• টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। যে কোনো নতুন আলোচনা শুরু করার আগে পুরোনো লিস্টি ধরে একবার একই বিষয়ে আলোচনা শুরু হয়ে গেছে কিনা দেখে নিলে ভালো হয়। পড়ুন, আর নতুন আলোচনা শুরু করার জন্য "নতুন আলোচনা" বোতামে ক্লিক করুন। দেখবেন বাংলা লেখার মতো নিজের মতামতকে জগৎসভায় ছড়িয়ে দেওয়াও জলের মতো সোজা।
  • বিজ্ঞানসভা : মহেন্দ্রলাল ও রবীন্দ্রনাথ

    মুক্তচিন্তার পথিক
    বিভাগ : অন্যান্য | ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৫১৪ বার পঠিত
  • উনবিংশ শতাব্দীর মাঝামাঝি। ভারতীয় উপমহাদেশে বিজ্ঞানচর্চা তখনও মাতৃগর্ভে। অথচ সারা বিশ্বে তখন পরীক্ষানির্ভর আধুনিক বিজ্ঞান অনেকটাই এগিয়ে। বিশেষত পাশ্চাত্যে বিজ্ঞান গবেষণার জন্য, বিজ্ঞানীদের জন্য রয়েছে অসংখ্য বড় বড় নামকরা বিখ্যাত অসংখ্য প্রতিষ্ঠান ও গবেষণাগার। কেবলমাত্র ভারতীয় উপমহাদেশে নেই কোনো গবেষণা প্রতিষ্ঠান, নেই বিজ্ঞান শিক্ষার তেমন ভালো কোনো ব্যবস্থা। আর এই যে নেই, অথবা এই যে অভাব তা বোধহয় সব চাইতে বেশি অনুভব করেছিলেন একজন বাঙালী চিকিৎসাবিদ। ডঃ মহেন্দ্রলাল সরকার তাঁর নাম।

    বেকনীয় বিজ্ঞানদর্শনের অন্যতম অনুসারী ছিলেন ডঃ মহেন্দ্রলাল সরকার। তিনি বুঝেছিলেন, বিজ্ঞান বস্তুটি হাতেকলমে করে দেখবার বিষয় ; বিজ্ঞানচর্চা, ধর্মচর্চা অথবা পুরাণ-উপনিষদ চর্চার মতো কেবলমাত্র চর্বিতচর্বণ নয়। জ্ঞনভাণ্ডারে নব নব তথ্য সংযোজন করতে না প‍ারলে ; প্রতিনিয়ত তত্ত্বকে বাস্তবে প্রতিফলিত করতে না পারলে বিজ্ঞানচর্চার ধারা শুকিয়ে যায়, যেমনটি ভারতবর্ষে গিয়েছিল। মহেন্দ্রলালের মতে হিন্দু দার্শনিক চিন্তাধারা বলে যা প্রচারিত তার অধিকাংশ হল, "যাবতীয় বিষয়ে স্থুল, হজম না-হওয়া কতকগুলো ভিত্তিহীন মতামতের পিণ্ড।" [১] এর থেকে পরিত্রাণের একমাত্র উপায় হল আধুনিক বিজ্ঞানের চর্চা। মহেন্দ্রলাল দেখেছিলেন ১৮৫৭ সালে দেশে তিনটি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপিত হওয়ার পরেও ছাত্ররা বিজ্ঞানটা হাতেকলমে শিখতে পারছে না। এর জন্য তিনি কারণ ঠাউরান - সুযোগের অভাব, উপায়ের অভাব এবং উৎসাহদানের অভাব। হাতেকলমে তালিম দেওয়ার জন্য তিনি ইংল্যান্ডের রয়াল ইনস্টিটিউশন ও ব্রিটিশ অ্যাসোসিয়েশন ফর দা অ্যাডভান্সমেন্ট অফ সায়েন্সের আদলে এক নুতন ধাঁচের বিজ্ঞান শিক্ষা ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান তৈরি করবার কথা ভাবেন। তিনি বিশ্বাস করতেন যে এর মাধ্যমে একদল ভারতীয় বিজ্ঞানীর সৃষ্টি হবে, যাঁরা  জাতীয় পুনর্গঠনে নিজেদের উৎসর্গ করবেন। সকল প্রকার কূপমণ্ডূকতার বিরুদ্ধে বিজ্ঞানের মাধ্যমে লড়াই করবেন। উন্নত, আধুনিক এবং বিজ্ঞানভিত্তিক সমাজ উপহার দেবেন পুরো মানবজাতিকে। এর জন্য প্রয়োজন ছিল তখনকার দিনে কম করে হলেও একলাখ টাকা। ১৮৬৯ সালে তিনি কাজ আরম্ভ করেন।

    ১২৭৯ বঙ্গাব্দের 'বঙ্গদর্শন'এ ভাদ্র সংখ্যায় 'ভারতবর্ষীয় বিজ্ঞান সভা' শীর্ষক প্রবন্ধে বঙ্কিমচন্দ্র এই প্রতিষ্ঠানের উদ্দেশ্যগুলি নিয়ে কিঞ্চিৎ আলোচনা করেছিলেন। প্রতিষ্ঠানের অনুষ্ঠানপত্রের ধারাগুলি উক্ত প্রবন্ধে উদ্ধৃত হয়েছে। ৪ নং এবং ৫ নং ধার‍ায় বলা হয়েছিল, "ভারতবর্ষীয়দিগকে আহ্বান করিয়া বিজ্ঞান অনুশীলন বিষয়ে প্রোৎসাহিত এবং সক্ষম করা এই সভার প্রধান উদ্দেশ্য আর ভারতবর্ষ সম্পর্কীয় যে সকল বিষয় লুপ্তপ্রায় হইয়াছে, তাহা রক্ষা করা (মনোরম ও জ্ঞানদায়ক প্রাচীন গ্রন্থসকল মুদ্রিত ও প্রচারিত করা) সভার আনুষঙ্গিক উদ্দেশ্য।" "সভা স্থাপন করিবার জন্য একটি গৃহ, কতকগুলি বিজ্ঞানবিষয়ক পুস্তক ও যন্ত্র এবং কতকগুলি উপযুক্ত ও অনুরক্ত ব্যক্তি বিশেষের আবশ্যক। অতএব এই প্রস্তাব হইয়াছে যে কিছু ভূমি ক্রয় করা ও তাহার উপর একটি আবশ্যকানুরূপ গৃহ নির্ম্মাণ করা, বিজ্ঞানবিষয়ক পুস্তক ও যন্ত্র ক্রয় করা এবং যাঁহারা এক্ষণে বিজ্ঞানুশীলন করিতেছেন, কিংবা যাঁহারা এক্ষণে বিদ্যালয় পরিত্যাগ করিয়াছেন, অথচ বিজ্ঞানশাস্ত্র অধ্যয়নে একান্ত অভিলাষী, কিন্তু উপায়াভাবে সে অভিলাষ পূর্ণ করিতে পারিতেছেন না, এরূপ ব্যক্তিদিগকে বিজ্ঞানচর্চ্চা করিতে আহ্বান করা হইবে।" [২] মহেন্দ্রলালের এই আবেদনের ছয়মাস পরে দেখা যায় মাত্র সাড়ে তেরো হাজার টাকা ফান্ডে জমা পড়েছে। বিদ্যাসাগর নিজে এক হাজার টাকা দেওয়া ছাড়াও মহারাজ কালীকৃষ্ণের থেকে পাঁচ হাজার টাকা সংগ্রহ করে দেন। অক্ষয়কুমার তাঁর উইলে একটা বড় অঙ্কের টাকা দিয়ে গিয়েছিলেন। তবে ঠাকুরবাড়ির দেবেন্দ্রনাথ-রবীন্দ্রনাথের এই বিষয় উৎসাহ ছিল বলে জানা যায় নি। সম্ভবত মহেন্দ্রলালের প্রাতিষ্ঠানিক ধর্মবিরোধী চিন্তাধারা তাঁদেরকে বিরক্ত করে তুলেছিল। ওই একই প্রবন্ধে আক্ষেপ করে বঙ্কিমচন্দ্র লিখেছেন, "এই অনুষ্ঠানপত্র আজ আড়াই বৎসর হইল প্রচারিত হইয়াছে, এই আড়াই বৎসরে বঙ্গসমাজ চল্লিশ সহস্র টাকা স্বাক্ষর করিয়াছেন। মহেন্দ্র বাবু লিখিয়াছেন যে, এই তালিকাখানি একটি আশ্চর্য্য দলিল। ইহাতে যেমন কতকগুলি নাম থাকাতে স্পষ্টিকৃত হইয়াছে, তেমনি কতকগুলি নাম না থাকাতে উজ্জ্বলীকৃত হইয়াছে। তিনি আর কিছু বলিতে ইচ্ছা করেন না।" [৩]

    কেবল তাই নয়, শিক্ষিত বাঙালী বিদ্বজ্জনেদের অধিকাংশই বিজ্ঞানচর্চায় আগ্রহ তো দেখানই নি, বরং বিরোধিতাই করেছেন। কলকাতার একদল খ্যাতনাম লোক প্রস্তাবিত এই প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে উঠে পড়ে লাগলেন। ইয়ংবেঙ্গল-খ্যাত রেভারেন্ড কৃষ্ণমোহন বন্দোপাধ্যায় মন্তব্য করেন, ভারতীয়দের এখন উচিত ইতিমধ্যেই যে সব আবিষ্কার হয়ে গেছে সেগুলোকে কাজে লাগাবার চেষ্টা করা, নুতন আবিস্কারের কথা পরে ভাবলেও চলবে। ইন্ডিয়া লীগের সদস্য শম্ভুচন্দ্র মুখোপাধ্যায় বলেন, এই প্রতিষ্ঠান একটা অপ্রয়োজনীয় জিনিস, একটা বিলাসদ্রব্য মাত্র। লেফটেন্যান্ট গভর্নর রিচার্ড টেম্পল বলেছিলেন, গবেষণা প্রতিষ্ঠানের বদলে যদি একটি কারিগরী স্কুল করা হয় তাহলে তাঁরা অনেক টাকা দিতে রাজি। এই টেম্পল হলেন সেই গোষ্ঠীর লোক যাঁরা মনে করেন যে নিছক কতকগুলি ব্যবহারিক সুযোগসুবিধা অর্থাৎ টেকনোলজিই হল বিজ্ঞান চর্চার একমাত্র উপযোগিতা। বিজ্ঞানের মননশীল দিক এবং মানুষের মধ্যে বিজ্ঞানমনস্ক মানসিকতা গড়ে তুলবার দিকগুলি নিয়ে এঁদের মাথাব্যথা থাকে না। তাই টেম্পল চেয়েছিলেন ডঃ সরকারের ওই প্রতিষ্ঠানে তাত্ত্বিক গবেষণার পরিবর্তে স্রেফ কারিগরী প্রশিক্ষণ দেওয়া হোক যাতে ব্রিটিশ উপনিবেশবাদের তাৎক্ষণিক প্রয়োজনটি সিদ্ধ হতে পারে। মজার কথা, টেম্পল এই কথা বলা মাত্রই বঙ্গ বুদ্ধিজীবীদের অধিকাংশ ত‍াঁর পোঁ ধরলেন। এই পরিস্থিতিতে বিদ্যাসাগর ছাড়াও মহেন্দ্রলালের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন কট্টর বেকনপন্থী সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজের রেক্টর এবং বিজ্ঞানের অধ্যাপক জেসুইট ফাদার ইউজিন লাফোঁ। তিনি জোরালো ভাষায় বলেন, ব্রিটিশ শাসক ও তাদের অনুগত ইন্ডিয়া লীগের উদ্দেশ্য হল ভারতীয়দের একটি মিস্তিরিদের জাতিতে পর্যবসিত করা, যাতে কোনোদিনই তারা ইউরোপীয়দের তত্ত্বাবধান ছাড়া চলতে না পারে। পক্ষান্তরে ডঃ সরকার চাইছেন তাঁর দেশবাসীকে এক দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনায় এই অসম্মানজনক বন্দিদশা থেকে মুক্তি দিতে। আশীষ লাহিড়ী যথার্থই বলেছেন, "আধুনিক বিজ্ঞানে স্বয়ংভরতা অর্জনের এই দুরপ্রসারী জাতীয়তাবাদী পরিপ্রেক্ষিতটা খুবই উল্লেখযোগ্য। বস্তুত ঐখানেই মহেন্দ্রলালের অন্যান্যতা। সেকিউলার জাতীয়তাবাদের সঙ্গে বিজ্ঞানকে সচেতনভাবে মেলাতে চেয়েছিলেন তিনি। এ বিষয়ে তিনি বিদ্যাসাগর-অক্ষয়কুমার পথেরই পথিক।" [৪]

    তবে একরোখা মহেন্দ্রলাল কারুর কাছে নতি স্বীকার করলেন না। হাতে যেটুকু টাকা সংগ্রহ হয়েছিল তাই নিয়েই মহেন্দ্রলাল ১৮৭৬ সালের ১৫ই জানুয়ারি, মতান্তরে ২৯শে জুলাই কলকাতার ২১০ নম্বর বৌবাজার স্ট্রিটে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠা করলেন তাঁর স্বপ্নের ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দি কালটিভেশন অফ সায়েন্স। একটি উঁচু মানের ল্যাবরেটরি ও লাইব্রেরি গড়ে উঠল বটে তবে পর্যাপ্ত টাকার অভাবে উপযুক্ত অধ্যাপক নিয়োগ করা গেল না, প্রথম পঁচিশ বছর বড় আকারের কোনও গবেষণা কার্যক্রমও নেওয়া গেল না। তবে যত কষ্ট করেই হোক অত্যন্ত দীন দশায় হলেও তাঁর কালটিভেশন অফ সায়েন্স তাঁর মনমতেই চলতে থাকল। ডঃ মহেন্দ্রলাল সরকার আমৃত্যু এই প্রতিষ্ঠানের সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। ডঃ সরকারের বলেছিলেন, "I am impressed more than ever with the necessity of science cultivation by my countrymen not simply for their improvement, but as I have been saying from the very begining, for their very generation ; or I would not have sacrificed a life endeavouring to awaken them to that necessity." [৫] এই প্রতিষ্ঠান পরিচালনার জন্য একটি বলিষ্ঠ পরিচালক সমিতি গঠিত হয়। এই সমিতিতে যোগ দিয়েছিলেন ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, কেশবচন্দ্র সেন, দ্বারিকানাথ মিত্র প্রমুখ। এছাড়া নিয়মিত পরামর্শ দান করে চলতেন গুরুদাস বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজেন্দ্রলাল মিত্র, সুরেন্দ্রনাথ বন্দ্যোপাধ্যায় প্রমুখ। অর্থের অভাবে প্রথমদিকে সক্রিয় গবেষণার বদলে কালটিভেশনের প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল একদল শিক্ষক তৈরী করা, যাঁরা বৈজ্ঞানিক বিষয় অধ্যাপনা করতে পারবেন। তাই এর কাজকর্ম সীমাবদ্ধ ছিল মুলত বক্তৃতাদান ও আলোচনাসভার মধ্যেই। ঠিক এইসময়ে মাঠে নামলেন রবীন্দ্রনাথ। স্বদেশীদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত একটি জাতীয়তাবাদী প্রতিষ্ঠানের পাশে দাঁড়াবার পরিবর্তে তিনি তিক্ত সমালোচনায় বিদ্ধ করে তুললেন কালটিভেশন অফ সায়েন্সকে।

    ১৮৭৬ সালে রবীন্দ্রনাথের পনেরো বছর বয়সে, ভারতীয়দের প্রথম বিজ্ঞান গবেষণা প্রতিষ্ঠান কালটিভেশন অফ সায়েন্স প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৮৯৮ সালে, অর্থাৎ বাইশ বছর পর, প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক সভার সভাপতি তৎকালীন লেফটেন্যান্ট গভর্নর ম্যাকেঞ্জির সামনে মহেন্দ্রলাল বিজ্ঞানের প্রতি এদেশের মানুষের আকর্ষণ কম বলে দেশবাসীর উদাসীনতাকে প্রবল সমালোচনা করেন। রবীন্দ্রনাথের ভাষায়, "অল্পকাল হইল বাংলাদেশের তৎসাময়িক শাসনকর্তা ম্যাকেঞ্জিসাহেবকে সভাপতির আসনে বসাইয়া মান্যবর শ্রীযুক্ত ডাক্তার মহেন্দ্রলাল সরকার মহাশয় তাঁহার স্বপ্রতিষ্ঠিত সায়ান্স অ্যাসোসিয়েশনের দুরবস্থা উপলক্ষে নিজের সম্বন্ধে করুণা, স্বদেশ সম্বন্ধে আক্ষেপ, এবং স্বদেশীয়দের প্রতি আক্রোশ প্রকাশ করিয়াছেন।" [৬] এর প্রতিক্রিয়ায় ১৩০৫ বঙ্গাব্দে 'ভারতী' পত্রিকায় প্রকাশিত 'প্রসঙ্গকথা ১' শীর্ষক রচনায় সাঁইত্রিশ বছর বয়সি রবীন্দ্রনাথ অত্যন্ত জ্বালাময়ী ভাষায় পঁয়ষট্টি বছরের বৃদ্ধ মহেন্দ্রলালকে আক্রমণ করে বলেন, "তাঁহার সমস্ত বক্তৃতার মধ্যে একটা নালিশের সুর ছিল। বাদী ছিলেন তিনি, প্রতিবাদী ছিল তাঁহার অবশিষ্ট স্বজাতিবর্গ এবং জজ ও জুরি ছিল ম্যাকেঞ্জিপ্রমুখ রাজপুরুষগণ।" [৭] কালটিভেশন অফ সায়েন্সের যে নিজস্ব ভবন আছে, অর্থসম্বল আছে তার প্রতি শ্লেষ করে রবীন্দ্রনাথের মন্তব্য, "ডাক্তার সরকারকে জিজ্ঞাসা করি, আজ পর্যন্ত সমস্ত বঙ্গদেশে এমন কয়টা অনুষ্ঠান আছে যে নিজের ঘর-দুয়ার ফাঁদতে পারিয়াছে, বহুব্যয়সাধ্য আসবাব সংগ্রহ করিয়াছে, যাহার স্থায়ী অর্থের সংস্থান হইয়াছে, এবং যাহার সভাপতি দেশের ছোটলাট বড়লাট সাহেবকে সম্মুখে বসাইয়া নিজের মহৎ ত্যাগস্বীকার ঘোষণাপূর্বক অশ্রুপাত করিবার দুর্লভ ঐ অবসর পাইয়াছে।" [৮] মহেন্দ্রলাল যে বিজ্ঞান প্রসারের জন্য অনেক কিছু করেছেন তা ব্যাঙ্গার্থে স্বীকার করে রবীন্দ্রনাথ আরও বললেন, "কিন্তু অনেক করিয়াছেন বলিয়া বিলাপ না করিয়া তাঁহাকে যে আরো অনেক করিতে হয় নাই সেজন্য কৃতজ্ঞতা অনুভব করা উচিত ছিল। বিজ্ঞানপ্রচারের উৎসাহে কোনো মহাপুরুষ জেলে গিয়াছেন, কোনো মহাপুরুষকে অগ্নিতে দগ্ধ হইতে হইয়াছে। বড়োলোক হইয়া বড়ো কাজ করিতে গেলে এরূপ অসুবিধা হইয়া থাকে।" [৯] বুঝতে পারা কঠিন যে সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশন নিয়ে রবীন্দ্রনাথের অভিযোগের অভিমুখটা ঠিক কি? - নিজস্ব ভবন তৈরী করা? নাকি মহেন্দ্রলালকে অগ্নিতে দগ্ধ হতে হয় নি, তাই? কোনটি? বঙ্গদেশে বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নতির জন্য নিজে এক পয়সাও খরচা না কর‍া রবীন্দ্রনাথের এই অহেতুক উষ্মা ও বক্রোক্তির মানে কি? মহেন্দ্রলালের নাস্তিক মনোভাবই এই প্রতিক্রিয়ার জন্য দায়ী নয় তো?

    বিজ্ঞানসভা নিয়ে রবীন্দ্রনাথের শ্লেষের এখানেই শেষ নয়। বিজ্ঞানসভার নিজস্ব ভবন ও মুল্যবান যন্ত্রপাতি নিয়ে রবীন্দ্রনাথ পুনরায় ব্যঙ্গাত্মক হলেন,
    "আজ প্রায় সিকি শতাব্দিকাল বাংলাদেশে বিজ্ঞানের জন্য একখানা পাকা বাড়ি, কতকগুলি আসবাব এবং কিঞ্চিৎ অর্থ আছে বলিয়াই যে বিজ্ঞান আপনা-আপনি গোকুলে বাড়িয়া উঠিতে থাকিবে এমন কোনো কথা নাই। আরো আসবাব এবং আরো টাকা থাকিলেই যে বিজ্ঞান আরো ফুলিয়া উঠিবে এমনও কোনো বৈজ্ঞানিক নিয়ম দেখা যায় না।" এবং, "এখানে সায়ান্স অ্যাসোসিয়েশন নামক একটি কল জুড়িয়া দিলেই যে বিজ্ঞান একদমে বাঁশি বাজাইয়া রেলগাড়ির মতো ছুটিতে থাকিবে, অত্যন্ত অন্ধ অনুরাগীও এরূপ দুরাশা পোষণ করিতে পারে না।" [১০]

    অবশ্য এইসব কটুক্তিতে অসীম মনোবলের অধিকারী ডঃ সরকার মোটেই বিচলিত হন নি। তিনি বলেছিলেন, "দেশে বিজ্ঞান আলোচনা মোটেই আরম্ভ হয় নাই। এ অবস্থায় আমাদের প্রধান কর্তব্য, দেশে বৈজ্ঞানিক মনোবৃত্তি গঠনে সাহায্য করা। তবেই আমরা দেখিতে পাইব, আমাদের উদ্ভাবনী শক্তি জাগ্রত হইয়াছে এবং শিল্প-বাণিজ্যাদি নানা ক্ষেত্রে উহার প্রয়োগ চলিতেছে। কিন্তু সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশন হইতে কতকগুলি কারিগর তৈরী করাই আমাদের লক্ষ্য নয়। বিজ্ঞানের নব নব জ্ঞানবিভবে জাতীয় মনীষাকে সম্বুদ্ধ করিয়া তোলাই ইহার প্রধানতম উদ্দেশ্য।" [১১]

