• বুলবুলভাজা  খবর  মায়া মিডিয়া

  • মায়া মিডিয়া

    অনির্বাণ বসু লেখকের গ্রাহক হোন
    খবর | মায়া মিডিয়া | ১০ জানুয়ারি ২০১১ | ৩৭১ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন পুনঃপ্রচার
  • ইউ-আই-ডি ইণ্ডিয়ার গরীবকে আইডেন্টিটি দিচ্ছে - এই শিরোনামে দিল্লী থেকে নামী চ্যানেলের ওয়েবসাইটে লিখেছেন অরুণোদয় মুখার্জী। ছোট, খাস্তা (ক্রিস্পি) লেখা। অরুণোদয়ের নামের পাশে স্যুট-টাই পরা ছোট পাসপোর্ট ছবি, ঝকঝকে চেহারা। খবরটি ১২ জন ফেসবুকে শেয়ার করেছেন, ১৫ জন রি-টুইট করেছেন। খবরের নিচে রয়েছে "আপনার রিঅ্যাকশন' জানতে চেয়ে ক্লিক করার জায়গা। তাতে এখনও অবধি ১৩ জনের পছন্দ হয়েছে, মাত্র দু-জনের অপছন্দ। কিছুতেই লোকের ভালো সহ্য হয় না এরকম দু-এক জন লোক থাকবেই। তাতে কিছু যায় আসে না। আমরা ইণ্ডিয়ানরা তাদের স্রেফ ইগনোর করবো। বেশী বাড়াবাড়ি করলে এমন কমেন্ট লিখবো ঐ খবরের তলায়, যে পালাবার পথ পাবে না। সেটা কথা নয়। কথা হল অরুণোদয়ের লেখা খবর, আমরা এখানে সেইটা অ্যাপ্রিশিয়েট করব।

    খবর শুরু হচ্ছে কার্তিক বর্মনকে দিয়ে। কার্তিকের বয়স ৪৬, পেশা কাগজ কুড়োনো, পশ্চিমবঙ্গ থেকে এসেছেন। আই ডি প্রজেক্টে কার্তিকের নাম উঠেছে। এবার তিনি আই ডি কার্ড পাবেন। আর পেলেই কেল্লা ফতে। তারপরই লাইন দিয়ে কার্তিকের এনরেগাতে কাজ হবে, র‌্যাশন কার্ড হবে ইত্যাদি। অরুণোদয় জানাচ্ছেন "কার্তিকের সমগোত্রীয়রা' - যেমন মুক্তার আহমেদ - এ হোমলেস, প্রচুর আশা নিয়ে তাকিয়ে আছেন যে এবার সুদিন ফিরবে। তার পরেই অরুণোদয় জানাচ্ছেন সন্ত রাম দর্জির মত লোকেদের কথা, যারা এখনও বুঝতে পারছে না এতে কী ভাবে উপকার হবে। সন্ত রাম বলেছেন "এর কি মানে আমি জানি না, কেউ বুঝিয়ে দিলে সুবিধা হবে।' খবরে এর পরের দুটি বাক্য অনবদ্য। অরুণোদয় বলছেন এনরোল করার দু সপ্তাহের মধ্যে ইউ আই ডি নম্বর দেওয়া হচ্ছে। নম্বরটি পেলেই একটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খুলে যাবে ও যিনি নম্বর পেলেন তিনি কার্ড-হোল্ডার, সরকারিভাবে ভারতীয় বলে গণ্য হবেন। তাহলে বুঝুন, এই নম্বরটি না থাকার জন্য এতদিন কত অসুবিধা হচ্ছিল! যদিও অরুণোদয় কার্তিককে সরাসরি এই প্রশ্নটি করেন নি, কিন্তু ব্যাঙ্ক-অ্যাকাউন্ট না থাকার জন্য কাগজ কুড়িয়ে সংসার চালানো কার্তিকের এতদিন দুর্দশার শেষ ছিল না, সেটা বুঝতে আমাদের অসুবিধা হবার কথা নয়। এমনও হতে পারে, এই আই ডি না থাকার জন্য বোঝার কোনো উপায়ই ছিল না যে কার্তিক সত্যিই পশ্চিমবঙ্গ থেকে এসেছেন, না মালয়েশিয়া বা সুদান বা বুলগেরিয়া থেকে এসে দিল্লীতে কাগজ কুড়োচ্ছেন। এইবার আর সন্দেহের অবকাশ থাকবে না। আর আপনি নিশ্চয় চাইবেন না আপনার দেশে মালয়েশিয়ান বা বুলগেরিয়ান বা অন্য কোনো দেশের কাগজ-কুড়ানিদের সংখ্যা বাড়ুক। ঠিক এই জায়গায় দক্ষ সাংবাদিক অরুণোদয় প্রশ্ন তুলেছেন - এর ফলে আবার "প্রাইভেসি' বা নিরাপত্তার কোনো সমস্যা হবে না তো? সভ্য নাগরিক হিসাবে আমরা নিশ্চয় চাইবো না যে কয়েকটি সংখ্যার গেরোতে পড়ে মুক্তার আহমেদ - এ হোমলেস-এর প্রাইভেসি বিঘ্নিত হোক বা তিনি নিরাপত্তাহীনতায় ভুগুন।

    চিন্তার কারণ নেই - উত্তর দিচ্ছেন প্রজেক্ট-এর কর্তা নন্দন নিলেকানি। তিনি বলছেন ইন্ডিয়ার কয়েকশ' মিলিয়ন গরিবলোকের উপকার, যাদের কোনো আইডেন্টিটি নেই, যারা কোনো বেনিফিট পান না। তিনি আরও বলছেন ঝুঁকির থেকেও বড় হল এই গরিবলোকেদের আইডেন্টিটি দেওয়া, তবে আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যাতে ঝুঁকি পুরোপুরি দূর হয়। এর পরই অরুণোদয় মুন্সিয়ানার সাথে আমাদের দেখাচ্ছেন একটি উপকারের উদাহরণ। দিনমজুর রাম বাবুর নম্বর না থাকার জন্য এতদিন সেল ফোন হচ্ছিল না, এখন আইডেন্টিফিকেশন হবার সাথে সাথে সেলফোন হল - আই ডি কে ধন্যবাদ। তার পর আবার অরুণোদয়ের তথ্য সম্বৃদ্ধ রিপোর্টিং - ৩০০০কোটি টাকার প্রজেক্ট শুরু হচ্ছে "পুওরেস্ট অফ দ্য পুওর'-দের দিয়ে। ২০১৪ সালের মধ্যে ৬০০ মিলিয়ন ভারতবাসী এই কার্ড পাবেন। একজন আদর্শ সাংবাদিকের মত অরুণোদয় লেখার শেষদিকে ইন্ডিয়ানদের আশার আলো দেখাচ্ছেন। বলছেন, হরি সিং-এর মত ভিখারীরাও, যারা দিল্লীর ওখলা ফ্লাই-ওভারের তলায় থাকেন, আশা করছেন লাইফ বেটার হবে, - "থ্যাংক্‌স্‌ টু এ ফিউ ডিজিট্‌স্‌।' আই ডি ছাড়া ফ্লাই-ওভারের তলায় থাকা আর আই ডি নিয়ে ফ্লাই-ওভারের তলায় থাকার যে তফাত, তা বুঝে নিতে কোনো অসুবিধেই হল না এইবার।

    উপসংহারে নিজের চিন্তা অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে রেখেছেন লেখার মধ্যে। বলছেন - যদিও প্রজেক্ট এই মুহূর্তে গরিবগুর্বোকে নিয়ে হলেও, মনে হচ্ছে এটা রাইট ডিরেকশনেই যাচ্ছে। শেষ লাইনে ওস্তাদের মার - তাঁর একমাত্র আশা এই প্রজেক্ট যেন ইন্ডিয়ান পুওরদের কাছে ফাঁকা আওয়াজে পরিণত না হয়। অরুণোদয়, ছোট অথচ তথ্যসম্বৃদ্ধ বিশ্লেষণী খবরটির জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

    http://ibnlive.in.com/news/uid-gives-identity-to-indias-poor/138947-3.html?from=tn

  • বিভাগ : খবর | ১০ জানুয়ারি ২০১১ | ৩৭১ বার পঠিত
  • পছন্দ
    জমিয়ে রাখুন গ্রাহক পুনঃপ্রচার
  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
আরও পড়ুন
লকডাউন - Anirban M
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কৃশানু | 213.147.88.10 (*) | ০৯ এপ্রিল ২০১৩ ০৪:০৪89202
  • রিপোর্টিং যে কত কম অবজেক্টিভ হতে পারে তার উদা:
    http://www.anandabazar.com/8desh1.html
    "পঞ্চায়েত ভোট পিছনো-সহ একের পর এক বিষয়ে এ রাজ্যে যখন দু’দল যুযুধান, রাজ্যের অধিকারের প্রশ্নে ফের কাছাকাছি অবস্থানে দেখা যাচ্ছে তৃণমূল এবং সিপিএমকে! "
  • pi | 78.48.231.217 (*) | ১৪ এপ্রিল ২০১৩ ০২:৫২89203
  • অমাদের মিডিয়াওয়াচের এই সাইটটা এখানে থাক ঃ

    http://thehoot.org/web/home/Home.html
  • π | 127.194.2.195 (*) | ১৬ মার্চ ২০১৪ ০৪:০৮89206
  • অনন্ত পটবর্ধনের স্ট্যাটাস থেকে ঃ

    Anand Patwardhan
    For those who still do not believe that the Indian media is fully sold out to corporates, who in turn are generally hell bent on foisting their darling Modi upon us all, here is what happened to me yesterday.
    I got a call from the Times of India asking my opinion about its “ManifestoTOI” which was on the cover yesterday. I told the reporter that I had not read it as I generally skip ads and go straight to the news. She asked me to read it and then she would call back to get my quote in 15 minutes.
    What I read immediately alerted me to the fact that this was nothing but a clever presentation of the neo-liberal agenda, which combines extreme right wing economics with a few crumbs to be thrown at those who believe in individual freedoms. So while it advocates tax cuts for the rich, eases land acquisition norms for industry, promotes privatization and foreign direct investment, promotes indirect taxation (which shifts the tax burden to the poor) it also throws a few crumbs to those of us who fight for civil liberties by calling for a reform of Article 377, removing the male bias in the law on adultery, and taking a relook at the laws on sedition.
    When the reporter called me back for my response I asked her if a strong critique of the TOI manifesto would be carried by the TOI. What I heard on the other end was some nervous laughter and then “May I check with my seniors and call you back?” She never did.
    This morning’s TOI carries rave reviews of its manifesto from across all shades of the political spectrum. But look closer at the quotes. Only the non-critical bits spoken have been carried. Did Kavita Krishnan or Prashant Bhushan say nothing against privatization or land grabbing or were they censored? I certainly was.
আমার গুরুবন্ধুদের জানানকরোনা
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা খুশি মতামত দিন