নাকি এই রকম একটা ভোটাভুটি হয়েছিল সর্বকালের সেরা তিন গণিতজ্ঞ বেছে নেবার জন্য। এক বাছাটা বেশ বিতর্কিত হয়ে যেত বলেই মনে হয় এই তিনজন বেছে নেওয়া হয়। অনুপান করতে পারেন এই তিনজন কারা হতে পারেন?

    সবচেয়ে আশ্চর্য হল এই বেছে নেওয়া নিয়ে বেশী বিতর্ক হয় নি – মানে সিদ্ধান্তটা সর্বসম্মতই বলা যায় আর কি! প্রথম দুজনের নাম অনুমান করা খুব একটা কঠিন নয়। প্রথম জন আর্কিমিডিস (২৮৭ খ্রীঃ পূঃ – ২১২ খ্রীঃ পূঃ), দ্বিতীয় জন নিউটন (১৬৪২-১৭২৭) আর তৃতীয় জন হলেন গাউস বা গস্‌ (১৭৭৭-১৮৫৫)। প্রথম দুজনকে আমরা প্রায় সবাই ছেলেবেলা থেকে নাড়াচাড়া করে আসছি। একদম ছোটবেলায় তাদের গল্প আর তার পরে তাদের আবিষ্কৃত সূত্র নিয়ে আমরা কিছু না কিছু মাথা ঘামিয়েছিলাম। তৃতীয়জন হয়ত তেমন পরিচিত নন আপমর জনসধারণের কাছে। আর্কিমিডিস আর নিউটন নিয়ে নতুন করে বলবার মত গল্প আমার কাছে নেই। তাই গস্‌কে নিয়েই একটু ফেনানো যাক। ও হ্যাঁ, শুধ একটা কথা – বই পত্র পড়ে যা জানা গেছে তাতে করে এই প্রমাণিত হয় আমাদের মনের ভিতর আঁকা গণিতবিদের ছবিটা নিউটনের সাথে ঠিক খাপ খায় না! নিউটন আপন ভোলা ছিলেন না, ছিলেন না অগোছালো। বরং তিনি ছিলেন এর ঠিক উলটো! নিজের কাজ সম্পর্কে অনেক সচেতন ছিলেন তিনি। আর তাঁর গোছালো স্বাভাবের জন্য আখেরে আমাদের লাভই হয়েছে! গোছালো না হলে কেউ কি ‘প্রিন্সিপিয়া ম্যাথামেটিকা’র প্রথম পান্ডুলিপি দূর্ঘটনা বশতঃ আগুনে পুড়ে গেলে, আবার নতুন করে পুরোটা লেখেন!

    কার্ল ফ্রেডরিক গস্‌ জন্মগ্রহন করেন ১৭৭৭ সাথে এক দরিদ্র পরিবারে। এক কথা প্রায়শই বলা হয়ে থাকে যে যাঁরা পরবর্তী জীবনে অসাধারণ হবেন তাঁরা নাকি ছেলেবেলা থেকেই তার নিদর্শন দিতে শুরু করেন। গস্‌ও এর ব্যতিক্রম নয়। তিনি নাকি মাত্র তিন বছর বয়সেই বাবার হিসাবের ভুল ধরেছিলেন। তবে সবচেয়ে মজার গল্পটা হল গসের যখন ছয়-সাত বছর বয়স তখন স্কুলের ক্লাসে খুব বদমাইশি করেছিলেন। মাষ্টার মশাই বিরক্ত হয়ে বলেন সব ছেলে ১ থেকে ১০০ পর্যন্ত যোগফল বার করার পর আবার খেলতে যেতে পারবে। তিনি নিশ্চিত ছিলেন যে এই কঠিন অঙ্ক ঐ বাচ্চাদের অনেকক্ষণ ব্যস্ত রাখবে। তাঁকে অবাক করে দিয়ে গস্‌কে খানিক পরেই মাঠে খেলা করতে দেখা যায়। মাষ্টার মশাই জানতে চান গস্‌ যোগ করেছিলান কিনা? দ্রুত জবাব আসে গসের কাছ থেকে যোগফল হল ৫০৫০। বিষ্মিত হয়ে তখন মাষ্টার মশাই জানতে চান এত তাড়াতাড়ি গস্‌ এটা করলেন কিভাবে! গস্‌ নাকি এটা খুবই সোজা ভেবেছিলেন। তিনি যোগ করেছিলেন এই ভাবে –

    [ক্রমশঃ]

    [url=



    প্রথম একটি লাইন ০ থেকে ১০০ পর্যন্ত লিখে, তারপর ঠিক তলায় ১০০ থেকে ০ পর্যন্ত লিখেছিলেন।

    ০ ১ ২ --- ৯৮ ৯৯ ১০০
    ১০০ ৯৯ ৯৮ --- ২ ১ ০

    এখন প্রতিটি কলামের যোগফল হচ্ছে ১০০। তাহলে ১০১ টি কলামের মোট ১০১*১০০, আর প্রতিটি কলাম পুনরাবৃত্ত হয়েছে, অতএব ২ দিয়ে ভাগ। এই ভাবে মোট যোগফল (১০১*১০০)/২ = ৫০৫০ – খুবই সহজ!

    রহস্যময় আচরণে কিন্তু গস্‌ গণিতজ্ঞ হবার সব শর্তই পূর্ণ করেছিলান। তাঁর মৃত্যুর ৪৩ বছর পর একটি ডায়েরী উদ্ধার করা হয় তাঁর নাতির কাছ থেকে। এই ডায়েরীতে ১৪৬ টি সংক্ষিপ্ত বক্তব্য লেখা ছিল যেগুলি গস্‌ জীবিত অবস্থায় কোনদিন প্রকাশ করেন নি। পরে দেখা গেছে বিংশ শতাব্দীর অনেক বড় বড় গাণিতিক তত্ত্বই নাকি এই ডায়েরীর সাথে কোন না কোন ভাবে যুক্ত। ডায়েরী প্রকাশ না করে তবে কি গণিতের অগ্রগতি কয়েক বছর পিছিয়ে দিয়েছিলেন গস্‌? তাঁর বিস্তৃত অবদান লেখা এখানে সম্ভব নয় লেখা, হয়ত আরো অনেক বছর লাগবে গস্‌কে পরিপূর্ণ ভাবে জানতে। সব ভেবে দেখেই বোধ হয় এই প্রতিভাবানকে Prince of Mathematician বলা হয়ে থাকে। গণিতের অন্য শাখার মত সংখ্যাতত্ত্বেও গস্‌ এর অবদান অবিষ্মরণীয়।

    এবার তাহলে প্রশ্ন উঠতেই পারে যে বিজ্ঞানের অন্য শাখায় না হয় কৃতিত্বের পুরস্কার স্বরূপ নোবেল পুরস্কার আছে, গণিতের বেলায় তেমন কিছু চালু আছে কি? ছোটবেলায় আমরা সবাই জানতাম নোবেল প্রাইজের তালিকায় গণিত বিষয়টি নেই। একটু বড় হবার পড় জানতে ইচ্ছে করত কেন নেই! অনেক গল্প চালু আছে এই নিয়ে। সেগুলির সংক্ষিপ্ত সার হলঃ

    • আলফ্রেড নোবেল নাকি গণিত বা Theoretical Science নিয়ে বিশেষ উৎসাহী ছিলেন না।
    • নোবেল পুরস্কার কেবল মাত্র সেই সব আবিষ্কারকেই যাদের সঙ্গে মনুষ্য সভ্যতার Practical যোগ আছে।
    • আলফ্রেড নোবেল নাকি প্রেমে ব্যর্থ হয়ে গণিতের উপর বীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়েছিলান। তিনি যাকে ভালোবাসতেন সেই মেয়েটি নাকি একজন গণিতবিদকে বিবাহ করে। তাই নোবেল গণিতকে পুরষ্কারের তালিকার বাইরে রেখেছিলেন।

    এই সবের সত্য মিথ্যা হয়তো কোন দিনই যাচাই করা যাবে না, তবে লোকপ্রবাদের পাল্লায় তৃতীয় কারণটাই ভারী!

