এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  গপ্পো

  • ফেয়ারওয়েল 

    স্বাতী রায় লেখকের গ্রাহক হোন
    গপ্পো | ১৫ জুলাই ২০২৩ | ৫৬৬ বার পঠিত
  • ভালবাসি, ভালবাসি! সবাই এই মুহূর্তে ঘিরে দাঁড়িয়ে আছে বিদেশকে। আর সবার ভালোবাসা-ভরা কথা নিষিক্ত করে চলেছে বিদেশকে। খুবই ভাল, ভাল সব কথা। শুনতে শুনতে বিদেশের নিজেরই নিজেকে কেমন অজানা অচেনা মনে হচ্ছে। বাব্বা এত গুণ তার ছিল তাই তো জানত না সে! ওর ডিপার্টমেন্টের সবে মাস খানেক হলো যোগ দেওয়া দুজন ফ্রেশার এই মাত্র এসে হাতে হাত মিলিয়ে গেল। বলল, মিস করব তোমাকে বস। বিদেশ একটু দেঁতো হাসি হাসার চেষ্টা করল। মনে পড়ল, ওদের একটা ডকুমেন্টেশনের কাজ দিয়েছিল কদিন আগে। একটা তিন-পাতার ডকুমেন্ট দুজনে মিলে এক সপ্তাহে করে উঠতে পারেনি। বিদেশ তুমুল ঝাড় দিয়েছিল ওদের। সেদিন লাঞ্চের পরে ওর পাশের কিউবের সুকান্ত এসে বলেছিল ছেলে দুটো নাকি ক্যান্টিনে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগালি দিচ্ছিল বিদেশকে। বিদেশও ওদের হাতে হাত মিলিয়ে বলল, আমিও মিস করব তোমাদের। বলার সঙ্গে সঙ্গে দেখল ওর হাতের আঙ্গুলগুলো বেঁকে গেল – আর কিছুতেই সোজা করতে পারল না। 

    একটু আগেই হয়ে গেছে ফেয়ারওয়েল বক্তৃতা। ওদের ডিপার্টমেন্টের হেড, মিঃ রণদিভে বেশ একটা আবেগ জর্জরিত ভাষণ দিয়ে শুরুটা করে দিলেন। যার মূল বক্তব্য বিদেশের মতো উদ্যমী, সমর্পিত-প্রাণ কর্মী পাওয়া মোটেই সহজ কথা নয়। আর অমন কোয়ালিটি-সচেতন কর্মী লাখে একটা মেলে। শুনতে শুনতে বিদেশের চোখটা ট্যারা হয়ে গেল। মণিগুলো প্রায় বড় হয়ে ঠেলে বেরিয়ে আসতে লাগল। মনে পড়ল এক বছর আগে যখন মায়ের অসুখের সময় বিদেশ মাস খানেক বাড়ি থেকে কাজ করার অনুমতি চেয়েছিল, তখন এই রণদিভেই চিবিয়ে চিবিয়ে যা বলেছিল তার মর্মার্থ এই যে তোমরা বাঙ্গালীরা খুব কামচোর। ভাত ছড়ালে কাকের অভাব হয় না – তাই এক মাস বাড়িতে বসে থাকলে বিদেশ আর ফিরে এসে চেয়ারটি পাবে না। সেটা বুঝে যেন সে কাজ করে। বলাই বাহুল্য এরপর বিদেশ আর ওয়ার্ক-ফ্রম-হোম করেনি। তার পর বলতে উঠলেন অ্যাকাউন্টের রজত পারেখ। বললেন আহা বিদেশের মতন মিঠি-জুবান আজকালকার দিনের ছেলেদের মধ্যে মেলে না। বলতেই বিদেশের মুখটা বিচ্ছিরি ভাবে একদিকে বেঁকে গেল। এই সেদিনই হিসেব-পত্তর বুঝে নিতে গিয়ে বিদেশ দেখেছিল যে ওঁর হিসেবে গণ্ডগোল আছে। সে কথা বলতেই পারেখসাহেব খেপে গিয়ে তুমুল চেঁচামেচি জোড়েন, তাঁর পঞ্চাশ বছরের অ্যাকাউন্টের জ্ঞান আর সেদিনের বেতমিজ ছোকরা কিনা তাঁর হিসেবে ভুল ধরে! পরে অবশ্য অ্যাকাউন্টসের অন্য ছেলেটির হস্তক্ষেপে ভুলটা সংশোধন হয়। কিন্তু ততক্ষণে গোটা অ্যাকাউন্টসের সবাই জেনে গেছে যে বিদেশের মতো বেয়াদব ছোকরা ভু-ভারতে দুর্লভ! 

