• টইপত্তর  অন্যান্য

  • ইলেকশন আড্ডা , আপনাদের চারপাশের লোকজন কী কয় ?

    Ekak
    অন্যান্য | ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৭৬৩ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
আরও পড়ুন
দে জা গু - Ekak
আরও পড়ুন
গল্প খেলা - Ekak
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • S | 458912.167.34.76 | ১৩ এপ্রিল ২০১৯ ১৩:১৬382105
  • এইটা দারুন দিয়েছেন। মিমির ধমকি দিয়ে শুরু করেছিলাম। এইটা পুরো আইসিঙ্গ অন দ্য কেক।
  • pp | 3423.241.342312.17 | ১৩ এপ্রিল ২০১৯ ১৯:৪৬382106
  • তলার কমেন্ট গুলো আরো চিত্তাকর্ষক।
  • Pi | 2345.110.894512.152 | ১৮ এপ্রিল ২০১৯ ২০:১৯382107
  • দার্জিলিং এর চোপড়ার লাইভ দেখলেন কেউ?
  • sm | 2345.110.124512.20 | ১৮ এপ্রিল ২০১৯ ২০:৩৮382109
  • খালি কংগ্রেস প্রসঙ্গে মন্তব্যের প্রেক্ষিতে।
  • PT | 340123.110.234523.4 | ১৮ এপ্রিল ২০১৯ ২০:৫৮382110
  • "নব্য বাংলার পলিটিকাল ডিস্কোর্স।"
    নতুন কিছু নয় তো!! বিধানসভা লন্ডভন্ড করা দিয়েই তো এই রাজনীতির জন্ম। সেই "সদরে কামান দাগা" তাত্বিকেরা কোথায় লুকিয়েছে এখন?
  • pi | 7845.15.123423.190 | ১৮ এপ্রিল ২০১৯ ২২:০০382112
  • হ্যাঁ, এটাই দিলাম অন্য টইয়ে। বেশ অদ্ভুত! নাকি গদি উল্টোচ্ছে টের পেয়েছে!
  • দ্যুতি | 785612.42.2367.46 | ১৯ এপ্রিল ২০১৯ ১১:৪৯382113
  • চারদিকে ভোটের ছবি ভোটের গল্প। আইপিএল টাও প্যানপ্যানে লাগছে এক ঘন্টা সংগে সুমনের কাছে। আমি খুব কম বুঝি এসব। এবার আবার ভোটার লিস্টে নাম ও নেই মনে হয়। ভোট দিতে না পারলে বেশ আফসোস লাগে। এই গরমে একটু সেজেগুজে লাইন দিয়ে চারদিকের গুলতানি দেখার সুযোগ হাতছাড়া হবে আর কি। বেশ কটা দিন বেংগলে কাটিয়ে এলাম। তাতে আবার রাম নবমী এসব ছিল। আমাদের চেনা রাস্তাঘাটে রাম মন্দিরের ছড়াছড়ি, সাথে হনুমানের ও। আগে তেমন ছিল না। আমার বেশ মনে আছে ঠাকুমার তাকে আমিই একটা নীল রং এর ছোট সাইজ রামের ছবি কিনে এনেছিলাম। রাম কে সব ঠাকুরের সাথে পুজো করা হত। কিন্তু আমাদের মনে শিব, বিষ্ণু বা কালী, দুর্গা এঁদের নিয়ে কোনো দুই দুই নেই। এদের ভগবান বলে সবাই ধরে নিয়েছি, অনেক আগে থেকে। কিন্তু রাম কোথাও যেন আমাদের খুব চেনা বীর। গল্পের নায়ক। সীতার বর। হঠাৎ করে চারদিকে এই ভোট প্রচারে রামকে এভাবে তুলে আনাটায় আমার অন্তত চুলকানি হয় একটু। মানে পুজোপাট আর রাজনীতি, ধর্ম এসব মিলে গেলে কেমন যেন লাগে। সাথে কমলা রং। সেদিন 'ভিঞ্চি দা' দেখতে যেতে গিয়ে প্রচন্ড জ্যামে ফাঁসলাম। দেখি লরি ভরে রাম মূর্তি আর হনুমান মূর্তি। সাথে ওই কমলা রং পরা মানুষ। এ কোন দেশে এলাম? কেন নিতে পারছি না এ সংস্কৃতি? আমি ই তো ছোট থেকে রামরাজাতলার রাম ঠাকুর ভাসান দেখেছি। আমি তো কত পুজোপাঠ দেখলাম এ জীবনে। কিন্তু এভাবে রাম পুজো কেন সইতে পারছি না কে জানে। মনের এই সংকীর্ণতা কাটাতে চাইছিলাম। ওদিকে বাবা ছোটদের নিয়ে চড়কের মেলায় গেছে। এগুলো তো আমাদের সংস্কৃতি, কিন্তু এগুলো দিয়ে আজ এভাবে দেগে দেওয়া হচ্ছে কেন এটা বিজেপির প্রচার? এটা ভাবলেই ইক্যুয়েশন মিলছে না। এরপর ব্ল্যাক ডায়মন্ডে ফিরছি, এসি তে বসেছি। মাঝে কে একজন মোবাইলে জোরে গান চালিয়েছেন, বেশ সুরেলা, তাতে হিন্দীতে বলা হচ্ছে, ভারত মা কি দাস হুঁ, ছাপান্ন ইঞ্চি কে সেবক হুঁ এরকম কি কি যেন। আমি পার্টি পলিটিক্স বুঝি না, তাও ওই লোকটাকে কেন যে অসহ্য লাগে? নেতা রাজনীতি মানেই পালটি খাওয়া এটাই দেখি আজকাল। তোষামোদি করা আর যেন তেন প্রকারেণ পয়সা কামানো, গোঁজা তাপ্পি পারা। এসব সবাই বোঝে। কমলা রং এর টি শার্ট দেখলেই বিজেপির লোক মনে হচ্ছে আমার! এসব আমি কাটিয়ে উঠতে চাই কিন্তু পারি না। আমাদের দেশের বাড়ি থেকে এক কাকা কাকিমা এসেছিলেন মায়ের কাছে পুজোয়। গেল বছর ওনাদের মুখে বংলার নেত্রীর সুনাম শুনেছিলাম। কিন্তু এবার দেখি সব পালটে গেছে। সবাই বিজেপি চাইছে। ভালো ভালো। খুব ভালো। ধর্ম আমরা বুঝি না, সারা দেশ হিন্দুর থাকবে। তাহলে ধর্ম নিরপেক্ষ বলার কি আছে? বিজেপি নাকি দেশভক্তি বাড়িয়েছে একথাও একজন বললেন। আমার বাবা বলেন নিজের ধর্মকে জানা প্রয়োজন। চারদিকে দামড়া বিচারবুদ্ধিওলা মানুষগুলো ধর্মাচারণ করতে গিয়ে একদলকে প্রচন্ড ঘৃণা করছেন। এ কোন ধর্মের কথা জানা নেই। দেশ নাকি মুসলমান এ ভরে যাবে। এই হবে সেই হবে। সব বুঝি, গলতাগুলো তো অনেক গভীরে। সব সময় পাইয়ে দেবার রাজনীতি। ঠিক জায়গায় ঠিক মলমটা দেবার কেউ নেই। সবাই খালি উস্কানিতে খুশি। চারদিকে যা দেখে এলাম বাংলায় বিজেপি এলে অবাক হবার কিছু নেই। আরো বড় রাম মন্দির দেখবার অপেক্ষায় রইলাম।
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। ঠিক অথবা ভুল মতামত দিন