    আর একটু বড় হয়ে জানতে পরেছিলাম যে গণিত শাখায় নোবেল পুরস্কারের সমতূল্য হচ্ছে Field Medal যেটা International Mathematical Union -এর পক্ষ থেকে প্রতি চার বছর অন্তর এক বা একাধিক গণিতজ্ঞকে দেওয়া হয় তাঁদের কৃতিত্বের জন্য।
    এছাড়াও অনেক পুরস্কার চালু আছে যেগুলি পাওয়া যেতে পারে কোন একটি বিশেষ সমস্যা সমাধানের জন্য। যাঁরা উৎসাহি তাঁরা এই ওয়েবসাইটে খোঁজ নিতে পারেনঃ



    এখানে একটি পুরস্কারের তালিকা আছে যেটিকে বলা হয় Clay Institute Millennium Prize Problems. সমস্যাগুলির মধ্যে Riemann Hypothesis –ও আছে। এটি বর্তমান আধুনিক সভ্যতার একটি বিশেষ অঙ্গ কম্পিউটার এর সাথে যোগ রাখে বলে এটিকে নিয়ে আমরা ঈষৎ নাড়াচাড়া করব। কিছু বছর আগে পর্যন্ত যে তিনটি সমস্যা নিয়ে সবচেয়ে বেশী সংখ্যক ব্যক্তি মাথা ঘামিয়েছেন, সেগুলি হল Fermat’s Last Theorem, Riemann Hypothesis আর Goldbach Conjecture। এর মধ্যে Fermat’s Theorem কিছু বছর আগে প্রমাণ করেছেন অ্যান্ড্রু ওয়াইল্‌স। তিনি এই সমস্যা সমাধানের জন্য পেয়েছেন Wolfskehl Prize – যার পুরস্কার মূল্য ১০০,০০০ জার্মান মার্ক। অনেকেই জানেন Fermat Last Theorem কি – এই নিয়ে প্রচুর লেখালিখি হয়েছে, কিন্তু যাঁরা ভুলে গেছেন তাঁদের একটু মনে করিয়ে দেওয়া যাক। দেখতে কিন্তু এই সমস্যাটি নিতান্তই সরল। Fermat –কে বলা হত Prince of Amateurs, কারণ তিনি ছিলেন আদতে একজন ফরাসী আইনজ্ঞ, যিনি আবসর সময়ে অঙ্ক করতেন। যাইহোক সমস্যাটি হলঃ
    Xn + Yn = Zn, যেখানে X, Y, Z, n সবই ধনাত্মক পূর্ণ সংখ্যা। n-এর মান 2-এর থেকে বড় হলে (n>2) এর নাকি কোন সমাধান নেই বা উল্টোভাবে বলতে গেলে n>2 হলে X, Y, Z – এর পারস্পরিক সম্পর্কটি সত্যি নয়!

    দেখতে প্রচন্ড সরল। কিন্তু এটাই আমাদের ৩০০ বছরের বেশী সময় ব্যস্ত রেখেছিল। সবাই ভেবেছিল এটার প্রমাণ খুবই সহজ আর তার কারণ ছিল Fermatএর নিজের একটি উক্তি। তাঁর বইয়ের মার্জিনে তিনি লিখে রেখেছিলেন এর একটি চমৎকার সমাধান তিনি পেয়েছেন, কিন্তু জায়গার অভাবে তিনি লিখতে পারছেন না। তাই এই ছোট্ট সমস্যাটি সমাধান করতে ওয়াইলস্‌ নিয়েছিলেন প্রথমবার ১৭০-১৮০ পাতা, আর একবার সংশোধনের পর সেটা দাঁড়িয়েছিল ২০০-এর কাছাকাছি।

    তবে এই পুরস্কার হাতছাড়া হয়েছে বলে আপনি হতাশ হবেন না। কারন হাতের কাছেই রয়েছে Goldbach Conjecture। এর সমাধান করতে পারলে $ 1,000,000 আসবে আপনার পকেটে – আর তাছাড়া এটা দেখতেও বেশ সহজ। আপনাকে শুধু প্রমাণ করতে হবে, যে কোন জোড় পূর্ণ সংখ্যা (Even Integer) – কে দুটি মৌলিক সংখ্যার (Prime Number) যোগফল হিসাবে লেখা যায়। যেমন,

    ৪ = ২ + ২
    ৬ = ৩ + ৩
    ৫০ = ৩১ + ১৯
    ১২০ = ৭৯ + ৪১

    লেগে পড়ুন – শুধু মনে রাখবেন ১৯৯৮ সালে কম্পিউটারের সাহায্যে দেখানো গেছে সম্পর্কটি ৪০০,০০০,০০০,০০০,০০০ পর্যন্ত সত্যি!

    এবার ছোট্ট করে Riemann Hypothesis-এর আলোচনাটি সেরে ফেলা যাক। এটা অপেক্ষাকৃত জটিল। যাঁরা আরো জানতে ইচ্ছুক এর সম্পর্কে তাঁদের জানাই প্রচুর বই পাওয়া যায় – শুধু লাইব্রেরী যাবার অপেখা। না যেতে চাইলে সেই এর আশ্রয় নিতে পারেন। আর যাঁরা বাংলায় পড়তে চান তাঁদের জানাই কিছু বছর আগে পুজো বার্ষীকি দেশ পত্রিকায় পথিক গুহ-র লেখা “সুন্দরী, সুধাপাত্র ও অমরত্ব” – এর এই নিয়ে খুব সুন্দর আলোচনা আছে।

    মৌলিক সংখ্যার আচরণ আমাদের দীর্ঘদিন বিষ্মিত করেছে। এদের আচরণ কি সত্যি অসংলগ্ন – নাকি এরাও মেনে চলে শৃঙ্খলা! অনেকেই চেষ্টা করেছেন এমন কোন সূত্র আবিষ্কার করতে যা দিয়ে মৌলিক সংখ্যা সম্পর্কে পূর্বাভাস করা যায়! গস্‌ নিজেও চেষ্টা করেছিলেন। এমন কোন সূত্র পাওয়া যাবে কি যা দিয়ে আমরা মৌলিক সংখ্যা গঠন করতে পারব যত বড় ইচ্ছা? কিংবা বলতে পারব দুটি নির্দিষ্ট সংখ্যার মধ্যে কতগুলি মৌলিক সংখ্যা থাকতে পারে? তা নিয়ে রিম্যান এমন একটা সূত্রের প্রস্তাবনা করেছিলেন যা দিয়ে নাকি মৌলিক সংখ্যার আচরণ খুব ঘনিষ্টভাবে ব্যাখ্যা করা যায়। সেই Function কে বলা হয় Riemann Zeta Function। এটা প্রমান করা গেলে নাকি সংখ্যাদের তুঘলকি আচরন সব ঠান্ডা করে দেওয়া যাবে।

    তা রিম্যান হাইপোথিসিস নিয়ে এত হৈ চৈ করার কি আছে? আসলে Prime Number আর Cryptography পরস্পর নির্ভরশীন। Cryptography নামটা চেনা চেনা লাগছে? এটা আর কিছুই নয়, এটা একটি পদ্ধতি যা দিয়ে গোপনীইয় তথ্যের আদান প্রদান করা হয়। এবং শুধু মাত্র তথ্যের প্রপাকই তার উদ্ধার করতে পারবেন। অর্থাৎ বাকিদের কাছে এটা থাকবে লুকানো। এই যে আমরা ইন্টারনেট-এ ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করি তার সুরক্ষাও নির্ভর করে মৌলিক সংখ্যার উপর। ১৯৭৭ সালে তিনজন ছাত্র Ron Rivest, Adi Shamir, আর Leonard Adleman এই ইন্টারনেট সুরক্ষার জন্য Algorithm আবিষ্কার করেছিলেন। এই পদ্ধতিতে দুটি বৃহৎ মোউলিক সংখ্যাকে গুণ করে একটা সংখ্যা পাওয়া যায়, যাকে বলা হয় চাবি (Key)। এই বড় সংখ্যাটাই আমরা ইন্টারনেটে আদানপ্রদান করি। আর এই মৌলিক সংখ্যাগুলি আপনার ক্রেডিট কার্ড বা অন্য কোন তথ্যের সংকেত বহন করে। তাহলে বুঝতে পারছেন পুরো বিষয়টির সুরক্ষা নির্ভর করে কত সহজে ঐ বড় সংখ্যাটিকে (Key) উৎপাদকে বিশ্লেষণ করা যাচ্ছে। যত বড় সংখ্যা হবে, তার উৎপাদক বিশ্লেষণ হবে তত কঠিন, অর্থাৎ আপনি তত সুরক্ষিত! তবে আমাদের নিশ্চিত হতে হবে, যে দুটি মৌলিক সংখ্যা আমরা প্রথমে গুণ করেছিলেন তারা আদৌ মৌলিক কিনা! কি ভাবে পরীক্ষা করব না? আমাদের গর্বের বিষয় যে ভারতের Indian Institute of Technology, Kanpur এর প্রফেসর আগরওয়াল এবং তাঁর ছাত্র নীরজ আর নীতিন এমন একটি পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন যা দিয়ে কোন সংখ্যা মৌলিক কিনা যাচাই করা যাবে। কিন্তু মনে রাখবেন এই পদ্ধতিতে মৌলিক সংখ্যা তৈরী করা যাবে না কিন্তু!

    আর বেশী লিখতে পারছি না – তাই এবার আমাদের বাস্তব জীবনে গণিতের বিষ্ময়কর ব্যবহারের উদাহরন দিয়ে লেখা শেষ করব ভাবছি। যাঁরা বিশদে জানতে চান তাঁরা এখানে খোঁজ করতে পারেন - সত্যই অসাধারনঃ



    ধরুণ আপনি যখন বাজার করেন, তখন কোন দ্রব্যের দাম লেখা থাকে তার উপর কয়েকটি সাংকেতিক দাঁড়ির (Bar Code) সাহায্যে এখানে ব্যবহার করা হয় Modular Arithmatic। তারপর এই যে চোখ স্ক্যান করে ব্যক্তিদের চিহ্নিত করার সময়েও এই গণিত। Probability Theory – র সফল প্রয়োগ। আবার ভাবুন সেই Travelling Sales এর সমস্যাটির কথা। মনে করুন আপনি কতগুলি বিশেষ শহর ভ্রমন করতে চান পৃথিবী জুড়ে। তাহলে কিভাবে ভ্রমন করলে আপনি সব শহরগুলিতেই একবার করে যাবেন, কিন্তু সবচেয়ে কম দূরত্ব অতিক্রম করবেন। সেখানেও গণিত। মানচিত্রে কত রঙের বাহার দেখি আমরা – এক দেশের এক রঙ। তাহলে কতগুলি বিভিন্ন রঙ ব্যবহার করলে পাশাপাশি দুটি দেশ কখনো এক রঙের হবে না। আমরা যে কাগজ দিয়ে নানা জিনিস বানাই খেলার ছলে (Origami) সেখানেও জ্যামিতিক ভাঁজের খেলা। মহাকাশে বিশাল আয়তনের টেলিস্কোপ পাঠানোর সময় কিভাবে সবচেয়ে ছোট আয়তনে ভাঁজ করা যাবে – উদাহরন দিয়ে শেষ করা যাবে না।

    তবে শেষ করা যেতেই পারে এক বিখ্যাত ব্যক্তির উক্তি দিয়ে। কার উক্তি আমি বলব না – এটা আপনার গুগুলের সাহায্য না নিয়ে কার হতে পারে সেটা ভাবুন – কে বা কারা করতে পারে এমন উক্তিঃ

    Poets do not go mad, but chess players do; mathematicians go mad, and cashiers; but creative artists very seldom. I am not, as will be seen, in any sense attacking logic; I only say that this anger lie in logic, not in imagination.
    সংখ্যা নিয়ে খেলা করলেই কি গণিতবিদ হওয়া যায়? আমরা সবাই তো সংখ্যা নিয়ে নাড়াচাড়া করি, তাহলে আমরা সবাই কি গণিতজ্ঞ? তা আমি বলতে পারব না, তবে আপনি নিশ্চয় গণিতজ্ঞ যদিঃ

    • পাই-এর (Pi) মান পঞ্চাশ দশমিক স্থান পর্যন্ত আপনার মুখস্থা থাকে
    • আপনি কোন না কোন সময় Fermat’s Theorem প্রমাণের চেষ্টা করে থাকেন
    • আপনি অন্ততঃ দশ রকম ভাবে পিথাগোরাসের উপপাদ্য প্রমাণ করতে জানেন
    • আপনার টেলিফোন নম্বর দুটি মৌলিক সংখ্যার যোগফল
    • যদি আপনার স্ত্রীকে আপনি কোন ঘনিষ্ট মুহুর্তে বলেন যে তাঁর চুলগুলি সোজা এবং পরস্পর সমান্তরাম
    • গাড়ি কিনতে গিয়ে যদি বিক্রেতাকে বলেন, আমি লাল গাড়িটা অথবা নীল গাড়িটা নেব। এবং তার সাথে যোগ করেন, তবে দুটো গাড়ি একসাথে নয়!

    তথ্যসূত্রঃ
    1. Men of Mathematics – E.T. Bell
    2. Of Men and Numbers: The Story of the Great Mathematicians – Jane Muir
    3. Fermat’s Last Theorem – Amir Aczel
    4. On the Shoulder of Giants – Stephen Hawking
    5. The Emperor’s New Mind – Roger Penrose
    6. Pi in the Sky – John D Barrow
    7. The Last Problem – E.T. Bell
    8. Mathematical Scandals
    9. পথিক গুহর লেখা আনন্দবাজার ও দেশে প্রকাশিত প্রবন্ধ সকল।

