এই সাইটটি বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • ইয়ে | 65.49.68.29 | ২৫ জুলাই ২০২৩ ২২:০৮521750
  • বিবুদার গানের গলা কেমন ছেল? কিশোর কুমার না মান্না দে?
  • এলেবেলে | ২৫ জুলাই ২০২৩ ২৩:৪৪521752
  • সব মন্তব্য একত্রে রাখার জন্য ধন্যবাদ। বারবার পাতা উল্টে দেখা ও লেখা বড্ড বিরক্তিকর। যাক গে, মূল বিষয়ে আসি। প্রথমত পালটি খাওয়ার প্রশ্ন নেই। প্রথমেও এটাকে ঢপ বলেছি, এখনও এটাকে ঢপ বলছি। 
     
    মিথ্যাবাদী ফেটিশের কারণেই সম্ভবত এই দুটো বাক্য নজর এড়িয়ে গেছে -
    ১. স্বামী বিরজানন্দ, শ্রী রামসুব্বা আইয়ার, শ্রী সদাশিভম পিল্লাই, কে এস রামস্বামী শাস্ত্রী, স্বামী শ্রদ্ধানন্দ, স্বামী গম্ভীরানন্দ সবাইকে RSS-এর উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মিথ্যাবাদী বলা হয়নি
    ২. তেমনই দুই প্রত্যক্ষদর্শী ও এক প্রত্যক্ষ শ্রোতা আরেসেসের সুবিধা হবে বলে জেনেশুনে মিথ্যাচার করেছিলেন, এমনটা নয়
     
    মিথ্যাবাদী কোনও ব্যক্তি নন, একটি আদ্যোপান্ত হিন্দুত্ববাদী সংগঠন যারা সমস্ত বিতর্ক সত্ত্বেও এটার সঙ্গে জড়িয়েছে। বাণী ও রচনার কে সম্পাদক তা আমার জানা নেই (আদৌ কেউ আছেন?) কিন্তু সেখানে যে বিস্তর কাঁচি চলেছে এবং ইংরেজি ভার্সনের বেশ কিছু বস্তু বাংলা ভার্সন থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে সেটা অজানা নয়। একই কথা কথামৃত সম্পর্কেও। একটি অত্যন্ত সুগঠিত সংগঠন ধীরে অথচ অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে এই নির্মাণ প্রক্রিয়া চালিয়েছে ও চালাচ্ছে।
     
    আমি তো তবু টার্শিয়ারি রেফারেন্স দিয়েছি যেটা প্রামাণ্য রেফারেন্সের অন্তর্গত, কিন্তু দুই প্রত্যক্ষদর্শী ও এক প্রত্যক্ষ শ্রোতার রেফারেন্স পুরোটাই হিয়ারসে এভিডেন্স। তার ভিত্তিতে বইয়ের পঞ্চম সংস্করণে ব্যাপক কাটছাঁট হয়েছে।
     
    হ্যাঁ, প্রথম কুড়ি বছর কাঁচা মিথ্যেই চলেছে। কারণ লেখকরা কন্যাকুমারীর মন্দিরটির অবস্থান সম্পর্কে না জেনে এহেন কথা লেখেন। তারপর ১৯১৯ সালে বিরজানন্দ ও রামসুব্বা আয়ারের সাক্ষাৎ। অতি অবশ্যই সে কথা সংযোজন করে এবং আগের লেখা সংশোধন করে নতুন সংস্করণ প্রকাশ করা উচিত ছিল। কিন্তু সেই সংশোধন হল ১৯৩৩ সালে অথচ আয়ারের কথা বিন্দুমাত্র গুরুত্ব পেল না। সম্পাদক হিসেবে স্বামী অমুকানন্দরা এর দায়িত্ব অস্বীকার করতে পারেন না। 
     
    একই কথা প্রযোজ্য সদাশিবম পিল্লাইয়ের ক্ষেত্রেও। ১৯৪৯-এ বইটির ফের অখণ্ড সংস্করণ হল কিন্তু এবারেও না আয়ার না পিল্লাইয়ের সাক্ষ্য প্রামাণ্য তথ্য হিসেবে হাজির হল। তাহলে কি সম্পাদকরা তাঁদের কথা বিশ্বাস করেননি? এদিকে একজনের বয়ানের সঙ্গে অন্যজনের বয়ান মিলল না। প্রথমজন তিন দিন ধ্যানের উল্লেখ করলেন, দ্বিতীয়জন সঙ্গে আবার সেখানে দুধ-ফলও দিয়ে এলেন। তবুও সেসব ছাপার অক্ষরে পাওয়া গেল না।
     
    এবারে রামস্বামী শাস্ত্রীর প্রথম পোবোন্দে সাঁতারের প্রসঙ্গ আসল কিন্তু তিনি তো তখন ত্রিবান্দ্রমে। কোন সূত্রে তিনি কন্যাকুমারীর সাঁতারের কথা জানলেন সেসব নিয়ে কিচ্ছু নেই। সেটাকে কী বলা হবে? নির্ভেজাল? যাই হোক, অবশেষে মূল ঘটনার (বিবেকানন্দের মুখে শোনা কথা) ৬৮ বছর পরে শাস্ত্রীর চিঠি মিলল। কিন্তু তারপরেও সে কথা ওই বইয়ে ঢুকতে ১৪ বছর সময় নেয় কেন? মিশনের বইপত্তরের বিশাল বিক্রি। প্লাস এত বড় একটা প্রমাণ হাজির। তবুও সম্পাদকদের এই উদাসীনতা কেন? তাঁদেরকে দায়ী করা নাজায়েজ?
     
    কিন্তু শাস্ত্রীমশাই বললেন এক দিন ধ্যানের কথা। প্রথম দুটো বয়ানের সঙ্গে তৃতীয় বয়ানের মিল হয় কীভাবে? তাতে স্বয়ং বিবেকানন্দ মিথ্যাবাদী হয়ে যান না? ১৯৭৯-র সম্পাদকরা সেসব খেয়াল করেছেন? এ ব্যাপারে তাঁদের দায়ী করা যাবে? 
     
    এবারে একদম শেষ কথা। আমি যদিও বেশ কয়েকবার হাঙরে ভর্তি সমুদ্রে সাঁতার কাটার কথা উল্লেখ করেছি, কিন্তু কীভাবে যেন সেটা নিছকই সমুদ্রে সাঁতার কাটা হয়ে গেছে। হাঙরের প্রসঙ্গটা উবে যায় কেন? এর ব্যাখ্যা হিসেবে মিশনের সাইট swamivivekananda.guru-তে লেখা হয়েছে It is natural for the biographers to assume that Swamiji plunged into the ocean because he could not afford a boat ride, but there could have been a more compelling reason why he took to swimming that stretch of water, which was only about 400 meters (two furlongs) wide and could have been even less during a low tide depending on the bottom topography. He was probably in a liminal state, on the verge of transitioning from the real to the ephemeral, looking for answers through meditation in solitude on the rock. He meant to honor that spiritual journey to the rock, ‘sanctified by the blessed feet of the Divine Mother,’ through the hard slog of self-denial to refresh his soul, sharks or no sharks. (The Batuk Bhairavas would have protected him from any kind of danger.)
     
    আর কী। ওই বটুক ভৈরবরাই এবার দাপিয়ে বেড়ান!
  • ওহো | 2405:8100:8000:5ca1::82:1041 | ২৬ জুলাই ২০২৩ ০০:০৫521754
  • এলবো তো বটুক ভৈরব মানেও জানে না।
    কত থুতু যে চেটে যাচ্ছে বেচারা।
  • এলেবেলে | ২৬ জুলাই ২০২৩ ০০:০৯521755
  • There is a story that once Swami Shivananda woke up in the middle of the night at Baranagore Math and saw the space surrounding Swamiji’s sleeping body being lit up due to the presence of miniature Shiva-like images. He woke Swamiji up and told him what he had seen. Swamiji asked him not to bother about that and go to sleep. When he asked him again about it the next morning, Swamiji said, ‘They were Batuk Bhairavas [a child form of Lord Shiva that people invoke for protection against evil spirits], they have been protecting me since my childhood.’(Swami Purnatmananda (Editor), Smritir Aloi Swamiji (Udbodhan Karyalaya, Calcutta, 2009), p. 91.) Shivananda was uniquely privileged to see that because both he and Swamiji were born following their mothers’ special prayers to Lord Shiva.
     
    এসব কথা লেখা হচ্ছে ২০১৯ সালে বসে। কার থুতু কে চাটে!
  • লজিক | 198.16.76.69 | ২৬ জুলাই ২০২৩ ০০:৩৫521757
  • আরে মোলো যা, স্বামী বিরজানন্দ, শ্রী রামসুব্বা আইয়ার, শ্রী সদাশিভম পিল্লাই, কে এস রামস্বামী শাস্ত্রী, স্বামী শ্রদ্ধানন্দ, স্বামী গম্ভীরানন্দ সত্যবাদী হলে বিবেকানন্দের সাঁতরে শিলায় গিয়ে ধ্যান করা ঢপ হতে পারে না।  দুই প্রত্যক্ষদর্শী ও এক প্রত্যক্ষ শ্রোতা মিথ্যাচার না করলে বিবেকানন্দের সাঁতরে শিলায় গিয়ে ধ্যান করা ঢপ হতে পারে না। 

    সহজ লজিক। আবোল তাবোল বকে গুলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে লাভ নেই। ঘোমটা দিতে গিয়ে ... ...
  • এলেবেলে | ২৬ জুলাই ২০২৩ ০০:৪৫521758
  • আজ্ঞে, লজিকবাবু ওই ধ্যানটা কদিনের? তিনদিন না একদিন? বইতে কী আছে? ভক্তরা তো বিবেকানন্দকেই ঢপবাজ প্রমাণ করে ছেড়েছেন। আর হাঙরগুলোকে গিলে নিচ্ছেন কেন?
  • uff | 177.54.158.94 | ২৬ জুলাই ২০২৩ ০১:০৯521762
  • মানে কোনো ভ্যারিয়েশন থাকলেই ধরতে হবে ঠকবাজ। ওরাল হিস্টরীতে ভ্যারিয়েশন পার্ট এন্ড পার্সেল বলে জান্তুম। কেনেডি হত্যায় সাক্ষীদের বক্তব্যে কত ফাঁকফোকর আছে জানেন? আমেরিকানরা আজও অফিশিয়াল ন্যারেটিভ মানতে চায়না। অজস্র কন্সপি থিউরি। এলেবেলেও দেখা যাচ্ছে ঐরকম পাবলিক।
  • খেয়াঘটের মাঝি  | 165.225.8.106 | ২৬ জুলাই ২০২৩ ০৪:২৬521763
  • ঐ সাঁতার কাটাটা মোটেও অবিশ্বাস্য কিছু নয়, ওরকম ট্রান্সে অনেকেই থাকে, বড়সড় ফোকাস হলে তো আরৈ থাকে। আমি নিশ্চিত এখানে অনেকেই থেকেছেন! 
    বরং আমার পছন্দ হল সেই মানুষটির কাহিনী যাঁকে দেবার জন্যে এক আনা বিবেকানন্দের ছিল না বলে সাঁতারটা কাটা হল। 
    ঐ রকে লোকে যেতই বা কেনযে একজন পাকাপাকি খেয়ামাঝি ছিলেন? সেই খেয়ামাঝির না জানি কতই গল্প! সে সব বরং জানতে ইচ্ছে করে! 
  • :-)) | 2405:8100:8000:5ca1::10d:4d6 | ২৬ জুলাই ২০২৩ ১২:১১521783
  • রাকৃমির কৃমিগুলো এখুনো কিলবিলুচ্চে।
  • Reference | 103.76.82.109 | ১২ আগস্ট ২০২৩ ১৫:২৮522362
  • ১৯৫৬ সালের প্রথম সংস্করণ বই
     
     
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খারাপ-ভাল প্রতিক্রিয়া দিন