• বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়।
    বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে।
  • শীর্ষ আদালতের রায়ে বিজেপির আড়াই খানা অ্যাজেন্ডা পূর্ণ হল

    শুভাশিস মৈত্র
    বিভাগ : বুলবুলভাজা | ০৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৯৫ বার পঠিত
  • রামজনমভূমি-বাবরি মসজিদ নিয়ে শীর্ষ আদালতের ৫ সদস্যের বেঞ্চের রায়ে যা বলা হয়েছে, এই কথাটাই তো ৩০ বছর আগে বলেছিলেন এল কে আদবানি। তখনও মসজিদ ভাঙা হয়নি, ১৯৮৯ সালে তাঁর সমাধানসূত্র ছিল মসজিদকে তুলে নিয়ে গিয়ে (রিলোকেট) নতুন জায়গায় বসিয়ে দেওয়া হোক, আর সেই জায়গায় মন্দির তৈরি হোক। মসজিদ ভেঙে দেওয়ার পর, আদবানি একদিকে বলেছিলেন, সেদিনটা (৬ ডিসেম্বর, ১৯৯২) নাকি ছিল (মাই কান্ট্রি মাই লাইফ) তাঁর জীবনের সব থেকে দুঃখের দিন। আর বলেছিলেন, ভারতে এমন কোনও রাজনৈতিক দল নেই যে দল প্রকাশ্যে ঘোষণা করতে পারে যে তারা ক্ষমতায় এলে নতুন করে ওই খানেই বাবরি মসজিদ তৈরি করে দেবে। শনিবার, ৯ নভেম্বর, শীর্ষ আদালতের রায় শোনার পর এই কথাগুলোই মনে পড়ে গেল।

    ১৯৯২ সালের ৫ ডিসেম্বর রাত আটটা নাগাদ আমরা দু’তিন জন সাংবাদিক হেঁটে হেঁটে ফৈজাবাদ থেকে বড় রাস্তা ধরে অযোধ্যার দিকে যাচ্ছিলাম। বড় রাস্তার ধারেই পড়ে বাবরি মসজিদ অ্যাকশন কমিটির এক উকিলের বাড়ি। এখন আর নাম নেই। কাজ করতে গিয়েই ভদ্রলোকের সঙ্গে বেশ ভালো সম্পর্ক হয়ে গিয়েছিল। তাঁর দোতলা বাড়ির একতলার দরজার কড়া নেড়েই চলেছি। সাড়া-শব্দ নেই। মিনিট পাঁচেক পরে দোতলার জানলা খুলল। এক বৃদ্ধার মুখ। পরিচয় দিলাম চিৎকার করে, যাতে উপর থেকে শুনতে পান। তার পর তাঁর ছেলে, সেই উকিল নেমে এলেন। একটু কথার পর দেখি পেছনে সেই বৃদ্ধা দাঁড়িয়ে। আমাদের বললেন, ‘দয়া করে আপনাদের ঈশ্বরের কাছে আমাদের জন্য একটু প্রার্থনা করবেন’। আমরা অভয় দিয়ে বললাম, না না দেখবেন কিছুই হবে না। পরের দিন ৬ ডিসেম্বর চোখের সামনে ধ্বংস হল এক ঐতিহাসিক স্থাপত্য। তা দেখে দিল্লির এক মহিলা সাংবাদিক কেঁদে ফেলেছিলেন। তাতে তিনি মুসলিম, এই ভেবে তাঁর উপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিল কয়েক জন। অনেক সাংবাদিক আক্রান্ত হলেন। অনেকের ক্যামেরা ভেঙে দেওয়া হল। গাড়ি খুঁজে না পেয়ে রাতে যখন হেঁটে প্রায় ৮ কিলোমিটার পথ, ফৈজাবাদ ফিরছি, দেখলাম রাস্তার মোড়ে মোড়ে জল, মিষ্টি বিতরণ চলছে। তার পরের দিন ৭ তারিখে আমরা অনেকেই ওই এলাকায় ঢুকতে পারিনি। ৮ তারিখে সকালে যখন ফের অযোধ্যা যাচ্ছি তখন চোখে পড়ল এখানে ওখানে বাড়ি জ্বলছে। কোথাও কোনও লোক-জন নেই। নেই ফায়ার ব্রিগেডও। জ্বলছে সেই উকিলের বাড়িও। ১৯৮৪-র মাত্র দু’টি আসন থেকে ১৯৯৬ সালে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হয়ে উঠতে বিজেপি সব থেকে বেশি নির্ভর করেছে এই রাম মন্দির আন্দোলনের উপর। বহু রক্তপাত, বহু মৃত্যু হয়েছে এই আন্দোলনকে কেন্দ্র করে, এবং প্রায় সব ক্ষেত্রেই নিহত হয়েছে সংখ্যালঘু মানুষেরা। গুজরাট দাঙ্গার সঙ্গেও এই আন্দোলের যোগ ছিল। শনিবারের শীর্ষ আদালতের রায় কি আমাদের এই অভিশাপ থেকে মুক্তি দেবে? যদি দেয় ভাল!

    বিজেপির তিনটে প্রধান দাবি ছিল। বা বলা ভালো অ্যাজেন্ডা ছিল। তার আড়াই খানা পূর্ণ হল। ৩৭০ হয়ে গিয়েছে। তাৎক্ষণিক তিন তালাকের মধ্যে দিয়ে ইউনিফর্ম সিভিল কোডের অর্ধেকটা হয়ে রয়েছে। ‘মন্দির ওহি বানায়েঙ্গে’ স্লোগানও শীর্ষ আদালতের সিলমোহর পেয়ে গেল ৯ নভেম্বর, শনিবারের রায়ে। 

    যে তিনটি বিষয় বিজেপির বিরুদ্ধে গেল, তা নিয়ে বিজেপির আপাতত কোনও মাথা ব্যথা না থাকলেও, ইতিহাসে থেকে যাবে সেই তথ্যও। সেগুলি হল-
    আদালত বলেছে, মন্দির ভেঙে যে মসজিদ তৈরি করা হয়েছিল, তার প্রমাণ মেলেনি। 
    ১৯৪৯ সালে ফৈজাবাদের জেলাশাসক কে ডি নায়ার মসজিদে রামের মূর্তি ঢুকিয়ে দিয়েছিলেন। ১৯৫২ সালের নির্বাচনে তিনি উত্তরপ্রদেশ থেকে জনসঙ্ঘের প্রার্থী হন। সেই কাজ বেআইনি হয়েছিল, শীর্ষ আদালত বলেছে।
    ১৯৯২ সালে বাবরি মসজিদ যারা ভেঙেছিল, তারা বেআইনি কাজ করেছিল, অপরাধমূলক কাজ ছিল সেটা। প্রসঙ্গত আদবানি, মুরলিমনোহর যোশী, উমাভারতী সহ এক দল বিজেপি নেতা নেত্রীর বিরুদ্ধে সেই মামলা এখনও চলছে। 
    এই তিনটে বিষয় বাদ দিলে, এই মামলার রায়ে বিজেপি জয়ই দেখবে। কিন্তু প্রশ্ন একটা থেকেই যায়, শেষের তিনটে কাজ যদি বেআইনি হয়, তাহলে সেখানে ফের মন্দির কেন? তথ্য-প্রমাণের থেকেও কি এই ক্ষত্রে ‘হিন্দুও কা ভাওনা’ বেশি গুরুত্ব পেল?
    এখনও পর্যন্ত যা ছবি, তাতে এই রায় নিয়ে তেমন উন্মাদনা চোখে পড়ছে না। সামনেই ঝাড়খণ্ড বিধানসভার ভোট। একদা রাম মন্দির নামের এই গরুটি দুইয়ে যত সোনা উদ্ধার হয়েছে, এখনও তাই হবে কি না, এই ভোটের ফল বেরোলে তার আন্দাজ পাওয়া যাবে। কারণ ৩৭০-র প্রভাব মহারাষ্ট্র-হরিয়ানা ভোটে কোনও প্রভাব না ফেলায় হিন্দুত্ববাদী নেতারা বেশ চিন্তায়ই রয়েছেন।
     

  • বিভাগ : বুলবুলভাজা | ০৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৯৫ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • দোবরু পান্না | 236712.158.786712.67 (*) | ০৯ নভেম্বর ২০১৯ ০৫:২৮78653
  • হ্যাঁ - লিবারালরা এখনো দেখছেন সুপ্রীম কোর্টের রায় নাকি খুবই "ব্যালান্সড"। ক্ষোভের কোন জায়গাই থাকতে পারে না। ভাবছি শবরীমালা কী দোষ করল
  • জন সংখ্যা | 236712.158.786712.227 (*) | ০৯ নভেম্বর ২০১৯ ০৬:২৬78654
  • এই রায় এর জাস্টিফিকেশনের জিস্ট টা কি? কেন ওখানের জমি হিন্দুদের হাতে তুলে দেওয়া হবে আর মসজিদ গড়ার জন্য অন্যত্র জায়গা দেওয়া হবে? এ ব্যপারে কেউ কিছু ঠিকঠাক জানে?
  • | 236712.158.895612.230 (*) | ০৯ নভেম্বর ২০১৯ ১১:৫২78657
  • কোন ও জাস্টিফিকেশন নেই, কেবলমাত্র ইল্লি।
  • dc | 236712.158.676712.216 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০১:২৩78671
  • আসলে আপনার মতো নির্লজ্জ, বেহায়া আর ঘ্যানঘেনে টাইপের লোক কমই দেখেছি। সেজন্যই প্রশ্ন করলাম আর কি।
  • PT | 237812.69.453412.8 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:১৫78658
  • মিডিয়া ঠিক কবে "ব্যালানস্ড" ছিল? কাল টিভি চক্রে অতি চেনা বি. শ. নন্দ জানালেন যে বামপন্থী ঐতিহাসিকদের বিকৃতির থেকে ইতিহাস পরিত্রাণ পেয়েছে। ইনি এক দশকের বেশী সময় ধরে টিভিতে নিরপেক্ষ মন্তব্য করে (পড়ুন বামেদের মুন্ডুপাত) পন্ডিতদের প্রিয় ছিলেন-ইদানিন আরো দক্ষিণমার্গী হয়েছেন।

