• বুলবুলভাজা  ভ্রমণ  পথ ও রেখা  খাই দাই ঘুরি ফিরি

  • পথ ও রেখা – ৩ : সূর্যের থিয়েটার

    হিরণ মিত্র
    ভ্রমণ | পথ ও রেখা | ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ২৩৪ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • পর্ব - ১ | পর্ব - ২ | পর্ব - ৩
    প্যারিস। শুধু ছবির দেশ, কবিতার দেশই নয়। চমকে দেওয়া আভঁ গার্দ নাটকের দেশও। তেমনই নাট্যকার আরিয়ান মুশকিনআজব তাঁর নাট্যশালা। সবাইকে সব কাজ করতে হয়। শৌচালয় পরিষ্কার, আহার প্রস্তুত, পোশাক বানানো, নিজেদের সাজিয়ে তোলা, মহড়ায় থাকা আর মঞ্চ নির্মাণ, সব কর্মে পটু হওয়া আবশ্যক। পোশাকি নাম—Theatre du Soleil। সূর্যের থিয়েটার। হিরণ মিত্র


    ১৯৯৭ সাল, প্যারিস, আমার কন্যা সাজির বিয়ে। ওই শহরে। আমি কর্তা, গিন্নি, পুত্র পলাশ, হাজির হলাম। পথের নানা বিভ্রাটের কথা আজ বলছি না। তখন প্যারিস শহরে, নানা দেশি ও বিদেশি বন্ধুদের জমায়েত। যেমন, সুইৎজারল্যান্ডের ফ্রাঁসোয়া ফ্লুরি, মিলানের লেতিতমিয়া কোম্বা, কলকাতা বা খড়দহের অরুণ হালদার, আর ওঁর স্ত্রী ইসাবেল। আড্ডা জমে উঠল, এও জানা গেল, পবনদাস বাউল ও মিমলু সেন ওখানে ডেরা বেঁধেছে। আমাদের পরিক্রমা শুরু হল। আজকের যিনি কেন্দ্রীয় চরিত্র, আরিয়ান মুশকিন, যাঁর পূর্ব প্যারিসে, জঙ্গলের ধারে, ‘কার্তুজে’ একটা নাট্যশালা আছে।



    একটু বিশদে বলা যাক বিষয়টা। এই পূর্ব অঞ্চলটা জঙ্গল ঘেরা। দ্বিতীয় মহাযুদ্ধের সময়, এইখানে বারুদ ও কার্তুজ তৈরির কারখানা ছিল। যুদ্ধ থেমে যাওয়ার পর, দীর্ঘদিন অব্যবহৃত অবস্থায় জঙ্গল ঘেরা পরিত্যক্ত পড়ে থাকে। ফরাসি সরকারের বিশেষ ব্যবস্থায় বহু এমন অঞ্চলকে শিল্প, চিত্র, ভাস্কর্য, নাটক এমন নানা কর্মকাণ্ডের আওতায় আনেন। বহু শিল্পী এমন সুবিধা যেমন পেয়েছেন, তেমন পেয়েছেন নাট্যকার, পরিচালকরাও। ১৯৬৪ সালে এখানকার পাঁচ বা ছয়টি ঢাকা, বিশাল, স্থাপত্য যা খুবই সাধারণ দর্শন বা দেখতে, হস্তান্তর করা হল। এরিয়ান মুশকিন বিশিষ্ট নাট্যকার, পরিচালক পেলেন ঢোকার মুখের কারখানাটি। একটা অভিনব মঞ্চ নির্মাণ করলেন। তিনি, ১৯৯৭ সালে প্রথম ওনার সাক্ষাৎ পাই। কয়েকবার তারপরেও গিয়েছি। বহু নাট্যব্যক্তিত্বকে পেয়েছি। সে কাহিনি দীর্ঘ। এর কয়েক বছর পরই তিস্তাপারের বৃত্তান্ত নাটক মঞ্চ-এ অংশ নিই। কলকাতায় এঁদের ব্যবস্থাটি খুবই বিচিত্র। মূলত তিনটি বা চারটি অংশে ভাগ করা। শেষ অংশে, মঞ্চ স্থাপত্য বানানোর ব্যবস্থা। মাঝের অংশে, সাজসজ্জার, প্রসাধনের অঞ্চল। মুশকিন আমাদের দড়ির চারপেয়েকে এক-একজন অভিনেতা-অভিনেত্রীর জন্য বরাদ্দ করেছেন। সেই পায়াতে বাঁশের মাথায় একটা আয়না ঝোলানো। খাটিয়ার ওপরে তাদের ব্যবহারের পোশাক। অভিনেত্রীদের জন্য একটা পর্দা ঘেরা কোনা আছে। বাকিরা সর্বসমক্ষে মানে, নিজেদের মধ্যে সব কাজকর্ম সেরে ফেলেন।



    এই অংশ থেকে একটি রাস্তা সোজা চলে গেছে, মঞ্চের দিকে। রাস্তার দু-ধারে দর্শকরা বসেন। মঞ্চে ঢোকা-বেরোনোর ওই একটিই রাস্তা। কোনো সাইড উইংস নেই। মাথায় যে সাদা কাপড়ের আচ্ছাদন, তার পিছনে মানে ভিতরে আলো। মনে হচ্ছে খোলা আকাশে দৃশ্য অভিনীত হচ্ছে। সেইসময় ভারতের কেরল থেকে একটি দল, মার্শাল আর্ট প্রদর্শন ও শিক্ষা দিচ্ছিল ফরাসি অভিনেতাদের। আমরা তাও দেখলাম। সবচেয়ে মজার ঘটনা ঘটল এরপর আমার স্ত্রী অনিতাকে ওরা লাল পাড়, ঘিয়ে রঙের গরদের শাড়িতে সাজাল। প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের জন্য একটা শুরুয়াত, ভারতীয় ঢঙে। ও আরতির ভঙ্গিতে প্রদীপ জ্বালাল। আমি তাও এঁকে রাখলাম।



    বেশ কয়েকবার মুশকিন ম্যাডামের সাক্ষাৎ পাওয়া গেল। প্রদীপ জ্বালানোর পরই ভারতীয় ও ফরাসি শিল্পীরা মঞ্চে এলেন, সোজা সাজঘর থেকেই, নৃত্যভঙ্গিমা সহ। তাও আঁকলাম আমি। ম্যাডাম খুবই নামি মহিলা। ফরাসি প্রেসিডেন্টের খুবই কাছের লোক ছিলেন শুনেছি। একবার শ্যামানন্দ জালান কলকাতায় একটা নাট্য অভিনয় আনার চেষ্টা করেন। এক কোটি দর হাঁকেন উনি। স্বভাবতই তা আর ঘটেনি।



    এই ঢাকা অঞ্চলটার বাইরে, বেশ কয়েকটি আধখোলা বা ছোটো ঢাকা ব্যবস্থা রাখা আছে। শৌচালয় ছাড়া, ক্যারাভান, চাকা লাগানো কাঠের ঘর আছে, খাবার বা আহারশালা আছে, ছাউনি দেওয়া। আমি পবন, মিমলুর সাথে ওই ক্যারাভানে সন্ধে কাটিয়েছি। মূল শহর থেকে যানবাহন আছে এই নাট্য অভিনয় দেখতে আসার জন্য। বহু আগে থেকে ব্যবস্থা করতে হয়। মিমলু এক প্রকার সহকারী বলে আমরা কিছু সুবিধা পেয়েছিলাম। আজও পবন-মিমলুর ডেরা ওই ক্যারাভান বা অমন কিছু। এই অভিনেতারা, কিছু স্থায়ী বাসিন্দা, কিছু শহর থেকে আসে। সবাইকে সব কাজ করতে হয়। শৌচালয় পরিষ্কার, আহার প্রস্তুত, পোশাক বানানো, নিজেদের সাজিয়ে তোলা, মহড়ায় থাকা আর মঞ্চ নির্মাণ, সব কর্মে পটু হওয়া আবশ্যক। এর একটা পোশাকি নাম আছে—Theatre du Soleil। সূর্যের থিয়েটার।

    আরিয়ান মুশকিন—১৯৩৯, তেসরা মার্চ জন্ম, ফ্রান্সে। মলিয়ার পুরস্কার প্রাপ্ত পরিচালক। ফরাসি নব্যধারার নাটক, নির্মাতা, ১৯৬৪ সালে, থেয়াত্র্‌ দ্যু সোলেইল, প্রতিষ্ঠা করেন। আত্ম আবিষ্কারের থিয়েটার, আমরা এমনই বলতাম। বড়োসড়ো শরীরের মহিলা, রাশভারী, ব্যক্তিত্বময়ী। সমস্ত কিছুর ওপর অসম্ভব নিয়ন্ত্রণ রাখেন।



    এখানে দেখুন মুশকিন পরিচালিত আগামেমনন নাটকের মহলা




    ছবি: হিরণ মিত্র
    পর্ব - ১ | পর্ব - ২ | পর্ব - ৩
  • বিভাগ : ভ্রমণ | ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ | ২৩৪ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • বাইরে দূরে | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ১৫:১৫102864
  • জানার সুযোগ পেয়ে ধন্য হলাম । বউ ফরাসী জানে তাতে আগামেমনন বোঝার সুবিধে হল খানিকটা 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খারাপ-ভাল মতামত দিন