• বুলবুলভাজা  আলোচনা  বিবিধ

    Share
  • কোভিড এবং আমাদের প্রতিবেশীরা

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক লেখকের গ্রাহক হোন
    আলোচনা | বিবিধ | ৩০ জুন ২০২০ | ২০৭৮ বার পঠিত | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
  • আমাদের এই ঘটনা কলকাতার। গত ২৩ জুন সকালে আমার husband-এর করোনা পরীক্ষা হয়, ওইদিন বিকেলেই হসপিটাল থেকে ফোন করে জানানো হয় ওর শরীরে করোনা ভাইরাস রয়েছে। এরপর থেকে শুরু হয় আমাদের লড়াই। আর এই লড়াই শুধু সুস্থ হয়ে ওঠার লড়াই নয়, এই লড়াইয়ের বেশিরভাগটাই সমাজকে শিক্ষিত করার লড়াই। রিপোর্ট পাওয়ার পর থেকে কী কী ঘটেছিলো এক এক করে বলছি -

    ১. আমরা যে ফ্ল্যাটে থাকি সেখানকার কমিটিতে ফোন করে আমরা নিজেরাই জানাই যে রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে, তাই আজ থেকে আমরা আর বাড়ির বাইরে যাবো না। সকলকে যেন এই কথা জানিয়ে দেওয়া হয়।

    ২. পরদিন সরকার থেকে আমাদের কাছে ফোন আসার কথা ছিল। কিন্তু সেদিন কোনও ফোন আসেনি।

    ৩. পরদিন দুপুর ১২টা অবধি অপেক্ষা করেও ফোন না আসায় আমরা নানাভাবে সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করার প্রক্রিয়া শুরু করি। প্রায় বিকেল ৫টা নাগাদ সঠিক দপ্তরের সঙ্গে যোগাযোগও হয়। ওরা বলে পরদিন বাড়িতে লোক পাঠাবে। কিন্তু ইতিমধ্যে আমাদের পাড়ায় শুরু হয়ে যায় গন্ডগোল। কারণ আমি আমার ৫তলার ফ্ল্যাটের বারান্দায় দাঁড়িয়ে ফোনে কথা বলছিলাম। এক মহিলা, ফ্ল্যাটেরই আবাসিক, আমাকে রাস্তা থেকে আঙ্গুল নাচিয়ে বলে 'এই মহূর্তে ঘরে যান, পাড়ায় আপনার জন্য ভাইরাস ছড়াচ্ছে।' এরপর আশেপাশের বাড়ি, ফ্ল্যাট থেকে নানারকম অপ্রীতিকর মন্তব্য আমার কানে আসতে শুরু করে, যেমন আমরা নাকি উপর থেকে রাস্তায় থুতু ফেলছি, আমরা করোনা হওয়ার পরও বাড়িতে লুকিয়ে বসে আছি ইত্যাদি। ওইদিন বিকেলেই পাড়ার মুদিখানার দোকানকে আমি যখন কয়েকটা জিনিস আমার ঘরের বাইরে রেখে যেতে বলি, তখন তারা আমার মুখের উপর ফোন কেটে দেয়। এরপর আমার বরের এক বন্ধু এসে জিনিস এবং প্রয়োজনীও ওষুধ আমাকে কিনে দিয়ে যায়। যদিও সেই কারণেও তাকে কথা শুনতে হয়েছিল।

    ৪. এর পরদিন স্বাস্থ্য কর্মীরা এলেন। আমি সব রিপোর্ট ওদের দেখলাম। ওরা ছবি তুলে, আমার বরকে পর্যবেক্ষণ করে বাড়িতেই থাকার অনুমতি দিয়ে গেল। কারণ উপসর্গ তেমন কিছু ছিলোনা, বাড়িতে থেকেই চিকিৎসা সম্ভব ছিল। আর তাছাড়া আমরা যে ফ্ল্যাটে থাকি, সেখানে দুটো আলাদা ঘর এবং ঘর লাগোয়া বাথরুমও রয়েছে। আর বাড়িতে শুধু আমরা দুজনই থাকি।

    কিন্তু বিকেলে পাশের পাড়ায় মানে আমার বরের বাড়ির পাড়া থেকে খবর এলো, সেখানে নাকি লোকের মোবাইলে মোবাইলে আমার বরের করোনা রিপোর্ট ঘুরছে। সবাই ওকে নিয়েই আলোচনা করছে। আসলে ওই পাড়ায় আমার শ্বশুরবাড়ি, ওখানে আমার অসুস্থ শাশুড়ি থাকেন আমার ভাসুরের পরিবারের সাথে। আর আমরা শাশুড়ি অসুস্থ বলে ওনাকে এই খবরটা আমরা দিইনি। কিন্তু লোকে যেভাবে বলাবলি শুরু করলো তাতে আমরা তখন বাড়ি বসে চিন্তায় অস্থির। তারমধ্যে আমার ফ্ল্যাটের লোক আর পাড়ার লোকের থেকে তো বাজে বাজে মন্তব্য শুনছিলামই অবিরাম।

    ৫. অবশেষে চারদিন পর সকালে অনেক কষ্টে যোগাযোগ করলাম আমাদের এলাকার পৌরমাতার সঙ্গে। তিনি এসে আমার সব কথা শুনলেন মন দিয়ে। তারপর তার মধ্যস্ততায় বর্তমানে ফ্ল্যাটে আমরা একটু শান্তিতে আছি। যদিও আমার শ্বশুরবাড়ির পাড়ার অবস্থা বেশ খারাপ। ওখানে কোনও মুদিখানা ওদের মাল দিচ্ছে না, এমনকি এলাকার লোক পর্যন্ত ওদের সঙ্গে কথা বলছে না, দেখলেই পালিয়ে যাচ্ছে বা লুকিয়ে পড়ছে।

    ৬. এছাড়াও আজ ৬দিন হয়ে গেছে, সরকার থেকে এখনও কেউ গাড়ি নিয়ে sanitization করতে আমাদের এপার্টমেন্টে আসেনি। এমনকি গত ৬দিন ধরে আমার ফ্ল্যাটের বাইরে ময়লার স্তুপ জমে আছে, ময়লা যে নেয় সে আমাদের ফ্ল্যাটে আসছে না করোনা হয়েছে বলে। অন্যরা তাদের বাড়ির ময়লা বাইরে গিয়ে ফেলে দিয়ে আসতে পারছে, কিন্তু আমাদের তো সেই উপায়ও নেই।

    রোগ নির্ণয়ের পর, এতগুলো দিন কেটে গেছে। এই কদিনে আমি এতরকম ঝামেলায় পড়েছি যে মাঝেমাঝে বুঝতেই পারি না বাড়িতে অসুস্থ রোগির দিকে নজর দেব, নাকি লোকের কথার জবাব দেব। তার উপর শ্বশুরবাড়ির দিক থেকে এক একদিন এক একরকম খবর। একদিন যেমন ওই পাড়ায় কারা যেন রটিয়েছিল - আমার ভাসুরকে এম্বুলেন্স এসে তুলে নিয়ে গেছে। আমার বরের এক বন্ধুর থেকে খবর পেয়ে আমরা ভাসুরের সঙ্গে যোগাযোগ করি, ও শুনে তো অবাক।

    এমনকি এই সময়ই বুঝলাম অনেক কাছের মানুষও কাছের নয়। একসময় যাদের পাশে আমরা সবরকম ভাবে থাকার চেষ্টা করেছি, আজ তারা একটাবার ফোনে জিজ্ঞেস পর্যন্ত করছে না, তোমাদের কি লাগবে বলো, দিয়ে আসছি। এমনকি এদের মধ্যে কিছু মানুষ আমার শ্বশুরবাড়ির পূর্বপরিচিত হলেও, এই খবর শোনার পর থেকে তাদের খোঁজ পর্যন্ত নেয়নি। কিন্তু মজার কথা হলো তারা জানে, এইসময় ডাক্তার আমার বরকে ভালো ভালো খাবার খেতে বলেছে, আর আমার পক্ষে বাড়ি থেকে বেরিয়ে সেসব কেনা সম্ভব নয়। আর ওদিকে আমার শ্বশুরবাড়িতে একটা ২বছরের শিশু আর আমার অসুস্থ শাশুড়িকে নিয়ে আমার ভাসুর হিমশিম খাচ্ছে।
    সব কিছু দেখে শুনে বারবার মনে হচ্ছে আমাদের লড়াইটা বোধহয় রোগের সঙ্গে নয়, আমাদের মনের মধ্যে জমে থাকা অশিক্ষার অন্ধকারের সঙ্গেই।

    তবে সবটাই যে খারাপ এমনটা বলতে পারিনা। যারা সত্যিই বোঝে এবং সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়, এমন মানুষের সংখ্যাও কম নয়। আমার এবং আমার বরের অনেক কাছের বন্ধু এবং আত্মীয়ই এই খারাপ সময় আমাদের পাশে সবসময় থাকছে এবং ছাতার মতো আমাদের সমস্ত ঝামেলা থেকে রক্ষাও করছে। আমার পাশের ফ্ল্যাটের পরিবার, যাদের সবচেয়ে সমস্যা হওয়ার কথা তারা কিন্তু সব জেনেও সবার বিরুদ্ধে গিয়ে আমাদের পাশে থেকেছেন এই সময়টায়।

  • বিভাগ : আলোচনা | ৩০ জুন ২০২০ | ২০৭৮ বার পঠিত | | জমিয়ে রাখুন পুনঃসম্প্রচার
    Share
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • রণেন ভট্টাচার্য | 2405:201:8809:1fc8:cc0a:9ed6:bf87:3262 | ৩০ জুন ২০২০ ১৩:২৭94755
  • করোনা থেকে বাঁচা সম্ভব কিন্তু সামাজিক হেনস্থা থেকে বাঁচা অসম্ভব। কি অদ্ভুত ব্যাপার! ভয় পাই অসুখকে নয়, অসুখের কারণে উদ্ভূত সামজিক ঘৃণা কে। 

  • Sanchita samanta | 2402:3a80:a21:df58:0:2:3268:4a01 | ৩০ জুন ২০২০ ১৭:২৩94767
  • Amader o Eki obostha..joto na rog nie duschinta tar Cheye besi roger theke udvutu samajik osikkha theke..it is so called Indian society 

  • Debjyoti datta | 43.251.171.178 | ০১ জুলাই ২০২০ ২০:৫১94800
  • , সত্যি নিজেদের কে আমরা সময় সময় ঠিক চিনতে পারি না। 

আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত