বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • টইপত্তর  অন্যান্য

  • শালের বনের খ্যাপা হাওয়া

    Shibanshu De লেখকের গ্রাহক হোন
    অন্যান্য | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ | ২০৫৫ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Shibanshu De | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ ১৬:৫০621476
  • ১.
    জঙ্গলে যাওয়া একটা নেশার মতন । জঙ্গলে গেলে মনে হয় '' নিজেকে নিজের করে কখনও ভাবিনি''। যে উপলব্ধিটি সচরাচর আলো ঝলমল শহর মোকামে 'উপলব্ধ নহি হ্যাঁয়'। আমাদের ধারে কাছে যাঁরা জঙ্গল দেখতে বাসনা করেন, তাঁরা একছুটে ডালট্নগঞ্জ, বেতলা রেঞ্জের দিকে ধাওয়া করেন। অথবা রাঁচির দিক থেকে লোহারডাগা হয়ে নেতারহাটের দিকেও যাওয়া যায়। রাঁচি থেকেই আবার ম্যাকক্লাস্কিগঞ্জ যাওয়ার পথ। তবে ম্যাকক্লাস্কিগঞ্জ এখন যতোটা কল্পনায় ততোটা বাস্তবে নেই। যদিও রাজার রাজা হচ্ছে সারান্ডা রেঞ্জ। এর মধ্যে পাঁচটা ফরেস্ট ডিভিজন রয়েছে। মনোহরপুর বা গুয়া হয়ে গেলে কাছে হবে। গুয়ায় স্যার বীরেনের একটা গেস্ট হাউস আছে, যেটার সাজসজ্জা লেডি রানু নিজে করেছিলেন। প্রথমবার দেখে আমি একেবারে ফেলাট। মেঘাতুবুরুতে সেলের মেঘা অতিথিশালা অপূর্ব। বৃষ্টির দিনে জানালা খুলে রাখলে ঘরের ভিতর মেঘ লুকোচুরি করে। আর ঐ বাড়িটির বাগানে কিরিবুরুর সর্বোচ্চ শিখরটি আছে। যেখানে দাঁড়ালে আমার গ্রাম সিংভূমের সীমান্তে সাতশো পাহাড়ের নীল মিছিল সিম্পলি ডুবিয়ে দেয়। ( হায়, সাতশো পাহাড় মনে পড়লেই আমার 'সাতশো পাহাড় আর গণেশ পাইনের রানি'র গপ্পোটা মনে পড়ে যায়। কবে যে আবার হাত দিতে পারবো!!)

    ২.
    ডালট্নগঞ্জ থেকে যদি গাড়িতে বারোয়াডির দিকে যান তবে মাঝামাঝি জায়গায় বেতলার পিছনের গেটটির একটু আগে কোয়েলের উপর যে ব্রিজটি আছে সেখানে তিষ্ঠ ক্ষণকাল। বাঁদিকে পাহাড়ের আড়াল থেকে নদী নেমে আসছে আর ডানদিকে দুতিন কিমি যতোটা চোখ যায়, তার মধ্যে নদী চারটি বাঁক নিয়েছে। অমন বিপজ্জনক মনভোলানো বাঁক আমি দেশেবিদেশে কোনও সুন্দরীতমা নারীর শরীরেও কখনও দেখিনি। খাজুরাহোর পূর্ণদেহী পত্রলেখার পাথরের শরীরে তার একটু ছায়া পাওয়া যায় হয়তো।

    তবে বিভূতিভূষণের আরণ্যকের জঙ্গল দেখতে হলে প্রথমে ভাগলপুর থেকে পূর্বদিকে জগদীশপুর পেরিয়ে বাঁকার পথে বইসির দিকে দক্ষিণের বনভূমি যেতে হবে। যেখানে পূর্ণিমারাতে পরিরা খেলা করতে আসে। এখানেই সেই মহালিখারুপ অরণ্যানী। যদিও 'মহালিখারুপ' নামটি উনি নিয়ে ছিলেন সিংভূমের 'মহালিমরুপ' পাহাড়ের নাম অনুকরনে। এর পর আপনাকে যেতে হবে জামশেদপুর থেকে দক্ষিণপূর্বে রাখামাইন্স, গালুডি পেরিয়ে সুর্দা মাইন্সের দিকে রুয়ামের জঙ্গল। জঙ্গলটি চিরে সুবর্ণরেখা দুলে দুলে বয়ে যায়। সুবর্ণরেখা আমাদের গঙ্গা। রুয়াম থেকে নদী পেরিয়ে পূর্বদিকে গেলে গালুডির বাঁধ। ঘাটশিলায় ডাহিগোড়ার বাড়ি থেকে বিভূতিভূষণ হেঁটে হেঁটে এই গালুডির সুবর্ণরেখা পেরিয়ে পশ্চিমে রুয়ামে পাহাড়ের উপরে সিদ্ধেশ্বর শিবের মন্দির যেতে যে ভয়ঙ্কর সুন্দর বনরাজিনীলা, তাই পেরিয়ে চড়াইয়ের দিকে এগিয়ে যেতেন। যদি ওখানকার জঙ্গল একটু মন দিয়ে দেখেন, তবে আরণ্যকের বর্ণনার সঙ্গে মিলিয়ে নিতে পারবেন।

    ৩.
    এই নদী, এই নীলসবুজ, এই জোড় লাগা নাগিনীর মতো বনপথ, সব মিলিয়েই যখন দেখি, তখন একটি মেয়ে কীভাবে তার সব মায়ামোহমদিরতা নিয়ে সম্পূর্ণা নারী হয়ে ওঠে, তার আস্বাদ, আশ্লেষের আমূলসন্ধান খুঁজে পাওয়া যায়। সে তখন অন্যপূর্বা হলেও আমার। পরকীয়া আবার কী?

    বুদ্ধ গুহ তাদের নিয়ে গপ্পো লেখেন পাবলিশারের অজুরা নিয়ে। বিভূতিভূষণ তাদের দেখতে দেখতে মহাপ্রস্থানের পথে এগিয়ে যান। আর আমি যুধিষ্ঠিরের কুকুরের মতো তাঁর পিছু পিছু।

    আমার দেশের জঙ্গলের গপ্পো তো শেষ হবার নয় । তবে সম্প্রতি ঘুরে আসা বর্ষাভেজা লবঙ্গি, পুরুনাকোট, ছোটকেই, সাতকোসিয়ার গপ্পো-ও অনন্ত। সেইসব আদিম শাল-সেগুনের নিবিড় অরণ্যানী, ভেজা ক্লোরোফিল আর সোঁদা পাতার সিক্ত আবিষ্ট আঘ্রাণ ক্রমাগত টানে, টেনে নিয়ে যায় সেই বিষুববায়ুর মদালস উষ্ণতায় । এই বনানীর এপারওপার ভাসিয়ে দিয়ে যাচ্ছে পূর্ণ আশ্লেষে ভরা কোটাল, নদীকুলের রাজ্ঞী, মধ্য ওড়িশার মহানদী।

    তাদের গল্পকথা, তারাও আসিতেছে ।

    এজন্মটা এরকমই কাটবে।
  • I | 24.99.233.85 | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ ১৭:৪৮621477
  • আহা!
  • brc-slg | 37.125.201.49 | ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ ২১:৪৬621478
  • ................
    আপনার লেখায় এ'রকম গন্ধ লেগে থাকুক চিরদিন....
  • aranya | 154.160.130.16 | ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৩ ০৮:৪৭621479
  • বাঃ। আরও লিখুন, অপেক্ষায় থাকলাম।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। যা খুশি প্রতিক্রিয়া দিন