• আমাদের কথা  বইপত্তর

  • বইপত্তর

    গুরুচন্ডা৯ লেখকের গ্রাহক হোন
    বইপত্তর | ১৬ এপ্রিল ২০০৪ | ২১৫৮ বার পঠিত
  • এই পাতায় কিছু বইপত্রের ই-সংস্করণ রাখা হয়েছে। যোগ হল কিছু ছাপা বইয়ের ই-সংস্করণ। ছাপা বইয়ের তালিকার জন্য দেখুন গুরুর বই এর পাতা

    এখানে তুমি সংখ্যালঘু
    প্রথম সংখ্যা - জানুয়ারি ২০১৮



    পিডিএফ ই-বই


    আদালত-মিডিয়া-সমাজ এবং ধনঞ্জয়ের ফাঁসি – দেবাশিস সেনগুপ্ত, প্রবাল চৌধুরী, পরমেশ গোস্বামী

    বারো বছর আগে রাজ্যে সর্বশেষ ফাঁসির ঘটনাটি ঘটেছিল আলিপুর সেন্ট্রাল জেলে। চোদ্দো বছর সলিটারি সেলে রাখার পর ধনঞ্জয় চট্টোপাধ্যায়ের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়। ধনঞ্জয় আগাগোড়া নিজেকে নির্দোষ দাবি করেছিলেন। নাগরিক সমাজের একাংশও ধনঞ্জয়ের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের সত্যাসত্য নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছিলেন। সেই সংশয় আরও গভীর হয়েছে দেবাশিস সেনগুপ্ত, প্রবাল চৌধুরী, পরমেশ গোস্বামীর দীর্ঘ অনুসন্ধানে। প্রশ্ন উঠেছে তদন্ত ও বিচার-প্রক্রিয়া নিয়েও। সেই অনুসন্ধানের পূর্ণাঙ্গ প্রতিবেদন গ্রন্থাকারে প্রকাশিত।
    পিডিএফ ই-বই

    অরূপ তোমার এঁটোকাঁটা – মলয় রায়চৌধুরি

    কাশী থেকে কলকাতা, বৈষ্ণবের খঞ্জনি থেকে জিমি হেনড্রিক্স। কেকাবউদি থেকে স্বর্ণকেশী ম্যাডলিন। এ এক অন্য আকাশে উড়ান, যা চেনা হলেও দূরবর্তী। কাল্পনিক হলেও বাস্তব।
    পিডিএফ ই-বই

    Y2K অথবা সেক্স ক্রমে আসিতেছে।

    চন্দ্রিল ভট্টাচার্য রচিত ও পরিচালিত সিনেমার চিত্রনাট্য। প্রকাশিত হয়েছিল "অপর" পত্রিকায়। লেখক বা পত্রিকা কারও কাছেই সফট কপি না থাকায় পত্রিকা থেকে সোজা স্ক্যান করে তুলে দেওয়া হল। কেউ যদি কষ্টস্বীকার করে টাইপ করতে রাজি থাকেন, জানাবেন।
    পিডিএফ

    দুটি লেখাঃ
    এক) মার্জিন অফ মার্জিনঃ একটা অটেকনিকাল ভূমিকা, এবং
    দুই) ডিকনস্ট্রাকশন ডিকলোনাইজেশন ।

    আমাদের বইপত্তর বিভাগে একটিমাত্র ইংরিজি বইটি আছে,মার্জিন অফ মার্জিন:প্রোফাইল অফ অ্যান আনরিপেন্টান্ট পোস্টকলোনিয়াল কোলাবরেটার। এই লেখাদুটি সেই বইটিরই বাংলা সাপ্লিমেন্ট। সাপ্লিমেন্ট, আবার সাপ্লিমেন্ট নয়ও। লিখেছেন ত্রিদিব সেনগুপ্ত। এরা উভয়েই পূর্ব প্রকাশিত। তবে বই বা ই-বই হিসাবে আসছে এই প্রথম। সঙ্গে আরো একটি খবর, যে, এই সিরিজের আরো কিছু লেখাপত্তরও ক্রমে তোলা হবে এই সাইটে।
    ১) মার্জিন অফ মার্জিনঃ একটা অটেকনিকাল ভূমিকা
    ২) ডিকনস্ট্রাকশন ডিকলোনাইজেশন

    ত্রিদিব সেনগুপ্তের দুটি উপন্যাসঃ

    "নিরন্তর প্রব্রজ্যায়ঃ দ্বিতীয় খসড়া" এবং "বুলা তোমাকে"। লেখকের দাবী অনুযায়ী এরা সহোদর। প্রথমটি প্রকাশিত হয় "রাক্ষস সংস্কৃতি' পত্রিকায়, ১৯৯৫ সালে, এবং দ্বিতীয়টি "অপর" পত্রিকায় ১৯৯৬ এ । পত্রিকাদ্বয়ের নাম শুনেই বোঝা যাচ্ছে, বেশ কঠিন মেটিরিয়াল আছে উপন্যাসদুটিতে, যা দুপুরে ভাতঘুম দেবার আগে এক নিঃশ্বাসে পড়ে শেষ করে ফেলা যায়না। যাঁরা বক্ররেখা ভালবাসেন, ভালবাসেন পুকুরের দর্পণে চাঁদের বারবার ভেঙে যাওয়ার দৃশ্য, যাঁরা ন্যারেটিভহীনতা ভালবাসেন, কেবলমাত্র তাঁদের জন্যেইঃ
    ১) নিরন্তর প্রব্রজ্যায়ঃ দ্বিতীয় খসড়া
    ২) বুলা তোমাকে

