• বুলবুলভাজা  ভোটবাক্স  বিধানসভা-২০২১  ইলেকশন

  • ভোট ও গৃহ পরিচারিকারা

    মৌসুমী বিলকিস
    ভোটবাক্স | বিধানসভা-২০২১ | ২৭ এপ্রিল ২০২১ | ৬১৫ বার পঠিত | ৩ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • সন্ধ্যা আক্রান্ত শহরের ফুটপাথ। শিয়ালদহ্‌ স্টেশনের অদূরেই কয়েকটি পরিবার ফুটপাথে সাজিয়েছে নিজস্ব সংসার। কেউ খুদে বাচ্চাকে পড়াচ্ছে, কেউ গল্পগুজবে তো কেউ রান্নায়।


    ফুটপাথে পড়াশোনা

    ঘরে ফেরার তাড়া শহুরে যানবাহনগুলোর। সিগনাল বিহীন হলেই প্রচণ্ড গতিতে ছুটে যাচ্ছে। দাঁড়িয়ে থাকলে টেল পাইপ ছড়াচ্ছে প্রবল ধোঁয়া। সেই ধোঁয়ার ভেতর গনগণে এক মাটির উনুনে রাত-খাবারের বন্দোবস্ত করে নিচ্ছেন মোহরজান বিবি (৪৫)। আলু-বড়ি-মাছের ঝোল ফুটছে টগবগ। সেই শব্দ ঢেকে যাচ্ছে যানবাহনের চিৎকারে। বছর তিরিশেক আগে এ শহরে আসা শুরু হয় তাঁর। মা করতেন চালের কারবার। মায়ের সঙ্গেই এই ফুটপাথে থাকা শুরু। খুব ছোট বয়সে বিয়ে হয়ে যায়। দুই মেয়ে, এক ছেলে। ছেলের জন্মের পর স্বামী মারা যায়। তখন থেকে গৃহ পরিচারিকা হিসেবে কাজ করতে শুরু করেন। প্রায় কুড়ি বছর ধরে আসেপাশের বাড়িগুলোতে কাজ করছেন। এই ফুটপাথের সবথেকে পুরনো বাসিন্দা। লক্ষ্ণীকান্তপুর লাইনে তাঁর গ্রাম। ভোটার কার্ড সেই ঠিকানায়। তাঁকে জিজ্ঞেস করা গেল,

    ভোট দেন?
    “হ্যাঁ।”
    ভোট দিয়ে আপনার জীবনে কিছু পরিবর্তন হল?
    “কই? ফুটপাথে ছিলাম, সেই ফুটপাথেই আছি।”
    বিজেপি এলে পরিবর্তন হবে?
    “জ্যোতিবাবুর আমল থেকে মমতাদিদির আমল সব দেখলাম। আমাদের আর কী পরিবর্তন হবে? বিজেপি এলে শুনছি সবাইকে তাড়াবে। দেখা যাক?”
    ভয় করে?
    “ভয় করে কী হবে? একদিন তো মরতেই হবে।”

    তাঁর বছর কুড়ির ছেলে স্নান সেরে প্যান্ট গুটিয়ে পরে মাকে দেখাতে এসেছে ঠিক আছে কিনা। মা তদারক করতে ব্যস্ত হয়ে পড়লেন। চুল আঁচড়ে নিতে বললেন। ছেলে যাবে কাছের মসজিদে নমাজ পড়তে। রোজা রাখাও শুরু হয়ে গেছে। এই ফুটপাথেই ভোরবেলা হবে ‘সেহরি’। আলোচনা গড়িয়ে গেল নানা দিকে।


    মোহরজান বিবি

    এই ফুটপাথেই থাকেন সেরিনা বিবি পুরকাইত (৩৩)। লক্ষ্ণীকান্তপুর লাইনে গ্রাম। বাসন মাজা, ঘর মোছা, কাচাকাচির কাজ করেন আশেপাশের তিনটে বাড়িতে। তিন সন্তানের জননী। বাচ্চারা কর্পোরেশনের স্কুলে পড়ে। স্বামী ভ্যান চালান। কথা শুরু হয় তাঁর সঙ্গে।
    লকডাউনে কী করেছেন?
    “লকডাউনের সময় বাড়ি চলে গেছিলাম। বসেই ছিলাম বাড়িতে। কিন্তু খাবার জোটাতে পারছিলাম না। খুব কষ্ট হচ্ছিল। গ্রামের কিছু লোকের দানে চলছিল। এভাবে কী চলে? তাই শহরে চলে এলাম।”
    এসেই কাজ পেলেন?
    “না না, করোনার জন্য কেউ নিতে চাইছিল না। কিছুদিন বসে থাকার পর কাজে নিল। এখন কাজ করছি।”
    গ্রামে কাজ আছে?
    “না। শুধু চাষের সময় কদিন কাজ থাকে। সব সময় তো চাষ হয় না।”
    ভোট দিয়ে আপনাদের কোনও সুবিধা হয়?
    “কী সুবিধা হবে? এই ফুটপাথে জিনিসপত্র আছে। সেসব তুলে নিয়ে এখান থেকে চলে যেতে বলছে!”
    কেন বলছে?
    “উপরে সব ভদ্দরলোকেরা থাকে। আমরা গরীব…”, (চুপ করে যান তিনি।)
    বিজেপি ক্ষমতায় এলে আরও ভাল হবে?
    “কী করে বলবো কে খারাপ করবে, কে ভাল করবে? কী করে বলবো আমরা?... ধর্ম নিয়ে তো বেশি যুদ্ধ বাঁধাচ্ছে। মসজিদ ভাঙছে, এটা ভাঙছে, ওটা ভাঙছে… একদমই উচিত না। যেমন মানুষ আছে, খেটেখুটে খাচ্ছে তেমনই তো ভাল।”
    যেসব বাড়িতে কাজ করেন ধর্ম নিয়ে কোনও সমস্যা হয়েছে?
    “আমি বাঙালি হিন্দু বাড়িতে কাজ করি। ধর্ম নিয়ে সমস্যা হয়নি।”
    এনআরসি হলে নাকি ঠিকমতো কাগজপত্র না দেখাতে পারলে মুসলিমদের তাড়িয়ে দেবে। ভয় লাগে না?
    “ভয় তো লাগে… আমরা তো অত পড়াশোনা জানি না। সব বুঝতে পারি না। কিন্তু চারটে কাগজ আছে, একটা নেই বলে জেলে ঢুকিয়ে দেবে? এটা ভুল করছে ওরা।”
    ভোট দেন কী আশা করে?
    “আমাদের কোনও আশা নেই। এটুকু জানি যে, যে-ই উঠুক যে-ই জিতুক খেটে খেতে হবে আমাদের।”


    সেরিনা বিবি পুরকাইত

    দীপা দাস (৪০) থাকতেন কাঁকুড়গাছির এক বস্তিতে। এখন শপিং মল হয়ে গেছে সেখানে। ফলে দীপার মতো অনেকেরই ঠাঁই হয়নি এই শহরে। যে সামান্য ক্ষতিপূরণ পাওয়া গেছে তা দিয়ে সোদপুরে ঠাঁই নিয়েছেন। কিন্তু কাজগুলো শহরে। রোজ অনেকটা পথ যাতায়াত। নিজের মাকে দেখতে হয়। দুই মেয়ে, বর, নাতিনাতনি নিয়ে সংসার। তাঁকে পাকড়াও করা গেল।

    লকডাউনে কী করলেন?
    “বাড়িতেই খুব অসুবিধায় ছিলাম। কিছুই সাহায্য পাইনি। আশেপাশের জমিতে শাকপাতা তুলে সংসার চালিয়েছি। তবে যেসব বাড়িতে কাজ করতাম তারা কেউ কেউ টাকা পাঠিয়েছে। তাই দিয়ে সংসার চালিয়েছি।”
    লকডাউনের আগে যেসব বাড়িতে কাজ করতেন এখনও সেগুলো আছে?
    “একই আছে। তবে কিছু কাজ চলে গেছে। টাকা কমে গেছে।”
    কোনও বাড়িতে অসম্মানের শিকার হয়েছেন?
    “একটা বাড়িতে হয়েছি। অসম্মানের জন্য সেই কাজ ছেড়েও দিয়েছি।”
    ব্যবস্থা নিয়েছেন?
    “না। চেষ্টা করিনি। কারণ, তাঁদেরকে খুব ভালবাসি, অনেক বছরের চেনা পরিচিত। থাক…”
    ভোট নিয়ে কী ভাবেন?
    “কিছু ভাবার নেই। যে-ই আসুক আমাদের যেন একটু উন্নতি হয়।”
    এতদিন ভোট দিচ্ছেন কোনও উন্নতি হয়েছে?
    “না, আমার কোনও সাহায্য হয়নি, লাভও হয়নি। গত সাত বছর ধরে ভোট দিচ্ছিও না, দেওয়ার ইচ্ছেও নেই।”
    কেন?
    “সোদপুরে যাওয়ার পর কাগজপত্র জমা দিয়েছি। কিন্তু কিছুতেই ভোটার লিস্টে নাম উঠছে না।”
    পার্টির লোকদের বলেননি?
    “হ্যাঁ। প্রতি বার বলি। প্রতি বার কাগজ জমা দিই। এবারও দিয়েছি। হলে হবে, না হলে না হবে। ছেড়েই দিয়েছি।”
    এবারের ভোটে বিজেপি-র খুব দাপট দেখা যাচ্ছে। কী মনে হচ্ছে?
    “জানি না… যে থাকার সে-ই থাকবে।”
    বিজেপি ধর্মে ধর্মে ভেদ করছে…
    “এসব করে তো কিছুই হবে না। সবাই বাঁচতে চাই। হিন্দু-মুসলিম কি আছে, সবাই তো খেটে খাবে। বিজেপি আসলে এনআরসিসি না কী একটা করবে… সেসব করলেও ক্ষতি হবে কত মানুষের!”
    কী চাইছেন?
    “আমি মনে করছি দাঙ্গা যেন না হয়, সব মানুষ যেন শান্তি মতো থাকে। আর আমরা যারা লোকের বাড়ি কাজ করি সেই মেয়েদের যেন উপকার হয়, যে-ই ক্ষমতায় আসুক।”


    দীপা দাস

    অঞ্জনা দাসও (৪৬) থাকতেন ওই একই বস্তিতে। তাঁকেও চলে যেতে হয়েছে শহরের আরেক দূরের বস্তিতে। নবদ্বীপের বাড়িতে থাকে ছেলে-বউ-নাতি-নাতনি। এখানে বরের সঙ্গে থাকেন। লকডাউনে দুজনেরই কাজ ছিল না।

    লকডাউনের মধ্যে কী করলেন?
    “ঘরে বসেই ছিলাম। চাল, সয়াবিন, তেল- এসব দু’জায়গা থেকে পেয়েছিলাম। স্থানীয় ক্লাবও দিয়েছিল। আমাদের রেশনের বড় কার্ড। ছোট কার্ড হয়নি। সেজন্য রেশন থেকে কিছুই পাইনি। আমরা বস্তির লোকরা সল্টলেকের ওদিকে যেতাম, শাক তুলতে। ওই শাক রান্না করে খেতাম। কী করবো, বাজার করার টাকা ছিল না।”
    লকডাউনের আগে যা আয় হত এখনও তা হয়?
    “না। আগে আট-দশ হাজার টাকা হত। এখন অনেক কমে গেছে। আগের সব কাজগুলো নেই। কোনরকমে চালাচ্ছি।”
    ভোট দিয়ে আপনার কোনও লাভ হয়?
    “আমার কোনও সাহায্যও হয় না, উপকারও হয় না। সত্যি কথা। এই জন্যই রাগ করে বলি, ভোট দেব না, চুপচাপ বসে থাকবো। হা হা হা…”
    বিজেপি ক্ষমতায় এলে কী আপনার আয় বাড়বে?
    “না না, যে-ই ক্ষমতায় আসুক ওরা নিজেদের ইনকাম…… আমরা যেরকম সেরকমই থাকবো।”
    আপনার আশেপাশে কোন পার্টির বেশি রমরমা দেখছেন?
    “আমার বস্তিতে দেখছি সব বিজেপি হয়ে গেছে। একটা বাড়ির দেয়ালে দেখি কি সব পার্টির চিহ্ন! তো তার সাথে বস্তির সবাই মজা করছে, ‘তুমি তো খুব চালাক! যেদিকে জল গড়াবে সেদিকে সুযোগ মত ঝুকবা মনে হচ্ছে?’ হা হা…”


    অঞ্জনা দাস

    দীপা ধর (৩৫) থাকেন বেহালা শীলপাড়ার এক বস্তিতে। কাজ করেন বেহালাতেই। তবে অনেকটা হেঁটে আসতে হয়। এবারই প্রথম তাঁর ও তাঁর ছেলের ভোটার তালিকায় নাম উঠেছে। দুজনেই একসঙ্গে ভোট দিতে যাবেন। তাঁর স্বামী বছর এগারো হল তাঁকে ছেড়ে গেছেন। দায়িত্বও নেননি, যোগাযোগও রাখেন না। তাঁর বিয়ে রেজিস্ট্রিও হয়নি, বিচ্ছেদের কাগজও নেই। ফলে ভোটার কার্ড হয়নি এতদিন।

    লকডাউনে কাজ ছিল?
    “কাজ করতে হয়নি। কিন্তু যেসব বাড়িতে কাজ করতাম সবাই মাইনে দিয়েছে। কিছু বাড়ি পুরো টাকা দিয়েছে। কিছু বাড়ি হাফ মাইনে দিয়েছে। কিন্তু কেউ কাজ থেকে ছাড়ায়নি।”
    ভোট দিয়ে জীবন পাল্টাবে মনে করছেন?
    “কী আর হবে! যে-ই ভোটে জিতুক আমাদের কাজ করে খেতে হবে। ভোট না দিয়ে যেরকম রাস্তায় পড়ে ছিলাম, ভোট দিয়েও সেরকমই থাকবো। আমাদের উন্নতি হবে না।”
    কে জিতলে ভাল হয়?
    “দিদি জিতলেই ভাল হয়।”
    এত লোক বিজেপি-তে চলে গেল কেন, কী মনে হচ্ছে?
    “গত এক বছরে কেউ গেল না। আজ হুট করে সবাই বিজেপি-তে চলে গেল কেন? নিশ্চয় টাকা পেয়েছে বলেই গেছে। সব সিনেমা আর্টিস্টরাও দেখলাম বিজেপি-তে গেল। টাকার লোভেই গেছে। এগুলো ঠিক না। সব নিজের সুবিধার জন্যই গেছে।”
    রাগ হয়?
    “হ্যাঁ। কিন্তু কাকে বলবো, কেই বা বুঝবে বলুন? আমরা দিন আনি দিন খাই। যাদের টাকা আছে তারাই বুঝছে না। আমরা তো কাজের লোক!”


    দীপা ধর

    ‘কাজের লোক’ কাজ করে যাবেন। কিন্তু তাঁদের কথা কি একবার ভেবে দেখবেন ভোটপ্রার্থী নেতানেত্রীরা? নোটবন্দী, লকডাউন, করোনা- সবকিছুই যে সবথেকে বেশি ওলোটপালোট করে দিয়েছে তাঁদের জীবন।

  • বিভাগ : ভোটবাক্স | ২৭ এপ্রিল ২০২১ | ৬১৫ বার পঠিত | ৩ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • | ২৮ এপ্রিল ২০২১ ১২:৩৯105238
  • এইসব মানুষদের মত  অনেক মানুষকে  আমিও  চিনি। এঁদের মধ্যে যাঁরা ভোট দেন তাঁরা নিজেদের সবচেয়ে কম ক্ষতি যাঁদের দ্বারা হবে মনে করেন তাদেরই ভোট দেন। 


    ও হ্যাঁ এঁদেরই বিজ্ঞ পন্ডিতরা 'ছাগল' বলে থাকেন। 

  • Prativa Sarker | ২৮ এপ্রিল ২০২১ ১৮:২৯105244
  • এইরকম লেখা আরো আসুক। চোখ খুলে দেয়।

  • আশিস নবদ্বীপ | 2401:4900:3a00:97df:c556:41c4:479e:4410 | ২৮ এপ্রিল ২০২১ ১৯:১৩105246
  • মাটির মানুষ দের কথা, কলকাতার নিচে যারা থাকেন, তাদের  কথা। আরও লিখুন। খুব ভালো লাগলো। 

  • Abhyu | 47.39.151.164 | ২৮ এপ্রিল ২০২১ ১৯:৫১105248
  • মৌসুমীর প্রতিবেদন আমার খুব ভালো লাগে।

    “না। চেষ্টা করিনি। কারণ, তাঁদেরকে খুব ভালবাসি, অনেক বছরের চেনা পরিচিত। থাক…”

    দরিদ্র মানুষের এই মহত্ত্বকে আমরা উচ্চ/মধ্যবিত্তরা প্রতিনিয়ত দুপায়ে দলিয়ে যাই। যিনি অপমানিত হন, তিনি তবু ভালবাসেন। আর আমাদের অপমান করতে বাধে না। একদিন অপমানে হতে হবে তাহাদের সবার সমান।

    ভোটের খবর নয়, তবু এই প্রসঙ্গে মনে হল এই লিঙ্কটা তুলে রাখি https://indianexpress.com/article/india/kerala/rs-2-lakhs-donated-only-rs-850-left-in-account-kerala-beedi-worker-is-epitome-of-benevolence-7289780/

  • সীমা ঘোষ | 202.168.85.214 | ২৯ এপ্রিল ২০২১ ০৭:৫৪105264
  • খবর জানা দরকার ঠিক এইভাবে ভোটবাজিতে সাধারণ মানুষের কী উপকার হচ্ছে । কিন্তু, কথা হলো কাজ করে প্রত্যেকেই খাবে ।এর কোনো বিকল্প নেই ।তবে মানুষের ন্যূনতম প্রয়োজন তো নির্বাচিত সরকার কে নিতে হবে । সর্বোপরি শিক্ষিত সচেতন মানুষের বিশাল বড় একটা অংশ আলোচনা সমালোচনা সব করে কিন্তু নির্বাচনে প্রতিনিধিত্ব করতে এগিয়ে আসছে না। কাজেই অশিক্ষিত ক্রিমিনাল কেসের আসামি দের হাতে দেশটা তুলে দিলে একবার কংগ্রেস একবার বাম তৃণমূল  গেরুয়াা যেই আসুুু দেশটার সাধারণ মানুষের অবস্থা বদলাবে না ।

  • Milu | 103.139.8.8 | ২৯ এপ্রিল ২০২১ ১৩:১১105269
  • নাইস 

  • বাইজিদ হোসেন | 2409:4061:2c8d:dc73::a5cb:c604 | ২৯ এপ্রিল ২০২১ ১৪:৩৪105271
  • সরেজমিনে তদন্ত সাপেক্ষে এই সত‍্যানুসন্ধান এবং সহজ সরল ভাবে ওদের ভাষায় সেই সত‍্যের প্রকাশ এই লেখাটিকে বাস্তবানুগ ও মর্মস্পর্শী করেছে।


    ভোট নামক লোক দেখানো প্রহসনের মুখোশ খুলে গেছে।

  • Prabir Biswas | ২৯ এপ্রিল ২০২১ ১৮:৫৭105272
  • এটা কি ধরনের লেখা। এতো anti bjp প্রোপাগান্ডা ছড়ানো।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ক্যাবাত বা দুচ্ছাই মতামত দিন