এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • হরিদাস পাল  আলোচনা  রাজনীতি

  • দুটি স্লোগান -

    Bhattacharjyo Debjit লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | রাজনীতি | ২২ এপ্রিল ২০২৩ | ৫২৮ বার পঠিত
  • দুটি স্লোগানেই সব মুক্তি: সন্ত্রাস থেকে সন্ত্রাসীদের শাস্তি?
     
    জয় শ্রী রাম+ভারত মাতা কী জয় = দেশপ্রেমী। চুরি-ডাকাতি-খুন-ধর্ষণ? কই বাত নেহি! সাতখুন মাফ হিন্দুরাষ্ট্রের নিয়মাবলীতে; যদি তুমি হও দেশপ্রেমী। পটাপট মানুষ মেরে এক নাগাড়ে দিতে পারো দেশপ্রেমের দুটি ধ্বনি... 
     
    কিছুদিন আগেই আমরা দেখলাম –তামিল সিনেমার নায়কের মতন পুলিশ-গোয়েন্দা'র সমস্ত বেড়াজাল টপকে ক্যামেরার সামনেই দুজন গুলি ছুড়লো জেল বন্দী আতিক আহমেদ এবং তার ভাইকে। তার ঠিক কয়েকমাস আগেই ছাড়া পেলো – বিলকিস বানো ধর্ষনের অভিযুক্তকারীরা। বিচারপতি বললেন, অভিযুক্ত'দের পক্ষ নিয়ে বললেন - এঁরা তো সংস্কারি। এবার ঈদের ঠিক দুইদিন আগে গণহত্যার সমস্ত কেসের দায় কাঁধ দিয়ে ঝেড়ে ফেলে মুক্ত হলো – কুখ্যাত ভক্তগণ; তথা দেশপ্রেমী। গণহত্যায় অভিযুক্ত বিজেপি’র প্রাক্তন মন্ত্রী মায়া কোদনানি সহ ২০০২-এর নারোদা গাম গণহত্যায় জীবিত ৬৭জন অভিযুক্তকেই বেকসুর খালাস করে দিলো। যাদের মধ্যে আছে বজরঙ দলের নেতা বাবু বজরঙ্গী ও ভিএইচপি নেতা জয়দীপ প্যাটেল। এদের নিয়ে বহুত লেখালেখি হয়েছে। হচ্ছে। চলছে পাল্টা প্রতিবাদও। তাই আর এদের সমন্ধে আমায় আলাদা করে কিছু বলবার আজ আর কোন প্রয়োজন নেই। 
     
    আমি বলতে চাই - এদের মতন কুখ্যাত ভক্তিবাদী –দেশপ্রেমী’রা যে হিন্দুরাষ্ট্রে এমন বীরের মতন কাজ করে মুক্তি পাবে না তা আমি একদম ভাবিনি। বরং আমি জানতাম এরা সমস্ত কেস থেকে রেহাইও পাবে এবং আরো গণহত্যার ছক সাজাবে। কারণ এরা নাম করা কুখ্যাত দেশপ্রেমী; এমন দেশপ্রেম জিন্দা রয়েই'ছে এদের হাত ধরেই। কিন্তু আমি সাম্প্রতিক কালে ঘটে চলা এই প্রতিটা কেসেই স্পষ্ট ভাবে লক্ষ্য করলাম –দেশপ্রেমের দিক নির্দেশ করা স্লোগানগুলিকে। কথায় বলে, স্লোগান যত স্পষ্ট হয়, আগামীর রাজনৈতিক পথ টাও ততটাই নাকি মসৃণ হয়!
     
    বর্তমানে ঘটে চলা প্রতিটি কেসের শেষেই দুটি স্লোগান খুবই জোরের সাথে দেওয়া হচ্ছে। এক, জয় শ্রীরাম; দুই, ভারত মাতা কী জয়। কেবল দেওয়া হচ্ছে নয়, প্রচারও করা হচ্ছে খুবই সু-কৌশলে প্রোপাগান্ডার আকারে। শুধু এই কেস গুলিই নয় এমনকি সরকারের তরফ থেকে ঘর-বাড়ি বুলডোজার দিয়ে ভেঙে দেওয়া কিংবা গ্রামে গ্রামে জোতদার-জমিদার, টিকিধারী'দের তরফ থেকে অত্যাচারিত-শোষিতের বাড়ি আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেওয়ার পরেও দেওয়া হচ্ছে এই স্লোগান দুটি। শুনলেই যেন কানে বাজছে; মনে হচ্ছে টেপে রেকর্ড করে রাখা হয়েছে স্লোগান দুটি। প্রতিটা অন্যায় সংগঠিত হলেই রাষ্ট্র বাজিয়ে দিচ্ছে। কী তাই নয় নাকি? টিভি রিয়্যালিটি শো তে ‘বাগেশ্বর বাবা’র টক' শো থেকে ইউটিউবের অধিকাংশ রিলে'র পেছনে বাজছে এই দুটি স্লোগান। যা শুনে শুনে একঘেয়ে বোরিং হয়ে গেছে। আর শুনতেও ভাল্লাগছে না মোটে। কিন্তু ভালো না লাগলেও কিংবা শুনে শুনে গা জ্বললেও -এই স্লোগান দুটি কেন দেওয়া হচ্ছে সবেতে? কেন আরএসএস এর নেতারা ‘হিন্দু' কম বয়সী নারী'দের বলছে রিল বানাতে এই স্লোগান ব্যবহার করে। তাদের কথায় -পাপার পরী নয় বরং পাপার শেরনি হতে; কেন? এই স্লোগান দুটি কী এমন যা লাগলেই জাদু মতন সব বদলে যাবে এমন করে? 
     
    আসলে এই স্লোগান দুটি কে ব্যবহার করে আরএসএস-বিজেপি তথা হিন্দু-সেনাবাহিনী উগ্রধর্মীয় জাতীয়তাবাদের জিগির তুলে দেশ জুড়ে চলা ফ্যাসিবাদী গণআন্দোলনের দপদপ করে জ্বলতে থাকা আগুনে ঘি ঢালতে চাইছে। এদিক থেকে তারা এই স্লোগান দুটির মধ্যে দিয়ে দেশের সংখ্যাগুরুর ভেতরকার ধর্মীয় চেতনা সুড়সুড়ি দিয়ে ও দেশের প্রতি ভালোবাসার কৃত্রিম রস বাড়িয়ে নিজেদের ফায়দা লুটতে চাইছে। আরেকদিক থেকে সমস্ত অন্যায়ের উপরে এই দুটি স্লোগানের প্রলেপ লেপে সমাজে এক আতঙ্ক, ভয়-ভীতির সৃষ্টি করছে। এই ভয় কিসের ভয়? উগ্র দেশপ্রেমের ভয়। যাতে তাদের করা কোন কাজেই বিন্দুমাত্র বাধা দেওয়ার কেউ না থাকে। অর্থাৎ ফ্যাসিবাদী গণআন্দোলনের পথ মসৃণ করতে চাইছে আরএসএস-বিজেপি। এই পথ কে মসৃণ করতেই টার্গেট(আইওয়াশ হিসেবে)কেবল সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মানুষ। তাই রমজান মাসেই একের পড় এক কাজ তারা সংগঠিত করেছে; মুসলমান বস্তিতে, রামনবমী’কে উপলক্ষ্য রেখে সংগঠিত আক্রমন করা থেকে ঠিক ঈদের দুই দিন আগে মুসলমান গণহত্যায় দায় অভিযুক্ত'দের মুক্তি, হত্যাকারী বাবু বজরঙ্গী’দের। তারপরেই নাকি কোর্ট চত্বরে এই দুটি স্লোগান। পুলিশের বিনা বাধাতেই। সাথে মূল ধারার সংবাদমাধ্যম গুলোর প্রচারও তেমন। এই দুটি স্লোগান'কে সামনে রেখেই। যেন স্বয়ং রাম এবং ভারত মাতা আগে থেকেই এসব লিখে রেখে গেছিল! এসব করা হচ্ছে কেবল সমাজে ভয় পাওয়ানো স্বার্থে এবং সংখ্যাগুরু'র ভেতরকার জাতীয়তাবাদী ধর্মীয় চেতনা উগ্র করে তুলতে। মানে ফ্যাসিবাদী গণআন্দোলনের রথের চাকার গতি বাড়াতে। আর তা বাড়াতেই সবেতে এই দুটি স্লোগান উড়িয়েই সমাজের বুকে ভয়-আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি।
     
    একথা আজ সত্যি স্বীকার করবার আছে – শ্রীমান নরেন্দ্র মোদীর বিজেপি সরকার সাম্রাজ্যবাদী আইন- নীতি, প্রণালী তেমন ভাবে তাদের আমলে বাস্তবে লাঘু করে উঠতে পারেনি। সংসদের ভেতরে যেভাবে হোক পাশ করালেও। যেমনটা কংগ্রেস জমানায় চুপিসারে টুকটুক করে করেছিল শ্রীমান মনমোহন সরকার। শুধু বিজেপিকে আমাদের কংগ্রেসের থেকে বাড়তি বাগম্বর লাগবার কারণ, ওদের গরু নিয়ে খুনোখুনির রাজনীতি আর আরএসএস-এর সংগঠিত হিন্দুত্ববাদী ইডিওলজি। যা ধরেই বিজেপি সরকার টিকে থাকবার চেষ্টা করছে এখনো। তবুও আরএসএসের কট্টর হিন্দুত্ববাদী আদর্শ দিয়েও পেরে উঠছে না এদেশের সংখ্যাগুরু ’হিন্দু‘দের এক সুতোয় বেঁধে সাম্রাজ্যবাদীদের নিয়ম-নীতি পুরোপুরি লাগু করতে। 
     
    আরএসএস-এর ‘হিন্দু’রাষ্ট্র হলো পুরোনো বাইকে নতুন সিট কভার লাগানোর মতন; যে বাইকের পার্টস সবটাই পুরানো কেবল পুরনো পার্টসের দিকে নজর এড়াতে উপরে সিট কভারটি নতুন। ঝা চকচকে একেবারে। সেই কভারে সংখ্যাগুরু ভেতরকার ধর্মীয় চেতনায় জিগির দিতে রাম কিংবা হনুমানের ছবি। যে রাম কিংবা হনুমান সাম্রাজ্যবাদী-ভোগবাদী সংস্কৃতিতে মত্ত। যার নিজস্ব কোন সত্তা নেই। সে এখন ডিজে গানে কোমর দোলায়। এই হিন্দুরাষ্ট্রের একটাই লক্ষ্য এদেশের বুকে যেভাবে হোক -শিক্ষার গৈরিকিকরণের মধ্যে দিয়ে বেসরকারিকরণ করা, শ্রমিক-কর্মীদের কাজের সময় বাড়ানো এবং দৈনিক মজুরি কমানো, কৃষকদের চাষের জমি উন্নয়নের নামে কেড়ে নেওয়া, আদিবাসীদের হাত থেকে যেভাবেই হোক জল-জঙ্গল-জমিন কেড়ে নেওয়া। তথা, ব্যবসার একচেটিয়া আধিপত্য - অধিক মুনাফার স্বার্থে –‘একদেশ এক আইন‘, ‘একদেশ এক ভাষা’, ‘একদেশ এক ধর্ম‘ লাগু করা। অতএব সাম্রাজ্যবাদ দ্বারা পরিচালিত এদেশের অতি ধনী'দের স্বার্থ যে ভাবে হোক রক্ষা করা। বিশ্ব নয়া উদারবাদী অর্থনীতি টালমাতাল পরিস্থিতিতে। সুতরাং, এই ‘হিন্দু'রাষ্ট্র কেবল বড়লোকদের। রাম থেকে হনুমান সব তাদের হাতের এক একটা অস্ত্র মাত্র। যেখানে গরীবের কোন স্থান নেই; গরীবের জন্যে কোন রাষ্ট্র সুরক্ষা নেই। আর ফ্যাসিস্ট শক্তির প্রধান অস্ত্র হলো সমাজে সবসময় ভয়-ভীতি, আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করে রাখা। যাতে মানুষ ভয়ের বাইরে কিছু ভাবতে না পারে কখনো। তাই, এমতাবস্থায় আমাদের প্রথম কাজই হলো এসবের ফলে ভয় না পাওয়া। আবার অতিরিক্ত স্বতঃস্ফূর্ততার বসেও কোন হটকারী সিদ্ধান্তপূর্ন কাজ না করে বসা। প্রতিটা সময় সচেতন থাকা এবং অন্যকে সচেতন রাখা। ফ্যাসিবাদীদের প্রধান ওষুধ হলো ভয়ের বিরুদ্ধে পাল্টা ভয় ধরানো। 
     
    আমাদের দেশের আমলাতন্ত্র-আইন-বিচারব্যবস্থা-সংসদ, সংবাদমাধ্যম যে ভাবে কুখ্যাত দেশপ্রেমী বাবু বাজরঙ্গী’দের বাঁচাতে ব্যস্ত তা তো একথায় প্রশংসনীয়। কিন্তু তাহলেও এরপরে কী হবে! ৯০% সংখ্যাগুরু শ্রমজীবী জনগণের দেশে ফ্যাসিস্ট'দের সমস্ত দিক থেকেই তো পালানোর পথ একে একে হচ্ছে বন্ধ। জনগণের কাছে আজ জল-ভাতের মতন সবটাই স্পষ্ট।
     

    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক। লেখক চাইলে অন্যত্র প্রকাশ করতে পারেন, সেক্ষেত্রে গুরুচণ্ডা৯র উল্লেখ প্রত্যাশিত।
  • আলোচনা | ২২ এপ্রিল ২০২৩ | ৫২৮ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Ranjan Roy | ২২ এপ্রিল ২০২৩ ১৬:০০518908
  • কোন বিচারপতি বিলকিস মামলার অভিযুক্তদের:সংস্কারী" বলেন নি।
    তথ্যসূত্র দিন। 
  • Bhattacharjyo Debjit | ২২ এপ্রিল ২০২৩ ১৭:৪৮518909
  • আমি ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। ওটা টাইপো মিসটেক হয়েছে। *বিধায়ক* হবে বিচারপতি নয়।
  • Ranjan Roy | ২২ এপ্রিল ২০২৩ ১৮:৩০518912
  • একদম ঠিক। লোকটি এবারও বিধায়ক হয়েছে। বলেছিল -- ব্রাহ্মণ এবং সংস্কারী।
     
    আর ক্ষমা চাইলেন কেন?
    ভুল সবারই হয়, আমারও।  শুধরে নিলেই হল।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খারাপ-ভাল মতামত দিন