    গ্নু লিনাক্স ইশকুলঃ

    এই বইটি গ্নু লিনাক্স ঠেক মধ্যমগ্রামের সম্পত্তি। লিখেছেন দীপঙ্কর দাশ। প্রাথমিক ভাবে জি এল টি বিষয়ক একটি ভূমিকা এবং দুটো চ্যাপটার এই পাতায় তোলা হয়েছিল, কারণ তখনও বইটি লেখা চলছিল। এখন প্রায় পুরো বইটিই এখানে স্থান পেয়েছে। লেখাগুলো এখানে দেবার অনেকগুলো কারণই আছে, যার মধ্যে প্রথম এবং প্রধান কারণটা হল এরা এতৈ সুলিখিত এবং সুবিন্যস্ত যে না দিয়ে জাস্ট পারা গেলনা। যাঁরা কম্পিউটার জিনিসটা নিয়ে নাড়াচাড়া শুরু করেছেন সবে তাঁরা প্রথম থেকে জানার জন্যে এবং যাঁরা দীর্ঘদিন ধরে নাড়াচাড়া করছেন তাঁরা এখনও কতকিছুই জানেননা সেটা বোঝার জন্যে লেখাগুলো একবার পড়ে নিন। এবং পড়ার সময় অবশ্যই মনে রাখবেন, এগুলো কোনো ইংরিজি বইয়ের সাপ্লিমেন্ট নয়, নিজগুণেই সম্পূর্ণ মনোযোগ দাবী করে। ফলে,ক্ষমাঘেন্না করে নয়, সিরিয়াসলি ই পড়ার চেষ্টা করবেন।
    দ্বিতীয় কারণের কথা বলতে গেলে কপিলেফ্ট মুভমেন্টের কথা বলতে হয়, লিনাক্স যার সক্রিয় অংশিদার। কপিলেফ্ট কথাটা নতুন নতুন লাগছে? ডিটেলে জানতে হলে সোজা চলে যান http://www.gnu.org/copyleft/copyleft.html এই লিঙ্কে। পরবর্তী কালে এই পেজেই কপিলেফ্ট নিয়ে একটা লেখা রাখার ইচ্ছা আছে, বিশেষ করে মধ্যমগ্রাম জি এল টির কোনো একটি লেখা যদি রাখার অনুমতি পাওয়া যায় তাহলে "একবার লিখুন সর্বত্র ব্যবহার করুন" এই অবজেক্ট-ওরিয়েন্টেড ফিলজফিকে সম্মান জানিয়ে একই জিনিস বারংবার লেখার কষ্ট লাঘব হয়। কিন্তু পরের কথা পরে, আপাতত নিচের লিঙ্ক গুলোর সদ্ব্যবহার করুন। প্রসঙ্গতঃ বইটির এখনও কোনো হার্ড কপি প্রকাশিত হয়নি।
    গ্নু লিনাক্স ইশকুল
    ১) জি এল টি কী? জি এল টি কে?
    ২) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ০
    ৩) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ১
    ৪) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ২
    ৫) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ৩
    ৬) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ৪
    ৭) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ৫
    ৮) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ৬
    ৯) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ৭
    ১০) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ৮
    ১১) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ৯
    ১২) গ্নু লিনাক্স ইশকুল - দিন ১০
    গ্রন্থসত্ত্ব সম্পর্কিত তথ্য

    মার্জিন অফ মার্জিনঃ প্রোফাইল অফ অ্যান আনরিপেন্টান্ট পোস্টকলোনিয়াল কোলাবরেটারঃ

    এটি একটি ইংরিজি বই। লিখেছেন অজিত চৌধুরী, দীপংকর দাশ ও অঞ্জন চক্রবর্তী এবং হার্ড কপিটি প্রকাশিত হয়েছে অনুষ্টুপ থেকে। ইন্টারনেটে মার্জিন অফ মার্জিনের একটি ইন্টারনেট কমিউনিটি আছে, বইটি এবং বইটি সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য সেখানে পাবেন। নাম শুনেই বুঝতে পারছেন, বেশ খটোমটো বই। পড়ে বুঝতে না পারলে কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়।
    ১) মার্জিন অফ মার্জিনঃ প্রোফাইল অফ অ্যান আনরিপেন্ট্যান্ট পোস্টকলোনিয়াল কোলাবরেটর
    ২) গাণিতিক পরিশিষ্ট

    গুরু লেটলতিফ পুজো স্পেশাল ২০১৭

    PDF | E-Pub | Mobi

    ইবুক বেরোচ্ছে, আমাজনে পাওয়া যাবে

    - সিজনস অফ বিট্রেয়াল - দময়ন্তী - Amazon
    - খেরোবাসনা - সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায় - Amazon
    - অনুষ্ঠান প্রচারে বিঘ্ন ঘটায় দুঃখিত - শাক্যজিত ভট্টাচার্য - Amazon
    - নিরুদ্দিষ্টের উপাখ্যান ও অন্যান্য কাহিনি - অমর মিত্র Amazon

  • আরও পড়ুন
    প্যাঁচালি -
  • বিভাগ : বইপত্তর | ১৬ এপ্রিল ২০০৪ | ২১৫৮ বার পঠিত
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাতা :
  • ইবই | 232312.167.123412.35 (*) | ২২ জুন ২০১৮ ০৪:০৭90761
  • জানিনা কেন লিংক আসছে না, যাগ্গে, ব্রাউজারে কপি পেস্ট করলেই হবে।

    এটা গত পুজোর ইবইই, ভাবলাম একটু তুলি
  • বিপ্লব রহমান | 340112.231.126712.74 (*) | ২৮ জুন ২০১৮ ০৫:৩৫90762
  • "Y2K অথবা সেক্স ক্রমে আসিতেছে" ডাউনলোড হয় না। এডমিন হেল্প! :/
  • হীরক সেনগুপ্ত | 2405:201:8804:f73b:2d77:65fd:50b5:b5ec | ২০ জুলাই ২০২০ ১৩:৫০95363
  • পদকুল


    পদকুলে ভোট। হইচই ব্যাপার। গণতন্ত্রের পুজো । 'আসছে বচ্ছর , ….(একটু গ্যাপে ) ….আব্বার হবে' , চিল্লিয়ে তো সর্বব্বদা কাজ হয় না । বচ্ছর বচ্ছর জো নেই। এ উৎসবের হেবি গ্যাপ। ষাটমাস । তবে দু'একবার ফটাফট লেগে যায় । তবে সেসব মল মাসের রেয়ার ক্যাঁচাল।

    কাগজে লিখল : সঙ্কুলের ভোট।
    ১লা এপ্রিল। 'সঙ্কুল' নামে একটা কেস আছে‌। ওরিজিন্যালটা ছিল 'শ্বাপদসঙ্কুল'। নামটা গোলমেলে। ঐ নামে লোকে ভয় খেত। বুদ্ধিজীবিরা অনেক মাথা ফাথা খাটিয়ে বের করল,আপদসঙ্কুল। তাতেও গেরো।

    শ্বাপদ মানেটা খটমট। কিন্তু লোকে 'আপদটা' টক করে ধরে ফেলল। বলে বুদ্ধিজীবী না হাতি। শেষে মান বাঁচালো এক নিরক্ষর ক্ষেতমজুর। নিরাপদ মাল। বলল,
    'পদকুল দাও না কেনে ? '

    সেই থেকে শুরু। যাকগে। যে কথা হচ্ছিল । পদকুলের ভোট। এখানে ভোট হয় তিন আসনে। পোস্ট এক: ওরিজিনাল , পোস্ট দুই: ডুপ্লিকেট-ওরিজিনাল ,পোস্ট তিন : জেরক্স।
    ইন্টারচেঞ্জেবল পোস্ট। দরকারে এদিক ওদিক। হিসেব বরাবর। প্রগতিশীল সমাজ। বাকিটুকু , দুধভাত ।


    অতীতে নির্বাচনে বহুৎ খচ্চাটচ্চা হত। ঝাড় খাওয়ায় আসন কমেছে, খরচও। নির্বাচন ফুল রিমোর্ট সিস্টেমে । ফলে অর্থনীতি উদ্বৃত্তে মালামাল। কিছু উলুর পঞ্চু তো থাকেই । সে জন্য 'বাটা' সিস্টেম আছে।

    তবে ভোট এখন বাহারী জগঝম্প। তাজঝিম মাজঝিম দিল্লাগি। মিটিং-মিছিল, ঢ্যাম কুড়কুড়ে মৌলিক সহায়িকা। ডবল বহর বক্তৃতা। দেওয়াল দখল। গরু, ছাগল, কুকুরের গায়ে পোস্টার। ল্যাজে ফেস্টুন। লাইটপোষ্টে 'ঋতুবন্ধে' হাপিশ। এখন প্রকাশ্যে মদ্যপান, আব্বুলিশ, সমাবেশ।

    হারামজাদা চোর- ছ্যাঁচড়ে ভাবমূর্তি টাল খাইয়েছে। তাই দলগুলোয় টেন্ডার বেরোয় : 'দুন্নিতি মুক্তো পাথ্থি চাই, লিডারশিপ যোগ্যতা বিশেষ অগ্গাধিকার'। বিজ্ঞাপন বেরোয়। ফর্মের দাম : পিঙ্ক গান্ধী ৫টাং । তাই সই । অ্যাড বেরোতেই পদকুলের আপামর স্তন্যপায়ী দৌড়ে আসে।যখন যেটায় পফিট । এইবার যেমন ক্যান্ডিডেটে।


    পদকুলে তিনটে দল । অং।বং। চং সবার হাতে হাতে চকোলাভা ইস্তেহার ষাঁড়াষাঁড়ি বান।

    ১০
    অং: ইস্তেহার :

    ১)আমার রাজ্য,হোলসেল রাজা।
    ফুটেছে মন্ত্রী, ঢাকঢোল বাজা।।

    ২)উচ্চশিক্ষিত , ফুল্লিভিক্ষিত।

    ৩)খাপ্পঞ্চায়েত বাপ্পঞ্চায়েত ।।

    ৪)তোমার ধর্ম, আমার দ্যাশ।
    আমার কর্ম,তোমার অ্যাশ।।

    ৫)সাচ্চা সওদা ,ভোটেই ফয়দা

    ১১
    বং: ইস্তেহার:

    ১)পাট্টাইম জোকার ।
    ডেঙ্গুর-ফগার।।
    ২)আমাদের অ্যাসেট।
    বাজবে ক্যাসেট।।

    ৩) হাতুড়ে ভুতুড়ে।
    পার্শ্ব,অর্শ।।
    ঝেড়েছি ডান্ডা।
    বিলকুল ঠান্ডা।।

    ৪)খাদ্যের গুষ্টি ।
    উদরে মুষ্টি।।

    ১২
    চং: একটু প্রাচীনপন্থী ইস্তেহার

    ১)সব্বার সিকিউইটি।
    পদকুল পায়োইটি।।
    পুলিস পোসাসোন
    জনতা জনার্দন।।

    ২)সাট্টা পেন্সিলার।
    রেভেনু কালেক্টর।।
    আমাদের শক্তি।
    বাতেলায় মুক্তি।।

    ৩)কন্যা সুরক্ষা।
    দুষ্কৃতি অক্কা।।
    ভরপেট খাদ্য।
    সরকার বাধ্য।।

    ১৩
    'অং','বং' ,'সং কর্তৃপক্ষ ব্যস্ত। চোপ : ইন্টারভিউ চলছে ।

    ১৪
    অং দপ্তর :
    :'বাড়ি ?'
    'ভ্যাবলা'
    :নাম?
    'ফুলেশ্বর লেঙট'
    :বিবাহিত?
    'না'
    :'কাজ?'
    'হাফসোল'
    'চলবে। ঐ লাইনে।
    :'

    ১৫

    বং দপ্তর:

    আপনি?'
    'আমোদিতা লাট্টু '
    :'বিবাহিত?'
    :'আজ্ঞে'
    :'ছেলে-মেয়ে ?'
    'ইয়ে,এখনই বলতে হবে ?
    :'মানে?'
    'বাড়তে পারে কিনা'
    :'বাড়বে মানে?'
    'টপকাবো কিনা তাই '
    :'পাচার নাকি?'
    'আজ্ঞে না'
    :'তবে যে টপকাবো বললেন?'
    'আজ্ঞে বেড়া টপকানো
    :'ও অনুপোবেশ ?'
    'আজ্ঞে 'না'
    :'মানে? এতো অনুপোবেশই'
    'ওরম মনে হয় প্রথমটা'
    :'তবে কি ?'
    'আজ্ঞে',রিজার্ভ বেঞ্চ '
    :'সেটা কি ?'
    'আজ্ঞে মেয়েদের বেড়া'
    :'মেয়েদের আবার বেড়া কি ?
    'পেটের'
    :'পেটের কি বেড়া হয়?'
    :'এমনিতে হয় না।গরীব-দুঃখীর হয়'
    :'কিরম ?'
    'দিনকাল মন্দ। বাজার খারাপ। আগে বেড়া
    ফেড়ার কেস করিনি।এখন বাধ্য হয়ে'
    :'লাভ ? '
    'তা একটু লাভ আছে বইকি'
    :'কেমন লাভ ,শুনি ?'
    'এই যে এত সরকারি প্রকল্প। দ্রুত
    শিলান্যাস । যদি একটা ফট করে কমপ্লিট
    হয়ে যায়। তখন? লোক কোথায় পাবে ?
    তাই ঝোপ বুঝে কোপ। একজনের বয়েস
    পেরোলেও টেনশন নেই। পরের জন লাইনে
    হাজির '
    :'বাহ! চমৎকার আইডিয়া'
    'আজ্ঞে নেসিসিটি'
    :'শিক্ষা?'
    'হেঁহেঁ, যাকে বলে ইংরেজিতে মাসটারররর …'
    :ও তো উঠে গেছে'
    'ঐ উঠে যাওয়ার আগ..ই
    'থাক থাক ।বুঝেছি
    'কাজ?'
    'জন্মদেওয়া
    :'ওকে।ঐ লাইনে'

    ১৬

    চং দপ্তর:
    :'আপনি?'
    'গুলেন্দ্র সাঙাৎ। ছোট্ট করে,গুলকুমার '
    'বিয়ে?'
    'বউ ভাগলবা'
    :'কাজ ?'
    'চমকানো'
    'লেখাপড়া?'
    'বাংলু।ডক্টরেট'
    'বলেন কি? নতুন পোডাক!কোন কোম্পানি?'
    'আজ্ঞে স্লেট'
    'স্লেট মানে ? পাঠশালায়?'
    'ঐরমই '
    'অ ।চলবে ।ঐ লাইন'
    ১৭

    'আপনাদের সাবজেক্ট কি কি ?'
    নির্বাচিত প্রার্থীদের সোল্লাস।'
    'ঐ ঐ '
    'ধেৎ!সাবজেক্ট বলুন। কোন সাবজেক্টে ভাষণ দেবেন ?'
    'আজ্ঞে প্রাথ্থী….হ'বনা ?'
    'আঃ সেসব পরে। এখন বক্তা লাগবে ।
    'আজ্ঞে বক্তা'
    'হ্যাঁ । জনো-পোতিনিদিদের এখন মাল্টিটাস্কিং '
    'ঠিক।ঠিক '
    'আপনারা কি কি জানেন?'
    একজন মাথা চুলকায়।
    'আজ্ঞে নিজের গুণ কি আর বলা যায়। এই ধরুণ কৃষি, শিল্প, পরিষেবা'
    'এঃ ওসব পুরোনো'
    'যাহঃ'
    ১৮
    আপনি?
    'ক্ষুদ্দ্রকুটির,এনজিও, মাইক্রো স্বযুক্তি , মানিলন্ডারিং ।অ্যাকসিডেন্টাল শিং,বেকার-ভাতা,
    বংশ-যোজনা,ডি ইন্ডিয়া'
    'কৃতিত্ত?'
    'ছবি।গরু।সংগীত।নাটক।ডায়মন্ড।পরিবেশ।জল।
    যোগাসন ..'
    'ঠিক আছে ঠিক আছে। ঐ লাইনে'
    'আপনি?'
    'ক্লাব,সমাজসেবা,সতীদাহ,ইসে,মড়া পোড়ানো,
    ফ্যাসান,ফিলিম,ছিলিম,প্রোটেকশন,চপ, ঝালমুড়ি
    ঢোলেন্দ্র-মুদি,হাওলা-কীর্তণ,দলবদল,ফিক্সিং,
    ডে-নাইট,তেজুস,ঘোটঙ্কি বন্দি,লুঙ্গিবাত'
    ১৯
    'আপনি?'
    'বুলুকে উলু,ছিবিভাই, ক্যালাই চন্ডীপাঠ'
    'চুনকালি ইনডাসটি,হাউয়ানই মাসি,ওয়ান রাখাল মেনি কাউ'
    একটু দম নেয়।
    'আরো আছে। লেটেস্ট।ছুপারুস্তম,ঘোড়াবেচা,
    উদ্ধত-ঠোক্কর,অচিরাচরিত-চোর,নন রেজিস্ট্রারড চোর'
    'থামুন থামুন।ওঃ ঝালাপালা বাঁধিয়ে দিলেন। হুইখানে'
    ২০
    এখন শিশুরাও জানে। ভোট হ'ল ওরিজিনাল রিয়ালিটি শো ।নো রিহার্সাল । ফুল ফিল্ড-ওয়ার্ক। এ প্রান্তে ও প্রান্তে দৌড় করানো।
    পোস্টার-মোস্টারে ছয়লাপ। ব্যাপক বাউন্সার , বাম্পার হুক। জনগন লাঙ্গুলিত। প্রার্থীরাও ঘ্যামাচ্ছে।
    ২১
    নমিনেশন চপ,এখনও উত্তেজনার তেলে ছ্যাঁক হয়নি।
    ২২
    ফোর্সড উইথড্র। ফ্যাব্রিকেটেড মার্ডার । বিফিটিং রিপ্লাই । ফুল খর্চ্চা,নো চর্চ্চা। এসব সেকেন্ড ইনিংসে।
    ২৩
    পরিবেশ বান্ধব প্রতীক ।
    অং:বটগাছ।
    বং:সপ্তর্ষি-মন্ডল।
    চং:তেঁতুল পাতা।
    ২৪
    নতুন রক্ত। নতুন ভক্ত। ধুরন্ধর কথায় হাইব্রিড চাষ। ল্যাবারণ্যে আগুন। ধিক ধিক। দাউ দাউ। থেকে দিকে দিকে। হু হু। আক্রমণ।প্রতি আক্রমণ।
    ২৫
    ভাম-আদমির ভয়ংকর প্রতিক্রিয়া।
    সকালে বলছে: 'তাইতো'!
    বিকেলে চোখ পাকায়: 'বটে!'
    রাতে ঢুলু ঢুলু :' ইস!'
    ২৬

    মোটামুটি অমল দত্তের 'ডায়মন্ড ছক' গেম । প্রার্থী- দল-জনতা-প্রার্থী-দল ...গোওওওলটাই বাকি। খেলা জমে গেছে।
    ২৭
    ক)
    অং : ফুলেশ্বর লেঙট:

    'বন্ধুগন, আপনার ভোট মূল্যবান। আগলে রাখুন'
    সপ্তর্ষি-মন্ডল কোথায় থাকে? ঐ আকাশে। ধরাছোঁয়ার বাইরে। বুঝুন। ভোটে জিতে গেলে কি হবে । দেখাই পাবেন না ।
    মোবাইলে মাঝে মাঝে কি বলে ? এই নাম্বারটি নেটওয়ার্কের বাইরে। আপনি যাকে ফোন করেছেন। তিনি এখন ব্যস্ত। কিছুক্ষণ পর, আবার চেষ্টা করুন। লাইন বিজি। লাইফ হেল । আপনার টকটাইম মানে বাক স্বাধীনতা ? ফুউসসস! আপনি অন্ধকারে হাতড়াচ্ছেন।
    খ)
    লজ্জাবতী লতা দেখেছেন তো।
    'ছুঁয়ে দিলে?'একেবারে মাটিতে। মিশে যায়। ওটা তেঁতুল নয়। লজ্জাবতী । ছদ্মবেশ।
    ভাবুন একবার। ফুচকার কথা। মুখে জল আসছে তো ? আমারও। কিন্তু বন্ধুগণ,বিশ্ব স্বাস্থ্য-সংস্থা কি বলছে ? সব থেকে অস্বাস্থ্যকর। অপ খাদ্য। হেরোইনের নেশা।
    মাথামুন্ডু হুঁশ নেই। পাগলের মত গিলছেন। আর কি হচ্ছে? শরীরের বারোটা।তেঁতুলের ছড়া মুখে দিন। জিভ ছড়ে বারোটা । এবার বুঝুন আপনি।
    লোকে বলবে পুরোনো তেঁতুল। উপকারী। আমরা বলি কত পুরোনো ? খিদে এখন । সমস্যা এই মুহূর্তে। আপনি অপেক্ষা করবেন ? কতক্ষণে তেঁতুল পুরোনো হবে। আর হাত দিয়ে পেড়েছেন কোনদিন তেঁতুল ?ওই ওই , উঁচুতে।
    নাগাল পাবেন না। আর এসব কখন হবে? যদি আপনি ভুল করেন। কি ভুল ? ওদের সবাইকে যদি ক্ষমতা দেন। মানে আপনি যদি হাতে করে দিয়ে দেন। ভুল করবেন না ।
    গ)
    আপনাকে সুরক্ষা দেবে কে ?
    বটগাছ। ভারতের সংস্কৃতির অঙ্গ। সীতার আশীর্বাদ ধন্য। সত্যবাদী। মজবুত। সুরক্ষায় অঙ্গীকারবদ্ধ।
    কবিগুরুর গান:
    'ছায়ার ঘোমটা মুখে পানি /
    আছে আমাদের গ্রাম খানি '
    'ছায়া সুনিবিড় /শান্তির নীড়'
    এই ছায়া কে দেয়? শান্তি কে দেয়?
    বটগাছ দেয়।
    কাকে দেয় ?
    জাতপাত নির্বিশেষে। ধনী দরিদ্র ভেদাভেদ ভুলে। পশুপাখি, জন্তু জানোয়ারকে। হোলসেল।
    কাকে নিয়ে বাঁচে ?
    সবাইকে নিয়ে বাঁচে ।
    আর কি করে?
    বাঁচায়।
    ঝড়ে কি করে ?
    রক্ষা।
    ভূমিকম্পে?
    রেহাই।
    ভূমিক্ষয়?
    প্রতিরোধ ।
    পুজোয় কি লাগে?
    পঞ্চবট।
    আপনার জীবন জুড়ে কে আছে?
    বটগাছ
    কি অবদান ?
    অমূল্য।
    কোথায় ?
    সংস্কৃতিতে।
    সাহিত্যে?
    বটতলা
    শিল্পে?
    'আমরা দেখেছি যারা নিবিড় বটের নিচে লাল-লাল ফল'
    বিজ্ঞানে?
    বোটানিক্যাল গার্ডেন
    ভাবুন! অনলাইনে,জবাব দিন।
    বটচিহ্নে ?
    আওয়াজ উঠল :'ছাপ দিন '
    'খবরদার,বট সর্দার।
    ট্যাক্স মাপ,বটে ছাপ।
    'সীতার আশীর্বাদ/
    আমাদের আশীর্বাদ'
    ২৬
    ক)

    বং :আমোদিতা লাট্টু:

    'ভাইসব, ভুল করবেন।একশোবার করবেন। ভুল করাটা আপনার অধিকারের মধ্যেই পড়ে ‌।
    ভোট ,বটগাছেই দিন । মজাটা দেখুন।
    বটগাছ দেখেছেন কোনদিন?
    'হ্যাঁ দেখেছি'
    'কি রকম বলুন?'
    'অনেক বছর বাঁচে'
    'ঠিক । বহুবর্ষজীবী'
    'আর কি করে ?'
    'ছায়া দেয়'
    'বাঃ'
    'আর ?'
    'অক্সিজেন'
    'গুড'
    "বন্ধুরা আপনারা তো অনেক জানেন । একটা প্রশ্ন করি।
    বটের ঝুড়ি দেখেছেন?
    'দেখেছি'
    'ভেবেছেন কোনদিন বটের ঝুড়ি নিয়ে ?'
    'কৈ না'
    'একবার জন্মাতে দিন। খেলা শেষ।পাঁচশো হাজার বছর ।
    'এই বছরগুলো কি ? '
    'এগুলো রাজত্ব।ছেলে। তার ছেলে। তার ছেলে। যাকে ইতিহাস বলছে ডাইনেস্টি ।বংশ পরম্পরায়। রাজ করবে।
    আর আপনি ?
    আঙুল চুষবেন। ফুটপাতে। ছেঁড়া কাঁথায়।
    আপনার লাইফ? ফিনিশ।
    বটগাছ লাগিয়েছেন তো ফেঁসে গেলেন।কেন? আর কোনো গাছ বাগানে হচ্ছে না । কারণ ? ঐ বট
    'কেন ?'
    বটগাছের নিচে। আশেপাশে। আর কোন গাছকে বাঁচে?
    না।
    কোথায় গেল গাছ?
    বটেই খেয়ে নিল
    তেমনই আপনিও? আর বাঁচবেন না। ধনে প্রাণে মরবেন।
    বংশ ? উজার ।
    কবি কেঁদেছেন :
    'সকলের মাঝে বসে
    নিজের মুদ্রাদোষে
    আমি শুধু হতেছি আলাদা '
    বট একা।
    এ হল আলাদা। সবার ধাঁধা।পথের বাধা।
    তাহলে কি করবেন ?

