• বুলবুলভাজা  ধারাবাহিক  ভ্রমণ  শনিবারবেলা

  • পায়ের তলায় সর্ষে (এবং কোভিড) - পুয়ের্তো রিকো পর্ব - ৪

    মিঠুন ভৌমিক
    ধারাবাহিক | ভ্রমণ | ১৮ ডিসেম্বর ২০২১ | ৩৬৮ বার পঠিত
  • গ্রিটিং কার্ডে তিন জ্ঞানী বৃদ্ধ যখন পুয়ের্তো রিকোয়। কৃষ্ঞচূড়া গাছে ঝেঁপে ফুল এসেছে। স্থানীয় নাম ফ্ল্যামবয়েন।


    পুয়ের্তো রিকো ভ্রমণের চতুর্থ দিন। ছুঁচ হয়ে ঢুকে ফাল হয়ে বেরিয়ে আবার পুবমুখো হাইওয়ে ৩ এ এসে উঠেছি। এই রাস্তাই সমুদ্রের তীর বরাবর এরপর দক্ষিণে যাবে (আয়তক্ষেত্র মনে আছে তো?)। তারপর পশ্চিমে যাবে, তারপর উত্তরে উঠবে ম্যাপে যেমন দেখায়, এবং সবশেষে আবার পুবদিকে খানিক চলে স্যান হুয়ান পৌঁছে যাবে, যেমনটি আগের পর্বে লিখেছি। পুয়ের্তো রিকোর হাইওয়ে অনেকটাই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ফ্রিওয়ে সিস্টেমের মতই, তবে ছোট ছোট তফাৎ আছে। প্রথম তফাৎ স্পিড। এখানে স্পিডের একক কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা, মোটামুটি বাকি পৃথিবী যে নিয়মে চলে সেরকম। হাইওয়ের ওপর স্পিড লিমিট ৫৫ থেকে ৬০, অনেকটাই কম। হাইওয়ের সর্বোচ্চ লেনের সংখ্যা চার মনে হলো, তা সে যত জনবহুল শহর দিয়েই যাক না কেন। ভারতের মত এখানেও দুম করে রাস্তায় মানুষ উঠে আসা সম্ভব, হাইওয়েকে রীতিমত পাঁচিল তুলে বেঁধে রাখা হয়নি। সরু একটা গলি শাখার মত বেরিয়েছে হাইওয়ে থেকে, এরকমও দেখলাম। সব মিলিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের থেকে আলাদা লাগলো। যাতে রাস্তাটা সুন্দর হয়, এবং ছোট বড় শহর গ্রাম দেখতে পাই, মানুষ দেখতে পাই, তাই আমরা বড়ো, উচ্চ গতির হাইওয়ে থেকে নেমে ছোট হাইওয়ে (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যাদের স্টেট হাইওয়ে বলে) দিয়ে চলতে লাগলাম। এই রাস্তা ৯০১ নং সড়ক।

    একে একে লুকিলো, ফায়ার্দো হয়ে ৯০১ নম্বর হাইওয়ে ধরে চলতে লাগলাম। বলা বাহুল্য বাঁ দিকেই ভয়ংকর সুন্দর রঙের জল নিয়ে সমুদ্র প্রায় সারাক্ষণ রইলো। একের পর এক সমুদ্রসৈকত এলো আর গেল। একদা ইউ এস ন্যাভাল বেস (রুজভেল্ট রোড ন্যাভাল স্টেশন), বর্তমানে পরিত্যক্ত বিস্তীর্ণ অঞ্চলটি দেখলাম ম্যাপে একবার উঁকি দিলো। এই এলাকা নিয়ে বিস্তারিত লেখা নেটে পাওয়া যাবে, তাই আর এখানে লিখছিনা। বরং সমুদ্রের ধারে ধারে ছোট শহরগুলোর কথা বলা যাক।

    গাড়ি নিয়ে বেরিয়ে পড়ার পর প্রতিদিনই আমরা খুব হালকা কোন ব্রেকফাস্ট করে বেরোচ্ছিলাম। লাঞ্চে প্রায় গ্র্যানোলা বার বা বাদাম জাতীয় কোন স্ন্যাক, আর বিকেলে যেখানে থাকা হবে সেই শহরে রাতের খাবার খেয়ে নেওয়া হচ্ছিলো। কার্য্যক্ষেত্রে দেখা গেল ঐসব গ্র্যানোলা ইত্যাদি লাগছেই না, কারণ আমরা সমুদ্রের ধার ধরে ধরে চলেছি বলে নানারকম চমৎকার খাবার দেখতে পাওয়া যাচ্ছে। দ্বিতীয় দিনেই রাস্তার ধারে দেখা গেল অস্থায়ী ডাবের দোকান। একটা পিক আপ ট্রাকের ওপর ছাউনি করে, ভেতরে স্তূপাকৃতি ডাব রাখা আছে। ছাউনিরই একটা কোণে বেশ প্রমাণ সাইজের বাক্স, থার্মোকল দিয়ে ইনসুলেট করা। তার ভেতরে বরফজল, সেই জলে কয়েকটা করে ডাব চুবিয়ে রাখা আছে। টনসিলের রুগী নয় এমন খদ্দের এলেই সেখান থেকে ডাব তুলে কেটেকুটে দেশের কায়দায় স্ট্র ভরে দিয়ে দেওয়া হচ্ছে। দামও বেশ শস্তা, আর সেই জলও দারুণ মিষ্টি। জল খাওয়া হয়ে গেলেই আপনাকে পুরু শাঁসও পরিবেশন করা হবে। দিব্যি দুপুরের খাওয়া হয়ে যায় এক একটি ডাবে। পরপর দুদিন দুপুরে আমরা শাঁসে জলেই রইলাম, জুলাই শেষের গরমে দিব্য লাগলো।




    ডাবের দোকান। পেছনে প্লাস্টিকের ছাউনি, যা একটা পিক আপ ট্রাককে ঢেকে রেখেছে। ঐ ছাউনির মধ্যেই দোকানি জিরিয়ে নেবেন অবসরে। বাইরে বেশ গরম।


    খানাপিনা বাদে সমুদ্রসৈকতে আছে বাজনা। লোকজন মিউজিক সিস্টেম নিয়ে এসে পিকনিক করছে, আবার কেউ কেউ শুধু বিয়ারের বাক্স নিয়ে গুলতানি। একপাশে গ্রাম থেকে আসা সবজি আর ফলের বেচাকেনা চলছে, সেখানে পেঁপে, আম, কাঁঠাল (এবং এঁচোড় ), পাকা এবং কাঁচা কলা -- কী নেই? এখানে কেউই ইংরিজি বলেন না, খুব একটা বোঝেনও না। কোনক্রমে দু একটা কথা বার্তা হলো, তারপর আবার এগিয়ে চলা।

    কথা ছিলো জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা হবে বয়োলুমিনেসেন্ট বে'র কোন ট্যুর হয় কিনা। জানা গেল সেগুলো হয় বেশ রাত করে, ফায়ার্দো বা তার কাছাকাছি অঞ্চলে। সর্বোপরি সেখানে এখন কিছুই তেমন দেখতে পাওয়ার আশা নেই। এবারের মত বায়োলুমিনেসেন্স দেখা হলো না। দেখা হলোনা পুয়ের্তো রিকোর অন্য ছোট দ্বীপগুলো, যেখানে যেতে হলে ফেরি নিতে হয়। একটা দ্বীপের নাম দেখলাম মসকিটো। ঐ নামের একটা বে'ও আছে। মনে পড়লো আমাদেরও মশাগ্রাম আছে। এমনি মশা প্রিফিক্স আছে এমন কত কিছুই না জানি এখন, কিন্তু এই লেখায় সেসব লিখতে গেলে মহাভারত হবে।

    এই দিন আমাদের গন্তব্য পন্সে। আয়তক্ষেত্রের দক্ষিণ সীমা নির্ধারণকারী সরলরেখাটির প্রায় মাঝামাঝি অবস্থিত পন্সে। জনপ্রিয় ট্যুরিস্ট স্পট, কাছাকাছি কয়েকটা সমুদ্রতটও আছে। স্যান হুয়ানের পরে সবথেকে জনবহুল শহর। এখানে আমাদের মূল উদ্দেশ্য ইতিউতি হাঁটা, শহরের কেন্দ্রে একটা স্কোয়ার এবং পার্ক আছে সেই এলাকাটা জরিপ করা। দেখলাম প্রচুর স্থানীয় মানুষ জড়ো হয়েছেন, একেবারেই শীতের ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালের মত আবহাওয়া। পন্সে, বলা বাহুল্য, পন্সে ডি লিয়ঁ র উত্তরপুরুষের নামে রাখা হয়েছে। আমাদের কোনদিনই শহরের, তত পুরনো নয় এমন সৌধ দেখতে ভালো লাগেনা। কয়েক হাজার বছর পুরনো হলে আরো কিছুক্ষণ কোর্ট হাউস আর চার্চ দেখা যেত হয়ত, কিন্তু আঠারো ঊনিশ শতকের স্থাপত্য আমাদের বেশিক্ষণ আটকে রাখতে পারলোনা।

    সেদিন রাতে থাকা হবে মায়াগুয়েজে। এও আরেক শহর, এখানেও যথারীতি কোর্ট হাউস, গীর্জা, অমুক আপিস তুসুক আপিস এইসব সম্বলিত একটা প্রকান্ড চৌকো জায়গা আছে। মোটের ওপর তেমন নতুন কিছু নেই। আমাদের প্রিয় মন্দার বোসের ভাষায়, "এরা তো দেখছি যেখানেই পেরেছে একটা করে কেল্লা বানিয়ে রেখেছে "। গাড়ি চলতে শুরু করলে নানা ছোট শহর গ্রাম এবং তাদের জীবন দেখতে যত ভালো লাগে, পর্যটকের স্বর্গরাজ্য বড়ো শহরগুলোয় ততই একঘেয়ে লাগতে থাকে, এটা খেয়াল করলাম। অবশ্য মায়াগুয়েজইপুয়ের্তো রিকোয় আমাদের শেষ নতুন শহর দেখা। একেঘেয়ে লাগবে এবং বিশ্রাম দরকার হবে আন্দাজ করে পরের দিনটা আমাদের আক্ষরিক অর্থেই বসে থাকার দিন।

    এইবার আমরা আয়তক্ষেত্রের পশ্চিম সীমারেখা বরাবর উঠছি। উত্তর পশ্চিম কোণের সমুদ্রতট, নাম কেন জানিনা সারভাইভাল বিচ। সেখানে দেখি অল্প দূরত্বের মধ্যেই দুটো সমুদ্রতট, একটায় প্রায় দূর্গাপুজোর সন্তোষ মিত্র স্কোয়ারের মত ভিড়, অন্যটা বেশ খালি। কেন সেটা বুঝতে একটু সময় লাগলো। দেখা গেল আধুনিক, কেতাদুরস্ত জলকেলি এবং পার্টির সমস্ত উপাদান প্রথমটায় আছে। এক কথায় দীঘার মত সর্বজনপ্রিয় স্থান। পরিবার বাচ্চাকাচ্চা নিয়ে সেখানে তাই জড়ো হয়েছে সবাই। এদের মধ্যে শুধুই ট্যুরিস্ট নেই, স্থানীয় মানুষও প্রচুর। এটা সপ্তাহান্তের দিন, রবিবার ছিলো বলে মনে হচ্ছে।

    আমরা ট্যাঁকখালির জমিদারের মত অন্য সমুদ্রতটে গিয়ে থানা গাড়লাম। দিব্যি ঝলমলে রোদ, পরিষ্কার বালি, র্যাল্ফ ফিনেসের চোখের মত রঙের দিগন্তবিস্তৃত সমুদ্রের জল --- হঠাৎ দেখলে মনে হবে এখানেই আসেপাশে একতা জেড পাথরের ঘর দেখতে পাওয়া যেতে পারে। শুয়ে বসে, বই পড়ে, জলের ধার দিয়ে হেঁটে, আবার ডাব খেয়ে কয়েক ঘন্টা কাটিয়ে আমরা দুগ্গা বলে গড়িতে উঠলাম। এবার ঘরের ছেলেমেয়ে ঘরেই অর্থাৎ স্যান হুয়ানে ফিরে যেতে হবে। পরের দিন ফিরতি ফ্লাইট। উত্তর পূব কোণ থেকে স্যান হুয়ান যাওয়া খুবই সোজা। সটান পুব বরাবর গেলেই আয়তক্ষেত্র সম্পূর্ণ হবে। তেমন তাড়াহুড়ো না করেই পুরো দ্বীপটা বেড় দিয়ে ঘুরে আসা গেল।

    স্যান হুয়ান পৌঁছলাম যখন তখন সন্ধ্যা। খেয়ে নিয়ে আরেক প্রস্থ হাঁটা হলো সেই চেনা অলি গলি পাকস্থলীর মধ্যে দিয়ে। ওখানেই একটা স্যুভেনিরের দোকানে সেই তিনজন জ্ঞানী বৃদ্ধের পুয়ের্তো রিকান রূপ দেখা গেল। আমাদের মনে পড়লো বড়োদিন যীশুর জন্ম এইসব নিয়ে পৃথিবীর নানা দেশে কেমন সব পরব মিলেমিশে ঘেঁটে গেছে। শেষ দিনটা আমরা ছিলাম এয়ারপোর্টের কাছেই, একটা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে। দেখা গেল হোটেলটা প্রায় হোস্টেলের মত, প্রধাণত ছাত্রছাত্রীরাই থাকেন। রিসেপশনেও যে ছেলেটি বসে, সেও সম্ভবত ছাত্রই।




    আর্মেস স্কোয়ারে (স্যান হুয়ান) কফি আর পেস্ট্রির দোকান।


    এই পুরো সিরিজে খাবার নিয়ে সেরকম কিছুই লিখিনি। অথচ পুয়ের্তো রিকো খাদ্যরসিকদের জন্য খুবই ভালো জায়গা। এখানে মানুষ যদিও হুঁকোমুখো নন, এবং তাঁদের হ্যাংলা বলেও এমনকি খ্যাতি নেই, কিন্তু তাদের খাবারের অন্যতম উপাদান চটকানো কাঁচকলা বা প্ল্যান্টেন। আমরা খেলাম তোস্তোনে (কাঁচকলা চটকে বেক করে বানানো গোল চাকতির আকারের নিমকি), মোফোঙ্গো (কাঁচকলা চটকে কেকের মত আকার দিয়ে ছাঁকা তেলে ভাজা) আর তার সাথে টাটকা মাছ বা মাংসের কোন একটা পদ। পেয়ারা যেহেতু খুবই সহজলভ্য, চমৎকার চিজকেক, ককটেল, জ্যাম আর পেস্ট্রি পাওয়া যায়। এরকমই আম আনারস এসব দিয়েও ঐ একই জিনিসপত্র বিক্রি হচ্ছিলো।




    গুয়াভা চিজকেক এবং কফি।


    এরপরেই শেষ হয়ে গেল পুয়ের্তো রিকো বেড়ানো। কেমন যেন একটু হঠাৎ করেই। কয়েকটা দিন কাটলো দেশ থেকে দূরে, অথচ দেশের মত চেনা একটা জায়গায়। এই বেড়ানোর প্রাপ্তি মূলত সেটাই। ঘন ফুলে ছাওয়া কৃষ্ঞচূড়া গাছ, নুয়ে পড়া ডালে আমের ফলন, পথের ধারে অনেকখানি চেনা গ্রাম শহর এবং মানুষ। কোভিডের কল্যাণে ভেস্তে যাওয়া প্ল্যানের মধ্যে পুয়ের্তো রিকো পড়ে পাওয়া চৌদ্দ আনা।


    (ইতি পুয়ের্তো রিকো পর্ব।)


     

  • বিভাগ : ধারাবাহিক | ১৮ ডিসেম্বর ২০২১ | ৩৬৮ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • ar | 173.48.167.228 | ১৮ ডিসেম্বর ২০২১ ১৭:৩২502198
  • কৃষ্ণচূড়া
    kRishhNachUrhaa
  • kk | 68.184.245.97 | ১৮ ডিসেম্বর ২০২১ ২১:৩১502203
  • যাঃ, শেষ হয়ে গেলো?! 
  • aranya | 2600:1001:b021:4af7:c03c:780d:b2f6:c50 | ১৯ ডিসেম্বর ২০২১ ০২:৩৫502210
  • সুন্দর 
  • পুওর্টো রিকো - একটি গহনতর জীবন | 151.197.224.113 | ১৯ ডিসেম্বর ২০২১ ১০:৪৯502213
  • পরের বার কুলেব্রা টাও ঘুরে আসা হোক। ফ্লামেকো বীচ বড় মায়াময়। 
    ও হ্যাঁ, উথালপাতাল সাগর পেড়িয়ে ৪৫ মিনিটের লঞ্চযাত্রাও কম রোমহর্ষক নয়! গহীন অন্ধকারে মেয়েপুরুষে কেবল জাঙ্গিয়া সম্বল করে ভেলায় চেপে উথালি পাতালি জল অতিক্রম করে বায়োলুমিনিসেন্ট বে দেখতে যাবার মতই। 
     
    দেশের মত চেনা - এই ব্যাপারটা আরো বেশি মনে হয় হাওয়াইতে।  
  • পুওর্টো রিকো - একটি গহনতর জীবন | 151.197.224.113 | ১৯ ডিসেম্বর ২০২১ ১০:৫১502214
  • ফ্লামেন্কো বীচ 
    ও হ্যাঁ, লেখাটাও বড় পছন্দ হল। 
  • Tim | 2409:4060:41c:c0c8:3146:85c8:c479:b9fe | ২০ ডিসেম্বর ২০২১ ০০:৫৬502242
  • সবাইকে ধন্যবাদ।
     কৃষ্ণচূড়া ওয়ার্ডে পেস্ট করে ছড়িয়ে গেল, তারপর কিছুতেই আর ঠিক করতে পারিনা, শেষে হাল ছেড়ে দিলাম। এইবার এভাবে লিখব, আর লেখার বানানও ঠিক করে দেওয়া যাবে। হ্যাঁ, লঞ্চে করে সমুদ্র ভ্রমণ রোমাঞ্চকর, বায়োলুমিনিসেন্ট বে অভিযানও নিসন্দেহে একটা অভিজ্ঞতা হত। পরেরবার এগুলো ফোকাসে থাকবে।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে মতামত দিন