এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  বিতর্ক

  • উপনিবেশ, আর্যতত্ত্ব এবং কেশব সেনের ব্রাহ্মসমাজ (২)

    বিশ্বেন্দু নন্দ
    বিতর্ক | ১৮ মার্চ ২০২২ | ১১২৩ বার পঠিত | রেটিং ৪.৫ (৪ জন)

  • উনবিংশ শতকে ইওরোপের বিজ্ঞান বিশ্ব

    উনবিংশ শতকে ইওরোপের বিজ্ঞান বিশ্বে বদল আসছে। বিশ্বায়িত সাম্রাজ্যে কর্পোরেট পুঁজির স্বার্থ নিয়ন্ত্রণ এবং বিশ্বজুড়ে কেন্দ্রীভূত উৎপাদন ব্যবস্থার শেকড় চারানোর জন্যে বিজ্ঞানের তত্ত্বে পরিবর্তন আসতে শুরু করলে চিরাচরিত খ্রিস্টিয় ধারণার সঙ্গে নতুন কেন্দ্রীভূত বিজ্ঞান ব্যবস্থার দ্বন্দ্ব লাগল। চার্লস লায়েল (Charles Lyell) ১৮৩০-এ আনলেন প্রিন্সিপলস অব জিওলজি তত্ত্ব। ১৮৫৯-এ এল চার্লস ডারউইনের The Origin of Species। ১৮৫৩-য় ফরাসি অভিজাত আর্থার গোবিন্যু (Arthur de Gobineau) ফ্রান্স-জার্মানিতে প্রকাশ করলেন ‘An Essay on the Inequality of the Human Races’। একের পর এক বক্তৃতায় তিনি বললেন, বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন রঙের মানুষের বিকাশ ঘটেছে। এই Polygenism তত্ত্ব আর্যতত্ত্ব বিকাশে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেবে। বৈজ্ঞানিক জাতিবাদের ‘বিজ্ঞান’ভিত্তিক সময়ের সূচনা ঘটল আর্থার গোবিন্যুর তত্ত্ব অবলম্বনে। এর কয়েক দশক আগে ১৮৩৯-এ আমেরিকায় স্যামুয়েল জর্জ মর্টন ‘ক্রানিয়া আমেরিকানা’ (Crania Americana; Or, A Comparative View of the Skulls of Various Aboriginal Nations of North and South America: To which is Prefixed an Essay on the Varieties of the Human Species) প্রকাশ করে ‘বৈজ্ঞানিক জাতিবাদ’-এর সূচনা করেছেন। তিনি বললেন, জাতির মাথার খুলির মাপে তার সমাজের সামগ্রিক বুদ্ধিবৃত্তি বিচার করা যায়। তাঁর তত্ত্বের ওপর ভিত্তি করে ১৮৬৩-তে লন্ডনে অ্যান্থ্রোপলজিক্যাল সোসাইটির জন্ম। নানান জাতিবাদী, নৃতাত্ত্বিক তত্ত্ব সমাহারে ‘বৈজ্ঞানিকভাবে প্রমাণ’ করা হল – উচ্চ মাথা, উচ্চ কাঁধ, উচ্চ নাসা এবং ফর্সা ত্বকের নর্ডিকেরাই বিশ্বের একমাত্র বুদ্ধিমন্ত জাতি। এই সব ‘বৈজ্ঞানিক’ তত্ত্ব এশিয়া, আফ্রিকা, আমেরিকায় ইওরোপীয় প্রাধান্য এবং সাম্রাজ্য বিস্তার আর রক্ষায় হাতিয়ার হল। এ সবই আর্যতত্ত্বের ভিত্তি, ‘প্রমাণ’ হিসেবে পরিগণিত হবে।

    আর্যতত্ত্বের উদ্ভব ও বিকাশ

    ১৭৮৬-তে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি এবং এশিয়াটিক সোসাইটি অব বেঙ্গলের প্রতিষ্ঠাতা উইলিয়াম জোনস, সোসাইটির তৃতীয় বর্ষ উদযাপন সভায় বললেন, ‘The Sanskrit language, whatever be its antiquity, is of wonderful structure, more perfect than the Greek, more copious than the Latin, and more exquisitely refined than either, yet bearing to both of them stronger affinity both in the roots of verbs and in the forms of grammar than could have been produced by accident, so strong indeed, that no philologer could examine them all three, without believing them to have sprung from some common source, which perhaps no longer exists’। মাথায় রাখতে হবে, ম্যাক্সমুলারের মতই, তাঁরও সংস্কৃত শিক্ষা নিয়ে প্রশ্ন ওঠা দরকার। জোনসের সময়ের বহু আগে থেকে সংস্কৃত ভাষাকে ইওরোপীয় ভাষাতাত্ত্বিকেরা প্রাচীন ইন্দো-ইরানীয় ভাষা হিসেবে অভিহিত করেছিলেন। বেদ আবিষ্কৃত হয়েছে। মুঘল আমলে বেদ চর্চাও হয়েছে। জোনস তখনও সংস্কৃত ভাষায় শিক্ষানিবিশও নন, তিনি সংস্কৃতকে ইন্দো-ইরানীয় বর্গ থেকে সরিয়ে ইন্দো-ইওরোপীয় বর্গে স্থাপন করলেন।

    তার প্রায় ৮০ বছর পরে – সিপাহি যুদ্ধের চার বছর পর – ইংলন্ডে ১৮৬১-তে মুলার রয়াল ইন্সটিটিউশন ইন গ্রেট ব্রিটেনে এক বক্তৃতায় আর্য শব্দ উল্লেখ করে বললেন, ‘While examining its ramification, learn at the same time why that name was chosen by the agricultural nomads, the ancestors of the Aryan race’। এই বক্তৃতায় তিনি কৃষিজীবী যাযাবর আর্যদের বিষয়ে বলতে গিয়ে স্পষ্টভাবে ‘আর্য জাতি’ ছাড়াও ‘আর্য উপভাষা’, ‘আর্য ক্রিয়া’, ‘আর্য বুলি’ এবং ‘আর্য ভাষা’ শব্দবন্ধগুলোও ব্যবহার করেন। বক্তৃতায় মুলার বললেন, ‘And as in Persia we found many proper names in which Arya formed an important ingredient, so we find again in German history names such as Ariovistus’। মুলার পাদটীকায় বললেন, ব্যুৎপত্তিগতভাবে এই যোগ হয়তো প্রমাণ করা যাবে না, কিন্তু এই বক্তব্যটি পাদটীকা হিসেবেই আজও গণ্য হয়, মূল আলোচনায় আসে না। আর্যতত্ত্ব শেকড় গজাতে শুরু করল।

    রোমান্টিক জাতীয়তাবাদ

    ইওরোপে লুঠেরা শিল্পায়ন আর বৈজ্ঞানিক যুক্তিবাদের প্রতিক্রিয়ায় জার্মান কবি, প্রাচ্যবিদ, দার্শনিক উইলহ্যাম শ্লেগেল জার্মান জাতীয়তাবাদের পক্ষে দাঁড়িয়ে রোমান্টিক জাতীয়তাবাদ আন্দোলনের সূচনা করলেন। গ্রিম ভায়েরা লোককথা সংগ্রহ প্রকাশ করল। ১৮৩৬-এ গুস্তাফ ক্লেম হ্যান্ডবুক অব জার্মান অ্যান্টিকুইটিতে প্রাচীন ধ্রুপদী সাহিত্যের সঙ্গে জার্মানির কৃষ্টির মিল দেখালেন। শ্লেগেল আর্য মিথের সঙ্গে বহুকাল ধরে পরিচিত ছিলেন এবং তাঁর ‘On the Language and Wisdom of the Indians’ বইতে আর্য শব্দের শেকড় খুঁজলেন জুলিয়াস সিজারের কমেন্টস অন দ্য গলিক ওয়ার্স (Commentarii de Bello Gallico)-এ এবং বললেন, সেখানে উল্লিখিত আরিওভিস্টাস ছিলেন জার্মানজাত। তাঁর ধারণা হল, ‘আরিও’ (Ario) শব্দটা জার্মান ‘আহ্র’ (ehre) বা আর্য শব্দের সঙ্গে যুক্ত। Polygenism, ফিজিক্যাল অ্যান্থ্রোপলজিস্টদের প্রমাণ, রোমান্টিক জাতীয়তাবাদ আর ইওরোপীয় রাজনীতির ঘোরতর ককটেলে সিপাহি যুদ্ধের আগেই ইওরোপের সাম্রাজ্যবাদী মানসিকতায় আর্যতত্ত্ব থানা গেড়ে বসল।

    আর্যদের বাসস্থান

    আর্যদের ইতিহাস তো তৈরি হল, কিন্তু তার ভূগোল অর্থাৎ তাদের বাসস্থান কীভাবে নির্ধারণ হবে? নতুন সাম্রাজ্যবাদী জ্ঞানচর্চা নৃতত্ত্বের ‘বৈজ্ঞানিক প্রমাণ’ অনুসারে জার্মান, পশ্চিম রুশ আর স্ক্যান্ডিনেভিয় দেশ প্রাচীন আর্যজাতির বাসস্থান হওয়ার দাবি জানাল। তাতেও বিষয়টা জোরদার হয় না। কারণ এখানে ভারত কোথায়? ভারতের সাম্রাজ্যরক্ষা কোথায়? সাম্রাজ্য স্বার্থরক্ষায় মুলার তুললেন আগ্রাসন তত্ত্ব - ‘Two roads were open to the Aryans of Asia in their westward migrations’। অর্থাৎ, আর্যরা মধ্য এশিয়া থেকে ভারতবর্ষে যেমন অভিবাসিত হয়েছিলেন, তেমনি তারা পশ্চিমের দিকেও যাত্রা করেছিলেন। এর আরেকটা উপাপাদ্য তৈরি করে বলা হল, পশ্চিমের দিকে যে আগ্রাসন ঘটল – তার দু’টি শাখা হল; একটি গেল জার্মানিতে অন্যটি ব্রিটেনে। এই উপপাদ্যটি সেই সময়ের ইওরোপীয়, জার্মান এবং ব্রিটেনের সাম্রাজ্যরক্ষার রাজনীতিতে খাপে খাপ খেয়ে যায়। আগেই বলেছি, জার্মানেরা তখনও ইওরোপে দলিত, অথচ জার্মানজাত বিপুল কবি-সাহিত্যিক-দার্শনিক-রাজনৈতিক মুক্তি চান, প্রাচীনত্বের গর্ব চান। তাঁদের আহত সত্ত্বা ভারতবর্ষের পরাধীনতায় নিজেদের পরাধীন, ছন্নছাড়া অবস্থার মিল খুঁজে পায়। আহত জার্মানসত্ত্বা আর আর্যত্ব, আগামী ১০০ বছরে – শুধু ইওরোপ নয় – বিশ্ব রাজনীতির নির্ণায়ক তত্ত্ব হিসেবে উঠে আসবে। ইংলন্ড তো তখনই স্বাভাবিকভাবে বিশ্বরাজনীতির মোড়ল হয়ে উঠেছে। প্রত্যেকটি ইওরোপীয় সাম্রাজ্যবাদী রাষ্ট্রের ছেড়ে আসা উপনিবেশ কবজা করে সে বিশ্বের এক নম্বর রাজা।

    মাথায় রাখতে হবে, সে’ সময় দু’জন বিখ্যাততম জার্মান ইংলন্ডে অভিবাসিত হচ্ছেন, প্রথমজন ফ্রেড্রিক ম্যাক্সমুলার - যাঁর রাজনীতি আমরা আগেই আলোচনা করেছি; দ্বিতীয়জন কার্ল মার্ক্স। দু’জনই প্রথম জীবনে সাম্রাজ্যের কেন্দ্রে বসে ইওরোপীয় সাম্রাজ্যবাদকে মুক্তির পথ হিসেবে গণ্য করবেন। ১৮৫৩ থেকে মার্ক্স, আমেরিকার সংবাদপত্র নিউ ইয়র্ক ডেইলি ট্রিবিউনে আর্য তত্ত্বের স্বরে পতনশীল এশিয়ার ‘প্রাচ্যবাদী একনায়কতন্ত্র’ ব্যবস্থাপনার সমালোচক এবং ব্যাখ্যাকার হয়ে উঠবেন এবং স্বদেশীয় মূলারের স্বরেই বলবেন, ইওরোপীয় সাম্রাজ্য ভারতভূমির মূঢ়, অজ্ঞ, সভ্যতার ঐশ্বর্য না দেখা, শতাব্দের পর শতাব্দ অন্ধকারে ডুবে থাকা জনগণকে সামন্ততন্ত্রের বন্দিদশা থেকে মুক্তি দেবে। ভারতবর্ষের হারিয়ে যাওয়া ঐশ্বর্য ভারতকে ফিরিয়ে দিতে ইওরোপীয় সাম্রাজ্য বদ্ধপরিকর। দুই জার্মানের (এক জার্মানের হাতে প্রত্যক্ষ অন্য জার্মানের হাতে পরোক্ষ) হাত দিয়ে তৈরি হল ব্রিটিশ-প্রণোদিত আর্য রাজনীতির আন্তর্জাতিক ভিত।

    ঔপনিবেশিক বাংলা - ব্রাহ্মসমাজের উদ্ভব

    পলাশী-উত্তর সময়ে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের ছোট সঙ্গী হয়ে, ব্রিটিশ কোম্পানির গোমস্তা হিসেবে বাংলাজোড়া বিশিল্পায়ন রূপায়িত করে বর্ণময় দাদনি বণিক, দালাল এবং তাঁদের উত্তরাধিকারীরা যত লুঠের ধন সংগ্রহ করেছিলেন, সে সব সম্পদ চিৎপাতে দিলেন চিরস্থায়ী বন্দোবস্তে বিপুল অর্থ ব্যয় করে জমিদারি কিনে। এঁরা পলাশীর পর গোমস্তা পদ নিয়ে ব্রিটিশ কোম্পানির নির্দেশে একজোট হয়ে বাংলার চাষি-হকার-কারিগরদের বিশ্ববাজার এবং উৎপাদন ব্যবস্থা ধ্বংস করলেন। শান্তিপুরের তাঁতিসহ একের পর এক আড়ং-এর কারিগরেরা ব্রিটিশ আমলা-বাঙালি-গোমস্তাদের অত্যাচারের বিরুদ্ধে কোম্পানিকে বিফল ডেপুটেশন দিয়ে, নিজেদের কাজ থেকে উচ্ছেদ হয়ে চাষে চলে গেলেন। বিপুলসংখ্যক কাজ হারানো কারিগর দেশ ছেড়ে কুলি হয়ে চলে গেলেন দক্ষিণপূর্ব এশিয়া, ওয়েস্ট ইন্ডিজ, মরিশাস, আফ্রিকার নানান অঞ্চলে ইওরোপীয়দের বাগিচার দাস হয়ে। বিশিল্পায়নের নীতিতে ১৮২০-তে ঢাকা জনশূন্য হল। ইওরোপীয় শিল্পায়নের চক্করে নবজাগরিত বাঙালিদের চেষ্টায় বাংলায় ছোটলোকেদের কাজ গেল; বাংলার বিকেন্দ্রিত উৎপাদন ব্যবস্থার অন্যতম সাহারা পরম্পরার পাঠশালা ব্যবস্থা ইত্যাদি ধ্বংস হল। ব্রিটিশ উদ্যমে অমিয় কুমার বাগচি কথিত বাংলার ২৫ জিডিপিওয়ালা উৎপাদন কাঠামো ধ্বংসে, সম্পদ লুঠের কাজে এবং ইওরোপীয় কর্পোরেট কাঠামো তৈরির স্বার্থের ব্যাপৃত থেকে নবজাগরিত ভদ্রবিত্তরা উপহারস্বরূপ পেলেন খণ্ডিত জমিদারি, কর্পোরেট চাকরি, কোম্পানি দালালি আর সাহেবদের উমেদারির সুযোগসুবিধা। দাদনি বণিকদের উৎসাহে, দাদনি বণিকদের নবজাগরিত উত্তরাধিকারীদের প্রত্যক্ষ মদত নিয়ে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের পরিকল্পনায় ভারতভূমিতে শুরু হল বিশ্বের প্রথম ১৯০ বছরের স্ট্রাকচারাল অ্যাডজাস্টমেন্ট পলিসি।

    এই নীতির প্রথম কাজ হল উইলিয়াম জোনসের উদ্যমে ব্রাহ্মণ ভদ্রবিত্তের পুনর্বাসন। আরেকটি কম্পোনেন্ট ছিল মহিলাদের ক্ষমতা হ্রাস। স্ট্রাকচারাল অ্যাডজাস্টমেন্ট পলিসি রূপায়ণের দায়িত্ব পাওয়া শাসক হেস্টিংস, হ্যালহেদকে যে আইন প্রণয়ণের দায়িত্ব দিলেন তাতে স্পষ্টভাবে বলা হল — WHATEVER Woman be of a Disposition altogether malevolent, or wanting in female Modesty, or careless of her Property, or unchaste, such Woman is incapable of possessing what has been specified to be a Woman’s Property. হাস্যকরভাবে বিধবাদের ‘সতীত্ব’রক্ষা করার নিখাদ পুরুষতান্ত্রিক অছিলায়, সম্পত্তির ক্ষেত্রে মহিলাদের বঞ্চিত করার প্রথা শুরু হয়। হয়তো একই কারণে এই ঔপনিবেশিক আইনে সতীপ্রথার ওপর অভূতপূর্ব গুরুত্ব আরোপ করে লেখা হয়: ‘It is proper for a Woman, after her Husband’s Death, to burn herself in the Fire with his Corpse’ (দেবোত্তম চক্রবর্তী, বিদ্যাসাগর নির্মাণ বিনির্মাণ পুনর্নির্মাণ)। শাসক হেস্টিংস, বাংলা না জেনে বাংলা ব্যাকরণ রচনা করা প্রাচ্যবিদ হ্যালহেদ (যেমন সংস্কৃত প্রায় না জেনে ঋগ্বেদ অনুবাদ করা মুলার), বিচারক জোন্স এবং সিভিলিয়ান কোলব্রুক মহিলাদের সম্পত্তির অধিকার কেড়ে নিতে ব্রিটিশ-ভদ্রলোক যৌথ উদ্যোগে বাংলায় সতীদাহ উৎসব শুরু হল। বাংলার বিকেন্দ্রিত উৎপাদন ব্যবস্থার অন্যতম ঘটক মহিলাদের রোজগার কেড়ে, তাদের অধিকাংশের জমিদারির অধিকার কেড়ে, সতীদাহ করে সামাজিক ক্ষমতা নিশ্চিহ্ন করার কয়েক দশকের মধ্যে মসিহা সেজে সতীদের বাঁচাতে ঔপনিবেশিক শাসকদের উদ্যোগে রামমোহন রায় আসরে নামলেন। ক্রমশ উদ্যমী হয়ে ইংরেজি শিখে ইওরোপীয় সমাজে সুদে টাকা খাটিয়ে প্রাধান্য পেতে শুরু করলেন জমিদার পরিবারের সন্তান ‘ডিগবির দেওয়ান’ রামমোহন রায়। রামমোহনের সঙ্গে জুটলেন পৌত্তলিক শিষ্য দ্বারকানাথ ঠাকুর এবং তার পুত্র দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর। তাঁদের হাত দিয়েই গোড়াপত্তন হবে ব্রাহ্ম সমাজের। ইতিমধ্যে মিশনারিরা উপনিবেশের সহায়ক হয়ে উপনিবেশে ধর্ম প্রচারে বাংলায় আসতে শুরু করেছে। অষ্টাদশ শতাব্দের প্রথম দিকে কলকাতার বিখ্যাত কিছু পরিবারের সন্তানেরা খ্রিস্টধর্ম গ্রহণ করল।

    ব্রিটিশ সাম্রাজ্যে গড়ে ওঠা এজেন্সি হাউসগুলো ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির পক্ষ নিয়ে ইংরেজ বাণিজ্যবিশ্বে ব্যবসা চালাত। এদের ব্যবসার কর্মকাণ্ড নির্ভর করত এদেশে ব্যবসায়ী ইংরেজদের লাভের বিনিয়োগের ওপর। নীল ব্যবসাকালে এজেন্সি হাউসগুলো নীলকরদের ১০ শতাংশ হারে টাকা ধার দিত। ১৮২৩-এর সরকার নতুন ধার নীতি প্রণয়ন করায় নীলকরদের ধার পেতে বেশি সুবিধে হয়। এই নীতি বাংলার নীলচাষকে আরও কয়েক দফা এগিয়ে দেয়। ১৮২৪-এর ইঙ্গ-বর্মা যুদ্ধে সরকারের কোষাগারে টান ধরল। ইংলন্ডে বাংলার কাঁচামালের দাম দারুণভাবে পড়তে শুরু করায় দেশীয় নীল (ইংরেজদের) ব্যবসার ওপর চরম আঘাত নেমে আসে। ব্যবসায় মন্দা শুরু হয়। এজেন্সি হাউসের একটি বড় অংশ অর্থ নীলচাষে খাটছিল ১০ শতাংশ বাৎসরিক সুদে। এজেন্সিগুলোর অনেকেই বিনিয়োজিত অর্থ ফেরত দিতে পারছিল না। একের পর এক এজেন্সি হাউসে তালা ঝুলতে শুরু করে। নীলকরেরা বিপদ অনুভব করে সরকারের কাছে দাবি জানায়, দাদন নিয়ে যেসব চাষি নীল সরবরাহ করার শর্ত পূরণ করছে না, তাদের বিরুদ্ধে সরকারকে আইনি ব্যবস্থা নিতে হবে। নীলকরদের দাবি মেনে নেয় সরকার।

    আর্মহার্স্ট-এর ষষ্ঠ নিয়মে আসল সুদ-সমেত ফেরত পেতে নীলকরদের আইনের দ্বারস্থ হওয়ার অনুমতি মিলল। এতেও অত্যাচারী নীলকরদের মন ওঠে না। চাই আরও কড়া নতুন আইন। তারা আর দাদন দিতে চায় না। ভারতে জমি কিনতে চায় – যার নাম কলোনাইজেশন আন্দোলন। এই দাবিতে বহুদিন ধরেই আন্দোলন করছিল ব্রিটিশাররা। ১৮৩৩-এর সনদে ব্রিটিশ নাগরিকদের ভারতে জমি কেনার অধিকার দেওয়ার অনেক আগে থেকেই রামমোহন রায়, প্রসন্ন কুমার ঠাকুর, দ্বারকানাথ ঠাকুর প্রভৃতি বড় জমিদারদের একাংশ এই আন্দোলনের পক্ষে সওয়াল করছিলেন। যুক্তি ছিল, অবোধ, অসভ্য ভারতীয়রা সুসভ্য ইংরেজদের সংস্পর্শে এসে সভ্য হয়ে ওঠার সুযোগ পাবে, আর ব্যবসায়ী ইংরেজদের ব্যবসার দক্ষতার মাধ্যমে দেশের সম্পদ বৃদ্ধি হবে। অথচ ভারতীয় অধিকাংশ ছোট জমিদার এই দাবির বিরোধী। কলোনাইজেশন আন্দোলনের সফল হওয়ায় নব্য নবজাগরণী মহাতেজেদের প্রতিষ্ঠিত নতুন ধর্ম, উপনিবেশের শাসকদের কাছে অতিরিক্ত গুরুত্ব অর্জন করে।

    নেপোলিয়নের পতনের পর ইওরোপের বাইরে থাকা প্রায় প্রত্যেকটি মহাদেশের বড় অংশ ইংরেজদের পদতলে। ১৭৮০-তেই ইউনিটেরিয়ানদের এডাম স্মিথ ওয়েল্থ অব নেশন-এ মুক্ত বাণিজ্যে ডাক দিচ্ছেন। ইংরেজদের অবাধ বাণিজ্যের অর্থ অন্তত বাঙালিরা জেনে গিয়েছে পলাশির উত্তর ক্লাইভ-হেস্টিংস-কর্নওয়ালিস-এর স্বেচ্ছাচারী লুঠেরা যুগলবন্দিতে। পুরোনো অভিজ্ঞতা নয়, মাত্র সাত দশকও পেরোয়নি। অথচ ইউনিটেরিয়ান রামমোহন-দ্বারকানাথ এদেশে ব্রিটিশারদের বাণিজ্যর জন্য প্রয়োজনীয় জমি কেনার অধিকার দাবির পাশে দাঁড়ালেন। ইংলন্ডে ইউনিটেরিয়ানদের প্রভাব যথেষ্ট ছিল। নতুন শিল্পমালিকদের সামনে ভারতীয় উপনিবেশের ধংস হওয়া বাজারের হাতছানিই মুক্ত বাণিজ্য। ১৮৩২-র নতুন সংস্কার আইন আর ১৮৩৩-র সনদ কোম্পানির একচেটিয়া বাণিজ্যের বিরুদ্ধে ইউনিটেরিয়ানদের সবথেকে বড় জয়। ভারতে নীলকরেরা সরাসরি জমি কেনার অধিকার পেল। ইওরোপীয় ব্যবসায়ীদের নানান ছুতোয় সাহায্য করা রামমোহন, দ্বারকানাথ আর দেবেন্দ্রনাথের চেষ্টায় ব্রাহ্মধর্ম ক্রমশ কলকাতাস্থ অভিজাত ভদ্রলোকদের আকর্ষণ করতে থাকে।

    ইংরেজ-প্রভুর পৃষ্ঠপোষকতা পেলে উপনিবেশে এক সাধারণ ভদ্রবিত্তের কোন পর্যায়ে উত্থান ঘটতে পারে – তার প্রত্যক্ষ উদাহরণ ব্রাহ্ম নেতা কেশবচন্দ্র সেনের পূর্বজ রামকমল সেন। রামকমল সেন ১৮০০ থেকে তিন বছর কলকাতার চিফ ম্যাজিস্ট্রেট নেমির অধীন করনিক হিসেবে জীবন শুরু করেন। ১৮০৪ থেকে উইলিয়ম হান্টারের হিন্দুস্থানি প্রিন্টিং প্রেসে কম্পোজিটর, ১৮১১-তে পরিচালক। এশিয়াটিক সোসাইটি (কলকাতা) ও সংস্কৃত কলেজের হিসাবরক্ষক ছিলেন। পাণ্ডিত্যের স্বীকৃতিস্বরূপ পরে এশিয়াটিক সোসাইটির সেক্রেটারি, সংস্কৃত কলেজের সেক্রেটারি এবং সুপারিনটেন্ডেন্ট হন। ১৮২১-এ রামকমল হিন্দু কলেজের অধ্যক্ষ পদ লাভ করে এশিয়াটিক সোসাইটির উইলসনের অভয়হস্ত মাথায় নিয়ে প্রথমে ১৮২৮-এ টাঁকশালের দেওয়ান এবং পরে ১৮৩২-এ বেঙ্গল ব্যাংকের দেওয়ান নিযুক্ত হন। ১৮৩৮-তে তিনি ‘জমিদার সভা’ প্রতিষ্ঠা করেন এবং সভাপতি নিযুক্ত হন।

    রামকমল যখন কলকাতার শাসক কেষ্টুবিষ্টুদের সঙ্গে দিনরাত ওঠাবসা করছেন, সেই সময় ১৮৩০-এর অগাস্টের গোড়ার দিকে কলকাতায় পাদ্রি হিলের প্রথম বক্তৃতা। বক্তা একে প্রণম্য ইওরোপীয় পাদ্রি, তায় বক্তৃতার বিষয় রাজার ধর্ম, [কলকাতার] হিন্দু সমাজের পাঁজর পর্যন্ত কেঁপে উঠল। কলকাতার সমাজ কাঁপল ইয়ং বেঙ্গলিদের নতুন খাদ্যাভ্যাসে। রায়বাহাদুর প্রমথনাথ মল্লিক, কলিকাতার কথায় লিখছেন,
    ‘... হিন্দু কলেজের ছেলেরা হেনরী ভিভিয়ান ডিরোজিও এবং হেয়ার সাহেবের শিক্ষায় প্রকাশ্যভাবে অখাদ্য খাইতে আরম্ভ করিয়াছিল ও হিন্দুধর্মের প্রতি অনাস্থা দেখাইতে লাগিল। মহেশচন্দ্র ঘোষ ও কৃষ্ণ[মোহন] বন্দ্যোপাধ্যায় খৃষ্টান হইল। রামমোহন ব্রাহ্মধর্ম (তখনও ধর্ম হয়নি) প্রচার করিলেন। সমাজে ও কলিকাতার হিন্দুধর্ম গেল গেল রব পড়িয়া গেল। রামকমল সেন হিন্দু কলেজ হইতে উক্ত ডিরোজিওকে ছাড়াইতে গেলেন, কিন্তু উইলসন, হেয়ার ও শ্রীকৃষ্ণ সিংহের (কালীপ্রসন্ন সিংহের পিতামহ) জন্য তাহা পারিলেন না। উক্ত সেনকে মিন্টের ও ব্যাঙ্কের দেওয়ান করিয়া কোম্পানি বশ করিয়া ফেলিল। ডিরোজিও নিজে ইহাদের ধন্যবাদ দিয়া চাকরি ছাড়িয়া দিলেন। ... ডিরোজিওর ছাত্রেরা সকলেই কোম্পানির বড় চাকরীয়া ডিপুটি কলেক্টর হইল’।
    সেন পরিবারের হরিমোহন সেন, কেশব সেন, মাধব সেন প্রভৃতি বাংলার ভাগ্যাকাশে বহুদিন রাজত্ব করেছেন। বিশ্বম্ভর সেনও ২০টি কুঠির বেনিয়ান হন আর মৃত্যুর পর ২ লক্ষ পাউন্ড সম্পত্তি রেখে যান। রামকমল সেনের উদ্যম এবং কোম্পানির পৃষ্ঠপোষকতা সঙ্গে নিয়ে কেশব সেন ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অন্যতম দেশীয় খুঁটি হিসেবে পরিগণিত হবেন।

    ব্রাহ্মসমাজের প্রত্যেকটি ভাগই ছিল ব্রিটিশ পৃষ্ঠপোষক, ইংরেজি-শিক্ষিত, ধনী, অভিজাতদের সংগঠন। সংগঠনের একেশ্বরবাদের সঙ্গে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের ধার্মিকভিত্তি একেশ্বরবাদের তত্ত্ব মিলে যাওয়ায় ব্রাহ্মসমাজের সদস্যদের উপনিবেশের প্রত্যক্ষ সাহায্য পাওয়া তুলনামূলকভাবে সহজ হয়ে যায়। ব্রাহ্মসমাজ অসম, বম্বে (আধুনিককালের মহারাষ্ট্র আর গুজরাট), মাদ্রাজ, হায়দারাবাদ, পাঞ্জাব ইত্যাদি অঞ্চলে শাখা বিস্তার করতে থাকে।

    ব্রাহ্ম সমাজের আরেক স্তম্ভ – কোম্পানি-বন্ধু, আফিম ব্যবসায়ী, নীলকর, মদ্য উৎপাদক, বেশ্যা ব্যবসা চালানো পরিবারের কর্তা দ্বারকানাথ ঠাকুরের উত্তরপুরুষ দেবেন্দ্রনাথের তত্ত্ববোধিনী সভা ব্রাহ্মসমাজের প্রচারে সহায়ক হয়। তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা, নতুন ধর্মবিশ্বাস প্রচারের সঙ্গে সঙ্গে সামাজিক সংস্কার সাধনের পক্ষেও জনমত গড়ে তোলে। এ সময়ে হিন্দুধর্মের বিপক্ষে খ্রিস্টান মিশনারিরা আক্রমণ চালাচ্ছিল। ব্রাহ্মসমাজের আমূল সংস্কারের সমর্থকেরা বেদের অভ্রান্ততা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেন। এঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিলেন অক্ষয়কুমার দত্ত।

    অক্ষয়কুমারের সময় পর্যন্ত বেদের অভ্রান্ততা ব্রাহ্মধর্মীয় বিশ্বাসের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে বিবেচিত হত। ১৮৪৭-এর দিকে ব্রাহ্ম নেতৃবৃন্দের একাংশ বেদের অভ্রান্ততায় বিশ্বাস হারিয়ে ফেলে। একেশ্বরবাদী ধারণা সংবলিত উপনিষদের নির্বাচিত অংশসমূহের ওপর ভিত্তি করে ব্রাহ্ম ধর্মবিশ্বাস পুনর্নিমাণের প্রচেষ্টা নেওয়া হয়। ব্রাহ্মসমাজের সংশোধিত মতবাদটি ১৮৫০-এ ‘ব্রাহ্ম ধর্ম’ অথবা ‘এক সত্য ঈশ্বরের পূজারীদের ধর্ম’ নামে চিহ্নিত হয়। সিপাহি যুদ্ধের পরের ভারতবর্ষের রাষ্ট্রীয়করণের বছরে (১৮৫৮) রামকমল সেনের পুত্র তরুণ কেশবচন্দ্র সেন ব্রাহ্ম সমাজে যোগ দিলে একেশ্বরবাদী আন্দোলন জোর পায়। তিনি দেবেন্দ্রনাথের সামাজিক রক্ষণশীলতার প্রশ্নে একমত না হয়ে ‘ভারতবর্ষীয় ব্রাহ্মসমাজ’ (১৮৬৬) গঠন করেন। দেবেন্দ্রনাথের নেতৃত্বে ব্রাহ্মসমাজ ‘আদি ব্রাহ্মসমাজ’ নামে পরিচিতি লাভ করে।

    একদিকে ব্রিটিশ সাম্রাজ্য – লুঠ, খুন, অত্যাচার চালাতে, গ্রামাঞ্চলে বিদ্রোহ দমন করতে কর্তৃত্বপূর্ণ প্রভাবশালী সাম্রাজ্য-সঙ্গী প্রয়োজন ছিল; একইভাবে খ্রিস্টিয় মিশনারিরা উপনিবেশের মানুষদের ব্যবহার করে খ্রিস্টধর্মের প্রাধান্য প্রচার করতে চরম উৎসাহী। মাথায় রাখতে হবে প্রথমদিকে ব্রাহ্মসমাজ, পরে ব্রাহ্মধর্ম ইওরোপীয় প্রগতিশীলতা এবং মিশনারিদের তাত্ত্বিক অবস্থান থেকে খুব দূরে যে ছিল না, সেটা আমরা আগেই দেখেছি ম্যাক্সমুলারের ব্রাহ্মদের চার্চ অব ইংলন্ডের সদস্যপদ নেওয়ার আহ্বান থেকে। তিন স্বার্থ গোষ্ঠী – শাসক, শাসকদের কোলাবরেটর ভারতবর্ষ লুঠের সম্পদে প্রতিপালিত উপমহাদেশীয় ভদ্রবিত্ত এবং ইওরোপীয় ধর্ম প্রচারকেরা কীভাবে আর্য-আগ্রাসন তত্ত্বের বাহক হয়ে ওঠে, সেটা এবারে আলোচনা করব।



    ক্রমশ...


    তথ্যসূত্র:
    Banerjee, SC (2016) Brahmo Samaj as an Actor in the Dissemination of Aryan Invasion Theory (AIT) in India.
    International Journal of Asian Studies 13:19–59


  • বিতর্ক | ১৮ মার্চ ২০২২ | ১১২৩ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • এলেবেলে | 202.142.119.41 | ১৮ মার্চ ২০২২ ২০:০৮504966
  • অনেকদিন পরে লেখাটার দ্বিতীয় পর্ব প্রকাশিত হল। প্রত্যাশা আরও বাড়ছে। 
     
    রামমোহনের সঙ্গে শুধু ইউনিটেরিয়ানদের সুসম্পর্কই গড়ে ওঠেনি, একই সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে অবাধ বাণিজ্যপন্থী ও হুইগ দলের কেষ্টবিষ্টুদের সঙ্গেও। উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, রামমোহন ইংল্যান্ডে পৌঁছনোর পরে উইলিয়াম রস্কো লর্ড ব্রুহমকে লেখা চিঠিতে রামমোহনকে ‘the illustrious convert from Hindooism to Christianity’ হিসেবে অভিহিত করেন। 
     
    আবার লন্ডনে রামমোহনের থাকার আগাম ব্যবস্থা করার জন্য ‘লিভারপুল ইস্ট ইন্ডিয়া অ্যাসোসিয়েশন’ জন ক্রফোর্ড-এর সঙ্গে যোগাযোগ করে। এই ক্রফোর্ড ছিলেন অবাধ বাণিজ্যের পক্ষপাতী এক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও বাংলার নীলকরদের লন্ডন প্রতিনিধি। তাঁকে একদা ‘the India advocate of Liverpool against the [East India] company’ হিসেবে বর্ণনা করা হয়। তিনি ভারতবর্ষের অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য উপনিবেশায়নকে অপরিহার্য বিবেচনা করেন এবং কোম্পানির একচেটিয়া বাণিজ্যের অধিকার ও ইউরোপীয়দের স্থায়ী বসতির বন্দোবস্তের ওপর নিষেধাজ্ঞার তীব্র বিরোধিতা করে প্রচার পুস্তিকা প্রকাশ করেন।
     
    অন্য দিকে, তৎকালীন সর্বোচ্চ রাজনৈতিক প্রভাবশালী ইউনিটেরিয়ান উইলিয়াম স্মিথ রামমোহনকে জেরেমি বেন্থামের ঘনিষ্ঠ বৃত্তে নিয়ে আসার ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন। লন্ডনে প্রধানত তাঁর বাড়িটিই ছিল হুইগ নেতাদের মিলনস্থল।
     
    এ প্রসঙ্গে আমাদের মনে রাখা দরকার, রামমোহন যে মাসে ভারতবর্ষ ছেড়ে ইংল্যান্ডে পাড়ি দেন, সেই ১৮৩০ সালের নভেম্বরে ‘রক্ষণশীল’ টোরি দলের ডিউক অব ওয়েলিংটনের পরিবর্তে ‘লিবার‍্যাল’ হুইগ দলের লর্ড গ্রে প্রধানমন্ত্রীর পদে আসীন হন।
  • biswendu nanda | ১৮ মার্চ ২০২২ ২২:২৫504969
  • ধন্যবাদ @এলেবেলেদা
  • রৌহিন | ১৯ মার্চ ২০২২ ১০:৩৫504986
  • সত্যিই অনেকদিন পর এল দ্বিতীয় পর্ব - আশা করি তৃতীয়ের অপেক্ষা একটু কম দীর্ঘ হবে।
     
    হয়তো এলেবেলেদার বইতে থাকবে - তাও সতীদাহ রদ আইন বৃটিশ পার্লামেন্টে পাশ হবার দিন রামমোহন কোথায় ছিলেন, কেনই বা - এসব এই লেখায় আসবে কি না, ভাবছি। হয়তো সরাসরি কনটেক্সট নেই, তবুও ঔপনিবেশিক নির্মাণকে বুঝতে এই ছোট ছোট অ্যানেকডোটগুলির ভূমিকা আছে মনে হয়
  • এলেবেলে | ১৯ মার্চ ২০২২ ১৯:৪০505013
  • রৌহিন, লেখাটার মূল জোর কিন্তু কেশব সেন ও ম্যাক্সম্যুলারের ওপর। সেখানে সতীদাহ রদ আইন খুব একটা বিবেচ্য নয়। তবুও এ বিষয়ে যদি আপনার আগ্রহ থাকে, তাহলে লেখাটা শেষ পর্যন্ত পড়ার অনুরোধ করব। সেখানে বিষয়টি উল্লিখিত না হলে চেষ্টা করব আপনার কৌতূহল নিরসন করার।
  • রৌহিন | 103.220.210.41 | ১৯ মার্চ ২০২২ ২১:০৬505024
  • @এলেবেলেদা,না না আমারও কেশব সেন তার থেকেও বেশী ম্যাক্সম্যুলার নিয়েই জানার ইচ্ছা - তবে ওই যে বললাম - ওই প্রসঙ্গগুলো অ্যানেকডোটাল, কিন্তু জিগস পাজলের ছোট টুকরোর মত - কাজে লাগে
  • ar | 173.48.167.228 | ১৯ মার্চ ২০২২ ২১:১৩505025
  • খুব আগ্রহের সাথে পড়ছি। আশাকরি, ভাষা সংক্রান্ত আলোচনাও থাকবে। প্রাক গৌড়ীয় বা হ্যালহেড-কালে বাঙ্গালা ভাষার একটা রূপ ছিলো। সেটা কিভাবে হ্যালহেড-জোনস-্কেরী-রামমোহন-বিদ্যাসাগর-্ডেভিড হয়ার প্রমুখের তত্ত্বাবধানে সম্পূর্ণভাবে সংকৃতায়ন এবং পরে ইঙ্গকরন হল, সে বিষয়ে আলোকপাত করলে খুব ভালো হয়।
  • Ranjan Roy | ১৯ মার্চ ২০২২ ২২:১০505031
  • ar 
    "সেটা কিভাবে হ্যালহেড-জোনস-্কেরী-রামমোহন-বিদ্যাসাগর-্ডেভিড হয়ার প্রমুখের তত্ত্বাবধানে সম্পূর্ণভাবে সংকৃতায়ন এবং পরে ইঙ্গকরন হল"
    --- এ নিয়ে কিন্তু এলেবেলে তাঁর বিদ্যাসাগর সম্পর্কিত বইয়ে মূল্যবান দীর্ঘ আলোচনা  করেছেন, সেই জয়নারায়ন তর্কালংকার থেকে। অবশ্য বিশ্বেন্দুবাবু সেটা আরও এগিয়ে নিয়ে গেলে  সোনায় সোহাগা হবে।
     
  • এলেবেলে | 202.142.119.207 | ১৯ মার্চ ২০২২ ২২:১২505033
  • @আর, বিনীতভাবে জানাই এই বাংলা ভাষার সংস্কৃতায়নের কাজটি খুব বিশদে এই অধ্ম করেছিল। তার খানিকটা এখানেই প্রকাশিত হয়েছে। বাকিটা বইয়ের তৃতীয় পর্বে আছে। 
  • এলেবেলে | ১৯ মার্চ ২০২২ ২২:২৬505034
  • এ বাবা, রঞ্জনাবাবুর সঙ্গে আমার মন্তব্যটা ওভারল্যাপ করে গেছে। তবে রঞ্জনবাবু, জয়গোপাল তর্কালঙ্কার নয়, কাজটা সেই হ্যালহেড থেকেই শুরু করেছিলাম। সেখানে জোন্স-কেরি-বিদ্যাসাগরও ছিলেন। তবে রামমোহন ও মৃত্যুঞ্জয় তর্কালঙ্কার আসেননি। সে বিষয়টা গুরুতেই প্রকাশিত একটা লেখাতে মন্তব্য হিসেবে দিয়েছিলাম।
     
    @রৌহিন, অ্যানেকডোটাল রেফারেন্স লাগবে কেন, যেখানে প্রচুর ঠোস সবুত হাজির? প্রকৃতপক্ষে সতীদাহ নিবারণের ক্ষেত্রে রামমোহন কিছুই করেননি। তাঁর দুটি পুস্তিকা লেখা ১৮১৮ থেকে ১৮২০-তেই শেষ। পরের পুস্তিকা বেরোচ্ছে আইন পাস হওয়ার পর। তাছাড়া, বেন্টিঙ্ক যখন আইন করে এই প্রথা বন্ধ করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ, তখন রামমোহন বরং এমন কোনও আইন চালু করার বিপক্ষেই মত দেন। এমনকি বাংলায় চালু করলেও দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে তা চালু না করার কথা বলেন। বেন্টিঙ্ক অবশ্য সেই প্রস্তাবকে পাত্তা দেননি। কারণ তত দিনে তাঁর সামরিক বাহিনীর অফিসার, বেশ কিছু উচ্চপদস্থ সিভিলিয়ান, নিজামত আদালতের পাঁচ বিচারপতি - প্রত্যেকের মত নেওয়া সারা।
     
    দায়ভাগ নিয়ে রামমোহন বিলেত থেকে দুটি পুস্তিকা প্রকাশ করেন। সেখানে তিনি জীমূতবাহন ও রঘুনন্দনের তুমুল সমালোচনা করলেও (একটি পুস্তিকায় অবশ্য, দ্বিতীয় পুস্তিকায় তিনি এঁদের ভূয়সী প্রশংসা করেন) হ্যালহেড বা জোন্সের ঔপনিবেশিক হিন্দু আইন নিয়ে একটি শব্দও ব্যয় করেননি। বরং জোন্সকে উদ্ধৃত করেছেন!
     
    আইন বা বলা ভালো রেগুলেশনটা ১৮২৯ সালেই পাস হয়ে গিয়েছিল। তারপর প্রিভি কাউন্সিল তাতে সরকারি সিলমোহর দেয় মাত্র। মোট সওয়াল হয়েছিল সাকুল্যে তিন দিন, সেই সওয়াল-জবাবের সময় রামমোহন সেখানে নিছকই দর্শকের ভূমিকা পালন করেছিলেন। অবশ্য তিনি সেখানে উপস্থিত না থাকলেও প্রিভি কাউন্সিলের চূড়ান্ত রায় বেন্টিঙ্কের পক্ষেই যেত।
  • ar | 173.48.167.228 | ১৯ মার্চ ২০২২ ২২:৪৩505036
  • @এলেবেলে,
    জানি তো। আপনার সব লেখাই মন দিয়ে পড়ার চেষ্টা করি। আপনার বিদ্যাসাগর সম্পর্কিত লেখাটিতে যে ক্রস রেফারেন্স দিয়েছিলেন সেগুলো প্রচুর সাহায্য করেছে।

    @রঞ্জন
    এলেবেলে অসাধারণ কাজ করেছেন, সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। আপনার গ্রন্থ-আলোচনার ১১তম অধ্যায়ে আপনিও আমার মতন পাঠকের মন ভরিয়ে দিয়েছেন!!
  • স্বাতী রায় | 117.194.47.220 | ২২ এপ্রিল ২০২২ ১৮:১৩506775
  • পুরো লেখাটা পড়েছি।  গুরুত্বপূর্ণ লেখা।  যদিও মূল লেখার অংশ নয়, তবু এখানে উল্লেখিত একটা বিষয় একটু বিশদে বুঝতে চাই।  যদি বুঝিয়ে দেন। 
     
    আরেকটি কম্পোনেন্ট ছিল মহিলাদের ক্ষমতা হ্রাস। স্ট্রাকচারাল অ্যাডজাস্টমেন্ট পলিসি রূপায়ণের দায়িত্ব পাওয়া শাসক হেস্টিংস, হ্যালহেদকে যে আইন প্রণয়ণের দায়িত্ব দিলেন তাতে স্পষ্টভাবে বলা হল — WHATEVER Woman be of a Disposition altogether malevolent, or wanting in female Modesty, or careless of her Property, or unchaste, such Woman is incapable of possessing what has been specified to be a Woman’s Property. হাস্যকরভাবে বিধবাদের ‘সতীত্ব’রক্ষা করার নিখাদ পুরুষতান্ত্রিক অছিলায়, সম্পত্তির ক্ষেত্রে মহিলাদের বঞ্চিত করার প্রথা শুরু হয়। হয়তো একই কারণে এই ঔপনিবেশিক আইনে সতীপ্রথার ওপর অভূতপূর্ব গুরুত্ব আরোপ করে লেখা হয়: ‘It is proper for a Woman, after her Husband’s Death, to burn herself in the Fire with his Corpse’ (দেবোত্তম চক্রবর্তী, বিদ্যাসাগর নির্মাণ বিনির্মাণ পুনর্নির্মাণ)। শাসক হেস্টিংস, বাংলা না জেনে বাংলা ব্যাকরণ রচনা করা প্রাচ্যবিদ হ্যালহেদ (যেমন সংস্কৃত প্রায় না জেনে ঋগ্বেদ অনুবাদ করা মুলার), বিচারক জোন্স এবং সিভিলিয়ান কোলব্রুক মহিলাদের সম্পত্তির অধিকার কেড়ে নিতে ব্রিটিশ-ভদ্রলোক যৌথ উদ্যোগে বাংলায় সতীদাহ উৎসব শুরু হল। বাংলার বিকেন্দ্রিত উৎপাদন ব্যবস্থার অন্যতম ঘটক মহিলাদের রোজগার কেড়ে, তাদের অধিকাংশের জমিদারির অধিকার কেড়ে, সতীদাহ করে সামাজিক ক্ষমতা নিশ্চিহ্ন করার কয়েক দশকের মধ্যে মসিহা সেজে সতীদের বাঁচাতে ঔপনিবেশিক শাসকদের উদ্যোগে রামমোহন রায় আসরে নামলেন।  
     
    আমার নিজের যেটা ধারণা যে অন্তত উনবিংশ শতকের গোড়ার দিকের তথ্যাদি ঘেঁটে যে সাধারণ মেয়েদের অর্থনৈতিক অবস্থা মোটেই পুরুষদের তুল্যমূল্য ছিল না, যদিও  শ্রম তাঁদের কম ছিল না। এবং সাংসারিক কর্ম  +অর্থনৈতিক শ্রম দুয়ে মিলে তাঁদের পরিবারের পুরুষদের তুলনায় অনেকটা বেশিই কায়িক শ্রম দিতে হত।  কিন্তু রোজগার ছিল তুলনায় অনেক কম।  এবং সংসারই মেয়েদের প্রধান দায়িত্ব, তারা কখনোই প্রাইমারি ব্রেড আর্নার নয় এই পিতৃতান্ত্রিক ভাবনাই  তার গোড়ায়। এবং ক্রমান্বয়িক ইতিহাস পড়ে কখনোই মনে হয় নি যে এই পিতৃতান্ত্রিকতা বিদেশ থেকে আমদানি করা। বরং বেশ প্রবল ভাবেই মনে হয়েছে যে এ বেশ ভাল রকমের দেশজ।  
     
    তাই মহিলাদের অর্থনৈতিক অবস্থা আগে ভাল ছিল, ব্রিটিশদের আমলে এসে তারা ক্ষমতা হারালেন এই কনক্লুশনে কিভাবে পৌঁছান গেল সেটা একটু বুঝতে চাই। আমার ধারণা ছিল প্রথম দিকে সাহেবরা আমাদের সামাজিক বিষয়ে মোটেই মাথা ঘামাতে চাইত না । যা কিছু প্রচলিত সামাজিক ধর্মীয় বিধি সেটাই তারা স্থানীয় প্রাজ্ঞদের সাহায্যে লিখিত আইন হিসেবে দাঁড় করিয়েছিল। তাই যেটা বুঝতে চাইছি যে মহিলাদের রোজগার কাড়ার কলঙ্ক  স্বদেশীয় সমাজের গায়ে না লেগে  ব্রিটিশদের গায়ে লাগার ঠিক কি কারণ আর তার স্বপক্ষে প্রমাণ কি? আর যদিও রানী ভবানীর মত মেয়ে জমিদারদের দিয়ে দেশের মেয়েদের অবস্থা বুঝতে চাওয়া আর  ইংরেজ আশ্রিত রাজাকে দিয়ে ভূমিহীন গ্রামীন প্রজার দশা বুঝতে চাওয়া একই রকম অর্থহীন, তবু  মেয়েদের অধিকাংশের জমিদারি কাড়ার হিসেবটাও তথ্যপ্রমাণসহ বুঝতে চাই।   
  • এলেবেলে | ২২ এপ্রিল ২০২২ ১৯:০১506776
  • স্বাতীদি, আমি খানিকটা বোঝানোর চেষ্টা করলে হবে?
     
    প্রথমত, ঔপনিবেশিক হিন্দু আইন তৈরি হওয়ার আগে পর্যন্ত বাংলায় দায়ভাগ প্রথা প্রচলিত থাকার কারণে এমনকি অবিভক্ত অর্থাৎ যৌথ পরিবারেও কোনও অপুত্রক বিধবা তাঁর স্বামীর মৃত্যুর পরে তাঁর সম্পত্তির অংশ পেতে পারতেন। তবে তিনি সেই সম্পত্তি অন্য কাউকে দান বা বিক্রি করতে পারতেন না। তার মানে তৎকালীন সমাজে বিধবাদের স্বামীর সম্পত্তিতে উত্তরাধিকার ছিল।
     
    দ্বিতীয়ত, স্ত্রীধন ছিল এই বিধবাদের রক্ষাকবচ। এই স্ত্রীধন ছয় রকমের ছিল। কাজেই বিধবা মহিলাদের আর্থিক নিরাপত্তা কিছুটা হলেও ছিল।
     
    তৃতীয়ত, শুধু তাই নয় - এমনকি অবিবাহিতা কন্যারাও পিতা-মাতার অবর্তমানে সম্পত্তি বন্টনের সময় তার ভাগ পেতেন।
     
    কিন্তু প্রথমে হ্যালহেডের জেন্টু ল ও পরে জোন্সের ডাইজেস্ট অফ হিন্দু ল চালু হওয়ার পর থেকেই বিধবা ও অবিবাহিতা নারীদের আর্থিক স্বাধীনতা সম্পূর্ণ ধ্বংস হয়ে যায়।
     
    তবে তা সত্ত্বেও কিন্তু বিপুল সংখ্যক বিধবা সতী হননি। ১৮২৪ সালের সরকারি প্রতিবেদনে বিচারপতি জন হার্বার্ট হ্যারিংটন বাংলা প্রেসিডেন্সিতে ৫ কোটি হিন্দু জনসংখ্যার উপস্থিতি এবং তাদের মৃত্যুহার ১: ৩৩ অনুমান করেন অর্থাৎ বছরে প্রতি হাজারে ৩০ জন। এর অর্থ, এখানে বছরে মোট ১৫ লক্ষ মানুষ মারা যান। হ্যারিংটন আরও অনুমান করে জানান, এর মধ্যে প্রতি ৬ জনের মৃত্যুতে একজন স্ত্রী বিধবা হন। সেই হিসেব অনুযায়ী ১৮১৫ থেকে ১৮২৮ পর্যন্ত প্রতি বছরে প্রায় আড়াই লক্ষ বিধবার মধ্যে ৪৩০ জন পিছু একজন বিধবা বা গড়ে মোট বিধবার মধ্যে প্রায় ৫৮০ জন সতী হন। যদি সংখ্যাটা ৬০০ ধরা হয়, তাহলেও সারা বছরে সতীর সংখ্যা ছিল মোট বিধবার মাত্র ০.২ শতাংশ। বাস্তবেও সংখ্যাটা এর বেশি ছিল না।
     
    প্রসঙ্গত রামমোহন এই সতীপ্রথার পেছনে কৌলীন্য প্রথা ও বাল্যবিবাহের রমরমাকে দায়ী করলেও বাস্তব তথ্য তার সম্পূর্ণ উল্টো কথা বলে।
     
    এবারে আপনি যদি শ্রমজীবী কিংবা কৃষিজীবী মহিলাদের কথা ধরেন, তাহলে এ কথা ঠিক তাঁত কিংবা কৃষিকাজের মূল কাজটা করতেন পুরুষরাই। কিন্তু সেই আমলে প্রায় প্রত্যেকটা শিল্পই পারিবারিক ও কৃষিনিবিড় পদ্ধতির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত ছিল। কিন্তু ব্রিটিশদের পরিকল্পিত অবশিল্পায়নের ফলে এই মহিলারা রাতারাতি কর্মহীন হয়ে যান।  
     
    আর "সাহেবরা আমাদের সামাজিক বিষয়ে মোটেই মাথা ঘামাতে চাইত না । যা কিছু প্রচলিত সামাজিক ধর্মীয় বিধি সেটাই তারা স্থানীয় প্রাজ্ঞদের সাহায্যে লিখিত আইন হিসেবে দাঁড় করিয়েছিল।" - টা একদমই ভুল কথা। ১৭৬৫-তে দেওয়ানি লাভের পর থেকে ব্রিটিশরা দেশীয়দের সামাজিক ব্যাপারে মাথা না ঘামালে রাতারাতি ঔপনিবেশিক হিন্দু ও মুসলমান আইন হয় না। কারণ হেস্টিংস-এর অ্যাক্ট অফ সেটলমেন্ট ঘোষিতই হচ্ছে ১৭৭২ সালে অর্থাৎ দেওয়ানি লাভের মাত্র ৭ বছরের মধ্যেই।
  • এলেবেলে | ২২ এপ্রিল ২০২২ ১৯:০৪506777
  • ও আরেকটা কথা বলতে ভুলে গেছি। সেটা হল প্রাক্‌-ব্রিটিশ বাংলায় সতীদাহের কোনও নথি, লোককথা বা গাথার নিদর্শন পাওয়া যায় না। বিদেশি পর্যটকদের বিবরণে তো বটেই এমনকি বিশাল বৈষ্ণবসাহিত্য ও মঙ্গলকাব্যের কোথাও বাংলায় সতীদাহের কোনও উল্লেখ পাওয়া যায় না।
  • স্বাতী রায় | ২৩ এপ্রিল ২০২২ ০০:১৯506822
  • আচ্ছা এইটা আমার জানার সঙ্গে মিলল না । আমি তো ইংরেজ আমলেও মেয়েদের স্ত্রীধন আর স্বামী শ্বশুরের সম্পত্তিতে  যাবজ্জীবন বিক্রির অধিকার রহিত খাওয়া পরার ( এই টার্ম টা কি একটা বলত সেটা ঠিক মনে করতে পারছি না ) অধিকার ছিল বলেই জানি। হ্যালহেড রা কি সেটা তুলে দিলেন? দিলে কবে থেকে কবে মেয়েদের এই অধিকার ছিল না? বাংলায় যে হিন্দু উত্তরাধিকার আইন মানা হয় সেটা তো আজও দায়ভাগ মতেই, আর  তাতে মেয়েদের অধিকার অনেক বেশি বলেই ত মিতাক্ষরার তুলনায় আমরা অনেক বেশি রেলা মারি। পরে ধাপে ধাপে কিছু বদল হয়েছে বটে, কিন্তু মূল দায়ভাগ এর ফ্রেমওয়ার্ক থেকে তো সরেনি বলেই জানি। আমি অবশ্য আইনজ্ঞ নই , তাই ভুল জানতেই পারি। এই বিষয়ে কোন প্রামাণ্য বই এর রেফারেন্স পেতে পারি? 
     
    হেস্টিংস পার্সোনাল ল র বাবদে স্থানীয় রীতি নীতির কোন বদল ঘটিয়েছিলেন সেটারও  যদি কোন প্রামাণ্য সেই সময়ের রেফারেন্স পাই তো খুব উপকার হয়। মৌখিক বা সংস্কৃত / উর্দুতে লেখা বিধিকে ইংলিশ এ codify করা আর সেই করতে গিয়ে স্থানীয় আইনের রদবদল করে দেওয়া এই দুটি একদম ভিন্ন বিষয়। হ্যাঁ একটা কথা অবশ্যই মানি যে কলোনিয়াল সাহেব রা শুধু উচ্চ বর্ণের রীতি নীতিই মূলত codify করেছিলেন,  নিম্ন বর্ণের সে আলাদা নিয়ম থাকতে পারে সেটা পাত্তাই দেন নি,  এবং তাকে কাজে লাগাতে গিয়েও নিজেদের morality র আলোতে সেই আইনের interpret করতেন, কিন্তু উচ্চ বর্ণের সংখ্যাগুরুর বিধি তে কোন বদল ঘটিয়েছিল  বলে পড়িনি। খুব কাজে লাগবে কোন রেফারেন্স পেলে। 
     
    ব্রিটিশ রা যেমন পরিকল্পিত ভাবে শিল্প ধ্বংস করেছে, তেমনই গরীব ঘরের মেয়েরা অন্য অন্য কাজ খুঁজে ও নিয়েছে। তাদের কাজ না করে উপায় নেই। হয়ত গ্রামের  অস্বচ্চল চাষীর বউটি যে আগে অবসর পেলেই সূতা কাটত , হয় তাকে subsistence firming এ মন দিতে হয়েছে  বা নিজের ঘরের শস্যের pre-sales procesing ছাড়াও পরের বাড়ি ধান ভানতে হয়েছে, বা তাকে হয়ত স্বামী স্ত্রী দুজনে মিলে ভিটে ছেড়ে কলে খাটতে যেতে হয়েছে, কিন্তু  সামগ্রিক ভাবে মেয়েদের ওয়ার্ক লোড খুব কমে গেছে এমনও খুব পড়িনি। মেয়েদের শ্রম আগেও খুব কম দাম পেত বাজারে, তখনও তাই। (   অবশ্য এই নিয়ে একটা মজার গল্প পড়েছি যে উনবিংশ শতকের শেষের দিকে  প্রথম সার্ভে তে যখন ইংরেজরা মেয়েদের occupation ক্যাপচার করতে চান তখন দেশীয় পুরুষ রা আপত্তি তোলেন , মেয়েদের আবার  কাজ কী! ফলে অবশ্য মেয়েদের কাজ এর ধরন ধারণ পরিমাণ বোঝারও কোন উপায় থাকে না। )
     
     
    সতীদাহ নিয়ে আমার যতদূর জানা সেটা হল এটা উচ্চ বংশের নিয়ম ছিল। বাংলায় এস সি এস টি দের মধ্যে তো আদৌ সেরকম প্রচলিত ছিল না, সামান্য কিছু সোশ্যাল কলাইম্বার পরিবার বাদ দিলে। কাজেই বাংলার  demography দেখলে সংখ্যা টা কম হওয়ারই কথা। বেহুলার কলার ভেলায় ভাসা কে কী চোখে দেখব সে নিয়ে আমার নিজের কিঞ্চিৎ সন্দেহ আছে।  তবে আমার বৈষ্ণব সাহিত্য বা মঙ্গল কাব্য তেমন পড়া নেই। তাই এ নিয়ে কথা বলব না। 
  • এলেবেলে | ২৩ এপ্রিল ২০২২ ০০:৫৩506830
  • স্বাতীদি, 
     
    ১. হ্যালহেডের জেন্টু ল ১৭৭৬ সালে আর জোন্সের ডাইজেস্ট ঠিক তার কুড়ি বছর পরে ১৭৯৬-এ।
     
    ২. না। ঔপনিবেশিক হিন্দু আইনে দায়ভাগকে সম্পূর্ণ অবহেলা করা হয়, যদিও অনুবাদকের প্রত্যেকেই (সবুর তেওয়ারি ছাড়া) ছিলেন বাঙালি। সেখানে রঘুনন্দনের দায়তত্ত্ব-কে পাত্তাও দেওয়া হয়নি। 
     
    ৩. দেওয়ানি লাভের মাত্র ৭ বছরের মধ্যেই গভর্নর ওয়ারেন হেস্টিংস পৃথক ‘হিন্দু’ ও ‘মুসলমান’ আইন তৈরি করার জন্য উদ্যমী হন। ১৭৭২-এর ১৫ অগস্ট সরকারিভাবে ঘোষিত হয়:
    উত্তরাধিকার, বিবাহ, জাতপাত ও অন্যান্য ধর্মীয় আচরণ বা প্রতিষ্ঠান সম্পর্কিত সমস্ত মামলায়, মুসলমানদের কোরানের আইনসমূহ এবং হিন্দুদের ক্ষেত্রে শাস্ত্রব্যবস্থা চিরকাল সম্মানের সঙ্গে মেনে চলতে হবে। এই সমস্ত অনুষ্ঠানে যথাক্রমে মৌলবিরা বা ব্রাহ্মণরা আইনটির ব্যাখ্যা করার জন্য [আদালতে] উপস্থিত থাকবেন এবং তারা রিপোর্টে স্বাক্ষর করে ডিক্রি পাস করতে সহায়তা করবেন।
     
    এরপরেই হ্যালহেড-জোন্সের আইন প্রণয়ন।
     
    ৪. মেয়েদের আর্থিক স্বাধীনতার খুব ভালো উদাহরণ স্বয়ং বিদ্যাসাগরের ঠাকুমা। তিনি সুতো কেটে চার সন্তানের ভরণপোষণ করতেন। তারও আগে আছেন রামমোহন-জননী তারিণী দেবী যিনি একা হাতে গোটা রায় পরিবার সামলাতেন।
     
    ৫. না, সতীদাহ কেবল উচ্চবর্ণের মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল না। বিনয়ভূষণ রায় সরকারি পরিসংখ্যান থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে সর্বপ্রথম সতীদের আর্থ-সামাজিক অবস্থানের বিশ্লেষণ হাজির করেন। তাঁর গ্রন্থ থেকে জানা যায়, ১৮১৫-১৮২৭ সময়কালীন বাংলার মোট ৫,৩৮৮ জন সতীর মধ্যে তিন উচ্চবর্ণ পরিবারের ছিলেন ৩,০৭৯ জন। এঁদের মধ্যে ছিলেন যথাক্রমে ব্রাহ্মণ ২০৭১ (৩৮%), কায়স্থ ৮০০ (১৫%) ও বৈদ্য ২০৮ (৪%) জন। বাকি ২,৩০৯ জন অন্ততপক্ষে ২০টি ভিন্ন জাতির বিধবা ছিলেন। তিনি আরও জানান, পশ্চিমবঙ্গের কলকাতা-সন্নিহিত অঞ্চলে এই প্রথা ব্রাহ্মণ ছাড়া সদ্‌গোপ, তাঁতি, তেলি, কৈবর্ত, আগুরি, গোয়ালা ইত্যাদিদের মধ্যে প্রচলিত ছিল। যেহেতু সেই আমলে ব্রাহ্মণ ছাড়া বাকি সবাইকেই শূদ্রভুক্ত করার চল ছিল, সেহেতু সতীপ্রথাকে কোনও উপায়েই ব্রাহ্মণ্যবাদের সমার্থক বলা চলে না।
     
    ৬. এ বিষয়ে মানে ঔপনিবেশিক হিন্দু আইন সম্পর্কে পড়তে পারেন Nandini Bhattacharyya- Panda, Appropriation and Invention of Tradition: The East India Company and Hindu Law in Early Colonial Bengal
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। পড়তে পড়তে মতামত দিন