• খেরোর খাতা

  • ত্রাণ নয়, সুন্দরবন বাসীদের Environmental Refugee/Migrant রূপে চাই পুর্নবাসন

    Manab Mondal লেখকের গ্রাহক হোন
    ০৬ জুন ২০২১ | ৪৭৮ বার পঠিত | রেটিং ৪ (১ জন)
  • Environmental Refugee/Migrant কথাটা আমাদের কাছে নতুন নয়। যারা পরিবেশ নিয়ে খোঁজ খবর রাখেন তাঁরা এ বিষয়ে পূর্ব পরিচিত। আমরা মতো মোটামাথার লোকজন বোধহয় একটু কনফিউজড, কেউ বলছেন কংক্রিটের বাঁধ চাই, কেউ বলছে ম্যানগ্রোভ গাছ পুঁততে হবে, মাটির বাঁধ চাই নয়তো পরিবেশের ক্ষতি হবে। নানা মুনির নানা মত কিন্তু সুন্দর বনের ভবিষৎ থেকে যায় অন্ধকারে। তাই Environmental Refugee/Migrant হিসাবে ঘোষণা করে পুনর্বাসন করাই বোধহয় আজ একটাই স্থায়ী সমাধান আছে আমাদের কাছে।


    এটাতো  কোন নতুন কথা নয়। দূষণ বলুন, বিশ্বষ্ণায়ন বলুন, জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে, সমুদ্রের জলের স্তর ১৯৯০ থেকে ২১০০ এর মধ্যে মোট 0.১৮ থেকে 0.৬ মিটার (৭ ইঞ্চি থেকে ২ ফুট) বৃদ্ধি পাবে। সমুদ্রের উচ্চতার মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় ইতিমধ্যে বিশ্বের নিম্ন-সমুদ্র উপকূলীয় অঞ্চলে সমস্যা দেখা দিয়েছে।


    যেমন, বাংলাদেশের প্রায় অর্ধেক জনসংখ্যা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৫ মিটার (১৫.৫ ফুট) এরও কম উচ্চতায় বসবাস করে। ১৯৯৫ সালে, বাংলাদেশের ভোলা দ্বীপটি সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির ফলে অর্ধনিমজ্জিত ছিল এবং ৫০০,০০০ মানুষ গৃহহীন হয়েছিল। বিজ্ঞানীরা পূর্বাভাস দিয়েছেন জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বন্যার কারণে ২০০০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ তার জমিটির ১ শতাংশ হারাবে। জমি হ্রাস হতে পারে বাংলাদেশ থেকে এবং প্রায় ২ মিলিয়ন জলবায়ু উদ্বাস্তু হতে পারে।


    ফলে সুন্দরবনের এই বিপদের মুখোমুখি হবার কথা স্বাভাবিক। আজকের দিনে আসুন সঙ্গে সবাই মিলে Environmental Refugee/Migrant দের পাশে দাঁড়িয়ে সুন্দরবনের ক্ষতিগ্রস্ত মানষজনদের E.R. এর তকমা দিয়ে তাদেরকে পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করি। দেশের সরকারকে বাধ্য করি এদের পাশে দাঁড়াতে। নোনা জল শুধু কৃষিকাজ নয় মৎসচাষ এর ও ক্ষতি করেছে। তাই এই দাবিটা করা যেতেই পারে।


    Environmental Refugee/Migrant সম্যসাটি এখন আন্তর্জাতিক সমস্যা। জলবায়ু শরণার্থী বলে তাদের ধরে নেওয়া যেতে পারে। মানুষ স্থানীয় পরিবেশের আকস্মিক বা দীর্ঘমেয়াদী পরিবর্তনের কারণে নিজের অঞ্চল ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়। জলবায়ুর এমন পরিবর্তন তাদের সুষ্ঠু জীবিকা নির্বাহে ব্যাঘাত ঘটায়। এই ধরনের পরিবর্তনগুলি হল দীর্ঘ খরা, মরুকরণ, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি এবং ভারী বর্ষণের মতো মৌসুমী আবহাওয়ার ক্ষতিকারক পরিবর্তন। জলবায়ু শরণার্থীরা অন্য দেশে চলে যেতে পারে বা তারা নিজের দেশে পুনর্বাসন পেতে পারেন। পরিবেশ ও সামাজিক বিজ্ঞানীরা এই জলবায়ু পরিবর্তন এবং সাধারণ পরিবেশগত অবক্ষয়ের প্রভাবকে ২০০০ এর দশকের সবচেয়ে বড় উদ্বেগ হিসেবে চিহ্নিত করেন বহু আগে থেকেই।


    ধরা যাক মালদ্বীপ এর কথা। পর্যটন শিল্প ছাড়া, মাছ ধরা এই দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম শিল্প।


    সমুদ্রের জলস্তর বৃদ্ধি এবং কম লবণাক্ত হয়ে যাওয়ায় মালদ্বীপের পরিবেশ ও অর্থনীতি আজ বিপদের মুখোমুখি। পোলার আইস ক্যাপ গলানো মিঠা পানির পরিমাণ বাড়িয়ে তোলে, ফলে সমুদ্রের জলের সর্বত্র স্বাদু পানির বৃদ্ধি বেশি হয়, এবং এতে সামুদ্রিক পরিবেশ ভারসাম্য হারায়, নতুন বিপদের সম্মুখীন হয় উপাদেয় বাস্তু এবং প্রবাল প্রাচীরগুলি। আবাসস্থল মালদ্বীপের আশেপাশে ফিশারিগুলির সাথে অনেক মাছ সমর্থন করতে না পারে এই পরিবর্তনকে । অনেক মাছ আবার কম-লোনা পানির সাথে খাপ খাইয়ে বা মানিয়ে নিতে সক্ষম হতে পারে না।


    সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধিতে মালদ্বীপের ১২০০ দ্বীপ ডুবে যেতে পারে। এটি মালদ্বীপবাসীদের বাস করার জন্য নতুন জায়গা খুঁজতে বাধ্য করবে। মালদ্বীপ জনবসতির অযোগ্য হয়ে উঠলে কি করা যায় ভেবে মালদ্বীপের নেতারা অস্ট্রেলিয়া, ভারত এবং শ্রীলঙ্কার নেতাদের সাথে একটি কর্মসূচির পরিকল্পনা করতে কাজ  শুরু করেছেন।


    একই চিত্র আমরা দেখতে পাবো সুন্দরবনে ভবিষৎ-এ। তাই এখন থেকে এই দাবি তুলে সুন্দরবনকে মানুষ বসতি শুন্য করে সুন্দরবন পুনর্গঠন করাই বোধহয় আমাদের উচিত দাবি বলে মনে করি। 

  • বিভাগ : অন্যান্য | ০৬ জুন ২০২১ | ৪৭৮ বার পঠিত | রেটিং ৪ (১ জন)
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। পড়তে পড়তে মতামত দিন