    এই ফয়সালা অন্ততঃ সকল পন্ডিতদের (এবং রোলের দোকানী বুজিদের) দুকান মুলে দুই গালে থাপ্পর কষিয়ে একটা শিক্ষা দিয়েছে আশা করছি। নরম সাম্প্রদায়িকতা দিয়ে গরম সাম্প্রদায়িকতাকে ঠেকানো যায় না। নরম সাম্প্রদায়িকদের অনশন মঞ্চে ঘৃণ্য সাম্প্রদায়িকদের উপস্থিতির কালে কে কে চুপ করেছিলেন? হরকিষেণ কেন পাগড়ি বাঁধেন, সুভাষ চক্কোতি কেন তারাপীঠে গেলেন ইত্যাদি অপ্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে যারা দিনের পর দিন খিল্লি করেছে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে তাদের ১০০ বছর কাঁদার সময় হয়েছে।
  • ? | 236712.158.23900.201 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:২৯78659
  • সন্ময় নরম না গরম?
  • dc | 236712.158.566712.199 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৩৫78660
  • এঃ পিটিদা সক্কাল সক্কাল উঠে ট্রোলিং শুরু করে দিয়েছে।
  • PT | 236712.158.786712.59 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৪০78661
  • এখনো বালখিল্যতা নিয়ে যথেষ্ট লজ্জাবোধ জন্মায়নি মনে হচ্ছে!!
  • :-) | 237812.68.9008912.108 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৪১78662
  • এবং সেজন্যই, স্বীকার করতে দ্বিধা নেই, খুব ভালো লাগছে। এদিকে বুলবুল ওদিকে রায়, এমন দম বন্ধ লাগছিল!
    গুরু চেনা ছন্দে ফিরে এলো। পিটি এবং ট্রোলিং নিজ নিজ ধন্যবাদ বুঝিয়া লইবেন।
  • PT | 237812.69.563412.81 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৪৯78663
  • পিটিকে নিয়ে চিন্তা কইরেন না। এক দশক আগে আজিজুল হককে নিয়ে যারা দিনের পর দিন খিল্লি/ট্রোলিং করেছিল তাদের নাকে খৎ দেওয়ার সময় হয়েছে।
  • }{ | 236712.158.12900.148 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৫৬78664
  • সিবিয়াই চার্জশিট না দিলে আর সুপ্রিমকোর্টে কনভিক্টেড না হলে পিটি কাউকে দোষী মনে করেন না (কাউকে মানে একটি বামপন্থী দল ও তাদের সঙ্গীসাথীদের, টাটা, টোডি, বাজোরিয়া এট আল) এতো জানা কথাই।
  • PT | 236712.158.895612.118 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:০৪78672
  • আমিও আপনার মত রাজনীতির ব্যাপারে বালখিল্য আর নির্বোধ লোক একেবারেই দেখিনি। অবাক হই যে কোন বাস্তব বোধ ছাড়াই আপনি কোন সাহসে রাজনীতির আলোচনাতে অংশগ্রহণ করেন!!
  • PT | 236712.158.786712.181 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:০৭78665
  • বালখিল্যতার বাইরে বেরিয়ে আসুন। তারপরে বিনিময় হবে। আজিজুল কোন দলের পক্ষে কিছু বলেননি। আমিও বলছি না।

    অবিশ্যি ক্যামেরার সামনে ঘুষ নেওয়া, কাটমানিতে সংপৃক্ত একটি দলের ব্যানারে যদি গরম সাম্প্রদায়িকদের বিরুদ্ধে লড়ার খোয়াব দেখে থাককেন তাহলে কিছুই বলার নেই।
  • এলেবেলে | 124512.101.900900.190 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:৪১78673
  • ডিসি এবং পিটি - যদিও এই কথোপকথন একেবারেই আপনাদের নিজস্ব ব্যাপার তবুও আপনাদের দুজনকেই অনুরোধ, অন্তত এই সময়ে এইগুলো এড়িয়ে যান। আমি যতদূর দেখেছি তাতে ডিসি এত আক্রমণাত্মক কথা বলেন না। অকারণে প্ররোচিত করার দরকারই বা কী?
  • সাম্রাজ্যবাদের দাড়ি | 890112.162.674523.148 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৫:২১78666
  • অতিবাম অতিবদ আজিজুলকে ট্রোল করা হয়েছিল নন্দীগ্রাম ম্যাসাকারের পরে শাখামৃগের মতো শিপিয়েম-টাটা জুটিকে চারহাতপায়ে ডিফেন্ড করার জন্য। অনেক বছরের জেলখাটা আজিজুল জেল থেকে বেরিয়ে, বউয়ের চাকুরি, সরকারী ফ্ল্যাট আরও কী কী সব পেয়েছিলেন। উনি একা না, এই যেমন বুগু আরও অনেককেই করা হয়েছিল সেসময়। প্লাস ওনার কলামগুলো ছিল জ্যান্ত খোরাক।

    (এক্ষুনি অপর্ণা-শাঁওলি-শুভা, হলদি নদীতে কুমীরের ঝাঁক, শতশত কাটা নিপল, সিবিআই কেন তদন্ত করেনি চলে আসবে। এই গুজবগুলো মানুষ খেয়েছিল, বেশ কিছু মানুষ অবরুব্ধ ক্ষমতাশীল দলের গুন্ডাদের হাতে মরেছিল বলেই। )
  • অযোধ্যা | 237812.68.457812.45 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৫:২৫78667
  • আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা পেল।
  • S | 236712.158.670112.173 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৫:৩২78674
  • অন্তত ভারতে গুড ওল্ড বামপন্থার বিনাশের পরেই চরম দক্ষীনপন্থার রমরমা ঘটলো। যারা তিনিই আসল বামপন্থী বলে দাবী করেছিলেন, তাদের আশা করি ঘুম ভেঙেছে। বা যারা এখনও ভাবছে যে বেশ হয়েছে বিজেপি এসেছে, দ্যাখ কেমন লাগে, তাদের বলবো ব্যা ডাকা অভ্যাস করুন, জবাই করার সময় কাজে লাগবে।
  • sm | 236712.158.895612.190 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ০৫:৪৮78675
  • ব্যা, ব্যা করে বাম ছাগলে,
    ইতি উতি চায় ---
    রামের ঝুলি ভোটে ভরে,
    খঞ্জনি বাজায়।
  • xx | 237812.68.674512.247 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ১০:০৭78676
  • বিজেপি কে খিস্তি করার পরিস্থিতি এলেই পিটি তিনোদের কনটেক্সট টেনে এনে ট্রোল করতে শুরু করবেন। এটা ২০২১ অবধি অন্তত নিরন্তর চলবে। মিলিয়ে নেবেন।

    অন্তত ভারতে গুড ওল্ড বামপন্থা দুটি মাত্র রাজ্যের বাইরে আর কোথায় কবে আদৌ ছিল? বিজেপির নিরিখে অন্তত জাতীয়স্তরে বামপন্থীদের কার্যকলাপ এত্তটাই আণুবীক্ষণিক যে ও নিয়ে শব্দক্ষয়ই প্রকৃত বালখিল্যতা।

    ভারতে একটিমাত্র রাজ্য ছাড়া তিনিই আসল বামপন্থী এমন দাবীই বা কোথায় উঠেছিল?

    যারা এখনও ভাবছে যে বেশ হয়েছে বিজেপি এসেছে, দ্যাখ কেমন লাগে, তারা এখন অযোধ্যা জয়ের খুশিতে নাচছে। তাদের উদ্দেশ্যে এমত বানী নেহাতই লুজারস ফ্রাসট্রেশন ভেন্টিং।

    রাজ্যস্তরেও সিপিএম জমানার শেষ ১৫ বছর ধরে যে মুসলিম তোষন, সংখ্যালঘু ভোটব্যাঙ্ক, ইত্যাদি ক্ষোভ দানা বেঁধেছিল, তিনোরা যে লিগ্যাসী বহন ও পল্লবিতই করেছে মাত্র, তার জবাব নেই। কনজাভেটিভ রাইট উ!ইং কমুনালিজম অন্তত এরাজ্যে বাড়ার পদ্ধতির শুরু সেই ৩৪ বছরেই।
  • S | 890112.162.674523.124 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ১০:২৪78677
  • চাড্ডী স্পটেড।
  • PT | 124512.101.89900.51 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ১০:৩১78668
  • @সাম্রাজ্যবাদের দাড়ি

    আজিজুল "শাখামৃগ" হওয়ার ও নন্দীগ্রামকে ডিফেন্ড করার বহুআগে কাকাবাবু "শাখামৃগ" হয়ে কালিঘাটের ডালে ডালে ঝুলতেছিলেন তিনোদের সঙ্গে "সদরে কামান দাগা"-র আনন্দে। সম্ভব্তঃ তেনার ঘরানার শাখামৃগরাই নন্দীগ্রামের অনেককে পেছন থেকে গুলি করে মেরেছিল।

    তবে নরম সাম্প্রদায়িকরা এইসব নকল শাখামৃগদের বিদায় করে পোকিত শাখামৃগদের ক্ষমতায় উত্তরণে যেরূপ সাহায্য করেছিল তাতে নিশ্চয় আপনি উল্লসিত? আর এখন তো তাদের আইনি জয়ে রাস্তায় গড়াগড়ি খাচ্ছেন বোধহয়?

