• টইপত্তর  আলোচনা   সমাজ

  • সমরেশ বসু

    গৌতম রায়
    আলোচনা | সমাজ | ১৩ নভেম্বর ২০২০ | ২০১ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • একটি অখন্ড জাতির প্রতীক হিশেবে ' ফকির'কে সাব্যস্ত করেছিলেন সমরেশ বসু ।একজন মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষ এই ফকির।আমার আবাল্য বেড়ে ওঠা শহরের অতীতের এক প্রতিভু।যে মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষটি একদিন মুক্তারপুর শ্মশানে শায়িত মৃতদেহের গায়ের রঙ ঘিরে শোকাতুর সমরেশ কে প্রশ্ন করেছিল, সেই মুক্তাপুরেই রাজার বেশ ছেড়ে একদিন ফকির হয়ে ভূমিশয্যা নিয়েছিলেন সমরেশ।


                              আমার প্রথম ভালোবাসার মতো এই শহরে একদিন রশিদ আলি দিবসের মিছিলে পুলিশের বন্দুকের সামনে বুক পেতে দিয়েছিল সেই ফকির, মানুষের সাধারণ বোধে যে ছিল একজন পাগল।মানসিক ভারসাম্তহীন বলেই মনে করত লোকে তাকে।স্টেশনের সামনে সুবেশিনীর স্বামী হ্যাট- কোট- টাই সামলে ডাব খাচ্ছে দেখে যে ফকির সুবেশিনীর গাল টিপে দেয়, যার বিনিময়ে সেই নব্য' বাবু' বিরাশিক্কায়  দম নিতে কষ্ট হয় ফকিরের, সেই ফকির ই রশিদ আলি দিবসের মিছিল কে সাহস দেখায়, পুলিশের বন্দুকে একটাও গুলি নেই, তোমরা এগিয়ে এসো।


                       আটের দশকের শেষে নূর হোসেনকে আমরা দেখেছি ঢাকার জনপথে।কবি শামসুর রাহমানের ভাষায় তা ছিল; বুক নয় , বাংলাদেশের হৃদয়।সেই হৃদয়কে আমরাস ছিন্ন হতে দেখেছি চোখের সামনে। কিন্তু ঢাকার নূর হোসেনের অনেক অনেক আগে নৈহাটি শহরের বুকে তো নূর হোসেনের সঙ্গে প্রথম দেখা সমরেশের।বিগত বসন্তের ললিতরক্ত রাগে ' নূর হোসেন' তখন' ফকির'।এই নূর হোসেনকে তো আমার শহর চেনে না।কারন, যে ইস্কুল- পোস্ট আপিস, পতিতাপল্লীর ভিতর দিয়ে গঙ্গা পেরুনো যাত্রীদের হয়ে লাগেজ বইবার কসরত করতো ফকির, সেই বেশ্যাপল্লী এখন প্রায় নেই ই।সেই বেশ্যাপল্লীতেই এক অতি বাম নেতা তাঁর শাশুড়ির বাড়িতে পত্তনী করছিলেন।সমরেশ তখন আকাশের তারা।সেই বাড়ি করতে বেনিয়মী কারবার আটকেছিল প্রশাসন।তাই সেই অতিবামবুদ্ধিবীচি বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য কতোখানি রক্তলোলুপ বোঝাতে ছেড়েছিলেন নাট্য আকাদেমি।ফকির তখন বেড়াকুড়া সেরে বাসার ফেরার ডানার ঝাপটানি দেয় না বলেই সেই অতিবাম নেতা আজকের শাসকদের সঙ্গে অডিটোরিয়ামের ফিতে কাটে দাঁত ক্যালাতে ক্যালাতে।


    সমরেশ হয়তো আকাশের তারা হয়ে দেখেন।আর এই দেখাটার প্রবাহিত স্রোতের ধারাকে বুঝেই তিনি নিশ্চয় ই ফকির কে অখন্ড জাতির প্রতীক বলে ঘোষণা করেছিলেন সেই অনেককাল আগে।বেঁচে থাকুক আমার নৈহাটি।বেঁচে থাকুক আধুনিক নাট্যবীচিরা , বেঁচে থাকুক গুটিয়ে যাওয়া বেশ্যাপাড়াতে নোতুন গজিয়ে ওঠা আঙুল ফোলা কলাগাছি রেস্তোরাঁ।ফকিরদের পাগলামো, যে দধিচির হাড়ের দৌলতে, সেই হাড়ের বাষ্পশকটেই তো বাবুসাবেদের চড়া।তাতেই তো গরিফার সেনপাড়া থেকে রুবি দত্তের আসা যাওয়া।


                                   রুবি দত্তের আদি সাকিন ঠিক কোথায়? নদিয়া জেলাতে? নাকি নৈহাটির সেনপাড়াতে?সমরেশ নৈহাটিতে থাকলে , সন্ধ্যেবেলায় তাঁর স্থায়ী ঠিকানা ছিল 'সরস্বতী বুক স্টল' । রুবি দত্ত কি আজ ও সমরেশের প্রিয় সেই বইয়ের দোকানটিতে মোসায়েব দিয়ে স্লিপ পাঠান? তবে তা কেবল বইয়ের ই রিকুইজিশন! এইসবের আবর্তনেই আজ ও ভীষণ ভাবে জীবন্ত এই আতপুর, জগদ্দল, ভাটপাড়া, নৈহাটিতে সমরেশ বসু।


                  'গঙ্গা' তে বসিরহাটের ধলতিতা গাঁয়ের রাম মালো কি বধুবেশি রুবি দত্ত কে নৈহাটির নন্দপল্লী থেকে যখন শ্বশুরঘরে নিয়ে গেছিল,' ত্যাখন মুক্তাপুর খালে ছেল জল।এত গেট- ফেট ছিল না।খেল্যের গাঙ দে' বেরিয়ে, হাড়োয়া খালের ভেতর দে', বোদাইয়ের পাশে মালতী বিল।মালতী আর বারুতীর বিল।তারসঙ্গে মুক্তাপুরের খাল।সেই খাল দে' ভাটপাড়ার উতোর বেলে দে' একেবারে গঙ্গা'য় পড়েছিল জীবনযৌবন? এখনো যেন বুজে আসা মুক্তাপুর খাল প্রত্যাশা করে রাম মালোর দল গলুই বেয়ে চলবে তার বুক চিরে। এখনো বারাকপুর শিল্পাঞ্চলের প্রতিটি আনাচ কানাচে নীরব নিশীথিনীতে কান পাতলে কৃষ্ণ বিরহ কাতর রাধারাণীর পদচারণার মতোই যেন মনে হয় হেঁটে চলেছেন সমরেশ বসু।


                   নিজের বাস্তব অভিজ্ঞতার বাইরে সমরেশ বসু একটি শব্দ কখনো লিখেছেন বলে মনে হয় না।যে প্রত্যক্ষ রাজনৈতিক অভিজ্ঞতার ভিতর দিয়ে তিনি প্রতিটি পদক্ষেপ ফেলেছিলেন, সেই অভিজ্ঞতার চিহ্ন তাঁর সৃষ্ট শুধু চরিত্রগুলি ই নয়, প্রতিটি শব্দের ভিতরে রয়েছে।প্রথম জীবনে চটকলের সঙ্গে প্রত্যক্ষ সংযোগের অভিজ্ঞতা থেকে কেবল শ্রমিকের কথাই তিনি লেখেন নি।দেশভাগ কে কেন্দ্র করে পশ্চিমবঙ্গের একটি অংশের উচ্চবর্ণের মানুষ কিভাবে পূর্ববঙ্গের উদ্বাস্তু , বিত্তবান নিম্নবর্গের ধনদৌলত আত্মসাৎ করেছে- এই প্রসঙ্গে সমরেশের সদাগর'সম্ভবত একমাত্র উপন্যাস। বস্তুত এই প্রসঙ্গটি ঘিরে প্রতিভা বসুর একটি ছোটগল্প ' দুকুল হারা' ছাড়া গোটা বাংলা সাহিত্যে খুব একটা দৃষ্টান্ত খুঁজে পাওয়া যায় না।


                               সমরেশের বিভিন্ন লেখা তে অমর হয়ে আছেন সত্যমাস্টার। গত শতকের চারের দশকের শেষ লগ্নে সমরেশের বিশ্বাসের রাজনৈতিক পরিমন্ডলে যে সাংস্কৃতিক চেতনাগত অস্থিরতা, যা বাংলায় তথা ভারতে শ্রমিক- কৃষকের মুক্তির স্বপ্নকেই কার্যত অনেকখানি অকেজো করে দিয়েছিল, সেই প্রেক্ষিত কে অবলম্বন করে তাঁর গল্প, ' মানুষ' পড়লে আজ ও বিস্ময় জাগে।এখানে সমরেশ লিখছেন;" সুজিত কঠিন গলায় আদেশ করল।ধীরেশ সামনে ফিরে চলতে আরম্ভ করল।ছাঁই ঘেঁসের উপর দুজনের পায়ের শব্দ খসখস করে বাজছে।রিভলভারের শব্দটাসশহরের কোথাও কোনোরকম সন্দেহ বা কৌতুহল সৃষ্টি করেছে বলে মনে হয় না।সুজিত আবার বলল, 'আপনাকে দেখে অনেক সময় আমার ব্রিটিশ স্পাই জর্জ রিলি এর কথা মনে পড়ে যায়।সোভিয়েট বিপ্লবকে যে বানচাল করতে রাশিয়ায় ঢুকেছিল।"


                       রাজনৈতিক ধারাপ্রবাহের এই লোলচর্মবিহীন কালচিত্র আমাদের গোটা সমাজটাকে কোথায় পৌঁছে দিতে শুরু করেছে, সমরেশ তা যেন আপ্তবাক্যের মতো বলছেন;" পার্টি কারো শয়তানি করবার একটা যন্ত্র নয়, যদিও সাময়িক ভাবে সেই ট্রেজেডি না ঘটেছে তা নয়।" সমরেশের এই ভবিষৎবাণী মিছে হয় নি।'তিনপুরুষে' র কালোত্তীর্ণতায় এই ইঙ্গিত আঁকতে গিয়ে হয়তো মানসিক যন্ত্রণাতে দীর্ণ হয়েছেন সমরেশ।তবু কয়লায় কঠিন সত্য কে মেলে ধরেছেন এতোটুকু ভান না করে।আবার সেই সত্যকে তুলে ধরবার তাগিদে একটি শব্দেও কিন্তু বিষোদগারের ন্যুনতম আভাসটুকু ও নেই।নেই তাঁর প্রতি অবিচার জনিত কোনো ব্যক্তিযন্ত্রণার বহিঃস্ফুরণ। তাঁর একদা সহযোদ্ধা রা সমরেশের প্রতি এই স্বভাবসুলভ ঔদার্য দেখাতে পেরেছেন কি না, তা নিয়ে বিতর্ক আছে।পিছনপানে চাইতে গিয়ে অল্পকিছুদিন আগে ও এক প্রতামিথযশা নেতা, সমরেশের উপন্যাস অবলম্বনে পেশাদার থিয়েটারে সে গুলির অবতারণা করে , বিষোদগার করেছেন ব্যক্তি সমরেশের।মজার কথা হল, পেশাদার মঞ্চের পরিচালক একটি উপন্যাসের স্বত্ত্ব কেনবার পর, বক্স অফিসের দিকে তাকিয়ে , সেই উপন্যাসের কি গতি করবেন, তাতে লেখক সমরেশের এতোটুকু ভূমিকা থাকে কি?

  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। বুদ্ধি করে প্রতিক্রিয়া দিন