এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • দীমু | 182.69.177.187 | ১২ জুন ২০২৩ ০১:১২520374
  • ভারতে ইউনিফর্ম নোটিস পিরিয়ড না থাকাটা একটা বড় সমস্যা। ইপিএফও তে একাউন্ট থাকলেই সবার নোটিস এক হওয়া উচিত। আর নন-পোচিং এগ্ৰিমেন্ট হয়ত কাগজে কলমে থাকলেও কাজের জায়গায় প্রয়োগ হতে দেখিনি , ওটা নিয়ে মনে হয় কোম্পানিরা তেমন মাথা ঘামায় না। 
  • Amit | 163.116.203.80 | ১২ জুন ২০২৩ ০৪:৫০520375
  • ইন্ডিয়ার কোম্পানি গুলোর আর একটা সমস্যা হলো ম্যানেজার এর  সংখ্যা অত্যধিক। বাইরের দেশে ম্যানেজমেন্ট স্ট্রাকচার অনেক লিন-সেই জন্যে রোল অনেক স্পেসিফিক। লোকে জানে তাকে কোন লেভেলে কি ডিসিশন নিতে হবে আর কোন লেভেলে ওপরে পাঠাতে হবে।  ম্যানেজার এর আসল কাজটা যে  নিজের নিজের লেভেলে ক্রিটিকাল  বা এনালিটিক্যাল ডিসিশন মেকিং , মাইক্রো ম্যানেজমেন্ট নয় - সেটাই আদতে ইন্ডিয়ায় হতে দেখা যায়না। এখানে বেশির ভাগ ম্যানেজার এর রোল আসলে ওভারপেড পোস্ট-বক্স ছাড়া কিচ্ছু নয়। ওপর থেকে নিচে মেসেজ চালাচালি করে দেখানো যে আমিও আছি - ব্যাস। আর অদরকারি মাইক্রো-ম্যানেজমেন্ট। অবশ্য শুধু ​​​​​​​কর্পোরেট ​​​​​​​নয় , ইন্ডিয়ায় সবক্ষেত্রে ​​​​​​​এটাই ​​​​​​​দেখা ​​​​​​​যায়। রাজনৈতিক দলগুলো ​​​​​​​যেমন। ছোট থেকে ছোট ডিসিশন ​​​​​​​ও সেই এক হাই কম্যান্ড ই ​​​​​​​নেয়। ​​​​​​​বাকিরা শুধু ​​​​​​​সেটার ​​​​​​​ঢাক ​​​​​​​বাজায়। 
     
    ম্যানেজার দের নিজের কাজ সম্মন্ধে টেকনিকাল ধারণা কম থাকায় আর সেটার জন্যে ইনফেরিওরিটি কমপ্লেক্স আর জব ইনসেক্যুরিটি থাকায় আরো বেশি করে এগ্রেশন দেখিয়ে সেগুলো ঢাকার চেষ্টা করে। আর বেড়াল যেমন নরম মাটি দেখলে আঁচড়ায় , তেমন ই সাবমিসিভ টীম মেম্বার্স দের ওপর আরো বেশি দেখায়। যারা সামনে পাল্টা গালাগাল দেয়, তাদের সাথে কিন্তু বেশি ডাইরেক্ট লাগতে সাহস করে না- তাদেরকে অন্যভাবে আড়ালে চুকলি কেটে পেছনে লাগার চেষ্টা করে। 
  • a | 14.2.35.150 | ১২ জুন ২০২৩ ০৭:৫০520377
  • অমিতবাবু, সেই সমস্যা এদেশেও আছে। কার্যকারণ সম্পর্কগুলো খুব আলাদাও নয়। 
     
    ভারতে পারিবারিক ব্যাব্সা বেশি - যাকে বলে লালা কম্পানি - আর ভারত কালচারাল স্কেলে টপ ড্রিভেন বাই নেচার। এই সব ব্যাভার তারই প্রতিফলন।
     
    যেটা হাস্যকর আর আশ্চর্যের যে এই জাতীয় কালচার খুব নতুন নয় বা অশ্রুতপূর্ব নয়। আর এটা শুধু পশ্চিমবঙ্গের সমস্যা নয়। আমি ২০০৯ সালে খুব কাছের বন্ধুদের কাছ থেকে এরকম বহু গল্প শুনেছি, বেঙ্গালুরুতে। আর এটা কমন নলেজ যে সেই অবস্থা ক্রমশ খারাপ i হয়েছে যেমন যেমন প্রতিযোগিতা আর টার্গেট বেড়েছে। 
  • Amit | 163.116.203.80 | ১২ জুন ২০২৩ ০৭:৫৮520378
  • হ্যা - ওভারঅল ইন্ডিয়া ম্যানেজমেন্ট কালচার র কথাই বলছিলাম । এইটা শুধু পব র সমস্যা নয়। 
  • যোষিতা | ১২ জুন ২০২৩ ০৯:৩৭520379
  • কোলকাতার আইটি সেক্টরে কিন্তু অনেকেই এই টক্সিসিটিতে বেশ তৃপ্ত। তাদের এরকমই ভাল লাগে। সারাদিন সারাসন্ধে কন্টিনিউয়াসলি কাজ করে যায়। সবাই ম্যানেজার। কে কাকে ম্যানেজ করছে বোঝা দায়।
  • এক্স-ব্যাঙ্কার | 2601:5c0:c280:d900:7c4a:94a6:8046:4bfa | ১২ জুন ২০২৩ ১০:৩৬520381
  • খুব ভালো লিখেছো। একদম অন পয়েন্টঃ 
     
    > "ভারতে কর্পোরেট লিডারদের অধিকাংশই বাকসর্বস্ব ও বাচাল স্বভাবের।"

    আমার সামান্য কর্পোরেটে (ব্যাঙ্কে) কাজ করার অভিজ্ঞতা থেকে এইটা একেবারে হাড়ে-হাড়ে জানি। ঐ অত অ্যাগ্রেসিভ না হলে এই লাইনে একেবারে চূড়ান্ত অ্যাবিউজড হবো বুঝে জাস্ট ছেড়ে পালিয়েছিলাম। 
     
    আর একটু ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতাও যোগ করি যে কিছুদিন ব্যাঙ্কের চাকরির সময়েই সেলস ডিপার্ট্মেন্টে রোটেশনের সূত্রে দিল্লীতে একটা কল সেন্টারে একমাস যেতাম প্রায় রোজ। আমাকে কেন খামখা সেলসে পাঠানো হয়েছিল সে অবশ্য জানি না, আমার কাজ বলতে দেখা কোথায় কি হচ্ছে - কোনোভাবে কিছু উন্নতি করা যায় কি না, টার্ন-অ্যারাউণ্ড ইত্যাদি। তা সেখানে যা জঘন্য গালিগালাজ আর অত্যাচার দেখেছি যা বলে বোঝানোর নয়। 
     
    একটা হলঘরে সারি-সারি প্লাস্টিকের চেয়ার-টেবিল আর ল্যাণ্ডলাইন রাখা পাশাপাশি - তা প্রায় জনা তিরিশেক কল-সেন্টারের কর্মী - অধিকাংশ মহিলা*। ঢোকার মুখে একটা খুপরিতে চাবুক-হস্ত ম্যানেজার মদন (সত্যিকারের নাম) আর ঘরের বাইরে ছাদের উপর পাশাপাশি একটা জলের জায়গা আর দুটো বাথরুম। সকাল-সকাল ভোডাফোন বা অন্যান্য জুয়েলারী বা বড়ো ব্যবসা থেকে কাস্টমারদের ফোন-নাম্বারের লিস্ট আসে, সবার হাতে একটা একটা করে ধরানো হয়। যাদের নাম্বার তারা অবভিয়াসলি জানেন না যে নাম্বারের লিস্ট ব্যাঙ্কের কাছে বেচা হয়। এবার এই কল-সেন্টারের কর্মীদের কাজ সারাদিন এই-ওই লিস্ট দেখে লাগাতার পোটেনশিয়াল কাস্টমারদের ফোন করো আর অকথ্য গালাগালি খাও (দিল্লীর, বিশেষ করে ঐ গুরগাঁওএর দিকের লোকের তো ব্যাভার-ই আলাদা, সে মানে ফোন ধরেই বলে বেঞ্চো নাম্বার কেইসে মিলা?), আর তারপর টার্গেট না মিটলে ছুটকো ম্যানেজারের খিস্তি আর চাকরি-কাট। যা হোক করে মাসে তিরিশটা কার্ড না বেচলেই চাক্রি-নট। রোজ-ই দেখতাম পাশের বাচ্চা ছেলেমেয়েগুলো কার্ড অ্যাপ্লিকেশন বেচার আশায় যা পারে তাই মিথ্যে বলেই চলেছে আর রোজ, রোজ ডেস্কে মাথা গুঁজে কাঁদছে। কেউ কেউ ফোনেই কেঁদে ফেলে। ঐ হেল-হোল থেকে পালানোর কোনো উপায় দেখিনি। 

    সে অবশ্য ২০০৮ সাল। এখন কি অবস্থা কে জানে? এর থেকে খারাপ বই ভালো বলে তো মনে হয় না।
  • amitkumar pal | ২২ জুন ২০২৩ ২৩:১১520646
  • একদম। দীর্ঘ ৩০ বছর ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের তাপবিদ্যুৎ প্রকল্পে কাজ করার জন্যে দেখেছি যে যত নিচের কর্মচারিদের গালাগালি করতে পারবে সে তত তাড়াতাড়ি উপরে উঠবে। তাকে ভালো ম্যানেজার বলে স্বীকার করা হয়।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। না ঘাবড়ে মতামত দিন