ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • শান্তনীড় রহস্য - ৭ 

    Anjan Banerjee লেখকের গ্রাহক হোন
    ২৬ এপ্রিল ২০২২ | ৩৪৩ বার পঠিত | রেটিং ৫ (১ জন)
  • সকাল আটটা নাগাদ টয়লেট থেকে বেরিয়ে একেবারে তৈরি হয়ে ব্রেকফাস্ট করতে বসল। 

    রাধাদি দারুন ফ্রেঞ্চটোস্ট বানিয়েছে । সঙ্গে গরম কফি । খেতে খেতে আবেশে চোখ বুজে আসছিল কলতানের । কুলচা কাল বাড়ি চলে গেছে। যাবার সময়ে বলে গেল, ' কেসে তেমন টুইস্ট এলে খবর দিও কিন্তু বস ..... এখন আসছি .... বা..য় ... ' ।  
    বৈশাখী মজুমদারের মোবাইল নম্বরটা সাইবার সেলের অনিন্দ্য হাজরাকে ফরোয়ার্ড করেছে। এই নম্বরে অবাঞ্ছিত মেসেজগুলোর প্রেরকের 
    মোবাইল লোকেশান জানাটা জরুরী কলতানের।  তারপর  ব্যাপারটা নিয়ে এগোতে পারবে সে ।  কাল দুপুরেই কাজটা সেরে রেখেছে । এখনও অনিন্দ্যর কাছ থেকে কোন খবর আসেনি । অনিন্দ্যর সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল বছর পাঁচেক আগে বৈষ্ণবঘাটায় একটা খুনের মামলার তদন্তের ব্যাপারে। ওখানেও মোবাইল কল ট্র্যাক করার দরকার হয়েছিল।  সরকারি দপ্তরে কাজ করলেও অনিন্দ্য কলতানকে ব্যক্তিগত ব্যাপারে
    প্রয়োজন হলেই সাহায্য করে প্রযুক্তিগত সমস্যায় । ক'বছরে দুজনের ঘনিষ্টতা যথেষ্ট বেড়েছে । দরকার হলেই অনিন্দ্যর সাহায্য পায় কলতান । 
    তবে এখন সোদপুরে শান্তনীড় আবাসনে যাবার জন্য তৈরি হচ্ছে কলতান । ভদ্রমহিলা খুব উদ্বেগের মধ্যে আছেন। লোকটাকে দেখার দরকার । ফ্রেঞ্চ টোস্ট শেষ করে কফির কাপে চুমুক দিল কলতান। ঠিক সেইসময়ে মোবাইল বেজে উঠল। 
    ------- ' আরে..... মিস্টার বক্সী..... গুড মর্নিং । কি খবর বলুন । এত সকালে তো আপনি ফোন করেন না । কেমন আছেন বলুন ।' 
    ------- ' আছি একরকম । তুমি ভাল আছ তো ? তোমার কাজকর্ম ঠিকঠাক চলছে তো ।'
    ------- ' এখন পর্যন্ত ..... '  কলতান একটু হেসে বলে ,  ' ...... এই কাজের ব্যাপারেই একটু বেরোব এখন । একটা ছোট কেস আছে ।'
    ----- ' ও আচ্ছা ..... ভাল ভাল । তোমার ওপর আমার প্রচুর ফেথ আছে । তুমি আমার অর্গানাইজেশনকে   অনেক সাপোর্ট দিয়েছ ক'বছর ধরে । আই ওয় এ লট টু ইউ ..... '
    ----- ' বিকাশদা ..... প্লিজ ও কথা বলবেন না .... বরং আমিই গ্রেটফুল আপনার কাছে নানারকম কাজের সুযোগ পাবার জন্য । আমার এক্সপিরিয়েন্স প্রচুর বেড়েছে কাজগুলোতে ইনভলভড্ হয়ে ।'
    ------ ' শুনে ভাল লাগল কলতান । এসব রেকগনিশান তো এখন অবসোলিট হয়ে গেছে।তা আজকের অ্যসাইনমেন্টটা কোন জায়গায় ?'
    ----- ' সোদপুরে '
    ---- ' সোদপুরে ? '
    ------ ' হ্যা.... শান্তনীড় আবাসনে । '
    ------ ' কি বললে .... সোদপুরে শান্তনীড় আবাসন ! '
    ----- ' এক্ষুণি বেরোব আমি বিকাশদা .... '
    ----- ' ওখানে কাল রাত্রে একটা মার্ডার হয়েছে জান কি ?'
