• হরিদাস পাল  ব্লগ

  • অর্চনা গুহ মামলা: দুর্যোগ আর সুযোগের যোগস্থল

    Tapas Das লেখকের গ্রাহক হোন
    ব্লগ | ০২ এপ্রিল ২০২১ | ১১৪০ বার পঠিত | ৫ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • চালশে না-পড়া একজন আগের পর্বদ্বয় পড়ে বলছিলেন, এ কোনও দায়িত্ববান ইতিহাস রচনা হচ্ছে না। ভদ্রতা বজায় রেখে বলছিলেন না, যে এ কেবল র‍্যান্ট মাত্র। কিন্তু সম্ভবত তাঁর প্রতিপাদ্য ছিল এরকমই। আমি তাঁর সঙ্গে সহমত হইনি। তাঁকে বলা হয়নি, ইতিহাস ঠিক কী ভাবে লিখতে হয়, তা কিরণচন্দ্র চৌধুরী বা পরবর্তীতে অন্য কোনও চিন্তন বিদ্যালয় নির্ধারণ করে দিতে পারে না। ইতিহাস, ওরকম কিছু নয়। ইতিহাস যখন রচিত হয়, সবসময়ে সকলে বুঝতে পারেন না যে ইতিহাস রচিত হচ্ছে। নদীর স্রোতের মত বহমান ঘটনাধারা ঘটে যাবার অনেক পরে বোঝা যায় ইতিহাস রচিত হচ্ছিল, হয়েছে। তখন একজন বা অনেকে, একসঙ্গে বা পৃথকভাবে, ঘটনাক্রম থেকে বিযুক্ত হয়ে তাকে লিপিবদ্ধ করতে পারেন, সটীক অথবা টীকাবিহীন। কিন্তু যারা ওই সময়কালে, নদী ভাঙন ও নদীর নতুন তীর গড়ার সময়ে নদীতে ছিলেন, তাঁদের বিযুক্তি ঘটে না। যার বিযুক্তি নেই, তার তৈরি করা একটা অবজেক্টিভিটি থাকতে পারে, কিন্তু না-ও থাকতে পারে। এই খণ্ড ধারাবিবরণীকারের কোনও বিযুক্তি আকাঙ্ক্ষা নেই, এই খণ্ড ধারাবিবরণীর কোনও বিযুক্তি সম্ভাবনা বা আশঙ্কা নেই। ফলে একে কোনও ইতিহাস বলে দাবি করার দায়ও নেই। এই ধারাবিবরণীর এক ও একমাত্র দায়, একটি অন্যায়কে, একাধিক অন্যায়কে কিছুটা হলেও প্রতিরোধ করা। এ প্রতিরোধে সে অন্যায় ম্লান হয় না, শুধু পাল্টা একটা স্বর, তা ক্ষীণ হলেও রাখা যায় মাত্র। তাকে ইতিহাসের স্বার্থে ব্যবহার করা হবে কি না, সে দিকে নজর রাখা এই ধারাবিবরণীর উদ্দেশ্য নয়। হয়ত বিধেয়। 


    ফলে, এখানে ধারাবিবরণীর সাধারণ নিয়ম মেনে ঘটনাক্রম, সময়ানুসারী নয়। সে সব পাওয়া যেতে পারে বিভিন্ন নথি ও দস্তাবেজে। এ কোনও উপন্যাসও নয়, যেখানে নথি বা দস্তাবেজ আশ্রিত কোনও কল্পনা লিখিত হবে। এই রচনার পদ্ধতি কেবলমাত্র স্মৃতি, হয়ত বা কিছু সংলাপও।


    ._--------------------+++++++++++---------+++++++-----


    এমপ্যাথি কথাটা সৌমেন গুহ বলার পর থেকে, তাড়া করে। তিরিশ বছর হতে চলল। এমপ্যাথি শব্দটা ওই ইনভিটেশন কার্ডটাতেও ছিল। যে কার্ড বিলি করা হয়েছিল উভয়পাক্ষিক সওয়াল-জবাব শেষ হবার দিনে। সৌমেন গুহ বনাম বিষ্ণুচরণ ঘোষ। ব্যাগে রাখা ছিল কার্ডটা। সৌমেনদা বলেছিলেন, প্যাকেট খুলবে না, আমি না-বলা পর্যন্ত। সওয়াল-জবাব পর্ব শেষ হল, ম্যাজিস্ট্রেট রায়দান কবে, তা রিসেসের পর জানাবেন বলে ঘোষণা করলেন। সৌমেনদা আমার কানে বললেন, প্যাকেট খোলো। কার্ড বিলি করো। 


    কার্ডের বয়ান ছিল এরকম, অর্চনা মামলার রায়ে রুণু গুহনিয়োগী দোষী সাব্যস্ত হওয়ায়, অমুক তারিখে বিশেষ অনুষ্ঠান, মহাবোধি সোসাইটি হলে। কী ভয়াবহ আত্মবিশ্বাস লোকটার, সওয়াল শেষ হবার আগে কার্ড ছাপিয়ে ফেলা, এবং সে কার্ড বিলি করে দেওয়া আদালত চত্বরে, রায় ঘোষণার দিন নির্ধারণের আগেই। 


    হুড়মুড়িয়ে বিলি করতে থাকি কার্ড। হরেনের চায়ের দোকানের সামনে। অনেকে চাইতে আসে, স্পষ্ট বলি, রুণুর লোক পাবে না। অপরিচিত সব কালো কোটেরা হাজির হয়ে যায়, মুখ চেনা কেউ বলে, উনি রুণুর লোক না, দিয়ে দিন। সাতিশয় বিশ্বাসে, দিয়ে দিই। রিসেসের পর, বিষ্টু ঘোষ ওই কার্ড, যা আমিই দিয়েছিলাম ওর কোনও লোকের হাতে, তা ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে জমা দেয় এবং এর মাধ্যমে রায় প্রভাবিত করার চেষ্টা হচ্ছে বলে আপত্তি তোলে। তাতে অবশ্য, নতুন কোনও ঘটমানতা তৈরি হয়নি। 


    উল্লিখিত দিনে, মহাবোধি সোসাইটিতে যিনি প্রথম হাজির হয়েছিলেন, তিনি অনামন্ত্রিত। সৌমেনদার কথায়, হাজার চুরাশির মা-রা যখন মিছিল করছিল, তখন উনি মডেস্টি ব্লেজ অনুবাদ করছিলেন। সঙ্গে ছিলেন তাঁর তৎকালীন প্রায় সর্বক্ষণের সঙ্গী রিটায়ার্ড পুলিশ অফিসার। যে সময় দেওয়া ছিল, তার অন্তত আধ ঘণ্টা আগে অত বড় গণ্যমান্য দেখে কী করব বুঝে উঠতে না পেরে সৌমেনদার বাড়িতে ফোন করেছিলাম উনি কখন বেরিয়েছেন জানতে। সৌমেনদা ফোন ধরে বললেন, উনি তখনও বেরোননি। এদিকের ঘটনাক্রম জানাতে তিনি সেই সর্বক্ষণের সুপার কুল কণ্ঠে বললেন, বসাও, চা খাওয়াও। আমি তো অ্যাপয়েন্টমেন্ট মিস করছি না।   


    কিঞ্চিৎ বাদলা হাওয়া ওঠে। আর এদিকে হল ভরে ওঠে ধীরে ধীরে, সৌমেনদাদের দেখা নেই। আমাকে কে যেন মাইক ধরিয়ে দিলেন, কিছুমিছু বলার জন্য। আমি কাঁপা ঠ্যাং নিয়ে বলতে থাকি, বাইরে দুর্যোগের জন্য কর্মসূচি শুরু হতে দেরি হচ্ছে। রবীন (চক্রবর্তী)দা মাইক রাখার পর বলেন, এমন চমৎকার হাওয়া দিল, তাকে দুর্যোগ বললে! বাইরে সুযোগ হচ্ছে বললে পারতে! 


    সুযোগ আর দুর্যোগ এমন হাত ধরাধরি করে চলতে, আর কোনও উদাহরণে দেখিনি। যেমনটা ঘটেছিল অর্চনা মামলায়। এ তো এখন প্রায় সকলে জানে, মানে এখন নয়, তখন জানত, এখনকার সকলে নয়, তৎকালীন সময়ের সকলে, যে এই মামলার অন্যতম আইনজীবী, বিশিষ্ট বলে খ্যাত, মানবাধিকার রক্ষক আইনজীবী হিসেবে প্রায় সর্বমহল স্বীকৃত, এই মামলা বেচে দেবার চেষ্টা করেছিলেন পদ আদায়ের জন্য। সরকারি পদ। অর্চনা মামলা ছিল আঁটোসাঁটো। সে মামলা কোয়াশ করা যেত না। তাই দিনের পর দিন, এমন সব প্যাঁচ কষছিল রুণুর স্বাভাবিক পক্ষ আর রুণুর হয়ে কাজ করা মীরজাফররা, যাতে মামলা অনন্ত কাল ধরে চলতে থাকে, চলতেই থাকে, তারপর কালের নিয়মে হারিয়ে যায়, দস্তাবেজ চাপা পড়ে যায়, আর বুলডগের মত কানওয়ালা রঞ্জিত গুহনিয়োগী আর তার শাকরেদরা সপদোন্নতি সুখে শান্তিতে বসবাস করতে থাকে।  


    সৌমেন গুহ শেষ পর্যন্ত তা ঘটতে দেননি।


  • বিভাগ : ব্লগ | ০২ এপ্রিল ২০২১ | ১১৪০ বার পঠিত | ৫ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
আরও পড়ুন
হে রাম! - Ranjan Roy
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বিপ্লব রহমান | ০৩ এপ্রিল ২০২১ ০৩:৫০104422
  • রোমহষর্ক পরিস্থিতির বিবরণ! সত্যিই এ এক ইতিহাসের যাত্রাই বটে। অথবা ইতিহাস যাত্রার স্কেচবুক। 


    ঘটনা পরম্পরা বুঝতে নতুন করে আবার আগের দুই কিস্তি পড়ে নিতে হলো। অসম্ভব শক্তিশালী লেখা, রিপোর্টাজ ধরনে লেখা হলেও কালের যাত্রা দৃশ্যকল্প, চরিত্র ও অনুসংগ খুব নিখুঁত। 


    এই লেখাটির জন্য অনেক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জেন, তাপস দা ❤️

  • aranya | 2601:84:4600:5410:807b:c978:3f06:3658 | ০৩ এপ্রিল ২০২১ ০৪:০২104423
  • মানুষের ইতিহাস এভাবেই লেখা হয়। 


    লেখা চলুক 

  • অনিন্দিতা | 160.202.36.48 | ০৩ এপ্রিল ২০২১ ০৯:৩৩104430
  • এমন প্রতিরোধের স্বর সোচ্চার থাকুক। পড়ছি। 

  • Kallol Dasgupta | ০৩ এপ্রিল ২০২১ ১১:৪১104440
  • এটাই কি শেষ কিস্তি ? জানি না। তবে আরো দুজন মহামান্যের কথা না  আসলে অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। নাম এই মুহুর্তে করছি না, তাপস নিজের মত করে লিখুক। 

  • Kallol Dasgupta | ০৩ এপ্রিল ২০২১ ১১:৪১104439
  • এটাই কি শেষ কিস্তি ? জানি না। তবে আরো দুজন মহামান্যের কথা না  আসলে অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। নাম এই মুহুর্তে করছি না, তাপস নিজের মত করে লিখুক। 

  • b | 14.139.196.16 | ০৬ মে ২০২১ ১৬:০১105610
  • তাপস এটা আরেকটু  বিস্তারিত করে লিখবেন না? 

  • aranya | 2601:84:4600:5410:5145:e5e6:2730:9508 | ০৭ মে ২০২১ ০৩:২৬105637
  • আমারও অনুরোধ রইল, আর বড় করে লেখার জন্য । 

  • Tapas Das | ০৮ মে ২০২১ ১৩:২০105704
  • বি, অরণ্যদা


    ভাবনাগুলো একটু ছিঁড়ে যাচ্ছে, আর সব তথ্যাদি হাতের কাছে পাচ্ছি না। ফলে লেখাটা এলোমেলো হয়ে যাচ্ছে কিনা বুঝতে পারছি না। সে জন্য দ্বিধা ও সংশয় হচ্ছিল, হচ্ছে কিছুটা। আরেক পর্ব লিখেছি। নিয়মিত হওয়া হবে না মনে হয়। 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। হাত মক্সো করতে প্রতিক্রিয়া দিন