    কিন্তু নরম সাম্প্রদায়িকদের অনশন মঞ্চে ঘৃণ্য সাম্প্রদায়িকদের উপস্থিতির কালে আপনার অবস্থান কি ছিল?
  • Atoz | 237812.69.4545.147 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ১০:৫১78678
  • পুবের দিকের সবকটা রাজ্য আর দক্ষিণের দিকের কিছু রাজ্য মিলে সংহতি করে ঠেলা দেওয়া দরকার। সাম্প্রদায়িক শক্তিকে। নইলে এরা জনসাধারণকে কৌপীন পরিয়ে রাস্তায় বের করে দেবে।
  • dc | 236712.158.566712.199 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ১২:১৬78669
  • পিটিদা এসব প্রশ্ন করার আপনি কে?
  • PT | 236712.158.895612.230 (*) | ১০ নভেম্বর ২০১৯ ১২:৪১78670
  • আমাকে প্রশ্ন করার আপনিই বা কে?
  • Atoz | 237812.69.4545.151 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০১:০৬78680
  • দুর্জয় ঘাঁটিটা এরকম ঢোঁড়াদের হাতে থাকলে সাম্প্রদায়িক শক্তির পোয়াবারো। লোকে এখনও যদি ভাবে মুলোগুলো দুর্গরক্ষা করবে, তাহলে হাতে পেনসিলও থাকবে না।
    বামেদের ফিরতে হবে, দরকার হলে নতুন নাম নিয়ে। অনেকের বাম নামে অ্যালার্জী, তাহলে সেটাকে বাইপাস করা যাবে।
    (ভাবুন, তিন তিনটে দশক, বিঘ্ন বিপদ তো কম ছিল না, এইরকম তোষণ ফোষণের ব্যাপার আগে শোনা গেছে? এ তো পরিষ্কার সম্প্রদায়-বিভাজন তোল্লাই দেওয়া! আরে, পড়াশোনা চাকরি খাদ্য বস্ত্র আশ্রয় এসব কি সম্প্রদায়সাপেক্ষ নাকি ? সবাইকে সহনাগরিক হিসেবে সমানভাবে ট্রীট করা হবে না কেন? সম্ভব নয় তা তো না, কারণ বামেরা সেটা তো পারছিল খানিকটা হলেও। )
  • b | 237812.68.454512.114 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০১:১১78698
  • আচ্ছা, এসেম আর পিটির অপূর্ব যুগলবন্দীতে না হয় যেকোনো গানই কুমীরের শীৎকারে কনভার্জ করে যায় ।

    বাকিরাও ধেই নৃত্য করে তাল দ্যান কেন?
  • PT | 236712.158.895612.216 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০২:১০78699
  • কুমিরের শীৎকার শুনেছেন এমন একজনকে শেষ পর্যন্ত পাওয়া গেল!!
  • sm | 236712.158.895612.216 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:০২78681
  • প্রথমেই ভাবা দরকার,ত্রিপুরা তে বিজেপি কিভাবে ক্ষমতায় এলো?
    কেরালা তে বিজেপির শক্তি বৃদ্ধি হচ্ছে কি ভাবে?
    প ব তে বামেদের ভোট প্রায় কুড়ি শতাংশ কমলো আর বিজেপির প্রায় সমপরিমাণ বাড়লো কেন?
    চৌত্রিশ বছর ক্ষমতায় থেকে,বামেরা গদি ছাড়া কিছু বোঝে না।মাঠে নেমে লড়াই করতে ভুলে গেছে। ফোকটাই ক্ষমতা কিভাবে পাবো,সেদিকেই বেশি নজর।
    এর জন্য তলে তোলে বিজেপি সাপোর্ট জারী ও থাকবে।
    এটা রাজনীতির অঙ্গ।খালি আমরা অফসাইড থেকে গোল দেবো আর বাকীরা করলেই, রেফারী কেন বাঁশী বাজাচ্ছে না,সেই নিয়ে ছিল চিৎকার করবো;সেটা ঠিক না।
  • এলেবেলে | 124512.101.900900.148 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:২৬78700
  • এখানে ডিসির গালাগাল দেখে খুবই খারাপ লাগল। হতবাকই হলাম বলা ভালো। আপনারা মনের ভেতরে এত বিদ্বেষ পুষে রাখেন? আবারও বলছি, গত সাড়ে চার বছরে এই ডিসিকে আমি দেখিনি।
  • Du | 237812.69.0178.250 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:২৮78682
  • মমতা ও তৃণমূলের কোন বিবৃতি পড়তে বা শুনতে পেলাম না রায় নিয়ে। ওয়াক আউট স্ট্র্যাটেজি অ্যাজ ইউজুয়াল?
  • PT | 124512.101.900900.190 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৩০78683
  • "ত্রিপুরা তে বিজেপি কিভাবে ক্ষমতায় এলো?"
    তিনোদের হাত ধরে। কংগ্রেসের লোকগুলো প্রথমে তিনো দলে যোগ দেয় আর তারপরে বিজেপিতে গিয়ে কং-এর পুরো ভোটটা বিজেপিতে ট্রান্সফার করায়। এ নিয়ে আর তক্ক না করাই ভাল। বামেরা সেই ভোটে 42.7% (-5.51%) আর বিজেপি 43% (+41.5%) ভোট পেয়েছে। তিনোরা গিয়ে বিজেপির এজেন্ট হিসেবে কাজ না করলে হয়্ত ফলাফল অন্যরকম হত।

    "কেরালা তে বিজেপির শক্তি বৃদ্ধি হচ্ছে কি ভাবে?"
    সেখানে শুধু বামেদের ঘাড়ে দোষ চাপানো অযৌক্তিক। কেননা সেখানে কং-ও প্রায় সম পরিমাণে শক্তিশালী। কেরালার সাম্প্রতিকতম খবরঃ
    "Kerala Bypolls: CPI-M Wrests Konni Assembly Seat from Congress after 23 Years; BJP Fails to Leave a Mark"
    তবে কেরালাবাসীর সৌভাগ্য যে ওখানে তিনোরা নেই।

    "প ব তে বামেদের ভোট প্রায় কুড়ি শতাংশ কমলো আর বিজেপির প্রায় সমপরিমাণ বাড়লো কেন?"
    এটা জাস্টিফাই করার কিছু নেই। কিন্তু শহরের বাইরে বেরোলে (বা অন্য রাজ্যে বসে বক্তিমে না ঝেড়ে রাজ্যে এসে থাকলে) বুঝতে পারবেন যে তিনোদের সীমাহীন অত্যাচার স্থানীয় স্তরে মানুষকে ঠেলে দিয়েছে বিজেপির দিকে। সেটা নিতান্তই প্রাণ ও সম্মান নিয়ে বেঁচে থাকার জন্য। পুরভোটে সেই হিমশৈলের চূড়ার একটুমাত্র নিদর্শন দেখতে পেয়েছিল শহরবাসী বা অন্য রাজ্যবাসীরা।
  • রিভু | 237812.69.015623.39 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৪৪78701
  • আমি পার্সোনালি খুবই আহত হয়েছি ডিসির গালাগাল দেখে। ওনার এতো লেখা পড়েছি, গুণমুগ্ধ বললে কম বলা হয়না। তাঁর এই ভাষার ব্যবহার অকল্পনীয়।

    পিটির এই যে কোনো সূত্রে সিপিএম টেনে আনার ব্যাপারটা অসম্ভব বিরক্তিকর। তা সত্ত্বেও এই ধরণের কথাবার্তা শোক (শক লিখতে গিয়ে ভুল করেছিলাম, কিন্তু ভেবে দেখলাম ভুলটাই রেখে দিই) দেয়।
  • Amit | 236712.158.23.209 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৩:৫৬78684
  • কেন মমব্যান কোবতে লিখে প্রতিবাদ করলেন তো।
  • আচ্ছা | 237812.68.9008912.246 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:০৮78685
  • সন্ময় বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিবাদের কি খবর? গর্জে উঠেছেন?
  • dc | 237812.69.563412.15 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:১৯78686
  • এই বোকাচোদা পিটিদা আবার খোঁচাতে শুরু করেছে। শুওরটা এমন মেরুদন্ডহীন কাপুরুষ যে সরাসরি বলতেও পারেনা, আবার ভিজে বেড়ালের মতো মতো ঘুরিয়ে বলতে যাবে অন্য রাজ্যে বসে বক্তিমে না ঝাড়ার কথা। পুরো বাঞ্চোতের বাচ্চা একটা।
  • PT | 236712.158.565612.235 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:৩২78687
  • পথিক আপনি পথ হারাইয়াছেন। যুক্তির অভাবে এখন কাঁচা খিস্তিই ভরসা। আর আমাকে গাল দেবেন দিন। আমার পিতৃদেবকে কেন গাল দিচ্ছেন? তিনি তো আপনার সঙ্গে তক্কে জড়াননি।

    মাথা ঠান্ডা করুন। ভেবে দেখুন ঠিক করছেন কিনা। এই ভাষা কারো বক্তব্যেই শোভা পায় না।
  • b | 237812.68.454512.252 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:৩৫78688
  • Comment from dc on 11 November 2019 09:49:04 IS
    ডিসি-কে বলিঃ বক্তব্য পছন্দ না হলে ইগনোর করুন। আর এই ভাষা কি মাদ্রাজী ডিসি-র?
  • TP | 236712.158.90089.132 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:৩৯78689
  • "ত্রিপুরা তে বিজেপি কিভাবে ক্ষমতায় এলো?"
    এটা জাস্টিফাই করার কিছু নেই। কিন্তু শহরের বাইরে বেরোলে (বা অন্য রাজ্যে বসে বক্তিমে না ঝেড়ে রাজ্যে এসে থাকলে) বুঝতে পারবেন যে বামেদের সীমাহীন অত্যাচার স্থানীয় স্তরে মানুষকে ঠেলে দিয়েছে বিজেপির দিকে। সেটা নিতান্তই প্রাণ ও সম্মান নিয়ে বেঁচে থাকার জন্য।

