ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • খেরোর খাতা

  • হননকাল

    সৈকত বন্দ্যোপাধ্যায় লেখকের গ্রাহক হোন
    ০৭ জানুয়ারি ২০২২ | ৫৫৪ বার পঠিত
  • এ এক অদ্ভুত সময়। এ এক হননকাল। পৃথিবীতে কালান্তক করোনার আক্রমণের বাইরেও ঘটে চলেছে একটানা প্রাণঘাতী হননযজ্ঞ। না, ভাইরাস না। ভাইরাস মানুষের নিয়ন্ত্রণে নেই। কিন্তু এখানে যার কথা বলা হচ্ছে, তা রীতিমতো আনুষ্ঠানিকভাবে মানুষেরই নিয়ন্ত্রণে। রাজনৈতিক নেতৃত্বে, সম্পূর্ণ পরিকল্পনামাফিক ভাবে নিত্যদিন ধ্বংস করা হচ্ছে, জল, জঙ্গল আবাসভূমি। এ এক অদ্ভুত সময়, যখন সাড়ম্বরে ধ্বংসসাধনের নাম দেওয়া হয়েছে উন্নয়ন, বন্যাকে চিরস্থায়ী করার নাম হয়েছে বন্যানিয়ন্ত্রণ, উচ্ছেদকে বলা হচ্ছে নগরায়ন, আর কর্পোরেট শকুনের নাম বেদান্ত। ঢাকঢোল পিটিয়ে এইসব নিত্যনতুন নামের আবাহন চলছে। চলছে ডিজে সহযোগে লাগাতার ভাসানগীতির উদযাপন। আর এই মহাধামাকার নিচে চাপা পড়ে যাচ্ছে, প্রান্তজনের মিহি আর্তনাদ। উন্নতির উৎসব চলছে দিগ্বিদিকে।  
    প্রতিভা সরকার, ধবংসের এই রাজসূয় যজ্ঞের কথা লেখেন। কর্পোরেট বুটের  নিচে চাপা পড়া আর্তনাদের কথা লেখেন। তিনি নিয়মগিরির লুঠেরাদের কথা লেখেন। কীভাবে নিয়মমাফিক সরকারি অনুমতি পাবার আগেই বানিয়ারা শোধনাগার খুলে ফেলে ডোঙরিয়াদের গ্রামে। বসায় দৈত্যাকার কনভেয়ার বেল্ট, চিরতরে ধ্বংস করে দেয় একাধিক গ্রাম। পরিকল্পনা চলে দিনে ১৬ ঘন্টা, সপ্তাহে ৬ দিন, ২৩ বছর ধরে, গাছপালা উৎপাটিত করে, মানুষ-পশু মেরে, বক্সাইট তোলার নামে চলবে ধরিত্রীর লাগাতার ধর্ষণ। 
    তিনি কোচির কথা লেখেন। কেরালার কথা লেখেন। কোচির ব্যস্ত বিমানবন্দরটি তৈরি হয়েছিল, জলা আর ধানক্ষেত বুজিয়ে। কিন্তু সেই উন্নয়ন ডেকে এনেছিল বন্যা। এক বছরের বন্যায় এই উড়ানের যে দাম চোকাতে হয়েছে, তা অর্থমূল্যে ৫০০ কোটি টাকা। বন্যা অবশ্য শুধু বিমানবন্দর দিয়ে শুরু হয়েছে তা নয়। কেরালায় নদী আছে ৪৪ টি। তাদের উপর আছে ৬১ টি বাঁধ। প্রচলিত ধারণা অনুযায়ী, বাঁধ বন্যা আটকায়। কিন্তু একদম জমির খবর নিয়ে লেখিকা লিখছেন, ব্যবহারিক জীবনে ঠিক উল্টো জিনিস ঘটে। বাঁধ টপকে জল আসেই বন্যায়। তারপর জল আর ফিরে যেতে চায়না। বন্যা হয় দীর্ঘস্থায়ী। বাঁধগুলি হয়ে ওঠে দুধারী তলোয়ার। 
    প্রতিভা কলকাতার কথাও লেখেন। ২০১৭ সালে নিউটাউনে পরিকল্পনা করা হয় এক পাঁচ কিলোমিটার লম্বা ফ্লাইওভারের। যা নিউটাউনের আধুনিক প্রসারকে পায়ের নিচে রেখে সিধে পাড়ি দেবে বিমানবন্দর। পথে বোজানো হবে এক গুচ্ছ জলাভূমি। তার কাজও শুরু হয়ে যায় দ্রুতগতিতে। দশটি জলাভূমিকে আংশিক বা সম্পূর্ণভাবে বুজিয়ে ফেলা হয়। কলকাতা শহর, আমরা জানি, একটি বাটির মতো। তার জমা জল পাড়ি দেবার একমাত্র জায়গা পূর্বদিকের জলাভূমি। ইতিমধ্যেই অনেকটা বুজিয়ে ফেলার ফলে কলকাতা শহর ক্রমশ জলমগ্ন হয়েই চলেছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়ে গেলে, আরও ডুবত, আন্দাজ করাই যায়। কিন্তু উন্নয়নই যেখানে একমাত্র গন্তব্য, সেখানে বর্তমান বাসভূমিকে অবাসযোগ্য করে ফেলা, এমন আর কি। 
    শুধু এই তিনটি নয়। মানুষ, পরিবেশ, সরকার, কর্পোরেটকে ঘিরে, যে ধ্বংসযজ্ঞ চলছে, এবং চলেই যাচ্ছে, প্রতিভার এই বই তারই বিবরণ। কিছুটা তথ্য, কিছুটা অভিজ্ঞতা মিলিয়ে-মিশিয়ে তৈরি হয়েছে, উন্নয়নের নিচে যে অন্ধকার, যে ডালে বসে আছি, সেই ডালই কেটে ফেলার বাহারি আহাম্মকির বিজ্ঞাপনের যে আড়ম্বর, নিজের আবাসস্থল নষ্ট করে ফেলার বাহাদুরির যে আস্ফালন, তারই আখ্যান। লেখাগুলি বেশিরভাগই প্রকাশিত হয়েছিল গুরুচণ্ডা৯তে। এবার বেরোচ্ছে বই হয়ে। যাঁরা পড়তে চান বইমেলায় পাবেন। আর, সকলেই জানেন, গুরুর বই এক গোষ্ঠীগত প্রচেষ্টা। যাঁরা বই প্রকাশের আংশিক বা সম্পূর্ণ দায়ভার গ্রহণ করে দত্তক নিতে ইচ্ছুক, তাঁরা এই লেখার নিচে জানান। বা মেল করুন [email protected]  এ। 
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • anandaB | 50.125.252.150 | ০৭ জানুয়ারি ২০২২ ১০:৩৭502535
  • আমি দত্তকে  আগ্রহী , একটু ইমেইল এ যোগাযোগ করলে ভাল হয় , কয়েকটা বিষয় জিজ্ঞাস্য  ছিলো 
  • aranya | 2601:84:4600:5410:9f:eea7:8f3c:c8e | ০৯ জানুয়ারি ২০২২ ০৬:১৬502562
  • প্রতিভার লেখাগুলো বই হয়ে বেরোচ্ছে, খুবই ভাল লাগল। অত্যন্ত জরুরী সব লেখা। বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ করে যদি আরো ছড়িয়ে দেওয়া যেত 
    দত্তকে আমিও আগ্রহী। মেলে যোগাযোগ করব 
  • ইন্দ্রাণী | ১০ মার্চ ২০২২ ১৫:০৪504813
  • আজ বইটির উদ্বোধন। লেখকের সঙ্গে সামান্য সময়ের কথোপকথন ঃ

  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খারাপ-ভাল মতামত দিন