• বুলবুলভাজা  ধারাবাহিক  স্বাস্থ্য  শনিবারবেলা

  • করোনার দিনগুলি - দ্বিতীয় ঢেউ - সপ্তম কিস্তি

    ঐন্দ্রিল ভৌমিক 
    ধারাবাহিক | স্বাস্থ্য | ২৩ মে ২০২১ | ৫৩৩ বার পঠিত | ১ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • ~~ ১৭ ~~

    মৃত্যু মিছিল


    এরকম অকারণে মৃত্যু মিছিল কোনোদিনও দেখিনি। ডাক্তারি পাশ করার পর থেকেই একটানা রোগী দেখে যাচ্ছি। একাধিক সরকারি হাসপাতালে ডিউটি করেছি। মেডিকেল কলেজে মেডিসিনে হাউসস্টাফশিপ বা পোস্ট গ্রাজুয়েট করার সময় অনকলের দিনে চিরকাল নাইট ডিউটি দিয়েছি। এক এক রাতে পাঁচটি থেকে ছটি মানুষের ডেথ সার্টিফিকেট লিখতে হয়েছে। তবুও এতটা অসহায় কোনদিন বোধ করিনি।

    মৃত্যুর আগে পর্যন্ত প্রতিটি মানুষের জীবন বাঁচানোর জন্য আন্তরিক ভাবে লড়েছি। সরকারি হাসপাতালের পরিকাঠামোর অভাব হয়তো ছিল, কিন্তু তা বলে চুপ করে বসে কারও মৃত্যু মেনে নিই নি। অনেক রোগী বেড পাননি। তবু মেঝেতেই রোগীর শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত এমন কী নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরও চেষ্টা করেছি। শুধু আমি একা নই, আমার সাথে অন্যান্য চিকিৎসক এবং জুনিয়ার চিকিৎসকরাও আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন। নার্সদিদিরা, ওয়ার্ডবয় ভাইরা সাধ্যের বাইরে গিয়েও অনেক সময় সাহায্য করেছেন।

    কিন্তু লড়াইয়ের সুযোগ না দিয়েই এতো সহজে প্রাণের অপচয় দেখিনি আমি। এই পৃথিবীতে সবচেয়ে দামি মানুষের জীবন। সেই দুর্মূল্য জীবণ এতো অনাড়ম্বর ভাবে চলে যেতে দেখে স্বব্ধ হয়ে যাচ্ছি।

    আমার এক অত্যন্ত পরিচিত ছেলের বাবা কোভিডে আক্রান্ত হলেন। জ্বর, কাশি কিছুতেই কমছে না। স্যাচুরেশনও কমছে। ছেলেটিকে বললাম, ‘হাসপাতালে ভর্তি কর।’

    ছেলেটি বলল, ‘দাদা, হাসপাতালে বেড পাওয়া যাচ্ছে না। বাড়িতেই অক্সিজেনের ব্যবস্থা করেছি। তুমি কী কী লাগবে লিখে দাও। আমি সব ব্যবস্থা করছি।’

    বললাম, ‘বাড়িতে ম্যানেজ করা যাবে না। তুই সরকারি হেল্প লাইন নাম্বারে ফোন কর। বেড যোগাড় কর। সে সময়টুকু বাড়িতে অক্সিজেন দে। কিন্তু ভর্তি করতেই হবে।’

    পরের দিন ছেলেটি আবার এলো। বলল, ‘বাবা কিছুতেই হাসপাতালে ভর্তি হবে না। অক্সিজেন দিলে স্যাচুরেশন ৮৯-৯০% থাকছে। তুমি পরীক্ষা নিরীক্ষা কী কী করতে হবে লিখে দাও।’

    নিমরাজি হয়ে লিখে দিলাম। আবার বললাম, ‘তুই বাবাকে ভর্তির চেষ্টা কর।’

    রিপোর্ট দেখাতে এলো। সি আর পি, ডি ডাইমার সবকিছুই বেশ বেশি। বললাম, ‘রিপোর্ট ভাল না। ভর্তি কর।’

    ও বলল, ‘বাবা বেশ ভালো আছে। অক্সিজেন ছাড়াই ৯২-৯৩% স্যাচুরেশন থাকছে। জ্বরও আসছে না। ভাবছি কালকেই সিটি স্ক্যানটা করে নেব।’

    আমিও স্বস্তি বোধ করলাম। এতোগুলো দিন যখন কেটে গেছে, জ্বরটাও যখন কমে গেছে তখন একটু ভরসা করাই যায়। বললাম, ‘তাহলে সাবধানে রাখিস। খুব প্রয়োজন ছাড়া যেন বিছানা থেকে না নামেন।’

    দুদিন পর তখন কাকুর দোকানে রোগী দেখছি, ফোন পেলাম, ছেলেটি আকুল হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েছে, ‘বাবাকে বাঁচাতে পারলাম না গো। বিকাল থেকে হঠাৎ শ্বাসকষ্ট। যোগাযোগ করে কলকাতার এক নার্সিং হোমে নিয়ে গেছিলাম। কিন্তু পৌঁছানোর আগেই বাবা মারা গেছেন।’

    যখন ডেথ সার্টিফিকেট লিখছিলাম ছেলেটির মুখের দিকে তাকাতে পারছিলাম না। শুধু মনে হচ্ছিল কেন আমি সেদিন আরো জোড় দিয়ে বলতে পারিনি এনাকে হাসপাতালে ভর্তি করতেই হবে। তাহলে হয়তো ওর বাবা এখনও বেঁচে থাকতেন।

    তবে এর থেকেও অকারন মৃত্যু দেখেছি। আমারই এক রোগী পাশের পাড়ায় থাকেন। তাঁর সুগার, প্রেশার, হার্টের সমস্যা, কিডনির সমস্যা সবকিছুই আছে। বাড়ির লোক ওনাকে আনলেন জ্বর নিয়ে। তিনদিন ধরে জ্বর, মুখে কিছুই খেতে পারচ্ছেন না। বাড়ির লোককে বললাম, ‘হাসপাতালে ভর্তি করলে ভালো হয়। অন্তত কাল কোভিড পরীক্ষাটা করবেন। পজিটিভ এলে সরাসরি কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করবেন। বাড়ির লোকটি একজন যুবক ছেলে। সম্পর্কে রোগীর নাতি। সে ঘাড় নেড়ে জানালো ঠিক আছে।

    যুবকটি আসলো ঠিক আটদিন পর। কাঁচুমাচু মুখে বলল, ‘ডাক্তারবাবু, একবার যেতে হবে। দাদু মারা গেছে।’

    গিয়ে দেখলাম, কোভিড টেস্টটাও করা হয়নি। একেবারে বিনা চিকিৎসায় বৃদ্ধ মারা গেছেন। মারা যাওয়ার পরও তাঁর ঘরে কেউ ভয়ে ঢুকছে না।

    তবে হাসপাতালে পাঠালেই যে সব সমস্যার সমাধান তাও নয়। একজন পঞ্চাশোর্ধ ভদ্রলোক বাড়ির চেম্বারে এলেন টোটো করে। মাথা তুলে ঠিক করে বসতেই পারছেন না। স্যাচুরেশন ৭৩%। বললাম। ‘এখুনি হাসপাতালে ভর্তি না করলে একে বাঁচানো যাবে না।’

    পরের দিন গৌড়ের কাছে খবর পেলাম ভদ্রলোককে নিয়ে ওঁর বাড়ির লোক বারাসতে একটি সরকারি হাসপাতাল সহ আরো তিনটি নার্সিং হোমে ঘুরেছেন। কোথাও ভর্তি নেয়নি। শেষপর্যন্ত তাঁকে বাড়িতে এনে রাখা হয়েছিল। অক্সিজেনেরো ব্যবস্থা করা হয়েছিল। ভদ্রলোক রাতেই বাড়িতে মারা গেছেন।

    রোজই দু’একজন রোগীর মৃত্যু সংবাদ শুনছি। আত্মবিশ্বাস ক্রমশ কমে যাচ্ছে। কি করলে মরণাপন্ন রোগীদের বাঁচানো যাবে বুঝতে পারছি না। মাঝে মাঝে মনে হচ্ছে চেম্বার টেম্বার ছেড়ে ছুড়ে পালিয়ে যাই। কিন্তু মহামারীর মধ্যে সেটাও সম্ভব নয়। মৃতব্যক্তির রোগীর পরিবারের মুখের দিকে তাকালে এক অপরাধ বোধ ঘিরে ধরছে। বারবার মনে হচ্ছে, চিকিৎসক হিসাবে তাঁরা আমার উপর যে ভরসা করেছিলেন, আমি সেই ভরসার মর্যাদা দিতে পারিনি।

    কেউ কী সুস্থ হচ্ছেন না। নিশ্চয়ই হচ্ছেন। কিন্তু মুশকিল হলো সুস্থ রোগীদের স্মৃতি বেশীদিন থাকে না। মৃতরোগীরা দীর্ঘদিন হৃদয়ে বেঁচে থাকেন। নির্ঘূম রাতে তাঁদের কথা কেবলই মনে পরে। জয় নয়, মানুষ সারাজীবন কেবল পরাজয়ের স্মৃতিগুলিকেই বয়ে চলে।


  • বিভাগ : ধারাবাহিক | ২৩ মে ২০২১ | ৫৩৩ বার পঠিত | ১ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বিপ্লব রহমান | ০৪ জুন ২০২১ ১১:৩৪494538
  • খবরে দেখছি, দিনরাত জ্বলছে দিল্লীর মহাশ্বশানের আগুন। দাহ করার লোক নাই, গঙ্গায় ভাসিয়ে দেওয়া হচ্ছে লাশ। আর এপারে ঢাকার রায়েরবাজারে আগাম খুঁড়ে রাখা হচ্ছে সার সার কবর। মৃত্যুর মিছিল চলছেই।

    স্রেফ উদাসীনতায় মহামারীতে গতি সঞ্চার হয়েছে! ভাবা যায়?   

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। সুচিন্তিত মতামত দিন