    "প ব তে বামেদের ভোট প্রায় কুড়ি শতাংশ কমলো আর বিজেপির প্রায় সমপরিমাণ বাড়লো কেন?"
    বামেদের হাত ধরে। বামেরা বিজেপিতে গিয়ে বাম-এর পুরো ভোটটা বিজেপিতে ট্রান্সফার করায়। এ নিয়ে আর তক্ক না করাই ভাল। তিনোরা সেই ভোটে 43.29% (+3.5%) আর বিজেপি 40.22% (+20%) ভোট পেয়েছে। বামেরা বিজেপির এজেন্ট হিসেবে কাজ না করলে হয়্ত ফলাফল অন্যরকম হত।
  • sm | 236712.158.455612.240 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:৫৩78690
  • গালা গালি খুব ই খারাপ জিনিষ। পিটি র যুক্তির বিপরীতে নিজের বক্তব্য তুলে ধরুন।
    যদিও গালা গালি দিলে কিছু এসে যাবার কথা নয়।কিন্তু পার্সোনাল হার্ট তো হয়।
    এবার আসি রাজনীতি প্রসঙ্গে। পব তে বামেদের বিজেপি নিয়ে কোন রকম বক্তব্যের ই মূল্য নাই।কারণ বামেরা বিশ্বাস যোগ্যতা হারিয়েছে।প্রথমে কলকারখানা বন্ধ করে শ্রমিক দের,তার পর সিঙ্গুর,নন্দীগ্রাম করে কৃষক দের।
    এখন তলে তলে বিজেপি সাপোর্ট করে,সেক্যুলার জনগণের বিশ্বাস হীনতার শিকার হযেছেন।
    দেখুন, পিটি র বক্তব্য অনুযায়ী ত্রিপুরা তে কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূল ও তার পর তৃণমূল ছেড়ে লোকজন বিজেপির দিকে ঝুঁকেছে।সব ই হয়েছে ওপেন।
    কিন্তু পব তে হয়েছে তলে তলে।জনগন ছাগল হলেও,এটুকু তো বুঝতে পারে।
    তারা জানে,বামেদের ভোট দেওয়া মানে ভোট নষ্ট করা।
    এর চেয়ে তিনোরা বেটার অপশন।
    নয়তো দলে দলে কর্মী ও নেতারা তিনোমুলে ব্যাক করে?
  • cpm | 237812.69.5656.111 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:৫৬78691
  • অন্য রাজ্যে বসে বক্তিমে ঝাড়বি কেন বে? আমাদের কখনও অন্য রাজ্যে বসে কিউবা আমেরিকা ভিয়েতনাম গুজরাট নিয়ে বক্তিমে ঝাড়তে শুনেছিস?
  • dc | 237812.68.674512.109 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৪:৫৯78692
  • b, হ্যাঁ আমি মাদ্রাজি ডিসি বা চেন্নাইয়ের ডিসি ঃ-)
  • PT | 236712.158.895612.166 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৫:১৫78693
  • @TP
    "বুঝতে পারবেন যে বামেদের সীমাহীন অত্যাচার স্থানীয় স্তরে মানুষকে ঠেলে দিয়েছে বিজেপির দিকে।"
    ত্রিপুরা সম্পর্কে আমার কোনই প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা নেই। ধরে নিচ্ছি যে আপনি ত্রিপুরাবাসী এবং আপনার বক্তব্যই সঠিক। তবে এই "সীমাহীন" অত্যাচারের খবর বাংলার তীব্র বাম-বিরোধী কাগজে কেন ছাপা হল না কে জানে!! আর সেই সীমাহীন অত্যাচারের কারণে প্রায় ৪০% কংগ্রেসের (বা তিনোর ভোট) কেন বিজেপিতে গেল সেটাও ব্যাখ্যা করা যায়্না। ভোটটা তো তিনো বা কং-এই থাকতে পারত এবং বামেদের ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেওয়া যেত।

    "বামেরা বিজেপিতে গিয়ে বাম-এর পুরো ভোটটা বিজেপিতে ট্রান্সফার করায়।"
    এটা ১০% সত্য। আপনি তাহলে কি পব-তে থাকেন না? ত্রিপুরার মত তিনো থেকে ঝাঁকে ঝাঁকে বিজেপিতে নেতা ট্রান্সফার হওয়ার মতন কোন ঘটনা পব-তে ঘটেনি। আর যতদিন বামেরা ক্ষমতায় ছিল ততদিন বিজেপি ৫-৬%-এর কাছাকাছি ছিল। তাই পব-তে বিজেপির উত্থান সম্পূর্ণটাই তিনোদের স্নেহচ্ছায়ায়। এমনকি পবার কং-ও দেরীতে হলেও স্বীকার করেছে সে কথাঃ
    "Mamata Banerjee is solely responsible for the rise of BJP and RSS in Bengal. Had she not pursued the policy of blatant minority appeasement, BJP wouldn't have found a footing in Bengal.
    "Her policy of removing all opposition, poaching on opposition leaders and representatives has only led to the rise of BJP. Now she has no right to complain about it," Mitra told reporters.
    //economictimes.indiatimes.com/articleshow/69704144.cms?from=mdr&utm_source=contentofinterest&utm_medium=text&utm_campaign=cppst
  • cm | 124512.101.6778.63 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৫:৩৩78694
  • কং মানে? যারা ত্রিপুরায় নিজেদের ভোট বিজেপিতে ট্রান্সফার করেছিল? তাদের হাত ধরে বিজেপিকে ঠেকানোর খোয়াব কারা দেখছে? তাদের তো রাজনৈতিক বালখিল্য-র খিল্য-ও বলা যাবে না।
  • sm | 124512.101.89900.51 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৬:২৭78695
  • কিন্তু পব তেও একই ব্যাপার।খালি কংগ্রেস এর জায়গায় বাম শব্দ টি বসিয়ে নিলেও হয়।
  • r2h | 236712.158.786712.227 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৭:০৩78696
  • TP 11 November 2019 10:09:19 - ত্রিপুরায় সীমাহীন অত্যাচারের গল্পটা খুব হয়, কিন্তু ঠিক কিরকম সীমাহীন অত্যাচার হয়েছে সেই নিয়ে কিছু শুনতে পাইনা।
    স্বাভাবিক ভাবেই পঁচিশ বছরে সব ঠিকাঠাক চলেনি, ছোট বড় মেজো নেতাদের মধ্যে সুযোগসন্ধানী ঢুকেছে - এইসব হয়েছে। এত বছরে পরিবর্তন একটা দরকার ছিলই হয়তো, বিকল্পটা বিজেপিই হতে হলো সেইটা ভয়ের। স্থিতাবস্থাবিরোধী ভোটও একটা বড় ফ্যাকটর হতে পারে, বামেরা হেরেছে। কিন্তু সীমাহীন অত্যাচার ইত্যাদি কাকে বলে সেই অভিজ্ঞতা জোট সরকারের আমলে মানুষের হয়েছিল, এবং তার জন্যেই মাত্র একটা টার্ম পরে বাম ফিরেছিল।
    আমার মতে ত্রিপুরার বামেদের একটা বড় ব্যর্থতা আরএসএসের উত্থানকে দেখতে/ চিনতে/ আটকাতে না পারা। স্থিতাবস্থাবিরোধী ভোট বড় কারন না বহু বছর ধরে আরএসএস ইত্যাদিদের প্রচার বড় কারন তা নিয়ে আমার একটু সন্দেহ আছে।

