• হরিদাস পাল  আলোচনা  সিনেমা

  • বুদ্ধদেব গুহর লেখা থেকে সিনেমা : কিছু জানা অজানা তথ্য

    Dr. Koushik Lahiri লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | সিনেমা | ০৭ ডিসেম্বর ২০২০ | ১৭৯৫ বার পঠিত | ১ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • অগ্রগামীর পক্ষে জয়ন্ত ভট্টাচার্যর পরিচালনায় চার চারটি বুদ্ধদেব গুহর উপন্যাস থেকে ছবি করার কথা ভাবেন প্রযোজক অজয় বসু। 'একটু উষ্ণতার জন্য', 'কোয়েলের কাছে', 'নগ্ন নির্জন' ও 'চবুতরা'। উত্তম নিজে 'নগ্ন নির্জন' ও 'চবুতরা' পড়েন। ছবিগুলির সহপ্রযোজক হতে চান চন্ডীমাতা ফিল্মসের সত্যনারায়ণ খাঁ।

    যৌথ প্রযোজনায় উত্তম অভিনীত ছবি হয়ে ওঠার সম্ভাবনা ছিল এই চারটি কাহিনীর। আর 'চবুতরা' ছবিতে প্রথমবারের মত বাংলা ছবিতে অভিনয় করতেন রেখা।

    প্রযোজক অসীম সরকার, পরিচালক আলো সরকার এই বিষয়ে কথা বলেন শক্তি সামন্তের সাথে। রেখা রাজি হন। আর থাকতেন আমজাদ খান।

    কিন্তু কোন এক অজ্ঞাত কারণে এই ছবিগুলি আর হয় নি।

    এমনকি 'কোয়েলের কাছের' মুহরত হয়ে যাবার পরও হয় নি। সে মুহরতে অমিতাভ বচ্চন ও এসেছিলেন ।

    একবার ভেবে দেখুন যশোবন্ত এর অথবা সুকুমার বোসের ভূমিকায় মহানায়ককে ।

    বুদ্ধদেববাবুর এই ঘটনাগুলি মনে আছে। তবে কোন আক্ষেপ নেই।

    লেখক এতগুলি বছর পেরিয়ে এসে আজ হয়ত আর দু:খ পান না। তবে মহানায়ক এবং কথাশিল্পীর অগনিতভক্তদের কাছে এ আক্ষেপ যাবার নয় ।

    বুদ্ধদেব গুহর লেখাগুলি নিয়ে এই ব্যাপারটা বারবারই হয়েছে। সত্তরের দশকে বিপুল জনপ্রিয়তা পায় আকাশবাণীতে অভিনীত 'কোয়েলের কাছে'। যশোবন্ত হতেন অজিতেশ বন্দোপাধ্যায়। জানি না আকাশবাণীর আর্কাইভে আছে কিনা সেই অবিস্মরনীয় নাটকটি ।

    আজ পর্যন্ত বাংলা সাহিত্যের এই অসামান্য মাইলস্টোনটিকে নিয়ে কোনো ছবি কেন যে হয় নি সেটা সত্যি রহস্য ।

    একই ব্যাপার 'একটু উষ্ণতার জন্য' নিয়ে । 'একটু উষ্ণতার জন্য' উপন্যাসটি আটের দশকে শ্রুতিনাটক হিসেবে অসামান্য সফল হয় অপর্ণা সেন ও দীপঙ্কর দের অভিনয়ে ।

    রবীন্দ্রসদনে হল তো ভরে যেতই, বহু মানুষ সদনের সিঁড়িতে বসে শুনতেন সেই শ্রুতি নাটক।

    মহানায়কের সময়ের অনেক পরও আবার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে ছবিটি হবার এবং আবার হয় নি ।

    পরবর্তী কালে 'কোজাগর'ও হিন্দী তে ছবি হবার কথা ছিল, নানা পাটেকার কে নিয়ে। হয় নি ।

    'মাধুকরী' র ব্যাপ্তিও ধরা পড়ল না কোনো ছবিতে ।

    কেবল মাত্র আটের দশকে দূরদর্শনে বুদ্ধদেব গুহর বারোটি গল্প থেকে তৈরী হয়েছিল 'অয়ন'। এখানেই শুরু, এখানেই শেষ। আর হয় নি।

    তবে 'বাতিঘর' ওড়িয়া ভাষায় অত্যন্ত সফল চলচ্চিত্র হয়েছিল। খুব জনপ্রিয় হয় এই ছবির গানগুলি। সাধু মেহের অভিনীত দ্বিভাষিক এই ছবিটি বাংলাতেও মুক্তি পেয়েছিলো !

    তবে বাংলায় আজ পর্যন্ত কোনো সত্যিকারের বড়মাপের পরিচালক কালজয়ী এই সাহিত্যিকের কোনো লেখা থেকে কোনো সার্থক চলচ্চিত্র আমাদের উপহার দিতে পারেন নি ।

    আজ থেকে প্রায় আঠেরো উনিশ বছর আগে 'সাসানডিরি' খুব সফল ভাবে মঞ্চস্থ হয়। পরিচালক ছিলেন অনিন্দিতা সর্বাধিকারী। সৌমিত্র, সাহেব চট্টোপাধ্যায় অভিনীত এছাড়া 'ভোরের আগে' ছবি হয়েছে নব্বইয়ের দশকে।

     

    মাধুকরী মঞ্চস্থ করার দুঃসাহসী কাজে ব্রতী হন কৃষ্টি নাট্য দল ! পরিচালনা এবং পৃথুর ভূমিকায় অভিনয়ের যুগপৎঅসমসাহসী দায়িত্ব পালন করেন সীতাংশু খাটুয়া 



    'সন্ধ্যের পরে' নিয়ে মরমী টেলিফিল্ম করেছিলেন পরিচালক রাজা সেন। অভিনয়ে ছিলেন শুভেন্দু।

    ফেলুদা, কাকাবাবু কে নিয়ে বাৎসরিক চলচ্ছবি তো বটেই এখন তো কমিক স্ট্রিপ ও লেখা হচ্ছেরঙ, অস্পৃশ্য থেকে গেছেন শুধু ঋজুদা। অথচ বেস্টসেলার লিস্টে এখনো ঋজুদার জনপ্রিয়তা অব্যহত। কালানুক্রমিকতা অনুসারে ঘনাদা ফেলুদার পরই কিন্তু বাংলা সাহিত্যে আবির্ভাব ঋজুদার। আর আবির্ভাবেই তুমুল জনপ্রিয়তা।

    বাংলার ঘরে ঘরে আজ ‘ঋজু' নামটির ছড়াছড়ি । অথচ কোনো এক রহস্যজনক কারণে আজও পর্দায় এলো না 'ঋজুদার র একটি গল্পও! 'গুগুনোগুম্বারের দেশে' বা 'রুআহা' র পটভূমি না হয় কৃষ্ণ মহাদেশ। কিন্তু অ্যালবিনো, বনবিবির বনে নিয়ে কি সৃষ্টি করা যেত না শিল্প এবং বানিজ্যসাফল কোনো সার্থক ছবি? একটা কারণ হয়ত, লেখকের একটি শর্ত ! শুটিং করতে হবে আউটডোরে, যথাসম্ভব আসল পটভূমিকায় ! এখানেই হয়ত আটকে গেছেন অনেক পরিচালক !

    ঋভুর শ্রাবণ নিয়ে ছবি করতে চেয়েছিলেন গৌতম ঘোষ, বাংলাদেশের হওয়ার কথা ছিল আউটডোর লোকেশনের শুটিং! ঋতুপর্ণ ঘোষ ‘একটু উষ্ণতার জন্য’র স্ক্রিপ্ট তৈরী করে নিয়ে এসেছিলেন লেখকের কাছে! ছবি হয়নি, জানি না সেই অপ্রকাশিত স্ক্রিপ্ট এখন কোথায়! কমলেশ্বরের ইচ্ছে ছিল কোজাগর কে রুপোলি পর্দায় তুলে আনার। ঋজুদা নিয়ে ছবি করার ঘোষণা করেছিলেন অরিন্দম শীল। অ্যালবিনো আর গুগুনগুম্বারের দেশে! ঋত্বিক চক্রবর্তী ঋজুদার ভূমিকায়! আজও হয় নি !

    এবার এক সঙ্গে দু দুটি খবর !

    এক বাবলি করতে চলেছেন রাজ চক্রবর্তী আর দুই প্রাপ্তি ছোট গল্প থেকে ছবি করতে চলেছেন তরুণ পরিচালক অনুরাগ পতি। সার্থক, কালজয়ী সাহিত্য থেকে সবসময়েই যে রসোত্তীর্ণ চলচ্ছবি সৃষ্টি হবে তার কোনো মানে নেই! বরং উল্টোটাই হয়ে এসেছে !

    গানের মত সাহিত্যও লেখকের একার নয়! শ্রোতা যেমন মনে মনে গাইতে থাকেন, প্রকৃত পাঠকও চরিত্র গুলিকে গড়ে নিতে থাকেন মনের বনে, একাত্ম হতেথাকেন তাদের সকাল-সন্ধ্যেয়, সুখ-দুঃখে-আনন্দে-বিষাদে। বইয়ের পাতা থেকে বেরিয়ে এসে ঋজু, রুদ্র, সুকুমার বোস, প্যাট গ্লসকিন, ছুটি, কুর্চি, পৃথু, লালসাহেব, যশোবন্ত, অভি, বাবলি, তিতলি, সায়ন মুখার্জি, মুঞ্জরি, মানি, দিগা পাঁড়ে, ঠুঠা বাইগা, রাম, সরিৎ মেসো, নাজিম সাহেব, রুষা চরিত্র গুলি জীবন্ত হয়ে যান লক্ষ পাঠক পাঠিকার মনের ঘাসে দিগন্তে !

    প্রতিটি পাঠকের কল্পনায় যেন পুনর্জন্ম হয়ে চলে একেকটি চরিত্রের তাদের চলন, বলন, আচার, আচরণ সহ! এক এক জন প্রকৃত পাঠকের মনোভূমি যেন চরিত্রগুলির নতুনতর একেকটি জন্মভূমি, সেখানে জীবন্ত হয়ে থাকে চরিত্রগুলির অজস্র মনোপ্রক্ষেপ, অগণিত সংস্করণ !

    চলচ্চিত্রের মুশকিলটা এখানেই ! দর্শকের মনের কোণায় গড়ে ওঠা ছবির সঙ্গে রুপালি পর্দার ছবি মিলে গেলে ভালো, আর না মিললে সামান্যতমআঘাতে চুরমার হয়ে যায় বিপুল পরিশ্রমে গড়ে তোলা ফিল্মের ছদ্ম যাদু বাস্তবতা !

    আসলে সাহিত্য আর চলচ্চিত্র দুটি আলাদা শিল্প মাধ্যম !

    বুদ্ধদেব গুহর মত বিপুল জনপ্রিয় একজন কথাশিল্পীর লেখা থেকে ছবি করা প্রধানতঃ দুটি কারণে বিপজ্জনক !

    প্রথম কারণটা আগেই বলেছি।

    সেটা অন্য যে কোনো প্রতিষ্ঠিত, সার্থক লেখকের লেখার ক্ষেত্রেও সত্যি ।

    অন্য কারণটা হলেন স্বয়ং বুদ্ধদেব গুহ ! রূপ-রস-বর্ণ-গন্ধ সহ যে সর্বব্যাপী অডিওভিস্যুয়াল এফেক্ট তৈরী হয় তাঁর লেখার ছত্রে ছত্রে, যেভাবে সন্ধ্যে নামে, বর্ষা আসে, ফুলের গর্ভাধান হয়, মাটির গন্ধ, ঘামের গন্ধ মিশে যায় মুলারি বাইয়ের রূপ বর্ণনায়, পৃথিবীর কোন ক্যামেরার ক্ষমতা আছে তাকে তুলে ধরে?

  • বিভাগ : আলোচনা | ০৭ ডিসেম্বর ২০২০ | ১৭৯৫ বার পঠিত | ১ জন
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Shubhra Roy | ০৮ ডিসেম্বর ২০২০ ০১:১৫101006
  • বুদ্ধদেব গুহ একটি বাল 

  • প্রভাস চন্দ্র রায় | 117.226.167.197 | ০৮ ডিসেম্বর ২০২০ ০৫:৫৭101007
  • এই লেখার সঙ্গে আমিও একমত। বুদ্ধদেব গুহ আমার অত্যন্ত প্রিয় লেখক। ওনার লেখার বিষয়বস্তু এতটাই অন‍্যরকম, পটভূমিকা এতটাই বিস্ততৃ, চরিত্রগুলো এতটাই জীবন্ত, পড়তে পড়তে কখন যেন চলচ্চিত্রের মতো দৃৃৃশ‍্যপটের ভিতরে নিজের অজান্তে ঢুকে পরতে বাধ্য হই। সমস্ত চরিত্র, সে ঋজুদা রুদ্র পৃথু লালসাহেব সুুকুমার তিতলি যেই হোক, এতবার পড়ে পড়ে নিজের মতো একটা ধারণা জন্ম নিয়েছে, একটু ভয় তো হয়ই, যদি চলচ্চিত্রে তার অন‍্যরকম দেখি, যদি আমার ধারণার সঙ্গে না মেলে, তাহলে দ্বিতীয় বার সেটা দেখতে চাইব কিনা সন্দেহ।


    তবে তিনি তাঁর রচনায় চলচ্চিত্রের সমস্ত উপাদানগুলো নিজেই এমনভাবে তৈরী করে রেখেছেন, যে কোন পরিচালকের পক্ষে তার চিত্ররূপ দেওয়া খুব কঠিন হবে বলে মনে হয় না।


    তাঁর লেখা যখনই পড়ি মনে হয় কবে চলচ্চিত্রে জীবন্ত হয়ে আমাদের কাছে আসবে। সেই আশায় যৌবন থেকে এই বয়স পর্যন্ত বসে আছি।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় মতামত দিন