এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  ব্লগ

  • সপ্তাহে অন্ততঃ সত্তর ঘন্টা কাজ করুন, এবং বিন্দাস থাকুন। 

    Partha Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ২৯ অক্টোবর ২০২৩ | ৭৬৯ বার পঠিত
  • আমার এক সম্বন্ধীর ছেলে ​​​​​​​অফিস থেকে রাত এগারোটার আগে বাড়ি ​​​​​​​ফিরলে ​​​​​​​রীতিমতো ​​​​​​​আশ্চর্য হয়ে ​​​​​​​যায় ​​​​​​​বাড়ির ​​​​​​​লোকজন। ​​​​​​​তার ​​​​​​​বউ ​​​​​​​ছুটে ​​​​​​​আসে। ​​​​​​​মা ​​​​​​​উদ্বেগ ​​​​​​​প্রকাশ ​​​​​​​করে -- কী ​​​​​​​রে, আজ ​​​​​​​রাত ​​​​​​​নটাতেই ​​​​​​​বাড়ি ​​​​​​​ফিরে ​​​​​​​এলি কেন? ​​​​​​​শরীর ​​​​​​​ভালো ​​​​​​​তো? "রা" কাজ ​​​​​​​করে ​​​​​​​কলকাতার ওই ​​​​​​​রুবি ​​​​​​​হাসপাতালের ​​​​​​​পিছনের ​​​​​​​দিকে একটা ​​​​​​​কোম্পানিতে। 
     
    আমার ​​​​​​​মাসতুতো ​​​​​​​বোনের ছেলে "বু" সকাল ​​​​​​​আটটায় ঘরের ​​​​​​​দরজা ​​​​​​​বন্ধ ​​​​​​​করে ​​​​​​​দেয় ​​​​​​​অনলাইনে ​​​​​​​কাজ ​​​​​​​করবে ​​​​​​​বলে। আই ​​​​​​​টি। ​​​​​​​দুপুরে ​​​​​​​একবার ​​​​​​​দরজা ​​​​​​​খোলে ​​​​​​​পনেরো-বিশ ​​​​​​​মিনিটের ​​​​​​​জন্যে। ​​​​​​​তারপর ​​​​​​​আবার ​​​​​​​রাত ​​​​​​​দশটা ​​​​​​​পর্যন্ত ​​​​​​​কাজ। সপ্তাহে সাত দিনই কিছু না কিছু কাজ থাকে।  
     
    এক ​​​​​​​বান্ধবী "ভা" ​​​​​​​আমেরিকায় ​​​​​​​কাজ ​​​​​​​করতো ​​​​​​​কল ​​​​​​​সেন্টারে। ​​​​​​​সেই ​​​​​​​মেজদা গল্পের ​​​​​​​মতো ​​​​​​​প্রতি ​​​​​​​পনেরো ​​​​​​​মিনিট অন্তর তার ​​​​​​​বসকে হিসেব পাঠাতে ​​​​​​​হতো ​​​​​​​কী ​​​​​​​কী ​​​​​​​কাজ ​​​​​​​করা ​​​​​​​হলো তার ​​​​​​​লগ। সে কাজ ছেড়ে দিয়ে বেঁচেছে। 
     
    ক্যানসাস ​​​​​​​থেকে ​​​​​​​কলকাতা -- দুটো ​​​​​​​অফিসে লাইট ​​​​​​​জ্বালা ​​​​​​​হলেই ​​​​​​​কাজ ​​​​​​​শুরু ​​​​​​​করে ​​​​​​​যাচ্ছে আমার ​​​​​​​আর ​​​​​​​এক ​​​​​​​শ্যালকের ​​​​​​​বড় ​​​​​​​ছেলে "অ"। ​​​​​​​এখানকার ​​​​​​​অফিসে ​​​​​​​গাড়ি ​​​​​​​নিয়ে হাজির ​​​​​​​হচ্ছে ​​​​​​​সকাল ​​​​​​​নটায়। ​​​​​​​তারপর আবার ​​​​​​​সন্ধেবেলা ​​​​​​​সাতটা ​​​​​​​নাগাদ ​​​​​​​বাড়ি ​​​​​​​ফিরে ​​​​​​​রাত এগারোটা ​​​​​​​থেকে ​​​​​​​তিনটে ​​​​​​​পর্যন্ত ​​​​​​​কাজ ​​​​​​​করছে ​​​​​​​কলকাতায় সে ​​​​​​​কোম্পানির ​​​​​​​ব্রাঞ্চে। ​​​​​​​সে ​​​​​​​অফিস ​​​​​​​তখন ​​​​​​​দিনের ​​​​​​​বেলায় ​​​​​​​খুলে ​​​​​​​গেছে। ​​​​​​​একবার ​​​​​​​তাকে ​​​​​​​পত্রপাঠ দশদিনের ​​​​​​​নোটিসে ​​​​​​​দেশে ​​​​​​​ফেরৎ ​​​​​​​পাঠিয়ে ​​​​​​​দিলো। ​​​​​​​কোম্পানি ডাউনসাইজিং ​​​​​​​হচ্ছে। 
     
    সবকিছুই প্ল্যানমাফিক এগোচ্ছে। যাকে বলে এ টু জেড। 
     
    ইনফোসিসের দেবতার স্থান দেওয়া নারায়ণ মূর্তি অতি সম্প্রতি বলেছেন, সপ্তাহে সত্তর ঘন্টা কাজ ভারতের নতুন প্রজন্মের ছেলেমেয়েদের করতে হবে। তাকে তিনি সোৎসাহ সমর্থন জানাচ্ছেন। ধরেই নেওয়া যায় পিছনে পুতুলনাচের আসল বাজিকর আরএসএস নাগপুর থেকে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলেছে প্রতিনিয়ত। নীতিপুলিশ ​​​​​​​আরএসএস ও ​​​​​​​তার ​​​​​​​রাজনৈতিক শাখা ​​​​​​​বিজেপির ​​​​​​​কোনো ​​​​​​​আপত্তি ​​​​​​​নেই। ​​​​​​​তারা ​​​​​​​সরকার ​​​​​​​বস্তুটাতেই বিশ্বাস ​​​​​​​করেনা। ​​​​​​​
     
    সব পেরাইভেট ​​​​​​​করে ​​​​​​​দাও মা, লুটেপুটে ​​​​​​​খাই। 
     
    সুতরাং, একশো বছরেরও বেশি সময় ধরে লড়াই করে আদায় করা শ্রমজীবি মানুষের সপ্তাহে চল্লিশ ঘন্টা কাজের দাবী ও অধিকারকে দেবতা ও সেই মনুষ্য মূর্তির ভক্তকুল নস্যাৎ করে দিলেন এক ঘোষণায়। মোদী, আদানি, আম্বানি, আই এম এফ, বিশ্বব্যাঙ্ক, ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরাম, এবং মার্কিনি পুঁজিবাদ পর্দার আড়ালে উল্লাসে নাচছে। এবং ঘোর অর্থনৈতিক সঙ্কটে জর্জরিত, এবং তৃতীয় রিপুতে আক্রান্ত নতুন প্রজন্মের ছেলেমেয়েরাও এই ঘোষণায় কোনো অন্যায় বা অপরাধ দেখবেনা। 
     
    শ্রমিক ইউনিয়ন ও তাদের আন্দোলন? সে আবার কী? খায়, না মাথায় দেয়? যত্তসব কমুনিশটি অনাছিষ্টি! পিংকু না কী যেন সব বলে! 
     
    দুহাজার চব্বিশে বিজেপি ফিরে এলে সত্তর ঘন্টা কাজ বাধ্যতামূলক হলেও একেবারেই আশ্চর্য হবোনা। আরএসএস'এর নিজের ট্রেড ইউনিয়ন ভারতীয়া মাজদুর সাঙ্ঘ --বিএমএস -- খুব বেশি প্রতিবাদ করবে বলে তো মনে হয়না। হয়তো তাদের দাবীতে সত্তর ঘন্টাকে কমিয়ে ষাট অথবা পঁয়ষট্টি ঘন্টা করা হবে। এবং মিডিয়া বলবে, এই বিএমএসের দাবীতেই শেষ পর্যন্ত সত্তরের জায়গায় ষাট করা হলো। লোকে তাদেরই কৃতিত্ব দেবে এই "সংগ্রামী বিজয়ের" জন্যে। নির্মলাদি জে ​​​​​​​এন ​​​​​​​ইউ'এর ​​​​​​​চোস্ত ইংরিজিতে নতুন ​​​​​​​সংসদে ​​​​​​​ফ্লুইড ​​​​​​​ভাষণ ​​​​​​​দেবেন। ছাপ্পান্ন ​​​​​​​ইঞ্চি ​​​​​​​ইংরিজি ​​​​​​​বলে ​​​​​​​সময় ​​​​​​​নষ্ট ​​​​​​​করবেন না। ​​​​​​​তা সে ​​​​​​​একদিক ​​​​​​​থেকে ​​​​​​​ভালোই। 
     
    একসময়ে আমার আক্ষেপ ছিল এই ফ্যাসিস্ট, ধর্মান্ধ, উগ্রপন্থী সংগঠন আরএসএস'এ জীবনের এতোগুলো বছর নষ্ট করেছি বলে। আজ আক্ষেপ হয় তাদেরকে নৈতিক সংগঠন মনে করেছিলাম বলে। চোখের সামনে দেখছি, শুধু দাঙ্গা, হিংসা, ঘৃণা, রক্তপাত নয়, আম্বানি আদানির লুন্ঠন, সাধারণ মানুষের রক্ত চুষে খাওয়া একটা নিষ্ঠুর অর্থনৈতিক সিস্টেম, ক্রিকেট জুয়া, এবং হিন্দু তীর্থস্থানগুলোর ধ্বস, গঙ্গা নদীর দূষণ -- চোখের সামনে সবকিছু দেখেও তারা কীভাবে একটা হিপোক্রিট অবস্থান নিয়েছে, তা দেখে। 
     
    একসময়ে -- আমার বাবা জিতেন্দ্রনাথ, তাঁর সতীর্থ অটলবিহারী, বড় দাদা নানাজী দেশমুখ বা দত্তপন্থ ঠেঙ্গাড়ির দিনে আরএসএস ও তার সংগঠনগুলো আর কিছু না হোক, নীতির দিক থেকে সৎ ছিল। আজ তারা একটা সম্পূর্ণ শঠ, মিথ্যাচারী, অধার্মিক সংগঠন। 
     
    এখানেই সবচেয়ে বড় ক্ষতিটা হয়ে যাচ্ছে ভারতের জন্যে। 
     
    এই মূর্তিপূজা হিন্দুদের জন্যেই চরম সর্বনাশা। 
    _____________________
    আমার নতুন বই আসছে ডিসেম্বর কি জানুয়ারি মাসে। আমিও দেশে থাকবো সে সময়ে। সে বইয়ের পাণ্ডুলিপি থেকে দু-একটি প্যারাগ্রাফ এখানে দিলাম।

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • ব্লগ | ২৯ অক্টোবর ২০২৩ | ৭৬৯ বার পঠিত
  • আরও পড়ুন
    পরবাস  - Esha Ghosh
    আরও পড়ুন
    ইঁদুর  - Anirban M
    আরও পড়ুন
    ** - sumana sengupta
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • হীরেন সিংহরায় | 2a00:23c7:672e:2001:653e:4a47:1889:efdf | ৩০ অক্টোবর ২০২৩ ০২:০৫525327
  • বই মেলাতে দেখা হবে !
  • Kishore Ghosal | ৩০ অক্টোবর ২০২৩ ১৭:২৬525343
  • গণতন্ত্রও কী ভাবে স্বৈরতন্ত্র হয়ে ওঠে - সেটা আজ সারা বিশ্বেই ধীরে ধীরে পরিষ্কার হয়ে উঠছে। আমরা যারা গণতান্ত্রিক দেশের নাগরিক - আমরা প্রায় বাধ্য হচ্ছি - স্বৈরতন্ত্রকেই মেনে নিতে। কারণ বিরুদ্ধ অথবা বিকল্প মতকে সমূলে বিনাশ করাটাই এখন ক্ষমতাসীন গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের মুখ্য কর্তব্য। আমরা "নির্বাচন" নামক এক প্রক্রিয়ার পুতুল মাত্র। 
  • পলিটিশিয়ান | 2603:8001:b102:14fa:6565:7ead:fd4:82df | ৩০ অক্টোবর ২০২৩ ১৮:৫১525348
  • এটাই তো হবার কথা। ক্ষমতাসীন শ্রেণী ক্রাইসিসের মুখোমুখি হলেই গণতন্ত্র, বাকস্বাধীনতা এসব বিলাসিতা বাদ দিয়ে সরাসরি দমননীতি চালায়। তার আগে অবধি বড় বড় কথা চালু থাকে।
  • বিকল্প মত | 77.111.245.11 | ৩১ অক্টোবর ২০২৩ ১২:৩৮525380
  • একদম হাতে গরম খবর, মানে ২০২৩শের বাংলাদেশের দূর্গা পুজোর আগের এবং পরের, দেখুন তো ডক্টবর পাত্থ বাবু এই খবর গুলো আপনার চোখে পড়ে কিনা ? 
     
    লেখক আপনার বর্তমান দেশের, আবার পয়সা নিয়ে লিখছে বলে চিৎকার জুড়বেননা, কারন সেক্ষত্রে  আপনাকে বলা যায় যে পেমেন্ট নিয়ে কাজ করেন বলে আপনাকেও এগুলো নিয়ে চেপে খেলতে হয়. 
     
  • guru | 115.187.51.112 | ৩১ অক্টোবর ২০২৩ ১৫:০২525382
  • @বিকল্প মত 
     
                     আমরা এখানে ইনফোসিস কর্তার বক্তব্য নিয়ে আলোচনা করছি , ইসলামোফোবিয়া নিয়ে কোনো টপিক এখানে অপ্রাসঙ্গিক | ইসলামোফোবিয়া নিয়ে বিষ ছড়াতে চাইলে রবার্ট স্পেন্সার এর গর্তে যান |
  • বিকল্প মত | 77.111.245.11 | ৩১ অক্টোবর ২০২৩ ২০:১৭525389
  •  
    আরে ডক্টবর পাত্থ, এই সব পোস্টের উত্তর দেন কি ? না দেন না, ওনার বাংলদেশের দূর্গা পুজোর টপিকে গিয়ে দেখুন, তবু ওনার পেইড প্রোপাগান্ডার কিছুটা বিরোধিতা করা উচিত। 
     
    ইসলামোফোবিয়া:- বিরাট শব্দ, প্লিজ টার্মটা ডিফাইন করবেন আগে ;-)

    গুরুতে আপনারা ইচ্ছে মত লেখা মুছে দেন, কোন কারণ দর্শানোর প্রয়োজন নেই, তাই না? তাই গর্ত সম্পর্কে আপনার জ্ঞান দেওয়া উচিত নয়। আর দিলেও শুনছে কে !!! আগে নিজেরা একটু accountable হন তারপর ওসব জ্ঞান দেখা যাবে| 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লুকিয়ে না থেকে প্রতিক্রিয়া দিন