• টইপত্তর  বইপত্তর

  • কালী

    tatin
    বইপত্তর | ০৫ নভেম্বর ২০১০ | ৪০১৬ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Sibu | 66.102.14.1 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ০৪:২৭458284
  • তো পালার দিন একটা ভাট হবে নাকি? কারন আর নিরামিষ পাঁঠা সহযোগে ;)।
  • kd | 59.93.242.86 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ১০:৫২458285
  • তখন তো আমি আম্রিকায়। তবে পরেরগুলো পুজোর আশেপাশে পড়ে মনে হচ্ছে - তখন দেখা যেতে পারে। :-)

    উ: কবে যে জন্মাস্টমীর দিন পাবো - পয়লা বৈশেখের পর ওটাই সবচেয়ে বড় রোজগারের দিন (হ্যাঁ, কালীপুজোর থেকেও, এই কালী বোষ্টমী তো)। পয়সা গুনতে গুনতে আঙুলে কড়া পড়ে যায়।
    এখন পয়লা বৈশেখের রোজগারের কী হাল হয়েছে জানিনা - সিকিউরিটি বেশ টাইট করায় পান্ডারা মন্দিরের বাইরে হালখাতার পুজো করাচ্ছে - মন্দিরের রোজগার নেই। আর এদিকে দ্যাকো লোকে বলে দেশের সুরক্ষার জন্যে আমাদের কোনো স্যাক্রিফাইস নেই :-(
  • Sibu | 184.214.82.57 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ১১:৪৮458286
  • ডিডিদা আর শিবাংশু বেজায় ফাঁকি মারছে/ন।

    মামা কটি কালীঘাটের গপ্পো করুন না হয়। একদম ফ্রম হর্সেস মাউথ গপ্পো শোনা যাক।
  • dd | 124.247.203.12 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ১২:০৪458287
  • ফাঁকি দিচ্ছি ? আমি ?
    ক্কই নাতো, ন্নাত্তো।
    আমি তো নিত্যই লিখি, হরে দরে মাসে পঁচিশবার।
  • Sibu | 184.214.82.57 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ১২:১২458288
  • এই যে, গতকাল মোটে এক কিস্তি লেখা। আর আজকে এতক্ষণ হয়ে গেল, এক কিস্তি লেখাও এল না। এটা কি ফাঁকি দেওয়া নয়!
  • dd | 124.247.203.12 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ১৪:৫৭458289
  • আর ঐ যে সব যন্ত্র বা মন্ডল আছে ?
    একটা নিবন্ধ পড়েছিলাম ecstasy'র উপর। তাতে কয়েছিলো একটানা রিপিটীটিভ আওয়াজ ,একইধরনের এক তালে নেচে যাওয়া,কোনো অ্যাবস্ট্র্যাক্ট ডিসাইনের উপর অনেকক্ষন ফোকাস.... ইত্যকার নানান কাজে একধরনের উন্মাদনা হয়।

    উপজাতি সমাজে এই ধরনের ড্রাম পিটিয়ে সারা রাত নাচের পর মানুষের ,যাকে বলে তাঁদের উপর "ভর" হয়। তো সেই সাহেব তাকেই বলেছেন খ্রীষ্ট ধর্মের এক্সট্যাসি। ঠাকুর যাকে বলতেন উন্মাদনা।

    তো,এই যন্ত্রগুলিকে বারবার চোখ বুঁজে ধ্যান করতে হয়। প্রথম দিকের মন্ডলগুলি বেশ সিম্পল, রঙ ও একটি দুটি। কিন্তু ক্রমশ:ই সেগুলি খুব কম্পলিকেটেড হয়, ইϾট্রকেট ডিসাইন প্লাস নানান রং। এই করতে করতেই একটা আবেশ হয়। হয়তো হয়।

    আমি ট্রাই কল্লে মাথা ধরে যায়, নয়তো ঘুম্পায়। সে অবশ্য আপিসে বসে কাজ কল্লেও হয়।
  • dd | 124.247.203.12 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ১৫:০৮458290
  • আমার এক দক্ষিনী বন্ধু খুব ভজন গায়। পেশা বা সখে নয়, স্রেফ ভক্তিতে। সেও কয়েছিলো ,অনেকে মিলে ভজন গাইতে গাইতে একেবারে নেশাগ্রস্থের মতন high হয়ে যায়। অনেক সময় পরে টরে গিয়ে রক্তারক্তিও হয় কিন্তু খেয়াল থাকে না। চৈতণ্যের জীবনীতেও অমনিতরো লেখা আছে, বিবেকানন্দও তো কয়েছিলেন একসাথে ভক্তেরা মিলে হরিনাম করতে করতে বাহ্যজ্ঞান লুপ্ত হয়ে যেতো।

    আমার সেই বন্ধু আমারে জিগায় "মদ্য পানেও ক্ষি এমতি নেশা হয়? যেমতি ভজনে হয়? " ইদিকে আমি কখনো ভজুনে নেশা করি নি, সেও জীবনে ঈসে ছোঁয় নি, তাই ঠিক মতন একটা কম্পারিসন করাই গ্যালো না।
  • tatin | 70.177.55.6 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ২০:৩৩458291
  • হ্যাঁ, ভজন, কীর্তন এগুলূ কিক দ্‌য়্‌য়ায়, তবে ঠিক মদের মতন কিক না- কিন্তু, কোনও দিন ভালও মত মদ খেয়ে কৃষ্ণনাম (জাস্ট কোনও একটা গান লুপে করে গেলেই হবে) করবেন- দেখবেন দুটো মিলে অন্য আরেকটা ব্যাপার হচ্ছে।

    আর ঐ ক্রীং, ক্লিং গুলো কলিমখানের মতে বিভিন্ন ক্রিয়ার মূল বা ধাতু থেকে এসেছে।
  • pi | 72.83.86.24 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ২১:১৪458292
  • অনেক গানের দু লাইনের লুপে ই নেশা হয়। আমার সম্প্রতি একটি রবীন্দ্রসঙ্গীএর দুলাইনে হয়েছিল। দু লাইন ও ঠিক না। দুটি শব্দ। ওদুটি উচ্চারণ করার লোভে বারবার গেয়ে চলেছিলুম।
  • tatin | 70.177.55.6 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ২২:০১458294
  • ঐটা মাল খেয়ে কোরো- বেটার গাঁজা খেয়ে
  • Shibanshu | 117.195.134.85 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ২২:৩৭458295
  • শক্তি ( অর্থাৎ শিব ভার্যা) উপাসকদের নাম শাক্ত। তাদের উপাসনা শাস্ত্রের নাম তন্ত্রাচার। এই তন্ত্রাচার বৈদিক উপাসনা পদ্ধতির থেকে পৃথক। এই আচারে দেবতার ( অথবা দেবীর) প্রতিমূর্তি নির্মান করে মন্ত্র দিয়ে তার প্রাণ প্রতিষ্ঠা করা হয় এবং তার পর ঐ প্রতিমূর্তিকে সাক্ষাৎ সজীব দেবতা জ্ঞানে আহ্বান করা হয়। এই পূজা পদ্ধতির বিভিন্ন অঙ্গ হচ্ছে পাদ্য, অর্ঘ্য, স্নানীয়, গন্ধ, নৈবেদ্য, বস্ত্র প্রদান ও সাধকের অধিকার ভেদে পঞ্চ ম-কার সহযোগে অর্চনা করা।

    এই শাস্ত্রে ইষ্ট দেবতার বিভিন্নতা আছে। ব্যক্তি বিশেষে কেউ কালী, কেউ তারা কেউ বা জগদ্ধাত্রী বা কোনও অন্যতর দেবী, যার দীর্ঘ তালিকা ddর লেখায় পাওয়া যাবে। এই সাধন প্রণালীতে গুরু-শিষ্য পরম্পরা অতি জরুরি বিষয়। বিভিন্ন তন্ত্রে, যেমন পিচ্ছিলা তন্ত্র, বিশ্বসার তন্ত্র, কামাখ্যাতন্ত্র প্রভৃতিতে গুরুর লক্ষণ বিবৃত হয়েছে। গুরুকে সর্ব শাস্ত্র পরায়ণ, নিপুণ, সর্ব শাস্ত্রজ্ঞ, মিষ্ট ভাষী, সুন্দর, সর্বাবয়ব সম্পন্ন, কুলাচার বিশিষ্ট, সুদৃশ্য, জিতেন্দ্রিয়, সত্যবাদী ইত্যাদি গুণশীল হতে হবে। শিষ্যের জন্যও নানা লক্ষণবিচার রয়েছে।

    শিষ্যের দীক্ষাকালে গুরু বীজমন্ত্র উপদেশ দেন। এই বীজমন্ত্র বিভিন্ন ইষ্ট দেবীর জন্য পৃথক হয়। এই বীজমন্ত্রগুলি অতীব গুহ্য তাই তন্ত্রকারেরা তাদের গোপন রাখার প্রচেষ্টায় বিভিন্ন সাংকেতিক শব্দ ও তার নতুন অর্থ সৃষ্টি করেছেন ( কাবলিদা জিন্দাবাদ, উনি ঠিকই জানেন)। এই সব শব্দের যে সব অর্থ করা হয় তা শুধুমাত্র তন্ত্রশাস্ত্রে অধিকারী ব্যক্তিরাই উদ্ধার করতে পারেন। একেবারে ক্ল্যাসিফায়েড কোডিং প্রসেস।

    এক আধটা উদাহরণ দিই। 'কালীবীজ' মন্ত্র, ' বর্গাদ্যং বণহিসংযুক্তং রতিবিন্দুসমন্বিতম' । এখানে 'বর্গাদ্য' শব্দের প্রতীক হচ্ছে 'ক', 'বণহি' শব্দের 'র', 'রতি' শব্দে 'ঈ' এবং তাতে বিন্দু যুক্ত। সব মিলিয়ে যে প্রতীকী শব্দটি তৈরি হলো তা হচ্ছে 'ক্রীং'। এভাবে 'ভুবনেশ্বরী বীজ' 'হ্রীং', 'লক্ষ্মীবীজ' 'শ্রীং'। যৌগিক বীজও আছে, যেমন 'তারাবীজ' ' হ্রীং স্ত্রীং হূ ফট' বা 'দুর্গাবীজ' 'ওঁ হ্রীং দূং দুর্গয়ৈ নম:'। এই তালিকাটি অতি দীর্ঘ ও এখানে আলোচনার উপযুক্ত নয়। এছাড়া এমন কিছু বীজ আছে যেগুলি বিশেষ বিশেষ ক্রিয়ার সঙ্গে সম্পৃক্ত এবং সেই সব ক্রিয়াগুলি মধ্যবিত্তের চেনা শালীনতার বেড়ার বাইরের ব্যাপার। তাই এখানে সেগুলি উল্লেখ করছিনা।

    আজ এতোটাই থাক।
  • Tim | 198.82.17.28 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ২২:৪৯458296
  • ভয়ঙ্কর ভালো হচ্ছে। চলুক।
  • Sibu | 66.102.14.1 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ২২:৫৮458297
  • শিবাংশুকে পার্ফ টাইমে এবারে ভাল নাম্বার দিতেই হবে :))।
  • I | 14.96.2.178 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ২৩:৩৫458298
  • আহা, নাহয় একটু উল্লেখ করলেনই। শালীন মধ্যবিত্তরা চোখ বুজে থাকবে খন। আমাদের মতন অশালীন ম্যাঙ্গো পাব্লিকের জন্য চোখ-কান বুজে বলে ফেলুন। তন্ত্রের যৌনাচারের ফিলোজফিটা অন্তত: বলুন-কিভাবে তা সহজিয়া বৈষ্ণব ধারায় কিংবা বাউল-ফকিরি সাধনায় অ্যাসিমিলেটেড হল, এসব বলবেন কবে-হ্যাঁ?
  • omi | 151.141.84.194 | ২২ ডিসেম্বর ২০১০ ২৩:৩৮458299
  • আরে তাই তো! শিবাংশু কেবল শালীনদের কথা ভেবেই পিছিয়ে যায়। এদিকে আমরা শ্মশানে মশানে ঘুরে বেড়ানো অশালীন মানুষজন, তারা কী করবো? হ্যাঁ?
  • Shibanshu | 59.93.94.82 | ২৩ ডিসেম্বর ২০১০ ১১:৩৭458300
  • বেশ। আজ রাতে আবার শবাসনে বসবো। পঞ্চ ম-কারের আলোচনা তখন করাই প্রশস্ত।
  • Samik | 155.136.80.174 | ২৩ ডিসেম্বর ২০১০ ১৩:২৫458301
  • বর্গাদ্যের "ক', বণহি-র "র' শুনে আমার ক্যামন চন্দ্রবিন্দুর চ বেড়ালের তালব্য শ মনে হল :-)

    ফক্কুড়ি করার জন্যে সরি। চলুক। অসম্ভব ভালো হচ্ছে।
  • Shibanshu | 117.195.147.129 | ২৩ ডিসেম্বর ২০১০ ২২:৩০458302
  • আমাদের দেশে ( বাংলায়) শাক্তরা জগদ্ধাত্রী মন্ত্রেই অধিক দীক্ষিত হন। তারা, অন্নপূর্ণা, ত্রিপুরা ও ভুবনেশ্বরী মন্ত্রে দীক্ষিত শাক্তদের সংখ্যা অপেক্ষাকৃত কম।

    বিভিন্ন দেবতার যেমন নিজস্ব বিশেষ বীজমন্ত্র আছে, বিভিন্ন তান্ত্রিক ক্রিয়ারও বিশেষ বীজ আছে। যেমন পূর্ণাভিষেকের সময় স্বয়ম্ভূ-কুসুমাদির প্রতি যে শুদ্ধিমন্ত্র উচ্চারিত হয় তা এরকম, " প্লূং ম্লূং স্লূং শ্লূং স্বাহা'। আবার ব্রহ্মশাপ বিমোচন মন্ত্র, শুক্রশাপ বিমোচন মন্ত্র বা কৃষ্ণশাপ বিমোচন মন্ত্র মদ্যের প্রতি উৎসর্গিত হয়। এই সব শুদ্ধি মন্ত্র বা উৎসর্গ মন্ত্রে যেসব প্রতীক ব্যবহার করা হয়া তা এরকম। 'খপুষ্প' মানে রজস্বলা স্ত্রীলোকের রজ, স্বয়ম্ভূ পুষ্প বা স্বয়ম্ভূ কুসুম মানে স্ত্রীলোকের প্রথম রজ ( '....যত বিষয় মধু তুচ্ছ হল, কামাদিকুসুম সকলে...: কমলাকান্ত), কুন্ডপুষ্প মানে সধবা স্ত্রীলোকের রজ, গোলকপুষ্প মানে বিধবা স্ত্রীলোকের রজ এবং বজ্রপুষ্প মানে চন্ডালীর রজ ( তন্ত্রসাধনায় এই 'চন্ডালী' নারীর বিশেষ কদর আছে। 'গুরুচন্ডালী'র সঙ্গে কোনও সমাপতন আছে কি না জানিনা :-) ) । এই সব 'পুষ্প' বামাচারী তন্ত্র সাধনার জরুরি উপকরণ। বাউলচর্যাতেও আমরা এজাতীয় পদ্ধতির প্রচলন দেখতে পাই।

    শাক্তদের মধ্যে দুটি প্রধান সম্প্রদায়ের নাম পশ্বাচারী ও বীরাচারী। দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে মূল প্রভেদ হচ্ছে বীরাচারে পঞ্চ-ম কারের প্রচলন আছে, পশ্বাচারে তা নেই। কুলার্ণবতন্ত্রে এই দু প্রকার আচারকে আবার সাত ভাগ করা হয়েছে। সেখানে বলা হচ্ছে, বেদাচার উত্তম ( এই বেদাচারের সঙ্গে বৈদিক আচারের কোনও সম্পর্ক নেই), বেদাচারের থেকে বৈষ্ণবাচার উত্তম, বৈষ্ণবাচার থেকে শৈবাচার উত্তম, শৈবাচার থেকে দক্ষিণাচার উত্তম, দক্ষিণাচার থেকে বামাচার উত্তম, বামাচার থেকে সিদ্ধান্তাচার উত্তম, সিদ্ধান্তাচারের চেয়ে কৌলাচার উত্তম। কৌলাচারের চেয়ে উত্তম আর কিছু নেই ( '... রামপ্রসাদ বলে নিদানকালে পতিত হবি কূল ছাড়িলে/ মন ভুলোনা কথার ছলে...' এখানে 'কূল' শব্দ দ্ব্যর্থবোধক। তা বংশসম্প্রদায় ও কৌলাচারের প্রতি আনুগত্য দুইই বোঝায়)।

    পরে এই আচারগুলি সম্পর্কে সংক্ষেপে কিছু লেখার চেষ্টা করবো। আপাতত এই রইলো।
  • I | 14.96.112.53 | ২৩ ডিসেম্বর ২০১০ ২৩:০১458303
  • হেব্বি।
    তা-ও আনন্দবাজার বলে-বাংলা ডুবিতেছে। (আমি আসলে এখন আনন্দবাজার পেতে রুটি খাচ্ছি আর শিবাংশুতন্ত্র পড়ছি)
  • omi | 151.141.84.194 | ২৪ ডিসেম্বর ২০১০ ০০:১২458306
  • খুব ভালো হচ্ছে। শিবাংশু জগদ্ধাত্রী ঘরানার বুঝি?
    আচারের অপেক্ষায় বসে বসে সাতকড়ার আচার খাচ্ছি নিকোবিনার। :-)
  • tatin | 130.39.149.160 | ২৪ ডিসেম্বর ২০১০ ০২:২৪458307
  • জ্জিও -
  • Sibu | 184.225.16.184 | ২৭ ডিসেম্বর ২০১০ ২০:৪০458308
  • ডিডি-দা আর শিবাংশু, টই তুলে দিলাম।
  • π | ০১ নভেম্বর ২০১৩ ২২:২৯458309
  • তুললাম।
  • π | ০১ নভেম্বর ২০১৩ ২২:৩১458310
  • শিবাংশুদা ও বাকিরা ...
  • b | 135.20.82.166 | ০২ নভেম্বর ২০১৩ ২২:১৭458311
  • "কালী কালী কালী বলে অজপা যদি ফুরায়"

    এই গানে 'অজপা'-র উল্লেখ আছেঃ 'হং' মন্ত্র। নিঃশ্বাস প্রশ্বাসের স্বাভাবিক ক্রিয়াতেই এই মন্ত্র অটোমেটিকালি জপ হয়ঃ তাই এটি 'অজপা', মুখে উচ্চারণ করতে হয় না। অজপা ফুরানো মানে জীবন ফুরানো।
  • শিবাংশু | ০৪ নভেম্বর ২০১৩ ১২:০৯458312
  • পাইদিদি যে গিরি গোবর্ধনের মতো এই টইটা তুলে দাঁড়িয়ে আছে তা জানবো কী করে । :-)

    তন্ত্র ইশে নিয়ে একটু বড়ো সাইজের( কিন্তু যথাসাধ্য সরলভাবে লেখা ) একটা কচকচি ড্রইংবোর্ডে রয়েছে । কিছুদূর হয়েছে । মানে এলোমেলো এদিক সেদিকে লেখা নানান প্রলাপ একটু গুছিয়ে নিয়ে গুরু-তে ফেলছি । এখন আটকে আছি কুলার্ণব, মহানির্বান, প্রাণতোষিনী ও কালীতন্ত্রমে । বড্ডো খটোমটো সোমোস্ক্রিতো.. :-(

    ততোদিন DD সামলাবেন এখন.... :-)
  • b | 135.20.82.164 | ০৪ নভেম্বর ২০১৩ ১২:৩৮458313
  • তাহলে একটু বড় করেই লিখুন গুছিয়ে গাছিয়ে।

    দ জিজ্ঞাসা করছিলেন নবদ্বীপের রাসের ব্যাপারে। এ সম্পর্কে যেটা শুনেছি তা হল , মহারাজ কৃষ্ণচন্দ্র ঘোরতর বৈষ্ণব বিরোধী হওয়ায় তিনি রাসপূর্ণিমার দিনে কালিপূজো, কারণবারি পান, ইত্যাদির প্রচলন করেন।

    অন্য ব্যাখ্যাও থাকতে পারে। শোনা কথা।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:

কুমুদি পুরস্কার   গুরুভারআমার গুরুবন্ধুদের জানান


  • কোনোরকম কর্পোরেট ফান্ডিং ছাড়া সম্পূর্ণরূপে জনতার শ্রম ও অর্থে পরিচালিত এই নন-প্রফিট এবং স্বাধীন উদ্যোগটিকে বাঁচিয়ে রাখতে
    গুরুচণ্ডা৯-র গ্রাহক হোন
    গুরুচণ্ডা৯তে প্রকাশিত লেখাগুলি হোয়াটসঅ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে যুক্ত হোন। টেলিগ্রাম অ্যাপে পেতে চাইলে এখানে ক্লিক করে আমাদের টেলিগ্রাম চ্যানেলটির গ্রাহক হোন।
    • কি, কেন, ইত্যাদি
    • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
    • আমাদের কথা
    • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
    • বুলবুলভাজা
    • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
    • হরিদাস পালেরা
    • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার খেরোর খাতা, লিখতে থাকুন, বানান নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
    • টইপত্তর
    • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
    • ভাটিয়া৯
    • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
    গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]
    মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত


    পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খারাপ-ভাল মতামত দিন