এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • শান্তনীড় রহস্য - ১১ 

    Anjan Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৯ এপ্রিল ২০২২ | ২৯৬ বার পঠিত | রেটিং ৪.৫ (২ জন)
  •  
    কলতান পায়ে পায়ে ডোবাটার দিকে এগিয়ে  গেল। বডি পড়ে থাকার জায়গাটা ঘেরা রয়েছে ইঁট দিয়ে । স্পটের পনের মিটার দূরে পৌঁছে  কলতানের অ্যড্রিনালিন ক্ষরণ বেড়ে গেল । বৃষ্টি  ভেজা নরম মাটিতে স্পষ্ট জুতোর ছাপ । তার মানে  কাল রাতে এসেছিল ..... সে এসেছিল। সনাতন অপরাধী মানস ওকে টেনে এনেছিল ঘটনার জায়গায় । কলতান নতুন কেনা জুতোটা হাতে নিয়ে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে জরিপ করতে লাগল  উজ্জ্বল চোখে । ডলফিন স্নিকার.... পায়ের মাপ আট নম্বর । জুতো জোড়া পেতে দিল একজোড়া স্পষ্ট পায়ের ছাপে ।  খাপে খাপে মিলে গেল । কলতানের বুকের রক্তে দোল খেতে লাগল ।
        বাতাসে ভ্যাপসা গরম জমছে আবার । বিনবিনে ঘাম হচ্ছে । কলতান শান্তনীড়ের মূল গেটের দিকে গেল। খুপরির বাইরে ভাঙা খাটিয়ায় প্রকাশ তিওয়ারি বসে আছে । একটা গামছা দিয়ে ঘন ঘন মুখ আর ঘাড়ের ঘাম মুছছে ।  কলতান ওর সামনে গিয়ে বলল , ' ও : ..... কি গরম পড়েছে ..... একটু জল হবে ?'
    একজন  ঝকঝকে বাবু এসে তার কাছে পানীয়জল প্রার্থনা করছে দেখে সে একটু হকচকিয়ে গেল । সে দাঁড়িয়ে উঠল । হাঁক পাড়ল ---- ' উমা ....এ  উমা ..... এহি আও জলদি  ....'
    কলতান প্রকাশের কাঁধে হাত দিয়ে বলল , ' আরে ব্যয়ঠ .... ব্যয়ঠ .....' বলে, প্রকাশকে বসিয়ে দিয়ে নিজেও বসে পড়ল খাটিয়ায় ।  উমা একটা টোল খাওয়া অ্যলুমিনিয়ামের গ্লাসে করে জল নিয়ে এল । জলটা দিয়ে হাসিমুখে দাঁড়িয়ে রইল বটে কিন্তু তার মন নানা সন্দেহের দোলায় দুলতে লাগল ।  তার জীবনের জ্বালাময় অভিজ্ঞতা তার মনে সন্দেহের কঠিন নুড়িপাথর বিছিয়ে রেখেছে । এ জন্য তাকে দোষ দেওয়া যায় না । কাঁটা যার গায়ে ফুটেছে সেই তো কাঁটার জ্বালা বোঝে। সে ভাবল , বিল্ডিং-এর অফিসঘরেই তো জল পাওয়া যায়। ঠান্ডা মেশিনের ঠান্ডা জল । এ বাবুটা তাদের কাছে এসে জল খেতে চাইল কেন । এ বাবুটাকে ওই ঈশানলালের খুনের পরদিন দেখেছিল , থানার বড়বাবুর সঙ্গে কথা বলছিল।  কি মতলবে এখানে ঘোরাঘুরি করছে কে জানে ।
    কলতান জলটা খেয়ে গ্লাসটা ফেরত দিল উমাকে । একটা আরামের আওয়াজ ছেড়ে বলল, ' আ ..... আ : ....আ .... ' । রুমাল বার করে ঘাড়ের ঘাম মুছল ।
    ----- ' তোমরা কি এখানে অনেকদিন আছ ? ' প্রকাশের দিকে তাকিয়ে জিজ্ঞাসা করে ।
    ----- ' জি  বাবু ...... এ বিল্ডিং-এর শুরু থেকে আছি '
    ----- ' ও আচ্ছা ..... এখন তো কাজ বন্ধ । কি করবে তা'হলে ? '
    ----- ' দুসরা কাজ দেখতে হবে । কি করা যাবে । কাজ খুঁজছি ..... পেয়ে যাব জলদি । ওদিকের এক ঠিকাদারের সঙ্গে দেখা করেছি । বলছে তো কাজ দেবে । আখুন দেখা যাক ..... '
    ------ ' ও আচ্ছা আচ্ছা ..... '
    বলে কলতান মাটির দিকে তাকিয়ে কি ভাবতে থাকে । আচমকা চোখে পড়ে ঘরের দরজার প্রায় সাত আট ফুট দূরে মাটি কেমন যেন খুবলানো । নরম মাটিতে কাবাডি খেললে জমিতে এরকম ধ্বস্তাধ্বস্তির আঁচড় জেগে থাকে । খুব অনুসন্ধানী চোখ নিয়ে না দেখলে অবশ্য নজরে পড়ার কথা নয় । মনে হচ্ছে এদেরও চোখে পড়েনি । মাটিতে বৃষ্টি পড়ে খানিকটা আবছা হয়ে গেছে, পুরোটা নয়।  কলতান দাঁড়িয়ে উঠল । তার চোখ উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে । দেখল আঁচড়ের দাগটা এগিয়ে গেছে  বিল্ডিং-এর দিকে বেশ কিছুটা ...... তা প্রায় দশ মিটার হবে । তারপরে আর কোন দাগ বা চিহ্ন কিছু নেই ।
    কলতান ভাবল আশ্চর্যের ব্যাপার , সে এ দুদিনে একবারও এখানটায় আসেনি ! মাটিতে হ্যাচড়ানো ক্ষতচিহ্ন আগেই চোখে পড়া উচিত ছিল ।
    সে যাই হোক, কলতান নিজের উত্তেজনা বাগে এনে  আবার শান্ত অবস্থায় ফিরে এল ।
    সরাসরি উমার দিকে তাকিয়ে আচমকা জিজ্ঞাসা করল ----- ' ঈশানজি ক্যায়সা আদমী থা ? ' আন্দাজে ছুঁড়ে মারা ঢিল । লাগলে ভাল ।না লাগলেও ক্ষতি নেই '
    কথাটা শুনে উমার মুখ এক পলকে ভয়ে কেমন  সাদা হয়ে গেল ।  বারবার নীচের ঠোঁট কামড়ে ধরতে লাগল , বোধহয় নিজেকে নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টায় । তারপর ' আমি কিছু জানি না ..... আমি কিছু জানিনা .... ' বলতে বলতে পুবদিকের পাঁচিলের দিকে ছুটে চলে গেল । প্রকাশ বিভ্রান্ত দৃষ্টিতে ছুটন্ত উমার দিকে তাকিয়ে রইল। তারপর কলতান কে একেবারে কিমকর্ত্তব্যবিমূঢ় করে দিয়ে নীলেশ হঠাৎ ভ্যা.... করে বুক মোচড়ানো কান্না কাঁদতে লাগল ।  কলতান একটুও অপ্রস্তুত না হয়ে নীলেশের কাছে গিয়ে পরম স্নেহে তার মাথায় হাত বুলিয়ে দিতে লাগল। খুব মোলায়েম গলায় বলল , ' ডরো মাত বেটা ...... শানত্ হো যাও .... '
        দুপুর একটা নাগাদ থানা থেকে সত্যি সমীরণ ঘোষ এলেন, সঙ্গে এক সহকর্মীকে নিয়ে ।
    হন্তদন্ত হয়ে গেট দিয়ে ঢুকে ডানপাশে কলতানকে দেখে বললেন , ' ইয়েস ..... ভালই
    হল আপনি এখানে আছেন ‌। চলুন রেসিডেন্টদের রিয়্যাকশানগুলো জেনে নিই ...... তারপর পি এম রিপোর্ট আসলে ফারদার প্রোব করা যাবে ‌। আসুন .... আসুন  ... '
    কলতান জুতোর বাক্সটা বগলদাবা করে আবার প্রকাশের খাটিয়ায় গিয়ে বসল । বলল , ' না : .... স্যার .... আমার যাবার দরকার নেই .... আপনারা কথা বলে আসুন । তাছাড়া এখন পাবেন কাকে ? সবাই তো কাজে বেরিয়ে গেছে।' 
    সমীরণবাবু মাথার টুপিটা হাতে নিয়ে বললেন, ' তবু যাই ..... ফর্মালিটি তো কমপ্লিট করতে হবে .... '
    ****************   ************* ***********
    সেদিন বিকাশবাবুকে সুনু বলল বটে ' আমি আজ রাত্রে প্রিয়াঙ্কার ঘরে থাকব ' কিন্তু শেষ পর্যন্ত সে থাকেনি, আসলে থাকা সম্ভব হয়নি । রাত নটা নাগাদ শান্তনীড় আবাসন তার স্নায়ুগুচ্ছে এক অদৃশ্য চুম্বক টান লাগাতে লাগল। তাড়াতাড়ি জামা জুতো পরে তৈরি হয়ে নিল । প্রিয়াঙ্কা মাংস রান্না করছিল । অবাক হয়ে বলল , ' আরে .... কি হল হঠাৎ ! '
    সুনন্দ জুতোর ফিতে বাঁধতে বাঁধতে বলল ,  'যেতে হবে ..... যেতে হবে .... কালকে আসব আবার .... '
    ------ ' কেন কি হল ? '
    ----- ' কিছু না ...... যাচ্ছি এখন .... '
    ------ ' ঠিক আছে । রান্না হয়ে গেছে , খেয়ে যাও .... কতক্ষণ লাগবে ? '
    ------ ' পরে খাব ..... এখন আসছি ... টাইম নেই। '
    প্রিয়াঙ্কা বুঝতে পারল, আবার কোন অদ্ভুত ঝটকা লেগেছে সুনন্দার মাথায় । সে মরীয়া গলায় বলল , ' বৃষ্টি আসছে কিন্তু ..... ছাতাটা ....'
    সুনন্দ কেমন যেন ঘোরের মধ্যে থাকা মানুষের মতো কোন উত্তর না দিয়েই বেরিয়ে গেল ।
    ( ক্রমশঃ )
    ************************************************************************************
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Anjan Banerjee | ৩০ এপ্রিল ২০২২ ০৮:৪৬507021
  • যতক্ষণ না হচ্ছে ..... ! !
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঠিক অথবা ভুল প্রতিক্রিয়া দিন