ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • নেগেটিভ ইভলিউশন

    আফতাব হোসেন লেখকের গ্রাহক হোন
    ৩০ মে ২০২২ | ১৯৭ বার পঠিত
  • - 'আই ডোন্ট লাইক ভায়োলেন্স , বাট ভায়োলেন্স লাইক্স মি '...

    শীততাপ নিয়ন্ত্রিত চারশো আসন বিশিষ্ট সুবিশাল সিনেমা হলের বাইরে বেরিয়ে একটানা হিংস্র অঙ্গভঙ্গিতে শব্দ গুলো উচ্চারণ করে যাচ্ছিল বছর পনেরো এর এক সু শিক্ষিত তরুণ । পাশে স্মিত হাস্যে দাঁড়িয়ে তাঁর বাবা মা । চোখাচোখি হতে একটু প্রচ্ছন্ন গর্বের হাসি । বললেন , ‘হোয়াট এন এন্টারটেন্টমেন্ট ‘…

    এই এন্টারটেন্টমেন্ট এর উৎস খুঁজতে চলুন পিছিয়ে যাই খানিক সময় । পিছিয়ে যাই প্রায় চুয়াল্লিশ হাজার বছর । জায়গাটা বর্তমানের ইন্দোনেশিয়ার সুলাওয়েসি দ্বীপ । বছর কয়েক আগে খনন এর সময় প্রত্নতত্ববিদরা পেলেন এক শিকারের ঘটনার ছবি আঁকা দেওয়াল । চুয়াল্লিশ হাজার বছর পুরোনো । দু’টো শুয়োর আর চারটে বেঁটে মোষকে তাড়া করছে আটটা মানুষ। কিন্তু পুরো মানুষ নয় ওরা। ধড় মানুষের, মুন্ডু পশুর। নৃতত্ত্বের পরিভাষায় ওদের নাম ‘থেরিয়ানথ্রোপ’।

     এই ছবিগুলো অনেক প্রশ্নের জন্ম দেয় তখন । তাহলে কি আদিম মানুষ পশুরুপী ছিলেন ,নাকি পুরানে বর্ণিত ওয়ারউলফ সত্যি । অনেকে ভাবলেন তখন শিকার করার মত ভায়োলেন্সকে পশুর সমান রূপে দেখা হত হয়ত । অনেকে প্রশ্ন রাখলেন মানুষের এমন ছবি আঁকতে হল কেন যেখানে ডারউইনিশম থিয়োরিতে মানুষ, পশুর থেকে অনেক ধাপ এগিয়ে সেখানে মানুষকে আবার পশুর রূপে আসতে হল কেন ?

     বিজ্ঞানীরা এই হারিয়ে যাওয়া মিসিং লিংকের উত্তর খুঁজলেন ডারউইন এর মানব বিবর্তনের সূত্রে । এবং পরবর্তীতে বিজ্ঞানী ওয়ালস এর তত্ত্বে ।ওয়ালেস মত দিলেন মানুষের বিবর্তনের দুটি ধাপ আছে: প্রথমত, দ্বিপদী হওয়ার মাধ্যমে মস্তিষ্কের আদেশ পালন এবং দ্বিতীয়ত, মস্তিষ্কের বিবর্তন । বিজ্ঞানের ভাষায় প্রকরণ । মস্তিস্কের বিবর্তনের সর্বোচ্চ স্তর ই আজকের মানুষকে  কর্ডটা পর্বের ওপরের দিকে ম্যামেলিয়ার সর্বোচ্চ স্তরে ‘ দি হোমো স্যাপিয়েন্স ‘ রূপে প্রতিষ্টিত করেছে ।

    এই উন্নততর বিবর্তনের কাল ধরেই একটু বর্তমানে আসি । ডারউইন আর ওয়ালেসের এই বিবর্তন বাদ যদি সত্যি হয় তাহলে এই বর্তমান , যে বর্তমানে মানুষ নামক জীব দাবি রাখে তারাই সর্বশ্রেষ্ট । যারা  দাবি রাখে তারা মঙ্গলে বসতি গড়ে দিকশূন্যপুরের শূন্যের মান জানবে । যারা স্রস্টার সৃষ্টি রহস্যের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ‘অপুন হি ভগবান হে ' নামক স্তুতিতে বিশ্বাস করে । যারা শান্তির বাণীতে নোবেল নামক পুরস্কারে ধন্য করে নিজেদের এবং মানব ধর্ম কেই সর্বোচ্চ ধর্মের আখ্যানে ভূষিত করে শিকার , রক্তক্ষয় বা যুদ্ধ নামক প্রস্তরজুগিয় বর্বরতা কে অসভ্যতা কিংবা অমানুষিক বা আদিমানবিক  আখ্যা দিয়ে নিজেরা অনেক বেশি সহনশীল , বিবেকবান আর আল্ট্রা আধুনিক হযে পৃথিবীকে সর্বতভাবে সবার জন্য বসবাসযোগ্য করার চেষ্টা রাখেন । যারা থেরিয়ানথ্রোপ নামক পশু ও মানবের মিলিত রূপ থেকে চিরতরে পশুত্ব কে বিলীন করে মনুষত্ব প্রতিষ্ঠা করতে চেষ্টা করেন , তারাই ‘ হোমো স্যাপিয়েন্স ‘ রূপে প্রতিষ্টিত হওয়া উচিত  ছিল হয়ত । মানব বিবর্তনের ইতিহাস এর সত্যতা স্বীকার করলে এমনটাই হওয়া উচিত ।

    কিন্তু হয়নি । ডারউইন বা ওয়ালেস দুজনেই মনে হয় ব্যর্থ এক্ষেত্রে ।প্রথম বিশ্বযুদ্ধ থেকে শুরু করে  ইরাক , ইন্দোনেশিয়া, আফগানিস্তান , শ্রীলঙ্কা ,প্যালেস্টাইন , থেকে হালফিলের রাশিয়া , ইউক্রেন  ,দিল্লী কিংবা হাথরস থেকে হাসখালি ,প্রেমিকা খুন থেকে আত্মহত্যা , সব ঘটনা আরো একবার বিবর্তনের ইতিহাসকে প্রশ্ন চিহ্নে এনে দাঁড় করিয়েছে । প্রশ্ম চিন্হ তৈরি হয়েছে ওয়ালেস এর মস্তিস্ক বিকাশ সূত্রেও । যেখানে রিলের গ্যাংস্টার বা মাফিয়া দের রক্তারক্তি কিংবা রিয়েল লাইফের ভয়ানক যুদ্ধ কিংবা ধর্ষণকে মনুষ্য মস্তিস্ক এন্টারটেন্ট হিসেবে নিয়ে পজিটিভ আড্রিনালীন ক্ষরনে বাধ্য হয় সে বিবর্তন নিঃসন্দেহে নেগেটিভ বিবর্তন । 

    তাহলে কি বিবর্তন পশ্চাৎমুখে ।  ফিরে আসছে কি সেই আদিম মানুষ , যে মানুষের ধড় মানুষের হলেও , মস্তিস্ক পশুর  ।  মানে থেরিয়ানথ্রোপ কিংবা ওয়ার উলফ । নাহলে মেরুদন্ড সোজা করতে যেখানে কয়েক হাজার বছর লাগলো সেখানে বুলডোজার এর গতি নিম্ন মুখী কেন ? তাহলে কি ‘  হিস্ট্রি রিপিট ইটসেলস ‘ ? না হলে মানুষ সমাজবদ্ধ জীব থেকে ক্রমেই একক টু বি এইচ কে এর জীবে পরিণত হচ্ছে কেন ? কেনই বা আবার দেওয়াল এ যুদ্ধের ছবি আঁকতে হচ্ছে সেই চুয়াল্লিশ হাজার পুরানো সময়ের  মত । উত্তর সময় দেবে । 
    তবে মনে রাখা দরকার  - ‘পাওয়ারফুল পিপল কামিং ফরম পাওয়ারফুল প্ল্সেসেস কথাটি যেমন ঠিক তেমনি পাওয়ারফুল প্লেসেস বিল্ড বাই পাওয়ারফুল মাইন্ডস কথাটিও বাস্তব ‘ । 
    ততদিন অপেক্ষা , ভবিষ্যতের ইতিহাসের অথবা ইতিহাসের ভবিষ্যতের জন্য ...

    -----------------------------
     
     
    #উত্তরবঙ্গ সংবাদ এ প্রকাশিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঠিক অথবা ভুল মতামত দিন