• হরিদাস পাল  আলোচনা  বিবিধ

  • করোনা ও ধর্ম

    Arka bhattacharya লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | বিবিধ | ১১ মে ২০২০ | ৪২১ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • রাম যদি হেরে যেতো রামায়ণ লেখা হতো , রাবণ দেবতা হতো সেখানে। এই করোনা যুদ্ধে হেরে যারা বিদায় নিয়েছে পৃথিবী থেকে তাহলে কি তারা অন্য রামায়ণ পড়েছে। করোনা কি তাহলে সেই নতুন ধর্ম ? নতুন চিন্তা ভাবনা? নতুন ইসম ? এ কি অন্য এক মহাশক্তি যা সমস্ত মানব জাতির টাইমপাস রিলিজিওনকে কলা দেখাচ্ছে। হয়তো অন্য কিছু। হয়তো অন্য মসীহা , অন্য শক্তি যে আমাদের একটা টানেলের মধ্যে ঢুকিয়ে লকডাউন করে দিয়েছে। আর সেই টানেলের শেষে আমরা , মানুষ হয়ে বেরোবো।

    যদি ধর্মান্ধদের নিম্নমেধার সমকক্ষ হয়ে ধর্ম ও করোনার বিচার করতে হয়। তাহলে বলতে হবে ইনি সর্বভূতেহিতেরতাঃ। যেকোনো জীবেই নাকি ইনি বিরাজমান। ধর্মগুরু আর বিজ্ঞানীদের ছাড়া চর্মচক্ষু দিয়ে এনাকে দেখা যায় না। বিশ্বাস করতে হবে যে ইনি আছেন আর আমাদের সমস্ত কিছুকে কন্ট্রোল করছেন। এনার জন্যেই আমরা ঘরে থাকছি। এনার জন্যেই আমরা ঘর ছেড়ে বেরোচ্ছি। ইনি মানুষে মানুষে ভেদাভেদ করেন না। জন্ম , জনন শেষ করে জরার পরিত্রাণে মুখিয়ে আছেন। মানুষকে বলছেন , “তোমার দ্বারা কিস্যু হবে না। তোমরা ইয়ে বা ইশে।”

    করোনা সবথেকে দ্রুত প্রচারিত দেববাণী যা worldometer বা জন হপকিন্স এর দ্বারা সারা পৃথিবীতে প্রচন্ড বেগে ছড়িয়ে পড়ছে। ইনি নিরাকার ব্রহ্ম তাই একটা পি এন জি ছবির ওপর ভরসা করে বাড়িতে বাড়িতে পুজো হচ্ছে। বাড়ির বাইরে বেরিয়ে এনার সাথে দেখা করতে গেলে মাথায় কাপড় দেওয়ার মতো মুখে কাপড় দিয়ে যেতে হচ্ছে। পরিচ্ছন্নতা যে কোনো ধর্মের মূল স্তম্ভ। কিন্তু ইনি সবাই কে সত্যি সত্যি পরিষ্কার ধবধবে করে ছেড়ে দিচ্ছেন। এমনকি স্বয়ং প্রকৃতি পরিষ্কার হয়ে এনাকে থ্যাংকু বলছে।

    মানুষ যেরকম ভাবে দোজখের আগুনে পুড়ে মরার ভয়ে সারা জীবন ঘ্যান ঘ্যান করে , সেরকম বাজার করতে যেতে ঘ্যান ঘ্যান করছে এই দেবীর ভয়ে। ইনি আত্মার মতো পোষাক পরিবর্তন করে সবার আট কুঠুরি নয় দরজা দিয়ে ঢুকে নিজের অস্তিত্ব বিস্তার করছে। ইনি পাপ পুন্য বিচার করে , দুষ্টের দমন আর শিষ্টের পালন করছেন। যেহেতু ধর্মান্তকরণ ধর্ম বিস্তারের এক অস্ত্র তাই বেছে বেছে নাস্তিক চায়না , ক্রিষ্টান ইতালি , মুসলিম ইরান কে ধ্বংস করে এখন হিন্দুদের দিকে এগোচ্ছে। এমনকি ছাড়া হচ্ছে না আমেরিকাকেও যে অর্থ কে ধর্ম হিসেবে মানে।

    ধর্ম প্রচারকদের ঘুলিয়ে দেওয়া ধর্মবাণীর মতো মিথ্যা প্রচারে করোনা ধর্মের জুড়ি নেই। সোশ্যাল মিডিয়া নামক অবতার ছেড়ে দিয়ে ভুল ভাল মিথ্যা ছড়িয়ে দেওয়াতে এর জুড়ি নেই। সত্যের যে অ্যাঙ্গেল থেকে দেখলে সত্য কে মিথ্যা লাগে সেই ভেলায় ভর করে পৃথিবীকে মুরগি করতে এর জুড়ি নেই। যখন এই ধর্মনাশে সবাই হাতে হাত দিয়ে লড়ছে তখন ছেড়ে দেওয়া হলো এমন এক প্রতিষেধকের নাম যা উচ্চারণ করতে ফাটে - হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইন।

    এর তপস্যায় কেউ প্রচুর খেয়ে ভুঁড়ি বাড়িয়ে কোলেস্টোরেল হয়ে মরবে , কেউ কচুপাতা সেদ্ধ খেয়ে অনাহারে মারা যাবে। সবাই কবরে পরে থাকবে প্লাস্টিকের মধ্যে। ঐসব পঞ্চভূতে বিলীন , সত্তর হুরী, স্বর্গ-নরক , জান্নাত-জাহান্নাম এই সব বাদ দিয়ে এখন তপস্যা একটাই বরপ্রাপ্তির উদ্যেশ্যে - “স্যার আমি ঘর থেকে বেরোতে চাই। “

    এতো এর দ্রুতি - গতি - প্রগতি যে আর কিছুদিন পর থেকে মাঝে মাঝেই দেখা যাবে যাবে মন্দির - মসজিদ - গির্জা থেকে “সব ঝুট হ্যায় - সব ঝুট হ্যায়” বলতে বলতে উদ্ভ্রান্তের মতো ছুটে বেরিয়ে আসছে পুরুত , পাদ্রী , মোল্লা। তারা খুঁজে বার করছে সেই করোনা বাহক মানুষগুলোকে যে জানেই না তার মধ্যে ভগবান রুপি করোনা বিরাজ করছে। তারপর সোজা তাদের পায়ে ঢিপ করে বলবে , “ত্রাহিমাম , ত্রাহিমাম , তুমিই আমার সিরিজ প্রেমের শেষটা।”

  • বিভাগ : আলোচনা | ১১ মে ২০২০ | ৪২১ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
আরও পড়ুন
ভগীরথ - Vikram Pakrashi
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় মতামত দিন