    মজার কথা হল, রবীন্দ্রনাথের বিজ্ঞানচর্চা নিয়ে প্রায় সাড়ে তিনশো পাতার একটি গ্রন্থ রচনা করে ফেললেও 'প্রসঙ্গকথা ১' প্রবন্ধে সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রতি রবীন্দ্রনাথের বক্রোক্তিগুলি সম্পর্কে কোনো এক অজ্ঞাত কারণে নীরব রবীন্দ্রভক্ত দীপঙ্কর চট্টোপাধ্যায় ! গোটা বইতে বিজ্ঞানসভা সম্বন্ধে তিনি মাত্র একটি বাক্য লিখেছেন, "এই 'বিজ্ঞানসভা'র উন্নতি কিভাবে কর‍া যায় একসময় সে-বিষয়ে রবীন্দ্রনাথ একটি প্রবন্ধ রচনা করেন।" [১২] এখন দেখা যাক, কি সেই প্রবন্ধ এবং তাতে রবীন্দ্রনাথ ঠিক কি লিখেছেন।

    মহেন্দ্রলালের মৃত্যুর পর ১৩১২ বঙ্গাব্দে 'বিজ্ঞানসভা' শীর্ষক রচনায় রবীন্দ্রনাথ আবার সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রতি আক্রমণ আরম্ভ করলেন, "বিজ্ঞানচর্চাসম্বন্ধে দেশের এমন দুরবস্থা অথচ এই বিদ্যাদুর্ভিক্ষের মাঝখানে বিজ্ঞানসভা তাঁহার পরিপুষ্ট ভাণ্ডারটি লইয়া দিব্য সুস্থভাবে বসিয়া আছেন।" [১৩] রবীন্দ্রনাথের সমস্যাটা কি বিজ্ঞানসভার 'পরিপুষ্ট ভাণ্ডার'টি নিয়ে? বোধহয় তা নয়। বিজ্ঞানসভার কাছে রবীন্দ্রনাথের দুটি প্রত্যাশা - (১) "যদি জগদীশ ও প্রফুল্লচন্দ্রের শিক্ষাধীনে দেশের কয়েকটি অধ্যবসায়ী ছাত্রকে মানুষ করিয়া তুলিবার ভার বিজ্ঞানসভা গ্রহণ করেন, তবে সভা এবং দেশ উভয়েই ধন্য হইবেন।" এবং (২) "স্বদেশে বিজ্ঞান প্রচার করিবার দ্বিতীয় সদুপায়, স্বদেশের ভাষায় বিজ্ঞান প্রচার করা। যতদিন পর্যন্ত না বাংলাভাষায় বিজ্ঞানের বই বাহির হইতে থাকিবে, ততদিন পর্যন্ত বাংলাদেশের মাটির মধ্যে বিজ্ঞানের শিকড় প্রবেশ করিতে পারিবে না।" এই দুটি কাজ বিজ্ঞানসভা করছে না বলে রবীন্দ্রনাথের অভিযোগ। আর সেজন্য তাঁর বক্তব্য, "বিজ্ঞানসভার মতো কর্মশূন্য সভা আমাদের জাতির পক্ষে লজ্জার বিষয়। ইহা আমাদের জাতির পক্ষে নিত্য কুদৃষ্টান্ত ও নিরুৎসাহের কারণ।" [১৪]

    মহেন্দ্রলাল কিন্তু স্পষ্টভাবেই বিজ্ঞানসভার উদ্দেশ্যটি ব্যক্ত করেছিলেন। এখন প্রশ্ন হল, বিজ্ঞানসভা কি আদৌ কর্মশূন্য ছিল? বোধহয় রবীন্দ্রনাথের এই উক্তির ভ্রান্ততা প্রমাণের জন্যেই চন্দ্রশেখর ভেঙ্কট রামনের পদার্পণ ঘটেছিল কলকাতার এই প্রতিষ্ঠানে ১৯০৭ সালে। শিক্ষকতার অবসরে তিনি এখানে নিরলস গবেষণা চালিয়ে যেতেন। এখানে গবেষণা করেই ১৯২৮ সালে তিনি 'রামন এফেক্ট' আবিষ্কার করলেন যা তাকে নোবেল পুরস্কার এনে দিল। পরবর্তীকালে এই প্রতিষ্ঠানের নিকট নিজের চিরকৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে রামন বলেছিলেন, "It was the late Dr. Mahendralal Sarkar, who, by founding Indian Association for the cultivation of Science, made it possible for the scientific aspirations of my early years to continue burning brightly." [১৫] রবীন্দ্রনাথের সমালোচনার এর থেকে বড় জবাব বোধহয় আর হয় না।

    এখানে আর একটা ব্যাপার অনুধাবনযোগ্য। মাতৃভাষায় বিজ্ঞান জনপ্রিয় কখন হয়? আশীষ লাহিড়ী এই বিষয়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ আলোচমা করেছেন। তাঁর মতে, উৎপাদনশিল্পের কাছে হার্ড সায়েন্স আগে প্রয়োজনীয় হয়ে ওঠে, তারপর বিজ্ঞান জনসাধারণের মধ্যে জনপ্রিয় হয়। বিজ্ঞানে উন্নত সব দেশেই তাই হয়েছে। সমাজের মধ্যে বিজ্ঞানের চাহিদা তৈরী না হলে বিজ্ঞান কোনোকালে কোনোদেশেই জনপ্রিয় হয় নি। "অর্থাৎ, রবীন্দ্রনাথের মতে, অ্যাসোসিয়েশন যে কাজ করবার জন্য গঠিত হয় নি, সেই কাজটাই তার সাফল্যের একমাত্র মানদণ্ড !" [১৬]

    যাইহোক, যে কথা বলছিলাম। ১৯৩৩ সাল পর্যন্ত রামন এই প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ছিলেন। এরপর একে একে কালটিভেশনের সঙ্গে জুড়তে থাকেন বহু প্রথিতযশা বিজ্ঞানী। ১৯১২ সালে প্রতিষ্ঠানের অধিকর্তা পদ চালু করা হলে প্রথম অধিকর্তার দায়িত্ব গ্রহণ করেন প্যারিমোহন মুখোপাধ্যায়। তার পর পর্যায়ক্রমে দায়িত্ব পালন করেছেন চিকিৎসক নীলরতন সরকার, জ্ঞানচন্দ্র ঘোষ এবং সত্যেন্দ্রনাথ বসু, আরেক বিশ্ববিখ্যাত বিজ্ঞানী, বোস-আইনস্টাইন পরিসংখ্যান তত্ত্বের জনক। এছাড়া ১৯২৮ সালে আরেক বিখ্যাত জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞানী সুব্রহ্মণ্যন চন্দ্রশেখর এই প্রতিষ্ঠানে এলেন। তখন এখানে তৎকালীন প্রথিতযশা বিজ্ঞানীদের সাথে পরিচিত হন যার মধ্যে ছিলেন মেঘনাদ সাহা, শ্রীনিবাস কৃষ্ণান প্রমুখ। এখানে এসেই তিনি নক্ষত্রের অভ্যন্তরীন ঘটনাবলী এবং জীবনচক্র নিয়ে তিনি চিন্তা করতে শুরু করেন এবং জীবনের প্রথম গবেষণামূলক প্রবন্ধটি লেখেন। এই গবেষণাপত্রের নাম ছিল 'Thermodynamics of the Compton Effect with Reference to the Interior of the Stars'। এই গবেষণাপত্রটি পরবর্তী বছর তিনি ভারতীয় বিজ্ঞান কংগেসের বার্ষিক অধিবেশনে পাঠ করেছিলেন। ১৯২৮ সালেই বিশ্বখ্যাত বিজ্ঞানী আর্নল্ড সমারফেল্ড ভারত ভ্রমণে এসে আইএসিএস-এ বক্তৃতা দেন।

    ১৯৪৬ সালে মেঘনাদ সাহা এই প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বভার গ্রহণ করে প্রশংসনীয় কিছু উদ্যোগ নেন। তিনি একটি সক্রিয় গবেষণা বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেন যেখানে মূলত এক্স রশ্মি, আলোকবিজ্ঞান, চুম্বকত্ব এবং রমন ক্রিয়া সংক্রান্ত মৌলিক গবেষণা পরিচালিত হতো।পরবর্তীকালে যাদবপুরে প্রতিষ্ঠানের আরেকটি প্রাঙ্গণ প্রতিষ্ঠা করা হয় যেখানে শিক্ষাগত গবেষণা ও শিল্প কারখানা স্থাপনের উপযোগী জ্ঞানের সমন্বয় ঘটানো হয়। পরবর্তীতে আইএসিএস-এর মূল গবেষণাগার বৌবাজার স্ট্রিট থেকে সরিয়ে যাদবপুরের বর্তমান অবস্থানে নিয়ে যাওয়া হয়।

    একটা কথা মনে রাখতে হবে যে, ঔপনিবেশিক শাসনকালে যে কোনও গঠনমূলক কাজ করতে গেলেই ব্রিটিশ শাসকদের সঙ্গে ইচ্ছে বা অনিচ্ছায় কিছু না কিছু আপোষ করতেই হত। এটা রামমোহনকে করতে হয়েছিল, বিদ্যাসাগরকেও করতে হয়েছিল, এমনকি শান্তিনিকেতন প্রতিষ্ঠার সময় রবীন্দ্রনাথকেও করতে হয়েছিল। এগুলো যুগের সীমাবদ্ধতা। এমনকি আজ ২০২০ সালের স্বাধীন ভারতে কিছু গঠনমুলক কাজ করতে গেলে হয়তো আপনাকেও করতে হবে। তবু সেই পরিপ্রেক্ষিতেও ডঃ মহেন্দ্রলাল সরকার ব্রিটিশ শাসকদের মতামতের বিরুদ্ধে গিয়ে সম্পুর্ণ দেশীয় সহায়তায় এতবড় প্রতিষ্ঠানটি তৈরি করেছিলেন। মহেন্দ্রলাল কোনও বৈজ্ঞানিক আবিস্কর্তা নয়, কোনও মৌলিক গবেষণায় তাঁর যশ অর্জিত হয় নি। কিন্তু এদেশে বিজ্ঞান চর্চার আদি গুরু বলে তিনি চিরকাল সকল বিজ্ঞানমনস্ক মানুষের নমস্য থাকবেন। কালটিভেশন অফ সায়েন্স কিভাবে অর্থ সংগ্রহ করেছিল, ব্রিটিশ শাসনযন্ত্রের প্রবল বিরোধিতার সম্মুখীন হয়েও প্রবল অর্থসংকটে পড়েও ডঃ সরকার কিভাবে জাতীয় বিজ্ঞানচর্চার দীপটি টিমটিম করে হলেও সযত্নে জ্বালিয়ে রেখেছিলেন, এ তথ্য তো রবীন্দ্রনাথের অজানা থাকবার কথা নয়। "তা সত্ত্বেও বিজ্ঞানসভার অনেক টাকা ও স্থাবর সম্পত্তি নিয়ে, বিশেষ করে রাজপুরুষদের অকৃপণ দাক্ষিণ্য নিয়ে, বার বার তাঁর বক্রোক্তি আমাদের অস্বস্তি জাগায়।" [১৭] তাই প্রশ্ন জাগে, রবীন্দ্রনাথের মতো স্বদেশপ্রেমিক মানুষ কেন মহেন্দ্রলালের এত বড় কর্মপ্রয়াস সম্পর্কে আর একটু বিবেচনাপরায়ণ হলেন না?

    এ বিষয়ে আমার একটু অন্য থিয়োরী আছে। রবীন্দ্রনাথ নাস্তিকদের ঠিক পছন্দ করতেন না। আমরা দেখতে পাই, ঠাকুরবাড়ির পত্রিকা তত্ত্ববোধিনীকে জনপ্রিয় করবার জন্য বিশাল অবদান রাখা সত্ত্বেও অক্ষয়কুমার দত্ত সম্পর্কে রবীন্দ্রনাথ চরম নির্লিপ্ত। অক্ষয়কুমারের মতো ডঃ মহেন্দ্রলাল সরকারও কিন্তু ঘোষিত নাস্তিক ছিলেন !

    তথ্যসূত্র :
    ১) পৃষ্ঠা ৬৮, অন্য কোনো সাধনার ফল, আশীষ লাহিড়ী, পাভলভ ইনস্টিটিউট
    ২) পৃষ্ঠা ১০২৪, বঙ্কিম রচনাবলী দ্বিতীয় খণ্ড, যোগেশচন্দ্র বাগল সম্পাদিত, সাহিত্য সংসদ
    ৩) প্রাগুক্ত, পৃষ্ঠা ১০২৮
    ৪) পৃষ্ঠা ৪৫, রবীন্দ্রনাথ : মানুষের ধর্ম মানুষের বিজ্ঞান, আশীষ লাহিড়ী, অবভাস
    ৫) পৃষ্ঠা ১৪, বিজ্ঞানে বাঙালী, অনিল চন্দ্র ঘোষ, প্রেসিডেন্সি লাইব্রেরী
    ৬) পৃষ্ঠা ৫০৫, রবীন্দ্র রচনাবলী দ্বাদশ খণ্ড, প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায় সম্পাদিত, বিশ্বভারতী প্রকাশন
    ৭) প্রাগুক্ত, পৃষ্ঠা ৫০৫
    ৮) প্রাগুক্ত, পৃষ্ঠা ৫০৬
    ৯) প্রাগুক্ত, পৃষ্ঠা ৫০৬
    ১০) প্রাগুক্ত, পৃষ্ঠা ৫০৭
    ১১) পৃষ্ঠা ১৮, বিজ্ঞানে বাঙালী, অনিল চন্দ্র ঘোষ, প্রেসিডেন্সি লাইব্রেরী
    ১২) পৃষ্ঠা ১৮, রবীন্দ্রনাথ ও বিজ্ঞান, দীপঙ্কর চট্টোপাধ্যায়, আনন্দ পাবলিশার্স
    ১৩) পৃষ্ঠা ৫১৮, রবীন্দ্র রচনাবলী দ্বাদশ খণ্ড, প্রভাতকুমার মুখোপাধ্যায় সম্পাদিত, বিশ্বভারতী প্রকাশন
    ১৪) প্রাগুক্ত, পৃষ্ঠা ৫১৯
    ১৫) পৃষ্ঠা ১৯, বিজ্ঞানে বাঙালী, অনিল চন্দ্র ঘোষ, প্রেসিডেন্সি লাইব্রেরী
    ১৬) পৃষ্ঠা ৪৯, রবীন্দ্রনাথ : মানুষের ধর্ম মানুষের বিজ্ঞান, আশীষ লাহিড়ী, অবভাস
    ১৭) প্রাগুক্ত, পৃষ্ঠা ৪৫

  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • quark | 141.101.99.178 | ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১১:৪২729549
  • ভারি ভালো লেখা। অনেককিছু জানা হ'ল।

    "লেফটেন্যান্ট গভর্নর রিচার্ড টেম্পল বলেছিলেন, গবেষণা প্রতিষ্ঠানের বদলে যদি একটি কারিগরী স্কুল করা হয় তাহলে তাঁরা অনেক টাকা দিতে রাজি। এই টেম্পল হলেন সেই গোষ্ঠীর লোক যাঁরা মনে করেন যে নিছক কতকগুলি ব্যবহারিক সুযোগসুবিধা অর্থাৎ টেকনোলজিই হল বিজ্ঞান চর্চার একমাত্র উপযোগিতা।"

    মজার কথা হ'ল বর্তমান ভারত সরকারও ঠিক এই মত পোষণ করেন।

    "ঠিক এইসময়ে মাঠে নামলেন রবীন্দ্রনাথ। স্বদেশীদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত একটি জাতীয়তাবাদী প্রতিষ্ঠানের পাশে দাঁড়াবার পরিবর্তে তিনি তিক্ত সমালোচনায় বিদ্ধ করে তুললেন কালটিভেশন অফ সায়েন্সকে।"

    অদ্ভূতভাবে এই রবীন্দ্রনাথই কিন্তু ১৯১৭ সালে বন্ধুবর জগদীশচন্দ্র প্রতিষ্ঠিত 'বসু বিজ্ঞান মন্দির' এর প্রতিষ্ঠাকালে লিখলেন 'মাতৃমন্দির পুণ্য অঙ্গন করো মহোজ্জ্বল আজো হে'। বিজ্ঞান গবেষনা নিয়ে জগদীশচন্দ্রের সঙ্গে তাঁর আলাপ - আলোচনা লিপিবদ্ধ রয়েছে তাঁদের চিঠিপত্রে।
  • | 172.68.146.205 | ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২০:৩৭729550
  • ভাল লেখা। 

    "রবীন্দ্রনাথ নাস্তিকদের ঠিক পছন্দ করতেন না।" - তা হবে হয়তো। 

    মহেন্দ্রলাল কি নাস্তিক ছিলেন? 

    সমরেন্দ্রনাথ সেন লিখেছেন বটে, "যে বিজ্ঞানের বলে বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের কাণ্ডকারখানা অন্যধাবন করা সম্ভব সেই বিজ্ঞানই তাঁর ধর্মচেতনার মূল উৎস, ঈস্বর-উপলব্ধির প্রধান প্রেরণা।" তবে সমরেন্দ্র ভুল লিখতে পারেন। তবে মহেন্দ্র যে গানগুলি লিখেছিলেন সেগুলি বিশুদ্ধ ভক্তিগান, কেবল 'সাঁওতাল মাগী' বলে দেবীকে অভিহিত করা মহেন্দ্রকে একমাত্র ভাবার কারণ নেই।

    "সয়না, রোগের যাতনা আর সয়না,

    কোথায়, নাথ, তোমার অসীম করুণা।"

    ==========

    জানি প্রভু, যা কর তুমি, তা সবে হয় মঙল সাধনা,

    তবু কাতর হয়ে করিয়াছি যে প্রার্থনা।"

    মুক্তচিন্তার পথিক, এটুকু পড়ে দেখবেন নাকি? 

  • এলেবেলে | 141.101.99.178 | ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২০:৫৫729551
  • মুক্তচিন্তার পথিক (একটু ছোট নিক নেওয়া যায়?) খুব ভালো। আরও লিখতে থাকুন।

  • রঞ্জন | 162.158.155.85 | ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২১:০২729552
  • কথামৃতে  ঠাকুর রামকৃষ্ণের সঙ্গে ডঃ সরকারের কথোপকথন আছে । সেটাও দেখা জরুরি।

    সেই সময়ে সত্যিকারের নাস্তিক তখন বোধহয় অক্ষয় কুমার দত্ত যাঁর  ঈশ্বরকে বাদ দিয়ে  'বাহ্যজগতের সঙ্গে মানবপ্রকৃতির সম্পর্ক' খোঁজার প্রতিক্রিয়ায় দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর বিচলিত হয়ে পড়েন এবং দত্তমশায়কে তত্ত্ববোধিনী সভা থেকে সরে যেতে হয় ; এবং অবশ্যই বিদ্যাসাগর ।   রামেন্দ্রসুন্দর ত্রিবেদীও বেকন অনুসারী ইন্ডাক্টিভ লজিক পদ্ধতির গুরুত্ব বুঝেছিলেন। মনে হয় বিদ্যাসাগরের মত অজ্ঞেয়বাদী ছিলেন ।

  • quark | 162.158.158.192 | ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১১:১৬729555
  • হুম! জগদীশ বোস (এবং ঠাকুরবাড়ী) বেম্ম ছিলেন বটে।
  • মুক্তচিন্তার পথিক | 162.158.167.185 | ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১২:০০729556
  • এলেবেলে ধন্যবাদ। আপনার উৎসাহ না পেলে হত না।

  • মুক্তচিন্তার পথিক | 172.69.135.51 | ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১২:০৫729557
  • জ আমি কেবল আমার আন্দাজটা বলেছি। সেটি ভুলও হতে পারে। বরং আপনি রবীন্দ্রনাথের এই বিরুদ্ধতার একটি জুৎসই কারণ বার করতে পারলে ঋদ্ধ হই।
  • এলেবেলে | 162.158.158.140 | ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২০:৩৭729562
  • @মু. পথিক, আপনার লেখাটিতে তথ্য সংক্রান্ত কোনও ভুলই নেই, কিন্তু ভুল আছে বিশ্লেষণে। আমার ধারণা, আপনি অতি মাত্রায় আশীষ লাহিড়ীর 'অন্য কোনও সাধনার ফল' -এ প্রভাবিত হয়েছেন।

    আপনি প্রশ্ন তুলেছেন --- "বুঝতে পারা কঠিন যে সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশন নিয়ে রবীন্দ্রনাথের অভিযোগের অভিমুখটা ঠিক কি? - নিজস্ব ভবন তৈরী করা? নাকি মহেন্দ্রলালকে অগ্নিতে দগ্ধ হতে হয় নি, তাই? কোনটি? বঙ্গদেশে বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নতির জন্য নিজে এক পয়সাও খরচা না কর‍া রবীন্দ্রনাথের এই অহেতুক উষ্মা ও বক্রোক্তির মানে কি? মহেন্দ্রলালের নাস্তিক মনোভাবই এই প্রতিক্রিয়ার জন্য দায়ী নয় তো?"