    ----- ' তাই নাকি ! এটা তো খবর পাইনি .... কনফার্মড ইনফর্মেশান তো বিকাশ দা ? '
    ------ ' হান্ড্রেড পার্সেন্ট কনফার্মড ..... সোদপুর শান্তনীড়-এ আমার একটা ফ্ল্যাট আছে .... ওই ফ্ল্যাটে এখন থাকছে ..... '
    এইখানে কলড্রপ হল ..... লাইন কেটে গেল । বিকাশ বক্সীর পুরো কথাটা শোনা হল না । কলতান ভাবছিল কি করবে । এক মিনিটের মধ্যেই বিকাশবাবু আবার ফোন করলেন।
     ------ ' হ্যা .... হ্যালো  কলতান .... লাইনটা কেটে গেল । তোমার সময় নষ্ট করব না ...... তুমি এখন বেরোচ্ছ। যেটা বলছিলাম ...... শান্তনীড়ে আমার ফ্ল্যাটটায় এখন সুনু , মানে সুনন্দ আছে।ওখানে যাচ্ছ যখন , ওর খবরটা নিয়ে নিও তো। 
    ফ্ল্যাট নাম্বার ডি ফোর । সেকেন্ড ফ্লোর। আমি খুব চিন্তায় থাকি ওকে নিয়ে। পুরো নর্মাল তো নয় । কখন কি করে .....
    ------- ' ও আচ্ছা ..... সুনন্দ এখন ওখানে আছে? আমার একটা হাঞ্চ হচ্ছিল । যাক একটা ক্লু পাওয়া গেল । ' কলতান বলে।
    ------ ' কিসের ক্লু ?'
    ------ ' ও কিছু না বিকাশদা .... ডোন্ট ওয়ারি ... আমি দেখে নেব'খন ..... ওখানে যাচ্ছি যখন ।'
        কলতানের মাথায় তখন শান্তনীড়-এ খুনের খবরটা ঘুরছে । ভাবল, ওখানে স্পটে গেলে লোকাল থানার ওসির সঙ্গে দেখা হতে পারে। যতদূর মনে পড়ছে সমীরণ ঘোষ এখন লোকাল থানার দায়িত্বে আছে। পঞ্চান্নর ওপর বয়স। হেয়ার স্ট্রীট থানায় থাকার সময় পরিচয় হয়েছিল। একটু গা বাঁচিয়ে চলার প্রবণতা আছে । ঝুট ঝামেলা ততটা সম্ভব এড়িয়ে চলতে চায়। বিশেষ করে মার্ডার কেসে একেবারেই ঢুকতে চায় না। এসব কারণেই বোধহয়  বারবার ট্রান্সফার হতে হয়েছে চাকুরী জীবনে । হেয়ার স্ট্রীট থানায় থাকাকালীন 
    একটা জটিল পারিবারিক গন্ডগোল  সমীরণবাবু সমাধান করতে পেরেছিলেন বকলমে কলতানের সাহায্য নিয়ে এবং সরকারিভাবে সম্পূর্ণ কৃতিত্বটা তিনিই পেয়েছিলেন । জনান্তিকে অবশ্য কলতানের কাছে কৃতজ্ঞতা জানাতে কার্পণ্য করেননি সমীরণ ।  মামলাটায় কলতানের আর্থিক প্রাপ্তি কিছু হয়নি ঠিকই , তবে সমীরণবাবুর আন্তরিক 
    বিশ্বস্ততা অর্জন করতে পেরেছিল । সমীরণ ঘোষ শান্তনীড়ে ডিউটিতে থাকলে খুনের ঘটনাটায় তার জড়িত হবার অসুবিধে হওয়ার কথা নয় । এটা তো কলতানের শুধু পেশা নয়, নেশাও বটে।  
        
         কলতান বাইক নিয়ে আবাসনের গেট দিয়ে ভিতরে ঢুকে পড়ল ।  ঢোকার পর বিকাশ বক্সীর থেকে পাওয়া খবরটা একদম ঠিক বলেই মনে হল । ছড়িয়ে ছিটিয়ে অনেক লোক চাক বেঁধে দাঁড়িয়ে আছে । পুলিশের  সংখ্যাও কিছু কম নেই ।  
    কলতান দেখতে পেল প্রায় পঞ্চাশ মিটার দূরে বিল্ডিং-এর বাঁ পাশে আট দশজন পুলিশ দাঁড়িয়ে আছে । কোন লোককে কাছে ঘেঁষতে দেওয়া হচ্ছে না । একটুখানি এগোবার চেষ্টা করতে একজন বলল , ' ওদিকে যাবেন না দাদা ...... পুলিশ প্যাদাবে কিন্তু ..... '
    কলতান তটস্থ ভঙ্গীতে বলল, ' ও ..... সরি ....সরি । ওখানে কি হয়েছে ভাই ? '
    ------ ' আরে ... আর বলেন কেন ..... মার্ডার হয়েছে কাল রাত্তিরে .... '
    ------ ' সেকি ..... মার্ডার ! ! বলেন কি ! ' কলতান আঁতকে ওঠার ভঙ্গী করল ।  
    ------ ' তবে আর বলছি কি । মোস্ট প্রোব্যাবলি
    কাল রাত্তিরে ....... ওই ঈশানলাল না কি যেন নাম ..... বিল্ডিং-এর কন্ট্রাকটার ..... বহুৎ ইয়ে লোক ছিল । ওই ডোবাটার পাশে বডি পড়ে ছিল .... '
    ------- ' তাই  নাকি ?...... কি সাঙ্ঘাতিক ! '     
    কলতান দূর থেকে নজর করে দেখল ওখানে আগাছায় ঘেরা একটা ছোট ডোবা মতো দেখা যাচ্ছে ।

         এখন নিজের গরজেই কলতানের জানার দরকার ওখানে বডির সুরতহাল হয়েছে কিনা এবং হলে কোন অফিসারের অধীনে হয়েছে।
    তবে এত দ্রুতগতিতে পুলিশের কাজ সাধারণতঃ হয় না । তার জানার দরকার সমীরণ ঘোষ মশাই এ এলাকার চার্জে আছে কিনা । থাকলে সে এই তদন্তে দক্ষতা প্রমাণের
    সুযোগ একটা পেতে পারে ।  কারণ পুলিশ বিভাগের কাজে তো আর সরকারি অনুমোদন ছাড়া সে নিযুক্ত হতে পারে না ।   
    কলতান ভোলেনি এখানে সে আসলে কোন কাজে এসেছে। তাকে প্রথমে যেতে হবে 
    সেকেন্ড ফ্লোরে ডি থ্রি-তে । তার সামনেই ডি ফোর এবং সুনন্দ ওরফে সুনু ।
     ঘরে এখন সোলাঙ্কি একা আছে। তবেই তো এই সময়ে কলতানকে সময় দিয়েছে। প্রণবেশের আজ সকাল সাড়ে আটটা থেকে ডিউটি। তান স্কুলে চলে গেছে ।
    কলতান বলল, ' এই সামনের ফ্ল্যাটটা তো ? ডি ফোর .... ভদ্রলোক তো এখন নেই দেখছি .... ঘর লক করা রয়েছে বাইরে থেকে । '
    ----- ' হুঁ ...... তাই তো । কাল সারাদিন সারারাত ঘরে ছিল। দুপুরবেলা বারবার ঘর থেকে বেরিয়ে এসে এদিকে তাকাচ্ছিল ।'
    ------ ' হমম্ ...... কাল রাত্রে এখানে একটা খুন হয়েছে জানেন কি ? '
    ----- ' শুনলাম....  ।  এই বিল্ডিং- এর বিল্ডার বোধহয় । '
    ------ ' বা : .... আপনার ঘরে তো সুন্দর চন্দনের গন্ধ । অপূর্ব ! ঘরে খুব দামী ইমপোর্টেড কোয়ালিটির স্যান্ডালউড রেখেছেন নিশ্চয়ই ।'
    ----- ' হ্যা .... আমার দিদি দিয়েছে আমাকে ।:
    ----- ' আচ্ছা আচ্ছা .....  খুব ভাল । আপনার ঘরের বাইরে কেউ দাঁড়ালেও মনে হয় তার গায়ে গন্ধ লেগে যাবে ।' 
    ----- ' হা: হা: হা: ..... তা যা বলেছেন ..... ' 
    ----- ' আচ্ছা ঠিক আছে .... আপনি রেস্ট নিন । আমি একটু নীচে যাচ্ছি .... ভয় নেই , আমি আজ সারাদিন এখানেই আছি ।' 
    ------ ' আচ্ছা  .... ধন্যবাদ '
    কলতান সিঁড়ি দিয়ে তরতর করে নীচে নেমে গেল । ছড়িয়ে ছিটিয়ে লোকজন এখনও দাঁড়িয়ে আছে । কলতান দেখল একপাশে একটা অস্থায়ী মাটির ঢিপির ধারে  জড়সড় হয়ে দাঁড়িয়ে আছে এক মহিলা এবং একটি ছোট ছেলে । দুজনেরই চোখেমুখে ভয়ার্ত এবং উদভ্রান্ত দৃষ্টি। ছেলেটা মহিলাকে আঁকড়ে ধরে দাঁড়িয়ে ছিল । গোয়েন্দা কলতান গুপ্ত ওদের দিকে তাকিয়ে রইল । নানা চিন্তার ফুলকি উঠতে লাগল মাথার ভিতর ।
    ( ক্রমশঃ )
    ******************************************.................................................................
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Ranjan Roy | ২৬ এপ্রিল ২০২২ ১৩:৪৫506916
  • পড়ছি।
  • Mousumi Banerjee | ২৬ এপ্রিল ২০২২ ২১:০৮506931
  • পরের পর্বের অপেক্ষায়
  • Anjan Banerjee | ২৭ এপ্রিল ২০২২ ০৮:৪০506946
  • অনেক ধন্যবাদ । সঙ্গে থাকুন ।
  • মুক্তি গোস্বামী | 2402:3a80:1963:c4a7:278:5634:1232:5476 | ২৭ এপ্রিল ২০২২ ১৯:৩৪506961
  • বেশ কৌতূহলের উদ্রেক হয়েছে
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। না ঘাবড়ে প্রতিক্রিয়া দিন