• মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Atoz | 125612.141.5689.8 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০১:০৫63687
  • মিলমার কে? মিলগ্রাম বলতে চাইলেন কি? সেই বিখ্যাত মিলগ্রাম এক্সপেরিমেন্ট?
    https://en.wikipedia.org/wiki/Milgram_experiment
  • PT | 340123.110.234523.8 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০১:৫৬63701
  • নাস্তিক খুঁজতে কমুনিস্ট দেশে যাওয়ার দরকার হল?
    "By 2050, nearly a quarter of Europeans (23 per cent) are expected to have no religious affiliation......."
  • sm | 7845.15.894523.64 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০২:২৪63703
  • তাতে করে কি হলো?দু হাত পা তুলে নাচতে হবে?
    ইউরোপের লোকেরা কি যুদ্ধ নীতি থেকে সরে এসেছে?
    রাশিয়া কি অস্ত্র বিক্রী বন্ধ করে দিয়েছে?
    জাপান তো বৌদ্ধ ধর্মের দেশ। তারা কি এখন আর যুদ্ধ করছে, যার তার সঙ্গে।কারণ সুযোগ কম।
    সুযোগ এলেই তেরে ফুঁড়ে লাগবে খন।
  • Jyotishka Datta | 0178.178.010112.149 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০২:৪৪63688
  • হ্যাঁ, সেই এক এবং অদ্বিতীয় মিলগ্রাম ! কি করে মিলমার হয়ে গ্যাছে কে জানে? এটাকে এডিট-ও করার উপায় দেখছি না !
  • কল্লোল | 670112.203.017812.80 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০৩:১৬63689
  • চাকরীর ক্ষেত্রে এমনটা আখচারই হয়। এতো ভয়ঙ্কর ব্যাপার নয়, ছোট্ট ছোট্ট বিষয়। অমি ভালো রেটিং পেয়েছি। আমার সহকর্মী বেশ খারাপ রেটিং পেয়েছে। অথচ আমার কাজটি তার ওপর নির্ভরশীল। সে ভালো কাজ না করলে আমার কাজটিও ভালো হবে না। সে ভালো করলেই আমি ভালো কাজ করতে পারবো। ধরা যাক সে কোড লেখে, আমি টেস্টার। আমাকে বলে দেওয়া হলো, তোমার রেটিং জানাবে না। জিজ্ঞাসা করলে ওর রেটিংএর কাছাকাছি বলবে। মানে, ওর রেটিং আমায় বলে দেওয়া হলো। আমি তাইই করলাম। না করলে......
    একজন মার্কসবাদী। তিনি কোন কর্পোরেটের মিডল/হায়ার ম্যানেজমেন্টে আছেন।এমন তো হয়ই।
    কিন্তু এতো চাকরীর ক্ষেত্র।
    যারা এই ঘৃণাভরা লেখাগুলি লেখেন, তাদের অনেকের ওপরই চাকরী বা এমনকি সংগঠনের চাপও নেই।
    তাহলে কেন?
    জাতীয়তাবাদ, সবসময়েই অপর তৈরী করে। কজন ভারতীয় মুসলমান বিদ্বেষ থেকে আজও মুক্ত। মজা হলো যতটা মুসলমান বিদ্বেষ ততোটা ইংরাজ বা ইউরোপীয় বিদ্বেষ কিন্তু নেই।
    আমাদের জাতীয়তাবদের নির্মান ঔপনিবেশিক চিন্তার হাত ধরেই। শিবাজী, রাণা প্রতাপ আমাদের "হিরো", যারা নাকি "মুসলমান"দের বিরুদ্ধে "হিন্দুরাজ" কায়েমের জন্য লড়েছিলেন। আমরা বারো ভূঁইয়ার মধ্যে প্রতাপাদিত্যকে মনে রাখি, কিন্তু ঈশা খাঁকে বিস্মৃত হই। অথচ এমন নয় যে বঙ্কিমচন্দ্র, রমেশ মজুমদার, গোখলে খুব শয়তান ছিলেন। জাতীয়তাবাদকে অপর তৈরী করতেই হয়। অথচ, যাদের মুখে ঝাল খেয়ে জাতীয়তা শিখলাম, তাদের তো আর অপর করে দেওয়া যায় না, তাই.....
    তার ওপর ধর্মের ভিত্তিতে দেশভাগ, আর তার দায় এসে পড়ে "মুসলামান"দের ওপর। ইংরাজ খারাপ। ডিভাইড অ্যান্ড রুল - সব বুঝি, কিন্তু দেশভাগের জন্য দায়ী "মুসলমান" - এটি চিন্তার আনাচে কানাচে ঢুকে গেছে।
    এই চিন্তার মূলোৎপাটন বড় সহজ কাজ নয়। ধুনো তো অবিরত দেওয়াই হচ্ছে।
  • Jyotishka Datta | 0178.178.010112.149 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০৪:০৭63690
  • চাকরি বা সংগঠনের চাপ কেন, আমি এটাও বুঝি যে ট্রোল করে দু-পয়সা পেলে করতেই পারে, পেটের তাগিদ খুব বড়ো জিনিষ, যাদের এইরকম tangible motivation নেই এবং যাঁরা শয়তান নন, তাদের বোঝার চেষ্টা করি ... মনে হয় সম্ভব না ! এক যদি না এটা ভেবে নিই, যে মানুষ আদতে অত্যন্ত হিংস্র একটা জীব, শুধু অর্ডারের অপেক্ষায় ওত পেতে বসে থাকে এবং একা যা-ও ভালো হলেও হতে পারে, একটা বিশাল বড়ো গোষ্ঠী মানেই তাদের হিংসার দিকে প্রবল ঝোঁক আছে !

    "জাতীয়তাবাদ, সবসময়েই অপর তৈরী করে" - এটা খুব সত্যি কথা ! আমার মনে হয় কোনো এক সময় 'অপরায়ণ' এসেছিলো কিছুটা স্বাভাবিক ভাবে, একটা জাতি নিজের বীরত্বের পরিচয় তৈরী করতে গিয়ে একজন লোককে হিরোর রোল দিয়ে দিয়েছে, প্রতাপাদিত্য-র পুনরাবির্ভাব কিছুটা বঙ্গভঙ্গের প্রতিক্রিয়া বলে মনে হয় ! সরলা-দেবী জাতীয়তাবাদী হলেও মুসলিম-বিদ্বেষী ছিলেন না। (বঙ্কিমচন্দ্র বা গোখলের ব্যাপারে নিশ্চিত নই)। এখন যাঁরা বাঙালী বা মারাঠি হিরোদের হিন্দু হিরো বানিয়েছে, তাঁদের মেশিনারি মারাত্মক স্কেলের ! ধুনো দেওয়া নয়, এক্কেবারে হুহু করে হাওয়া আর দাবানল বললেও অত্যুক্তি হবে না !
  • কল্লোল | 7823.63.018912.167 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০৫:৪১63704
  • ধর্ম আসলে ব্যক্তিগত জীবনবোধ ও তার চর্চা। হিংসা মানুষের ভিতর গভীরে বসে আছে ৩০লক্ষ বছর ধরে। আবার চর্চার মধ্য দিয়ে সেই হিংসাকেও উপড়ে ফেলা যায়।
    এই বক্তৃতটি শুনুন - এক আশ্চর্য রূপকথা।
    http://smitachakraburtty.org/tedx-open-prison-system-game-changer/
  • সম্বিত মিত্র | 781212.242.784512.165 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০৬:১৯63691
  • আমাদের সমাজটা রোগগ্রস্ত । প্রধানমন্ত্রী নরাধম মোদি হল রোগটার উপসর্গ ।
    এই রোগের চিকিৎসা প্রায় আসম্ভব । যদি সমস্ত ভারতবাসী সবাই একসঙ্গে নিজেদের ধর্মবিশ্বাস ছাড়তে পারে এবং বৈজ্ঞানিক চিন্তাধারায় শিক্ষিত হয়ে উঠে ভগবানে অন্ধবিশ্বাস ছাড়তে পারে (নাস্তিক না হলে কি প্রকৃত ধর্ম-নিরপেক্ষ হওয়া যায় ?) তবেই এই রোগের নিরাময় হতে পারে ।
  • কল্লোল | 670112.203.674512.244 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০৭:০৮63692
  • "এক সময় 'অপরায়ণ' এসেছিলো কিছুটা স্বাভাবিক ভাবে, একটা জাতি নিজের বীরত্বের পরিচয় তৈরী করতে গিয়ে একজন লোককে হিরোর রোল দিয়ে দিয়েছে, প্রতাপাদিত্য-র পুনরাবির্ভাব কিছুটা বঙ্গভঙ্গের প্রতিক্রিয়া বলে মনে হয় ! "
    ১৯০৫এর বঙ্গভঙ্গে প্রতপাদিত্য উঠে এলেন, খেয়াল করুন, ঈশা খান বা এমনকি সিরাজও নন।
    কাজেই সবটাই যে "স্বাভাবিক" এটা যেমন হলফ করে বলা যায় না, আবার সবটাই হিসেব কষা শয়তানী এমনটাও নয়।
    যদি হিংস্রতার কথা বলেন তো বলতেই হয় এ হিংস্রতা হোমো স্যাপিয়েন তার ডিএনএতে লালন করেছে ৩০ লক্ষ বছর ধরে। অন্য সব মানুষ প্রজাতি (প্রায় সাতটি) হোমো স্যাপিয়েনদের হাতে নিহত, হ্যাঁ, নিহত।
    তবে সেটাই এর কারন এমন কথা বুক ঠুকে বলা যায় না।
  • sm | 7845.15.450123.162 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ০৯:৩৮63693
  • সম্বিত পাত্রের পোস্ট টা বুঝলাম না। সব ভারত বাসীকে ধর্ম বিশ্বাস ছাড়তে হবে। কিন্তু কেন?
    আবার নাস্তিক হবার কথা ও লিখেছেন। যদি ও জিজ্ঞাসা চিনহ আছে।
    এর মানে কি?
    পৃথিবীর বিশ্ব যুদ্ধ গুলো কি ধর্মের কারণে হয়েছিল?
    ভারত চীন যুদ্ধ, এমন কি ভারত পাকিস্থানের যুদ্ধ কি ধর্মের কারণে হয়?
    নাকি, হিংসা, লোভ , ঘৃণা এগুলোই বেশি অনুঘটক এর কাজ করে।
    নাস্তিকরা আস্তিক দের কতটা ঘৃণা করে?কেন করে?
    কম্যুনিস্ট কান্ট্রি গুলো থেকে কি হিংসা ও ঘৃণা উঠে গেছে?
  • h | 340123.99.121223.135 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ১০:০২63694
  • না কমিউনিস্ট কান্ট্রি গুলো ই উঠে গেছে, এখন হিংসা ও ঘৃণা কান্ট্রি তে পিথিমি ভোড়ে গ্যাচে ঃ-))))))))
  • PM | 230123.74.564523.178 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ১০:১৩63695
  • " নাস্তিক না হলে কি প্রকৃত ধর্ম-নিরপেক্ষ হওয়া যায় ?"---- এইটের মানে কি ? নাস্তিক এর আবার ধর্ম কি ? তার আবার নিরপেক্ষতা কি ?
  • সম্বিত মিত্র | 781212.242.784512.165 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ১০:১৫63696
  • @ sm,
    তার কারণ ধর্মবিশ্বাস মানুষে মানুষে প্রভেদ তৈরি করে । ঠিক যেরকম (Jyotishka Dattaর ভাষায়) "জাতীয়তাবাদ, সবসময়েই অপর তৈরী করে।"
    কল্লোলবাবু ঠিকই লিখেছেন : হিংসা বা ঘৃণা মানুষের "ডিএনএতে" ।
    ধর্মবিশ্বাস যদি আমরা ছাড়তে পারি তাহলে হিংসা করা বা ঘৃণা করার একটা প্রধান উৎস বন্ধ করা যাবে । হানাহানির একটা কারণ অন্তত কমবে । বর্তমান দুনিয়ার হানাহানির একটা প্রধান কারণ কমবে ।

    সত্যিকারের ধর্ম-নিরপেক্ষ হতে হলে কোনো একটা ধর্মকে আমার (তা সে জন্মসুত্রেই হোক বা ব্যাক্তিগত পছন্দের জন্যই হোক) বললে চলবে না । কারন তাহলে সেই ধর্মের প্রতি আমার পক্ষপাত থাকবেই ।

    নাস্তিক হওয়াটা উত্তরণের দ্বিতীয় ধাপ । বাধ্যতামূলক নয় :)

    পরিশেষে বলি : অন্য নাস্তিকরা কি করেন জানিনা , তবে আমি অন্তত আস্তিকদের ঘৃণা করিনা । তবে হ্যাঁ, একটু অনুকম্পার চোখে দেখি ।
  • Jyotishka Datta | 013412.184.235623.78 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ১০:৩৫63705
  • কল্লোল-বাবুর সাথে একশো পারসেন্ট সহমত - ধর্ম ও জীবনবোধ নিয়ে।

    হিংস্রতা আমাদের মজ্জাগত - এটা পড়ে মনে পড়লো অনেকদিন আগে স্টিভেন পিঙ্কারের একটা বই পড়েছিলাম, দ্য বেটার এঞ্জেলস অব আওয়ার নেচার। হয়তো এই ফোরামে সবার-ই পড়া, তা-ও ... পিঙ্কারের বক্তব্য ছিলো যে বিশাল স্কেলে দেখলে হিংসা ক্রমশঃ কমছে ... (যদিও আমার পিঙ্কারের অনেক-কিছুই একটু অত্যুক্তি লাগে)।

    ওপেন প্রিজনের কথা আগে শুনিনি, খুব ইন্টারেস্টিং লাগলো ... তবে মাস ইঙ্কারসারেশান যে কি সাংঘাতিক পর্যায়ে তা আম্রিগার ক্রিমিনোলজিস্ট দের সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে দেখেছি, এখানে তার সাথে জাতি-বিদ্বেষ-ও একটা বিশাল বড়ো ভূমিকা নেয়। (এখন আবার আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এসে এই আজন্ম-লালিত রেসিয়াল বায়াস-কেও বৈধতা দিচ্ছে - মেশিন একদলকে আলাদা করে নিশানা করতে বললে আর নিজের দায় থাকে না, কিন্তু মেশিন যে আমাদের-ই এত বছরের গাদা-গাদা বায়াসড ডেটা নিয়েই গাদা-গাদা বায়াসড প্রেডিকশন দিয়ে যাচ্ছে, এই সহজ জিনিষ-টা কাউকে বোঝানো যায় না) ...আমি যাদের সাথে কাজ করি তাদের অবশ্য বিশ্বাস রেসিডিভিজম অনেকাংশে পরিবেশের উপর নির্ভর করে, মানে জেল থেকে বেরিয়ে একজন যে পরিবেশে ফিরে যাচ্ছে, যেখানে জীবিকা বা জীবনের খাতিরে রোজ গিয়ে দাঁড়াতে হচ্ছে - এবং এই সব আলোচনায় ইন্ডিভিজুয়ালিজম থেকে সরে আসা হচ্ছে আসতে আসতে ! মানে কে অপরাধ করছে সেটার থেকে কোন পরিবেশ অপরাধ-কে আকর্ষণ করে সেটা দেখা ...

    যাহোক, আমি ডাইগ্রেস করছি এবং বেশী বকে ফেলছি, কিন্তু এটা মনে হচ্ছে যে এমন-টা হতে পারে ওপেন প্রিজন সেই সমস্যার কিছুটা হলেও সমাধান করবে, তবে শুনতে খুব-ই রূপকথা-ই মনে হলো বটে ! (লিঙ্কটা দেওয়ার জন্য অজস্র ধন্যবাদ!)
  • sm | 7845.15.450123.162 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ১০:৪৪63697
  • এই তো ঠিক কথা লিখেছেন। নাস্তিকরা কি করেন জানেন না। কম্যুনিস্ট কান্ট্রি গুলোর কার্য কলাপ , উ কোরিয়ার প্রস্তুতি বা নাস্তিক চায়নার কার্য কলাপ দেখলেই বুঝতে পারবেন।
    ধর্ম একটা ঢাল মাত্র!
    খুনো খুনি মানুষের জিনে রয়েছে। যেটা কল্লোল বাবু ও বলেছেন।
    রাজনৈতিক খুনো খুনি ও খুব হয়। কারণ ওই রাজনীতি নামক ঢালের আড়ালে ব্যক্তিগত বা সমষ্টিগত আক্রোশ মেটানো যায়।
    নাস্তিক মানুষের মনুষত্বের উত্তরন হয়েছে বলে জানা নেই।
  • কল্লোল | 670112.203.015612.230 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ১১:৪৮63698
  • শ্রীচৈতন্য, লালন, কবীর, বুল্লে শাহ, নিজামুদ্দীন আউলিয়া, থেকে রবীন্দ্রনাথ - এরা সকলেই আস্তিক ও ধর্মনিরপেক্ষা ছিলেন।
    আসলে ধর্ম বিষয়টা এই ভারতীয় উপমহাদেশে খুব খুব খুবই জটিল।
    এখানে নাস্তিকতাও ধর্মের একটা রূপ। বুদ্ধ, মোংখালীপুত্ত গোশাল, মহাবীর - এদের মত অনেকেই ঈশ্বরের অস্তিত্বে বিশ্বাসী ছিলেন না। কিন্তু এদের মতবাদ, দর্শন - ধর্মই।
    ধর্ম মানেই পূজা, অর্চনা, প্রার্থনা নয়। ধর্ম একধরনের জীবনবোধ, যার সাথে ঈশ্বরে বিশ্বাস করা না করার কোন সম্পর্ক নেই।
  • sm | 7845.15.450123.162 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ১২:০০63699
  • হক কথা। ধর্ম জীবন দর্শন ও সমাজ থেকে উদ্ভুত কয়েকটি অনুশাসন মাত্র।
    জীবন থাকলে ধর্ম পাশা পাশি থাকবেই। সে ঈশ্বর এর অস্তিত্বে বিশ্বাসী হোক বা না হোক।
  • ?? | 1256.15.560123.214 (*) | ১৬ আগস্ট ২০১৮ ১২:৪১63700
  • প্রভানন্দ সরস্বতী, সাভারকর এরা তো নাস্তিক ছিলেন। তো সাম্প্রদায়িক হওয়া আটকেছে নাকি?
  • Fake loo | 236712.238.893412.173 (*) | ১৮ আগস্ট ২০১৮ ০৫:২৩63706
  • Jyotishka, পিন্কারেরে এটা পেট থিম। ওর একটা রিসেন্ট বই "এন্লাইন্টেনমেন্ট নাউ" -এ এইটা নিয়ে এলাবোরেট করেছে, স্ট্যাট ফ্যাট দিয়ে দেখিয়েছে " বিশাল স্কেলে দেখলে হিংসা ক্রমশঃ কমছে"। দো আই এগ্রী হি কুড বি ভেরি রিডাক্টিভ এট টাইমস।
    - তবে অন্তত এইটা আমারো মনে হয় ইন্টিউটিভলি। মানে যদিও যেকোন সাইকো কিলিং এপিসোড এর পরেই কাগজ মিডিয়ায় সমাজতাত্বিকরা মাথা নেড়ে একটা" ক্রমবর্ধমান হিংসার সংস্কৃতি" দেখতে পান আর আধুনিক মানুষের বিচ্ছিন্নতা নিঃসঙ্গতা ইঃ কে দায়ী করেন, সামহাউ মনে হয় একদম খাতায় কলমে এনালিসিস করলে, প্রাচীন যুথবদ্ধ সমাজের হিংসার তুলনায় এগুলো কিছু না আর ডিক্রিসিং। অহিংসার একটা গ্লোবাল ফিগার কে দু দশক ধরে ফলো করে ৪৬-৪৭ এ যে সমাজ ধর্মের নামে এক চরম (one of 20th century's greatest massacres) অমানবিক হত্যা লীলায় মাততে পারে, তাদের থেকে আজকের জেনারেশন ভিডিও গেম খেলে আরো বেশী হিংসাশ্রয়ী নেসেসারিলি, এটা বলা চাপ।
    বরং উল্টো টা বলার একটা বড় যুক্তি আছে। সেটা হল, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী বিশ্বে মানবাধিকার কে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়া (institutionalize করা) । ইউরোপে মৃত্যুদন্ড রদ থেকে শুরু করে অনেক অনেক পলিসিস -- যা বিশ্বের অন্যত্র মান্যতা পেয়েছে, ও ক্রমশ পাবে-- তার ইম্প্যাক্ট । এখানে উপর থেকে চাপিয়ে দেয়া রুলের সাথে কম্প্লায়েন্সের ব্যাপার তো আছেই, কিন্তু more interestingly এই institutionalization প্রোসেস মানবাধিকার ও হিংসা নিয়ে সেই সব সমাজের core internal values গুলো *খুব সম্ভবত* বদলে দিছে। এটা নিয়ে কিছু সার্ভে ডেটা আছে। সময় পেলে দেব।

    আইরনিকালি ঃ)) এই ভ্যালুস এর পরিবর্তন কিন্তু একরকম ঐ প্রো-এস্ট্যাবলিশমেন্ট বায়াস থেকেই আসছে । যাহা রুলবুকে আছে, তাহাই মহৎ। তবে যে পথেই হোক, ওভারল "মানবিক" হবার স্টান্ডার্ড টা যুগের সাথ, এন্ড ফর দ্য বেটার, বদলাচ্ছে বলেই মনে হয়।
  • Fake Loo | 236712.238.893412.173 (*) | ১৮ আগস্ট ২০১৮ ০৫:৩০63707
  • Jyotishka উল্লিখিত এক্সপেরিমেন্ট ( ওটা মিলগ্রাম তো?) নিয়ে একাধিক ছবি, দকু হয়েছে। প্রথমটা বেশ ভাল, হাইলি রিকোমেন্ডেড।
    https://www.rottentomatoes.com/m/experimenter/

    এইটা দেখিনি, মনে হয় রিয়াল ফুটেজ ।

    এই obedience সাইকলজি কে ক্রিমিনালরা কিভাবে এক্স্প্লয়েত করতে পারে, সেটার একটা খুব ইন্টারেস্টিং উদাহরন এই ছবিটা। রিয়াল ঘটনার উপর বেসড।
    https://www.rottentomatoes.com/m/compliance_2012
  • JD | 0178.178.010112.149 (*) | ১৮ আগস্ট ২০১৮ ১০:০৫63708
  • @ফেক-লুঃ দারুণ লাগলো পড়ে, মানবাধিকার বা হিংসা নিয়ে core internal values পালটে যাচ্ছে, এটা বেশ চমকপ্রদ একটা জিনিষ এবং শুনলে কোথাও একটা বেশ প্যারাডক্সিকাল লাগে ব্যাপার-টা - অন্ততঃ আমার সহজ বুদ্ধিতে ! হতে পারে আমি যেভাবে ভাবার চেষ্টা করছি, এ সে জন্তু-ই নয় ... "খাতায়-কলমে অ্যানালিসিস" নিশ্চয়ই লোকে করে বা করেছে, একটু খুঁজে দেখতে হবে ... সার্ভে ডেটা-টাও কি দেখায় সেটা জানার আগ্রহ রইলো !

    অবশ্যই ইন্টারনেটের ট্রোল-রা এর আওতায় পড়েন না বলে মনে হয় - এখানে তো শাস্তি কি হবে, বা আদৌ হওয়া উচিত কিনা এসব-ও পুরোপুরি শক্ত ভিতের উপর দাঁড়ায়নি, এবং এখনো অব্দি বিশাল বড়ো কোনো দুর্ঘটনা/বিপর্যয় ঘটেনি, যাতে লোকে নড়েচড়ে বসবে ... হতে পারে অনেকদিন ধরে ব্যাপারটাকে চলতে দিলে এটাও আস্তে আস্তে কমবে !

    অনেকেই মনে করে ফ্রিডম অব স্পিচ কিছু-টা কাটছাঁট করা উচিৎ অবিলম্বে - হয়তো ইন্টারনেট-এর জন্য আইনের কিছু রদবদল হওয়া উচিৎ - কারণ এটা একটা এমন প্ল্যাটফর্ম যেখানে একজন জনপ্রিয় লোকের একটা অঙ্গুলি-হেলনে শয়ে শয়ে ট্রোল এসে কাউকে হ্যারাস করতে শুরু করতে পারে ... এবারে যে নাচিয়েছে তাকে তো ধরাই উচিৎ, যারা নেচেছে তাদের-ও কি ধরা উচিৎ? আমার ব্যক্তিগত ভাবে মনে হয় হ্যাঁ ... কিন্তু "হ্যাঁ" মনে হয় বলে অস্বস্তি বোধ করি।

    ডকু/ফিলম দুটোর একটাও দেখিনি, একটা তো নেটফ্লিক্সেই আছে দেখচি, থ্যাঙ্ক ইউ !
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লড়াকু মতামত দিন