    [ক্রমশঃ - দেব কিনা বুঝতে পারছি না]
  • বিভাগ : ব্লগ | ৩১ মে ২০১৪ | ২১৮ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1 | 2 | 3
  • gabeT | 122.79.36.117 (*) | ০২ জুন ২০১৪ ১২:১৭72816
  • যেটা আরো জরুরী তা হল ন্যাচারাল ইভেন্ট থেকে অনুপ্রেরণা নিলেও প্রিসাইজ মানে দেওয়ার জন্য নেচার থেকে দূরে যেতে হয়। শুধু রিয়েল নাম্বারের ধারণাই বাস্তবের যে কোন কিছু থেকে বহুদূরে।
  • swarnendu | 138.178.69.138 (*) | ০২ জুন ২০১৪ ১২:৪৭72817
  • দেব বাবু,
    আমি সমতল শব্দটা দেখেছি... আমি দেখাতে চাইছিলাম অবজারভেশন থেকে সংজ্ঞাটা এমনভাবেই নেওয়া যাতে ব্যাপারটা প্রায় টটোলজি ... ( ম্যাথেমেটিকালি নয়, কন্সেপচুয়ালি )...
    আর শেষ অংশটা ঠিক এখুনি মানতে পারছি না, ওয়েভ ফাংশান ও নেচারে পাওয়া যায় না, বল ও না, বলরেখা ও না... কেমিস্ট্রির এখুনি এমন কিছু মনে করতে পারছি না যদিও। তবে কেমিস্ট্রি এমনিই কিছুই জানি না।
  • T | 24.139.128.15 (*) | ০২ জুন ২০১৪ ১২:৫৭72818
  • N এর মূল প্রশ্ন থেকে ব্যাপারটা অন্যদিকে ঘুরে গেল। একটা টই খুলে লিখলে ভালো হত।
  • Atoz | 161.141.84.164 (*) | ০৩ জুন ২০১৪ ০৩:৪২72851
  • N, ঐ যে স্বতঃসিদ্ধগুলো, এগুলো প্রমাণ করা যায়? মানে কেউ ধরুন এসে বললো, এই যে পাঁচটা স্টেটমেন্ট বাপু শুরুতেই "এসব সত্য" বলে ধরে নিলে, তার প্রমাণ কী? প্রমাণ করে দেখাও। অথবা বলো, কেন হয় এটা?
    কিংবা কেউ ধরুন, খুব রিডিকুলাস কিছু জিনিসকে স্বতঃসিদ্ধ ধরে পুরো একটা কন্সিস্টেন্ট ম্যাথামেটিকাল স্ট্রাকচার বানালো, সেটার ক্ষেত্রে কী হবে? তার স্ট্রাকচার খুবই চমৎকার, কিন্তু যে অ্যাক্সিয়মটার উপরে সেটা দাঁড়িয়ে, সেইটাকে বাইরের থেকে ডিসপ্রুভ করে দিল কেউ।
  • N | 208.7.62.204 (*) | ০৩ জুন ২০১৪ ০৪:৩২72852
  • সাধারনভাবে বলা যায় যে কোন স্বতঃসিদ্ধই প্রমান করা যায়না, প্রমান করলে সেটিকে আর স্বতঃসিদ্ধ বলে ধরা হয়্না। আর নিশ্চয়ই জানেন, স্বতঃসিদ্ধ বহু প্রকার - ইউক্লিডের স্বতঃসিদ্ধগুলো একপ্রকারের, সেট থিওরির স্বতঃসিদ্ধগুলো আরেকপ্রকারের। তাহলে যেকোন থিওরির স্বতঃসিদ্ধগুলো আসে কোথা থেকে? এগুলো কি এম্পিরিকাল? আবার তারস্কি বা হিলবার্টের স্বতঃসিদ্ধগুলো তৈরী না হলে তো ফর্মাল সিস্টেমই তৈরী হতো না!

    আপনার পরের প্রশ্নটা আরও বিপজ্জনক। ধরা যাক "রিডিকুলাস" কিছু স্বতঃসিদ্ধ ধরে একটা ইন্টার্নালি কন্সিসটেন্ট স্ট্রাকচার তৈরি হলো। এবার কোন একটি স্বতঃসিদ্ধ ভুল প্রমান হলো, তাহলে তো ঝামেলা চুকেই গেল, কন্সিসটেন্সি আর রইলোনা। কিন্তু যদি স্বতঃসিদ্ধ গুলোকে বা স্ট্রাকচারটাকে ভুল প্রমান না করা যায় তাহলে? আর পরে যদি দেখা যায় ঐ স্ট্রাকচার দিয়ে কোন নতুন ফিজিকাল ফেনমেননকে ব্যাখ্যা করা যাচ্ছে, তাহলে? গণিতশাস্ত্রে কিন্তু এরকম কয়েকবার হয়েছে!
  • Atoz | 161.141.84.164 (*) | ০৩ জুন ২০১৪ ০৪:৪৩72853
  • N, তার মানে "রিডিকুলাস" কিছু স্বতঃসিদ্ধ ধরে গাণিতিক যে কাঠামো দাঁড়ালো, সেই স্ট্রাকচারে কোনো নতুন ফিজিকাল ফেনোমেনন ব্যাখা হলো ঠিকভাবে? সেইজন্যেই ওটা গৃহীত হলো?
    ওরকম আরো তো স্ট্রাকচার থাকতে পরে, রিডিকুলাস অ্যাক্সিয়ম এর ভিত্তির উপরে দাঁড়ানো, আর ঐ কাঠামোতে নতুন কোনো ফিজিকাল ফেনোমেনন ব্যাখ্যাও হয় নি। সেই ক্ষেত্রে কি ফেলে দেয় নাকি এমনি ফ্যান্টাসটিক স্ট্রাকচার হিসাবে রেখে দেয়?
  • N | 208.7.62.204 (*) | ০৩ জুন ২০১৪ ০৫:০১72854
  • ইনকন্সিস্টেনসি প্রমান না হওয়া অবধি তো ফেলে দেওয়ার প্রশ্নই নেই। এখন হয়তো আমরা ঐ স্ট্রাকচারের ফিজিকাল সিগনিফিকান্স বুঝতে পারছিনা, কিন্তু আজ থেকে একশো বা দুশো বছর পরে হয়তো কোন পদার্থবিদ সবিস্ময়ে লক্ষ্য করবেন যে ঐ "ফ্যান্টাসটিক স্ট্রাকচার"টাই তাঁর থিওরি প্রমান করতে কাজে লাগছে! গণিতের ভান্ডারে এরকম কতো কোহিনুর, কতো জহরত জমা হয়ে আছে ভবিষ্যতে কাজে লাগবে বলে! রামানুজন মক-মডুলার ফর্ম লিখে যাবার নব্বই বছর পরে বোঝা গেল যে ওগুলো সুতো পাকাতে কাজে লাগে ঃ)

    There is no branch of mathematics, however abstract, which may not some day be applied to phenomena of the real world". লোবাচেভস্কি।
  • N | 208.7.62.204 (*) | ০৩ জুন ২০১৪ ০৫:০২72849
  • Atoz, গোডেল এর কথা আমি গোদাভাবে যা বুঝেছি সেটা এরকমঃ

    যেকোন থিওরী সসীম বা অসীম একগুচ্ছ স্বতঃসিদ্ধের ও তাদের দ্বারা প্রমান করা যায় এরকম একগুচ্ছ লজিকাল স্টেটমেন্টের সেট। বিভিন্ন থিওরিতে বিভিন্ন স্বতঃসিদ্ধ ব্যবহার করা হয়। এই থিওরিগুলি দিয়ে আলাদা আলাদা "মডেল" তৈরী করা যায়।

    এবার আপনি যেটা বললেন, FP আর তার আগের চারটে স্বতঃসিদ্ধ, এগুলো দিয়ে বানানো হয়েছে ইউক্লিডিয়ান জ্যামিতিক থিওরী। এই থিওরী কোথায় প্রজোয্য, বা এটির মডেল কি? মডেলটি প্রজোয্য একমাত্র সমতলে। খেয়াল করুন, স্পেসটাইম কার্ভেচারকে একটি বিশেষ মান দিলে পেয়ে যাবেন ইলিপটিকাল রাইম্যানিয়ান জ্যামিতি, অন্যদিকে গেলে পাবেন লোবাচেভস্কির হাইপার্বোলিক জ্যামিতি।

