• বুলবুলভাজা  আলোচনা  বিবিধ

  • এক বক্তার বৈঠক

    সম্বিৎ বসু লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | বিবিধ | ২৩ মে ২০১০ | ৫৪৩ বার পঠিত
  • শম্ভু ¢মত্র (সংগ্রাহক: শঙ্খ ঘোষ); এক-বক্তার বৈঠক; (কলকাতা: তালপাতা, ২০০৮); পৃষ্ঠাসংখ্যা ১৬৪; মূল্য ১০০ টাকা

    আমাদের প্রজন্ম যে শুধু শম্ভু ¢মত্র মশাইয়ের অ¢ভনয় দেখে¢ন তা নয়, বাংলা ¢থয়েটারে ওনার অভিনয়ধারার কোন ডাকসাইটে অ¢ভনেতার দেখাও পাওয়া যায়¢ন। কুমার রায়ের প¢রণত বয়সের অ¢ভনয় অবশ্য দেখা গেছে। ¢কছুটা অমর গাঙ্গু¢লরও। ¢কন্তু পরবর্তী প্রজন্মের যে সব অ¢ভনেতারা, ¢কছুটা হলেও, শম্ভুবাবুর সঙ্গে কাজ করেছেন - যেমন সৌ¢মত্র বসু, শাঁও¢ল ¢মত্র প্রমুখরা - তাঁদের বড় কাজ প্রায় আর চোখেই পড়ে না।
    এ খেদ বড় করে গেঁড়ে বসে শঙ্খ ঘোষ সংগ«¢হত এক-বক্তার বৈঠক বইখানা পড়লে। শম্ভু ¢মত্রর আগের বইগুলো, ¢বশেষত: নাটক রক্তকরবী ¢ক সন্মার্গ সপর্যা পড়লে একজন সে¢রবСল অ¢ভনেতার আত্মকথনে নাটক হয়ে ওঠার গল্প যে শুধু পাওয়া যায় তা নয়, ওনার ¢চন্তার স্বচ্ছতা ও নাটকের মতন আবেগ¢ভ¢ত্তক ¢শল্পকলার প্রকাশে কি প¢রমাণ বু¢দ্ধর ব্যবহার আছে সে জেনে উদ্বেল হতে হয়।
    কলকাতা ¢বশ্ব¢বদ্যালয়ের আম¢ন্ত্রত বক্ত«তার ¢ল¢খতরূপ কাকে বলে নাট্যকলা যে বই ¢হসেবে পাওয়া যায়, এক-বক্তার বৈঠক বই¢ট সেই গোত্রের। মুখের কথাকে ¢ল¢খতরূপে ধরা। আশংকা থাকে একজন অভিনেতার, ¢বশেষত: শম্ভু ¢মত্রর মতন অ¢ভনেতার, কথনকে ¢ক সেইভাবে লেখায় ধরা সম্ভব? যখন বই ¢লখেছেন, তখন জানেন তাঁর বক্তব্য বহন করার জন্যে দীর্ঘ-চ¢র্চত ও প¢রশী¢লত ক®¾ঠর সাহায্য ¢ত¢ন পাবেন না। করতে পারবেন না অনুশী¢লত মুখ ও দেহের পেশীর ব্যবহার।
    কাজেই ভাষাকে সেইভাবেই ব্যবহার করেছেন। ¢কন্তু ক¢থকা বা সাক্ষাৎকারে তো সে ভাবনা নেই। ¢নজেও বলেছেন, "হুবহু আমার কথা য¢দ তুলেও দেওয়া যায় তবু তাতে কোন্‌ কথাটা আ¢ম ব্যঙ্গ করে বলে¢ছ আর কোন্‌ কথাটা অনেক থেমে থেমে বাধো-বাধো অনুভবে বলে¢ছ, আর কোন্‌টা গড়গড় করে, এসব ধরা পড়ে না।' কাজেই ¢ঠক কতটা ধরা পড়ল তাঁর বক্তব্য? তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণ, যতটা ধরা পড়ল সে ¢ক যথেষ্ট?
    এর ওপর শম্ভু ¢মত্রর এই বক্তব্য টেপ করা হয়ে¢ছল আজ থেকে পঁয়¢ত¢রশ বছর আগে। কালের চাপে সেই টেপের বেশ ¢কছু অংশ উদ্ধার করা যায়¢ন। কাজেই কথাগুলো অংশ¢বশেষে খাপছাড়া। সম্পাদক ¢হসেবে (¢নজেকে "সংগ্রাহক' বলে নামাং¢কত করেছেন বইতে) শঙ্খ ঘোষ অনেক জায়গাতেই অল্প কথায় প্রেক্ষিত ধ¢রয়ে ¢দয়েছেন বটে, ¢কন্তু সর্বত্র যে তা খুব কাজের হয়েছে এমন কথা বলা যায় না।
    সূচীর বদলে বইতে যে প্রসঙ্গক্রম আছে তা এইরকম -
    ই¢ডপাস, জার্মা¢নতে, এখানে; ইমোশন আর সে¢ন্টমেন্ট; প¢শ্চমের চোখে এদেশের নাটক; ক¢বতার কথা; অ¢ভনয়ের অবলম্বন; সো¢ভয়েটের অ¢ভজ্ঞতা; ভালো অ¢ভনয় চেনা; ¢শ¢শরকুমারের সঙ্গে; মুক্তধারা, রক্তকরবী; প্রফুল্ল আর ¢বশ্বাসঘাতকতা; রক্তকরবী-র প্রযোজনা; খালেদ চৌধুরী; দলের অ¢ভনেতারা; ¢ভন্নরকম নাটক, ¢ভন্নরকম অ¢ভনয়; গানে বা ক¢বতায়; মা-বাবার কথা; তৈ¢র হওয়ার সময়; যাত্রার অ¢ভজ্ঞতা; খোলা জায়গার পরীক্ষা; চাঁদ ব¢ণক; সংযোজন।
    এই প্রসঙ্গক্রম দেখলেই বোঝা যায় যে মোটামু¢ট ¢তনরকম ¢জ¢নস ¢নয়ে কথা বলেছেন শম্ভুবাবু - ¢বশেষ কোন প্রযোজনা, নাটক বা আর্ট সম্বন্ধে সাধারণ আলোচনা আর একেবারে ব্য¢ক্তগত ¢বষয়। যেখানে সাধারণ আলোচনা করেছেন, সেগুলো ওনার ¢নজের অ¢ভজ্ঞতা ও ¢চন্তায় জা¢রত হয়ে এমন রূপ ¢নয়েছে যে পাঠককে ভাবতে বাধ্য করে। যেমন 'ইমোশন আর সে¢ন্টমেন্ট' ¢নয়ে বলছেন -
    "আমরা কিরকম ভয় ক¢র ইমোশনকে। হ্যাঁ? ভা¢ব যে, কোনো শক্‌ড(ড়বষদযনধ) ইমোশান বা কোনো শক্‌ড জাজমেন্ট তো আছে, তাকে ¢নয়েই মানুষ বাঁচে। সেইগুলো ঢুকলেই যেন খারাপ হয়ে যাবে। তখন, যখনই ক¢র, তখন একটা ¢ড-হাইডেÐটেড চেষ্টা ক¢র - ¢ড-হাইডেÐটেড রূপের চেষ্টা ক¢র। এবং সেইটেকে মনে ক¢র খুব ইন্টেলেকচুয়াল ব্যাপার হল।'

    অন্য জায়গায় ¢হ¢ন্দ গান ¢নয়ে বলছেন - "ওই যে পাঁচটা গলা আছে - ওই পাঁচটা গলা ভারতবর্ষে তো - এমন তো নয় যে ওদের একটা পালক ¢পতা আছে যে ইচ্ছে করে ওদেরই কেবল ¢দচ্ছে, এমন তো নয়। একদম ¢স্টÐকট কম্‌¢প¢টশন। না? কত লোক এসে যেতে পারত। এই পাঁচজনকে তো হটাতে পারছে না কেউ। এই পাঁচজনের গলায় কি-ই-ই না করতে পারে - কি না করতে পারে! তাতে দেখবেন অনেক ¢মউ¢জকাল ই¢ডয়ম্‌স - অনেক নতুন বার করছে। অনেক তার মধ্যে চ্যাংড়া¢মও করছে। আপনার মনে হবে যে গভীর ভাবটাব কোথায় গেল। নেই, গভীরভাব নেই হয়তো। ¢কন্তু এমন একটা সচলতা এনেছে, সরসতা এবং সচলতা, সে রাহুলদেব বর্মণের ইয়েতেও আছে ... এটা য¢দ আমরা ¢শখতাম, তালে ভালো হতো। নকল করার তো কোনো দরকার নেই। ¢কন্তু ওই যে কৌশলটা, য¢দ আ¢ম ¢শখতাম। এবং আমার ¢নজের ¢মউ¢জকাল ই¢ডয়ম তৈ¢র করতাম - যে ই¢ডয়মগুলো ফট করে গলায় আসবে না বটে - অন্য লোকের আর
    কি - তাহলে বাংলা গান একটা নতুন হত।'
    এটাই শম্ভু ¢মত্রর আর্টের মূল কথা। চ¢র্বতচর্বন নয়। নতুন করে ভেবে ¢কছু করা। নতুন হতে হবে, ভাবনাও থাকতে হবে। ¢ব¢ভন্ন প্রসঙ্গে, নানা ফর্মে এই কথা বারবার উঠে এসেছে - "(যেমন ¢ফল্‌মে করা হয়।) আ¢ম জা¢ন যে দেখলে পরে একটা ইমোশন জাগাতে হবে। যেগুলো স্বীক«ত। একটা মেয়ে একদম শাদা শা¢ড় পরে দাঁ¢ড়য়ে আছে, হাওয়ায় চুলগুলো উড়ছে, মুখটা শুকনো। দেখালে, বেশ তাকে কেমন দু:খের প্রতীক বলে মনে হবে। এই-যে জানা ছ¢ব, এইটেকে দেখালে আ¢ম ভালো ছ¢বকার হব। এই তো? ¢কন্তু এতে ভাঙাটা কোথায়? ছাঁচ ভেঙে ফেলাটা কী করে আসবে? ছাঁচ ভেঙে ফেলতে গেলে পরে আমার ¢চন্তাটা না প্রকাশ করলে তো হবে না?'
    এই ধরণের ¢চন্তাকে কথায় সা¢জয়ে বলা রয়েছে বলে যে কোন ধরণের আর্ট¢পপাসুর পক্ষে এ বইয়ের মজা খুব। এবং এ বই একবার পড়া হয়ে গেল আর "হয়ে গেছে' বলে তাকে তুলে রাখলাম তাও নয়। প্র¢তবার নতুন পাঠ পাওয়া যায়। প্রথমবার কন্টেক্সটের কচক¢চতে ¢কছু পথভ্রষ্ট হবার সম্ভাবনা আছে। ¢কন্তু ¢দ্বতীয়বার পড়তে গেলে পথ চেনা হয়ে যায় - কোন জায়গাগুলোতে মনে মনে ঢ্যাঁড়া কেটে রেখে¢ছ, মনে পড়ে যায়।
    নাটকের, বা সাম¢গ্রকভাবে পারফর¢মং আর্টের, নন্দনতত্ত্ব আর তার ব্যবহা¢রক প্রয়োগ ¢নয়ে ¢কছু আলোচনা থাকলে ব্য¢ক্তগতভাবে আমার আরও ভাল লাগত। ই¢ঙ্গত এসেছে মাঝেমাঝে। শম্ভু ¢মত্রর অন্যান্য লেখাপত্র পড়লেও এরকম আভাস পাওয়া যায় যে ওনার মত মানুষের কাজে হয়তো কখনও কখনও ইন্টেলেকচুয়া¢লজম আর এসথে¢টক্সের দ্বন্দ্ব এসেছে। ¢বশেষত যখন গড়পড়তা ¢শ¢ক্ষত বাঙালির সম¢ষ্টগত চেতনায় "গ্রুপ ¢থয়েটার' - এবং সেই সূত্রে পুরো নবনাট্য আন্দোলনই - একধরণের ইন্টেলেকচুয়াল (এবং, বলা ভাল, এ¢ল¢টস্ট) আস্ফালনে প¢রণত হয়ে¢ছল। তাছাড়া ¢ছল অচলায়তন, যাঁর সঙ্গে সময়ে সময়ে ওনাকে লড়াই করতে হয়েছে। যেমন রক্তকরবী প্রযোজনায় পোষাকের ব্যবহারে শেষ পর্যন্ত নন্দলাল বসুর মধ্যস্থতায় শা¢ন্ত¢নকেতনি গুরুদেব-কালচারের নান্দ¢নক ¢চন্তার ¢বরুদ্ধে যেতে পেরে¢ছলেন। বইয়ের এই খাম¢ত থাকা সত্বেও যা পাওয়া গেল তা দীর্ঘ¢দনের ¢চন্তাভাবনা সঙ্গী হয়ে থাকবে।
    উপ¢র পাওনা ¢কছু অ্যানেকডোট। ¢শ¢শরকুমার ভাদুড়ির সঙ্গে এক¢ট কথোপকথন - সীতা নাটকে ব¢শষ্ঠর ভূ¢মকা করার ব্যাপারে - তো অ¢ত মনোহর। উদ্ধৃতি দেওয়ার লোভ সামলালাম। আর ছোট করে উপ¢র পাওয়া গেল শঙ্খ ঘোষের সূচনাকথা। কথোপকথনের ই¢তহাস। এবং ছোট ¢কন্তু অ¢ত-উৎক«ষ্ট সংযোজন¢ট। শম্ভু ¢মত্রর লেখা ও বলা এবং শম্ভু ¢মত্রর ওপর সংগ্রহযোগ্য বইয়ের তা¢লকায় এক-বক্তার বৈঠক ওপর¢দকে থাকবে। ¢হরণ ¢মত্রর প্রচ্ছদে তালপাতা-র প্রকাশনা¢ট দেখে বাংলা বইয়ের প্রকাশনার ব্যাপারে গ¢র্বত হওয়া যায়।

     

  • আরও পড়ুন
    Vision - Mousumi Banerjee
  • বিভাগ : আলোচনা | ২৩ মে ২০১০ | ৫৪৩ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লড়াকু মতামত দিন