• বুলবুলভাজা  কাব্য  শুক্রবার

  • ভিতরকণিকা

    সমিধ বরণ জানা
    কাব্য | ০২ অক্টোবর ২০২০ | ১২৯৪ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • (১)
    হারানো তরবারির কথা বলতে গেলে
    তোমার চোখে যুগপৎ ফুটে ওঠে ভয় ও বিরহ
    তার হাত ধরেই জোয়ার ভাঁটায় এনেছিলে মন্থরতা
    তার আঙুল ছুঁয়েই মাছের ডিমের মতো দুলে উঠেছিল
    থোকা থোকা রক্তফোঁটা
    তার হাসির মধ্যে দিয়ে
    তোমার উপরে বৎসরকাল ঝরে পড়েছিল
          নানা রঙের বৃষ্টিপাত
    আর বালির উপরে ক্ষয়ে যাচ্ছিল তোমার বর্ণহীন ঝুলি

    এখন দ্বিখণ্ডিত জল, তোমার চরণ দুটি ধুয়ে
    গর্জনরত ও গতিময় ঢেউয়ের দিকে ফিরে যাচ্ছে
    তুমি বারণ করছ না

    ~~~~


    (২)
    চন্দ্রবিন্দু ভেঙে চলে যাচ্ছে নৌকা
    নৌকার লন্ঠনরূপে ফুটে ওঠে
          ওই চন্দ্রবিন্দুর বিন্দু
    কোনো পাড় থেকে, সেতু থেকে দৃশ্য হয় না নৌকা
    দৃশ্য হয় না চন্দ্রবিন্দুর পড়ে থাকা ভগ্ন শরীর
    শুধু দেখা যায়
          অখণ্ড নক্ষত্রমণ্ডল পার হয়ে
          কাঁপা কাঁপা জল কেটে
    নিভু নিভু আলো, মন্থর চলে যাচ্ছেন

    ~~~~


    (৩)
    কার অভ্যন্তরে সহস্র বৎসরের নিদ্রা থেকে
    আচমকাই জেগে উঠবে প্রাচীন ব্যাধ
    ঝিকিয়ে উঠবে তিরের ফলা, ধনুকে লাগবে টংকার
    ওই অপেক্ষার দিকে
    সাদা কাগজের টুকরো আশ্রয় করে
    এক বুদবুদ থেকে আরেক বুদবুদের মধ্য দিয়ে
    ভেসে চলে যাচ্ছি আর কাগজকে বলছি :
    আরও শক্ত করো ডানা
    বক্ষপঞ্জরে আরও গভীর কাটো খাঁজ
    লুকিয়ে রাখি কালি
    লুকিয়ে রাখি আমাদের কলম ও কলঙ্ক

    ~~~~


    (৪)
    লম্বা দুটি তালগাছের নিচে দাঁড়িয়ে
    তুমি সূত্রের কথা বলছ, আমি ছবির কথা
    তোমার সূত্র ধরে ঝাঁকে ঝাঁকে ফুটে উঠছে ফুল
    দল বেঁধে উড়ে আসছে পাখি ও প্রজাপতি
    আমার ছবি জুড়ে জলের উপরে নুয়ে পড়ছে বিস্ফারিত তালপাতা
    গভীরের দিকে সাঁতরে যাচ্ছে কৃষ্ণবর্ণ তাল

    তুমি কি একবার ভেসে পড়ার সূত্র আওড়াবে না
    আমি কি একবার এঁকে ফেলব না নীল রঙের ডোঙা

    এসবের আগেই কি আমাদের হঠাত এসে বিদ্ধ করবে
          বিষমাখা ধারালো পাথর

    ~~~~


    (৫)
    ঠাসা কচুরিপানার উপর ভেসে ওঠে তোমার ক্রুশবিদ্ধ মুখ
    তাকে আমরা চিনতে পারি না
    তাকে নড়বড়ে কাঠের সাঁকো বলে মনে হয়
    সঙ্গীকে বলি, এর উপর দিয়ে চলো, ওইপাড়ে যাই

    ওইপাড়ে ঠাকুর দেখি
    ধুনুচি নাচে ঘর্মাক্ত হয়ে ওঠে যুগল শরীর
    ঢাকের বোলে ভক্তিপূর্ণ খেলা জেগে ওঠে

    অতঃপর বাঁকা চাঁদের আলোয় বাড়ি ফিরতে চেয়ে
    লাল ঝরোখার নিচে হারিয়ে যায় আমাদের গ্রাম, সাঁকো, এপার-ওপার

    কচুরিপানার স্যাঁতস্যাঁতে দেশে পাথর ভাঙার কাজে
    আমদের নিদারুণ মাস কেটে যায়

    ~~~~


    (৬)
    দীর্ঘ সময়কাল
    তোমার একটা গান গাওয়ার ছবির দিকে
    তাকিয়ে থাকতে থাকতে বুঝতে পারছি
    মসৃণ সুরলোকে যে পেলব রঙিন ধোঁয়া খেলে যাচ্ছে
    সেখানে একমাত্র বেঢপ, এবড়ো-খেবড়ো হ’ল
          দুলে ওঠা তোমার ছোট্ট মাথাটি

    আমি উচ্চারণ করছি না হর্ষ
    আমি উচ্চারণ করছি না বিষাদ
    শুধু ধীর ও অনিবার্য হাতে
    তোমার বিসদৃশ মাথা ছিঁড়ে ফেলছি

    এখন সুর হাতড়ে হাতড়ে
    সম্পূর্ণ অচেনা এক তুমি গড়ে উঠবে

    ~~~~


    (৭)
    একটা গল্পের ভিতরে জেগে উঠি
    জলহীন জঙ্গলহীন গ্রাম, রাশি রাশি বালির পুতুল
    বালির তৈরি ঘরবাড়ি
    কতিপয় বিচ্ছিন্ন নক্ষত্র বুকে হেঁটে চলে যাচ্ছে এদিকে-সেদিকে

    গ্রাম পার হয়ে যার সঙ্গে দেখা হয় সে
    ঝাঁকা মাথায় নিয়ে কোথায় চলেছে
    তার পাথরের তৈরি চোখমুখ, অগ্নিময় জিহ্বা
    এক হাতে হাড়ের বানানো লাঠি

    তাকে বলি, তোমাকে দেখতে চেয়ে এতদূর
    পেরিয়ে এসেছি বালিগ্রাম
    পেরিয়ে এসেছি ছিন্ন নক্ষত্র
    একটু নামাও তোমার ঝাঁকা, দু’দণ্ড বিশ্রাম নাও

    আমাদের অভিশপ্ত গল্পের জাগরণ শেষ হোক
          তোমার ঝাঁকায়

    ~~~~


    (৮)
    বনমোরগ কোথায় আছে জানি না
    তবু তার খোঁজে চলেছি আমরা তিনজন

    আমরা হাত ধরাধরি করে পার হচ্ছি ক্ষীণদৃষ্টির বন

    একই ছবি ভেসে উঠছে আমাদের তিনজনের মনে :
    সারা রাতের অন্ধকারে ম্রিয়মান হয়ে রয়েছে বনমোরগের বাদামি ঝালর
    কপালের উপরে নেতিয়ে পড়েছে তার প্রস্ফুটিত ঝুঁটি

    তার জন্যে আমরা নিয়েছি সাদা খই, কুঁজোভর্তি জল

    আমরা তিনজন না পৌঁছানো পর্যন্ত
    সেখানে ভোর হবে না

    ~~~~


    (৯)
    তোমার চোখমুখ ভেঙে দিয়ে উত্থিত হচ্ছে মুকুট
    তার নিচে তোমার বুক যেন অস্থির তৃণভূমি
    বাদল মেঘের গরু চরে বেড়াচ্ছে এপার থেকে ওপার
    একটু পরে সন্ধ্যাবেলা
    যখন নাভিদেশ থেকে বাঁশি বেজে উঠছে
    ধূলিধূসরিত, ফাটা চরণযুগলের উপরে
    ঝাঁক বেঁধে নেমে আসছে কাক
  • বিভাগ : কাব্য | ০২ অক্টোবর ২০২০ | ১২৯৪ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Prativa Sarker | ০৩ অক্টোবর ২০২০ ২৩:৫৩98015
  • কী অপূর্ব সব কবিতা !  

  • মলয় পাহাড়ী | 2401:4900:382a:1323:1:1:f5b6:993b | ০৪ অক্টোবর ২০২০ ০৯:৫৪98034
  • অপূর্ব।এর চিরবিষাদের ভিতর আড় বাঁশি বাজিয়ে চলে কোন পথিক।এই পথ শেষ হয় না।


    অভিনন্দন ও ভালোবাসা সমিধ।

  • পঙ্কজ চক্রবর্তী | 2409:4060:29a:90dd:273f:7a4a:76f7:4baf | ০৪ অক্টোবর ২০২০ ১৪:৪৯98047
  • অসামান্য এই গুচ্ছ কবিতা আসলে এক পালাবদল।আমি মুগ্ধ প্রিয় কবির আচ্ছন্ন ভাষায়।

  • অচিন্ত্য রায় | 2409:4061:2119:999c:2ed5:70e8:be33:71f | ০৪ অক্টোবর ২০২০ ১৯:০৬98055
  • প্রতিটা লেখাই ভালো ❤❤❤

  • অমিতরূপ চক্রবর্তী ৷ | 2402:3a80:1ade:d5a9::f51:3c7f | ০৪ অক্টোবর ২০২০ ২১:৪৬98059
  • দারুণ সব লেখা ৷ কী একটা পরশ রেখে গেল ৷ আহা ! এমন একটা কাঁপন , যাকে ছুঁতে পারি না , কিন্তু বুঝতে পারি ৷ 

  • রঞ্জন | 2405:204:1024:7e1e:3f8d:dcca:c8a7:3443 | ১১ অক্টোবর ২০২০ ১১:১৯98260
  • আজ পড়লাম। মনে হল আগে কেন পড়িনি? আরও চাই।

  • বিধান সাহা | 43.230.121.3 | ২৪ জানুয়ারি ২০২১ ২২:৪৩102008
  • অসাধারণ! ভীষণ মুগ্ধ হলাম।

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা মনে চায় মতামত দিন