• হরিদাস পাল
  • খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে... (হরিদাস পাল কী?)
  • সম্রাট ও সারমেয়

    Prativa Sarker
    বিভাগ : ব্লগ | ২০ জুলাই ২০১৯ | ৬৯ বার পঠিত
  • একটি খুব স্নেহের মেয়ে, বিদেশে পড়াশুনো করছে, সূর্যের নীচে সবকিছু ভালোর জন্যই ওর গভীর ভালবাসা। মাঝে মাঝে পাগলামি করে বটে,আবার শুধরে নেওয়ায় কোন অনীহা নেই।
    আমার খুব পছন্দের মানুষ !

    সে একদিন লিখলো ইসলামে কুকুর নাপাক জীব। এইটাতে সে ভয়ানক খাপ্পা, কারণ কুকুর তার প্রাণ।

    আমি তখন সদ্য গিয়াসউদ্দিন তুঘলকের সমাধিক্ষেত্রে ঢুকছি। আমার সঙ্গে হিস্টরিওয়ালা অমিত মিত্র।Amit Mitra দিল্লীর পুরো ইতিহাস যার ঠোঁটস্থ। কিছুদূরে অপেক্ষা করছে আর এক বন্ধু শুক্লা বোস।

    উলটো দিকে তুঘলকাবাদের ধ্বংসস্তূপে মেয়েদের মসজিদ, যার ছাদ বাংলাদেশের কুটিরের মতো ঢালু আর গড়ানে, মীনা বাজারের লম্বা আন্ধার গলি, অজস্র ভগ্ন প্রাসাদকক্ষ দেখে বেরিয়েছি। প্রচণ্ড রোদ। তবু এইবার তার স্রষ্টা গিয়াসউদ্দিন তুঘলকের সমাধি দেখব। পাশে শুয়ে তাঁর ছেলে "পাগলা রাজা" মহম্মদ বিন তুঘলক। আর একপাশে বেগম সাহেবা।

    অনেকটা সেতুপথের ওপর দিয়ে গিয়ে তবে এখানে ধুকতে হয়। বোঝাই যায় কয়েক শতাব্দী আগে নীচে বইতো গভীর কালো জল।
    অসাধারণ এই আটকোণা লাল পাথরের সৌধ। সবুজ ঘাসের বাগিচায় মোড়া। পাথুরে দেওয়ালের গায়ে গা লাগিয়ে চলা ছাদওয়ালা লম্বা পথ, মোটা পাথুরে স্তম্ভ সারি দিয়ে চলেছে, ঘিরে রেখেছে গোটা সমাধিক্ষেত্রকে। ঢুকেই বাঁদিকে কিছুটা এগোলে বোর্ডে নজর পড়ল। লেখা আছে এখানে রয়েছে সুলতানের আদরের কুকুরের সমাধি।

    এক আর্চের ভেতর থেকে উঁকি দিচ্ছে ছোট সাদা পাথরের সমাধি। সেই পোষ্যের নাম কী, কোথা থেকে তাকে আনা হয়েছিল তুঘলকাবাদে, কেমন ছিল তাকে দেখতে, কী তার কাহিনী, সে ব্যাপারে ইতিহাস বড় নিশ্চুপ।

    তবু কল্পনা করে নেওয়াই যায় মোঙ্গলদের বার বার হাটিয়ে দিয়ে দিল্লীতে তুঘলক শাসনের প্রতিষ্ঠাতা বীর গিয়াসউদ্দিন যখন ঘোড়ায় চেপে উঠে আসতেন তুঘলকাবাদের প্রধান দ্বার হয়ে প্রশস্ত চড়াই রাস্তায়, তখন উজির নাজির, মোসাহেব আর সৈন্যদলের সবার আগে থাকতো এই চারপেয়ে। প্রভুকে অনেকদিন বাদে দেখতে পাবার উত্তেজনায় সে হাঁপাচ্ছে, লেজ নাড়ছে প্রাণপণ, মুখে অনবরত আনন্দের গর্জন। একমাত্র তারই অনুমোদন ছিল ছ' ফুট লম্বা সুদেহী এই বীরের কাঁধ স্পর্শ করে সটান দাঁড়িয়ে পড়ার, যতক্ষন না প্রভু সস্নেহে তার পিঠ চাপড়ে দেন। কোন সৈন্য এসে শেকল ধরে তাকে নামিয়ে নেয়, তারপর সে হাঁটতে থাকে সুলতানের পাশাপাশি, বার বার মুখ তুলে দ্যাখে প্রভুর গতি প্রাসাদের অভ্যন্তর-মুখী কিনা, ঐ ছড়ানো হাতের পাঞ্জা আবার তাকে সস্নেহে স্পর্শ করে কিনা।

    যখন বঙ্গদেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করে তুঘলকাবাদে ফিরছেন গিয়াসউদ্দিন, তখন দিল্লীর উপকন্ঠে তৈরি হচ্ছে তাঁকে অভ্যর্থনা জানাবার জন্য এক অপূর্ব স্থাপত্য। যখনই সুলতান তার ভেতর প্রবেশ করবেন তখনই সেটা ভেঙ্গে পড়বে তাঁর মাথায়। কনিষ্ঠ পুত্রকে সঙ্গে নিয়ে নিহত হবেন তিনি। এটা দুর্ঘটনা না সিংহাসনলোভীদের ষড়যন্ত্র, তা আজ অব্দি নির্ভুল জানা গেল না। শুধু কল্পনা করে নেওয়া যায় সেখানে উপস্থিত ছিল ঐ অতি বিশ্বস্ত সারমেয়। প্রভুকে আগাম অভ্যর্থনা জানাতে অন্যদের সঙ্গে সেও উপস্থিত ছিল বিজয়মঞ্চে। নাহলে মৃত্যুর পরেও সুলতানের এতো নৈকট্য পাবে কেন এই প্রাসাদপালিত চতুষ্পদ !

    আর বাকী থাকে ইসলামে নাপাক সারমেয়। সেও ইতিহাস প্রণোদিত বিতর্কের বিষয়। কোরাণে কোন পশুবিদ্বেষ নেই। বরং পশুপালের পাহারাদার হিসেবে কুকুরের কদর করা হয়েছে। কাহিনী আছে, মরুঅঞ্চলের কোন ভ্রষ্টা ( এই শব্দটি কেবল কাহিনীর মূল সুরকে ধরবার প্রচেষ্টায় ব্যবহৃত) আর কোনো পাত্র না পেয়ে পায়ের মোজা খুলে মৃতপ্রায় সারমেয়কে জলপান করিয়েছিলেন বলে তার ইচ্ছানুযায়ী সমস্ত অতীতের ভার লাঘব করা হয়েছিল।

    পরবর্তী হাদিশে দেখা যায় কুকুরকে বা আরো নির্দিষ্ট করে বলতে গেলে কুকুরের লালা পরিহার করবার কথা।

    একটি মানবগোষ্ঠী অনেক পথ হেঁটে এসেছেন। এখন তাঁদের কী মনোভাব জানতে উৎসুক।
  • বিভাগ : ব্লগ | ২০ জুলাই ২০১৯ | ৬৯ বার পঠিত
  • আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা ভাইরাস

  • করোনা ভাইরাস

  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত