এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • বুলবুলভাজা  অন্যান্য

  • ঘ্যাঁক করার পরে

    অম্লানকুসুম চক্রবর্তী
    অন্যান্য | ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ২৯৯৭ বার পঠিত | রেটিং ১.৮ (৪ জন)

  • সামনে বসা লোকটি হঠাৎ প্রবল আনন্দে এক হাত ছুঁড়ে দিয়ে বললেন, “বেশ হয়েছে।”

    মেট্রোরেল সবে দমদম থেকে সুড়ঙ্গে ঢুকেছে বেলগাছিয়ার দিকে। এমন হাঁক শুনে পাশে বসা মানুষেরা কান থেকে ইয়ারফোনের প্লাগ খুলে নিলেন ঝটিতি। কৌতুহলী চোখ। লোকটি ফের বলে উঠলেন, “দুলকি চালে কুকুর নিয়ে ঘোরার সময় মনে থাকে না? শাবাশ, জজসাহেব, শাবাশ। এবারে লোকগুলোর আদিখ্যেতা কমলে হয়।”

    বুঝতে পেরেছিলাম, ভদ্রলোকের উত্তেজনা আসলে হাতে ধরা খবরের কাগজের জের। পাতাটি টেনে নিলাম। ইংরিজি দৈনিকের কোন সংবাদের জন্য লোকটির পরমানন্দ, তা আঁচ করে নিতে বেগ পেতে হল না। আনন্দের মূলে এক রটওয়াইলার। নামটি আমিও প্রথম জানতে পারলাম জীবনে। ইহা এক সাহেবি সারমেয়। তেরো বছর আগে এই কুকুরটি এক বাহাত্তর বছরের বৃদ্ধকে তিনবার কামড়ে দেয়। ঘটনাস্থল মুম্বইয়ের সান্তাক্রুজ। সারমেয়টির মালিক ছিলেন এক ব্যবসায়ী। এই ত্রিফলা দংশনে বৃদ্ধ রক্তাক্ত হন। এক দশকেরও বেশি সময় পরে বিচার পেলেন তিনি। তিন মাসের জেল হয়েছে ওই ব্যবসায়ীর। আদালত বলেছে, “রটওয়াইলারের যেহেতু হিংস্র স্বভাব, তাই অন্যদের সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য পশুটিকে সামলানোর দায়িত্ব মালিকের উপরেই বর্তায়।” বুঝতে কষ্ট নেই, এই দায়িত্ব সেদিন বেমালুম ভুলে গিয়েছিলেন ওই ব্যবসায়ী। ভুক্তভোগীর অবশেষে বিচার মিলল। ইতিমধ্যেই আনন্দ সংবাদটি রাষ্ট্র করে দিয়েছিলেন “বেশ হয়েছে” উক্তির মালিক। ভিড়ে ঠাসা মেট্রোরেলে এই আনন্দধ্বনি কোরাসের রূপ নেয় মুহুর্তে। গন্তব্য স্টেশনে না নেমে যাওয়া অবধি এই এক গাল হাসি লেগেছিল বহু সহযাত্রীর মুখে।

    আমার কাকুস্থানীয় এক ব্যক্তি আছেন, যিনি তাঁর বংশপরিচয় দেওয়ার সময় বলেন, “পরিবারে আমি আছি, স্ত্রী আছেন। আর আছে আমার তিন সন্তান।” এই বাজারে তিন সন্তান শুনে লোকের ভ্রু কুঁচকে গেলে তিনি বিষয়টির খোসা ছাড়ান। খোলসা করে বলেন, “না না যা ভাবছেন তা নয়। আমার নয়নের মণি আমার মেয়ে আর দুটি প্রাণাধিক প্রিয় চারপেয়ে—জন্টি আর মন্টি।” প্রাণপ্রিয় সারমেয়রা কারও দিকে তেড়ে গেলে কাকুকে বলতে শোনা যায়, “নিশ্চিন্তে থাকুন। ও কিছু করবে না।” আদুরে গলায় জন্টি মন্টিকে বকেন, “ডোন্ট টাচ সোনা, ডোন্ট টাচ। কাম হিয়ার।” এর মধ্যে অবশ্য দুটির কোনও একটি, নিজের পিছনের দুপায়ে ভর দিয়ে সামনের অপরিচিত লোকটির কাঁধ অবধি বাড়িয়ে দিয়েছে থাবা। এহেন উৎপাতে অপরিচিতরা ভয়ে কাঁপতে থাকেন। আর “অ্যাই হ্যাট্” বলে গর্জন করে উঠলে কাকু এর দ্বিগুণ ডেসিবেলে গলা শানান—ভদ্রভাবে কথা বলতে শিখুন মশাই। আমি তো বলেছি ও কিছু করবে না। জন্টি মন্টি প্রভুর কাছে ফিরে এলে মাথায় ভাল করে মালিশ করে দিয়ে বলেন, “জিতে রহো বেটা।”

    পুষে রাখা সারমেয়র যত্ন কিভাবে করা যায়, তা নিয়ে প্রায়ই পড়ি খবরের কাগজে। কালীপুজোর রাতে বাজির প্রবল আওয়াজে বাড়ির কুকুরটি যেন ভয় না পায়, জানালার সামনে মাইক বাজিয়ে ডিজে সঙ্গীত হলে প্রিয় সারমেয়টি যেন আতঙ্কিত না হয়, তা নিয়ে বহু টোটকা দেন পশু বিশেজ্ঞরা। হৃদযন্ত্রের সমস্যার ভোগা আপনার মানুষ-প্রিয়জনকে এই অত্যাচারের হাত থেকে থেকে কিভাবে নিরাপদ রাখা যায়, তার তুলনায় অনেক বেশি নিউজপ্রিন্ট খরচ হয় পোষ্যের যত্নের সন্ধানে। কিন্তু ঘরে পুষে রাখা অবাধ্য পশুকে কিভাবে লাগাম দিতে হয়, তা নিয়ে চোখে পড়ে না কিছু। অন্যের শরীরে দাঁত বসিয়ে দিলেও দিনের শেষে সেই সারমেয় ‘অবলা’ই থেকে যায়।

    রুটিরুজির যোগাড়ে যে অঞ্চলে অফিস করতে যাই রোজ, তা তিলোত্তমা শহরের অত্যন্ত অভিজাত এলাকা বলে খ্যাত। এক বাহারি বাড়ি পাশের অন্য এক অট্টালিকাকে দশ গোল দেয়। তার গায়ে লেগে থাকা বাংলো আবার ওই অট্টালিকাকে বলে, কবে যে বড় হলাম চুপিসাড়ে। বিশালবপু বাড়িগুলোর সামনের রাস্তায় থুতু ফেলা মানা। দু কোয়া কমলালেবু মুখে পুরে খোসাটা ফুটপাতে ফেলার পর এমনই এক বাড়ির ব্যালকনি থেকে উড়ে এসেছিল, “রাস্তা নোংরা করছেন, লজ্জা করে না?” গলা উঁচিয়ে দেখি, হট প্যান্ট পরা কোনও এক কলেজ পড়ুয়া। মাথা নামিয়ে নেওযার পরে আরও দুটো কথা ঝরে পড়েছিল বর্ষার রাস্তায় ইস্তিরি ভাঙা প্যান্টে কাদা ছিটকে আসার মতো। “যত্তসব মিডলক্লাস।” তবে ওই রাস্তাতেই প্রতি কুড়ি পঁচিশ ফুট অন্তর দেখেছি সারমেয়র বিষ্ঠা। যে সময়ে অফিস যাই, সেই রাস্তাতে প্রতিদিন দেখি প্রাতঃভ্রমন করতে আসা বিদেশি ব্রিডের কুকুরবাহিনীকে। মর্নিং ওয়াক আর প্রাতঃকৃত্য একই সময়ে চলে। গলায় বেল্ট বাঁধা কুকুর আর ওই বেল্টেরই অপর প্রান্ত ধরে থাকা মনিব—কে যে আসলে কাকে টানে বুঝতে পারি না। তবে দেখেছি, সারমেয় এবং তার মনিবের গতিপথ হয় অনেকটা সাইন কার্ভের মতো, কিংবা প্রবল অস্থির কোনও শেয়ারের মতো। কোনও এক নিয়ম আছে হয়তো। প্রভুভক্ত কুকুর প্রভুর বাড়িটিকে চেনে বেশ। তাই প্রাতঃকৃত্য সারতে ভালবাসে বেশ কয়েকটি বাড়ি ছেড়ে দিয়ে। ফলে আগরওয়াল প্যালেসের গোল্ডেন রিট্রিভার নিজেকে আরাম দেয় ঘুটঘুটিয়া ম্যানসনের সামনের ফুটপাথে। আবার একই যুক্তিতে চামারিয়া ভবনের ল্যাব্রাডর হাল্কা হয় ঝুনঝুনওয়ালা ভিলার সামনের রাস্তায়। মনিবদের মধ্যেও হয়তো এ নিয়ে কোনও অলিখিত বোঝাপড়া আছে। কুকুরের মনস্তত্ত্ব নিয়ে যাঁরা মাথা ঘামান, গরমকালে ঘরের এসির তাপমাত্রা কুড়ি ডিগ্রির জায়গায় সারে বাইশ ডিগ্রি রাখা হলে পোষ্য সারমেয়টির মন একটু বেশি ভাল থাকে কি না তা নিয়ে যাঁরা পাঁচশ শব্দের নিবন্ধ লিখে ফেলেন, তাঁদের কাছে একটা প্রশ্নের উত্তর খুব জানতে ইচ্ছে করে। ছোট বাইরে করার জন্য গাড়ির চাকাগুলো কেন সারমেয়দের এত প্রিয় তা গুগলকে শুধিয়েছিলাম। উত্তর পাইনি। দুনিয়ায় এত বস্তু থাকতে কি আনন্দে গাড়ির চাকাগুলো কুকুরদের চুম্বকের মতো টেনে ধরে তা ভাবতে বসলে আমার বিস্ময় ইউক্যালিপটাস গাছের মতো আকাশ ছুঁতে চায়। প্রভুভক্ত সারমেয় তার মনিবের বাড়িটির মতো গাড়িটিও চেনে বিলক্ষণ। তাই যে জন্টি সাদা মার্সিডিজে চড়ে, সে মূত্র ছুঁড়ে দেয় অনেক দূরে দাঁড়িয়ে থাকা কোনও কালো বিএমডব্লিউয়ের চাকায়। আবার নীল জাগুয়ারের জানলা দিয়ে মুখ বাড়িয়ে আকাশ দেখে যে মন্টি, সে হয়তো সিক্ত করে কোনও ধূসররঙা রেঞ্জ রোভার গাড়ির চাকাকে। বুঝতে পারি মালিকের প্রতি এই ভালবাসায় জন্টি-মন্টিদের খাদ নেই কোনও।

    এমনই এক মনিবের থেকে জানতে পেরেছিলাম তাঁর প্রিয় চার্লির ক্রমশ বুদ্ধিমান হয়ে ওঠার কথা। গরম লাগলে সে রেফ্রিজারেটরের সামনে গিয়ে থাবা দিয়ে খটখট করে। এক মিনিট ফ্রিজের দরজাটা খুলে রাখতে হয়। তাহলেই ‘কুল’ হয়ে গিয়ে চার্লি তাঁকে আদর করে দেয়। শুনেছিলাম, স্মার্ট টিভিতে ওর প্রিয় ‘চ্যানেল’ নেটফ্লিক্স। চার্লির প্রিয় ওটিটি সিরিজও নাকি আছে কিছু। পরিচ্ছন্নতাবোধ প্রবল। ডিওডোরেন্টের গন্ধ নিতে পছন্দ বেশ। আর ঘরদোর নোংরা করতে নাকি একেবারে পছন্দ করে না। প্রিয় পোষ্যের পরিচ্ছন্নতাবোধ নিয়ে বহু চার্লির মালিকেরা কলার তোলেন। বাড়ি ‘পরিচ্ছন্ন’ রাখার বিষয়টা অনুমেয়। তাই যে যাঁর পোষ্য নিয়ে সকাল সন্ধ্যেয় দিব্যি বেরিয়ে পড়েন রাজপথে। প্রভুভক্ত সারমেয় তার প্রভুকে খুশ্ রাখে দিব্যি। আর শপিং মলে পেট-ফুডের বিল বাড়ে।

    ইংরিজিতে দেওয়া নির্দেশ ‘মানুষের চেয়েও বেটার’ বুঝতে পারা যে বুদ্ধিমান কুকুরেরা রাস্তা নোংরা করতে চায়, তা নিয়ে তাদের প্রভুদের কোনওদিনও বাধা দিতে দেখিনি। চারপেয়েরা এই অপকম্মোটি করার সময় সঙ্গে থাকা ব্র্যান্ডেড ক্যাজুয়ালস পরা দুপেয়েরা আকাশের দিকে চেয়ে থাকেন উদাসভাবে। তিরিশ সেকেন্ড পরে সম্বিত ফিরে পান। এক পুলিশ কিয়স্কের পাশের দেওয়ালে তাঁর জার্মান শেফার্ডকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেওয়াচ্ছিলেন এক মনিব। একটু আগেই পৌরসভা থেকে ঝাড় দিয়ে যাওয়া রাস্তা নোংরা হল জলদি। কিয়স্ক থেকে পুলিশবাবু বেরিয়ে জিজ্ঞাসা করলেন, “শেফার্ডটা কত পড়ল স্যার? কোথা থেকে নিলেন?” আইফোনে আঙুল চালাতে চালাতে প্রভু মুচকি হাসলেন। উত্তর দিলেন না। পুলিশবাবুও ফের ঢুকে গেলেন কিয়স্কে। এই লোকটিই সূর্য ডোবার পরে হয়তো তক্কে তক্কে থাকেন। আড়ালে আবডালে কত লোক রাস্তা নোংরা করে। একটু চেপে ধরলেই পঞ্চাশ-একশো পকেটে ঢুকে যায়।
    দামি সারমেয়রা তাদের (ত-এ চন্দ্রবিন্দু লাগালেও মন্দ হতো না) মনিবদের প্রাণ ভরে, লেজ দুলিয়ে ভালবাসা দিক। দিতে থাকুক নিরন্তর। এটা প্রভুদের প্রাপ্য। জন্টি-মন্টি-চার্লি-লাভলি-রন্টিরা রাস্তায় যেখানে খুশি আলপনা-পাহাড় তৈরি করুক। এটাও শহরের প্রাপ্য। জুতো বাঁচিয়ে চলা আমাদের তাতে যে সত্যিই কিছু যায় আসে না। তবে পিলে চমকে ওঠে বিদেশি নবাবদের হঠাৎ উথলে ওঠা ভালবাসায়। রাস্তায় অফিসমুখো এই অধমকে দেখলেই তাদের কেউ কেউ আমার দিকে ছুটে আসতে চায়। আমায় শুঁকতে চায়। পায়ের ডগা থেকে হাঁটু, হাঁটু থেকে কোমর অবধি আমায় মাপে। ক্রমাগত গন্ধ শোঁকে। আমার মধ্যে কি যেন খুঁজতে চায়। গরর্-গরর্ করে। রাগী চোখে দেখে। প্যান্টটা হাতিবাগান থেকে কিনেছি বলেই কি এত রাগ? আর একটু হলেই হয়তো ভালবাসার আঁচড় পড়তো গায়ে। প্রভু “কাম হিয়ার” বলে আমার প্রাণ বাঁচিয়ে দেন, সেদিনের মতো। দৈববাণী শুনতে পাই, “ও কিছু করবে না।” আমার কপালে ঘাম। রুমালটা বের করে নিই।

    আদালতের এমন বিচারও আমার ঘাম মুছিয়ে দেয়। প্রবল ঘেউ ঘেউ করা চতুষ্পদরা আমার কাছে ঘ্যাঁকাসুরের থেকে বেশি কিছু হয়ে উঠতে পারল না এ জীবনে। এ আমারই পরাজয়। জানি, আমার মতো আরও বহু ভীরু আছেন এ ধরাধামে। ঘ্যাঁকের পরে ঘ্যাঁক যোগ হয়ে যে মানুষদের চামড়া ভেদ করে ঢুকে যায় দাঁত, তারা হয়তো এমন খবরে একটু হলেও নিরাপদ বোধ করবেন।

    মুম্বইয়ের ওই বৃদ্ধও হয়তো শুনেছিলেন, “ভ্যাকসিন দেওয়া আছে। ও কিছু হবে না।”



    পুনঃপ্রকাশ সম্পর্কিত নীতিঃ এই লেখাটি ছাপা, ডিজিটাল, দৃশ্য, শ্রাব্য, বা অন্য যেকোনো মাধ্যমে আংশিক বা সম্পূর্ণ ভাবে প্রতিলিপিকরণ বা অন্যত্র প্রকাশের জন্য গুরুচণ্ডা৯র অনুমতি বাধ্যতামূলক।
  • অন্যান্য | ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ | ২৯৯৭ বার পঠিত
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • পাতা :
  • :|: | 174.251.160.146 | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০১:১৯516492
  • অবলা বা অবোলা অথবা ডাকসাইটে সুদর্শনের জন্য একটা টই খোলা যেতেই পারে। কে বলতে পারে আরেকটা "অল্ল য"-এর মতো লেখা আসবে কিনা। 
  • পলিটিশিয়ান | 2607:fb91:3a9:9c89:78e7:b018:da5:ae31 | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০২:১২516493
  • কামড়ায় পুলিশেতে, কামড়ায় কুকুরে
    কামড়ায় হেডস্যার ঠিক বেলা দুকুরে।
     
    গুরু কামড়া কামড়িতে ভরে গেল।
  • Ajanta Bagchi | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৮:৪৪516498
  • অতিশয় ফালতু লেখা।প্রচার পেতে চেয়েছেন।এর থেকে বেশী কিছু না।যাদের পোষ্য আছে তাদের বাড়ির দরজায় কড়া নাড়বেন না।গল্প শেষ।মানুষের বাচ্চা ও আমার রুমে, খাটে হিসু-পটি করেছে।তাকে মেরে ফেলিনি, বা ন্যাকামি করিনি।
  • Ajanta Bagchi | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৮:৪৬516499
  • মানুষ বলে এইসব বলতে হয়।কুকুর হলে বলতে হতো না।সব ভাষা ই বুঝে যেতো।এই আপনাদের নিম্ন মধ্যবিত্ত সংজ্ঞা কি জানিনা?? এগুলো শুধু ইচ্ছাকৃত শয়তানি।
  • Ajanta Bagchi | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৮:৫১516500
  • নিজে ব্রান্ডের প্যান্ট কিনতে পারেন নি বলে দুঃখিত??নাকি গাড়ি নেই বলে?? 
  • Huh | 103.244.242.176 | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২:১২516525
  • আমার থেকে দশ পনেরো গজ আগে দুটো কলেজ বয়সী ছেলে মেয়ে একটা শেফার্ড টাইপ কুকুর নিয়ে যাচ্ছিল সন্ধ্যে বেলায় -সে রাস্তানোংরা করতে পিছন থেকে ডেকে বললাম - হেই ক্যান ইউ পিক আপ আফটার ইওর ডগ ? এমন একটা ভড়কে যাওয়া বডি ল্যাংগুয়েজ হল যেন জীবনে প্রথম বার এসব শুনছে!
  • aranya | 2601:84:4600:5410:f94c:2f36:f2c9:480a | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২২:৩১516528
  • কুকুরের পটি মালিক রাস্তা থেকে তুলে না নিলে কি  ভারতীয় আইনে কোন ফাইনের ব্যবস্থা আছে? @শ্চ 
  • sch | 115.187.62.112 | ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৭:১৭516570
  • অরণ্য 
    AWBI এর guideline এ বলা আছে প্রতিটি residential area তে আলাদা জাইগা থাকবে কুকুরকে পটি করানোর জন্য। যথারীতি কোথাও থাকে না। সাম্রপ্তিক কালে কিছু মিউনিসিপ্যালিটি এরকম নিয়ম করেছে - খুবই স্বাগতম এই নিয়ম। পটি তুলে নেওয়া অবশ্য কর্তব্য
  • $&# | 193.116.254.165 | ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১০:২৬516582
  • গাইডলাইন আর আইনের মধ্যে যতটা তফাৎ , সভ্য দেশের সাথে ইন্ডিয়া র তফাৎ টাও ঠিক ততটাই। 
  • | 2406:7400:63:cee8::100 | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১৬:০৭516606
  • জঘন্য ফেসবুক টাইপ লেখা | এরাই কি নতুন প্রজন্মের লেখক ?         
    আশাকরি নতুন ভালো লেখক আসবেন আর 
    হিনমন্নতায় ভোগা এই সব অর্ধশিক্ষিত আবাল দের থেকে বাংলা ভাষা কে বাঁচাবেন |
  • | 2406:7400:63:cee8::100 | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১৬:১৭516607
  • অবশ্য আগেও এই ধরনের আবাল ছিল | 
  • হচ্ছে টা কি? | 2402:3a80:1cd2:fb33:378:5634:1232:5476 | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২০:৩৫516611
  • বিকেলবেলা বাড়ির পাশে একা একাই খেলাধুলা করছিল সে।
    তখনই আচমকা একদল কুকুরের আক্রমণ। রীতিমতো কামড়ে, খুবলে নেয় মাংস। সেই মাঠেই যন্ত্রণায় ছটফট করতে করতে মৃত্যু হল ৭ বছরের এক শিশু পুত্রের। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের শাহারানপুরে। 
  • কি অবস্থা | 2402:3a80:1cd2:fb33:378:5634:1232:5476 | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২১:০৭516613
  • কেউ কি প্রমোট করেছে? আবাল পনা কি নিজস্ব সম্পত্তি? একান্ত আপন?
  • sch | 115.187.62.191 | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২১:২১516615
  • কি অবস্থা
    যাদের নিক বদলে বদলে লেখার দরকার - তারাই করছে - না হলে এই লেখার নিচে ওই লিঙ্ক আশার তো কারণ নেই

    মূল লেখাটার মতো মানের  লেখা  বছর তিনেক আগেও বুলবুলভাজায় দেখেছি  বলে মনে করে না। 
    যেখানে ইন্দ্রানীদি, কুমুদি, শাক্য, সৈকত, সোমনাথ, দময়ন্তী তালুকদার, রঞ্জন দা'র মানের লোকজন লিখতেন ( এখনো  কেউ কেউ লেখেন ) - সেখানে এই লেখা নির্বাচিত হওয়ার মতো মানের?
  • হায় | 2402:3a80:1cd2:fb33:378:5634:1232:5476 | ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ২৩:১৯516616
  • গুরু এমনিতেই মাঝারি মনের।রাশি রাশি রাবিশ এর থেকে দু একটা ভালো লেখা বেরিয়ে আসে।
    মূল লেখায় লেখক,কুকুর মালিক দের উদাসীনতা ,উন্নাসিকতা আর জিরো সিভিক সেন্স এর দিকে সঙ্গত কারণে আঙ্গুল তুলেছেন।
    মালিকেরা যত্র তত্র পটি করিয়ে খালাস।পটি তোলার দিকে কোন ভ্রুক্ষেপ থাকেনা।মাজল এর ব্যবহার হয় না।
    পুরসভার কর্মীদের এই পটি নিয়মিত পরিষ্কার করতে হয়।
    এটা না বোঝার তো কিছুই নেই।
    মূল লেখায় কোথাও কোন কুকুরবিদ্বেষ ফুটে ওঠে নি।  অন্যকারো কোন মন্তব্যের মধ্যেও নেই।
     
    খামোকা আকাশ থেকে এনিম্যাল এবিউস না পারলেই নয়? একাই এনিম্যাল লাভার আর অন্য কেউ নয়!
  • দারুন লেখক ???? | 193.116.254.165 | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০২:৫১516618
  • একটু হোয়াট আবাউটরি করেই যাই। এই ওপরের শাক্য বলতে কি শাক্যজিৎ ? সেই দুর্দান্ত লেখক যিনি সারদা নিবেদিতা কে নিয়ে একখান পাতি হলুদ মার্কা স্ল্যান্ডারিং পিস্ নামিয়েছিলেন ? 
     
    অসাধারণ মানের লেখক সন্দেহ নেই। আর ভালো লেখক লিস্টে এনার নাম যারা তোলেন তাদের নিজের লেভেলটাও বোঝা যাচ্ছে। জাস্ট ইন্ডিয়ার ইন্টলারেন্স লেভেলটা এখনো মোল্লা দেশগুলোর লেভেলে যায়নি বলে এখনো সেই শাক্য কোথাও ফালতু হ্যাজ নামিয়ে চলেছেন হয়তো। নাহলে হয়তো অভিজিৎ রায়ের অবস্থা হয়ে যেত। 
  • এহেহে। | 2405:8100:8000:5ca1::133:ff36 | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৭:৫৪516619
  • অমিতচাড্ডি বদলানোনাম নিয়ে খুব ঘেউঘেউ করত না? লাইনে এসে গেছ?? laugh
     
    অমিতচাড্ডি   শাক্যর অন্য কুনো লেখা পড়ে নি সে ত  চাডজরা হোয়াছাড়া বিশেষ কিস্যু পড়ে টরে না।  তয় কিনা লেখক হিসেবে শাক্যজিৎ ভট্টাচার্য্য লেখার গুণে বলিষ্ঠতায় সত্যই ভাল লেখক। সে চাডজদের যতই জ্বলুক।
    নাও এবারে অমিতচাড্ডি দিপচাড্ডি ঘোঁট পাকিয়ে দলের লোকেদের খপর টপর দ্যাও। যদি সমনামী টাকলাটা খুন্টুন করায় গৌরি গোবিন্দদের মত 
     
  • sch | 115.187.62.83 | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১৪:০০516621
  • দারুন লেখক ????
    আমি শাক্যজিত ভট্টাযার্জের কথা বলেছি। আমার এই মুহূর্তে ওনার কোন ধর্ম বিষয়ক লেখার কথা মনে পড়ছে না - ওনার অসামান্য কিছু লেখা পড়েছিলাম অশোক মিত্র মারা যাবার পর তার স্মৃতিচারণায়, আর কিছু নব্বই দশক নিয়ে - যেটা মনে হয় পড়ে অনুষ্ঠান প্রচারে বিঘ্ন ঘটায় দুঃখিত বইতে ছিল
    আমি শাক্যজিতের ধ্যান ধারণার সাথে একমত না -ই হতে পারি, ব্যক্তি শাক্যজিতকেও পছন্দ না করতে পারি ( একেবারেই করি না)  তাতে তার লেখার শক্তির প্রশংসা করা আটকায় না । 
    "জাস্ট ইন্ডিয়ার ইন্টলারেন্স লেভেলটা এখনো মোল্লা দেশগুলোর লেভেলে যায়নি" - কে বলল যায় নি ? আপনি আছেন তো - ঠিক নিয়ে যাবেন। 
    ২০২৪ এ মোদীজি ক্ষমতায় আসবেন বলেই মনে হয় - যদি ৪০০ র বেশী সিট পেয়ে যান দারুন লেখক ???? আপনার সঙ্গী সাথীরা এই রাজ্যে দাঙ্গা বাধাবেন এতে সন্দেহ নেই। 
    আমার লিস্টে অনেকের নামই বাদ গেছে - শমীক ( অচল সিকি) , সোসেন, চিরন্তন কুন্ডু, শিবাংশু দে.........।।
  • dc | 2401:4900:1cd1:628e:b42c:28cc:866a:6e47 | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১৪:২৫516622
  • ইন্ডিয়ার ইন্টলারেন্স লেভেলটা কোথায় গেছে সেটা কর্ণাটক, ইউপি, এমপি, রাজস্থান ইত্যাদি রাজ্যগুলোতে গেলেই বোঝা যায়। কর্ণাটকের ইলেকশানের প্রধান ইস্যু সরকার কি কাজ করেছে বা করেনি নয়, প্রধান ইস্যু হলো কে টিপু সুলতানের পক্ষে আর কে নয়। রাজস্থানে কদিন আগে দুজন মুসলমানকে গোরু পাচারকারী নাম দিয়ে পুড়িয়ে মারা হয়েছে। ইউপি, এমপি ইত্যাদি জায়গায় যে কোন ছুতোয় বুলডোজার দিয়ে ঘর গুঁড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। ইনটলারেন্স আর কতোটা বেশী হলে যথেষ্ট বেশী হয়েছে বলে মনে হবে? 
  • র২হ | 165.1.172.196 | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০০:২৮516629
  • আহা সবাই এত রাগারাগি করবেন না। আমার লেখা একটা কৌকরিক পদ্য আছে, পড়ুন, মন শান্ত হবে। এতে রাজনীতি, সমাজ, প্রেম, অসাম্য, ক্রাইসিস - সব আছে। এমনকি ভূগোলের সীমা অতিক্রমও আছে।

    ****
    ২৭ আগস্ট ২০২১ ০৮:১৭
    ****

    বানের জলে ভাসছে কুকুর টুপুর টাপুর দুপুর ঠাকুর
    সেলিব্রিটি কোন ভেনিসে কোন দেশে কোন মাঝির নায়ে
    স্বেচ্ছা সেবক অনিচ্ছেতে পাড়ার মোড়ে চড় চাপাটি
    ফিরছো কবে?

    ধাঁই ধপাধপ তবলা বাজে গরম কফি জুড়িয়ে সাঁঝে
    অনিচ্ছেতেও গাল পেতে দেয় দুঃখ তোমার ফুরিয়ে আসে
    কেলিয়ে সেবক স্বেচ্ছা স্বয়ং অহং আবাং ফুটেজময়ী
    ফিরছো কবে?

    সেই তুমি সেই তোমরা তোমরা কল্লোলিনীর জিগর ভোমরা
    চণ্ডমুণ্ড লেলিয়ে দিলে এক নিমেষেই ইনকিলাবি
    অনিচ্ছেতেই মুন্ডু কেটে তোমার পাদপদ্মে রাখি
    ফিরছো কবে?

    কলকাতাতে কুকুরছানা দূর বিদেশে সাম্যবাদী
    আহা তোমার চক্ষে কত জলের বন্যা কষ্টনদী
    তোমার কফি জুড়িয়ে গেলে, ক্যাল খেয়ে যায়
    দুঃসাহসী, ডেটপিয়াসী। সেলিব্রিটি-
    ফিরছো কবে?
  • :|: | 174.251.160.146 | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৪:১১516633
  • কুড়ি ফেবের চোদ্দটা পঁচিশ ঠিক বুঝলুম না। কম্যুনাল ইন্টলারেন্সের সঙ্গে কুকুর সহ্য করতে পারার কী সম্পর্ক? প্লাস "ইউপি, এমপি, রাজস্থান" তো বিমারু রাজ্য গুলির মধ্যে পড়ে। ওসব জায়গায় তো মেয়েদের &/ সংখ্যালঘুদের চিরকালই এক অবস্থা। সেই কবে ইউপির ছেলে অযোধ্যা থেকে এসে বিহারের মিথিলার মেয়েকে বিয়ে করলো আগুনে পোড়ালো! নতুন কী দেখছেন? 
  • দারুন লেখক ???? | 121.200.237.26 | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৫:০৭516634
  • হ্যা -এই  শাক্যজিৎ ই তিনি। চমৎকার। 
     
    আর নিজের কমেন্ট এই ​​​​​​​কন্সিস্টেন্সি ​​​​​​​থাকছে ​​​​​​​নাতো ? একবার বলা হচ্ছে "ইন্টলারেন্স লেভেলটা কে বলল এখনো মোল্লা দেশগুলোর লেভেলে যায়নি"। আবার তার পরেই বলা হচ্ছে "আপনি আছেন তো - ঠিক নিয়ে যাবেন।" যারা লেখার মান ​​​​​​​নিয়ে ​​​​​​​এতো ​​​​​​​হ্যাজ ​​​​​​​নামাচ্ছে ​​​​​​​তারা ​​​​​​​নিজেরা ​​​​​​​ঠিক ​​​​​​​করে ​​​​​​​দু ​​​​​​​লাইন ​​​​​​​লিখতে ​​​​​​​পারছে ​​​​​​​না ? দেখে তো মনে হচ্ছে যেন গুরুতে লিখে সব গুচ্ছ গুচ্ছ নোবেল বা বুকার পেয়ে গেছে এদ্দিন। 
     
    সামান্য একটা হালকা চালের লেখায় যারা এতো গুচ্ছের এনিম্যাল এবিউস খুঁজে পেয়ে যাচ্ছে , রাস্তায় জমে থাকা কুকুরের পটি বা অচেনা লোককে বাড়ির কুকুর অকারণে এট্যাক করা কিন্তু তাদের চোখে পড়েনা। এতো এনিম্যাল এবিউস দূরবীন দিয়ে খুঁজতে যত এফোর্ট লাগে, নোংরা তুলতে মালিকদের শেখানো গেলে তার অর্ধেক এফোর্টে রাস্তা পরিষ্কার থাকতো। কিন্তু ওসব এর দরকার কি বাপু ? সভ্য দেশের মতো হয়ে লাভ আছে ? তার থেকে হ্যাজ নামানো বেটার। 
  • dc | 2401:4900:1f2b:13bb:c489:40a6:6e33:f775 | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৭:৪৭516636
  • কম্যুনাল ইনটলারেন্সের সাথে কুকুর সহ্য করতে পারার সম্পর্ক নেই তো!! আমার পোস্টটা তো দারুন লেখকের ইন্ডিয়ার ইনটলারেন্স লেভেলের জবাবে করা!
     
    আর ওসব জায়গায় সংখ্যালঘুদের চিরকালই এক অবস্থা হলেও, ২০১৪ এর পর অবস্থার ড্রাস্টিক অবনতি হয়েছে। একটু গুগল সার্চ করলেই দেখতে পাবেন, যেমন ২০১৮ সালের এই রিপোর্টটাঃ Communal violence rose by 28% from 2014 to 2017, but 2008 remains year of highest instances of religious violence. 
    Communal violence under the National Democratic Alliance government led by the Bharatiya Janata Party increased 28 percent over three years to 2017.
  • দারুন লেখক ???? | 121.200.237.26 | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৮:৪৫516637
  • না জেনে না বুঝে হ্যাজ মারাতে এলে যা হয়। বলা হয়েছে ইন্ডিয়াতে ইন্টলারেন্স এখনো মোল্লা দেশগুলোর লেভেলে যায়নি। ডিটোরিয়াটিং আর ওয়ার্স্ট -দুটোর মিনিং কি ​​​​​​​একুয়াল ? কোন ​​​​​​​ডিক্শনারি ​​​​​​​তে ? 
     
    হাতে নাতে প্রমান চাই ? এই যে শাক্যজিৎ একখান স্ল্যান্ডারিং পিস্ নামিয়ে দিব্যি খেয়েদেয়ে  ঘুরে বেড়াচ্ছে। অনলাইন এ বেশ কিছু খিস্তি খেয়েছে- আরো খাবে হয়তো। ব্যাস -এদ্দুরই। কেও তার কল্লা কাটার থ্রেট দিয়েছে এখনো অবধি ? 
     
    এবার কারোর প্রাণে অত এপল টু এপল তুলনা করবার পুলক জাগলে আর মুরোদ থাকলে সেই লেখাটা তে কপি পেস্ট করে সারদা নিবেদিতার বদলে মহম্মদের ফ্যামিলির দুই মহিলার নাম বসিয়ে পাবলিশ করে পাশের দেশগুলোতে ঘুরে আসুক।নিজেই দেখুক না কি হয় ? 
     
     
  • dc | 2401:4900:1f2b:13bb:c489:40a6:6e33:f775 | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ০৯:০৮516638
  • রেস টু দ্য বটমে আমার আগ্রহ নেই। ধন্যবাদ। 
  • রমিত চট্টোপাধ্যায় | ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১২:১৫516641
  • র2হ এর কবিতাটা দারুন, যখন শ্রীলেখা আর তন্ময় বাবুর কমেন্ট টা নিয়ে তোলপাড় চলেছিল, তখনই ভাটিয়ালি তে লিখেছিলেন সম্ভবত। তখন থেকেই ফেবারিট। ফোনে সেভ করে রেখেছিলাম। আবার পড়ে মন খুশি হয়ে গেল।
  • পাতা :
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খেলতে খেলতে মতামত দিন