    সভার শেষ কর্তৃপক্ষীয় বক্তা মানব-সম্পদের নিধি মিশ্র। এক হাতে শাড়ির খসে পড়া আঁচল, আরেক হাতে কপালের উপর নেমে আসা অলকগুচ্ছ সামলাতে সামলাতে তিনি কাতর কণ্ঠে বললেন, বিদেশের মতো কোমলহৃদয় মানুষ সবার আদর্শ। অফিসের কর্পোরেট সোশ্যাল রেস্পন্সিবিলিটির জন্য বিদেশ যা করেছে, তা বলতে গেলে মহাভারত হয়ে যাবে। বিদেশের মনে পড়ল, কিছু দিন আগে একটি গরীব মেয়ের উচ্চশিক্ষার জন্য টাকা সংগ্রহ করছিল সে। ঘুরতে ঘুরতে টাকার আশায় এইচ-আরে যেতেই নিধি মিশ্র ব্যঙ্গ করে বলেছিলেন যে এই সব ফালতু কাজ না করে নিজের কিসে উন্নতি হয়, তাই ভাব। আর একটি পয়সাও চাঁদা দেয়নি। বিদেশের বুকের ভিতরটা কে যেন খামচে ধরল! চোখের সামনেটা অন্ধকার - সব ঝাপসা – যখন আবার সব কালো কেটে গেল, তখন শুধু বুকের মধ্যে যেন একটা পাথর পুরে দিয়েছে কেউ। 

    এবার বিদেশের পালা। স্বভাব-লাজুক বিদেশের পক্ষে সবার মাঝখানে বক্তৃতা দেওয়া যে কতখানি বিড়ম্বনা, সেটা জানত বলেই পকেটে একটা কাগজ গুঁজে দিয়েছিল সোমা। সোমার অবশ্য ঘোরতর আপত্তি ছিল এই অকাল-রিটায়ারমেন্টে। কিন্তু বিদেশের গোঁ-র কাছে সে হার মেনেছে। সাধারণ জীবনযাপনের জন্য প্রয়োজনীয় সঞ্চয় হয়ে গেছে তাদের। এবার বিদেশের ছুটি। নামী এমএনসির চাকরী এমন ভাবে কেউ ছাড়ে! অনেক বাক-বিতণ্ডা হয়েছে, চোখের জল ঝরেছে। শেষে বাধ্য হয়ে মানতে হয়েছে সোমাকে। আজকের অনুষ্ঠানে সোমার নেমন্তন্ন ছিল - সে আসতে চেয়েছিল। কিন্তু সেও বিদেশ আসতে দেয়নি। বলেছিল, এই শেষদিনটা আমাকে একা থাকতে দাও, প্লীজ। এরপর তো সবসময়ই তোমার সঙ্গে থাকব। অগত্যা সোমার আর আসা হয়নি। বিদেশ পকেট থেকে কাগজ বার করে পড়তে শুরু করল, গত কুড়ি বছর ধরে আপনাদের সঙ্গে আমার ওঠা-বসা ছিল। এই অফিস ছিল আমার নিশ্বাসে –প্রশ্বাসে ... বুকের ভিতরটা কেমন যেন ফেটে যাচ্ছে – একটু হাওয়া, একটু হাওয়া – আর কিছু মনে নেই বিদেশের। যখন জ্ঞানে ফিরল তখন দেখল সে গুটগুট করে হেঁটে গিয়ে নিজের চেয়ারে বসছে। আর আশ্চর্য! সবাই হাততালি দিচ্ছে। 

    তারপর খাওয়া-দাওয়া, গল্পগুজবের পালা। বিদেশকে ঘিরে জটলা চলছিল। এমনিতেও সবারই কৌতূহল যে বিদেশ এবার কি করবে! কোনও প্ল্যান হাতে না থাকতে চাকরী ছাড়ার গল্পটা বিশেষ হজম হয়নি কারোর। বিদেশের অবশ্য কাউকে কিছু বোঝানোর দায় নেই কোনও। তাই সে চুপচাপ শুনছে। কিন্তু তাতেও রেহাই নেই। এক একজনের এক একটা মন রাখা মেকি কথায় বিদেশের এক একটা অঙ্গ অকেজো হয়ে যাচ্ছে। কি যে হচ্ছে কিছু বুঝতে পারছে না বিদেশ। তার এই বেঁকা মুখ, ঠেলে বেরিয়ে আসা মণি – এসব কি এদের কারোর চোখে পড়ছে না! তবে এটুকু বুঝছে যে এখনি এখান থেকে কেটে পড়া দরকার! নিজের পায়ে জোর থাকতে থাকতে। 

    কোনওক্রমে সবার থেকে বিদায় নিয়ে বিদেশ বেরিয়ে এলো। নিবারণদা গাড়ীর কাছেই ছিল। কোন ফাঁকে অফিসের লোকেরা এক গাদা উপহারের বাক্স, ফেয়ারওয়েল কার্ড এ সব এনে তুলে দিয়েছে গাড়ীতে। তারপাশে কোনওক্রমে একটু জায়গা করে বসে পড়ল বিদেশ প্রায়-বিকল হওয়া শরীরটাকে নিয়ে। গাড়ীটা যখন বাইপাসে উঠল হঠাৎ বিদেশ গুঙিয়ে উঠল, নিবারণদা দাঁড়ান। একটু সাইড করে দাঁড়ান। ওই যে বড় গাছটা রয়েছে, ওটার পাশে গিয়ে দাঁড় করান। 

    তারপর সারা শরীর এক করে সাপটে ধরে ত্রিভঙ্গমুরারী হয়ে এক এক করে সব ঊপহারের বাক্সগুলো নিয়ে গিয়ে জড়ো করল এক ঝুপসি বটগাছের তলায়। সবার উপরে সাজিয়ে রাখল ফেয়ারঅয়েলের কার্ড। তারপর দমাদ্দম লাথি মারতে লাগল তাতে। পা দুটো এখনও সতেজ আছে বুঝি এই জন্যেই। নিবারণ এতক্ষণ গাড়ীর ভিতর থেকে অবাক হয়ে বিদেশের কাণ্ড দেখছিল। এবার তাড়াতাড়ি নেমে এসে বিদেশকে ধরল, দাদা করেন কি, করেন কি! বিদেশ ততক্ষণে ঘেমে স্নান করে গেছে – শার্টটা চপচপে হয়ে গায়ে চিটকে গেছে। আলগা টাইটা কোনক্রমে গলা থেকে ঝুলছে। মাথার চুল উস্কো-খুস্কো। মুখের থেকে লালা ঝরছে। প্রায় অস্পষ্ট উচ্চারণে জড়িয়ে জড়িয়ে বললে, শালা ওরা ভেবেছেটা কি! কটা উপহার দিয়ে আমার বাকী জীবনটাকেও নষ্ট করে দেবে! ওগুলো চোখের সামনে থাকলে আমি কোনওদিন ওই ভামগুলোর মুখ ভুলতে পারব? মাথা তুলে দাঁড়াতে পারব? আমি চাকর, শালা চাকর-ই থেকে যাব সারা জীবন? আমি কাল থেকে রাজার মতো বাঁচব রে, বাঞ্চোতের দল! তোদের উপহারের মুখে আমি মুতি...

    তারপর জিভ বার করে কুকুরের মতন হাঁপাতে হাঁপাতে প্যান্টের চেন খুলে হিসি করতে থাকল বাক্সগুলোর উপর। 

    নিবারণ পায়ে পায়ে পিছিয়ে গিয়ে আবার গাড়ীতে বসল। এসব নাটক না করে ওগুলো দাদা তাকে দিয়ে দিলেই পারত! কত ক্ষণে এ সব নকশাবাজি বন্ধ হবে কে জানে! তারপর দাদাকে বাড়িতে পৌঁছে বৌদির হাতে গাড়ীর চাবি জমা দিয়ে তবে তার ছুটি। আজকের মতো। আবার কাল, তার পরের দিন, পরের পরের দিন... 
     
    ( ঋতবাক ওয়েবজাইনে মার্চ ২০১৮ তে পুর্ব প্রকাশিত) 

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • গপ্পো | ১৫ জুলাই ২০২৩ | ৫৬৬ বার পঠিত
  • আরও পড়ুন
    ও নাম! - Suvasri Roy
    আরও পড়ুন
    ইঁদুর  - Anirban M
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ১৭ জুলাই ২০২৩ ১৪:৫৩521361
  • পড়লাম গল্পটা। একটু খুঁতখুঁতুনি লাগছে। বলি? 
     ফেয়ারওয়েলের দিনে হঠাৎ চোখ খুলল এমন তো নয়, নিশ্চয় আগে খুলেছে তাই ভলান্টারি রিটায়ারমেন্ট।  তো এই পুরো জার্নিটার তেমন কিছু না থাকায় কেমন একটু খাপছাড়া লাগল।  আর ড্রাইভারের দিনগত পাপক্ষয় এর রিয়্যালাইজেশানটাও কেমন খপাৎ করে হল।
  • স্বাতী রায় | 117.194.38.97 | ১৮ জুলাই ২০২৩ ০৩:১৯521376
  • আরে বলবে না কেন? একদম ঠিক কথা। কিছুই দাঁড়ায় নি জানি। আমার সব বন্ধুরাই বলেছে, কিস্যু হয়নি, আবার লেখ। তবে এই গল্পটা লেখার একটা গল্প আছে। সেটা অবশ্য প্রকাশ্য নয়। তবু ওই ইতিহাসটার জন্য আমার প্রিয়। এদিকে গল্পটা হারিয়ে গিয়েছিল। সেদিন কাকতালীয় ভাবে ইন্টারনেটে খুঁজে পেয়ে এখানে রেখে দিলাম। পিওর নস্টালজিয়া বলে।  
  • অমিতাভ চক্রবর্ত্তী | ১৮ জুলাই ২০২৩ ০৫:৫৫521381
  • হা হা হা হা! ভাবছি, আপনাদের সাথে একমত হয়ে যাই - মানে গপটার হওয়া-না-হওয়া নিয়ে। যাগ্গে, মাঝে মাঝে এমন হয়‌।
     
    এই গল্পের বিপরীত অভিজ্ঞতা আমার। বছর খানেক আগে, অসময়েই অবসর নিয়ে নিলাম কারণ আমার নিজের হিসাবমত আমার অবসরের সময় এসে গিয়েছিল। আমার ফেয়ারওয়েলটা আমি খুব উপভোগ করেছি। তার কারণ অবশ‍্য এটাই যে আমার সমস্ত পাওয়া-না-পাওয়া মিলিয়ে অফিসের এখনকার মানুষগুলোর বেশিরভাগ-এর সাথে আমার সম্পর্ক আনন্দের‌।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে মতামত দিন