    এছাড়া গত বাম আমলে অনেক কিছুই তো হয়েছে; সরকারী স্কুল, হাসপাতাল, রাস্তাঘাট ইত্যাদির চোখে পড়ার মত পরিবর্তন হয়েছে, আইনশৃঙ্খলা ভালো ছিল (আমি অব্শ্য ব্যুরো রিপোর্ট/ স্ট্যাট দেখে তুলনামূলক তথ্য বলছি না, ওটা দেখলে সারা দেশের নিরিখে বোঝা যাবে; আমি খবরের কাগজে কি খবর টবর বেরিয়েছে ঐ সূত্রে বলছি); উগ্রপন্থা ইত্যাদির দিক থেকে দেখলে সারা দেশের কাছে উদাহরণযোগ্য উন্নতি হয়েছে।

    আর নিরাপত্তাহীনতা, আইন শৃঙ্খলা, "সীমাহীন অত্যাচার", এইসব কোন পথে যাচ্ছে তার খবর ত্রিপুরার যেকোন খবরের কাগজ খুললে প্রতিদিনই পাওয়া যাচ্ছে, ও নিয়ে বিশেষ বলার কিছু নেই। ত্রিপুরা এক এমন রাজ্যে পরিনত হয়েছে যেখানে খোদ শিক্ষা ও আইনমন্ত্রী অন ক্যামেরা কিডনি চুরির গুজব ছড়ান ও সেই গুজবের জেরে গুজব বিরোধী অভিজানের সরকারী প্রচারক গণপ্রহারে খুন হয়ে যান ও সেই খুনের ভিডিও ফেসবুকে ঘোরে।
    এমন রাজ্য হয়েছে যেখানে রাজ্যের মুখমন্ত্রীয় ছেলে পুজো প্যান্ডলে বন্দুক হাতে পোজ দিয়ে ছবি তোলে।
  • :) | 237812.68.674512.109 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৭:১০78702
  • ডিসির এই কোলাপ্স, যাকে কেতাবী ভাষায় বলে ধৈর্যের বাঁধ ভাঙা, লোকজনের এরকম মাঝে মাঝে দেখলেই বুঝবেন সংযম কী বস্তু। বিগত এতগুলি বছর এই সংযম বজায় রাখা কী কঠিন! অথচ দেখুন একটুও অঙ্কার দেখিয়েছি কোনো দিন এই নিয়ে? হাস্যমুখে... ইত্যাদি।
  • PT | 236712.158.455612.240 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ০৭:১৯78697
  • ত্রিপুরায় বামেদের "সীমাহীন অত্যাচার" সত্যি না হয়ে খিল্লি হলে সেটা বিজেপির হাত-ই শক্ত করবে। গুজব এইভাবেই শুরু হয় যেমনটি সিদ্দিকুল্লারা তিনো ও অতিবদ অতিবামেদের সহায়তায় নন্দীগ্রাম নিয়ে করেছিল।
  • PT | 236712.158.895612.170 (*) | ১১ নভেম্বর ২০১৯ ১২:৫০78679
  • একটামাত্র "আণুবীক্ষণিক" দলই বিজেপিকে "বর্বর" আখ্যা দিয়েছিল। বাকিরা তো প্রতিনিয়ত সেটিং করতে ব্যস্ত। মহাঝাঁটবন্ধনের কেউ দিল্লী গিয়ে পদতলে রাখি মাথা গাইতে গাইতে আর কেউ বিজেপির সঙ্গ ত্যাগের জন্য ভুল স্বীকার করছে!!

    এই "ট্রোল" ব্যাপারটি কি যদি কেউ একটু বিস্তারে ব্যাখ্যা করেন তাহলে বাধিত হই। পব-তে মোদিশা কালিঘাট থেকেই চারহাতে প্রকাশমান হয়েছে ও হবে। তো সাম্প্রদায়িকতার আলোচনাতে পব-র প্রেক্ষিতে তিনোকেই তো গাল দেওয়া উচিত।

    কে কার হাতে খেলছে?
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • গুরুর মোবাইল অ্যাপ চান? খুব সহজ, অ্যাপ ডাউনলোড/ইনস্টল কিস্যু করার দরকার নেই । ফোনের ব্রাউজারে সাইট খুলুন, Add to Home Screen করুন, ইন্সট্রাকশন ফলো করুন, অ্যাপ-এর আইকন তৈরী হবে । খেয়াল রাখবেন, গুরুর মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করতে হলে গুরুতে লগইন করা বাঞ্ছনীয়।
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত