• টইপত্তর  অন্যান্য

    Share
  • ইসলামিক সমাজে গৃহযুদ্ধ বেশী কেন?

    bip
    অন্যান্য | ০২ মার্চ ২০১৮ | ৯৬ বার পঠিত | জমিয়ে রাখুন
আরও পড়ুন
- - স। র। খান
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বিপ | 81.244.150.90 | ০২ মার্চ ২০১৮ ১৩:১২373962
  • মিডলইস্ট পৃথিবীর আর্মপিট! সব গন্ডোগল ওখানে। ইয়েমেন, সিরিয়া,ইরাক- গৃহযুদ্ধের লাশকাটা ঘরে শুয়ে আছে। আমেরিকা এবং রাশিয়া ওখানে অস্ত্র বেচে ভাল লাভ করছে।

    কিন্ত সমস্যাটা এখানেই। মধ্যপ্রাচ্যের ক্ষেত্রে শুধুই কি সামাজ্যবাদি শক্তির দোষ দিলেই পোস্টমর্টেম শেষ? এই প্রশ্ন কেন ওঠে না যেখানেই ইসলামিক দেশ, সেখানেই কেন গৃহযুদ্ধ, মৃত্যু এবং বিভীষিকা? কেন গণতন্ত্র নেই?

    দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে জার্মানী এবং জাপান মাত্র ১৫ বছরের মধ্যেই আমেরিকান সাহায্য নিয়ে আবার গণতান্ত্রিক শক্তি হয়ে প্রথম বিশ্বে ফিরে আসে। কিন্ত আফগানিস্থানে ওর থেকে বেশী সাহায্য নিয়েও কিস্যু হয় না। ইরাকেও কিস্যু হয় না। কেন? ইসলামিক সমাজ ব্যবস্থার ডি এন এতে দোষটা কোথায়?

    পাশ্চাত্য সভ্যতার ভিত্তি কিন্ত খ্রীষ্ঠান ধর্ম না- সেটা হচ্ছে গ্রীক এবং রোমান সভ্যতা। ইনফ্যাক্ট ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের মতন গাধার ঘাড়ে ছিল মধ্যযুগে যখন ইউরোপিয় সভ্যতা মানে ছিল খ্রীষ্ঠান সভ্যতা। মানে অন্ধকারের যুগ। আজকের উন্নত পাশ্চাত্য সভ্যতার ভিত্তি কিন্ত প্রাচীন ক্ল্যাসিক্যাল গ্রীসের নগরদর্শন,যা বেশ কিছুদিন রোমান সভ্যতাতেও টিকে ছিল।

    কিসের জন্য পাশ্চাত্য সভ্যতা, যা গ্রীস এবং রোমান সভ্যতা থেকে উদ্ভু- তা উন্নত জীবনযাত্রার জন্ম দিতে পেরেছে? ইসলামিক বা খ্রীষ্ঠান সভ্যতা, বা কমিউনিজম যা দিতে অক্ষম ? সেই দর্শনের গভীরে যাওয়া দরকার। গ্রীস এবং রোমান সভ্যতার ভিত্তি ছিল স্টয়কিজম ( Stoicism) ,

    স্টয়কিজমের অনেক ধারা বর্তমান- যার মোদ্দা কথা সমাজ হবে জ্ঞান এবং বুদ্ধি নির্ভর। ধন সম্পতি, স্বাস্থ্য-সব কিছুই দরকার-কিন্ত সেটাও ওই বেসিক সূত্র মেনে যে ওসব কিছুই দরকার উন্নত বুদ্ধি চিন্তার চর্চায়। স্টয়কিজমের সাথে ইসলাম মার্ক্সবাদি বা খীষ্ঠান চিন্তার পার্থক্য হচ্ছে- স্টয়কিজম কোন গ্রান্ড ন্যারেটিভে বিশ্বাস করে না। যেমন ইসলামের ক্ষেত্রে "গ্রান্ড ন্যারেটিভ" হচ্ছে ইসলামিক জাস্টিস- যা দুনিয়াটাকে বিশ্বাসী অবিশ্বাসীতে ভাঙে। এবং ইসলামিক দেশের রাজনীতি কখনোই জ্ঞান ভিত্তিক বা ফ্যাক্ট ভিত্তিক হতে পারে না- তা্রা ওই ইসলামিক ভাবাদর্শের গ্রান্ড ন্যারেটিভেই পরিচালিত হয়। যা মধ্যযুগীয়। এটা কমিনিউস্টদের জন্যও সত্য। তারা সর্বদাই ফ্যাক্ট এবং জ্ঞান দুটোকেই বিকৃত করে, তাদের গ্রান্ড ন্যারেটিভ- শোষক এবং শোষিত- এই স্কিমাতে ফিট করতে।

    ইসলামিক বা কমিনিউস্ট চিন্তার সমস্যা এই যে, তা তাদের ফলোয়ারদের ভাবতে শেখায় তারাই ভিক্টিম- তারা শোষিত অচ্যাচারিত। হয়ত কিছুটা ঠিক-কিন্ত তার অধিকাংশটাই না। বাস্তব হচ্ছে স্টয়িকিজমের লেন্সে ভাবলে "ফ্যাক্ট" হচ্ছে সব জীবনই সংগ্রাম। সেখানে শোষন নিপীড়ন যেমন আছে, তেমনই নিজের উদ্যোগে পরিশ্রমে সেখান থেকে উদ্ধার পাওয়ার রাস্তাও আছে। মুশকিল হচ্ছে মানুষ কমিউনিজম বা ইসলামে স্পেলে এসে গেলে, নিজের উন্নতি নিয়ে না ভেবে দল বেঁধে গুন্ডাগর্দি করে রাজনৈতিক ক্ষমতা দখলেই মন দেয় বেশী ( পড়ুন বৈপ্লবিক আন্দোলন, প্রতিবাদি আন্দোলন ইত্যাদি )। কারন ওই " অত্যাচারিত" ন্যারেটিভের বাইরে তারা ভাবতেই পারে না। সম্পদ তৈরী করার চেয়ে গুন্ডাগর্দি করে সম্পদ ছিনিয়ে নেওয়াতেই আগ্রহ বেশী থাকে।

    আজ দেশভাগের পেছনেও কিন্ত সেই ইসলামি ন্যারেটিভ। বৃটিশ আমলে বাংলাদেশের মুসলমান প্রজারা অত্যাচারিত ছিল সেই নিয়ে সন্দেহ নেই। ঠিক সেই কারনেই কৃষক প্রজা পার্টির সৃষ্টি- এবং অতি শিঘ্রই তা মুসলীমলীগের তিমির তলপেটে ইসলামিক ন্যারেটিভে গলিয়ে যায়। যার ফল এই যে মুসলিমরা হিন্দুদের হাতে অত্যাচারিত-তার ন্যারেটিভেই পূর্বপাকিস্তানের সৃষ্টি। সুতরাং সব গৃহযুদ্ধের পেছনে ( দেশভাগের পেছনেও) "আমরা অত্যাচারিত" এই ইসলামি ন্যারেটিভের ভূমিকাটাই মুখ্য। সেটা ভুল না ঠিক- সেই বিচারে আমি যাচ্ছি না। কারন স্টয়িকিজমের দৃষ্টিতে অমন ব্ল্যাক এন্ড হোয়াইট সিদ্ধান্ত সম্ভব না।

    সিরিয়া ইরাক ইয়েমেন-সবর্ত্রই সেই ন্যারেটিভের খেলা। ওখানে শিয়া সুন্নী। ক্ষমতা দখল করে বসে আছে শিয়া সংখ্যালঘুরা-যার বেশী শিক্ষিত এবং উন্নত। ফলে সংখ্যাগুরু ধর্মান্ধ সুন্নীদের মধ্যে ওই অত্যাচারিত গ্রান্ড ন্যারেটিভ খাওয়ানো খুব সহজ। ফলে আইসিসি এবং গৃহযুদ্ধ। পোয়াবারো আমেরিকা রাশিয়ার অস্ত্র ব্যবসায়।

    কোনটা ভাল খারাপ তার মধ্যে যাচ্ছি না। ইতিহাসের শিক্ষা এই যে রাজনীতি যদি জ্ঞান, বুদ্ধি এবং ফ্যক্ট দ্বারা পরিচালিত না হয়ে গ্রান্ড ন্যারেটিভ দ্বারা পরিচালিত হয় ( ইসলাম, কমিনিউজম, হিন্দুত্ব ইত্যাদি) তাহলে ধরে রাখুন গৃহযুদ্ধ আসন্ন। ঘরে আপনার আগুন লাগবেই। কেউ ঠেকাতে পারবে না।
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত