• বুলবুলভাজা  ধারাবাহিক  খেলা  শনিবারবেলা

  • অলিম্পিকঃ সাতটি তারার তিমির

    মিঠুন ভৌমিক
    ধারাবাহিক | খেলা | ২১ আগস্ট ২০২১ | ৮২৭ বার পঠিত


  • সদ্যসমাপ্ত টোকিও অলিম্পিকে ভারতের খেলোয়াড়েরা কিছু মেডেল জেতার পর ব্যাপক হইচই হয়েছে। যথারীতি এতে জাতীয়তাবাদী রং লেগেছে কোথাও কোথাও। নরেন্দ্র মোদীর আমলেই এখন পর্যন্ত সবথেকে বেশি, সাতটি পদক আসায় কেউ কেউ স্বাভাবিকভাবেই ক্ষুন্ন হয়েছেন, কারণ বর্তমান বিজেপি সরকার যে কোন ভাবে অন্যের কৃতিত্ব নিজের গায়ে জড়িয়ে নেওয়ায় বিশেষ দক্ষতা দেখিয়ে এসেছে । যদিও সংখ্যা হিসেবে সাত খুবই কম, বিশেষ করে ভারতের জনসংখ্যা বিচার করলে, এবং এই নিয়ে কোন কোন বিদেশী মিডিয়ায় লেখাপত্রও বেরিয়েছে। এরই মধ্যে ড্যাং ড্যাং করে স্বাধীনতার ৭৫ বছর এসে গেল। সব মিলিয়ে হাইপ তুঙ্গে।

    তো, কথা হচ্ছে, যে কোন হইচই এরই কিছু ভালো দিক আছে। তার একটা হলো, হইচই হলে ধুলো ওড়ে, বিস্তর লোকে স্বল্পকালীন খোঁজখবর রাখতে শুরু করে। আমরা অল্প সময়ের জন্য স্বাভাবিকত্বের স্বাদ পাই। এই যেমন গল্ফে অদিতি অশোক অসামান্য খেলে, বেশিরভাগ সময় দুই বা তিন নম্বরে থেকে শেষ পর্যন্ত যখন অল্পের জন্য ব্রোন্জ হারালেন, ধারাভাষ্যকার বললেন, "ভারতে এক বা দুদিনের জন্য গল্ফ ক্রিকেটকে জনপ্রিয়তায় পাল্লা দেবে"। অন্য বহু দেশেই জনপ্রিয়তার এই ওঠানামা সম্বচ্ছর চলে। ভারতে হয় শুধু অলিম্পিকে কেউ পদক জিতলে। হইচইয়ের আরেকটা ভালো দিক হলো, এই সুবাদে কিছু পুরনো পাপ বেরিয়ে পড়ে। ভারতের খেলাধুলোর ইতিহাস ক্যাকটাসের মত কণ্টকাকীর্ণ, যেখানে আমলাতন্ত্রের অপদার্থতা ও দুর্নীতির কাঁটা বাদ দিলে সেখানে শুধু পড়ে থাকে দীর্ঘশ্বাস।

    বর্তমান ভারতীয় মিডিয়ার কেঁচো খুঁড়ে ভগবানের নিদ্রায় ব্যাঘাত ঘটানোর কোন ইচ্ছা না থাকলেও, বিদেশি মিডিয়ায় এইসব নিয়ে কিঞ্চিৎ লেখালেখি হচ্ছে। আমরা, আর কিছু না, শিক্ষামূলক উদ্দেশ্যেই সেইসব পোস্টমর্টেম রিপোর্টে চোখ রাখতে পারি। প্রায় সমস্ত প্রতিবেদনেই যেমন দেখা যাচ্ছে সরকারী বিনিয়োগের অভাব একটা বড় কারণ। বিবিসি, ফার্স্ট পোস্ট, নিউ ইয়র্ক টাইম্স থেকে চীনের সরকারি (আর কোনরকমই বা আছে) মিডিয়া পর্যন্ত এই একটা বিষয়ে একমত। এর পাশাপাশি অন্য যে কারণগুলো উঠে এসেছে তার মধ্যে একটা হলো ভারতের অবহেলিত ক্রীড়া সংস্কৃতি। ২০১৬ সালের রিও অলিম্পিকের পর ইন্ডিয়ান অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন জানায়, খেলাধুলো ভারতবাসীর কাছে সবথেকে দরকারি জিনিসগুলোর মধ্যে পড়েনা। বেশির ভাগ মানুষের প্রায়োরিটি লিস্টের প্রথম তিনে খেলাধুলোকে কেরিয়ার করা অপশন হিসেবেই অনুপস্থিত। অন্য প্রায় যেকোন পেশা নিয়েই মানুষের আগ্রহ ও স্বপ্ন আছে, ক্রিকেট বাদে অন্য খেলা নিয়ে সেই আগ্রহ অনুপস্থিত। এই ব্যাপারটা এত বেশি পরিমাণে আমাদের চারপাশে দেখা যায়, যে এটা সংবাদপত্রে লেখার আগে থেকেই আমরা জানি। আমাদের অনেকেরই ছোটবেলার বন্ধুদের মধ্যে কেউ না কেউ আছে যারা খেলাধুলোয় ভালো ছিলো, কিন্তু একই সঙ্গে পড়াশুনো বা অন্য কোন অর্থকরী জীবিকায় সম্ভাবনা দেখানোয় তাদের আর খেলা নিয়ে এগোনো হয়নি।

    এবং এর সঙ্গত কারণ আছে। কয়েক বছর আগে অন্য একটি ধারাবাহিক লেখায় এক সময়ের প্রতিভাবান ফুটবলারদের বর্তমান অবস্থা নিয়ে লিখেছিলাম। প্রায় পনেরো কুড়ি বছর পর ঐ লেখাটির জন্য আমি পুরনো সহখেলোয়াড়দের সাথে দেখা করে জানতে পারি তাদের সিংহভাগ এখন বেহালা - টালিগন্জ করুণাময়ী - ট্রামডিপো রুটে অটো চালায়। এক সিনিয়ার, তদানীন্তন সুব্রত কাপ চ্যাম্পিয়ান মধ্যমগ্রাম হাইস্কুলের ডাকসাইটে গোলকীপার একটি স্কুলবাস চালায়, কেউ কেউ স্টুডিওতে ছোটখাট কাজ পেয়েছে। ফুটবল ভারতে যথেষ্টই জনপ্রিয়, সে নিয়ে উন্মাদনাও আছে। কিন্তু ফুটবল কারা খেলবে এই প্রশ্নে ভারতবাসী একটু অন্যমনস্ক হয়ে যায়। দুর্দান্ত ইনফ্রাস্ট্রাকচার ছাড়া খুব গরীবেরা অবশ্যই বেশিদিন খেলতে পারবেনা। ওপরে যাদের কথা বললাম তাদের অনেকেই সেই আর্থসামাজিক স্তরের। আমাদের এক কোচ, কিছুটা হতাশ হয়েই একবার বলেছিলেন আমাদের দেশে নিম্ন মধ্যবিত্তের পক্ষে খেলাধুলো যাও বা সম্ভব, গরীবের পক্ষে সম্ভব নয়। ফুটবলের অবস্থাই যদি এই হয়, অন্যান্য খেলার অবস্থা সহজেই অনুমেয়।

    অন্য আরেকটি কারণ হিসেবে বলা হয়েছে ভারতের মেয়েদের খেলাধুলো করার অসুবিধার কথা। এই অলিম্পিকেই অন্তত তিনটি ইভেন্টে (হকি, আর্চারি, গল্ফ) মেয়েরা পদক জিততে পারতেন। উইমেন্স হকি এবং গল্ফে যে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হলো, এবং সেখানে ভারতীয় খেলোয়াড়েরা যে লড়াই দেখালেন, তা অভাবনীয়। প্রথম বিশ্বের দেশ গ্রেট ব্রিটেন (মহিলা হকিতে গতবারের সোনাজয়ী ), মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (গল্ফে সোনা ), জাপান, অস্ট্রেলিয়া, কানাডার মত দেশের খেলোয়াড়দের সাথে সমানে লড়ে যাওয়ার এবং কখনো কখনো জেতার জন্য যে পরিকাঠামো দরকার তা আমাদের নেই। অধিকাংশ ক্ষেত্রে পরিবার এবং সমাজের তরফে উৎসাহ দেওয়া নেই, বরং নানা অজুহাতে নিরুৎসাহ করার ঐতিহ্য আছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সোনাজয়ী গল্ফার নেলি কোর্দা ফাইনাল রাউন্ডে নামার আগে বা জিমন্যাস্ট সিমোন বাইলস অলিম্পিকে আসার প্রায় তিন মাস আগে থেকে তাদের নিয়ে পত্রপত্রিকায় বিপুল পরিমাণ লেখা বেরোতে থাকে। সেখানে কীভাবে তাঁরা প্রস্তুতি নিয়েছেন, কোন কোন প্রতিপক্ষের সাথে তাঁদের জোর লড়াই হবে, টেকনিকাল খুঁটিনাটি --- কী নেই ! অন্যদিকে ভারতীয় খেলোয়াড়দের নিয়ে লেখা শুরু হয় তাঁরা পদক জিতলে, বা একেবারে জেতার কাছাকাছি পৌঁছে গেলে। এখন, সব দেশকেই সব খেলায় আগ্রহী হতে হবে এরকম কোন মাথার দিব্যি নেই, কিন্তু পদক তালিকায় সেই দৈন্য প্রকাশিত হলে হাহাকারেরও কোন মানে হয়না। বরং এই সমস্ত প্রতিকূলতা জয় করে কেউ কেউ ভালো ফল করছেন এতে ভারতবাসী হিসেবে আমাদের কৃতজ্ঞ থাকার কথা। আমরা এঁদের একজনের কথাও কয়েক সপ্তাহ পরে মনে রাখবো না।

  • আরও পড়ুন
    লাফ  - Saswati Basu


  • অলিম্পিক নিয়ে হঠাৎ একদিন ঘুম ভেঙে উঠে হইচইয়ের খারাপ দিকও আছে। অমুক দিবস তমুক ডে'র মত প্রতি অলিম্পিকেই ভারতীয় জনতা হঠাৎ একদিন পদক জেতার খবর পেয়ে প্রবল উত্তেজিত হয়ে পড়ে। দূর্ভাগ্যজনকভাবে এই সমস্ত উত্তেজনাই কতিপয় পদকজয়ী ঘিরে। কয়েকদিনের জন্য খেলোয়াড়েরা সেলিব্রিটি হয়ে যান। খবরের কাগজে তাঁদের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে নানা কথাবার্তা লেখা হতে থাকে। শুধু যে খেলাটা ঘিরে এতকিছু, সেই বিষয়ে কোন আগ্রহ তৈরি হওয়ার বা করার চেষ্টা দেখা যায়না। এবং অবধারিতভাবে কয়েকদিনের মধ্যেই উৎসাহের পারা নেমে যায়। এর ফলে আমার আপনার পরিচিত বৃত্তের বাচ্চাদের সেই খেলাটিতে অংশ নেওয়ার সম্ভাবনা তলানিতেই থেকে যায়। আমার মনে আছে, আশির মধ্যভাগ থেকে নব্বইয়ের শেষ অবধি ক্রিকেট ফুটবল বাদেও অন্য খেলা আলোড়ন তুলতো। ন্যাশনাল গেমসের ট্র‌্যাক অ্যান্ড ফিল্ড তো আমরাই টিভিতে দেখেছি। পাড়ার মাঠে কোন কোনদিন খুব ভোরের দিকে একজন জ্যাভলিন থ্রোয়ার আসতেন প্র‌্যাক্টিস করতে, দৌড়োতে গিয়ে দেখেছি। খেলাধুলোর খবর, টেকনিকাল আলোচনা সমেত দৈনিক সংবাদপত্রেই থাকত, এবং সেসব পড়ে আমরা পাড়ার মাঠে সেসবের ব্যর্থ অনুকরণ করার চেষ্টাও করতাম। এই সংস্কৃতিটা অনেকটা পাল্টে গিয়েছে।

    যাই হোক, যে কথা হচ্ছিলো। অন্যবারের মত টোকিও অলিম্পিকেও যেসব খেলোয়াড়েরা পদক পেলেন, তাদের নিয়ে হইচইয়ের আড়ালে ঢাকা পড়ে যাচ্ছেন অন্যরা। এই টোকিও অলিম্পিকেই যেমন বহু ইভেন্টের ফাইনাল রাউন্ডে অংশ নেওয়া, পদক তালিকার বেশ কিছুটা নিচে থাকা ভারতীয় খেলোয়াড়দের নাম আমরা জানিনা। মিডিয়ার মত প্রশাসকদেরও যাবতীয় নজর জিতে আসাদের নিয়ে। জয় শাহ (বিসিসিআই ) ঘোষণা করেছেন পদকজয়ীদের টাকা দেওয়া হবে। ভালো খেলিয়া, নিজেদের সেরা দিয়েও পরাজিতদের জন্য কোন ইনসেনটিভ শোনা যায়নি।

    প্রাক্তন অলিম্পিয়ান অঞ্জু ববি জর্জ সম্ভবত রিও অলিম্পিকের খারাপ ফল নিয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেছিলেন, পদক জেতা পরের কথা, অলিম্পিকে ফাইনাল রাউন্ডের যোগ্যতা অর্জন করা, এবং সেখানে নিজের সেরা পারফরম্যান্স করে আসাটাই প্রচণ্ড কৃতিত্বের ব্যাপার। সেই লক্ষ্যে অবিচল থাকতে পারলে পদক আপনিই আসবে।

    সুতরাং আমরা এই লেখায় অন্তত কয়েকজন এমন ক্রীড়াবিদের নাম লিখে রাখি যাঁদের কথা শোনা যাচ্ছেনা। ধরা যাক দীক্ষা ডগরের কথা। গল্ফে অদিতি অশোকের পাশাপাশি ইনিও ফাইনাল রাউন্ডে খেলছিলেন। গল্ফেই উদয়ন মানে, অনির্বাণ লাহিড়ী পুরুষদের ইভেন্টে ছিলেন। ২০ কিমি রেসওয়াক ইভেন্টে ফাইনাল রাউন্ডে ছিলেন সন্দীপ কুমার, রাহুল রোহিলা, ইরফান থোরি (পুরুষ ), প্রিয়াংকা গোস্বামী এবং ভাবনা জাট (মহিলা )। মহিলাদের ডিসকাস থ্রো তে কমলপ্রীত ক'র । রোইং এ অর্জুন লাল এবং অরভিন্দ সিং। সেইলিং এ পুরুষদের ইভেন্টে বিষ্ঞু সার্ভানন, কে সি গণপতি, বরুণ ঠক্কর, এবং মহিলাদের ইভেন্টে নেত্রা কুমানন। শুটিং এ সৌরভ চৌধুরি। কুস্তির দীপক পুনিয়ার কথা আমরা তাও একটু আধটু শুনতে পেয়েছি, পঞ্চম স্থানে শেষ করায়। হাতে গোনা যে কয়েকজনের নাম এখানে লেখা হলো, এঁরা সবাই স্ব স্ব বিভাগে ফাইনাল রাউন্ডে উঠেছিলেন। এর বাইরে রয়ে গেলেন বহু ক্রীড়াবিদ, যাঁদের অনেকের নাম আর কোনদিনই প্রচারের আলো পাবেনা। প্রসঙ্গত ভারত এবার মোট ১২০ জনের দল পাঠিয়েছিলো, দেশের ইতিহাসে এর থেকে বেশি খেলোয়াড় আগে কখনো অলিম্পিকে অংশ নেন নি।

    টোকিও অলিম্পিক চলাকালীন যেসব ইভেন্টের খেলা দেখতে পাইনি, সেগুলো পরে খুঁজে দেখতে চাইছিলাম। এসব ক্ষেত্রে যা হয়, অন্তত ফোনে তোলা ভিডিও ক্লিপ তুলে দেন কেউ না কেউ। সেইসব ভিডিও খুঁজতে গিয়ে দেখলাম, পদকজয়ী সমস্ত ভারতীয় ক্রীড়াবিদের সাথে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভিডিও কলে কথা বলছেন --- এরকম অসংখ্য রেকর্ডিং আছে। শুধু টোকিও অলিম্পিক না, আন্তর্জাতিক প্রাঙ্গণে বলার মত কোন সাফল্য এলেই কনফারেন্স কল করে সেই খেলোয়াড়কে পিএম অভিনন্দন জানাচ্ছেন। অবস্থা এমন, যে আপনি দীপিকা কুমারীর তীরন্দাজী দেখতে চাইলে আপনাকে প্রধান মন্ত্রীর ভিডিও কলের ক্লিপ স্ক্রল করে দেখতে হবে।খুব পরিষ্কার ভাবেই প্রধান মন্ত্রীর দপ্তর এটা প্রচার করতে চায় যে দেশের ক্রীড়াবিদের পাশেই মোদিজী আছেন। যদিও প্রয়োজনের তুলনায় এখনও সাংঘাতিকরকম অপ্রতুল, রিও অলিম্পিকের খারাপ ফলের (১১৭ জনের দল, পদক ২ ) পরে কেন্দ্র সরকার ক্রীড়াখাতে আগের থেকে বেশি বিনিয়োগ করছে। এবং সেইসব খবরও যাতে ভাইরাল হয় তার সব ব্যবস্থাই হয়েছে। এক সেন্টিমিটার রাজনৈতিক মাইলেজও ছাড়া হয়নি।
    সুতরাং বোঝাই যাচ্ছে অলিম্পিক নিয়ে হইচইয়ের সাথে খেলাধূলা ভালোবাসার সম্পর্ক কম, কিছুটা টাইম পাস, কিছুটা রাজনীতি, কিছুটা জিঙ্গোইজম, বেশিটাই চুরি এবং পড়ে পাওয়া বাকি দুআনা খেলোয়াড়ের কেরিয়ার নিয়ে জুয়া। পরের অলিম্পিকে ভারত এবারের থেকে এক আধটা বেশি বা কম পদক পাবে, এবং আগে পরে চক্রবৎ সেই সেই ঘটনাই ঘটতে থাকবে যা এতদিন ধরে ঘটছে। প্রশাসনের অশ্লীল সুবিধাবাদ, দিনের পর দিন মিডিয়ার জঞ্জাল প্রতিবেদন, ক্রিকেটের নামে উদ্বাহু দর্শকের অন্য খেলার প্রতি হিমশীতল উপেক্ষা যদি আমাদের উত্তেজিত না করতে পারে, অলিম্পিকের পদক নিয়ে সাময়িক হইচই নিরর্থক।


  • বিভাগ : ধারাবাহিক | ২১ আগস্ট ২০২১ | ৮২৭ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ২১ আগস্ট ২০২১ ২১:০১496979
  • হ্যাঁ আবার কি! তা না তো কি সত্যি সত্যি চীনের মত লেগে থেকে পদক আনার চেষ্টা করবে নাকি? এহ! 

  • aranya | 2601:84:4600:5410:c8b9:490:1288:cf4e | ২২ আগস্ট ২০২১ ০০:৪৯496984
  • ভাল লাগল। খেলা এক প্রিয় বিষয় 
  • Ramit Chatterjee | ২২ আগস্ট ২০২১ ২১:৪৪497014
  • এসব খুবই ডিপ্রেসিং লাগে পড়ে। দুঃখের বিষয় হলো ক্রীড়াতে উৎসাহ তো পরের কথা ভারতের ক্রিকেট অনুরাগী রাও ঠিক মতো সবাই ক্রিকেট বোঝেনা, খালি লাফায়। এরা জয় ভালোবাসে, আর মিডিয়া যা ড্রপারে করে মুখে ফেলে তাই খেয়ে সুখে থাকে। 
     
    ভারতের সাইজের যে কোনো দেশ অনেক অনেক ভালো পারফর্ম করেছে অলিম্পিক এ। 
  • Tim | 2603:6010:a920:3c00:70d2:1d56:5d69:261c | ২২ আগস্ট ২০২১ ২৩:৩১497017
  • সবাইকে ধন্যবাদ।
     
    অনিন্দিতা, 
    লেখাটা পড়লাম। অসম্ভব ভালো ও প্রয়োজনীয় লেখা। এরকম লেখা আরো বেশি করে মেইনস্ট্রিম মিডিয়ায় আসা উচিত। 
    রমিত, 
    একদম। ভারতীয়দের ক্রিকেট (আর কিছুটা ফুটবল) নিয়ে উন্মাদনা আর ক্রীড়াপ্রেম এক নয় সেটা আমিও মনে করি। 
  • Chandrani Chakraborty | ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ১২:২১498487
  • প্রচারের কৌশল এক্ষেত্রে ভালোই খাটে, কিন্তু এতে খেলোয়াড়রা যদি পরিকাঠামোগত সুবিধা পায় সেটা মেনে নেওয়া যায়। আমাদের এক মন্ত্রীমশাই একবার বলেছিলেন"ছাগল দিয়ে ধানচাষ হয়না'। অনেক প্রতিভাবান  খেলোয়াড় সুযোগের অভাবে বা অন্যভাবে শোষণের মুখে পড়ে ঝরে গেছেন এতদিন। তার চেয়ে এ বরং ভালো। যদিও আসলে এও একধরনের কাজে লাগানো।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ভেবেচিন্তে প্রতিক্রিয়া দিন