এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  আলোচনা  রাজনীতি

  • অ-পরিণত রাহুল গান্ধী ‘ফ্যাসিবাদ বিরোধী’ নেতা হতে পারে না কখনোই

    Bhattacharjyo Debjit লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | রাজনীতি | ২৬ মার্চ ২০২৩ | ১১৮৪ বার পঠিত | রেটিং ৫ (১ জন)
  • গতকাল সন্ধ্যায় চাঁদ থেকে সরে যাওয়া ফুটকি (আনন্দবাজারের খবর অনুযায়ী-চাঁদ এর শুক্র গ্ৰহকে ঢেকে ফেলা, এবং গ্ৰহণ শেষে দূরত্ব বাড়লে তৈরী হওয়া আলো) দেখতে দেখতে বাড়ি ফেরবার পথে; রাস্তার চা-এর দোকান থেকে অটো স্ট্যান্ডের মোড় গুলিতে গুটি কয়েক মানুষের মুখে রাহুল গান্ধী নিয়ে আলোচনা শুনছি। ঠিক বুঝতে পারছি না, সঠিক কী কেস হয়েছে। কেউ রাহুল গান্ধী’কে মোদী সাহেবের সাথে জুড়েই গালিগালাজ করছে। আবার কেউ কেউ রাহুল গান্ধী প্রসঙ্গে মোদী সাহেবের – গরিবী’র বদলে ‘গরীব’ হটানোর কাজবাজ গুলোও একে অপরের কাছে তুলে ধরছে। বলছে, “ওদের সাথে আমাদের মতন সাধারণ মানুষের লেনাদেনা কী! জেল হলেও কিচ্ছু হবেনা ওদের।’’ কিন্তু সেসব শুনে আমি তখন কিছুই আঁচ করতে পারি নি। অবশেষে বাড়ি ফিরে নেট চালু করে মোবাইল ঘাঁটতেই দেখি, রাহুল গান্ধী’কে সংসদ থেকে ছাঁটাই করেছে মোদী সাহেব এবং তার নামে ‘অপরাধ মূলক মানহানির’ মামলা ঠুকেছে বিজেপি। আরেকটু ঘাঁটাঘাঁটি করতেই দেখি, 'পরিণত' কংগ্রেসী নেতা রাহুল গান্ধী –মোদী সাহেব’কে তাঁর ‘পদবী’ ধরে যা নয় তাই বলেছে। আমাদের সমাজে যেমনটা ঠিক বিয়ের পর পণের পুরো টাকা না পেলে স্বামী তার ‘স্ত্রী’কে বলে থাকে, অনেকটা সেইরকম’ই। তারপর, টুকুস করে ফেসবুক খুলতেই দেখতে পেলুম কালো আকাশে সাদা চাঁদ ও চাঁদের গ্রাস থেকে সদ্য মুক্তি পাওয়া ফুটকি(শুক্র গ্ৰহের) ছবি। তারপর দেখলাম বিজেপি-ফ্যাসিবাদ বিরোধী ব্যক্তিবর্গের ‘গণতন্ত্র’ বাঁচানোর তাগিদা। একের পর এক পোস্ট রাহুল গান্ধী’র পক্ষে। প্রতিটা পোস্টে ফ্যাসিবাদ কে সপাটে চড় মারা হয়েছে। কেউ রাহুল কে ফ্যাসিবাদ বিরোধী ‘পরিণত’ নেতা বানিয়েছেন আবার কেউ কেউ তো আরো কয়েক লাফ উপরে উঠে বানিয়ে ফেলেছেন ভবিষ্যতের প্রধানমন্ত্রী –দেশে গণতন্ত্র ফেরানোর কান্ডারী –কর্পোরেট পুঁজির বিপক্ষে রাহুল গান্ধী- ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু সে যাইহোক, আমার অবশ্য এই চাঁদ থেকে মুক্তি পাওয়া শুক্র গ্রহের(ফুটকি) ছবি দেখে বেশ ভালো লেগেছে। মনে হয়েছে, ওই কালো আকাশ টা হলো আমাদের দেশ; আর ফর্সা চমকানো চাঁদটি হলো -সংসদ। যেখানে রয়েছে সমস্ত আলো। আর তলার ছোট্ট ফুটকি’টি হলো –গণতন্ত্র। যা সদ্য মুক্তি পেয়েছে সংসদীয় ‘গ্রাস’ থেকে। এবার সে আমাদের - অন্ধকারাচ্ছন্ন কালো দেশে আসবেই।
     