    'বটের গাছ/
    আওয়াজ হল:
    'সব বকোয়াজ'
    'এবার বট'/
    'দূরেই হট্ '

    খ)
    আর সপ্তর্ষি মন্ডল ?
    ধাপ্পা। স্রেফ ধাপ্পা।
    আপনি কল্পনায় জুড়তে পারলে আছে। না হলে নেই।
    কোথায় আছে?
    আকাশ
    আকাশের শেষ আছে ?
    নেই
    শুরু আছে ?
    নেই
    কি দিয়ে সৃষ্টি?
    ফাঁকা। শূন্য। তা বন্ধুরা আপনারা শূন্যকেই নিন।ভোট দিন। সপ্তর্ষি মন্ডলকেই দিন । আমাদের নয় '
    রাজত্ব কায়েম করতে?
    ভোট দিন বটগাছকে।
    আমাদেরকে নয়।
    যদি আপনি বলেন
    'সপন যদি মধুর এমন / হোক সে মিছে কল্পনা '
    সপ্তর্ষি মন্ডলকেই বেছে নিন।
    রাজাবাদশা চাইলে? বটগাছকেই মাথায় রাখুন।

    গ)

    হারাধনের দশটি ছেলে
    ঘোরে পাড়াময়,
    একটি কোথা হারিয়ে গেল
    রইল বাকি নয়।
    হারালো কেন ?
    বাঁধন নেই। পাড়াময় ঘুরছে। কেউ ফিরেও দেখল না।
    আর আমরা বলি,
    'যদি হও সুজন /
    তেঁতুল পাতায় ন'জন'
    ঐ তেঁতুল পাতা। একাই ধরে রাখে। দশ-বিশ।
    আপনি শস্য শ্যামলা পৃথিবী চান?
    স্বজনদের নিয়ে বাঁচতে চান ?
    অতিথি দেব ভবো চান ?
    'তেঁতুল পাতা তেঁতুল পাতা /
    তেঁতুল বড় টক রে ।
    তোমার সাথেই আমার প্রেম/
    অনেক দিনের শখ রে'

    এতো তেঁতুলের গুণেই প্রেম। আটকায় সাধ্য কার।ঔষধিগুণের
    নীরোগ জীবন যদি চান ?
    তবে কাকে চাই?
    তেঁতুল পাতা।
    জোয়ার আসে :
    'তেঁতুল পাতা;
    বর্ষায় ছাতা/
    'তেঁতুল পাতা/
    শীতের কাঁথা'
    'ঐক্য কোথায়/
    তেঁতুল পাতায়'

    ২৭
    ক)
    চং: গুলেন্দ্র স্যাঙাত : কাঁপিয়ে দিল।‌

    'মহা- বিদ্রোহী রণ-ক্লান্ত/
    আমি সেই দিন হব শান্ত,
    যবে উৎপীড়িতের ক্রন্দন-রোল,/
    আকাশে বাতাসে ধ্বনিবে না,
    অত্যাচারীর খড়গ কৃপাণ/
    ভীম রণ-ভূমে রণিবে না -'
    ….বট,তেঁতুল তো চিনব। কিভাবে চিনব ? যদি শিক্ষাই না থাকে ? চেতনা না থাকে। কল্পনা না থাকে ।
    খ)
    'পেঁচার ধূসর পাখা উড়ে যায় নক্ষত্রের পানে'
    আপনারই চেতনার রঙে পান্না সবুজ। চুনি রাঙা। আপনি চোখ মেললেন। আকাশে জ্বলে উঠল?
    আলো হয়ে । কোথায়?পুবে পশ্চিমে!
    গোলাপকে কি বললেন?
    সুন্দর। তাই সুন্দর হল সে ।
    লেকচার নয়। এ আপনারই বাণী।এ সত্য ।এ আপনার অহংকার। সমস্ত মানুষের হয়ে।সারল্যের অহংকার। বিশ্বকর্মার বিশ্বশিল্প ।
    জপ করছেন। নিশ্বাসে প্রশ্বাসে। না-পান্না, না-চুনি, না-আলো। না-গোলাপ।না-আমি । না দল
    না পার্টি।না ভোট।
    ওদিকে ভোটের অসীমে কে?
    তিনি স্বয়ং আপনি।
    কি করেছেন ?
    সাধনা।
    সরকারের সীমানায় কে? আপনি।
    সেই আপনার মধ্যে আছি , আমি ।
    আপনি নেই, তো আমরাও নেই
    গহনে আছেন আপনি।
    ব্যস্ত আছেন মহা মিলনে। সহিষ্ণুতায়।
    কিভাবে দেখা দেন?
    রূপে।
    কি জাগিয়ে তোলেন?রস।
    আপনি পাবলিশ হয়ে উঠলেন । আর
    আপনার মায়ামন্ত্রে কে বশ হল?এই আমরা।
    কে কথা বলেন? আপনি ।
    আমরা কে ?আপনার বর্ণ। অক্ষর। ভাষা।
    আপনি হলেন ঈশ্বর। কোথায়? না ভোটে । আর? ইভিএমে আর? সরকারে।

    সপ্তর্ষিমন্ডলের ধারণায় “স্টার চার্ট সফটওয়্যার” আবিষ্কার। এখনো পর্যন্ত কোন ভুল গণনা নেই।গ্রহনক্ষত্রের গতিবিধির গণনা সঠিক। এ কিভাবে সম্ভব ? যদি কল্পনাই থাকে।
    যদি না থাকে? আপনি চিনতেই পারলেন না আপনাকে। এ পৃথিবীকে। স্বপ্ন এমন নয়। যা আমরা ঘুমের মধ্যে দেখি। স্বপ্নই আমাদের জাগিয়ে রাখে। ঘুমোতে দেয় না।
    আপনি জানবেন কি করে ?
    আপনি জেগে আছেন কিনা?
    আপনার অধিকার কি ?
    আপনার দাবি কি ?
    আমরা আফিমের ঘুম চাই না।
    তাই সচেতন।
    কল্পনা করাই ।
    এক যে আছে মজার দেশ,
    সব রকমে ভালো,
    অন্ধকারটা সাদা দেখায়,
    সাদা জিনিস কালো !
    আকাশ সেথা সবুজবরণ
    গাছের পাতা নীল;
    ডাঙ্গায় চরে রুই কাতলা
    জলের মাঝে চিল !
    আর কি কি কল্পনায় ?

    ক্ষুধামুক্ত পৃথিবী। স্বাক্ষরিত
    পৃথিবী।শোষণমুক্ত পৃথিবী।
    এসব আসবে কোত্থেকে?
    ঐ সপ্তর্ষি মুনির মতো।
    আপনার কল্পনায়।

    জনগনেশ টেম্পার খেয়ে যায়।
    'ভোট চঞ্চল'
    'সপ্তর্ষি মন্ডল'
    'ভুলেছি কোন্দল/
    সপ্তর্ষি মন্ডল'

    ২৮

    জোরদার জমেছে। পাবলিক ফিউজ। সবই সত্যি। যুক্তি অকাট্য। গিলে হজম।

    ২৯
    ভোকাল সে লোকাল চর্চা। বটগাছের ফুলেশ্বরকে দেখেছেন ,আগুনের ফুলকি।
    ৩০
    আরে ছোঃ ! তেঁতুলপাতার আমোদিতার কথা বলুন ? গরীবের ইলু ইলু।

    ৩১
    ফালতু খিচাইন কোরো না । বামাল হয়ে যাবে সপ্তর্ষি-মন্ডলের গুলকুমার ,ম্যাজিকওলা।
    এক নির্ভীক যোদ্ধা।খাপ-খোলা তলোয়ার। সত্যি, বাঁচাতে এইই পারে। শিক্ষায় উদ্দীপ্ত।
    ৩২
    সব দল চাঙা। বক্তৃতায় বিপক্ষ দল কাত। তিনজনই ফিট। এই তিন সবার নজরে।
    ৩৩

    ফুলেশ্বর: যো জিতা ওহি সিকন্দর
    আমোদিতা:জওয়ানি- দিওয়ানি ।
    গুলেন্দ্র: অন্দর মে ফিট বাহার মে ফিট ।
    ৩৪
    নমিনেশন ফাইলড।অং ,বং,চং,এ ঝাড়পিটের স্কোর ইকুয়াল। তিন নং সাতাশ। লাশ পড়েছে।ইচ পার্টির।
    ৩৫
    প্রার্থীদের বাড়িতে অবশ্য। উত্তেজনা নেই। যাহা বাহান্ন, তাহা তিপ্পান্ন ‌।
    ৩৬
    সাংবাদিকেরা ছোটে।
    প্রার্থীর বাড়ি বাড়ি।
    ফুলেশ্বর বাড়ি নেই।
    আমোদিতার মেয়ে বলল:'
    'ঠাপে গেছে'
    শেষমেষ, গুল কুমার অ্যাভেইলেবল । মিডিয়া সাক্ষাৎকার বাইট নিল।
    'এবার কি হবে ?'
    'কি আর হবে!
    'ভয় করছে ?'
    'হেঃ ভয়!'
    সাংবাদিকেরা হামলায়।
    'কি ভাবছেন স্যার? এনি প্রেডিকশন?'
    'আমিই জিতব'
    'কি বলছেন স্যার? ভোটই তো হল না। জেতার ব্যাপারে এত কনফিডেন্স , কিভাবে পাচ্ছেন ?'
    'ধুর। জেতাটা কোন বিষয় ! জেতা নিয়ে চিন্তিত নেই'
    'কী বলছেন?'
    'আবৃত্তি।গান। নাটক ।বিতর্ক। রং। '
    'মানে ? 'সাড়ে সাংঘাতিক' কাগজের সাংবাদিকদের তো হেঁচকিই উঠে গেল ..মানেটা কি হল স্যার ..?
    'কিছু না । ঢং'
    'কি মিন করছেন ?'
    'রেজাল্টের দিন, সব উড়ে যাবে'
    'দেদার ছাপ্পা নাকি?'
    "ধুর মশাই। দেদার ধাপ্পা'
    'মানে?'
    গুলকুমার ছবি দেখায়। দেখুন..'
    'একি! এরা তো সব অপোজিশন'
    'ইয়েস'
    'আপনি সাবোটাজ করবেন?'
    'হেঃ'
    ফুলেশ্বর,আমোদিতা,গুলেন্দ্র।
    ছেলেবেলায় বিদ্যে'
    সব আমি। এই শর্মা। একজনই!'

    © হীরক সেনগুপ্ত
  • অপাবৃণু | 2405:201:8804:f73b:2ca1:cbff:be99:1dfb | ২১ জুলাই ২০২০ ১৩:০৯95397
  • বাহ ! একদম টাইমমাফিক ।
  • lcm | ২০ অক্টোবর ২০২১ ১২:২৯499870
  • এখানে তুমি সংখ্যালঘু, প্রথম সংখ্যা জানুয়ারি ২০১৮ 
     
    পিডিএফ ই বই দেওয়া হল, একদম ওপরে
  • পাতা :
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় মতামত দিন