    এর একটাও ঠিক নয়। প্রথমত, ব্যক্তি মহেন্দ্রলালকে আক্রমণ করার লোকই রবীন্দ্রনাথ নন। বরং রবীন্দ্রনাথ বিপিন পাল, চিত্তরঞ্জন, দ্বিজেন্দ্রলাল, প্রফুল্লচন্দ্র প্রমুখের দ্বারা একাধিকবার আক্রান্ত হলেও তাঁর স্বাভাবিক সৌজন্যবোধ বিসর্জন দেননি। তাঁর আপত্তিটা মহেন্দ্রলালের কর্মপদ্ধতি নিয়ে। 

    ওই একই প্রবন্ধে (প্রসঙ্গকথা) রবীন্দ্রনাথ লিখছেন --- "বড়োলোকেরা বড়ো কাজ করিয়া থাকেন কিন্তু তাঁহারা আলাদিনের প্রদীপ লইয়া জন্মগ্রহণ করেন না। কাজেই তাঁহারা রাতারাতি অসাধ্য সাধন করিতে পারেন না। আমাদের দুর্ভাগ্য দেশে উচ্চপদস্থ রাজপুরুষদের নাম ছোটোখাটো আলাদিনের প্রদীপবিশেষ। সেই প্রদীপের সাহায্যে এবং ডাক্তার সরকারের নিজের নাম ও চেষ্টার জোরে এই বিজ্ঞানচর্চাবিহীন বঙ্গদেশে অকস্মাৎ পাকা ভিত এবং যন্ত্রতন্ত্রসহ এক সায়ান্স অ্যাসোসিয়েশন উঠিয়া পড়িল। ইহাকে একপ্রকার ভেলকি বলা যাইতে পারে

    কিন্তু বাস্তবজগতে আরব্য উপন্যাস অধিক দূর অগ্রসর হইতে পারে না। ভেলকির জোরে জনসাধারণের মনে বিজ্ঞানের প্রতি অনুরাগ সঞ্চার করা সম্ভব নহে। আজ প্রায় সিকি শতাব্দীকাল বাংলাদেশে বিজ্ঞানের জন্য একখানা পাকাবাড়ি, কতকগুলি আসবাব এবং কিঞ্চিৎ অর্থ আছে বলিয়াই যে বিজ্ঞান আপনা-আপনি গোকুলে বাড়িয়া উঠিতে থাকিবে এমন কোনো কথা নাই। আরো আসবাব এবং আরো টাকা থাকিলেই যে বিজ্ঞান আরো ফুলিয়া উঠিবে এমনও কোনো বৈজ্ঞানিক নিয়ম দেখা যায় না।"

    এই ভেলকিবাজির বিরুদ্ধাচরণ রার পরেই তিনি আসল রোগটা ধরছেন এবং লিখছেন --- "এখানে সায়ান্স অ্যাসোসিয়েশন নামক একটা কল জুড়িয়া দিলেই যে বিজ্ঞান একদমে বাঁশি বাজাইয়া রেলগাড়ির মতো ছুটিতে থাকিবে, অত্যন্ত অন্ধ অনুরাগও এরূপ দুরাশা পোষণ করিতে পারে না। গাড়ি চলে না বলিয়া দেশাধিপতির নিকট দেশের নামে নালিশ রুজু না করিয়া আপাতত রাস্তা বানাইতে শুরু করা কর্তব্য।

    রাস্তা বানাইতে গেলে নামিয়া আসিয়া একেবারে মাঢিতে হাত লাগাইতে হয়। আমাদের দেশের বড়োলোকদের নিকটে সে-প্রস্তাব করিতে সংকোচ বোধ করি, কিন্তু অগত্যা না করিয়া থাকা যায় না। বিজ্ঞান যাহাতে দেশের সর্বসাধারণের নিকট সুগম হয় সে-উপায় অবলম্বন করিতে হইলে একেবারে মাতৃভাষায় বিজ্ঞানচর্চার গোড়াপত্তন করিয়া দিতে হয়। সায়ান্স অ্যাসোসিয়েশন যদি গত পঁচিশ বৎসর এই কার্যে যত্নশীল হইতেন তবে যে-ফললাভ করিতেন তাহা রাজপুরুষবর্গের সমুচ্চ প্রাসাদবাতায়ন হইতে দৃষ্টিগোচর না হইলেও আমাদের এই বিজ্ঞানদীন দেশের পক্ষে অত্যন্ত মহার্ঘ হইত

    ... অধিকাংশ জ্ঞানবিজ্ঞান ইংরেজিভাষার কড়া পাহারার মধ্যে আবদ্ধ।

    তাহার ফল এই, বিদ্যালয়ে আমরা যাহা লাভ করি সমাজে তাহার কোনো চর্চা নাই। সুতরাং আমাদের বিদ্যা আমাদের প্রাণের সহিত রক্তের সহিত মিশ্রিত হয় না। বিদ্যার প্রধান গৌরব দাঁড়াইয়াছে অর্থোপার্জনের উপায়রূপে।

    সায়ান্স অ্যাসোসিয়েশন সেই স্বল্পসংখ্যক আধুনিক ব্রাহ্মণস্থানীয়দের জন্য আপন শক্তি নিয়োগ করিয়াছে। যে-কয়জনা ইংরেজিতে বিজ্ঞান শেখে সভা তাহাদের নিকট ইংরেজিভাষায় বিজ্ঞান ব্যাখ্যা করে ; বাকি সমস্ত বাঙালির সহিত তাহার কিছুমাত্র সংস্রব নাই।

    ...  যেমন পাথুরে জমির উপর আধহাতখানেক পুষ্করিণীর পাঁক তুলিয়া দিয়া তাহাতে বৃক্ষ রোপণ করিলে গাছটা প্রথম প্রথম খুব ঝাড়িয়া মাথা তুলিয়া ডালেপালায় গজাইয়া উঠে, অবশেষে শিকড় যেমনি নীচের কঠিন স্তরে গিয়া ঠেকে অমনি অকস্মাৎ মুষড়িয়া মরিয়া যায়– আমাদের দেশের বিজ্ঞানশিক্ষারও সেই অবস্থা।

    ঘরে-বাইরে চারি দিকে বিজ্ঞানের আলোককে সাধারণভাবে পরিব্যাপ্ত করিয়া দিলে তবেই বিশেষভাবে বিজ্ঞানের চর্চা এ দেশে স্থায়ীরূপে বর্ধিত হইতে পারিবে। নতুবা আপাতত দুইদিনের উন্নতি দেখিয়া অত্যন্ত উৎফুল্ল হইবার কারণ নাই– কেননা, চারি দিকের দিগন্তপ্রসারিত মূঢ়তা দিনে নিশীথে অলক্ষ্যভাবে আকর্ষণ করিয়া সংকীর্ণমূল উচ্চতাকে আপনার সহিত সমভূম করিয়া আনিবে।"

    এই প্রবন্ধের কোনও খানে  মহেন্দ্রলালকে আক্রমণ নেই, বদলে  সঠিক রোগনির্ণয় আছে। পাথুরে জমিতে বৃক্ষ রোপণ করে যে আদতে এ দেশে বিজ্ঞানচর্চার পথ সুগম হবে না, সে কথা বলা আছে। কিন্তু শুধু অভিযোগ করেই থেমে যাননি রবীন্দ্রনাথ। বরং ঠিক পথের দিশাও দেখিয়েছেন একই প্রবন্ধে। তিনি লিখেছেন, "বঙ্গীয় সাহিত্যপরিষৎ বাংলার বৈজ্ঞানিক পরিভাষাসংকলনে প্রবৃত্ত হইয়াছেন। কিন্তু তাঁহাদের উদ্দেশ্য নানা শাখায় বিভক্ত হওয়ায় কার্য যথোচিতরূপে অগ্রসর হইতেছে না। এই কার্যে সাহিত্যপরিষদের সহিত সায়ান্স অ্যাসোসিয়েশনের যোগ দেওয়া কর্তব্য। বাংলায় বৈজ্ঞানিক গ্রন্থ প্রচার, সাময়িক পত্র প্রকাশ, স্থানে স্থানে যথানিয়মে বক্তৃতা দিবার ব্যবস্থা করা আবশ্যক। নিজের উপযোগিতা উপকারিতা সর্বতোভাবে প্রমাণ করা আবশ্যক। তবেই দেশের সহিত সভার দান-প্রতিদানের সম্বন্ধ স্থাপিত হইবে, কেবলমাত্র বিলাপের দ্বারা তাহা হইতে পারে না। এমন-কি, রাজপ্রতিনিধির মধ্যস্থতা দ্বারাও বেশি কিছু হইবে না। রাজা সায়ান্স অ্যাসোসিয়েশনের অর্থাগমের সুযোগ করিয়া দিতে পারেন, কিন্তু তাহাকে সফল করিতে পারেন না।"

    আর "বঙ্গদেশে বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নতির জন্য নিজে এক পয়সাও খরচা না কর‍া রবীন্দ্রনাথ" বলতে লেখক কী বোঝাতে চাইলেন? রথীন্দ্রনাথকে কৃষিবিজ্ঞান পড়তে পাঠানো, পতিসরে তার প্রয়োগ, শ্রীনিকেতন বঙ্গদেশে বিজ্ঞান শিক্ষার উন্নতি করেনি নাকি তাতে রবীন্দ্রনাথের এক পয়সাও খরচ হয়নি?

    মহেন্দ্রলালের নাস্তিক মনোভাব নিয়ে রবীন্দ্রনাথের আপত্তি কোথাও লিপিবদ্ধ আছে কি? রবীন্দ্রনাথ অনেক ক্ষেত্রেই সংশয়বাদী। তাহলে নাস্তিকতা নিয়ে তাঁর আপত্তির কারণ কী? মহেন্দ্রলাল যে নাস্তিক সেটাই বা কোথা থেকে জানা গেল? রবীন্দ্রনাথ এই প্রবন্ধেই প্রফুল্লচন্দ্র-জগদীশচন্দ্রর নামোল্লেখ করেছেন। সুতরাং তাঁর ব্রাহ্মপ্রেমও তো ধোপে টেকে না! তাহলে?

    মনে রাখুন, এই প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়েছিল ১৩০৫ বঙ্গাব্দের বৈশাখ মাসে। এর মাত্র তিন বছর পরে ১৩০৮ বঙ্গাব্দের আষাঢ়ের বঙ্গদর্শনে প্রকাশিত হয়েছিল তাঁর আচার্য্য জগদীশের জয়বার্ত্তা প্রবন্ধটি। পারলে প্রবন্ধটি একবার পড়ে দেখবেন। আর মহেন্দ্রলালের বিজ্ঞানসভা সম্পর্কে আর একটি প্রবন্ধে তিনি অভিযোগের সুরে জানান --- আমাদের দেশে অধ্যাপক জগদীশ, অধ্যাপক প্রফুল্লচন্দ্র দেশবিদেশে যশোলাভ করিয়াছেন, বিজ্ঞানসভা কি তাঁহাদিগকে কাজে লাগাইবার বিন্দুমাত্র চেষ্টা করিতেছেন?" প্রসঙ্গত, প্রবন্ধটি প্রকাশিত হয় ১৩১২বঙ্গাব্দে অর্থাৎ ৭ বছরে অশ্বডিম্ব প্রসব!!!

  • মুক্তচিন্তার পথিক | 162.158.166.58 | ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২২:৪০729567
  • @এলেবেলে, আপনার বক্তব্য পড়ে মনে হল, আপনি অতি ভয়ঙ্করভাবে রবীন্দ্রাক্রান্ত - রবীন্দ্রনাথের বিষয়ে মন্দ কিছু শুনবো না, মন্দ কিছু দেখবো না, মন্দ কিছু বলবো না - এই টাইপের আর কি। নাহলে একটু চিন্তাভাবনা করে এবং মস্তিস্কটা খোলা রাখলে আপনি নিজের যুক্তির ফাঁকিটা বুঝতে পারতেন। অবশ্য বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের সকলের খুঁত ধরে বেড়ানো 'এলেবেলে' যে গুরুদেবের বিরুদ্ধে একটা কথাও শুনতে রাজি নয় - সার্কিটে আমরা সকলেই জানি।

    এবার মূল প্রসঙ্গে আসা যাক। ১৩০৫ বঙ্গাব্দ অর্থাৎ ১৮৯৯ খ্রীস্টাব্দে 'ভারতী' পত্রিকায় রবীন্দ্রনাথ তাঁর 'প্রসঙ্গকথা ১' শীর্ষক প্রবন্ধে ব্যঙ্গ করে লিখেছিলেন, "সেই প্রদীপের সাহায্যে এবং ডাক্তার সরকারের নিজের নাম ও চেষ্টার জোরে এই বিজ্ঞানচর্চাবিহীন বঙ্গদেশে অকস্মাৎ পাকা ভিত এবং যন্ত্রতন্ত্রসহ এক সায়ান্সঅ্যাসোসিয়েশেন উঠিয়া পড়িল। ইহাকে একপ্রকার ভেলকি বলা যাইতে পারে।"

    এবার যদি আমরা বাস্তব ঘটনার দিকে চেয়ে দেখি তো কি দেখবো? মহেন্দ্রলাল ১৮৭০ সালে প্রস্তাবিত সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশনের জন্য অর্থ সাহায্যের আবেদন করেছিলেন। আমরা দেখেছি পরবর্তী ছয়মাসে ফান্ডে স্রেফ তেরো হাজার টাকা জমা পড়েছিল। ১২৭৯ বঙ্গাব্দে অর্থাৎ ১৮৭৩ সালে 'বঙ্গদর্শন' পত্রিকায় 'ভারতবর্ষীয় বিজ্ঞান সভা' শীর্ষক প্রবন্ধে বঙ্কিমচন্দ্র স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন, "এই অনুষ্ঠানপত্র আজ আড়াই বৎসর হইল প্রচারিত হইয়াছে, এই আড়াই বৎসরে বঙ্গসমাজ চল্লিশ সহস্র টাকা স্বাক্ষর করিয়াছেন। মহেন্দ্র বাবু লিখিয়াছেন যে, এই তালিকাখানি একটি আশ্চর্য্য দলিল। ইহাতে যেমন কতকগুলি নাম থাকাতে স্পষ্টিকৃত হইয়াছে, তেমনি কতকগুলি নাম না থাকাতে উজ্জ্বলীকৃত হইয়াছে। তিনি আর কিছু বলিতে ইচ্ছা করেন না।"

    নিঃসন্দেহে এই যে "কতকগুলি নাম না থাকাতে উজ্জ্বলীকৃত হইয়াছে", তার মধ্যে দুটি নাম দেবেন্দ্রনাথ ও রবীন্দ্রনাথ।

    এবার "একপ্রকার ভেলকি" প্রসঙ্গে আসা যাক। আড়াই-তিন বছরে চল্লিশ হাজার টাকা সংগ্রহের ঘটনাকে যদি কেউ "ভেলকি" বলেন তাহলে তাঁর কল্পনাশক্তির তারিফ না করে পারা যায় না। আর কে না জানে গুরুদেব রবীন্দ্রনাথের প্রবল কল্পনাশক্তির কথা !

    একই প্রবন্ধে রবীন্দ্রনাথ পুনরায় শ্লেষ করে বলেছেন, "আজ প্রায় সিকি শতাব্দীকাল বাংলাদেশে বিজ্ঞানের জন্য একখানা পাকাবাড়ি, কতগুলি আসবাব এবং কিঞ্চিৎ অর্থ আছে বলিয়াই যে বিজ্ঞান আপনা-আপনি গোকুলে বাড়িয়া উঠিতে থাকিবে এমন কোনো কথা নাই। আরো আসবাব এবং আরো টাকা থাকিলেই যে বিজ্ঞান আরো ফুলিয়া উঠিবে এমনও কোনো বৈজ্ঞানিক নিয়ম দেখা যায় না।" রবীন্দ্রনাথ সম্ভবত বিজ্ঞান-চর্চাটাও তাঁর উপনিষদ-চর্চার মতোই সখের ভেবেছিলেন, মাথায় ঢোকেনি যে বিজ্ঞান বস্তুটি হাতেকলমে করে দেখবার বিষয় ; বিজ্ঞানচর্চা, তাঁর প্ল্যানচেট-চর্চা বা ধর্মচর্চার মতো বুজরুকি নয় অথবা পুরাণ-উপনিষদ চর্চার মতো কেবলমাত্র চর্বিতচর্বণ নয়। গবেষণার জন্য বাড়ি লাগে, ল্যাবরেটরি লাগে, যন্ত্রপাতি লাগে আর সেসবের জন্য পর্যাপ্ত টাকাও লাগে। সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশনের ওই ল্যাবরেটরিতে গবেষণা করে রামন বছর পঁচিশ পরে নোবেল প্রাইজ এনেছিলেন। অবশ্য ভবিষ্যতে শান্তিনিকেতন তিনি নিজের স্কুলেও বিজ্ঞানচর্চার জন্য একটি ল্যাবরেটরি তৈরি করেছিলেন এবং বিভিন্ন সোর্স থেকে অনেক যন্ত্রপাতি জোগাড় করেছিলেন।

    রবীন্দ্রনাথ যে সময় মহেন্দ্রলালের প্রতিষ্ঠানের "নিজের ঘর-দুয়ার ফাঁদা" এবং "বহুব্যয়সাধ্য আসবাব সংগ্রহ" করা নিয়ে বক্রোক্তি করছেন ঠিক সেই সময় জামসেদজি টাটা ত্রিশ লক্ষ টাকা দান করেছিলেন ব্যাঙ্গালোরের 'ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ সায়েন্সে'এর জন্য। তিনি চেয়েছিলেন বঙ্কিমচন্দ্রের ভাষায় ভারতের "শিল্পবিদ্যার পুনরুদ্ধার" করতে। শিল্পের সঙ্গে বিজ্ঞানের গাঁটছড়া বাঁধার প্রয়োজনীয়তা টাটা বুঝলেও সম্ভবত রবীন্দ্রনাথ বোঝেন নি, তাই শিল্পপতি পিতামত দ্বারকানাথের শিল্পোদ্যোগের বদলে তিনি মুল্য দিয়েছিলেন জমিদার পিতা দেবেন্দ্রনাথের ব্রহ্মসাধনাকে।

    আবার আগামীকাল।
  • b | 172.68.146.73 | ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২১:৩১729569
  • পার্সোনাল বক্রোক্তি ইত্যাদি বাদ দিয়ে চলুক। দিব্য হচ্ছে।
  • এলেবেলে | 162.158.158.26 | ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২১:৪২729570
  • "অবশ্য বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের সকলের খুঁত ধরে বেড়ানো 'এলেবেলে' যে গুরুদেবের বিরুদ্ধে একটা কথাও শুনতে রাজি নয় - সার্কিটে আমরা সকলেই জানি।" @মু. পথিক আপনি বুঝি জ্যোতিষচর্চাও করেন? এই সাইটেই রবীন্দ্রনাথকে নিয়ে একটি টই আছে, সেখানে এই অধ্ম কিছু লিখেছিল-টিখেছিল অনেক দিন আগে। মার্কা মেরে দেওয়ার আগে সেটা একবার পড়ে নিলে হয় না? যেহেতু আপনার উত্তর এখনও অসম্পূর্ণ তাই আপাতত এর চেয়ে বেশি কিছু লিখছি না। 

  • avi | 162.158.167.139 | ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৯:৫৭729574
  • পড়তে দিব্যি লাগছে। একটা খটকা লাগলো এইখানে।

    "১২৭৯ বঙ্গাব্দে অর্থাৎ ১৮৭৩ সালে 'বঙ্গদর্শন' পত্রিকায় 'ভারতবর্ষীয় বিজ্ঞান সভা' শীর্ষক প্রবন্ধে বঙ্কিমচন্দ্র স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন, "এই অনুষ্ঠানপত্র আজ আড়াই বৎসর হইল প্রচারিত হইয়াছে, এই আড়াই বৎসরে বঙ্গসমাজ চল্লিশ সহস্র টাকা স্বাক্ষর করিয়াছেন। মহেন্দ্র বাবু লিখিয়াছেন যে, এই তালিকাখানি একটি আশ্চর্য্য দলিল। ইহাতে যেমন কতকগুলি নাম থাকাতে স্পষ্টিকৃত হইয়াছে, তেমনি কতকগুলি নাম না থাকাতে উজ্জ্বলীকৃত হইয়াছে। তিনি আর কিছু বলিতে ইচ্ছা করেন না।"
    নিঃসন্দেহে এই যে "কতকগুলি নাম না থাকাতে উজ্জ্বলীকৃত হইয়াছে", তার মধ্যে দুটি নাম দেবেন্দ্রনাথ ও রবীন্দ্রনাথ।"

    -- ১৮৭৩ সালে রবি ঠাকুরের বয়স তো বারো বছর!
  • Aniket Pathik | 162.158.167.143 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১১:৩৮729582
  • আরে ! আমারো ইহা ছিলযে মনে ! কাল্টিভেশনের সূচনাকালেও তো রবি পনের বছরের কিশোর ! একই সঙ্গে বঙ্কিম-্দেবেন্দ্র-রবীন্দ্র সকলের এই ঘটনায় জুড়ে থাকা কিরূপে সম্ভব ?
    রবীন্দ্রনাথের (বা অন্য যে কারোর) লেখার অংশবিশেষ তুলে কিছু প্রমাণ করতে হলে একটু বেশি অংশ তোলা দরকার এবং একটু বিস্তৃত আলোচনা দরকার। মু-প-র লেখায় রবীন্দ্রনাথের যে লেখার যে টুকু উদ্ধৃত হয়েছে তা কিন্তু যথেষ্ট বিভ্রান্তিমূলক যা পরে এলেবেলের লেখা থেকে স্পষ্ট হয়েছে। আর বছরে ৩০-৪০ হাজার টাকা জোগাড় টা নয়, স্পষ্টই বলা আছে যে যন্ত্রপাতি সমেত গবেষণাগারটা গড়ে ওঠাকেই ভেলকি বলা হচ্ছে। মু-প-র কল্পনাশক্তির প্রশংসা করা গেল না !
  • b | 162.158.167.143 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১২:২৯729583
  • মহেনবাবু চাইছেন বিগ সাইন্স কালচার দেশে আসুক, তার জন্যে যথেষ্ট টাকা কড়ি দিয়ে ল্যাব গড়ে উঠুক, দেশের পাশ করা বিজ্ঞানীদের যেন এসব নিয়ে গবেষণা করার জন্যে বাইরে ছুটতে না হয়। আবার রবিনবাবু বলছেন যে মহেনবাবুর এই উচ্চাশা পূর্ণ হবে না, যদি না দেশের মধ্যে, একেবারে প্রাথমিক স্তর থেকেই বিজ্ঞান আলোচনা মাতৃভাষার মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। দুজনকে বিরোধী না দেখে একে অপরের পরিপূরক বা সাপ্লিমেন্টারি ভাবাই ভালো।
    (আজকের দিনেও কি আমরা প্রাথমিক বনাম উচ্চশিক্ষা-র মধ্যে এই বিতর্কটাই শুনি না?)
    সাপ্লিমেন্টারি হিসেবে ভাবার অবশ্য আরো প্রমাণ আছে। মহেনবাবু হোমিওপ্যাথি আর রবিনবাবু (শখের) বায়োকেমিক। সাইন্সের এক্কেবারে হদ্দমুদ্দ।
  • | 162.158.165.211 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৫:৪৩729585
  • আমি ইতিমধ্যে একটা প্রশ্ন তুলেছি, সেই প্রশ্নের জবাব দেয়ার দরকার মনে করেননি মুক্তচিন্তার পথিক। প্রশ্নটা খুব সহজ। মুক্তচিন্তা পথিক বলেছেন মহেন্দ্রলাল সরকার ছিলেন নাস্তিক এবং সেইজন্য হয়তো রবীন্দ্রনাথ তাঁর প্রতি বিরূপ মনোভাব প্রকাশ করেছেন। খুব স্পষ্ট করে দেখিয়ে দেওয়া যায় মহেন্দ্রলাল সরকার নাস্তিক ছিলেন না, তিনি ভক্তি গান লিখেছেন। কিন্তু সুনীল গাঙ্গুলী কোন এক কালে মহেন্দ্রলাল সরকারের একটি উক্তি, যাতে তিনি কালি দেবীকে সাঁওতাল ,,,, বলে সম্বোধন করেছিলেন, সেটি মুক্তচিন্তা পথিক বা তার গুরুজনের মাথায় গেঁথে আছে।
    কিন্তু তাতে বাস্তব পরিস্থিতি পাল্টাচ্ছে না। মুক্তচিন্তা পথিক আমাকে অনুরোধ করেছেন যে রবীন্দ্রনাথের কী মোটিফ থাকতে পারে তা যেন আমি খুঁজে দি। এটা একটা অবাস্তব কথা। তিনি একটি প্রস্তাব দিয়েছেন। সে প্রস্তাবটি নাকচ করার পরে তাঁরই দায় থেকে যায়, রবীন্দ্রনাথ মহেন্দ্রলালের কাজের বিরোধিতা কেন করেছিলেন তার বিকল্প প্রস্তাব দেবার। যতক্ষণ পর্যন্ত তিনি বিকল্প প্রস্তাব হাজির না করতে পারছেন তার উচিত হলো, অন্ততপক্ষে তাঁর "রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নাস্তিক লোকেদের দেখতে পারতেন না বলেই মহেন্দ্রনাথ এর বিরোধিতা করেন" এই প্রস্তাবটি যে ভুল স্বীকার করা।
  • | 172.69.135.231 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৬:০৯729586
  • উপরে এলেবেলে অত্যন্ত বিস্তারিতভাবে তার মত প্রকাশ করেছেন, কিন্তু তাতে মূল প্রশ্নটির গায়ে বিন্দুমাত্র আলো পড়েছে বলে মনে হয় না।

    রাজপুরুষদের সাহায্য নিয়ে মহেন্দ্রলাল সরকার সাইন্স অ্যাসোসিয়েশন এর জন্য টাকা তুলেছিলেন। তাতে খুব বেশি টাকা উঠেছিল এমন নয়। একটি সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশন যেভাবে কাজ করতে চায় এবং তখনকার ভারতবর্ষে যেভাবে কাজ করা সম্ভব ছিল, তার জন্য যে টাকা দরকার ছিল সেটা মহেন্দ্রলাল সরকার তুলে উঠতে পারেননি।

    রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সাইন্স অ্যাসোসিয়েশন টাকা তোলার মূল উদ্দেশ্যের বিরোধিতা করেছেন, টাকা তোলার প্রক্রিয়ার বিরোধিতা করেছেন, এবং টাকা তুলে কী কাজ করা হবে তার বিরোধিতা করেছেন। তার সঙ্গে মহেন্দ্রলাল সরকারের ব্যক্তিগত খারাপ সম্পর্ক ছিল কি ছিল না সে প্রশ্ন নিয়ে আলোচনা করার কোন মানে হয় না।

    টাকা তোলার প্রক্রিয়াতে আসি। একথা অনস্বীকার্য যে মহেন্দ্রলাল সরকার রাজপুরুষদের সাহায্য নেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। এতে খুব অন্যায় কিছু আছে কি? মনে রাখতে হবে তখনো পর্যন্ত ওয়েস্টার্ন সাইন্সকে প্রতিষ্ঠিত করার কাজ করতে ভারতীয় ধনীরা কিছু কিছু এগিয়ে এসেছিলেন। যেমন শিক্ষার ক্ষেত্রে হাজী মুহাম্মদ মহসিন এর নাম করা যায়। হাসপাতালের ক্ষেত্রে মতিলাল শীল এর নাম করা যায়। তেমনি বিজ্ঞানের ক্ষেত্রেও কিছু কিছু ভারতীয় ধনী হয়ত সায়েন্স এসোসিয়েশন তৈরি করতে টাকা দিতে সম্মত হতেন। কিন্তু এটা অনস্বীকার্য যে হাজী মুহাম্মদ মহসিন বা মতিলাল শীল, যেই হোন না কেন সবারই সরকারি ব্যবস্থার সঙ্গে একটা যোগাযোগের দরকার হয়ে পড়েছিল যাতে খানিকটা পরিমাণে সরকারি ছাত্র ছায়াতে তাদের প্রদত্ত টাকাগুলি যথার্থ কাজে ব্যবহৃত হয়। সেই হিসেবে রাজপুরুষদের পৃষ্ঠপোষকতা চাওয়া মহেন্দ্রলাল সরকারের বিন্দুমাত্র ভুল নয়।

    সাইন্স এসোসিয়েশনের মূল উদ্দেশ্য যে কী ছিল সেটা নিয়ে বিস্তর বিতরকের অবকাশ থাকতে পারে। কিন্তু রবীন্দ্রনাথ এখানে যেভাবে বলেছেন তাতে মনে হয় উনি এবং মহেন্দ্র সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশন এর উদ্দেশ্য খানিকটা বিপরীতমুখী জায়গা থেকে দেখছিলেন। রবীন্দ্রনাথের কাছে সেই মুহূর্তে সব থেকে বেশি দরকার ছিল তৃণমূল স্তরে বিজ্ঞান মানসিকতা পৌঁছে দেওয়া। এবং তার জন্য, মাতৃভাষায় বিজ্ঞানকে সকলের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য, যা যা করার তা করা। যেমন স্কুল স্তরে বিজ্ঞান শিক্ষার ব্যবস্থা করা, বিজ্ঞানের উপযুক্ত বই লেখা, বিজ্ঞানের পরিভাষা তৈরি করা এবং সামগ্রিকভাবে বিজ্ঞান মানসিকতা বিস্তারের জন্য একটা বিজ্ঞানের সংস্কৃতি রচনা করা। এর প্রতিটা কাজই রবীন্দ্রনাথ নিজের হাতে করার চেষ্টা করেছিলেন। কতটা ফল হয়েছিল সেটা আলাদা প্রশ্ন।

    এদিকে মহেন্দ্রলাল এর উদ্দেশ্য ছিল একটু আলাদা। তিনি চাইছিলেন, যারা বিজ্ঞানের উৎসর্গীকৃত প্রাণ, তারা যেন ফর্মাল এবং ইনফর্মাল বিজ্ঞান শিক্ষার আবহাওয়া এবং ইনস্টিটিউট তৈরি করতে পারেন। আবহাওয়া তৈরি করার জন্য ছিল বিজ্ঞান বিষয়ক নানা রকম লেকচার এবং বিজ্ঞান পত্রিকার লাইব্রেরি, সংগ্রহশালা তৈরি। আর ইনস্টিটিউট তৈরি করার জন্য ছিল নানা রকম যন্ত্রপাতি হাতে কলমে কাজ করার ব্যবস্থা তৈরি। মহেন্দ্রলাল অত্যন্ত
    জেদি লেগে থাকা লোক ছিলেন বলেই তার এই এসোসিয়েশন খুব সামান্য অর্থ নিয়েই নিয়মিত বিজ্ঞান বিষয়ক লেকচার চালিয়ে গেছে, যতদূর সম্ভব পত্র-পত্রিকা জোগাড় করেছে, উচ্চ মানের ল্যাবরেটরি তৈরি করতে পুরো সফল না হলেও অনেক দূর পর্যন্ত ধারণা দিয়েছে যে কোথায় কী ভাবে কাজ করলে উচ্চমানের ল্যাবরেটরি তৈরি করার কথা এগনো যেতে পারে, এবং তার অসুবিধা কী কী। এটা এক ধরনের ট্রায়াল রান দিয়েছে, যা থেকে বোঝা গেছে যে যথার্থ পরিকল্পনা করে বিজ্ঞান ইনস্টিটিউট তৈরি করার পথের প্রতিবন্ধকতা ঠিক কোথায় কোথায় হতে পারে- আর্থিক এবং পরিচালনার। তার সঙ্গে উপযুক্ত ব্যক্তি কোথায় দরকার হতে পারে এবং তার কোথায় কোথায় অভাব রয়েছে, কিভাবে সেই অভাব মেটানো যেতে পারে তার একটা প্রাথমিক ধারণা কিন্তু মহেন্দ্র ডালের প্রস্তাবিত অ্যাসোসিয়েশন থেকে গড়ে ওঠে।

    রবীন্দ্রনাথ, যে কোন কারনেই হোক, এই টাকা তুলে কী কাজ করা হবে, সেটি ভালো করে হৃদয়াঙ্গম করতে পেরেছেন এমন প্রমান তাঁর লেখাতে রাখেন নি। আর রাজপুরুষের সাহায্যে টাকা তোলা হলেই রবীন্দ্রনাথের যে চরম বিরোধিতা থাকতো এমন কিন্তু সব ক্ষেত্রে নয়। রবীন্দ্রনাথের মতন একজন অত্যন্ত সংবেদনশীল এবং মেধাবী মানুষ এই বিরোধিতা কেন করলেন সেটা আমার কাছে একেবারেই স্পষ্ট নয়।

    রবীন্দ্রনাথের নিজের যে বিজ্ঞান নিয়ে এক্সপেরিমেন্টেশন ছিল তার একটা উদাহরণ আমরা পাই রথীন্দ্রনাথকে এগ্রিকালচার শেখানোর জন্য চেষ্টা করার মধ্যে। তিনি হয়তো মনে করেছিলেন যে ভারতবর্ষের তৎকালীন অবস্থাতে বিজ্ঞানের তত্ত্ব আলোচনা করার জন্য অ্যাসোসিয়েশন করা আমাদের প্রাণশক্তির কিঞ্চিৎ অপচয়, বা লিমিটেড রিসোর্স কে ভুল দিকে চালনা করা। তিনি তাত্ত্বিক বিজ্ঞান চর্চার বিরোধী ছিলেন না, তাই যদি থাকতেন তাহলে জগদীশচন্দ্র বোসকে ওইভাবে সাহায্য এবং অনুপ্রেরণা যোগাতেন না।
  • একক | 162.158.158.80 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৬:২৫729587
  • হাপ্নাদের মোনয় রবিবাবুকে ট্যাগ দেওআ নিতান্ত দর্কার। নাস্তিক বিরোধিতা টা খাচ্চে না। নিন, এক্টা দিচ্চি, খায় কিনা দেকুন ঃ)

    রবি ঠাকুরের মেকানোফোবিয়া ছিলো।

    সাদা বাঙ্গ্লায়, যন্ত্রের ব্যাপারে ইরাশানাল ভয়। এর সমর্থন ওনার লেখায় প্রচুর পাবেন। বিগ্যান কে উনি সাধনার জিনিশ হিসেবে দেখতেন। এই জে খরচ খর্চা করে, প্রচুর কলকব্জা নিয়ে বিগ্যান চর্চার পোস্ট ইন্ডাস্ট্রিআল-্রেভ মোডেল এ ছিল ওনার চোখে এক্টা দানোবিক ব্যাপার।

    দার্শনিক দিক দিয়ে এই দ্রিস্টি উড়িয়ে দেওঅর না। টেক্নোলজি একদিন সায়েন্স কে গিলে খাবে, এবঙ্গ প্রান্তিক মানুষের সঙ্গে বিগ্যানবোধের কোন যোগ থাকবে না, এ উনি অনেক দিন আগে টের পেইচিলেন।