    রাহুল গান্ধী’কে বহু বছর যাবত এক পক্ত নেতা বানাবার চেষ্টা চলছে। প্রথমে তাঁর দাড়ি বাড়িয়ে ‘দার্শনিক’ দেবতা বানানো হয়েছে। তারপর সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দুদের মন রাখতে এবং বিজেপির থেকে রাহুল যে বেশি ‘হিন্দু’ প্রেমী সেটা দেখাতে মন্দিরে মন্দিরে পুরোহিত হয়ে ঘণ্টা বাজিয়েছে। তারপর সে, মানুষের সাথে মিশতে “ভারত জড়ো” যাত্রার যাত্রী হিসেবে পাহাড় থেকে সাগর ঘুরে বেড়িয়েছে। এতকিছুর মধ্য দিয়ে রাহুল গান্ধী ষোল কলা পূর্ণ করেও একজন পরিণত নেতা হয়ে উঠতে পারেন নি। রাহুল গান্ধীর এই যাত্রা সময় জুড়ে ছত্তিশগড়ে কংগ্রেস সরকার কেন্দ্রের বিজেপি'র সাথে মিলে আদিবাসীদের জল-জঙ্গল-জমিন লুটতে আকাশবোমা বর্ষণ করেছে। হাজারো হাজারো আদিবাসী মানুষকে মিথ্যে মামলায় “মাওবাদী” দাগিয়ে কালাআইনে হাজতে পুড়েছে। এমনকি দেশের মানুষের মনে ‘জঙ্গি’বাদী ভয়-উন্মাদনা ও সংখ্যাগুরু’দের মনের ভেতরকার মুসলমান বিদ্বেষ চাগিয়ে তুলতে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের গরীব খেটেখাওয়া মানুষকে মিথ্যে মামলায় কালাআইন ইউএপিএ’তে কাতারে কাতারে বন্দী করে বিজেপি সরকার - তাঁদের জায়গা-জমি, টাকা-পয়সা দখল করে তুলে দিচ্ছে উন্নয়নের নামে বৃহৎ পুঁজির হাতেই। পুলিশ দিয়ে গুড়িয়ে দিয়েছে শ্রমিক’দের একের পর এক বিক্ষোভ। আরএসএস-বিজেপির এই সমস্ত হিন্দুত্ব ফ্যাসিবাদী কাজবাজের বিরুদ্ধে রাহুল গান্ধী সেইসময় জুড়ে কিচ্ছুটি বলেননি। উল্টে সংবাদমাধ্যম এই বিষয়ে তাঁর কাছে জানতে চাইলে বার বার বলেছেন – “আমি দেশ বিরোধী সমস্ত শক্তির বিপক্ষেই”। যার মানে দাঁড়ায় এদেশে শ্রমিক, আদিবাসী কৃষক, খেটখাওয়া মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষগুলি সবাই - দেশ বিরোধী। কেবল দেশপ্রেমী শাসকশ্রেণী। 
     
    রাহুল গান্ধী ভবিষ্যতের প্রধানমন্ত্রী হবেন কিনা সেটা দালাল পুঁজির ভবিষ্যত’ই ঠিক করবে। সেই নিয়ে আমার কোন মাথা ব্যাথা নেই কিন্তু তিনি যে এই সময় দাঁড়িয়ে দালাল পুঁজির অন্তর্দ্বন্দ্বে নেতা হয়ে উঠছেন এবং দেশের খেটেখাওয়া মানুষের সর্বস্ব লুটতে সরাসরি দালাল পুঁজির পক্ষ নিচ্ছেন তা এসবের মধ্য দিয়েই স্পষ্ট হয়ে আসছে বারেবারে। অর্থাৎ তাহলে এও বোঝা যায় রাহুল গান্ধী কখনোই আর যাইহোক “পুঁজি” বিপক্ষে নয় একদমই কেবল ক্ষমতার পক্ষে। সেও গদি চায় আর চায় দালালির মাপকাঠির শ্রেষ্ঠত্বের জায়গাটি।
     
    এতকিছু পরেও ‘পরিণত’ নেতা হয়ে উঠতে পারলেন না রাহুল গান্ধী। একটু আধটু কাজবাজ করতে করতেই মোদী সাহেব'কে ফের আলটপকা মন্তব্য করে বসলেন। আর একথা সত্যিই ভারতে জাত-পাত ব্যবস্থা, সেন্টিমেন্ট এতটাই প্রকট যে কারোর ‘পদবী’ ধরে বলা মানেই আক্ষরিক অর্থে সেটা হয়ে দাঁড়ায় গোটা সম্প্রদায়’টা কে ধরে বলাই। আবার মোদী সাহেব “ওবিসি” সম্প্রদায়ের মানুষ। অথচ এই মুহূর্তে জাতীয় রাজনীতিতে রয়েছে কত গুরুত্বপূর্ন প্রসঙ্গ; যেগুলি বাতিল করানো জরুরি। যেমন – জাতীয় শিক্ষা নীতি, শ্রমকোড, NPR-NRC ইত্যাদি ইত্যাদি। এত বড় বড় ইতিহাস, এতবড় জাতীয় দলের নেতা রাহুল গান্ধী, তারপরেও কেন এইসব গুরুত্বপূর্ন বিষয় নিয়ে সংসদে আলোচনা করেন না তিনি? কেনো রাস্তায় এসবের বিরুদ্ধে একটিও মিছিল বের করেন না, তিনি? এবিষয়ে জানতে গেলে অবশ্য আমাদের যেতে হবে কংগ্রেসের ইতিহাসে; মনমোহন সিংয়ের আমলে। যিনি অর্থমন্ত্রী থাকাকালীন ভারতে উদারীকরণ-বেসরকারিকরণ-বিশ্বায়ন তথা সাম্রাজ্যবাদী শোষণের যাবতীয় এজেন্ডার রাস্তা মসৃণ করেছিলেন।  ২০০৯ সালের নন্দীগ্রাম-লালগড় আন্দোলনের পর 'সেজ আইন' পরিবর্তনের নামে দিয়েছিলেন ভাঁওতাবাজি। তারপর তো তার করা কাজ এগিয়ে নিয়ে গেছিলেন - অটল বিহারী বাজপেয়ী সাহেব ও এখন সেইসবের আরো নিখুঁত ব্যবহার করে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন, বিজেপি’র মোদী সাহেব। তাই তো, মোদী সরকার ও তাঁর দলের বহু নেতা মন্ত্রীর মুখে জোর গলায় বারবার শুনে থাকি – আমরা কংগ্রেসের কাজ’ই এগিয়ে নিয়ে চলেছি।
     
    বস্তুত: "বড়লোক'দের গরীব হয়ে যাওয়া" – ফলে নেতামন্ত্রীদের চুরি ডাকাতি, তাঁদের সশস্ত্র উন্মাদ বাহিনীদের তাণ্ডবলীলা; বিচার ব্যবস্থার পুরোপুরি কুপোকাত হওয়া -এই সময় দাড়িয়ে রাহুল গান্ধী’র মত কম বয়সী একজন নেতৃত্বে দরকার। কারণ, অন্যায়-অবিচার শোষণ-নিপীড়ন সইতে সইতে ক্রমে ক্রমে ব্যাপক সাধারণ মানুষের মধ্যে থেকে সংসদীয় রাজনৈতিক ব্যবস্থার উপর আস্থা উঠে যেতে শুরু করেছে। যারা আজকের দিনে সংসদীয় রাজনৈতিক দলগুলির রাজনীতি করতে আসছে, তারা সবকটাই ছাগলছানা; নয়তো হিংস্র ভল্লুক। কেউ আসছে কাজের লোভে লেজুড় হতে। আর কেউ আসছে হিংসার মোহে আজীবন সমাজে হিংসা ছড়াবে বলে। যা দিয়ে পুঁজির কোন সুখ্কর লাভবান ভবিষ্যতের গতি নেই। ফলত, এই ব্যবস্থা ভবিষ্যতে টিকিয়ে রাখতে চাই জাতীয় স্তরে একজন কমবয়সী শিক্ষিত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ফুটফুটে নেতা। যার আছে মানুষের মন ভুলিয়ে টিকে থাকবার ক্ষমতা। যাকে দেখে আগ্রহ জন্মাবে ছাত্র-যুব’র সংসদীয় রাজনীতির প্রতি। যারজন্য দাড়ি ওয়ালা রাহুল গাান্ধী ছাড়া জাতীয় স্তরে আর কেউ নেই। আমাদের বাংলার রাজনীতিতে যে জায়গা করছে কিংবা করবার চেষ্টা চালাচ্ছে -নওশাদ সিদ্দিকীর হাত দিয়েই। কিন্তু কী আর করা যাবে! নয়া উদারবাদের নেতিবাচক দিকের প্রকোপ পড়েছে শাসকশ্রেণীর উপরেও। মূলত, যে শ্রেণীর ছাত্রযুব সংসদীয় রাজনীতির প্রতি আগ্রহ দেখাত, তারাই এখন, মোবাইলে ফ্রী ফায়ার খেলতে ও ফেসবুকে রিল বানাতে ব্যস্ত। নয়া উদারবাদী সংস্কৃতির -ভোগবাদী সংস্কৃতিতে মত্ত। আর তাছাড়াও এদের মনেও চাকরি-বাকরি না পাওয়ার টেনশন তো রয়েছেই। যারফলে এঁদের মধ্যে সংসদীয় রাজনীতির প্রতি বিন্দুমাত্র আগ্রহ টুকুও জন্মায় নি। উল্টে জন্মিয়েছে এই রাজনীতি ও রাজনৈতিক দলের নেতামন্ত্রী’দের প্রতি ঘৃনা, রাগ-ক্ষোভ এবং এই নেতাদের নিয়ে হাসি-মস্করা করবার মতন আগ্রহ। ফলত, সংসদীয় রাজনীতির ভবিষ্যত আজ দাঁড়িয়ে প্রশ্নের মুখে।
     
    রাহুল গান্ধী’র বক্তব্যের প্রেক্ষিত, তাঁর উপরে মোদী সরকারের কেস ও সংসদ থেকে বহিস্কার এরও দুই দিক রয়েছে। এক, রাজপথে ফ্যাসিবাদের চরমে যাওয়ার লক্ষণের আঁচ; দুই, উত্তর-আধুনিক তত্ত্ব অনুযায়ী রাহুল গান্ধী'কে আক্রান্ত বানিয়ে বড় নেতা হিসেবে দাঁড় করানো(যেমন - বিধানসভা ভোটের আগে পা ভেঙে ক্ষমতায় থেকেও মমতা ব্যানার্জি সেজেছিল বিজেপির প্রধান বিরোধী) এবং “কাস্ট” বিষয়ক বক্তব্য ধরে জনগণের মধ্যে আইডেন্টিটি বাইনারী ভাগের রাজনীতি। যারফলে হবে শাসকশ্রেণীর দুটি কাজ হাসিল। (ক)আসছে লোকসভা ভোটে বর্তমান শাসকের মনের মত বিরোধী; (খ) রুজিরুটির প্রশ্ন উধাও করে, জাত-ধর্মের বিভাজনে খেটেখাওয়া মানুষের আন্দোলন গুলিকে ভেতর দিয়ে ভাঙন ধরিয়ে ও মিডিয়ার সামনে সারা দেশের মানুষের চোখে রাহুল গান্ধীর সংসদ পদ বাতিলের খবর মূখ্যে তুলে ধরে তলায় চলমান আন্দোলনগুলির আন্দোলনকারী’দের উপর নামানো আরো ভয়ানক দমন।  
     
    তাছাড়াও, রাহুল গান্ধী –মোদী সাহেবের আদানীপ্রেম ধরে যা যা বলছেন সেকথা যেমন সত্যি তেমন মোদী বিরোধী বাকি রাজনৈতিক দলগুলিরও আদানী প্রেমের কমতি নেই, এই কথাও আজ আর কারোর অস্বীকার করবার জায়গা নেই। যাদের মধ্যে অন্যতম –এ রাজ্যে ফ্যাসিবাদী নায়িকা সন্মানীয় মমতা ব্যানার্জি এবং কেরালা ফ্যাসিবাদী নায়ক পিনারাই বিজয়ন জী। একথায় বলতে গেলে, বর্তমানে প্রতিটা রাজ্যে ক্ষমতায় থাকা শাসক দলের’ই শক্ত মনের আদনী প্রেম প্রশংসনীয়। আর সংসদ-এর নোংরামি; ইতিহাস ধরে এর ফিরিস্তি দিতে বসলে শেষ হবে না। এসবের কাজ শুরুই করে গিয়েছিলেন, জরুরি অবস্থা জারি নেত্রী স্বয়ং - ইন্দিরা গান্ধী।
     
    আমাদের আজ সহজ সরল ভাষায় বোঝা দরকার; ফ্যাসিবাদ তখনি প্রতিষ্ঠিত হয় – যখন শাসকশ্রেণী আর আগের পদ্ধতি গত কায়দায় জনগণ কে শোষণ করে আর পোষাতে পারেনা। এবং শোষিত জনগণও শাসকশ্রেণীর শোষণ আর মেনে নিতে পারে। তখনি আবির্ভাব ঘটে আদানী-আম্বানি’দের মতন ভয়ংকর সন্ত্রাসী একচেটিয়া লগ্নিপুজি গোষ্ঠীর। নতুন সন্ত্রাসী কায়দার শোষণের। আর, ভারতের মতন পিছিয়ে পড়া, বহু জাতি-ধর্ম-ভাষার সম্প্রদায়ের মানুষের অসম বিকাশের দেশে প্রতিষ্ঠিত হওয়া ফ্যাসিবাদ -কখনোই এক জাতি -পুঁজিবাদী রাষ্ট্রের মতন হবে না। যেখানে রাহুল গান্ধী'র ফ্যাসিবাদ বিরোধী নেতা হয়ে উঠবারও কোন প্রশ্ন নেই। এই অবস্থায় টেনেটুনে রাহুল গান্ধী দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে গেলেও দেশের আশঙ্কাজনক অবস্থা পরিবর্তনের কোন লক্ষণও নেই। একবার কালার টিভি দেখবার অভ্যাস হয়ে গেলে আর সাদাকালো টিভি'তে ফেরা যায় নাকি? বর্তমানে মোদী সাহেব দেখাচ্ছেন কালার টিভি। তার জায়গায় যে কেউ এলেই যা আর ফিরবে না কখনোই আগের কালোসাদা টিভি'তে। এতে ফিরতে গেলে পুঁজিরও লোকসান হবে এবং জনগণেরও মন রাখা অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে।
     
    এখানে ফ্যাসিবাদের উৎসস্থল এবং বিকাশমান পথ হলো আধা সামন্ততান্ত্রিক চক্র ও মুৎসুদ্দি দালাল পুঁজির আঁতাত কেন্দ্রগুলি (পুলিশ-পার্টি-পঞ্চায়েত-সমবায়)। প্রতিটা জায়গা কিংবা অঞ্চলের ফ্যাসিবাদের রূপ, বৈশিষ্ট্য-চরিত্র এক নয় কখনোই। ফ্যাসিবাদ রয়েছে মাঠে-ঘাটে, কল-কারখানা তথা সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন থাকবার জায়গা গুলিতে। যেখানকার মানুষের সংসদের সাথে কোন লেনাদেনা নেই। সংসদীয় রাজনৈতিক মন্ত্রী'দের সাথে যেই অঞ্চলের মানুষ গুলির জীবনমান উন্নতির স্বার্থে বিন্দুমাত্র কোন সু-সম্পর্ক নেই। তাই একই ভাবেই ফ্যাসিবাদকে নিশ্চিহ্ন করে গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হলেও হবে– জনগণের মলশোধনীর জায়গা তথা সংসদের মধ্যে দিয়ে নয়, কিংবা সংসদীয় নেতা-মন্ত্রী'দের হাত ধরে নয় বরং জনগণের থাকবার এক একটি অঞ্চল গুলি একে একে ধরে; খেটেখাওয়া মানুষের রক্তঘাম মিশ্রিত নেতৃত্বের অক্লান্ত লড়াইয়ের মধ্য দিয়েই।
     
    তবেই ফর্সা চমকানো চাঁদের(সংসদ) গ্রাস থেকে মুক্তি পাওয়া ফুটকি’টি(গণতন্ত্র) আলো নিয়ে আসবে আমাদের কালো অন্ধকারাচ্ছন্ন এই দেশেতে।

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • আলোচনা | ২৬ মার্চ ২০২৩ | ১১৮৪ বার পঠিত
  • আরও পড়ুন
    অশ্রু - Sarthak Das
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Ranjan Roy | ২৬ মার্চ ২০২৩ ০৯:২৯517861
  • "আরেকটু ঘাঁটাঘাঁটি করতেই দেখি, 'পরিণত' কংগ্রেসী নেতা রাহুল গান্ধী –মোদী সাহেব’কে তাঁর ‘পদবী’ ধরে যা নয় তাই বলেছে। আমাদের সমাজে যেমনটা ঠিক বিয়ের পর পণের পুরো টাকা না পেলে স্বামী তার ‘স্ত্রী’কে বলে থাকে, অনেকটা সেইরকম’ই।"
     
    ---ভাল করে ঘেঁটে দেখুন। "মোদী সাহেব’কে তাঁর ‘পদবী’ ধরে যা নয় তাই বলেছে"। কথাটা পুরোপুরি ঠিক নয়। 
       রাহুল গান্ধী ২০১৯ সালে কর্ণাটকের কোলারে একটি জনসভায় বাড়তে থাকা বেকারত্ব, মূল্যবৃদ্ধি , করাপশন ইত্যাদি নিয়ে বলার প্রসঙ্গে বলেছিলেন -- আশ্চর্যের বিষয় ইদানীং করাপশন করে বিদেশে পালিয়ে যাওয়া অপরাধীদের বেশির ভাগের নামই মোদী, যেমন  ললিত মোদী, নীরব মোদী, --। 
      মোট তিনজন মোদীর নাম নিয়েছিলেন,  নরেন্দ্র মোদীর নামই নেন নি।
    তখন গুজরাতের সুরাতে, রাঁচি  এবং বিহারের  কোথাও তিনটে মানহানির 'সিভিল নয় ক্রিমিনাল' অভিযোগ দায়ের হয়। অভিযোগ কর্তারা উপরোক্ত তিনজনের কেউ নন। যদিও সিভিলের জায়গায় ক্রিমিনাল কেসে শুধু যার মানহানি হয়েছে সেইই অভিযোগ করতে পারে। 
           গুজরাতের অভিযোগ কর্তা পুর্ণেন্দু মোদীর বক্তব্যঃ এতে সমস্ত মানুষ যাঁদের সারনেম মোদী, তাঁদের অপমান করা হয়েছে। 
    আশ্চর্যের বিষয়, দুই বছর পরে ২০২১ সালে পুর্ণেন্দু মোদী হাইকোর্টে আবেদন দিয়ে সেই অভিযোগ স্টে করিয়ে দিতে চান, সেই মতন ওই মামলা স্থগিত হয়ে যায়। 
    এখন আরও দু'বছর পরে ২০২৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে সংসদে  রাহুলের  আদানি যোগসূত্র ধরে আক্রমণাত্মক বক্তব্যের  সাতদিন পর হঠাৎ সেই পুর্ণেন্দু মোদী গুজরাত হাইকোর্টে আবেদন দিয়ে সেই স্থগিতাদেশ খারিজ করে দ্রুত মামলার নিষ্পত্তির দাবি করেন।
      গুজরাত হাইকোর্ট দ্রুত স্থগিতাদেশ তুলে নেয় এবং গুজরাতএর সুরাতের ম্যাজিস্ট্রেট একমাসের মধ্যে মামলা শেষ করে রাহুলকে দোষী এবং দু'বছরের জন্যে জেলে যাওয়ার আদেশ দিয়ে তার ক্রিয়াশীল হওয়া স্থগিত রেখেছেন। 
      এই রায়ের ব্যাপারে ক'টি প্রাসংগিক প্রশ্ন।
     ১ কর্ণাটকের কোলারে ঘটা কথিত মানহানির মামলা করার জুরিসডিকশন গুজরাতের কোন শহরের ম্যাজস্ট্রেটের আছে কি? 
      এ'ব্যাপারে স্পষ্ট আইন  এবং সুব্রাহ্মণ্যম স্বামী কেসে সুপ্রীম কোর্টের রায় হল--- কোন অপরাধিক মানহানির কমপ্লেনের শুনানি করার আগেই ম্যাজিস্ট্রেটকে খুঁটিয়ে দেখতে হবে শুনানির জন্যে তাঁর জুরিসডিকশন আছে কি? এই প্রশ্নটি রাহুলের উকিল তুলেছিলেন, ম্যাজিস্ট্রেট লিপিবদ্ধও করেছেন, কিন্তু রায়দানে এই প্রশ্নে নীরব থেকেছেন।
    ২ 
       অপরাধিক মানহানির কেসে অধিকতম শাস্তি হল দু'বছরের কারাবাস। কিন্তু আজ পর্য্যন্ত ভারতে এই ধারায় কখনও এক থেকে দু'মাসের বেশি শাস্তি হয় নি। আবার জনপ্রতিনিধি আইনে ঠিক দু'বছরের বা তার বেশি জেল হলে তবেই সংসদের সদস্যপদ খারিজ হবে, একদিন কম হলেও হবে না। 
      তাহলে ঠিক দু'বছরের কারাবাসের শাস্তি অথচ যেখানে জুরিসডিকশন নিয়ে প্রশ্ন উঠছে!
  • সিএস | 2401:4900:707a:33e2:45bd:6fa8:60aa:367f | ২৬ মার্চ ২০২৩ ১০:১২517863
  • ঢপের লেখা।

    ২৩ তারিখ জেলের রায় হয়েছে, ২৪ তারিখ এমপি পদ কাড়া হয়েছে আর আজকের দিনে সেকেণ্ডে সেকেণ্ডে যখন মোবাইলে খবর পাওয়া যায়, তখন লেখক দুদিন পরে অটোর লাইন ইত্যাদি পেরিয়ে বাড়ি ফিরে নেট চালিয়ে তারপর মোবাইলে সেই খবর জানতে পারছেন !

    এত লেট করলে বিপ্লব তো সাইকেলে করে আসবে।
  • Ranjan Roy | ২৮ মার্চ ২০২৩ ১২:৩১517954
  • একটি ভুল অটো কারেকশন:
    সুরাতে এফ আই আর কর্তার নাম পূর্ণেন্দু নয়, পূর্ণেশ মোদী। 
    আর সুপ্রিম কোর্টের যে রায়ে ক্রিমিনাল কেসে শাস্তিপ্রাপ্ত হলে সাংসদ তৎক্ষণাৎ তাঁর পদ ও সুবিধে হারাবেন বলা হয়েছে তার পিটিশনার  অ্যাডভোকেট লিলি স্যামসন।
  • Kuntala | ২৮ মার্চ ২০২৩ ১৬:৫৭517963
  • এতো সিনিকাল লেখা পড়তে বিরক্ত লাগে। এটা কি ক্রিটিকাল থিওরির জায়গা হোল? 
  • Kalnime | 103.244.242.176 | ২৮ মার্চ ২০২৩ ১৮:২৫517965
  • শিপিয়েম দের এই এক সমস্যা - অবান্তর ধান ভান্তে শিবের গীত। কোন টপিক এ শুরু করে কোন শশকের গর্তে  নির্গমন। এরা এই পৃথিবী তেই থাকেন কি না তাও বোঝা যায় না। 
  • Ranjan Roy | ২৮ মার্চ ২০২৩ ১৮:৪৫517966
  • লেখক সম্ভবতঃ সিপিএম নন। নইলে কেরালার সিপিএম মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নকে নিয়ে কটু মন্তব্য করেন!
  • কালনিমে | 103.244.242.176 | ২৮ মার্চ ২০২৩ ১৯:৩১517968
  • রঞ্জনবাবু - আপনার মন্তব্য থেকে অনেকই জানা গেল। একটা প্রশ্ন- jurisdiction ছাড়া অন্য কোন guideline কি নেই? মানে, মান বা তার হানি - দুটোই তো খুব abstract concept - সেটা কিভাবে quantify করা হয় এক্ষেত্রে? মানে কখন দুমাস, কখন দু'বছর বা জরিমানা - এ কি কেবল বিচারকের অন্তরাত্মার ডাকের উপরেই নির্ভর করে?
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ক্যাবাত বা দুচ্ছাই মতামত দিন