এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  আলোচনা  পরিবেশ

  • প্ল্যাস্টিকে মোড়া জীবন

    দময়ন্তী
    আলোচনা | পরিবেশ | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১১৯৫ বার পঠিত

  • প্রতিবছর গরম পড়লেই মানুষের খেয়াল হয় এবারের গরমটা যেন আগের বছরের থেকে অনেকটাই বেশি। তারপরেই চারিদিকে 'গাছ লাগান পরিবেশ বাঁচান"এর ধুম পড়ে যায়। খুব বেশি বৃষ্টি হলে বা বিশেষ শীত না পড়লে, নভেম্বর ডিসেম্বরে পাখা চালাতে হলেও পরিবেশের কথা খেয়াল হয় মানুষের। ভারতের প্রায় সবকটা মেট্রোসিটিতে ভারী বৃষ্টি ত বটেই এমনকি স্বাভাবিক বৃষ্টি হলেও রাস্তায় জল জমে শহর অচল হয়ে যায় অন্তত তিন চারদিনের জন্য। জল জমে থাকার একটা কারণ যেমন অপরিকল্পিত নগরায়ণ ও ছোটবড় জলাজমির বিলুপ্তি, তেমনি আর একটা অন্যতম প্রধান কারণ হল নর্দমা ও পয়ঃপ্রণালীগুলো জঞ্জালের ভারে বুজে আটকে যাওয়া। এই জঞ্জালের অধিকাংশই বিভিন্ন ধরণের প্ল্যাস্টিক বর্জ্য। আজ বরং প্ল্যাস্টিক নিয়ে বলি। রাস্তায় ঘাটে, যে কোনও পর্যটনকেন্দ্রে বড় ছোট যে কোনও গাছের গোড়ার দিকে লক্ষ করে দেখেছেন? দেখবেন নানারকম প্ল্যাস্টিকের মোড়ক, বোতল ইত্যাদি ছড়িয়ে রয়েছে। দীঘার সমুদ্রতীর থেকে সিটঙের কমলালেবুর বন পর্যন্ত সর্বত্র ছড়িয়ে আছে প্ল্যাস্টিক জঞ্জাল।

    এই ছড়িয়ে থাকা প্ল্যাস্টিক তো আমরা দেখতে পাই, কিন্তু আমাদের চোখের আড়ালে আরো অনেক বেশি পরিমাণ প্ল্যাস্টিক প্রতিদিন মিশে যাচ্ছে আমাদের খাবারে, আমাদের শরীরে, আমাদের পানীয় জলে। সমুদ্রে মোটামুটি ১৫০-২০০ মিলিয়ন টন প্ল্যাস্টিক বর্জ্য জমা হয়ে আছে আর এর সাথে প্রতি বছর যোগ হচ্ছে আরো অন্তত ৩৩ বিলিয়ন পাউন্ড প্ল্যাস্টিক বর্জ্য। বিভিন্ন আকার ও আকৃতির এইসব প্ল্যাস্টিকমন্ড খাদ্য ভেবে খেয়ে ফেলে সামুদ্রিক পাখী, মাছ ও অন্যান্য প্রাণী। আর স্রেফ এরই ফলে দশলক্ষ সামুদ্রিক পাখী আর একলক্ষ অন্যান্য প্রাণী প্রতি বছর মারা যায়। বর্তমানে প্রতিটি কাছিম শিশুর, আবারও বলছি ব্যতিক্রমহীনভাবে প্রতিটি কাছিম শিশুর পাকস্থলীতে প্ল্যাস্টিক থাকছে। গোটা পৃথিবীতে মহাসাগরের প্রতি বর্গ মাইলে ম্যাক্রো ও মাইক্রো প্ল্যাস্টিকের ৪৬০০০ টুকরো পাওয়া যায়। এই প্ল্যাস্টিককণাই কাঁকড়া , মাছের দেহে মিশে খাদ্যের সাথে, জল বাষ্পীভূত হলে আকাশে মেঘের সাথে মিশে বৃষ্টি হয়ে ঝরে, খাঁড়িপথে নদীর জলে মিশে পানীয় জলের সাথে ফিরে আসে মানবদেহে। মহাসাগরের তলদেশে ১১ কিলোমিটার গভীরে, পৃথিবীর সবচেয়ে প্রত্যন্ত প্রান্তেও প্ল্যাস্টিক দূষণের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

    এতক্ষণ যে প্ল্যাস্টিকের কথা বললাম, সে সব হল পুনর্ব্যবহৃত না হওয়া একবার ব্যবহারোপযোগী বা একবারী প্ল্যাস্টিক। যে কোনও প্ল্যাস্টিকই ক্ষতিকর, কিন্তু এই একবারী প্ল্যাস্টিক যেহেতু একবার ব্যবহারের পরেই ফেলে দেওয়া হয় ফলে পরিবেশে এর পরিমাণ ক্রমেই বেড়ে চলেছে। তরকারি, ফল, মাছ মাংস ইত্যাদি দোকান থেকে এরকম একবারী প্ল্যাস্টিকের ঠোঙাতেই দেয়। আমরাও অম্লানবদনে তরকারির খোসা, মাছের আঁশ, কাঁটা, মাংসের হাড়, আগেরদিনের বেঁচে যাওয়া তরকারি সব ঐ প্ল্যস্টিকের ঠোঙায় রেখে আচ্ছাসে টাইট করে মুখটা বেঁধে ফেলে দিই। এবারে রাস্তার ধারের ডাস্টবিন থেকে খাবারের গন্ধে গরু ছাগল কুকুর বেড়াল বিশেষত গবাদি পশুরা ঠোঙা টেনে খাবার চেষ্টা করে। ওদের তো আর আমাদের মত মুষ্ট্যাঙ্গুলি (Opposable Thumb) নেই, কাজেই দাঁতে টেনে ছিঁড়তে পারল তো ভাল, নাহলে ঐ ঠোঙাশুদ্ধই চিবিয়ে গিলে ফেলা। গরু ও ষাঁড়েরা যা পায় প্রথমেই গপ করে গিলে নেয় পরে জাবর কাটবে বলে, এদিকে প্ল্যাস্টিক মোটামুটি ওদের শরীরের ভেতরের খাদ্যনালী ও অন্ত্রে জড়িয়ে আটকে যায়। এই বিষয়ে সরকারি কোনও তথ্য পাওয়া না গেলেও বেসরকারিভাবে মাঝে মাঝে যে সব তথ্য আসে তাতে শিউরে উঠতে হয়। মার্চ-২০২১ এ ডেকান হেরাল্ডের এক রিপোর্টে দেখি যে একটি মৃত গাভীন গরুর পেটে ৭১ কেজি প্ল্যাস্টিক পাওয়া গিয়েছিল। কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ বোর্ডের হিসেব অনুযায়ী ভারতের ৬০টি শহর থেকে প্রতিদিন ১৫৩৪২ টন প্ল্যাস্টিক বর্জ্য উৎপন্ন হয় যার মধ্যে ৬০০০ টনের বেশি বর্জ্য অসংগৃহীত অবস্থায় এদিক ওদিক ছড়িয়ে থাকে।

    এই বিপুল পরিমাণ প্ল্যাস্টিক বর্জ্যের আবার পুরোটাই একবারী প্ল্যাস্টিক নয়, এর মধ্যে মিশে থাকে আরো নানা দৈনন্দিন ব্যবহার্য্য জিনিষও। যেমন ধরুন চা-ঐ যে ডিপ ডিপ টি ব্যাগগুলো, যেগুলো আজকাল ঘর বাড়ি অফিস কাছারি সব জায়গায় দেখা যায়, ঐগুলো কী দিয়ে তৈরি বলুন তো? ভাবছেন কাপড়? নাহ অতি সামান্য কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া ওগুলোর অধিকাংশই ফুডগ্রেড প্ল্যস্টিক মেশ, যাতে ৩০% - ৪০% প্ল্যাস্টিক থাকে। গরমজলে একবার ডোবালে একটা ব্যাগ ১১.৬ বিলিওন মাইক্রোপ্ল্যাস্টিক আর ৩.১ বিলিওন ন্যানোপ্ল্যাস্টিক খালাস করে। তারপর আমরা সেটা তৃপ্তিভরে খেয়ে নিই। সে খাওয়াও খাই একবারী নিক্ষেপোযোগী কাগজের কাপে। খেয়াল করেছেন কি এই কাগজের কাপগুলো হতে করে দুমড়ে মুচড়ে ফেলার চেষ্টা করলে এগুলো কখনো খবরের কাগজ বা অন্যান্য কাগজের মত পুরোটা গোল্লা পাকিয়ে যায় না। তার কারণ এই কাপগুলোর ভেতরে খুব পাতলা একটা প্ল্যাস্টিকের স্তর থাকে। নেচার পত্রিকায় প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী একটা ১০০ মিলিলিটারের কাপে গরমজল ১৫ মিনিট রাখলে এর প্ল্যাস্টিক স্তর থেকে ২৫০০০ সূক্ষ্ম প্ল্যাস্টিক কণা জলে মেশে। তাহলে টিব্যাগ ডুবিয়ে বানানো এক কাপ চা খাওয়ার সময় আমরা কি পরিমাণ প্ল্যাস্টিককণা গিলছি ভাবুন। একইভাবে কাগজের টেট্রাপ্যাক, যেগুলোতে দুধ, ফলের রস লস্যি ঘোল ইত্যাদি বিক্রি হয়, সেগুলো থেকে সূক্ষ্ম প্ল্যাস্টিক কণা ভেতরের তরলে মেশে এবং আমাদের পেটে যায়।

    আর একটা ন্যানো ও মাইক্রোপ্ল্যাস্টিকের উৎস হল সিগারেটের অবশিষ্টাংশ। সিগারেটের ফিল্টার তৈরি হয় বিষাক্ত প্ল্যাস্টিক দিয়ে। একটা সিগারেটের অবশিষ্টাংশ মোটামুটি ০.২ গ্রাম ওজনের হয় আর এটা সম্পূর্ণভাবে পরিবেশে মিশতে সময় লাগে ১০ বছরের কিছু বেশি। ততদিন এরা ধীরে ধীরে পরিবেশে মাইক্রোপ্ল্যাস্টিক মুক্ত করে। পৃথিবীতে প্রতি বছর আনুমানিক ৪.৫ ট্রিলিওন অবশিষ্টাংশ ফেলা হয়। এরপরে আসি চ্যুইং গামের কথায়। এটা বোধহয় একমাত্র চিবানোর উপযোগী জিনিষ যেটা তৈরিই হয় মূলত প্ল্যাস্টিক দিয়ে। যদিও চ্যুইং গামে প্ল্যাস্টিকের পরিমাণ ১-২% এর মত, কিন্তু প্রতি বছর পৃথিবীতে প্রায় ২,৫০,০০০ টনের মত বর্জ্য উৎপন্ন করে এই গাম। আর এর ৮০-৯০% বর্জ্যই ঠিকভাবে পরিত্যাগ করা হয় না। অতি অল্পসংখ্যক কোম্পানি আছে যারা প্ল্যাস্টিক ছাড়া গাম বানায়, একটু খেয়াল করে তাদের গাম কেনা নিজের শরীর আর পৃথিবী পরিবেশ দুইয়ের জন্যই ভাল। আর যে কটা দৈনন্দিন বহুল ব্যবহৃত জিনিষ প্রচুর প্ল্যাস্টিক দূষণ ঘটায় সেগুলো হল ডায়াপার, স্যানিটারি ন্যাপকিন আর ওয়েট ওয়াইপ বা অল্প ভিজে মুখ মোছার টিস্যু এবং টয়লেট টিস্যু। এছাড়া করোনাকালে আরেকটা জিনিষের ব্যবহার প্ল্যাস্টিক দূষণের মাত্রা বাড়িয়েছে সেটা হল সার্জিকাল মাস্ক। এই সবকটাই আমরা যেমন তেমন করে ডাস্টবিনে ফেলে দিই বা বড়জোর একবারী প্ল্যাস্টিকে ঠোঙায় ভরে ভাল করে বেঁধে ফেলি।

    তো, এইভাবে ফেলার পরে হয় সেগুলো রাস্তায় ঘাটে, নদী, জলাশয় বা সমুদ্রের ধারে জমা হয়ে থেকে ধীরে ধীরে মাইক্রো ও ন্যানোপ্ল্যাস্টিক পরিবেশে মুক্ত করতে থাকে আর নয়ত বিভিন্ন ভাগাড়ে যায়। দুইক্ষেত্রেই ফল একই। ঘুরেফিরে আমাদের মানে যাবতীয় প্রাণীকুলের শ্বাসনালী, খাদ্যনালী, পাকস্থলী ও ফুসফুসেই এসে বাসা বাঁধে এই প্ল্যাস্টিককণারা। এবারে কথা হল তাহলে কি আমরা যাবতীয় প্ল্যাস্টিক ব্যবহার বাদ দেব আমাদের জীবন থেকে? না সেটা আমরা চাইলেও পারব না। প্ল্যাস্টিক অত্যন্ত হালকা, দামে কম এবং সহজে নষ্ট হয় না বলেই এর ব্যবহার অর্থনৈতিকভাবে সহায়ক। দীর্ঘস্থায়ী ব্যবহার এবং পুনর্ব্যবহারোপযোগী করার মাধ্যমে এর ক্ষতিকর প্রভাব অনেকাংশে কমানো সম্ভব। একবারী প্ল্যাস্টিকের ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ হওয়া উচিৎ। তবে ঔচিত্যে আর আসল কাজে অনেক তফাৎ। কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে একবারী প্ল্যাস্টিক সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু তা কাজে পরিণত করার দায়িত্ব বিভিন্ন রাজ্যের। আবার একবারী প্ল্যাস্টিক ব্যবহার করলে কী কী শাস্তি হতে পারে সরকারের তরফে তার কোনও স্পষ্ট নির্দেশিকা নেই। এছাড়া বিভিন্ন ক্ষেত্রে একবারী প্ল্যাস্টিকের বিকল্প কী কী হতে পারে সেই নিয়েও পরিষ্কার নির্দেশিকা নেই। জনগণের মধ্যে এই বিষয়ে সচেতনতা তৈরির চেষ্টাও যৎসামান্য। ফলে অতি ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বা ক্ষুদ্রচাষীদের পক্ষে অনেক সময়ই এর ব্যবহার এড়ানো সম্ভব হয় না।

    সরকারের তরফে যা যা করা উচিৎ তার অনেকটাই করা হচ্ছে না, বিভিন্ন রাজ্য সরকারের মধ্যে এই বিষয়ে সচেতনতাও বিভিন্ন স্তরের। ফলে সিকিম সম্পূর্ণ প্ল্যাস্টিকমুক্ত হলেও পাশের রাজ্য পশ্চিমবঙ্গের প্ল্যস্টিক দূষণের পরিমাণ উদ্বেগজনক। বিসলেরি জাতীয় জলের বোতল, বিরিয়ানি , মাটন কষার কৌটো ইত্যাদি একবার ব্যবহার্য্য প্ল্যাস্টিক দিয়ে তৈরি। ভাবছেন আপনি তো নিয়মনিষ্ঠ মানুষ, জল খেয়ে বোতলটা দুমড়ে মুচড়ে ফেলে দেন যাতে আর কেউ ব্যবহার করতে না পারে। উঁহু আপনি ফেলে দিলেও সে বোতল কিন্তু মাটির সাথে মিশে যায় না। আস্তে আ-আ-আস্তে মাইক্রোপ্ল্যাস্টিক আর ন্যানোপ্ল্যাস্টিক মুক্ত করতে থাকে, সেসব গিয়ে মেশে নর্দমার জলে। ক্রমে চলে যায় হ্রদে, নদীতে, সমুদ্রে। হ্রদ বা নদীর জল ফিল্টার হয়ে পৌরসভার পাইপ বেয়ে চলে আসে আমার আপনার বাড়ির অ্যাকোয়াগার্ড কিম্বা RO ফিল্টারে। বাহ চমৎকার পরিচ্ছন্ন পানীয় জল ভেবে আমি আপনি ঢকঢক করে খেয়ে ফেলি। এইভাবে বিভিন্ন উৎস থেকে মাইক্রোপ্ল্যাস্টিক আর ন্যানোপ্ল্যাস্টিক গিয়ে জমা হয় আমাদের শরীরে। প্রতিদিন আমরা একটা ক্রেডিট কার্ডের সাইজের (৫ গ্রামের মত) প্ল্যাস্টিক খেয়ে ফেলি। তো বুদ্ধিমান মানুষ প্রচুর বুদ্ধি খাটিয়ে প্ল্যাস্টিকের পাহাড় জমা করছে নিজের শরীরে আর বুদ্ধিহীন গরু ছাগল বা তিমি হাঙর সরাসরিই গিলে নিচ্ছে টন কে টন প্ল্যাস্টিক।


    কাশিদ সৈকতে জমা প্ল্যাস্টিক বর্জ্য


    তা এই গপাগপ প্ল্যাস্টিক গেলা ঠ্যাকানোর কি কোনই উপায় নেই? আমরা সাধারণ মানুষ কি কিছুই করতে পারি না? হ্যাঁ অবশ্যই পারি বৈকি, তবে একটু কষ্টসাধ্য। আমরা যদি আমাদের জীবনযাপনের কিছু অভ্যাস পরিবর্তন করি তাহলে সামান্য হলেও প্ল্যাস্টিক গেলা কমিয়ে আনা যায় অনেকটাই। তবে পুরোটা বন্ধ করা যায় না। প্ল্যাস্টিকের জলের বোতলের বদলে স্টিলের বা কাচের বোতল ব্যবহার, প্ল্যাস্টিকের কাপ বা কাগজের কাপের বদলে বাইরে প্ল্যাস্টিক ভেতরে স্টিল দেওয়া কাপ,সেরামিক, পোরসিলেন কিম্বা এনামেলের কাপ ব্যবহার, বাজার দোকানে যাবার সময় নিজের কাপড়ের বা চটের ব্যাগ সঙ্গে নিয়ে যাওয়া ইত্যাদি খুবই সহজ কিছু অভ্যেস করলেই প্ল্যাস্টিক গেলার পরিমাণ কমানো যাবে। প্ল্যাস্টিক বর্জ্য দিয়ে জ্বালানী, বাড়ি বা রাস্তা তৈরির ইট, কাচের মত স্বচ্ছ/ অর্ধস্বচ্ছ জানলা দরজার পাল্লা ইত্যাদি তৈরি হয়। মহারাষ্ট্রের বেশ কিছু এলাকায় প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনায় তৈরি বাড়িগুলোতে এই ধরণের জানলা দরজার পাল্লা ব্যবহার হয়। একটা নিয়মিত সরকারি চাহিদা থাকার ফলে প্ল্যাস্টিক বর্জ্য সংগ্রহ ও পুনর্ব্যবহারে উৎসাহ বাড়ছে।

    কাজেই দৈনন্দিন বর্জ্যের সাথে ডাস্টবিনে না ফেলে প্রত্যেক বাড়িতে প্ল্যাস্টিক বর্জ্য জমিয়ে রেখে এক একটা হাউসিং /পাড়া /এলাকা ধরে বিভিন্ন সংস্থা যারা প্ল্যাস্টিক বর্জ্য পুনর্ব্যবহারযোগ্য কিছু বানায় তাদের সাথে যোগাযোগ করে নিজ নিজ এলাকা থেকে একটা নির্দিষ্ট সময় অন্তর প্ল্যাস্টিক বর্জ্য সংগ্রহের ব্যবস্থা করতে পারলে সেটি নিজ হাউসিং /পাড়া /এলাকার জন্য একটা আয়ের উৎস হয়ে উঠবে। দীর্ঘস্থায়ী বর্জ্যজনিত দূষণ এড়ানোর সাথে সাথে অপেক্ষাকৃত কম দামে জ্বালানি বা ইট পাওয়া সম্ভব হবে। এরকম সংস্থা সব রাজ্যেই গড়ে উঠুক, গড়ে উঠুক আরো বেশি সংখ্যায়। শেষ করার আগে একটা পরিবেশবান্ধব জীবাণুনাশক তরল পরিষ্কারক বানানোর পদ্ধতি লিখে দিই, যাতে যে কেউ খুব সহজেই বাড়িতে বানিয়ে ব্যবহার করতে পারেন। এতে প্রতিমাসে ফিনাইল, মেঝে পরিষ্কারক ইত্যাদি কিনে একগাদা প্ল্যাস্টিকের বোতল জমা হবে না বাড়িতে, এবং ঘরবাড়ি পরিষ্কার করতে বিষাক্ত রাসায়নিক তরল ব্যবহার করতেও হবে না। এই তরল দিয়ে বাড়ীর যাবতীয় সাফ সাফাই করা যাবে। ঘর রান্নাঘরের সাথে সাথে বেসিন বা কমোডও পরিষ্কার হবে।

    তাহলে আসুন শুরু করা যাক।

    পরিবেশবান্ধব জীবাণুনাশক পরিষ্কারক তরল – ৬০-৭০-৮০-৯০ নিয়মে বানানো

    উপকরণ হিসেবে লাগবে

    ১) একটা প্ল্যাস্টিকের বড় বাতাসনিরোধক বোতল বা কৌটো। ওই ওটমিল বা মিউজলির যে বড় কৌটো পাওয়া যায় ওইরকম।
    ২) এককিলোর সামান্য কমবেশি আখের শক্ত গুড় বা ভেলিগুড়।
    ৩) বিভিন্নরকম ফল ও তরকারীর খোসা ও ফেলে দেবার মত শাঁস অর্থাৎ যে যে অংশ খাদ্য নয় সেই সব অংশ।
    ৪) জল

    পদ্ধতি

    ক) প্রথমে প্ল্যাস্টিকের বোতল /কৌটোর গা বরাবর লম্বার দিকে ঠিক মাঝামাঝি একটা কালো দাগ দিয়ে নিন। এমনভাবে দেবেন যেন দাগের উপরে ও নীচে ৫০-৫০ ভাগ হয়। এবারে নীচের অর্ধেক অর্থাৎ ৫০ ভাগ অংশ ছেড়ে দিয়ে উপরের অর্ধেককে সমান ৫ ভাগে ভাগ করে দাগ দিয়ে নিন। তাহলে ৬০, ৭০, ৮০, ৯০তে দাগ পড়বে আর ১০০ মানে কৌটোর গলা।
    খ) এবারে নীচের অর্ধেক অংশে পরিষ্কার জল ভরে নিন। কৌটোর ৫০ ভাগ জলে ভর্তি হয়ে গেল। ধীরে ধীরে আর একটু জল ঢেলে ৬০ এর দাগ অবধি জল ভরে নিন। ৬০% এর মত জল লাগবে।
    গ) গুড়টা একটু ভেঙে নিয়ে কৌটোতে জলের মধ্যে ফেলতে থাকুন। গুড় ফেললে জলের উচ্চতা বাড়বে। বেড়ে বেড়ে যখন ৭০ ভাগের দাগে আসবে তখন গুড় ফেলা বন্ধ করুন।
    ঘ) ফল ও তরকারির খোসা, শাঁস ছোট টুকরো করে নিয়ে ওই কৌটোয় ফেলতে হবে। জলের উচ্চতা বেড়ে ৮০র দাগে এলে খোসা ফেলা বন্ধ করুন। বাকী ২০% জায়গা খালি থাকবে। কৌটোর মুখ বন্ধ করে দিন।
    ঙ) এই বন্ধ কৌটো এবারে মোটামুটি আলো বাতাস আসে এরকম একটা কোণায় বসিয়ে রেখে দিন। প্রতিদিন একবার করে কৌটোর ঢাকনা খুলে আবার বন্ধ করে দেবেন। এইভাবে ৯০ দিন রাখতে হবে। প্রথম এক থেকে দেড়মাস প্রতিদিনই খুলতে হবে পচনের ফলে জমা গ্যাস বের করে দেবার জন্য। পরের দিকে আর অত গ্যাস হয় না এবং ক্রমে একদমই কমে আসে।
    চ) ৯০ দিন পরে কৌটো খুলে একটা পরিষ্কার কাপড়ে বা লোহার ছাঁকনিতে ছেঁকে তরলটা প্রয়োজনমত আলাদা শিশিতে ভরে রাখুন। পচে যাওয়া ফল তরকারির খোসার অবশেষ বাড়িতে যদি কম্পোস্ট বানানোর ব্যবস্থা থাকে তাহলে তার মধ্যে দিয়ে দিন। নাহলে বাগানে বা টবে গাছের মূল শেকড়ের থেকে একটু দূরে মাটির মধ্যে দিয়ে মাটি চাপা দিয়ে দিন। গাছের পুষ্টি যোগাবে।

    এখানে বলে রাখি প্রথমতঃ আপনার বাড়িতে যদি পোকামাকড়ের উৎপাত বেশি হয় তাহলে কাঁচালঙ্কা, শুকনো লঙ্কা, রসুন আর লেবুজাতীয় ফলের খোসা বেশি পরিমাণে দেবেন। পরিষ্কারক তৈরি হয়ে গেলে একবালতি ঘরমোছার জলে ৩-৫ মিলিলিটার মত তরল মিশিয়ে প্রতিদিন মুছলে আরশোলা মাকড়সা পিঁপড়ে আপনার ঘর ছেড়ে পালাবে। পোকার তেমন উৎপাত না থাকলে যে ফল বা তরকারির গন্ধ আপনার ভাল লাগে সেই খোসা বেশি করে দেবেন। আনারসের খোসা বেশি করে দিলে আনারসগন্ধী তরল পাবেন। আর কৌটোটা যেন অবশ্যই প্ল্যাস্টিকের হয়। দ্বিতীয়ত প্রতিদিন কৌটোর ঢাকনা খোলাটা জরুরী। নাহলে উৎপন্ন গ্যাস জমে গিয়ে তরলে দুর্গন্ধ হবে, বেশি জমে গেলে গ্যাসের চাপে কোটোর মুখ ফাটিয়ে তরল বেরিয়ে আসতে পারে। এই ৯০ দিন চেষ্টা করবেন কৌটোকে বেশি নাড়াচাড়া না করার। পরিষ্কারক তৈরি হয়েছে কিনা বোঝার জন্য ঢাকনা খুলে উপরের তরলে একটা কাপড় সাবধানে ভিজিয়ে নিয়ে রান্নাঘরের দেওয়াল বা সিঙ্কের পাশে ঘষে যদি দেখেন নোংরা, তেল ইত্যাদি উঠে যাচ্ছে, তাহলে বুঝবেন আপনার পরিষ্কারক তৈরি।

    ব্যসস একবার হয়ে গেলে একদিকে যেমন দামী ফিনাইল ক্লিনার কেনার খরচ বেঁচে যাবে, রাসায়নিক দূষণ থেকে বাড়িটা বাঁচবে, অন্যদিকে তেমনি কিছুই প্রায় ফেলা যাবে না, সব বর্জ্যই কোন না কোন কাজে লেগেই যাবে।

    কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্যসূত্র:-

    https://www.nature.com/articles/nindia.2020.173

    https://www.condorferries.co.uk/plastic-in-the-ocean-statistics#:~:text=There%20is%20an%20estimated%2075,their%20way%20into%20our%20oceans.

    https://www.nationalgeographic.com/environment/article/global-treaty-to-regulate-plastic-pollution-gains-momentum

    https://kids.nationalgeographic.com/nature/kids-vs-plastic/article/pollution-1

    https://www.teriin.org/sites/default/files/files/factsheet.pdf


    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক।
  • আলোচনা | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ১১৯৫ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১৯:০৭523577
  • এটা ভুল লেখা। এর একটা আপডেটেড ভার্সান পাঠিতেছিলাম ৩সেপ্টেম্বর। সেটা দয়া করে আপলোড করলে ভাল হয়।
  • kk | 2607:fb91:14ae:1001:1994:f98c:6ccb:65dc | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১৯:১৩523578
  • খুব দরকারি লেখা। এই তথ্যগুলো পড়লে খুব মনখারাপ হয়, ভয়ও লাগে। আমি একবার স্কুবা ডাইভিং করতে গেছিলাম। একটা কচ্ছপ দেখেছিলাম যার খোলার ওপরে রঙীন ছোপছোপ কিছু লেগে রয়েছিলো। পরে ইন্স্ট্রাকটার বললেন যে ওগুলো বেলুনের টুকরো। লোকে পার্টির শেষে যে গারবেজ ডাম্প করে তাও সমুদ্রে এসে পড়ে। সেখান থেকেই এগুলো এসে সী-লাইফে এভাবে বিপদ ঘটাচ্ছে। আমাদের বাড়িতে আমরা প্লাস্টিকের তৈরী ব্যাগ বা কন্টেনার সবই সম্বন্ধে "রিডিউস-রিইউজ-রিসাইকল" পন্থা মেনে চলতে চেষ্টা করি। অবশ্য রিসাইকলও তো শুনি আসলে অনেকটাই ফক্কিকারি। মোট জমা পড়া প্লাস্টিকের মাত্র ৯% আসলে রিসাইকল করা হয়।
    শেষের পরিষ্কারক তরল বানানোর পদ্ধতি দেওয়াটা খুব ভালো লাগলো। অনেকে এখন এই নিয়ে ভালো কাজ করছেন। সেটা আশার ব্যাপার।
  • | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২০:৩৫523583
  • রোবটদের একগাদা ধন্যবাদ আপডেট করে দেবার জন্য। 
     
    কেকে, 
    কচ্ছপ না কাছিম? মানে টরটয়েজ না টার্টল? স্কুবা করতে গিয়ে টার্টল দেখার সম্ভাবনা বেশী মনে হয়। 
     
    হ্যাঁ রিসাইকলড প্ল্যাস্টিকের পরিমাণ পরিত্যাজ্য প্ল্যাস্টিকের তুলনায় সামান্যই। আবার অনেকসময় রিসাইক্লেবল জিনিষও প্ল্যাস্টিকের  সাথে মিশে থাকায় রিসাইকল করা যায় না। যেমন শনি রবিবারে নদীর ধারে প্ল্যাস্টিক কুড়াতে গিয়ে দেখেছি লোকে মদের বোতল ভেঙে প্ল্যাস্টিকের বোতলে গেঁথে দিয়ে সেটা আবার মাটিতে গেঁথে দেয়। এমনিতে কাচ তো রিসাইক্লেবল, কিন্তু প্ল্যাস্টিকের সাথে এমনভাবে আটকে যায় যে ও আর কিচ্ছু করা যায় না, প্ল্যাস্টিকবর্জ্য হিসেবেই চালান যায়।
  • kk | 2607:fb91:14ae:1001:9ff2:1c71:9223:a280 | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২০:৪৫523584
  • হ্যাঁ টার্টল, টার্টল। আমি জানতাম না এর বাংলা কাছিম। ভেবেছিলাম কচ্ছপ আর কাছিম একই জিনিষ।
  • প্রতিভা | 2401:4900:706a:cef8:ed06:cd41:e5e1:4f45 | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২১:৩৪523594
  • ভুল লেখা কেন? 
  • রমিত চট্টোপাধ্যায় | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২১:৫৭523604
  • প্লাস্টিক এতই ভয়ংকর কিন্তু এতই সস্তা যে এর মতো বিপজ্জনক কম্বিনেশন খুব কম আছে। কাছিমের পেটে তো বটেই, সদ্যজাত মানব শিশুর হৃৎপিণ্ডেও ন্যানো প্লাস্টিক মিলছে আজকাল। ভয়াবহ ব্যাপার স্যাপার। আরো বেশি মানুষের দ্রুত বোধোদয় হোক, এটাই চাওয়া। 
    প্লাস্টিক পোড়াতে নিষেধ করে যদিও কিন্তু জাপানে
  • রমিত চট্টোপাধ্যায় | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২২:০১523605
  • হ্যাং করে গিয়েছিল।
     
    জাপানে চুল্লিতে প্রচন্ড উচ্চ তাপমাত্রায় প্লাস্টিক বর্জ্য পুড়িয়ে ফেলা হয়। আর বিষাক্ত গ্যাসও ফিল্টার করে বাতাসে ছাড়ে। ফলে দূষণ ছড়ায় না একদমই। আমাদের মতো দেশে প্লাস্টিক বর্জ্য ঝাড়াই বাছাই করা মুশকিল। তাই এরকম চুল্লি সিস্টেমটা হয়তো কার্যকরী হতে পারে। আমি খুঁজে পেল ইয়ু টিউব ভিডিওটার লিংক দেওয়ার চেষ্টা করছি।
  • dc | 2401:4900:1cd1:a15d:6820:354d:a76e:f615 | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২২:০২523606
  • খুব ভালো লেখা, বিশেষত ন্যানো প্লাস্টিক নিয়ে লেখা খুবই দরকারি। আর ক্লিনিং ফ্লুইড বানানোর পদ্ধতিটাও ইন্টারেস্টিং। বানানোর চেষ্টা করে দেখবো। 
  • রমিত চট্টোপাধ্যায় | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২২:০৪523608
  • হ্যাঁ ওটা বানিয়ে দেখার চেষ্টা করব। খুব ভালো লেখা।
  • রমিত চট্টোপাধ্যায় | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২২:০৭523612
  • কিছুটা ঝাড়াই বাছাই এই সিস্টেমেও লাগে। কিন্তু মাটিতে ডাম্প করার থেকে ভালো উপায়।
     
  • xor | 182.69.178.226 | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২৩:৪৯523625
  • বাঃ yes
  • যোষিতা | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০১:২২523630
  • tea bag মনে হচ্ছে কাগজের হয়। চাপ দিলেই ছিঁড়ে যায়। 
    প্লাসটিকের হলে ওর সঙ্গে গরম জল মিশবে কেমন করে? ওগুলো বায়োডিগ্রেডেবল।
    তবে সব কোম্পানি এরকম করছে কিনা জানি না। লিপটন, ইউনিলিভার, আর্ল গ্রে, এদের টিব্যাগ গুলো মোটামুটি ভাল।
    প্লাসটিকের প্যাকেট সর্বত্র। 
    কোলকাতায় দুধের প্যাকেট শুরু করেছিল মাদার ডেয়ারি। তার আগে হরিণঘাটার দুধ কাচের বোতলে দিত। এখন দইও নাকি প্লাসটিকে ভরে বিক্রি হয়।
  • ইন্দ্রাণী | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৮:৩৯523635
  • আমার ঐ পরিবেশবান্ধব তরল তৈরি নিয়ে কিছু সংশয় রয়েছে- মানে প্রডাক্ট, প্রসেস, সেফটি সব নিয়েই।

    যেহেতু কোনো পিওর কালচার ব্যবহার করা হচ্ছে না, টেম্পারেচর, পিএইচ মাপা হচ্ছে না, কার্বন সোর্স ও রয়েছে প্রচুর পরিমাণে, আদতে কী তৈরি হচ্ছে, কাইনেটিক্স ইত্যাদি তা কী করে জানা যাচ্ছে? মানে প্রডাক্ট টা এনজাইম শুধুই না তার সঙ্গে খানিক অ্যালকোহল, খানিক ল্যাকটিক অ্যাসিড, কিছু অরগানিক অ্যাসিড? কিছু টক্সিক বস্তু তৈরি হচ্ছে কী না কী করে জানব? কাইনেটিক্সেও কনট্রোল নেই , ফলে যে গ্যাস ( কার্বন ডাই অক্সাইড মূলত হয়তো, এখানে অন্য গ্যাস তৈরি হচ্ছে কে না জানা নেই) তৈরি হবে তা দিনে একবারই বের করে দিলেই হবে, তা কি নিশ্চিত বলা যায়? কোনো কারণে খুব গরমের দিনে, রিয়াকশন দ্রুত হলে গ্যাস তৈরি অনেক দ্রুত হবে, ফলে ২০% হেডস্পেস সত্ত্বেও হয়তো সামাল দেওয়া যাবে না।

    এব্যতীত, যে সেট আপের কথা হচ্ছে, সেখানে একটি গামলা জাতীয় সেকন্ডারি কনটেনমেন্ট বাঞ্ছনীয়, যার মধ্যে ঐ প্লাস্টিকের বোতলটি বসাতে হবে। যাতে কোনো স্পিল, লিক ইত্যাদি গামলার মধ্যে পড়ে।
    এছাড়া গোটা সেট আপ চাইল্ড সেফ করতে হবে।
    প্লাস্টিকের বোতলটিও ওয়াইড মাউথ হওয়া প্রয়োজন। ছিপিটিও খুব শক্ত করে লাগানো চলবে না।
    আর ঐ গ্যাস বের করে দেওয়ার সময় যেন ঘরটিতে বারান্দায় যথেষ্ট হাওয়া চলাচলের ব্যবস্থা থাকে।
    তরলটি ব্যবহারের আগে হাতে গ্লাভস পরে নেওয়া প্রয়োজন।

    টিফিনবেলায় অতি দ্রুত যা মাথায় এল লিখলাম।

     
  • ইন্দ্রাণী | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৮:৪৪523638
  • এমনিতে লো পিএইচ হলে, কারবন সোর্স লিমিটেড হলে, আর সাইট্রাস পীলের এসেন্শিয়াল অয়েলের ইত্যাদির উপস্থিতিতে কন্টামিনেশন কম হওয়ারই কথা। কিন্তু সেই সবের ওপর একটা কন্ট্রোল থাকা তো দরকার। বা কিছু টেস্টিং
  • plastic | 117.194.65.106 | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৮:৪৬523639
  • শুধু  দই ? ওষুধের শিশি, সর্ষে-ছোলা-ময়দা-আটা-চিনি-নুন -এর  প্যাকেট , টুথপেস্টের টিউব সবই প্লাস্টিকের। ক্যারি ব্যাগ তো তুশ্চু  মশায়। 
    বহুদিন আগে পিনাকি বোধ হয় লিখেছিলেন এই নিয়েই। এই যে বড় গুণ, শস্তায় সম্পূর্ণ জলনিরোধক , পোকামাকড় নিরোধক, শুকনো জিনিস বহুদিন ভালো থাকবে, এর সাবস্টিটিউট পাওয়া শক্ত । 
     
  • | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ০৯:২২523641
  • @ ইব্দ্রাণী, 
    হ্যাঁ চওড়া মুখ হওয়া বাঞ্চ্ছনীয়। ওইজন্য  মিউজলি বা ওটমিলের কৌটো বলেছি। তবে সরু মুখের শিশিতে হয় না তা নয়, হয় তবে খুব খেয়াল রাখতে হয় যাতে উপছে বেরিয়ে না আসে।  চওড়ামুখের কৌটোয় ওই যে ২০% জায়গা খালি আর প্রতিদিন একবার করে ঢাকনা খুলে গ্যাস বের করে দেওয়া ওতেই  কাজ চলে যায় স্পিলেজ হয় না। 
    ঈথানল তৈরী হয় ওইজন্যই গুড় দেওয়া। ছেঁকে নেবার পরে ইথানলের হালকা গন্ধ থাকে।  আমার আনারসের গব্ধ ভাল লাগে বলে আমি আনারসের খোসা পাল্প মাঝের ডান্ডাটা কেটে কেটে বেশী করে দিই। রসুন লঙ্কা লেবু দিয়ে বানালে ঝাঁঝালো গন্ধ হয়। পোকামাকড়ও ঝটপট বিদেয় হয়। 
    টেস্টিং কিছু এই মেথড নিয়ে হয়েছে কিনা জানি না। বাড়িতে কম্পোস্ট সার বানানোর জন্য প্রায় সিমিলার পদ্ধতি (- গুড়) অনুসরণ করা হয় এবং বহুকাল ধরে হয়। এবার তারও কোন ট্রায়েড এন্ড টেস্টেড ল্যাবরেটরি মেথড আছে কি? এই ক্লিনার নিজের বাড়ির জন্য। ব্যোতলজাত করে বাজারে বিক্রি করতে গেলে নিশ্চয়ই সেফটি টেস্ট ইত্যাদি করতে হবে।  
  • ইন্দ্রাণী | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১৩:০২523651
  • প্রিয় দ,
    আমার এখনও খটকা, সংশয় রয়েছে।
    বাইরে থেকে ঈস্ট অ্যাড করছি না। ধরে নিচ্ছি ন্যাচারালি অকারিং ঈস্ট এই কাজ হবে।
    যেহেতু পিএইচ, শুরুতে অক্সিজেনের মাত্রা কিছুই জানা নেই, গুড়ের পরিমাণও এদিক ওদিক হতে পারে ( যেহেতু অ্যাডিশন ভলিউম বেসড) অনেক কিছুই হতে পারে মনে হয়।

    কম্পোস্টিং ওপেন সিস্টেম আর এটা ক্লোসড / আইসোলেটেড সিস্টেম, তদুপরি কম্পোস্টিংএ গুড় নেই।

    যাই হোক, তর্ক করার জন্য বলছি না, সেফটির জন্য বলছি, সম্ভব হলে প্রডাক্ট টেস্ট করিয়ে নিতে। সেই মতো অনুপাত গুলি ঠিক করা।

    লেখার উদ্দেশ্য, ভাষার চলন কে সাধুবাদ। এ নিয়ে কথা নেই।
    আমার সংশয় অন্যখানে। সেইটি জানিয়ে রাখলাম।
  • | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ১৩:০৭523652
  • হ্যাঁ না না সেটা বুঝেছি। আমাদের যাঁরা শিখিয়েছেন তাঁদের সাথে পরেরবার দেখা হলে জিজ্ঞাসা করে নেবো। আমি বার ​​​​​​​দুয়েক ​​​​​​​বানিয়েছি। 
     
    না কম্পোস্ট ওপেন নয়, মাটি চাপা দিয়ে রাখা হয়। এখন যে ফ্ল্যাটে বানাবার বড় ড্রাম পাওয়া যায় তাতেও ঢাকনা থাকে। এবং বেদম বাজে গন্ধ বেরোয়। এখানে হাউসিং সোসাইটিগুলো সব বাড়ির ওয়েট গার্বেজ কালেক্ট করে নিজেদের কম্পোস্ট পিটে জমা করে, মোটামুটি ভরে গেলে চাপা দিয়ে রাখে তিনমাসের মত। তারপরে বের করে বাগানে দেয় আবার প্যাকেট করে লোককে বিক্রিও করে। 
  • মোহাম্মদ কাজী মামুন | ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ২২:১৭523668
  • ''সে খাওয়াও খাই একবারী নিক্ষেপোযোগী কাগজের কাপে। খেয়াল করেছেন কি এই কাগজের কাপগুলো হতে করে দুমড়ে মুচড়ে ফেলার চেষ্টা করলে এগুলো কখনো খবরের কাগজ বা অন্যান্য কাগজের মত পুরোটা গোল্লা পাকিয়ে যায় না'' 
    খুব দরকারী লেখা। প্রয়োজনীয় তথ্য। দুঃখজনক হলেও সত্যি,প্লাস্টিক শিল্প বিকশিত হচ্ছে দিকে দিকে। 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঝপাঝপ প্রতিক্রিয়া দিন