• বুলবুলভাজা  ধারাবাহিক  স্বাস্থ্য  শনিবারবেলা

  • করোনার দিনগুলি - ষোড়শ কিস্তি

    ঐন্দ্রিল ভৌমিক
    ধারাবাহিক | স্বাস্থ্য | ২২ আগস্ট ২০২০ | ৬৫১ বার পঠিত
  • জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • করোনার দিনগুলি #৫৫

    মন মেজাজ অত্যন্ত খারাপ। চারদিক থেকে চিকিৎসক সহকর্মীদের মৃত্যুর খবর আসছে। যাঁকে চিনতাম, শ্রদ্ধা করতাম, সেই হঠাৎ করে নেই হয়ে যাচ্ছেন।

    তাছাড়া একঘেঁয়েমিও আসছে। দিনের পর দিন রোগী দেখতে কার ভালো লাগে? তাও অধিকাংশ জ্বরের রোগী।

    খারাপ মেজাজে রোগী দেখছিলাম। সামনের মাঝবয়সী রোগিনী কাঁদছেন। বললাম, 'কান্না শেষ করে চটপট বলুন।'

    রোগিনী বললেন, 'ডাক্তারবাবু, হাজব্যান্ড করোনা হয়ে ........... (একটি নামকরা কর্পোরেট হাসপাতাল)-এ ভর্তি। ভেন্টিলেশনে আছেন। অবস্থা ভালো নয়। ওখানকার ডাক্তারবাবু বলেছেন, করোনার সাথে ওনার ডেঙ্গুও হয়েছে।'

    বললাম, 'দেখুন, এখন শক্ত থাকতে হবে। ভেঙে পড়লে কি করে চলবে?'

    'ডাক্তারবাবু, আমিই যাতায়াত করছিলাম। টাকা পয়সার জোগাড় যন্ত্র করছিলাম। কাল থেকে আমার জ্বর আসছে। কাশি হচ্ছে। মাথা তুলতে পারছি না। এবার কে ছোটাছুটি করবে?'

    আমি বললাম, 'বাড়িতে আর কেউ নেই?’

    উনি বললেন, 'একমাত্র মেয়ের পুনেতে বিয়ে হয়েছে। ওর পক্ষে বাচ্চা নিয়ে এ সময় আসা অসম্ভব।'

    এসব সমস্যার সমাধান আমার হাতের বাইরে। ওষুধ পত্র লিখে বললাম, 'আপনাকেও করোনা পরীক্ষা করতে হবে। কালকেই করে নিন।'

    ভদ্রমহিলা উঠে দাঁড়ালেন। বললেন, 'যদি রিপোর্ট পজিটিভ আসে তখন কি করব? বাড়ির বাইরে তো বেরোতে পারবো না? না না..... এখন টেস্ট করা যাবে না। এমনিতেই কোথা থেকে টাকা জোগাড় করবো সেই চিন্তায় ঘুম নেই।'

    গৌড় দরজা ফাঁক করে মাথা বাড়ালো। বলল, 'ডাক্তারবাবু, আমাকে আবার একজন ফোন করেছিল। জানতে চাইছিলো আপনার করোনা হয়েছে কিনা।'

    এই হয়েছে এক মুশকিল। সারাদিন রোগী দেখার পরেও নিস্তার নেই। তাদের ফোনের ঠেলায় অস্থির। তার সাথে এই সময় উৎসাহী জনতার নিত্য নতুন জিজ্ঞাসা।

    'ডাক্তারবাবু, কাঁচা হলুদ কি করোনা প্রতিরোধ করে?'

    'পালস অক্সিমিটার কোন কোম্পানির কিনব?'

    'আমাজনের অক্সিজেন কনটেইনার গুলো কি কাজের জিনিস?’

    তার সাথে মাঝে মাঝেই ফোন পাচ্ছি, 'ডাক্তারবাবু, আপনি ভালো আছেন তো? শুনছিলাম... মানে একজন বলল, আপনার নাকি করোনা......'

    গৌড়কে বললাম, 'ঝটপট কয়েকজন রোগীর প্রেশার মেপে পাঠাও। বড্ড ভিড় জমে গেছে। ভিড়টা ফাঁকা করে দিই।'

    একমনে রোগী দেখছিলাম। একটি মধ্যবয়স্ক মানুষ মাথা বাড়ালেন, 'আজ্ঞে, আপনি মায়ের প্রেশার মেপে জানাতে বলেছিলেন।'

    ইনি ভ্যান চালান। ওনার মা লকডাউনে প্রেশারের ওষুধ বন্ধ করে দিয়েছিলেন। দশ দিন আগে স্ট্রোক হয়ে ডানদিক পড়ে গেছে। যখন আমার কাছে নিয়ে এসেছিলেন, উপরের প্রেশার ২০০ ছুঁয়েছে।

    সোদপুরে বাড়ি। ভর্তি করতে বলেছিলাম। উনি জানিয়েছিলেন, 'ভর্তি করা সম্ভব নয়। ঘোলা হাসপাতালে নিয়ে গেছিলাম, বলেছে আরজিকর নিয়ে যেতে।'

    স্ক্যান করতে বলেছিলাম। জানিয়েছিলেন, 'টাকা পয়সা জোগাড় করে করার চেষ্টা করব।'

    গ্লুকোমিটারে সুগারটা মাপা হয়েছিল। সেটাও চারশোর উপরে। ওষুধ পত্র লিখে বলেছিলাম, দশদিন বাদে প্রেশার আর সুগার মেপে জানাতে। বুড়ি মাকে আর এদ্দূর টেনে আনতে হবে না।

    প্রেশার আগের চেয়ে কমেছে। বললাম, 'সুগার মেপেছো?’

    উনি বললেন, ‘ডাক্তারবাবু, যদি ঐ যন্ত্রটা দিয়ে আরেকবার মেপে দেন।'

    'মানে?’

    'মাকে ভ্যানে করে নিয়ে এসেছি ডাক্তারবাবু।'

    রেগেমেগে বললাম, 'মাকে বাড়ি থেকে বের করতে বারণ করলাম, আর তুমি মাকে এই অসুস্থ শরীরে দশ কিলোমিটার ভ্যানে করে নিয়ে এলে?’

    উনি কাঁচুমাচু মুখ করে বললেন, 'কি করবো ডাক্তারবাবু, কেউ প্রেশার মাপতে চাইছে না। একজন বলল বাড়ি গিয়ে মাপতে পারে। একশো টাকা নেবে। সুগারও একশো টাকা। এই অকালে অত টাকা কোথায় পাব?’

    বললাম, 'চলো, মাকে যখন নিয়েই এসেছ, আরেকবার দেখি।'

    বাইরে গিয়ে দেখি ভ্যানের উপর বুড়ি বালিশে হেলান দিয়ে রীতিমত বসে আছে। বৌমা একহাত দিয়ে বুড়িকে জড়িয়ে ধরেছে।

    বললাম, 'এই তো, দিব্যি আছো ঠাকুমা। এই লকডাউনের বাজারে বেশ ঘুরে বেড়াচ্ছো।'


  • বিভাগ : ধারাবাহিক | ২২ আগস্ট ২০২০ | ৬৫১ বার পঠিত
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • মৌমিতা | 2409:4061:69c:5458:a692:7e7b:7bf3:92ef | ২৩ আগস্ট ২০২০ ০০:২৫96547
  • Hats off, ডাক্তারবাবু। ভাগ্যবান তাঁরা যাদের সামনা সামনি এমন ডাক্তারবাবুরা আছেন।

  • Arun Chakrabarti | ২৩ আগস্ট ২০২০ ০০:৫০96550
  • দারুণ সুন্দর লেখা!এত সাবলীল ও সচ্ছন্দ!চালিয়ে যান৷

  • বিপ্লব রহমান | ২৩ আগস্ট ২০২০ ০৫:২৮96554
  • এউ ধারাবাহিকটি মনে সাহস  জোগায়, মহামারীতে বিবর্ণ মুখগুলোর কথা বলে। ব্রেভো ডাক্তার! 

    এবারের পর্ব কিছুটা সংক্ষিপ্ত মনে হলো        

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। চটপট মতামত দিন