• হরিদাস পাল  ব্লগ

  • অর্চনা গুহ মামলা: রুণু গুহনিয়োগীর সঙ্গীরা ও অন্যান্য

    Tapas Das লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ০৮ মে ২০২১ | ৭৮০ বার পঠিত | ২ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  •  লেখাটা লেখার পর দেখতে পাচ্ছি, অনেক শব্দ আমার নয়। রুণুর কান যে বুলডগের কানের মত, এ কথা আমাকে বলেছিল শর্মিষ্ঠা। এজলাসের মধ্যেই, প্রথম রুণুকে দেখে, কানে কানে। আমি পরে বেরিয়ে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, বুলডগের কান ওরকম বড় হয় নাকি! তাতে জেনেছিলাম, যে সত্যিই তাই।


     এই মামলা সম্পর্কে মীরজাফর নামক আখ্যাটাও আমার নয়। সৌমেন গুহর। আমি আত্মীকরণ করেছি মাত্র। সৌমেনদা বহুবার বলেছিলেন মীরজাফরদের কথা। কী ভাবে তারা শেষ করেছে মামলা ও তাঁদের পরিবারকে। সৌমেনদার কথায় অতিশয়োক্তি থাকতে পারে কিনা, তা বিচারের অধিকার আমার নেই। আমি, বড় বেশি সংযুক্ত। বিচারের জন্য যে দূরত্ব দরকার, ৩০ বছরের বেশি সময় পার হয়ে যাবার পরও তা আমার অর্জিত নয়। ফলে আর তা হবে না।


     কিন্তু সঔদ্ধত্যে বলার, বিভিন্ন সময়ে অজস্র, আক্ষরিক অর্থে অজস্র মানুষ এই মামলার পাশে দাঁড়িয়েছেন। এই মামলার জন্য লাঞ্ছিত হয়েছেন, রাষ্ট্রশক্তির হাতে।


     অর্চনা গুহ মামলার খরচ চালানোর জন্য একটা তহবিল গঠন করা হয়েছিল এক সময়ে। সে তহবিলের দায়িত্বে ছিলেন সাংবাদিক নাজেস আফরোজ। রুণু তখন বহাল তবিয়তে চাকরি করছে। সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ কফি হাউসের সামনে রুণু গুহনিয়োগী, নাজেস আফরোজকে মেরেছিল। এ আমার প্রত্যক্ষ নয়, এ ঘটনা যখন ঘটে তখন আমি মামলার ত্রিসীমানাতেও ছিলাম না, শুনেছি। নাজেস আফরোজের সঙ্গে আমার তেমন যোগাযোগ নেই, যার ফলে এ তথ্য ভেরিফাই করা যেতে পারে, কিন্তু এ কথা অস্বীকার করেছেন, এমন কারও সঙ্গে মোলাকাৎ হয়নি।


     মোলাকাৎ হয়েছে শুভাশিস মৈত্রের সঙ্গে। দু কিস্তি প্রকাশের পর, তাঁর সঙ্গে কথা হল আরেকবার।


                                     শুভাশিসদার স্মৃতি


     অর্চনা গুহ ডেনমার্ক থেকে ফিরলেন সম্ভবত ৮৭-৮৮ সালে। খুব বেশি লোক সে প্রত্যাবর্তনের খবর জানতেন না। সৌমেন গুহর বাড়িতেই ছিলেন অর্চনাদি। শুভাশিসদা অর্চনা গুহর সাক্ষাৎকার নেন। তখন শুভাশিসদা প্রতিক্ষণে চাকরি করতেন, যে প্রতিক্ষণের দেখভালের দায়িত্বে তখন দেবেশ রায়।


     সে সময়ে রুণুরা হাইকোর্টে একটা আবেদন করেছিল যে আদালতের খবর যেন প্রকাশিত না হয়। সে আবেদনে আংশিক ইতিবাচক সাড়াও দিয়েছিল আদালত। শুভাশিসদা লেখা জমা দেবার অব্যবহিত পরের সংখ্যায় সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়নি। কিন্তু দেবেশ বলেছিলেন, আমরা এ লেখা ছাপব। পরবর্তী সংখ্যায় সে সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়। তখন নাজেস আফরোজ আজকালে। শুভাশিসদার কথায়, নাজেস জানান আজকালে অর্চনা নিয়ে একটা পেজ হবে। সেই পাতায় লেখেন দেবেশ রায়, ইতিহাসবিদ ও সিপিআই নেতা গৌতম চট্টোপাধ্যায়, এবং শুভাশিস মৈত্র।


    এর পরে বিচারপতি উমেশ বন্দ্যোপাধ্যায় এই প্রকাশের বিরুদ্ধে সুয়ো মোটো মামলা করেন।পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়। দেবেশ রায়, গৌতম চট্টোপাধ্যায়, শুভাশিস মৈত্র, আজকালের সম্পাদক অশোক দাশগুপ্ত ও আজকালের কর্তৃপক্ষস্থানীয় প্রতাপ রায়। সোমনাথ চট্টোপাধ্যায়, অরুণাভ ঘোষ প্রমুখ এই মামলায় দেবেশ-শুভাশিসদের হয়ে লড়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত এই পাঁচজনকে কিঞ্চিৎ সাবধানবাণীর পর আদালত রেহাই দেয় বটে, কিন্তু সশরীরে হাজিরা থেকে মুক্তি দেয়নি। যতদিন মামলা চলেছে, মামলার তারিখ পড়েছে, এঁদের আদালতে হাজিরা দিতে হয়েছে।


    সৌমেন গুহ একটা বই সম্পাদনা করেছিলেন, লোয়ার কোর্টে রুণুর বিরুদ্ধে রায় বেরোনোর পর। পাবলিশিং ইয়ার- ১৯৯৭। Battle of Archana Guha Case - Against Torture in Police Custody: Arguments, Counter-arguments and Judgement at the Trial Court। এখন বইটা অমিল। কোনওদিনই খুব বিক্রি হয়েনিছে, বিক্রির ব্যাপারে আগ্রহও কোনও তরফ থেকে দেখা গিয়েছে এরকম নয়। সৌমেনদা কাউকে খুব বিশ্বাস করে দায়িত্ব ছেড়ে দিতে চান নি। সেটাই তাঁর পক্ষে স্বাভাবিক। কেন স্বাভাবিক, তা বইটার Prefatory Remarks অংশটা পড়লে বোঝা যায়। ৭৭পরবর্তী সময় থেকে এই মামলা চলার সময়কাল পর্যন্ত তাঁকে যে যে ঘটনাবলীর সম্মুখীন হতে হয়েছে, তার একটা বিবরণ রয়েছে। সে বিবরণ পুষ্ট হয়েছে বহু সংখ্যক হেফাজতে অত্যাচার, পুলিশি জুলুম, এবং সেসবের বিরুদ্ধে আইনি লড়াইয়ের অনুপস্থিতি বা আইনি লড়াইয়ের হারিয়ে যাওয়া, অতীব সন্দেহজনকভাবে হারিয়ে যাওয়ার ঘটনাক্রমে।


    অরুণপ্রকাশ চ্যাটার্জি, খুবই সেলিব্রেটেড আইনজীবী হিসেবে পরিচিত ছিল। (সচেতন ভাবে, এবং একটু কষ্ট করেই অরুণপ্রকাশ সম্পর্কে আপনি সম্বোধন ব্যবহার করব না, কারণ লোকটা তার যোগ্য নয়, আমার কাছে।) ১৯৯৬ সালে সৌমেন গুহ বার কাউন্সিলে অরুণপ্রকাশের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন(কেস নং ১৫, ১৯৯৬)। উদ্ধৃতি- We were shocked to see in 1992 Cr. L (SC) 110, Para 25- : 1992 SCC (Cri) 116, Para 34: 1992 (1) Crimes 210, para-25, etc., that Arun Prokas Chatterjee appeared for the accused-torturer Santosh De (in C.A No 3811/90) before the Supreme Court taking airfare, pocket money and lodging expenses from us!


    বাকি লেখায় মাঝেমধ্যেই আদালতের কিছু নথি থেকে উদ্ধৃতি বা উদ্ধতির অনুবাদকণ্টকিত হতে পারে। সেটা ক্রমশ জরুরি মনে হচ্ছে, কারণ, সে সব ছাড়া এ নিয়ে লেখা অসম্পূর্ণ হবে। আদালতের বয়ান অনুবাদের কাজটা অনেকটা কঠিন, যদি তা কিছুটা হলেও বোধগম্য করতে হয়। সেটাতে সময় লাগে, শ্রম লাগে, ক্লান্তি এসে যায়। সৌমেনদার সঙ্গের স্মৃতি শ্রমের ক্লান্তিকে কাটিয়ে ফেলবে, এমনটাই ভাবা উচিত। কিন্তু সে আর হয় কই!


    একজন, এই সেদিন, সৌমেনদা সম্পর্কে বলছিলেন, জিনিয়াস পাগল। সম্ভবত, সেটাই সর্বোত্তম উপায়, সৌমেন গুহকে বোঝার। পাগল না হলে এই ফাইটটা কেউ করে না, জিনিয়াস না হলে এই ফাইটটা কেউ চালাতে পারে না।


  • বিভাগ : ব্লগ | ০৮ মে ২০২১ | ৭৮০ বার পঠিত | ২ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Santosh Banerjee | ০৮ মে ২০২১ ২০:৩৬105719
  • কিহলো ??কোনো সুবিচার হয়েছিল কি ??না !!!!

  • aranya | 2601:84:4600:5410:a819:7c57:aec3:fc56 | ১০ মে ২০২১ ০৯:২২105803
  • পড়ছি 

  • Satyajit Ghosh | ২০ মে ২০২১ ২২:৫৭106214
  • বাকরুদ্ধ। রাগ, ভীষণ রাগ হচ্ছে। 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঝপাঝপ মতামত দিন