    আরেকরম থিওরি হলো ZFC, যা নিয়ে gabeT বলেছেন। কিছু ZFC মডেলে CH এর মান "হ্যাঁ", কিছু মডেলে এর মান "না"। এবার গোডেল। উনি বললেন, গণিতশাস্ত্রে এমন কোন থিওরী থাকতে পারেনা যা একইসাথে "সম্পূর্ণ" আর ইন্টার্নালি "সঙ্গতিপূর্ণ"। মানে ইউক্লিডিয়ান জ্যামিতি বা ZFC, এগুলো হয় অসম্পূর্ণ নাতো এদের নিজের নিজের মডেলে অসঙ্গতি আছে। পাটিগণিতে এরকম উদাহরন হলো পিয়ানো পাটিগণিত, যা কিনা অসম্পূর্ণ। (বলে রাখা ভালো, এটা গোডেলের প্রথম ইনকমপ্লিটনেস থিওরেম। দ্বিতীয়টি লিখতে গেলে আগে লজিক নিয়ে কিছু লিখতে হয়)।

    খেয়াল করে দেখুন, গোডেলের মতানুসারে যেকোন মডেলে অসম্পূর্নতা থাকতে পারে। এটা CH, FP বা অন্য যেকোন থিওরেমের ক্ষেত্রেই প্রজোয্য। তাই এগুলো দিয়ে "ইউইনিভার্সাল ট্রুথ" আছে না নেই সেই ব্যপারে কোন দাবী করা হয়্না। কিন্তু আজ আর লিখতে পারবনা, ক্লাস নিতে হবে।
  • N | 208.7.62.204 (*) | ০৩ জুন ২০১৪ ০৫:০৫72850
  • "তাহলে স্বতঃসিদ্ধগুলো এত জোরদার? এগুলো আসে কোথা থেকে? "

    একদল বলে "গাণিতিক জগত" থেকে। আরেকদল বলে মস্তিষ্ক চারিপার্শ্বকে যেভাবে দেখছে তার থেকে। The jury is out ঃ)
  • swarnendu | 41.164.232.232 (*) | ০৩ জুন ২০১৪ ০৫:৪৩72855
  • নন ইউক্লিডীয় জ্যামিতিকেও তো প্রথমে তাই মনে করা হয়েছিল, "রিডিকুলাস" কিছু স্বতঃসিদ্ধ ধরে একটা ইন্টার্নালি কন্সিসটেন্ট স্ট্রাকচার।
  • Atoz | 161.141.84.164 (*) | ০৩ জুন ২০১৪ ০৮:৩৮72856
  • আরে তাই নাকি? এ যে দেখি হে বঙ্গ ভান্ডার তব বিবিধ রতন এর কেস! "হে গণিত ভান্ডারে তব বিবিধ রতন!" ঃ-)
    তাহলে তো সেরকম সেরকম তীক্ষ্ণ তুখোর তাত্ত্বিক পদার্থবিদ বা রসায়ণবিদ বা জীববিদেরা গণিতের ভান্ডার খুঁজলে পেয়েও যেতে পারেন এরকম কোনো কাঠামো যেটা দিয়ে এখনো সমাধান না হওয়া কোনো প্রশ্নের স্মুদ সমাধান হয়ে যাবে! চাইকি সঙ্গে কিছু বোনাসও পাওয়া যেতে পরে।
  • gabeT | 122.79.39.100 (*) | ০৪ জুন ২০১৪ ০১:৪১72859
  • দৃপ্ত ভঙ্গীতে ভুলভাল না বললেও চলে। গণিত একরকম ভাষা ঠিকই কিন্তু গণিতের সীমানা প্রায় হিট করেছি? না দাদা আপনি খবর রাখেননা।
  • স্পুতনিক | 24.139.128.15 (*) | ০৪ জুন ২০১৪ ০২:০৯72860
  • একটি গাণিতিক কবিতা...বিপ্‌...বিপ্‌...বিপ্‌...
  • Atoz | 161.141.84.162 (*) | ০৪ জুন ২০১৪ ০২:৪৮72861
  • হিট খেয়ে একটু হীটেড হয়ে গ্যাছেন মনে হয়। ঃ-)
    মাফ করুন, একটু মজা করলাম আরকি।
  • bip | 78.33.140.55 (*) | ০৪ জুন ২০১৪ ০৮:৪৩72862
  • গণিত, বিজ্ঞান এগুলি বড় এরিয়া এখানে এসে কেও যদি বলে মশাই আপনি খবর রাখেন না-সেটা হাস্যকর। কারন কারুর পক্ষেই তার নিজের কুয়োর বাইরে খবর রাখা সম্ভব না। আমি যেটুকু দেখছি, সেটাই লিখলাম। কেও যদি অন্য কুয়োতে অন্য ব্যাঙের পেচ্ছাপ খেয়ে থাকে, সে তাহলেই সেই কুয়োর কথাই লিখুক। এই মহান জ্ঞান সমুদ্রে আমরা ব্যাঙাচি মাত্র। কবিতার ভাষা নিয়ে পরীক্ষা হয় না? নতুন অভিব্যাক্তি নতুন ভাষার নির্মান থেকেই আসে। গনিত ও তাই । এই বিগ ডেটা ফিল্ডে বা একটা কমপ্লেক্স সিস্টেমে কি ভাবে সমস্ত স্ট্রাকচারগুলোকে ধরা যাবে তার গণিত এখনো অধরাই এবং বর্তমানের গনিত এখনো সেই ব্যাপারে অদক্ষ। ইন্ট্রইগ্রাল ইকুয়েশনের জন্ম হয়েছিল ফ্রান্সের আদমসুমারীতে জনগননার ভবিষত বানীর জন্য। নতুন চ্যালেঞ্জ থেকেই নতুন গণিতের জন্ম হয়।
  • Atoz | 161.141.84.164 (*) | ০৪ জুন ২০১৪ ০৮:৫৬72863
  • হ্যাঁ হ্যাঁ, অবশ্যই অবশ্যই। এই যেমন ধরা যাক না কেন ভবিষ্যতে বাইপোলার ম্যাথেমেটিক্স আবিষ্কার হলো হয়তো। তারপরে এলো তার ক্যালকুলাস, যাকে বলে রেপাগুলার ক্যালকুলাস। তারপরে হয়তো তা থেকে আরো সূক্ষ্ম ক্যালকুলাস এলো, কোহলিয়ার ক্যালকুলাস বা সার্পেন্টাইন ক্যালকুলাস।
    এরকম কত কিছুই হয়তো হবে ভবিষ্যতে। ঃ-)
  • b | 135.20.82.164 (*) | ০৪ জুন ২০১৪ ১০:৫২72857
  • শুনিচি অ্যাপ্লায়েড কাজে নতুন কোনো পিওর ম্যাথেমেটিক্স এর টুল ব্যবহার হয়েছে শুনলে পিওর ম্যাথেমেটিশিয়্যানের দল হায় হায় করে কান্নাকাটি করেন।
  • bip | 78.33.140.55 (*) | ০৪ জুন ২০১৪ ১২:১৮72858
  • গনিত বাংলা ইংরেজির মতন একটি ভাষা এবং এর সৌন্দর্য্য ও সেই ভাষার অভিব্যক্তিতে!

    ঐতিহাসিক ভাবে নতুন নতুন বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তিগত প্রয়োজন থেকেই নতুন গণিতের সৃস্টি হয়েছে। ব্যতিক্রম হিলবার্ট স্পেস-যা কোয়ান্টাম মেকানিক্স পরে লাগিয়েছে। স্ট্রিং থিওরী ও টোপোলোজিক্যাল ম্যাথেমেটিক্সের অনেক কিছু লাগিয়েছে। কিন্ত ইতিহাসের গতি অনুযায়ী- মূলত প্রযুক্তি এবং বিজ্ঞানের চাহিদা-অর্থাৎ উপস্থাপনার একটা নতুন "ভাষা" দরকার-তাই মূলত গণিত ভাষাটির জন্মদাতা। এই ভাষায় উপন্যাস, ছোটগল্প কবিতা সব লেখা সম্ভব।

    আজ বিগ ডেটার রমরমার দিনে, আমরা গণিতের নানান সীমানা প্রায় হিট করছি। আমি একটা ইউনিভারসিটি স্টার্টাপের সাথে কাজ করছি-যারা এক নতুন ধরনের এলজেব্রা তৈরী করেছে বিগ ডেটার জন্য-কারন এই নতুন ধরনের এলজেব্রা ছারা বিগডেটাতে মেশিন লার্নিং খুব ইনএফিশিয়েন্ট। যেটা আমরা সবাই ভক্তভোগী। অর্থাৎ দেখা যাছে বিগডেটার জন্যও নতুন ভাষার দরকার।
  • bip | 78.33.140.55 (*) | ০৫ জুন ২০১৪ ০১:৪৫72864
  • কি আপদ। হিলবার্ট স্পেসের আগেও ইউক্লিডিয়ান স্পেস, ভেক্টর স্পেস ছিল। হিলবার্ট সেটাকে জেনারালাইজ করলেন। সেটা নতুন গণিতের জন্ম দিল না? কোন কিছু কি আর আকাশ থেকে পরে রে ভাই-সবই সেই মাটিতে বীজ রোপন করলে, তবে জন্মাবে। বিগ ডেটার চাপে টপোলোজিক্যাল ডাটা আনালাইটিক বলে একধরনের নতুন গনিতের জন্ম হয়েছে (http://www.simonsfoundation.org/quanta/20131004-the-mathematical-shape-of-things-to-come/) যার সব কম্পোনেন্ট অবশ্যই আগে ছিল-কিন্ত একত্র করে, জেনারালাইজ করে একটি নতুন ব্রাঞ্ছ তৈরী (http://en.wikipedia.org/wiki/Topological_data_analysis) হল।
  • gabeT | 122.79.36.52 (*) | ০৫ জুন ২০১৪ ০২:০৫72865
  • তাহলে বলা উচিত ছিল যে গণিতের অমুক এরিয়া প্রায় তার সীমানা ছুঁয়েছে। আপনি তো গোটাগুটি অঙ্ক নিয়েই বলে দিলেন। জ্যাকব লুরির নাম শুনেছেন? পড়ে দেখুন। অঙ্ক বাস্তবের সঙ্গে সম্পর্ক রহিত হতে পারে। CH এর সাথে বাস্তবের কোন যোগ নেই। আসলে অঙ্কে যাকে রিয়েল নাম্বার বলে তার সাথেও নেই। যারা ভাবেন আছে তারা রিয়েল নাম্বারের কনস্ট্রাকশন তাতে AC এর প্রয়োগ একবার ঝালিয়ে নিন।
  • bip | 78.33.140.55 (*) | ০৫ জুন ২০১৪ ০২:৩১72866
  • ভাই গণিত আমার সাবজেক্ট না। জ্ঞান সীমিত। তাই CH না লিখে খোলসা করে বললে ভাল হয়। আপনি যদি কন্টিনাম হাইপোথিসিসের কথা বলেন, তাহলে বলি অনেকেই CH কে গণিতের মধ্যে ধরেন না। আমেরিকান দার্শনিক সলোমন ফিফারম্যান এটিকে দর্শন শাস্ত্রএর অন্তভুক্ত এবং গণিত বহির্ভূত বলে প্রমান করে ২০১১ সালে কিছু একটা ছাপিয়ছিলেন। নিউজে পড়েছিলাম।

    আর রিয়াল নাম্বারের বাস্তবতা নেই-তার উত্তর বলি রিয়াল নাম্বারটাও একটা ভাষা। দেরিদার ডিকনস্ট্রাকশন শুধু ভাষার ওপর না, গণিতের ভাষার ওপর ও খাটে। ভাষা যে ভাবে বাস্তবতাকে উপস্থাপনা করে তার সাথে আসল বাস্তবতার ফারাক থাকবেই। রিয়াল নাম্বার তার ব্যতিক্রম হবে কেন?
  • lcm | 60.242.74.27 (*) | ০৫ জুন ২০১৪ ০৩:০৯72869
  • de | 190.149.51.69 (*) | ০৫ জুন ২০১৪ ০৮:৫২72867
  • লেখাটা ভালোই, তবে তার থেকেও আরো ভালো আলোচনাগুলো -

    N কে অনুরোধ করবো যদি সম্ভব হয় আপনার 03 June 2014 22:31:48 IST পোস্টের কমেন্টটাকে নিয়ে একটু ইল্যাবোরেটলি লিখতে! খুব ইচ্ছে রইলো এবিষয়ে আপনার একটা বড় লেখা পড়ার।

    গণিত সীমাহীন বলেই এতো সুন্দর - সীমানা কি তাইতো জানা নেই!
  • gabeT | 122.79.36.107 (*) | ০৫ জুন ২০১৪ ০৯:১৯72868
  • বিপের শেষ পোস্টের দ্বিতীয় প্যারা বেশ বলেছেন। তবে প্রথম প্যারার সাথে একমত নই।

    আর গণিত কে ফিজিকাল রিয়েলিটি বোঝাবার ভাষা হিসেবে ধরলেই আর পাঁচটা ভাষার মতন প্লেটোয় গিয়ে হাজির হই।
  • সুকান্ত ঘোষ | 212.160.18.27 (*) | ০৭ জুন ২০১৪ ০৫:৩০72870
  • স্পুতনিক গাণিতিক কবিতার দাবি করেছেন - একটি বিখ্যাত কবিতা নীচে দিলাম, নাম "ভারতীয় গণিত""

    "ক্যালকুলাসের এক সত্য আমি লিপিবদ্ধ করি।
    যে কোন ফাংশনের এনেথ্‌ ডেরিভেটিভে এন্‌
    সমান বিয়োগ এক বসিয়ে দিলেই
    সেই ফাংশনটির ফার্ষ্ট ইন্টিগ্রেশনের ফল পাওয়া যায় -
    এনেথ্‌ ডেরিভেটিভে এন্‌
    সমান বিয়োগ দুই বসিয়ে দিলেই
    সেই ফাংশনটির সেকেন্ড ইন্টিগ্রেশন হয় -
    এনেথ্‌ ডেরিভেটিভ এন্‌
    সমান বিয়োগ তিন বসিয়ে দিলেই
    সেই ফাংশনটির থার্ড ইন্টিগ্রেশনের ফল পাওয়া যায়।
    এই ভাবে সহজেই যে কোন অর্থাৎ
    দশম বা শততম অথবা সহস্রতম ইন্টিগ্রেশনের
    ফল অতি সহজেই পাই।"
  • সুকান্ত ঘোষ | 212.160.18.27 (*) | ০৭ জুন ২০১৪ ০৫:৪০72871
  • আর একটি বিখ্যাত কবিতা - নাম "যুক্ত সমীকরণ"

    "যে কোন গণিতসূত্র নিয়ে তার পরিবর্তীদের
    বাঁ পাশে আনার পর সে সমীকরণে
    সমান চিহ্নের পরে - ডান পাশে শূন্য হয়ে যায়।
    এইভাবে কতিপয় যত খুশি সূত্র নিয়ে এ গুলি বামপার্শ্বগুলি
    গুণ করে শুধুমাত্র একটি সমীকরণ সহজেই পাই
    যার ডান পাশ শূন্য, শূন্যের সমান।
    সদ্য উল্লিখিত এই একটি সমীকরণ জ্যামিতিতে রূপায়িত হলে
    অনেক পৃথকরূপ পৃথক পৃথক চিত্র পাওয়া যায় সর্বদাই পাই।
    মূল সমীকরণের - আলাদা আলাদা সব সমীকরণের
    আলাদা সকল চিত্র একীভূত সমীকরণের
    জ্যামিতিক রূপায়নে পাওয়া যায়, তার মানে অনেক সূত্রকে
    একীভূত করা যায় কেবল একটি মাত্র করে ফেলা যায়।
    তাতে আমাদের কিছু লাভ হয় এখানে আমার বৌ রাধা
    এই লিখে রাখা ভালো সবার অবগতির জন্যই নিশ্চয়।"
  • swarnendu | 41.164.232.232 (*) | ০৮ জুন ২০১৪ ০১:৪৬72872
  • gabeT বাবুকে,
    "অঙ্ক বাস্তবের সঙ্গে সম্পর্ক রহিত হতে পারে।" এইটা একটু বিশদে লেখা সম্ভব কি? বল বা চৌম্বক বলরেখা বাস্তব নয় বলে কেউ পদার্থবিদ্যাকে বাস্তবের সাথে সম্পর্করহিত বলেন কি? সেগুলোর মতই রিয়েল নাম্বার তো একটা অ্যাবস্ট্রাক্ট কন্সেপচুয়ালাইজেশন।
    আর চমস্কির মতে ভাষার একটা অংশ, যেটা সব ভাষার বেসিক, সেই ইউনিভার্সাল গ্রামার বোঝার ক্ষমতা মানুষের ইনেট... গনিতের ক্ষেত্রেও তাই এমন কেউ দাবি করেছেন বলেজানি না। তাই গণিতকে ভাষা বলাটায় বেশ গোলমাল লাগছে। আর তাইতে দেরিদা আনাটা নিঃসন্দেহে দৃপ্ত ভঙ্গিতে ভুলভাল বকা ।
  • সুকান্ত ঘোষ | 212.160.18.13 (*) | ০৮ জুন ২০১৪ ০২:১৫72873
  • সংখ্যার 'আবিষ্কার' বা 'উদ্ভব' নিয়ে অনেকে বললেন - অনেক কিছু নতুন জানতে পারলাম। N কিছু লিখলেন প্লেটোনিজম্‌ এবং অ্যাবসল্যিউট ট্রুথ নিয়ে - আরো কিছু লিখলে ভালো হয়।

    আমার নিজের কাছে ব্যাপারটা বেশ গোলমেলে লাগে - দুই পক্ষই বেশ জোরদার সওয়াল করে। গণিতের ছাত্র না হওয়ার জন্য জানি না এই ব্যাপারে কিছু নিঃস্পত্তি হয়েছে কিনা। তবে এই প্লেটোনিজম জিনিসটা গণিতবিদরা সিরিয়াসলি আলোচনা করলে সেটা কি প্রায় 'দর্শন'-এর এলাকায় চলে যাচ্ছে না? মানে বলতে চাইছি - এই অ্যাবসল্যিউট ট্রুথ নিয়ে বিভিন্ন মতবাদ আদৌ কি গণিতের বিবর্তন কোন ভাবে প্রভাবিত করেছে? এই খানেই মনে হয় 'দার্শনিক' আর 'গণিতবিদ' এর পার্থক্য। অ্যাবসল্যিউট ট্রুথ নিয়ে আলোচনা নতুন দর্শনের জন্ম দিয়ে পারে - কিন্তু পারে কি নতুন গণিতের জন্ম দিতে? আমি উত্তর জানি না - আশা করি যাঁরা জানেন এই ব্যাপারে তাঁরা কিছু বলবেন।

    আমি দেখতে পাচ্ছি এই প্লেটোনিষ্ট ভিউ নিয়েই হয়ত জি।এইচ হার্ডি তাঁর বিখ্যাত বই A Mathematician's Apology তে লিখেছিলেন, "317 is a prime not because we think so, or because our minds are shaped in one way or another, but because it is so, because mathematical reality is built that way".

    অথচ এই হার্ডি-এর কাছেই আবার 'প্রমান' ছিল প্রায় অন্তিম সবকিছ! তাই যখন রামানুজনের চিঠি তিনি প্রথম পান, রামানুজন তাঁর প্রস্তাবিত জিনিসপত্রে 'প্রমান' জিনিসটা খুব একটা গুরুত্ব না দেওয়ায় হার্ডি খুবই হতাশ ছিলেন। প্রুফ তাঁর কাছে কত গুরুত্ব পূর্ণ সেটা বোঝাতে তিনি নাকি একবার বারট্রান্ড রাসেলকে বলেছিলেন, "If I could prove by logic that you would die in five minutes, I should be sorry you were going to die, but my sorrow would be very much mitigated by pleasure in the proof".

    আমার মতে ম্যাথ্যামেটিসিয়ানদের (বা অন্য যে কোন বিজ্ঞানীদেরও) বক্তব্য কোট করে কোন 'দর্শন' এরিয়ার জিনিস পত্র প্রমানের বেশ চাপ আছে। এই ব্যাপারে এঁরা শিল্পী বা খেলোয়ারদের প্রায় সমগোত্রীয় - পরস্পর বিরোধী কথা বার্তা এঁরা প্রায় অনেকেই বলে থাকেন। এঁদের বিচার করা হোক এঁদের কাজ দিয়ে - 'দর্শন' ব্যাপারটা দার্শনিকদের উপরেই ছেড়ে দেওয়া ভালো মনে হয়।
  • bip | 78.33.140.55 (*) | ০৮ জুন ২০১৪ ০৩:৫৭72874
  • আমি গণিতের লোক না-গণিত জানিও খুব কম-তবে যে বলে গণিত ভাষা না-তার গণিতে জ্ঞান যে আমার থেকেও অনেক কম-সে ব্যাপারেও খুব বেশী সন্দেহ নেই।
  • arbit | 84.136.42.2 (*) | ০৮ জুন ২০১৪ ০৮:৫৩72876
  • N এর প্রশ্নগুলো নিয়ে একটি বহু-আলোচিত ও বিখ্যাত প্রবন্ধ-
    সবাইকে অনুরোধ করছি পড়বেন।
    http://www.dartmouth.edu/~matc/MathDrama/reading/Wigner.html ছোট লেখা।

    এখানে বিষয়টা কি? দর্শন, সোসোলজি, এন্থ্রোপোমর[ফিস্ম? আমার মতে এই টইয়ের ডোমেন হল- তাত্ত্বিক পদার্থবিদ্যা। ফিসিক্স আমার প্রিয় সাবজেক্ট বলে নয়। অন্ক নানা জায়গায় কাজে লাগে। সেইসব নিয়ে অনেক মনোগ্রাহী সিনেমা, নাটক , গল্পের বই লেখা হয়েছে, হতেই থাকবে। অন্ক মোটামুটি তিন প্রকার-(১) সামাজিক- যে অন্ক দিয়ে প্রণয় রায় ট্রেন্ড বোঝান, বা আমি শেয়ার মার্কেট বুঝি (২) মনের মাধুরী/বৌদ্ধিক খেলা- কেউ ইচ্ছেমত টপোলজিকাল স্পেস তৈরী করে, তার ওপর থিওরেম প্রমাণ করলেন। বা কেউ দাবার মত একটা খেলা বানিয়ে সেই খেলা জেতার স্ট্রাটেজি বানালেন। এই সব খেলার উৎস মস্তিস্ক।

    ভেবে দেখুন (১) আর (২) দুটোরি কেন্দ্রে কিন্তু মানুষ, তার মনের মাধুরী, তার মস্তিষ্ক।
    আর এই (১) আর (২) থেকে আলাদা এক কোণে স্বমহিমায় দাঁড়িয়ে (৩) ফিসিক্স, ওবজেক্টিভ রিয়ালিটি। আমাদের (৩) নিয়ে মাথাব্যথা বা বলা ভাল, (২) আর (৩) এর পারশ্পরিক সম্পর্ক নিয়ে।
  • arbit | 84.136.42.2 (*) | ০৮ জুন ২০১৪ ০৯:০০72877
  • অন্ক মানে জেনেরালিটি, একজন বলেছেন। কিছু নিয়ম, সেগুলো সব জায়্গায় খাটবে। অনেক ক্ষেত্রে (জিওমেট্রিইর এক্সিওম) এই নিয়মগুলো চারপাশের প্রকৃতি থেকে ধার করা। যেটা আশ্চর্য্য, এই জেনারলিটি প্রকৃতিও মেনে চলছে!! মানে এই জেনারলিটির ঝোঁক মনুষ্য মস্তিষ্কের এক বৈশিষ্ট্য হলেও, এই ঝোঁকটাও প্রকৃতি থেকে ধার করা। উল্টো করে বলা যেতে পারে, মনুষ্য মস্তিস্কের এই বিমূর্ততার ঝোক বিবর্তিত হয়েছে ফিসিক্সের নিয়ম মানা প্রকৃতির সাথে বেঁচে থাকার লড়াইয়ে টেকবার জন্য। তাহলে মৌলিকতর প্রশ্ন এটাই, প্রকৃতি নিজে এতটা এব্স্ট্রাক্ট বা জেনারালাইজদ কেন ? এটার জন্য ফিসিক্সের নিয়মের ভেতরে ঢুকতেই হবে।

    স্কুলে একবার এক দাদা ভেক্টরের অন্ক দিয়েছিল। আমি বলছিলাম টপিকটা বল, অন্কের ভেক্টর না ফিসিক্সের ভেক্টার সেই বুঝে করব, ফিসিক্সের ভেকটার চ্যাপটার টা এখনো পড়া হয়নি। অন্ক অন্ক আলাদা আর ফিসিক্সের অন্ক আলাদা। খুব বুদ্ধি হলে চারাপশে স্পেস দেখে পিথাগোরাসের সূত্র নামিয়ে দেব। ফিসিক্সে কিছু ফর্মুলা মুখস্ত করতে হবে। কিরকম ফর্মুলা? y=.5 gt2 গোছের। কিন্তু এ তো একটা কোয়াড্রাতিক ইকুএশান। কআতীগরি (২) এ মানুষের তোরী খেলা, ভগবানের বুদ্ধিও মানুষের মত? না এই ইকোয়েশান কি জিওমেতৃর মত কিছু বেসিক (অপেক্ষাকৃত কোন ন্যাচারাল ্‌ এক্সিওম থেকে আসছে? এইটা সাংঘাতিক কঠিন প্রশ্না। যেমন একটা কমন প্রশ্ণ হল কম্প্লেক্স নাম্বারের মত ক্যাতিগরী (২) অন্ক কোয়ান্তাম মেকানিক্সে কেন আগবে? বা, উইগ্নারের গল্পে পপুলেশান এর পাই, আর সার্কেলের পাই কে কনেক্ট করতে পারা-
    এটা হয়তো দারূন রহস্যজনক কিছু না (পাই কে এক্টি ইন্ফাইনাইট সিরিজ হিস্বে ভাবুন) । ইন্ট্রিগিং, কিন্তু ঘুম কেড়ে নেবার মত রহস্য না, কিন্তু আগের প্রশ্ন আরো অনেক মৌলিক, এবং আংঘাতিক কঠিন
  • swarnendu | 41.164.232.232 (*) | ০৮ জুন ২০১৪ ১২:৪৯72875
  • bip বাবু,
    গণিত কে ভাষা বলার গোলমাল নিয়ে আমি একটা যুক্তি দিলাম, সেই যুক্তি নিয়ে কিছু বললে ভাল হত... এমনিই এ আলোচনায় গনিতের জ্ঞান দরকার আছে বলেই মনে হয়না , আপনার আমার গনিতের জ্ঞানের তুলনামূলক বিচারের দরকার আরও নেই । প্রসঙ্গত, আমার গনিতে জ্ঞান খুবই কম সে নিয়ে আমারও সন্দেহ নেই।
  • b | 135.20.82.164 (*) | ০৯ জুন ২০১৪ ১১:২৪72878
  • অংক আংঘাতিক কঠিন। এ বিষয়ে আমিও একমত।
  • Moon | 183.255.231.125 (*) | ২৩ জুলাই ২০১৭ ০৮:৫৩72879
  • Fermat's Last Theorem নিয়ে সদ্য Simon Sing এর লেখা বইটি পড়েছি। অঙ্ক আমার নিজের বিষয় না হলেও, Fermat's Last Theorem বা Goldbach's Conjecture, Poincare Conjecture এর মত বিষয়গুলো নিয়ে পড়তে রীতিমত ভালো লাগে। Reiman Function নিয়ে এর আগে কোনও ধারনাই ছিল না। এই লেখাটা পড়ে সেটা নিয়েও পড়বার আগ্রহ বেড়ে গেল। যদি কোনও অ্যামেচার লেভেল এর বই এর নাম রেফার করে দেন খুব ভালো হয়।
  • pi | 7845.29.671223.88 (*) | ০৭ জুন ২০১৮ ০৫:৩৪72880
  • তুলতে ইচ্ছে হল। মানে আবার পড়তে।
  • Mumtarin tahakum | 236712.158.780123.137 (*) | ০৫ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৫৩72881
  • গণিত পড়ার মজা নিতে হলে বুঝে বুঝে থিওরী পড়তে হবে।আর যারা শুধু সূত্র মুখস্ত করে অংক করবে তারা গণিতের মজা পাবে না।।গণিতবিদ হওয়া ত অনেক দূরের কথা।।।।
  • Mumtarin tahakum | 236712.158.780123.137 (*) | ০৫ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৫৩72882
  • গণিত পড়ার মজা নিতে হলে বুঝে বুঝে থিওরী পড়তে হবে।আর যারা শুধু সূত্র মুখস্ত করে অংক করবে তারা গণিতের মজা পাবে না।।গণিতবিদ হওয়া ত অনেক দূরের কথা।।।।
  • Atoz | 237812.69.784523.45 (*) | ০৮ নভেম্বর ২০১৯ ০২:৩৬72883
  • এইটায় আবার লিখুন না আপনারা!
  • pi | 162.158.154.30 | ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১২:২৭91035
  • পছন্দের লেখা আর আলোচনা।
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1 | 2 | 3
  • গুরুর মোবাইল অ্যাপ চান? খুব সহজ, অ্যাপ ডাউনলোড/ইনস্টল কিস্যু করার দরকার নেই । ফোনের ব্রাউজারে সাইট খুলুন, Add to Home Screen করুন, ইন্সট্রাকশন ফলো করুন, অ্যাপ-এর আইকন তৈরী হবে । খেয়াল রাখবেন, গুরুর মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করতে হলে গুরুতে লগইন করা বাঞ্ছনীয়।
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত