ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • মমতাময়ী মোয়া

    Somnath Bandyopadhyay লেখকের গ্রাহক হোন
    ১২ জানুয়ারি ২০২২ | ২৬২ বার পঠিত
  • শীতকাল মানেই কি শুধু কমলালেবু আর মাঙ্কিটুপি ??

    না, হল না....

    শীতের সকালে করাইশুঁটির কচুরি আর আলুরদমের পর যে জিনিসটা আমাদের রসনা তৃপ্তি করে আসছে তা হল "মোয়া" ।

    এই মোয়া হল এক অদ্ভুদ জিনিস, ছানা বা চিনির উপস্থিতি ছাড়া শুধুমাত্র নলেন গুড়ের স্পর্শে খই এর গোল্লা হয়ে যায় মিষ্টি যার মেয়াদ মাত্র মাস দুই ।

    ব্যাপারটা আসলে খুব মজাদার, ইতিহাস বলে মেসোপটেমিয়ানরা প্রথম খেজুর রস জ্বাল দিয়ে তা থেকে গুড় বানানোর কায়দা রপ্ত করেছিলেন, ভারতীয়রা বা বলা ভালো বাঙালিরা এদের থেকেই গুড় বানানো শিখছেন বলেই ইতিহাসবিদরা মনে করে থাকেন। খেজুর রস শীতকালে ভোরবেলায় গাছ থেকে নামানো হয, তার খানিকটা খেয়ে নেওয়া হয় আর বাকিটা জ্বাল দিয়ে বানানো হয় গুড়। এই গুড় মূলত দুই প্রকার : গাছের প্রথম রস থেকে বানানো গুড় হল নলেন গুড় আর গাছকে কিছুদিন বিশ্রাম দিয়ে তারপর সেই গাছের রস থেকে বানানো গুড় হল জিরেন গুড়। জিরেন শব্দের মানে হল বিশ্রাম। উৎকর্ষতায় ও দামে জিরেণ অপেক্ষা নলেন গুড়ের কদর বেশি মূলত দুটি কারণে, প্রথমত গাছের প্রথম ভাগের রস থেকে তৈরি হয় এই গুড়, দ্বিতীয়ত এ জিনিস বানানো সাধারণ কারিগরের কম্মো নয়, অভিজ্ঞতা সম্পন্ন শিউলিরাই ( যারা রস থেকে গুড় তৈরি করে তাদের শিউলি বলে) এক নম্বর নলেন গুড় বানাতে পারে ।

    কিন্তু শুধু নলেন গুড় হলেই তো হবে না, চাই খই - যে সে খই হলে চলবে না । কণকচূড় ধানের খই আর তার সাথে নলেন গুড় ও হালকা ঘি এর ছিটে দিয়ে গোল্লা পাকিয়ে চাষীরা বা তাদের গৃহিণীরা জয়নগর অঞ্চলে রাস্তার ধারে বিক্রি করত এই মন্ড।



    সালটা ১৯২৯, শ্রী পূর্ণচন্দ্র দত্ত ও নিত্যানন্দ সরকার এই খই ও গুড়ের মন্ডগুলোকে এক চদের তলায় নিয়ে এসে বিক্রি করার কথা ভাবলে জন্ম নেয় শ্রীকৃষ্ণ মিষ্ঠান্ন ভান্ডার। যদি কখনো শীতকালে জয়নগর যান ঘুরে আসবেন একবার এই মোয়ার শ্রীক্ষেত্র থেকে । দোকানটি ছোট বলে অবহেলা করবেন না, জানবেন শীতের সময় প্রতিদিন প্রায় ২৫হাজার মোয়া বিক্রি করে থাকে এই ছোট্ট দোকানটি, মোটামুটি ২০০টাকা থেকে ৩৫০টাকা অবধি বিভিন্ন দামের ও মানের মোয়া বিক্রি করে থাকেন এই দোকানটি, একবার খেলেই বুঝতে পারবেন উত্তর ও দক্ষিণ কলকাতার বড় বড় মিষ্টির দোকানগুলিতে জয়নগর এর মোয়া বলে যে জিনিসটি এতদিন খেয়েছেন এই মোয়া তাকে গুনে গুনে দশ গোল দেবে ।

    তাহলে আর ভাবছেন কি? এই রবিবার ই বেরিয়ে পড়ুন দুগ্গা দুগ্গা বলে, ঘুরে- দেখে - চেখে বাড়ির জন্য নিয়ে আসুন খাঁটি জয়নগর এর মোয়া । আর হ্যাঁ, আমার জন্যও কেজিখানেক নিয়ে আসতে ভুলবেন না যেন .......
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। লাজুক না হয়ে প্রতিক্রিয়া দিন