• বুলবুলভাজা  পড়াবই  কাঁটাতার

  • উপমহাদেশের ইতিহাসের বৃহত্তর বাঁকগুলি মোড় নেওয়ার আখ্যান

    দময়ন্তী
    পড়াবই | কাঁটাতার | ২২ আগস্ট ২০২১ | ১০৭৯ বার পঠিত
  • ১৯৪৭ উত্তর ভারতবর্ষ জন্ম দিয়েছিল নতুন কিছু শব্দবন্ধের। এই প্রবীণরা কখনও স্বাধীনতা বলেননি, বলেছেন পার্টিশন, তৃতীয় বিশ্বের স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে যে শব্দ ভারতের অবদান। পার্টিশনের হাত ধরে এসেছে উদ্বাস্তু। রিফিউজি কলোনি। তারও পরে এসেছে অনুপ্রবেশ। বসেছে কাঁটাতার। এসেছে এনআরসি, নতুন নাগরিকত্ব আইন। শুরু হয়েছে "বৈধ-অবৈধ" বিচার। শোনা যাচ্ছে, নতুন শব্দবন্ধ, "অবৈধ অনুপ্রবেশ"। যাঁরা বিচার করছেন, তাঁদের বিচার কে করে। এসব শব্দের, আখ্যানের জন্ম হচ্ছে প্রতিনিয়ত। দেশভাগের এই আদি পাপ, মুছে দেবার আপ্রাণ প্রচেষ্টা সত্ত্বেও, এভাবেই থেকে গেছে বেদনায়, ভাষায়, আখ্যানে। থেকে গেছে, এবং এখনও যাচ্ছে। সেই আখ্যানসমূহের সামান্য কিছু অংশ, থাকল পড়াবই এর 'কাঁটাতার্' বিভাগের দ্বিতীয় সংখ্যায়।

    বৈশ্বিক সাহিত্য প্রসঙ্গে গোয়েথে বলেছেন, সাহিত্য যখন ভাষা ও সংস্কৃতির বেড়া পেরিয়ে এক দেশ থেকে অন্য দেশে ছড়িয়ে পড়ে, তখন নতুন নতুন ভাষা ও সংস্কৃতির সাথে একটু করে পরিবর্তিত হতে হতে সেটা এক নতুন সাংস্কৃতিক নিদর্শন হয়ে দাঁড়ায় – যা আর ঠিক সাহিত্যে সীমাবদ্ধ নয় – বরং নানা ভাষা, নানা সংস্কৃতি পরতে পরতে মিশে থাকা এক বৃহত্তর আখ্যানমালা। মার্কেজের নিঃসঙ্গতার একশ বছর পড়তে গিয়ে যেমন প্রতি নিবিষ্ট পাঠক খুঁজে নেন তাঁর নিজস্ব এক মাকোন্দো, বুয়েন্দিয়া পরিবারের সাত প্রজন্মের সুখ দুঃখ ভাঙাগড়ার সাথে মিশে যায় পাঠকের নিজস্ব ভুবন চিনুয়া আচেবের ‘থিংস ফল অ্যাপার্ট’ কিংবা একা কুর্নিয়াওয়ানের ‘বিউটি ইজ আ উন্ড’ একইভাবে পাঠককে অভিভূত করে জড়িয়ে নেয় ঘটনাক্রম ও চরিত্রদের সাথে।

    কুররাত উল আইন হায়দারের ‘ফায়ারফ্লাইজ ইন দ্য মিস্ট’ পড়তে গিয়ে উপরে বলা বৈশিষ্ট্যগুলো অনেকটাই দেখতে পাই। কাহিনীর শুরু হয় ১৯৩৯ সালে অবিভক্ত ভারতের ঢাকা শহরে। কাহিনী, ঢাকা-কলকাতা-শান্তিনিকেতন-সুন্দরবন-ঢাকা-লন্ডন-ত্রিনিদাদ হয়ে মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী ঢাকা ঘুরে বোলপুর ছুঁয়ে কলকাতায় এসে শেষ হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় শুরু হলেও, ঘটনাক্রম অনায়াসে আগের শতাব্দীর ১৮৭০ থেকে ১৮৯০ ছুঁয়ে আসে, ১৮৯০ সালে হঠাৎ বড়লোক রমেশবাবু সরকারের বংশধর, আর্জুমন্দ মঞ্জিলের নবাব নুরুল জামান চৌধুরী ও তাঁর পরিবার, লিলি কটেজের রেভারেন্ড পল ম্যাথিউ ব্যানার্জি ও তাঁর পরিবার এবং চার্লস বার্লো – এঁদের নিয়ে ১৯৩৯-৪০ সালের ঢাকায় যে কাহিনী শুরু হয়, তার পাত্রপাত্রীদের নাম দেখে বোঝা যায় – এ এক অতি জটিল নকশার গালিচা বুননের শুরু।

    দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ, মন্বন্তর, দেশভাগ, স্বাধীনতা এবং মুক্তিযুদ্ধ পার করে পরিবারগুলি ছিন্নভিন্ন হয়ে ছড়িয়ে পড়ে দেশে বিদেশে। কারুর নিজের দেশ এক লহমায় বিদেশ হয়ে যাওয়ায় বিদেশে গিয়ে তাকেই দেশ বলে মেনে ও মানিয়ে নিতে হয়। কেউ বা আবার নিজ-শহরে নিজ-বাড়িতে থেকেই পঁচিশ বছরের ব্যবধানে তিনটি আলাদা দেশের বাসিন্দা বলে পরিচিত হন। সেই যে ছোটবেলার ইতিহাস বইতে থাকত, ‘বাংলার আকাশে আজ দুর্যোগের ঘনঘটা’ – সেই বাক্য আক্ষরিক অর্থেই দীপালী সরকার, জেহান আরা চৌধুরী, রোজি ব্যানার্জি, ইয়াসমিন মজিদ বেলমন্ট, উমা রায়দের জীবনে ফলে গেছে। উপমহাদেশের রক্ত-ভেজা, আগুনে-পোড়া সময় এদের তুলে ছুঁড়ে দিয়েছে সময়ের ঘূর্ণিপাকে। কেউ প্রায় অক্ষত বেরিয়ে এসেছে, কেউ বা টিকে থাকার যাবতীয় চেষ্টা সত্ত্বেও ভেঙে-চুরে গেছে।

    হায়দারের উপন্যাসের পাঠক-মাত্রেই জানেন, অজস্র চরিত্র ও দ্রুতগামী ঘটনাক্রমের সাথে তাল রাখতে গেলে পাঠককে সদা সতর্ক থাকতে হয়। সমাজের বিভিন্ন স্তরের, বিভিন্ন ধর্মের মানুষ, তাদের সামাজিক অবস্থা, বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক স্তরগুলির মধ্যে মিথষ্ক্রিয়া – এমন অনায়াস বয়ানে বুনে চলেন, যেন এক মহানদী – যাতে এসে মিশছে শাখানদীরা, বেরিয়ে যাচ্ছে উপনদীরা, আবার ঘুরে এসে হয়ত মিশছে মূল নদীতে। এই বিভিন্ন ধর্ম, সংস্কৃতি, ভাষা ও সামাজিক স্তরের চরিত্রগুলো এত নিখুঁত বিস্তারিত – তাদের প্রায় রক্ত-মাংসের মানুষের মতই অনুভব করা যায়। এই উপন্যাসে রসবোধ আর দুঃখ হাত ধরাধরি করে চলে। এক প্যারাগ্রাফ পড়ে হেসে ফেলতে না ফেলতেই, পরের প্যারাগ্রাফ প্রায় বিধ্বস্ত করে দেয়। অথচ কোথাও একটুও তাল কাটে না, একটুও আরোপিত মনে হয় না।

    দীপালী আর রোজি অনুশীলন সমিতির সাথে যুক্ত হয় তাদের প্রায় কিশোরী বয়সে। বিপ্লবীদের ‘টেররিস্ট’ বলে উল্লেখ করেছেন হায়দার দেখে হঠাৎ কেমন চমক লাগে। ভগত সিং-ও তো ‘আই অ্যাম আ টেররিস্ট’ বলে আত্মপরিচয় দিয়েছেন। এক একটা শব্দ কেমন শতাব্দীর পর শতাব্দী অপরাধীই থেকে যায় তাই না। রেহান আহমদের প্রভাবে দীপালী ক্রমশ কমিউনিস্ট পার্টির সাথে জড়িয়ে পড়ে। ঘনিষ্ঠ বন্ধু রোজিকেও টানে তাদের পাঠচক্রে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ যত ছড়ায়, মেয়েদু’টি আরও বেশী করে গোপন কার্যকলাপে জড়িয়ে পড়তে থাকে। উপন্যাস যত এগোয়, আমাদের সামনে খুলে যেতে থাকে পরচর্চা, ভারতীয় খ্রীশ্চানদের মধ্যে জাত-বেজাতের সমীকরণ, বড়লোকদের শ্রেণিগত উন্নাসিকতা, দৃষ্টিকটু-ভাবে আত্মতৃপ্ত কিছু মানুষের অপরকে হেয় করে চলা। রাজনীতির সাথে জড়িয়ে যায় প্রেম।

    রেহান আহমদ, আত্মগোপন করে পালিয়ে বেড়ানো কমিউনিস্ট রেহান – তার জ্যাঠা, মুসলিম লীগ অনুগামী, নেতা, নবাব নুরুল জাহানকে বোঝায় – মুসলমান ধর্ম আর সোশ্যালিজমে খুব তফাত নেই। তাই মুসলিম লীগ ও কমিউনিস্ট পার্টির একসাথে হাত মিলিয়ে চলাই বাংলার মুসলমানদের পক্ষে ভাল হবে। খেয়াল রাখতে হবে, মুসলিম লীগ তখন মোটামুটি মুসলমানদের আলাদা দেশের পক্ষে অনেকটাই হেলে গেছে। অন্তত নবাব-সাহেব তো বটেই। এর বিপরীতে আমরা দীপালীর সাথে নবাব সাহেবের এই বিষয়ে আলাপ যদি দেখি, তাহলে দেখব, দীপালী এক দেশ, একতার পক্ষে সওয়াল করছে। এবার এই কথোপকথন যেখানে হচ্ছে, নবাবের সেই ব্যক্তিগত পাঠাগারের বর্ণনায় হায়দার দেওয়ালে ঝোলানো তিনজনের ছবির উল্লেখ করেন – স্যার সৈয়দ আহমেদ খান, মহম্মদ আলি জিন্নাহ আর রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

    পাঠাগারের এই সজ্জা বুঝিয়ে দিচ্ছে, নবাব সাহেবের আইডেন্টিটির জটিল স্তরগুলো। একইসাথে তিনি রবীন্দ্রনাথের ঐক্য ও মানবতার ভাবনা এবং জিন্নার স্বতন্ত্র মুসলিম আইডেন্টিটির সাথে একাত্ম-বোধ করছেন। তাঁর পাঠাগারের বাইরের বারান্দায় পাকিস্তানের মানচিত্র ঝোলানো। এখানে যেটা লক্ষ করার, তিনি দীপালীকেও পাকিস্তানী আইডেন্টিটিটির অঙ্গ বলে ভাবছেন – তাকে ‘হিন্দু’ আইডেন্টিটির খোপে ঢুকিয়ে দিচ্ছেন না। এই অংশটা বই থেকে উদ্ধৃত করি -

    She asks him what it is and he replies “Ah, that! You ought to know. When, Inshallah, Pakistan comes into being, you too shall be a Pakistani….” Deepali then follows the Nawab into his library, where they discuss why he believes that India should be partitioned.
    ‘Uncle…’ she said now, a little uncertainly, “I merely wished to say that we could work together for unity instead of partition.’
    ‘Where the hell is unity? The anti-Muslim Arya Samaj of Punjab and the Hindu militancy of Maharashtra and Bengal… are they symbols of peace and goodwill? Don’t forget that these movements were started before we thought of setting up a separate political platform.’
    ‘I don’t know about other provinces, but in Bengal Hindus and Muslims share a common culture.’
    ‘Did your community ever admit the fact that the folk music and folk literature of Bengal are largely the contribution of the Muslims? By ‘Bengali culture’ you only mean Hindu culture. During the last century your press even started the language controversy. They said Bengali was not the language of the Muslims, they declared that Bengali literature and culture were exclusively the heritage of the Hindus…By God, Deepali, we wanted unity. But now, such hatred for us! Such contempt. Like the Christians have for the Jews in Europe….…. ‘But. Uncle,’ she cut in impatiently, ‘both communities started their revivalist movements and were encouraged by the…’
    ‘British! I agree. Well why did we let ourselves be manipulated by them?’ He collected his papers and carried them to the writing table.”


    নবাব এবং দীপালীর মধ্যে এই তর্ক পাকিস্তানের পক্ষে ও বিপক্ষে হলেও একটা জিনিস পরিষ্কার, যে নবাব-সাহেব পাকিস্তানকে একেবারে আলাদা হিন্দু-বিহীন রাষ্ট্র হিসেবে কল্পনা করছেন না, চাইছেনও না। বরং চাইছেন হিন্দুদের সক্রিয় অন্তর্ভুক্তি। এই ব্যাপারটা হায়দারের অন্য উপন্যাসেও এসেছে। অঞ্চল মেরহোত্রার বইতেও একজন মহিলার সাক্ষ্য পাই, যিনি পাকিস্তানের জন্য গলা ফাটিয়ে আল্লাহু-আকবর ধ্বনি দিয়ে মিছিল করেছেন, কিন্তু আসলে আলাদা একটা হিন্দু-শূন্য-দেশ চাননি, ৪৭-পরবর্তীতে পাকিস্তানে গিয়ে ঠিক খাপ খাওয়াতেও পারেননি। এইটা যেমন একদিকে দূরদৃষ্টির অভাব ও হঠকারী চাহিদার ফলাফল কেমন হয় – সেইটে দেখায়, তেমনি অন্যদিকে এক হতাশ শূন্যতার জন্ম দেয়। মনে হয়, কোন নেতা যদি একটুও মন দিয়ে মানুষের প্রাথমিক চাহিদাগুলো একটু বোঝার চেষ্টা করত!


    আরও পড়ুন
    রণছোড় - Chayan Samaddar


    এখানে পাঠককে আরও একটা কথা মনে করিয়ে দিতে চাই। হায়দার নিজেও ৪৭-এ ছদ্মবেশে লুকিয়ে ট্রেনে চেপে ভারত ছেড়ে পাকিস্তানে যেতে বাধ্য হয়েছিলেন। সেখানেই তাঁর দাদা, পরিবারও গেছিল। পরিবার সেখানেই থেকে যায় বটে, হায়দার আবার একদিন হঠাৎ-ই ভারতে ফিরে আসেন এবং আমৃত্যু এখানেই থেকে যান। এর স্পষ্ট কোনও কারণ তিনি কোথাও দেখাননি। স্রেফ বলেছেন ‘বাস অ্যায়সেই আ গ্যয়ে’। তাঁর লেখালেখি অনুসরণ করলে বোঝা যায় - ‘দেশভাগ’ এই ধারণাটাই তিনি কোনোদিন মেনে নিতে পারেননি। এই বইটায় মোট তিনটে ভাগ। এর প্রথম দু’টো ভাগে আদর্শের কথাই মূলত জায়গা পেয়েছে। তা বিপ্লবী, জাতীয়তাবাদী, কমিউনিস্ট, মুসলিম লীগ-পন্থী যা-ই হোক – চরিত্রগুলো মোটামুটি যাই করছে, নিজ নিজ আদর্শকে সামনে রেখে করছে। কিন্তু তৃতীয়-ভাগে মূলত তিক্ততার প্রাধান্য।

    প্রথম দু’টো ভাগের সময়কাল ১৯৩৯ থেকে ৪৩-৪৪ অবধি। এইসময়ে রেহান-দীপালী স্বাধীন ব্রিটিশ-মুক্ত ভারতের ভবিষ্যৎ নিয়ে গভীর আশাবাদী। তাদের কমিউনিস্ট আদর্শ তাদের স্বপ্ন দেখাচ্ছে যে স্বাধীনতা, গরীব ও সুবিধা-বঞ্চিত শ্রেণির জন্য অনেক উন্নয়নের সুযোগ নিয়ে আসবে। আর রেহান তো বিশ্বাস করত, পাকিস্তান এক সোশ্যালিস্ট রাষ্ট্র হবে – কারণ ইসলাম আর সোশ্যালিজম খুবই কাছাকাছি। কিলিয়াসের ‘খোয়াবনামা’তেও আমরা দেখেছি, মুসলিম লীগ আর কমিউনিস্ট পার্টির কর্মীদের নৈকট্য। ৪৭-এর আগে-পরেই মোটামুটি এই স্বপ্ন দূরে সরে যেতে থাকে। নিজেদের মধ্যে সম্পর্কও নষ্ট হয়ে যায়। তৃতীয় ভাগের সময়কাল ১৯৫০ থেকে ৭১ পরবর্তী। এই গোটা সময়টাই ভারত ও পাকিস্তান গেছে নানা ঝড়-ঝঞ্ঝার মধ্যে দিয়ে। সদ্য স্বাধীন হওয়া দুই দেশের মানুষের, স্বেচ্ছায় বা বাধ্য হয়ে অন্যপারে যাওয়া মানুষের নিজের পায়ের নীচে মাটি জোগাড়ের মরিয়া চেষ্টার সময়।

    স্বাধীন, নতুন দেশকে নতুনভাবে গড়ে তোলার সময় দুই প্রতিবেশীর মধ্যে কাম্য ছিল সদ্ভাব ও পরস্পরকে সহায়তার মনোভাব। তা তো হয়ই নি, উলটে একে অপরের সাথে রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে জড়িয়েছে বারবার। আদর্শবাদী রেহান ততদিনে সুযোগসন্ধানী রেহানে রূপান্তরিত। দেশভাগের পরপরই পশ্চিমবঙ্গে এসে প্রাদেশিক সরকারের মন্ত্রী হয়ে বসে। কিন্তু ৭১-পরবর্তী স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে গিয়ে রেহান তার জ্যাঠা আর্জুমন্দ মঞ্জিলের নবাব সাহেবের উত্তরাধিকার, নবাব পদবী - গ্রহণ করে, হয়ে ওঠে ঢাকার এক প্রভাবশালী ব্যবসায়ী। উমা রায়ের কাঁকড়া-মুষ্টি থেকে বাঁচতে দীপালীর বাবা দীপালীকে নিয়ে ত্রিনিদাদে অভিবাসী হন। বাঙালি-খ্রীশ্চান রোজি বিবাহসূত্রে দিল্লির অভিজাত-মহলে নিজের স্থান করে নেয়, গরীব বাবা-মায়ের পরিচয় দিতে সে নারাজ, তাঁরাও ঢাকা ছাড়তে চান না, থেকে যান প্রতিবেশীর ভরসায়।

    ঢাকা – প্রাচীন এই শহরটা, মাত্র পঁচিশ বছরের মধ্যে, তিন তিনটে দেশের অংশ হয়েছে। অবিভক্ত ভারত, পূর্ব পাকিস্তান ও স্বাধীন বাংলাদেশ। আর এই ভূখণ্ডের মানুষগুলো? তারাও কি এত দ্রুতই বদলে নিয়েছে নিজেদের আত্মপরিচয়? এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে, নিজের অতীতকে ছুঁয়ে-ছেনে দেখতে দীপালী ফেরে দেশে। দেশের নাম বারবার বদলালেও, হত-দরিদ্র, সুবিধা-বঞ্চিত মানুষদের জীবনযাত্রা বদলায় না, দীপালীর কথায় তিক্ততার রেশ থেকে যায়। এখানে আবার একটু উদ্ধৃত করি ঢাকা ক্লাবের ডিনারে দীপালীর বক্তব্য থেকে –

    “If Mr. Jinnah had not created Pakistan, there would have been no Bangladesh today. Actually, he is the founder of this new country as well.”
    People looked at her in surprise and said nothing. She continued to hold forth: “The concept of Mother India was given to the rest of the country by the terrorists of Bengal. They worshipped Divine Power in the image of Kali, the destroyer. They believed in the prehistoric Dravidian concept of the Mother Goddess. The British branded them as terrorists. Indians called them revolutionaries. Many among them were anti-Muslim as well. Bankim Chandra’s novel Anand Math was their Bible. The crosscurrents of the politics of Bengal’s Hindu bhadralok and Muslim gentry gave birth to East Pakistan, and the internal politics of West and East Pakistan created Bangladesh. Individual personality clashes, and the temperaments and actions of political leaders build or destroy entire nations.”


    ব্যক্তিগতভাবে দীপালীর এই বক্তব্যের সাথে আমি অনেকটাই একাত্মবোধ করি।

    ১৯৭৯ সালে উর্দুতে প্রকাশিত ‘আখির–এ-শব–কে–হামসফর’ হায়দার নিজেই ইংরাজি রূপান্তর করেন, প্রকাশিত হয় ২০০৮ নাগাদ। সাহিত্যিক বিচারে ফায়ারফ্লাইজ ইন দ্য মিস্ট নিখুঁত বলা চলে না। এত বড় আর জটিল পশ্চাৎপটে আরেকটু আঁটসাঁট হওয়া দরকার ছিল। এক-এক জায়গায় অতি বিস্তারিত আখ্যান ক্লান্তি জাগায়। রোজির কারাবাস ও পরবর্তী রাধিকা সান্যালের জীবন, বা বলা ভাল, রোজি চরিত্রটাই – খুব একটা বিশ্বাসযোগ্য লাগেনি আমার। অথচ রোজির বাবা-মা, বাঙালি খ্রীশ্চানদের দৈনন্দিন খুঁটি-নাটি, শ্রেণিগত অপমান – এ সবই খুব বাস্তব, জীবন্ত। ইয়াসমিনের শ্রেণিকে পিছনে ফেলে অভিজাত মহলে স্থান পাওয়ার মরিয়া চেষ্টায় জ্বলে-পুড়ে যাওয়া - বড্ড মন খারাপ করায়। মন খারাপ করায় নবাব-কন্যা জেহান আরার জীবনও – অতি-অভিজাত-শ্রেণিতে জন্ম তাকে একটা সুখী, সফল জীবন দিতে পারল না।

    ওই যে শুরুতে বলছিলাম বৈশ্বিক সাহিত্য – সমস্ত দোষ-গুণ মিলিয়েও এই বইটা আমার মতে বৈশ্বিক সাহিত্যের অন্তর্ভুক্ত। উপমহাদেশের সামাজিক ইতিহাসে আগ্রহীদের অবশ্যই পড়া উচিৎ। সবচেয়ে বড় কথা – ভবিষ্যৎ প্রজন্মের হাতেও তুলে দেওয়া উচিত। ধর্ম-ভিত্তিক দেশের মোহ ঘুচে যাওয়া, বাঙালি – হিন্দু, মুসলমান, খ্রীশ্চান ধর্মের মধ্যে শ্রেণিভেদ, তাদের মধ্যে যোগাযোগ ও আদানপ্রদানে বিভিন্ন স্তরের সূক্ষ্মতা অনুভব করার জন্যও – এই বইটা পড়া দরকার।


    Fireflies in the Mist
    Qarratulain Hyder
    প্রকাশকঃ Women Unlimited
    দাম ৪৯৯ টাকা


    প্রাপ্তিস্থান :
    অনলাইনে — কলেজস্ট্রীট ডট নেট
    বাড়িতে বসে বইটি পেতে হোয়াটসঅ্যাপে বা ফোনে অর্ডার করুন +919330308043 নম্বরে।
  • বিভাগ : পড়াবই | ২২ আগস্ট ২০২১ | ১০৭৯ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • সিএস | 49.37.32.92 | ২২ আগস্ট ২০২১ ১৫:১৩497001
  • কুররাত উল আইন হায়দারের তথাকথিত 'বড়' উপন্যাসগুলো ইতিহাসের মেড ইজি, উপন্যাস বিশেষ কিছু হয়নি, এরকমই মনে করেছি। এই লেখাটি পড়ে, বিশেষ করে ইংরেজী অংশগুলো পড়ে একই কথা মনে হল।

    নতুন বাংলাদেশ রাষ্ট্র তৈরী হলে, সেই রাষ্ট্র তৈরী ইতিহাস লেখার চেষ্টা হয়েছে এই উপন্যাসে। ভারত রাষ্ট্র তৈরী হলে যেমন আগ  কা দরিয়া। 

    এতে না হয় ইতিহাস লেখা বা না হয় উপন্যাস লেখা, ডীপে  গিয়ে, ওপর ওপর কিছু একটা হয়।

    আর মার্কেজের সাথে তুলনা ইত্যাদি অপ্রাসঙ্গিক মনে হয়। কারণ মার্কেজের থেকে বড় স্টোরিটেলার গত কয়েক দশকে কেউ আর আসেনি, যাঁর লেখায় গল্প আর চরিত্রই আসল, দুয়ে মিলে 'লেখা' হয়, ইতিহাস থাকে কিন্তু রচনা লেখার মত করে নয়, চিহ্নগুলো খুঁজে বার করতে হয় । কুররাত উল হায়দারের লেখায় যেহেতু দেশ -কাল -মানুষ, অতএব মার্কেজ, এ কথা অনেক লেখাতেই লেখা হয়েছে, কিন্তু বড় আকারের সব বইই মার্কেজ নয়।
     
     
  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.37.176 | ২৩ আগস্ট ২০২১ ১০:৫৩497025
  • দমুর লেখাটা ​​​​​​​আমি ​​​​​​​বুঝতে ​​​​​​​পারিনি। যদিও আমি সৈকতের ঐতিহাসিক উপন্যাস সম্পর্কে রিজারভেশন এর সবটার সঙ্গে সহমত নই। 
    ​​​​​​​থিয়োরীর রেফারেন্স টা বুঝিনি। অবশ্য হতে পারে আমার গ্যেটে সেরকম পড়া নেই বলেই বুঝিনি।  ​​​​​​​
     
    মার্কেজ ​​​​​​​, ​​​​​​​চিনুয়া আচেবে ​​​​​​​দের সঙ্গে কুরাতুলেইন হাইদার তফাৎটা একটা প্রজন্মের শুধু না, সাহিত্য কিরকম ভাবে হবে সেটার দার্শনিক অবস্থানেও বিরাট পার্থক্য আছে। 
     
    হায়দার এসেনশিয়ালি মডার্নিস্ট।এবং ওনার মূল ইম্পেটাস টা হল পার্টিশনের ট্রমা, যেটা উর্দু ভাষার ইতিহাসের আভ্যন্তরীন দ্বন্দ্ব আর থাকছে না।
     
    মার্কেজ একেবারেই ফকনার পন্থী।দূরবর্তী কলোনিয়াল স্মল টাউনের গল্প, এবং উপমহাদেশের বিস্তৃতি তাতে অনুপস্থিত, সীমানা পেরোনো আন্তর্জাতিতার বালাই নাই। ৬ এর দশকে শুরু অনুবাদের রমরমা   , ​​​​​​​যেটাকে ​​​​​​​ওঁরা ​​​​​​​নিজেরাই ​​​​​​​দক্ষিন ​​​​​​​আমেরিকার ​​​​​​​স্প্যানিশে ​​​​​​​বলেন ​​​​​​​, ​​​​​​​এল ​​​​​​​বুম, ​​​​​​​সেটা ​​​​​​​এক ​​​​​​​ধরণের ​​​​​​​কালচারাল ​​​​​​​টুরিজম ​​​​​​​তৈরী ​​​​​​​করছে। তার সংগে ট্রান্সডেন্টালিজম এর কোন সম্পর্ক নাই। 
     
    ইন ফ্যাক্ট যেটা হচ্ছে, বিংশ শতকেই দুটো ঝোঁক ই আসছে লাতিন আমেরিকার সাহিত্যে। একটা হল, ইউরোপিয়ান সাহিত্যপ্রেমী রা তাঁদের ভাষার নিউ রাইটিং খুঁজছেন, লাতিন আমেরিকান সাহিত্যে, ১৯৩৬ থেকে নেরুদা আর সম্ভবত মিগুয়েল আস্তুরিয়াস নানা রকম বন্ধুবান্ধব দের লেখা প্যারিসে প্রকাশ করছেন। এটার মূল স্পিরিট টা কিন্তু নিজের গাঁয়ের লোক কে বড় শহরে জায়গা দেবার আনন্দ। অন্যদিকে কোর্তাজার প্যারিসে এসে বাড়ি মিস করছেন বলে হপ্স্কচ লিখে ফেলছেন, অথচ সেটা এতটাই ইউরোপীয় আর্বান লেখা যে লাতিন আমেরিকার লেখা লিখিতে আমাদের দেশের মতই, বড় শহর, ছোটো শহর, জেলা টাউন, গ্রাম এদের মধ্যে অথেন্টিসিটির প্রতিযোগিতা তৈরী হচ্ছে, যেটা ডিকটেটরশিপের বাড়াবাড়ি হলে এক জাগায় আসছে নইলে ছড়িয়ে যাচ্ছে। :-))))) এবং সকলেই সকলকে বিট্রেয়ার বলছেন ইত্যাদি,। কেউ কেউ বোর হয়ে গিয়ে চুপ করে যাচ্ছেন, যেমন হুয়ান রুল্ফো । এবার এল বুমের পরে যেটা হচ্ছে, ইউরোপ মেন ল্যান্ড এসোটেরিক আবিষ্কার এর নেশার থেকে সরে আশছে, নিরীক্ষার ভরকেন্দ্র হিসেবে আবার ইউরোপীয়ান মেন ল্যান্ডে ফিরে আসছে স্প্যানিশ ও পোর্তুগীজ সাহিত্য। বাজার ও ক্ষমতাও সেভাবেই শিফ্ট করছে। সুতরাং মজাটা হল ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন তৈরী হবার পর থেকে, সাবভারসন ই বলুন আর নতুন ক্লাসিক যাই বলুন, ইউরোপিয়ান সাহিত্য নিজের মত চল্ছে, জাফন, এনরিক ভিয়া মাতাস ইত্যাদিরা ইউরোপিয়ান সাহিত্যের ট্র‌্যাডিশন কেই নিজেদের ট্র‌্যাডিশন ভাবছেন। বলা যায় বোরহেস এর আন্তর্জাতিক ইউরোপিয়ান প্রোজেক্ট ফাইনালি মৃত্যু ঘটছে। 
      
    আর একট বিষয় হল, 
    লাতিন আমেরিকায়, সাইমন বলিভারের ঐতিহ্যের কারণেই হোক, স্প্যানিশ ভাষার একট বিষয়ের কারণেই হোক, ওনাদের যেটা রেজিস্টান্স লিটারেচার, সেটার একটা ট্রান্সন্যাশনাল নেচার আছে, কিন্তু সেটা আর্বান সেটিং e বেশি, মার্কেজের সম্পর্ক কম। 
     
    আচেবের বিষয়টা কাছাকাছি একটু, কিন্তু রেসিস্ট কলোনিয়াল অ্যান্থ্রোপোলিজির পোলিটিকাল প্রোজেক্ট এর যে সরাসরি আঘাত , সেটা আচেবে যতটা বলছেন, মার্কেজে ওসব তত নাই।
     
     
    হায়দার এর ইতিহাস রচনার দর্শন নিয়ে মূলধারার বিকল্প প্রস্তাব সেরকম কিছু নেই, যেটার জন্য পোস্ট কলোনিয়াল লিটারেচার বিখ্যাত। 
    যেটা মূলতঃ রয়েছে, অ্যামরাল বিষয় সম্পর্কে বা মানুষের দৈনন্দিন, দেশের দুরবস্থা ইত্যাদি মহৎ সাহিত্যের বিষয় হতে পারে কিনা , সেটা নিয়ে যে ঊনবিংশ শতকীয় কনফিউশন সেটা থেকে অন্য মডার্নিস্ট দের সংগে বেরিয়ে এসেছেন। এবং প্রগতিশীল রাইটিং এর বামপন্থী প্রোজেক্ট এর সঙ্গে কিছুটা একাত্ম বোধ করছেন। এবার নারীবাদী হিসেবে প্রগতি সম্পর্কে তাঁর টেক স্বাভাবিক ভাবেই, অনেক সমসাময়িক দের থেকে আলাদা হচ্ছে। 
     
    গ্যেটের যে রেফারেন্স দিয়ে শুরু হয়েছে লেখাটা, সেটা সাধারণ ভাবে সাহিত্যের ট্রান্সেন্ডেন্টাল দিক গুলি নিয়ে বলা, হায়দার কি করে তার উদাহরণ হন আমি বুঝি নি, বিশেষ করে যে ধরণের সাহিত্য তিনি লিখছেন, তার প্রধান ট্রমাটাই হল, তাঁদের জীবৎ কালের দেশ ভাগ  । আমেরিকান সাহিত্যে, ইউনিটারিয়ান চার্চের মধ্যেকার ডিসেন্টিং হচ্ছে একটা,  বির্টিশ আর জার্মান রোমান্টিক দের প্রভাবে এক ধরণের ট্রান্সেন্ডেন্টালিজম আসছে , সেটা আমেরিকার ইতিহাস , সেখানে গণতন্ত্রের বিবর্তনের ইতিহাস্র সঙ্গে জড়িত। 
     
    আমাদের এখানে রবীন্দ্রনাথ বলা যেতে পারে সাহিত্যের কাল স্থান অতিক্রম এর অ্যাম্বিশন এর  দ্বারা প্রভাবিত, দুটো পর্যায়ে। একটা জার্মান গীতিকবিতা দিয়ে। আর পরের দিকে , উনি আবার পরাধীন দেশের স্থান মাহাত্মের কারণেই হয়তো এশিয়ান অক্সিডেন্টালিজম এ সরে আসছেন , কিন্তু সেতো নোবেল পুরস্কার পাওয়ার পরে বা ইউরোপ সম্পর্কে পোলিটিকাল কমেন্ট করার দরকার এসে পড়ার এর পরে।  তাঁর মূল ইনটেলেকচুয়াল ট্রাডিশন একদিকে উপনিষদ অন্যদিকে বৈষ্ঞব সাহিত্য। 
     
    একটা লুজলি বলা যেতে পারে, বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয় ভাগে যখন অভিবাসন বেড়েছে, তথাকথিত বিশ্ব সাহিত্য, বিশ্ব সংগীত এসব ক্যাটিগোরি তৈরী হছে। গ্যেটে থেকে হায়দার সকলেই এর সঙ্গে সম্পর্ক রহিত। 
     
    গল্প ইত্যাদি ঠিকাছে, লেখাটির তাত্ত্বিক প্রস্তাব টা বুঝিনি। ইন ফ্যাক্ট অবাক ই হয়েছি। হতে পারে, একটা বড় কোন থিসিস লেখার একটা পার্ট দেওয়া হয়েছে বলে আর্গুমেন্ট টা ধরা যাচ্ছে না। 
     
    তথাকথিত দক্ষিন এশিয়ায় ন্যাশনাল হিস্টরি প্রোজেক্ট গুলোর সীমানা তৈরী হায়দারের জীবৎকালেই হয়তো হয়েছে, কিন্তু তার গঠনগত সমস্যার সংগে হায়দারের লেখার সম্পর্ক সমসাময়িকতার বাইরে কিছু খুঁজে পাওয়া গেলে আমার জানা নেই।  
     
  • বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত | 49.37.37.176 | ২৩ আগস্ট ২০২১ ১১:৫৬497028
  • বিশ্ব সাহিত্য বলতে যদি ওয়ার্ল্ড ক্লাস ইত্যাদি বোঝাতে চাওয়া হয়ে থাকে, তার বিশেষ স্ট্যান্ডিং নাই। মানে জীবনানন্দ তো সাংঘাতিক অ্যাসপিরেশনাল অথচ মূলত রূপসী বাংলা আর ১৯৪৬ এর মধ্যে তাঁকে ধরতে চাওয়া হয় এবং সাধারণ ভাবে আর্বানিটির প্রতিনিধি হলেও একেবারেই কলকেতে আর্বানিটির লোক বলে ধরা হয়। 
    আন্তর্জাতিক সাহিত্যটা একটা ট্রেড টার্ম, এটারো ক্রিটিসিজম এর দিক থেকে খুব বিশেষ কোন স্ট্যান্ডিং নাই। একটা দেশ হঠাৎঅ ভেঙ্গে গেলে হায়দার আর কি করবেন, তাঁর সমসাময়িক রা যেমন রিয়াক্ট করেছেন, উনিও করেছেন। এইবারএটুকু বলা যেতে পারে, পার্টিশন এর ট্রমা কেবল ই রিফিউজি দের আছে, সেটাও মূলতঃ উচ্চবর্ণ হিন্দু দের এই যে সাতের দশকের প্রোজেক্ট, এটার একটা কাউন্টার পয়েন্ট হিসেবে হায়দার কে দেখা যেতে পারে, এবং সাধারণত শুধু মান্তো কে দেখা হয়। এবার সেটার সপক্ষে ও বিপক্ষে আর্গুমেন্ট তো আছে। পূর্বদিকের বর্ডারে হাসান আজিজুল হক আর মনোরঞ্জন ব্যাপারীর লেখার পরে আমাদের এই অভাব টা মিটেছে। 
    তাই এটা যদি কারো তাত্বিক পজিশন হয়, , হায়্দার ই হলেন, ইস্টার্ন বর্ডারে মাইগ্রেশন এর সাহিত্যিক , তিনি ই একাধারে ব্যাপারী আর হাসান আজিজুল ই শুধু নন, ঝুম্পা লাহিড়ি , মনিকা আলি দের ও পূর্বসূরী তাহলে সেইটার ডিফেন্সে আরো এভিডেন্স লাগবে। 
    আমার একটা অসোয়াস্তি হচ্ছিল, তাই দ্বিতীয় কমেন্ট টা লিখলাম, কারণ নর্মালি গুরুচন্ডালির এই আদি লেখিকা থিয়োরী অ্যাভয়েড করলেও, যখন লেখন তখন আর আর্গুমেন্ট এর  ড্রিফ্ট টা ধরতে অসুবিধে হয় না। এক্ষেত্রে হয়েছে। 
     
    বোধিসত্ত্ব দাশগুপ্ত
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঝপাঝপ মতামত দিন