• বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়।
    বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে।
  • লীলাবতীর কিসসা-ওয়ালী

    স্বাতী রায়
    বিভাগ : বুলবুলভাজা | ০৮ মার্চ ২০২০ | ৭৫৪ বার পঠিত
  • মেয়েদের কৃতিত্বের কথা ছড়িয়ে দাও  – সবাই যেন তাঁদের কথা জানতে পারে! এই ডাক দিয়েছে এবারের নারী দিবস। এই খবরটা পড়েই একটা বই এর কথা মনে হল। আর সেই প্রসঙ্গে দুজন মানুষের কথা। লেখক নন্দিতা জয়রাজ আর অসীমা ফ্রেইডগ। বই এর নাম 31 Fantastic Adventures in Science: Women Scientists in India ।  নামটা শুনেই বোঝা যাচ্ছে কি নিয়ে লেখা। এ বই বাচ্চাদের জন্য লেখা, রং ঝলমলে। কিন্তু পাতার রংএর থেকেও ঝকঝক করে ওঠে লেখার রং। বাচ্চাদের কথা ভেবেই হয়তো বিজ্ঞানের জটিলতা তুলনায় কম - তবু লেখার গুণে বিজ্ঞান বাচ্চাদের কাছে এক আকর্ষনের বিষয় হয়ে ওঠে। আর কি অসাধারণ কাহিনী সব! হর্টিকালচারালিস্ট নাতাশা গুরুং , পার্টিকল ফিজিসিস্ট ইন্দুমতীর থেকে আর্কিওমেটালার্জিস্ট সারদা শ্রীনিবাসন , বিভিন্ন শাখার বিজ্ঞানীরা জায়গা পেয়েছেন এই বইটাতে। জায়গা পেয়েছে তাঁদের কাজও। আর এইখানেই নন্দিতা-অসীমা বাজিমাত করেছেন। এত সহজ ভাষায় বুঝিয়েছেন যে বাচ্চা থেকে বুড়ো সবাই বুঝবে। বই এর থেকে একটুখানি তুলে দেওয়ার লোভ সামলাতে পারলাম না।

    So then, are quarks and gluons the smallest things in the universe?

    Nobody can say for sure. Hundreds of years ago, atoms were thought to be the smallest particles in the universe. But since then, scientists like Indu invented tools such as particle detectors, accelerators, and colliders that can study them in great detail. Thanks to these tools, they have discovered a whole set of elementary particles, which are the smallest particles we know about today.

    Quarks and gluons are two such elementary particles that combine to form protons and neutrons. These, along with electrons, make up atoms. Atoms constitute most of the matter that we know about—from trees and stones to animals and birds. But Indu was amazed to learn that there is a whole set of particles that exist but are not part of atoms at all. One such elementary particle is the neutrino, Indu’s absolute favourite! Neutrinos are everywhere. They whiz across the universe—from the sun and from elsewhere in outer space. Many of them reach us here on earth too. ...

    ব্যক্তি বিজ্ঞানী আর তাঁর গবেষণার আলোচনার একটা দারুণ সামঞ্জস্য বজায় রাখা হয়েছে বইটাতে। এমনিতে বেশ কিছু বছর ধরেই মহিলা বিজ্ঞানীদের নিয়ে একটা সচেতনতার জায়গা তৈরি করার চেষ্টা হচ্ছে। ইসরো’র সাফল্যের পর তাদের মহিলা বিজ্ঞানীদের হাসিমুখের ছবি সেই ইঙ্গিতই দেয়। তবু আবার যখন দেখি সেই বিজ্ঞানীদের নিয়ে যে সব আর্টিকল বেরোচ্ছে, তাতে তাঁদের রন্ধনগুণ নিয়ে যতটা জায়গা খরচ করা হচ্ছে তাঁদের কাজ নিয়ে তার সিকি ভাগও নয়, তখন প্রশ্ন জাগে। এমনকি দুঃখ লাগে যে রোহিণী গডবোলে সম্পাদিত, বহুখ্যাত  Lilavati's Daughters : Stories of Indian Women Scientists বইতেও বিজ্ঞানীদের জীবনী যতটা যত্নে আঁকা হয়েছে, তাঁদের কাজগুলোকে সমসাময়িক বিজ্ঞানের প্রেক্ষিতে দেখা বা সেই কাজের জেরে বিজ্ঞান কোথায় কিভাবে কেন এগোল সে আলোচনার পরিসর খুবই সীমিত। কিন্তু কেন? তবে কি আমরা মানুষকে দেবতা বানিয়ে পুজোর বেদীতে তুলে রাখতে বেশি ইচ্ছুক? এই ধরণের লেখাপত্তর পড়লে বড্ড  শ্যারণ ম্যাকগ্রেইনের মত বিজ্ঞান- সাংবাদিকের অভাব অনুভব করা যায়। নন্দিতা-অসীমার এই বইটা হয়তো খুব সামান্য হলেও সেই দুঃখ ঘোচাবে।
    বিজ্ঞান মানে তো শুধু যুগান্তকারী আবিস্কার নয়, রোজ একটু একটু করে প্রদীপের সলতে পাকানোটাও বিজ্ঞান,  যাতে পরের আবিষ্কারের কাজটা সহজতর হয়। তবে আমাদের সাধারণ হিরো-নাহলেই-জিরো ভাবার মানসিকতার প্রেক্ষিতে এই সলতে পাকানোর কাজটাও যে গুরুত্বপুর্ণ, এ না হলে বিজ্ঞানের এগোন বন্ধ হয়ে যাবে এই বোধ তৈরি করা খুব দরকার। এই বইটা খুঁজে খুঁজে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বিভিন শাখার বিজ্ঞানীদের নীরব কাজ তুলে এনে কিছুটা সেই ধারণাও তৈরি করতে পেরেছে। আর বহুদূর দেশের বিদেশিনী না বা ইতিহাস খুঁড়ে বার করে আনা আগের যুগের বিজ্ঞানী না, আমারই সময়ে আমারই দেশে এই বিজ্ঞানীরা এত কিছু কাজ করছেন, এটা পড়ে বুড়োরাও এক্সট্রা উজ্জীবিত বোধ করছেন, বাচ্চারা এ লেখা পড়ে মোটিভেটেড হবে বলেই মনে হয়।  কোন কোন বাচ্চা হয়তো এই বইএর চরিত্রদের মধ্যে থেকে রোল মডেল খুঁজে নেবে।

    এই বইটা কিন্তু একদিনে হয় নি। নন্দিতা আর অসীমা আগে একটা সায়েন্স ম্যাগাজিনে কাজ করতেন। তারপর চাকরী ছেড়ে নিজেরা The Life of Science প্রোজেক্ট শুরু করেন, ভারতীয় মহিলা বিজ্ঞানীদের  ইন্টারভিউ করা আর সে সব লিপিবদ্ধ করার কাজ। সেই টানে ওঁরা গত চার বছরে সারা ভারতে বিভিন্ন গবেষণাগার ঘুরে বেড়াচ্ছেন। এই বই সেই পরিশ্রমের ফল। এঁদের নিজের একটা  প্লাটফর্ম আছে https://thelifeofscience.com/। সেখানে তো বটেই এছাড়াও  yourstory.com ইত্যাদি বিভিন্ন জায়গায় অনলাইনে এঁদের লেখা আর্টিকল পড়া যায়। সে লেখাগুলি বিজ্ঞানকেন্দ্রিকতার সঙ্গে প্রসাদ্গুণের এক অনবদ্য যুগলবন্দী। অবশ্য ওঁদের ওয়েবসাইটে নিজেদের লেখা ছাড়াও আরও অনেক জনের লেখা আছে। বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা। সাইটে আরও একটা জিনিস নজর কাড়ে। শুধু মেয়েদের  কথাই না, আরো মার্জিনালাইজড দলিত বা LGBTQ গোষ্ঠীর বিজ্ঞানীদের দৃষ্টিভঙ্গিও জায়গা পেয়েছে সেখানে। তাঁদের নিজেদের কলমে। এই আলোচনা গুলো যতই বেশি হবে, ততই ভবিষ্যতে সমধর্মী যারা বিজ্ঞানের দুনিয়ায় পা রাখবেন তাঁদের পথ আরও সুগম হবে।

    বাংলা বাজার-চলতি মিডিয়ায় এখনো বিজ্ঞান আর বিজ্ঞানী, কি ছেলে কি মেয়ে, দুই-ই প্রায় অনুপস্থিত। তবু আজকের দিনে বিজ্ঞান নিয়ে লেখেন অনেকেই। বিশেষতঃ জাতীয় স্তরের মিডিয়ায় আর বিবিধ অনলাইন মাধ্যমে  বিজ্ঞান-সংবাদিকতা এখন বেশ একটা জায়গা করে নিচ্ছে।  অনুমান করা যায় আগামী দিনে এই ধারাটা আরও জোরদার হবে। বেশ কিছু শক্তিশালী বিজ্ঞান-সাংবাদিক উঠে আসছেন। নন্দিতা আর অসীমার কাজের মত এমন একটা কাজ যদিও সহজে চোখে পড়ে না। কাজটির প্রভুত প্রশংসা প্রাপ্য। চাই যে এঁদের কাজ আরও বিস্তার পাক। আর নন্দিতা-অসীমার হাত ধ’রে এ দেশের মেয়েদের গবেষণা-কর্মের কথা নিজেদের সতীর্থ বিজ্ঞানীদের ছোট জগত ছাড়িয়ে আমজনতার মাঝে ছড়িয়ে পড়ুক। বিজ্ঞানীর পরিচয় হোক তাঁর কাজ।

    আর সেই সঙ্গে সঙ্গে চাই বাংলা ভাষাতেও কেউ এমন একটা কাজ করুক। সুন্দরবনের এক প্রান্তিক গ্রামে বসে একটি কিশোরী যদি তাঁরই দেশের আরেক প্রান্তিক মেয়ের এগ্রো-ফরেস্ট্রীর গবেষণার কথা পড়ে সাহস পায়,  নিজে সে বিষয়ে পড়াশোনা করে সেটা কাজে লাগানোর কথা ভাবে, তার থেকে ভালো আর কি হতে পারে! নিজে উড়তে পারাটা কৃতিত্ব তো বটেই, সেটা না হলেও অন্যের স্বপ্নে ডানা জুড়ে দেওয়াটাও কম কৃতিত্বের কাজ না।   
  • বিভাগ : বুলবুলভাজা | ০৮ মার্চ ২০২০ | ৭৫৪ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • টপোটুপাই | 162.158.167.53 | ০৮ মার্চ ২০২০ ১৬:৫৮91275
  • খুব ভালো! লীলাবতীর কন্যাদের বিজ্ঞানে অবদান গুলো নিয়ে লেখা হোক। গত বছর গণিতে ভাটনাগর পুরস্কার পেয়েছেন আইএসাইয়ের নীনা গুপ্তা। সেটাও উদযাপন করা যায় আজ থেকে এবং একইসাথে
  • খাতাঞ্চী | 162.158.165.233 | ০৮ মার্চ ২০২০ ১৯:২৬91295
  • নতুন লজিকে নতুন লেখা সময়ানুক্রমিক না চাপলে বুবুভার লিস্টে আসছে না। তাই তুলে দিই।
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত