• হরিদাস পাল  পর্যালোচনা (রিভিউ)  বই

  •  পাঠ অভিজ্ঞতাঃ এক গাঁয়ের ডাক্তারের গল্প 

    Anirban M লেখকের গ্রাহক হোন
    পর্যালোচনা (রিভিউ) | বই | ২৬ এপ্রিল ২০২১ | ৩৯১ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • বইটা পড়তে দিয়েছিল আমার এক বন্ধু। আজ থেকে তিরিশ বছর আগে তরুণ চিকিৎসক অনিরুদ্ধ সেনগুপ্ত যোগ দিয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গ স্বাস্থ্য পরিষেবায়, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার এক প্রত্যন্ত গ্রাম  বেলপুকুরের প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। সে প্রায় এক নেই-রাজ্যের দেশ। বইটি এক নাছোড় ডাক্তারের গল্প যিনি তাঁর প্রথা বহির্ভুত পন্থায় ভোল পালটে দেবেন সেই নেই-রাজ্যের।


    বেলপুকুরের সেই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে হওয়ার কথা ছিল শুধু জ্বর, কাশি, চুলকানির চিকিৎসা তাও সেসবের এমন সব ওষুধ সেখানে মজুত যা কলকাতার হাসপাতালে ততদিনে বাতিলের পর্যায়ে চলে গেছেন। অনিরুদ্ধ বাবু যখন সেখানে গিয়ে পৌঁছন তখন সেখানকার বিদ্যুৎ সংযোগ পর্যন্ত কাটা গিয়েছে বিল বকেয়া থাকার কারণ যা অনেক চিঠি-চাপাটির পরেও ফেরত আসে নি। এর প্রতিকারের জন্য অনিরুদ্ধবাবু ৮ কিমি দুরের বিদ্যুতকেন্দ্রে গিয়ে বোঝেন নিয়ম মাফিক কাজ করলে বিদ্যুৎ সংযোগ ছ’মাসেও আসবে কিনা সন্দেহ! তিনি ফিরে এসে, একটি স্থানীয় ছেলেকে দিয়ে তিরিশ মিটার তার কিনে আনেন আর সোজা ট্রান্সফর্মারে জুড়ে দেন – চারবছর পরে আলো আসে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। এরপরে আরও এক বছর যায় বিদ্যুৎ দপ্তরের নজরে বিষয়টি আসতে। তারপর লাইন কেটে দেবার হুমকি, ডাক্তারবাবুর পালটা হুমকি কিছুদিন চলার পরে বিদ্যুৎ দপ্তরের বোধদয় হয় আর নিয়মমাফিক বিল আসা শুরু হয়।


     এর পর ডাক্তারবাবু যা করলেন তা আরো চমকপ্রদ। সর্দি, কাশির বাতিল ওষুধে চলা প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে অস্ত্রোপচার শুরু করলেন।  কাজটা সহজ ছিল না মোটেই।  যন্ত্রপাতির অভাব ছিল, ছিল যোগ্য সহকারীর অভাব, এমনকি একটু জটিল অপারেশনের পরে রোগী রাখার ব্যবস্থাও ছিল না। এই সব সমস্যার সমাধান ডাঃ সেনগুপ্ত করলেন প্রথা বহির্ভুত চিন্তার মাধ্যমে। প্রশিক্ষণ দিয়ে তৈরি করলেন সুযোগ্য সহকারীর দল যাদের অনেকেই সরকারী কর্মীও নন, স্বেচ্ছাসেবক মাত্র, উদ্ভাবন করলেন নতুন প্রোটোকল, এমনকি স্থানীয় ছুতোরকে দিয়ে বানিয়ে নিলেন অপারেশন করার আলো – বেলপুকুর স্বাস্থ্যকেন্দ্রে রমরম করে চলতে লাগল নানান অপারেশন। এই সবের মাঝে নিজের প্রশিক্ষণের দিকটিকেও ক্রমাগত ঘষামাজা করে গেছেন ডাক্তারবাবু। অচেনা অস্ত্রোপচারের আগে কলকাতায় গিয়ে পড়াশুনো করেছেন লাইব্রেরিতে, কথা বলেছেন বন্ধু আর শিক্ষকদের সঙ্গে, এমনকি কিছু কিছু জটিল অস্ত্রোপচারের ক্ষেত্রে সঙ্গে রেখেছেন তাঁর স্ত্রীকে যিনি নিজেও একজন চিকিৎসক। মনের জোর, প্রত্যয় আর সঠিক পরিকল্পনার মাধ্যমে অসাধ্য সাধনের নানান গল্প ছড়িয়ে আছে বইটির পাতায় পাতায় যা না পড়লে বিশ্বাস করা কঠিন।


    প্রায় আট বছর বেলপুকুরে কাটান ডাঃ সেনগুপ্ত, তার পর যোগদান করেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাজে, বেলপুকুরের শিক্ষাকে আরো বৃহত্তর বৃত্তে ছড়িয়ে দেওয়ার প্রয়াসেই হয়ত বা। আমার কাছে বইটির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল শেষ অংশটি যেখানে ডাঃ সেনগুপ্ত তাঁর এই অভিজ্ঞতা থেকে প্রাপ্ত শিক্ষার নির্যাসটুকু ভাগ করে নিয়েছেন আমাদের সাথে। বইয়ে বর্ণিত বিভিন্ন অভিজ্ঞতা এক তরুণ, আদর্শবাদী  ডাক্তারের ছবি আমাদের সামনে তুলে ধরে। কিন্তু শেষ অংশটিতে এসে যেভাবে তিনি তাঁর বিশেষ অভিজ্ঞতাকে সাধারণ নীতির দিকে নিয়ে গেছেন তা তাঁর চিন্তার গভীরতার পরিচায়ক ।


    তিনি যে নীতিগুলি বলেছেন সেগুলো এরকমঃ


    ১। আমিই মালিক, আমিই করছি এই ভাবনা সকলের মধ্যে জরুরি।


    ২। স্কুলে কখনো ভুল নয় – চিকিৎসা বিজ্ঞানের যে মূল নীতিগুলি রোগীকে সুস্থ করে তোলার জন্য জরুরি সেগুলোর সাথে কখনই আপস নয়। অন্যদিকে যেগুলো দেখনদারির জন্য ভালো বা যেগুলোতে আরেকটু সুবিধে হতে পারে সেগুলো বাদ দেওয়া যেতে পারে।


    ৩। প্রত্যেক কর্মীকে কিছু বেশী দাও – টাকা পয়সা নয়, তার কাজের স্বীকৃতি। প্রত্যেকের মধ্যে এই বিশ্বাস চাড়িয়ে দেওয়া জরুরি যে, সে ওই টিমের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য, একজন অধস্তন কর্মচারি মাত্র নয়।


    ৪। ঝুঁকি নাও কিন্তু তার পেছনে একটা হিসেব থাকতে হবে।  যে রোগীকে সীমিত সামর্থে অপারেশন না করে রেফার করলে রাস্তায় মরে যাবে, তার অপারেশন করলে আর কত ক্ষতি হবে? কিন্তু মাথায় রাখতে হবে ঝুঁকি নেওয়া, কিন্তু অবিবেচনা নয়।


    ৫। এ কোন সমাজসেবা নয় – করছি কারণ করে তৃপ্তি পাচ্ছি।


    ৬। ‘না, হবে না’ – বলার লোকেদের তাড়াও। কান খোলা রাখো সেই সব বিরূদ্ধ মতের জন্য যার মধ্যে প্রকৃত অসুবিধার কথা আছে, তারপর সেই অসুবিধা দূর করার চেষ্টা কর।


    ওপরে বর্ণিত ছটি পয়েন্ট ডাঃ সেনগুপ্ত তাঁর বেলপুকুর পর্বের মূল শিক্ষা (যাকে ইংরিজিতে বলে take away)। আর এখানেই বইটা এক তরুণ ডাক্তারের অসাধ্য সাধনের রোমাঞ্চকর আখ্যানের বেশী হয়ে ওঠে, ভরসা জাগায় আমার এবং আমার মত আরো অনেকের মনে যাঁরা চিকিৎসক নন, কিন্তু সরকারী প্রতিষ্ঠানের নানান লাল ফিতের ফাঁস এড়িয়ে খোলা হাওয়ায় শ্বাস নিতে চাইছেন, চাইছেন নতুন কাজের স্বপ্ন দেখতে, হয়ত অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও পেরেও যাচ্ছেন কিছুটা। আমাদের সবার গল্প এত নাটকীয় নয় হয়ত, মানুষের জীবন-মরণও নির্ভর করে না সব সময় আমাদের সবার ওপর (আবার করেও, কারণ এই বইয়ের পাঠক তালিকায় চিকিৎসকরাও আছেন নিশ্চয়ই)। কিন্তু আমাদের ছোট, ছোট কাজ সমাজকে এগিয়ে দেয় নিশ্চিত ভাবেই বা আরো সঠিকভাবে বললে আমাদের উন্নত মানুষ করে তোলে।


    আমাদের সমাজে সরকারী কর্মীরা সাধারণ ভাবে এবং বিশেষভাবে চিকিৎসকরা নিন্দিত হন। অনেক সময় তার কারণও থাকে। কিন্তু তবুও যে আমাদের দেশটা এখনো মোটের ওপর চলছে তার কারণ অনিরুদ্ধবাবুর মত অনেক, অনেক লোক এখনো নিরলস কাজ করে চলেছেন কোন অতিরিক্ত আর্থিক পুরস্কার ছাড়াই। এই সূত্র ধরেই আরো বড় একটা আলোচনার অবতারণা করা যেতে পারে।


    বার্লিনের পাঁচিল যখন ভাঙ্গে তখন আমি স্কুলের ছাত্র। তবু আমার কলেজ জীবনেও কলকাতার মধ্যবিত্ত সমাজে অন্তত সোভিয়েত ব্যবস্থার প্রতি একটা বিশ্বাস বিদ্যমান ছিল, যার মূল কথা মানুষ নয়, প্রতিষ্ঠান ও ব্যবস্থাই আসল। তার ওপর আমি অর্থনীতির ছাত্র, যার (অন্তত কলেজে যা পরানো হয়) মূল কথাই হল মানুষের আচার আচরণ সবই আর্থিক পুরস্কার বা ইনসেন্টিভ নির্ভর। প্রথাগত অর্থনীতির সাথে সমাজতান্ত্রিক ভাবনার মূল পার্থক্য হল সেই ইনসেন্টিভের উৎস -- এই ইনসেন্টিভ রাষ্ট্র থেকে আসছে না বাজার থেকে তার ওপর নির্ভর করে ব্যবস্থার ধরণটি কী! কিন্তু মোদ্দা কথাটা একই – মানুষের আগে ব্যবস্থা। কমিউনিজম এলে মানুষের চরিত্র পাল্টাবে এরকম একটা কথা বোধহয় মার্ক্স সাহেবও বলেছেন কিন্তু সেটা ঠিক কিভাবে হবে তা নিয়ে আমরা ছাত্রজীবনে অন্ততঃ খুব নিশ্চিত ছিলাম না। আমি এখনো নিশ্চিত নই, অন্যদের কথা বলতে পারব না। মানুষের নীতিবোধ পরিবর্তনের প্রায়োগিক প্রচেষ্টা হিসেবে বোধ হয় মাও এর সাংস্কৃতিক বিপ্লব কে ধরা যায়, কিন্তু তার ভয়াবহ পরিণামের কথা ভেবেই বোধকরি আমার ছাত্রজীবনে এই নিয়ে খুব আলোচনা শুনি নি। আমি মার্ক্সীয় তত্ত্ব খুব গভীর ভাবে জানি এমন দাবি করা ঠিক হবে না, সেই আলোচনা আমার উদ্দেশ্যও নয়। আমি বলতে চাইছি আমার ছাত্রজীবনে আমার বদ্ধমূল ধারণা ছিল এটাই যে কোন পরিবর্তনের জন্য প্রতিষ্ঠানের পরিবর্তন দরকার। এই ধারণাটি খুব একটা ভুল নয়। কিন্তু বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে অভিজ্ঞতা থেকে বুঝলাম শুধু ব্যবস্থা বা প্রতিষ্ঠান নয় মানুষের নীতিবোধ সমাজ সংগঠনের জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ। একই সঙ্গে অর্থনীতির জ্ঞানের পরিধি বাড়ার পর দেখলাম অর্থনীতির মূলধারায় এ বিষয়টি স্বীকৃত এবং বহুল আলোচিত একটি ধারণা যদিও সামাজিক নীতিবোধের পরিবর্তন একটি কঠিন ও সময়সাপেক্ষ প্রক্রিয়া। সেই পরিবর্তনে প্রযুক্তিগত (যেমন শিল্পবিপ্লব) বা প্রাতিষ্ঠানিক (যেমন ঔপনিবেশিকতা) বড় বড় পরিবর্তনের পাশাপাশি বিভিন্ন মানুষের অভিজ্ঞতা বা ভাবনা খুব গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা পালন করে – ইতিহাসের শিক্ষা এটাই। আজকের সামাজিক নীতিবোধ যখন সারাক্ষণ ভোগ এবং আরো ভোগের শিক্ষা দিচ্ছে, অনিরুদ্ধবাবুর অভিজ্ঞতার আখ্যান তখন তার বিপ্রতীপে একটা প্রতিরোধ তৈরি করে। এই বইটি আমাদের বলতে পারে নিরবিচ্ছিন্ন ভোগের থেকে জীবনে অনেক বেশী পরিপূর্ণতা আনতে পারে স্বপ্ন দেখা এবং তা রূপায়ণের সাহস; যারা এখনও স্বপ্ন দেখেন বইটি তাদের সেই স্বপ্ন দেখার সাহস জোগাতে পারে।


    সবশেষে বলি, অনিরুদ্ধ বাবুকে আমি চিনি না। এই বইটি পড়ার আগে তাঁর নামও শুনি নি। তবু অনেক বছর আগে ঘটে যাওয়া ঘটনাপ্রবাহকে বইএর আকার দেওয়ার জন্য তাঁকে অজস্র ধন্যবাদ। সব প্রজন্মের মানুষকে গতানুগতিকের বাইরে অন্যরকম ভাবার সাহস যোগাবে এই বইটি ।


    এক গাঁয়ের ডাক্তারের গল্প


    ডাঃ  অনিরুদ্ধ সেনগুপ্ত


    গুরুচন্ডালি প্রকাশনা। 

  • বিভাগ : পর্যালোচনা (রিভিউ) | ২৬ এপ্রিল ২০২১ | ৩৯১ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Ramit Chatterjee | ২৬ এপ্রিল ২০২১ ১০:৫৬105196
  • গপ্পো টা  আসেনিতো 

  • Anirban M | ২৭ এপ্রিল ২০২১ ০৯:২২105217
  • একটু সমস্যা হয়েছে। গল্পটা এক্ষুনি দিতে পারছি না। আসলে গল্পটা একটা কাগুজে পত্রিকায় দিয়েছিলাম। লকডাউনের  কারণে দেরি দেখে ভেবেছিলাম তারা হয়তো আর বের করবে না। তাই এখানে দিয়েছিলাম। কিন্তু তারা জানালো যে  পত্রিকাটি একটু দেরিতে হলেও বেরোবে। তাই এখান ন থেকে সরিয়ে দিলাম। খুব ই দু:খিত। 


     একটা অন্য লেখা লিখছি। সেটা দু একদিনের মধ্যে দিচ্ছি । 

  • dc | 122.174.176.195 | ২৭ এপ্রিল ২০২১ ০৯:৪১105219
  • গল্পটা ভালো লাগলো। সার্থকনামা। 

  • Ramit Chatterjee | ২৭ এপ্রিল ২০২১ ০৯:৫২105220
  • @dc এটা সেরা ছিল

  • Anirban M | ২৭ এপ্রিল ২০২১ ২১:২৮105230
  • নতুন লেখা দিলাম!

  • kumarjit mandal | ২৮ এপ্রিল ২০২১ ০৮:২৪105233
  • অনিরুদ্ধ বাবুর বইটি আমার সংগ্রহে আছে। আমি গল্পগুলি তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করি। আমার ধারণা যারাই পড়বেন তারাই উপভোগ করবেন।


    অনির্বাণ বইটির আলোচনা প্রসঙ্গে সামাজিক ব‍্যবস্থা এবং ব‍্যক্তি স্বার্থের দ্বন্দের প্রেক্ষাপট অল্প পরিসরে খুুুব সুন্দর ভাবে উপস্থাপন করেছে। বর্তমানে সমাজের ভোগবাদী মানসিকতা থেকে উত্তরণের উপায় হিসাবে  অনিরুদ্ধবাবুর প্রথা বহির্ভূত চিন্তাগুলির গুরুত্ব তুলে ধরেছে। 


    খুবই ভালো লাগলো অনির্বাণের লেখাটা।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। পড়তে পড়তে মতামত দিন