এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  আলোচনা  সমাজ

  • এত কালো মেখেছি দু'হাতে

    অম্লানকুসুম চক্রবর্তী
    আলোচনা | সমাজ | ১৯ আগস্ট ২০২৩ | ৯০৬ বার পঠিত | রেটিং ৫ (২ জন)

  • ফেসবুকের ওই পোস্টটার মধ্যে হয়তো আঠা ছিল। আর স্ক্রল ডাউন করতে পারলাম না। একজন লিখেছেন, ‘স্বপ্নদীপের মৃত্যু নিয়ে এই শোরগোলের আয়ু আর মাত্র কয়েকদিন, যে কদিনের মধ্যে নতুন কিছু এসে এই ঘটনাকে চাপা না দিয়ে দেয়।’ দিন তিনচারেক আগের সেই পোস্টের ভবিষ্যৎ-বাণী ফলতে দেখেছি ইতিমধ্যেই। স্বাধীনতার অমৃত মহোৎসবের পাতাজোড়া বিজ্ঞাপন, বিগ ডে মহা-ধামাকায় তেলের সঙ্গে আটা ফ্রি আর অনলাইন খুচরো বিপণিতে নতুন কোনও ফোন উদ্বোধনের লিমিটেড টাইম ডিলের গর্জনে ক্রমশ আড়ালে চলে যাচ্ছে স্বপ্নদীপের মৃত্যু। কবীরের সুমনের গানে ছিল, 'শ্লোগান পাল্টে হয়ে যায় ফিসফাস'। এমন শিরোনামও ক্রমশ পর্যবসিত হবে টুকরো খবরে। তারপরে, আমাদের মন থেকে স্রেফ মুছে যাবে এই অকালপ্রয়াণ। পুজো এগিয়ে আসছে ক্রমশ। আশ্বিনের শারদপ্রাতে, বেঁচে থাকার শ্রেষ্ঠ উৎসবে নিজেদের গায়ে জরির ঝালর পরব সবাই। আজকে যে খবরে মন উথালপাথাল, তা জাঙ্ক হতে দেরি নেই আর।

    বাসে-ট্রামে-মেট্রোতে, টিভিতে-সামাজিক মাধ্যমে গত কয়েকদিন শুধু স্বপ্নদীপের মৃত্যু নিয়ে কাটাছেঁড়া চলল। এখনও চলছে অবশ্য। যে যাঁর সামর্থ্য অনুযায়ী, চেয়ারের ওজন অনুযায়ী কাদা ছুঁড়েছেন, ছুঁড়ছেন বিরোধী পক্ষের দিকে। বিশ্বখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয়ের মুখ থেকে আঁতলামির মুখোশ টেনে খুলে দিয়ে তাকে বাস্তবের রাস্তায় দাঁড়াতে বলার গর্জন যেমন শুনেছি, ঠিক তেমনই শুনেছি স্বপ্নদীপের বলতে না পারা কথাগুলোর স্বঘোষিত ভার্সান। খবরে জানতে পেরেছি, মৃত্যুর মাত্র কয়েক ঘণ্টা আগে হোস্টেল থেকে মাকে ফোন করেছিল ছেলেটি। বলেছিল, “আমাকে নিয়ে যাও।” বলেছিল, “তোমাকে আমার অনেক কথা বলার আছে।” সে কথাগুলো যে আসলে কি, তা আমাদের জানা হল না। লোকাল ট্রেনে এই নিয়ে যখন তুমুল আলোচনা হচ্ছিল আমার একদল সহযাত্রীদের মধ্যে, শেষে একজন ইউটিউব থেকে চোখ সরিয়ে, কানে লাগানো ইয়ারপোড খুলে বলেছিলেন, “অনেকেই তো এখন ফেসবুক লাইভ করতে করতে জীবন শেষ করে দেয়। ছেলেটার মাথায় তো এই বুদ্ধিটা এলেও পারতো। এত পোস্ট মর্টেমের কোনও প্রয়োজন হতো তা হলে?” একথা শুনে রে-রে করে উঠেছিলেন কিছু যাত্রী। তার মধ্যে অবশ্য সেই যাত্রীর কানে ফের গুঁজে গিয়েছিল নতুন কোনও গানের নতুন ঝিনচ্যাক সমন্বিত ইয়ারবাড।

    যাদবপুর কাণ্ডের পরে বেশ কিছু যুদ্ধজয়ের কাহিনী চোখে পড়ছে এদিক ওদিক। কয়েকদশক আগে র‍্যাগিংয়ের শিকার হয়ে, মানসিক ট্রমা কাটিয়ে উঠে কিভাবে জীবনের মূল স্রোতে ফিরে এসেছেন, তা নিয়ে কিছু মানুষ তাঁদের অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিচ্ছেন আমাদের সঙ্গে। এমনই একজন বলেছিলেন, “যুদ্ধজয় তো অনেক দূরের কথা। আসলে এই যুদ্ধের দরকারই ছিল না কোনও।” বলেছিলেন, “ইচ্ছে করে, জোর করে নিজেদের চোখগুলো বুজে রেখে সমাজই তৈরি করেছিল এই যুদ্ধ। আমরা এর মাসুল দিয়েছিলাম। সেই ট্র্যাডিশন সমানে চলেছে।”

    যে কলেজ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয় তাদের চত্বরকে র‍্যাগিংমুক্ত বলে দাবি করে, তার মধ্যে সত্যির পরিমাণ কতটা? দেশের শীর্ষস্থানীয় কারিগরি শিক্ষার কলেজে র‍্যাগিং-এর ঘটনা খবরে উঠে এসেছে অনেকবার। চেতন ভগতের ‘ফাইভ পয়েন্ট সামওয়ান’ বইতে পড়েছি, ‘থ্রি ইডিয়টস’ ছবিতে দেখেছি। রিওয়াইন্ড আর রিপ্লে করে তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করেছি কলেজের জুনিয়রদের নির্যাতিত হওয়ার দৃশ্য। সেই দৃশ্যের সংলাপ এখনও গড়গড় করে মুখস্থ বলে দেবেন আমাদের মধ্যে অনেকেই। প্রবাদে বলে, যা রটে, তার কিছুটা অন্তত বটে। আইআইটির অভ্যন্তরের র‍্যাগিংয়ের কাহিনী আমাদের কাছে স্পষ্ট হয়েছিল তখন। আমার পরিচিত ক্লাস টুয়েলভের এক পড়ুয়া দিনকয়েক আগে বলছিল, “বাড়ি থেকে বলছে রাজস্থানের কোটায় গিয়ে আইআইটির প্রস্তুতি নিতে। কোটায় পড়াশোনার চাপে, মা-বাবার প্রত্যাশার চাপে বাঁচব কি না জানিনা। এ বছরে তো জনাকুড়ি মরল। আর সে যাত্রায় টিকে গিয়ে আইআইটিতে যদি কোনোক্রমে চান্স পেয়েও যাই, সেখান থেকে বেঁচে বেরোতে পারব কি না তা বিরাট প্রশ্ন।” মুখচোরা ছেলেটি বলছিল, “আমার যা স্বভাব, ওখানকার র‍্যাগিংয়ের পরীক্ষা পাশ করার ক্ষমতা আমার নেই।”

    ওয়াকিবহাল শিবিরের অনেকেই একটি বিষয়ে সম্পূর্ণ একমত। তাঁরা স্বীকার করে নিয়েছেন, ছোট-মাঝারি-বড় কলেজ কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ে র‍্যাগিংয়ের যত ঘটনা ঘটে চলেছে প্রতিদিন, সামনে আসছে তার সামান্য কিছু অংশ। এ এক নিকষ কালো হিমশৈলের চূড়ার মতো। কলেজ যদি তথাকথিতভাবে বিখ্যাত হয়, গায়ে লেগে থাকে রেটিংয়ের নানা তকমা, তাহলে সেখানে ঘটে যাওয়া র‍্যাগিংয়ের ঘটনার ছিছিক্কার অনুরণিত হয় সমাজে। নাম না জানা কলেজের ক্ষেত্রে এমনটা ভাবাও ভুল। এক শিক্ষাবিদ বলছিলেন, “সাম্প্রতিক ঘটনাটি যদি ঘটত দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের অ-বিখ্যাত কোনও কলেজে, তাহলে হইচইয়ের মাত্রা এর ধারেকাছেও যেতো কি?” এর সঙ্গে তিনি জুড়ে দিয়েছিলেন, “মৃত্যু কিন্তু দিনের শেষে মৃত্যুই থেকে যায়। যে মায়ের কোল খালি হল, রাষ্ট্রের ক্ষমতা নেই তা পূরণ করার। আমরা আর ঘুমিয়ে থাকব কতদিন?” এ প্রসঙ্গে এক ওসিসাহেবের মুখ থেকে শুনেছিলাম, “কলেজ যদি অখ্যাত হয়, আর সেই র‍্যাগিং কাণ্ডের পরিণতি যদি কোনও ছাত্রের মৃত্যু পর্যন্ত গড়িয়ে না গিয়ে থাকে, হলফ করে বলতে বলতে পারি স্থানীয় থানা সেই অভিযোগই নেবেনা। বরং ছাত্রের পরিজনদেরই মৃদু কড়কে ছেড়ে দেবে।” একটু থেমে তিনি বলেছিলেন, “কেউ কিছু বললেই যে ডায়রিতে টুকতে নেই—এ শিক্ষা আমাদের প্রশাসনের অলিখিত রুলবুকই দিয়েছে। হতাশাজনক। কিন্তু কিছু করার নেই।”

    সিনিয়র হয়ে যাওয়ার পরে জুনিয়রদের র‍্যাগিং করেছেন—এমন কিছু মানুষ মুখ খুলছেন ইদানীং। জানা যাচ্ছে, কলেজের প্রথম বর্ষে ঢোকার পরে দাদাদের থেকে যে অভ্যর্থনা পেয়েছিলেন, সিনিয়র হয়ে যাওয়ার পরে তা সুদে আসলে নতুন ছাত্রদের থেকে উসুল করে নেওয়ার মানসিকতা কাজ করত তাঁদের মধ্যে। আসলের সঙ্গে সুদ যোগ করা হলে অত্যাচারের পরিমাণও পাটিগণিতের নিয়মেই বাড়ে। নতুন জুনিয়রদের অনেকেই হয়তো সেকেন্ড কিংবা থার্ড ইয়ারে উঠে যাওয়ার পরে একই পথ ধরেছিলেন। মনের অলিগলি নিয়ে কাজ করেন যে বিশেষজ্ঞরা, এমন প্রসঙ্গ নিয়ে মতামত জানতে চাওয়া হলে তাঁরা রীতিমতো শিউরে উঠছেন। তাঁরা বলছেন, “এমন মানসিকতায় এই মুহূর্তে যদি শিকল না পরানো যায়, তাহলে আমাদের সামাজিক অবক্ষয়ের আর বিন্দুমাত্রও বাকি থাকবে না। মারণ রোগের থেকেও ভয়ংকর এর পরিণতি।” যাদবপুরের এই কাণ্ডের পরে আমার এক বন্ধু স্থানীয় মনোবিদ বিড়বিড় করে বলছিল, “যে পচন ইতিমধ্যেই ধরে গিয়েছে আমাদের এই সমাজে, তা দূর করতে হলে নিজেদের গালেই সপাটে থাপ্পড় মারা দরকার।”

    কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় আর প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা দায় ঝেড়ে ফেলবার এই টেবিল টেনিস খেলা বন্ধ রেখে আর কবে সচেতন হবেন জানি না। সচেতন হওয়ার আগে যেটা প্রয়োজন তা হল সচেতনতাবোধ। এই ঘটনার পর সেটা তাঁদের মধ্যে এসেছে তো? কলেজের জুনিয়র এবং সিনিয়রদের মধ্যে খাদ্য-খাদকের সম্পর্ক জেনেও তাদের এক গুহায় ছেড়ে দেওয়ার কাজ নির্বুদ্ধিতা ছাড়া অন্য কিছু তো নয়। তলানিতে ঠেকে যাওয়া যে মানসিকতা রাতারাতি বদলানোর নয়, তা আটকানোর জন্য বাহ্যিক দূরত্ব জরুরি। এই অপ্রিয় সত্য তাঁরা বুঝবেন কবে?

    জানা গিয়েছে, নিজেদের মাথায় বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সার্টিফিকেশনের মুকুট পরা সত্ত্বেও সিসিটিভি ক্যামেরা নেই বহু কলেজ চত্বরে। ফলে ক্লাস হয়ে যাওয়ার পরে, সূর্য অস্তাচলে গেলে জুনিয়র ছাত্রগুলোর উপরে সিনিয়রদের কি অমরবাণী বর্ষিত হয়, তা জানার ব্যবস্থা নেই কোনও। এগুলো জানা জরুরি, আগামীর স্বার্থে। শুনেছি, শহরের বিভিন্ন অ্যাপ ক্যাবে, সরকারি বেসরকারি বাসে লাগিয়ে দেওয়া হচ্ছে প্যানিক বটন। কোনও যাত্রী বেকায়দায় পড়লে সেই বোতাম চিপলেই খবর চলে যাবে পুলিশের কাছে। জিপিএস প্রযুক্তির উপরে ভরসা করে সেই অভিযোগ চটজলদি পৌঁছে যাবে স্থানীয় থানার ডেস্কে। জুনিয়র ছাত্রদের হোস্টেলের ঘরে এমন কোনও প্যানিক বোতাম ইনস্টল করার কোনও ভাবনা কি ভাবতে পারি না আমরা? প্রতিদিনের বেঁচে থাকায় আমরা অ্যাপস্নাত হই। তৈরি করা যেতে এমন কোনও অ্যাপ, যা পুরে দেওয়া যেতে প্রতিটি নূতন ছাত্রের মোবাইলে। অসুবিধার সম্মুখীন হলে সেই অ্যাপমারফৎ খবর চলে যেতে পারে কলেজ কর্তৃপক্ষ কিংবা হোস্টেলের ডিনের কাছে। অ্যালগোরিদমের ছোঁয়ায় সেখানে বেঁধে ফেলা যেতে পারে স্থানীয় থানার কর্তাব্যক্তিদেরও। বুলাদির জন্য ১০৯৭ নম্বর ছিল, আগুন লাগলে ১০১ টিপলেই নড়েচড়ে ওঠে দমকল, ১০২তে অ্যাম্বুল্যান্স। ১০০ ডায়াল করলেও শোনা যায় শোনা যার কোনও পুলিশ আধিকারিকের “হ্যালো”। ওয়ান টাচ পরিষেবার ক্ষেত্রে আমরা রকেট গতিতে এগিয়ে গিয়েছি অনেক। র‍্যাগিং প্রতিরোধে এমন কোনও হেল্পলাইন আছে কিনা জানা নেই। এমন ঘটনার মেগা এপিসোডে এই হেল্পলাইনের কার্যকারিতা সম্পর্কে জানার আগ্রহও নেই। যদি তা না থেকে থাকে এখনও, কিংবা শীতঘুমে থাকে, তার ঘুম ভাঙানো জরুরি।

    সমাজের সুস্থ ব্যাকরণ বলে, কলেজের সিনিয়ররা জুনিয়রদের পথপ্রদর্শক। আজকের দুনিয়ায় সাফল্যের শীর্ষে উঠেছেন যাঁরা, তাঁদের অনেকেই কলেজ জীবনে সিনিয়র দাদা-দিদিদের ভূমিকার কথা মনে করিয়ে দেন বিভিন্ন সাক্ষাৎকারে। সিনিয়রদের প্রতি তাঁদের কৃতজ্ঞতা বোধ জিইয়ে থাকে জীবনভর। সাম্প্রতিক ঘটনাগুলো এমন ভালবাসার এবং শ্রদ্ধার সম্পর্কের বস্ত্রহরণ করে।
    এই বেরঙিন আজকালে প্রফেসর শঙ্কুর কথা মনে পড়ছে খুব। নতজানু হয়ে বলতাম, “স্যার, আপনার অ্যানাইহিলিন যন্তরটা একবার বের করে ফেলুন তো কষ্ট করে। এই সামাজিক কাদা ভ্যানিশ করে দিন।”

    শ্রাবণের ধারার মতো এখন যা প্রয়োজন, তা হল শান্তির জল। এই পচে যাওয়া, পূতিগন্ধময় সমাজের ফর্মাটিং জরুরি।


    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক।
  • আলোচনা | ১৯ আগস্ট ২০২৩ | ৯০৬ বার পঠিত
  • আরও পড়ুন
    গল্প  - Debasis Sarkar
    আরও পড়ুন
    Fraud  Alert - ১ - দ
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • Kausik Ray | ১৯ আগস্ট ২০২৩ ১৫:৪৫522623
  • প্যানিক বাটনের আইডিয়া টা ভাল।  
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। দ্বিধা না করে প্রতিক্রিয়া দিন