    কিন্তু, বাস্তব তো ওভাবে চলেনা। বিগ ক্যাপিটল ও দামি যন্ত্রপাতি লাগেই বিগ্যান চর্চায়। তাই সেই সময়ে দান্রিয়ে ঐ ফীয়র ইরশনাল। ফোবিয়ার ডেফিনিশন ই তাই।
  • | 162.158.198.161 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১৭:২১729588
  • একক,
    রবি ঠাকুরের কী নিয়ে খুব টেনশন ছিল আতঙ্ক ছিল ভয় ছিল সেটা বলা খুব কঠিন ব্যাপার। এই দেখুন না কেন আজকে জিএম ফুড, তার যে বাপ ঠাকুরদা, সে হলো গে এগ্রিকালচার। আর নিজের ছেলেকে রবিবাবু সেই এগ্রিকালচার করতে পাঠালেন, আর নিজে দাও ফিরে সে অরণ্য, এটটুস খানি এগ্রিকালচার করি, বলে অরণ্যে রোদন করতে বসলেন।
  • এলেবেলে | 162.158.159.59 | ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ২০:৩২729592
  • @জ,

    আমার মূল বক্তব্য ছিল মহেন্দ্রলাল 'বনাম' রবীন্দ্রনাথ ( যে চেষ্টা লেখক করতে চেয়েছেন)-এর বিরোধিতা করা। 

    ১. মু. প লিখেছেন --- "১২৭৯ বঙ্গাব্দে অর্থাৎ ১৮৭৩ সালে 'বঙ্গদর্শন' পত্রিকায় 'ভারতবর্ষীয় বিজ্ঞান সভা' শীর্ষক প্রবন্ধে বঙ্কিমচন্দ্র স্পষ্টভাবে জানিয়েছেন, "এই অনুষ্ঠানপত্র আজ আড়াই বৎসর হইল প্রচারিত হইয়াছে, এই আড়াই বৎসরে বঙ্গসমাজ চল্লিশ সহস্র টাকা স্বাক্ষর করিয়াছেন। মহেন্দ্র বাবু লিখিয়াছেন যে, এই তালিকাখানি একটি আশ্চর্য্য দলিল। ইহাতে যেমন কতকগুলি নাম থাকাতে স্পষ্টিকৃত হইয়াছে, তেমনি কতকগুলি নাম না থাকাতে উজ্জ্বলীকৃত হইয়াছে। তিনি আর কিছু বলিতে ইচ্ছা করেন না।"

    নিঃসন্দেহে এই যে "কতকগুলি নাম না থাকাতে উজ্জ্বলীকৃত হইয়াছে", তার মধ্যে দুটি নাম দেবেন্দ্রনাথ ও রবীন্দ্রনাথ।"

    এখানে রবীন্দ্রনাথ আসছেন কীভাবে? তখন তিনি সাকুল্যে বারো কি তেরো!

    ২. ভেলকির ব্যাপারটা লেখক বুঝতেই পারেননি (অথবা বুঝতে চাননি)। যদিও আমার আগেই এ ব্যাপারে @অনিকেত পথিক তা বিস্তারে বুঝিয়েছেন।

    ৩. রবীন্দ্রনাথের মূল বিরোধিতার জায়গাটা কিন্তু তাঁর প্রবন্ধেই আছে স্পষ্টভাবে। তিনি আগে জনসাধারণের মধ্যে বিজ্ঞানের প্রসার চাইছেন, সেটা চাইছেন মাতৃভাষায়। এই কাজটাকে তার বেস মনে হচ্ছে। আর সায়েন্স অ্যাসোসিয়েশন হবে সুপারস্ট্রাকচার। পাশাপাশি অ্যাসোসিয়েশন যে প্রফুল্লচন্দ্র-জগদীশচন্দ্রকে কাজে লাগাতেই পারছে না এবং তখনও অবধি মাতৃভাষায় বিজ্ঞানচর্চার ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন করতে পারছে না সে ব্যাপারে হতাশা ব্যক্ত করছেন তাঁর দ্বিতীয় প্রবন্ধে।

    এখানে লেখক-কথিত মহেন্দ্রলালের সঙ্গে রবীন্দ্রনাথের ব্যক্তিবিরোধ এবং সেই বিরোধও মূলত নাস্তিকতার কারণে - এমন দাবির কোনও সারবত্তা আমি অন্তত খুঁজে পাইনি।

    @একক,

    রবি ঠাকুরের মেকানোফোবিয়া ছিল বলাটা খুব সহজ, প্রমাণ করা যথেষ্ট কঠিন। যন্ত্র যাতে মানুষকে যান্ত্রিক না করে তোলে এ ব্যাপারে তিনি সতর্ক ও সচেতন ছিলেন। চ্যাপলিনের মডার্ন টাইমসও কিন্তু তা-ই নিয়েই। তাহলে কি চ্যাপলিনও মেকানোফোবিক?

    দ্বিতীয়ত, শুধু জগদীশচন্দ্রকে আর্থিক সাহায্য করতে চেয়ে রবীন্দ্রনাথ ত্রিপুরা গিয়েছিলেন এবং দশ হাজার টাকা এককালীন অনুদানের বন্দোবস্তও করেছিলেন। মেকানোফোবিয়া থাকলে তা করতেন কি? 

  • Jayanta Das | 162.158.167.143 | ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ১২:৫৯729597
  • @এলেবেলে
    প্রথমেই একটা কথা বলে রাখি যে আমি অ্যান্ড্রয়েড ফোন থেকে টাইপ করছি। আমার এই এন্ড্রয়েড ফোনে কপি পেস্ট করার সুযোগ নেই। আপনার বক্তব্যটা কপি-পেস্ট করে তারপরে আমার বক্তব্য একে একে উপস্থাপিত করতে পারলে হয়তো ব্যাপারটা ভালো হত, কিন্তু সেটা করতে পারছি না। আপনার বক্তব্য যেটুকু বুঝছি সেটুকু আমি লিখছি এবং তার পাশাপাশি আমার বক্তব্য রাখছি। এতে যাবতীয় ভুল হলে তার দায় আমারই, আমি তবে আশাকরি নিজে গুনে মার্জনা করবেন।

    আপনি লিখেছেন যে মহেন্দ্রলাল এর সঙ্গে রবীন্দ্রনাথের মূল দ্বন্দ্ব ছিল এখানেই যে মহেন্দ্রলাল এর বিপরীতে, রবীন্দ্রনাথ মনে করতেন মাতৃভাষায় শিক্ষা ব্যবস্থা করা হল Base, এবং মহেন্দ্রলাল যে এসোসিয়েশন এর মাধ্যমে যে সব অ্যাক্টিভিটির করার চেষ্টা করছেন তা হলো সুপার স্ট্রাকচার।
    আমি এই বেস্ আর সুপার স্ট্রাকচারের তত্ত্ব খুব ভাল করে জানি না। সুতরাং আপনি যে অর্থে বেশ বা সুপার স্ট্রাকচার কথাগুলিকে ব্যবহার করেছেন আমি সেই অর্থে ব্যবহার করছি এমন দাবি করতে পারবো না।

    তবে আপনি আরো বলেছেন যে জগদীশচন্দ্র এবং প্রফুল্লচন্দ্র বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে যে কাজ করেছিলেন, মহেন্দ্রলাল প্রস্তাবিত অ্যাসোসিয়েশন সেটাকে কাজে লাগাতে পারছে না- সে ব্যাপারে তিনি ছিলেন রবীন্দ্রনাথ ছিলেন হতাশ এবং মাতৃভাষাতে বিজ্ঞান চর্চার ক্ষেত্রে কিছু সাফল্য অর্জন করেনি সেটা রবীন্দ্রনাথের কাছে নেতিবাচক বলে মনে হয়েছে।
    এছাড়া আরো দুটো একটা কারণ আপনি দিয়েছেন। সে নিয়ে এর আগেও আলোচনা হয়েছে, সুতরাং পুনরুক্তি করছি না।

    জগদীশচন্দ্র এবং প্রফুল্ল চন্দ্রের কাজ নিয়ে মহেন্দ্র দলের কাল্টিভেশন অফ সাইন্স কী করেছিল না করেছিল সে প্রশ্নটি আমার অজানা। আপনি বলেছেন রবীন্দ্রনাথের দ্বিতীয় প্রবন্ধে এই প্রসঙ্গে হতাশা রয়েছে। সেই দ্বিতীয় প্রবন্ধে সময়টা কোন সময় সেটা বুঝলে বোঝা যাবে যে, তখনও পর্যন্ত জগদীশচন্দ্র এবং প্রফুল্লচন্দ্রের কাজ নিয়ে খুব বেশি রকম উৎসাহিত হবার মতো কারণ ছিল কিনা। এ ছাড়াও প্রশ্ন-থেকে-যায়, জগদীশচন্দ্র এবং প্রফুল্ল চন্দ্র নিজেরা কি কাল্টিভেশন এর কাছে কাজের জন্য, কাজের সুবিধার জন্য কোনরকম ভাবে অ্যাপ্রচ করেছিলেন?

    মাতৃভাষায় শিক্ষার জন্য শিক্ষার বিস্তারের জন্য কিছু করেনি কাল্টিভেশন অফ সাইন্স, সেই নিয়ে যদি রবীন্দ্রনাথ কালটিভেশন কে দোষারোপ করেন সেটা একটু অবিচার বলেই মনে হয়। কারণ কাল্টিভেশন এর মূল উদ্দেশ্য ছিল বিজ্ঞান শিক্ষার পরিবেশ তৈরি করা, বিজ্ঞান মানসিকতা পরিবেশ তৈরি করা এবং বিজ্ঞান গবেষণার পরিবেশ তৈরি করা।
    কিন্তু জগদীশচন্দ্র এবং প্রফুল্ল চন্দ্র যদি নিজের কাজের জন্য কাল্টিভেশন এর কাছে গিয়ে থাকেন এবং কাল্টিভেশন তাদের বিমুখ করে থাকে, অথচ তাঁদের কাজে সাহায্য করার মত কাল্টিভেশন যথেষ্ট অর্থ এবং ইনফ্রাস্ট্রাকচার থেকে থাকে, তবে এই অভিযোগ অত্যন্ত গুরুতর অভিযোগ।

    কিন্তু হাওয়ার উপর দাঁড়িয়ে অভিযোগ করার মানে নেই। প্রফুল্ল চন্দ্র এবং জগদীশচন্দ্র কাল্টিভেশন এর কাছে কী আবেদন বা প্রত্যাশা করেছিলেন এবং কাল্টিভেশন তার উত্তরে কী করেছিল সেটা যদি জানা থাকে জানাবেন।
  • করোনা ভাইরাস

  • পাতা : 1
  • গুরুর মোবাইল অ্যাপ চান? খুব সহজ, অ্যাপ ডাউনলোড/ইনস্টল কিস্যু করার দরকার নেই । ফোনের ব্রাউজারে সাইট খুলুন, Add to Home Screen করুন, ইন্সট্রাকশন ফলো করুন, অ্যাপ-এর আইকন তৈরী হবে । খেয়াল রাখবেন, গুরুর মোবাইল অ্যাপ ব্যবহার করতে হলে গুরুতে লগইন করা বাঞ্ছনীয়।
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত