বার পঠিত
ভাটিয়ালি | টইপত্তর | বুলবুলভাজা | হরিদাস পাল | খেরোর খাতা | বই
  • টইপত্তর  বাকিসব   নেট-ঠেক-কড়চা

  • এমন যদি হতঃ স্বপ্নমঙ্গল

    রৌহিন লেখকের গ্রাহক হোন
    বাকিসব | নেট-ঠেক-কড়চা | ১৭ আগস্ট ২০২২ | ১৬৬ বার পঠিত
  • স্বপ্ন প্রায় রোজই দেখি। কিন্তু তার কোনোটাতেই ঘটনা পরম্পরা থাকে না - এবং সব চেয়ে বড় কথা, ঘুম ভাঙার বড়জোর মিনিট দশেকের মধ্যেই সব ভুলে যাই। কাল রাত্তিরটা এই দুই অর্থেই ব্যতিক্রম। তাই ভুলে যাবার আগে লিখে রাখছি। বিষয়টাও প্রভাবিত হবার মতই আমার কাছে, তাই। যা দেখলাম -

    অবশেষে দেশে সরকার পরিবর্তন হয়েছে। নতুন প্রধানমন্ত্রী শপথ নিয়েছেন, কোনো আঞ্চলিক দলের নেতা, দক্ষিণ ভারতীয়। সদ্য নতুন প্রধানমন্ত্রী ১৫ই আগস্ট লালকেল্লা থেকে দেশবাসীর উদ্দেশে জানালেন, অতঃপর দেশ এক নতুন দিশায় চলবে। ভারতবর্ষের মূল স্পিরিট যে বৈচিত্র্য, তাকে সর্বোচ্চ মর্যাদা দেওয়া হবে। সকলের সম্মতির ভিত্তিতে সংবিধান সংশোধনীর মাধ্যমে দেশের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোকে আরও মজবুত করার জন্য কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্কের পুনর্বিন্যাস করা হবে এবং তদ্বারা রাজ্যগুলির হাতে অনেক বেশী ক্ষমতা অর্পণ করা হবে।

    এই বিষয়টি সার্বিক আলোচনার জন্য আগামী ২২ থেকে ২৫ শে জানুয়ারি একটি মহা-বৈঠক হবে, যার সিদ্ধান্ত ২৬শে জানুয়ারি প্রজাতন্ত্র দিবসে প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে সমগ্র দেশবাসী জানবেন। এই বৈঠকের মূল আলোচ্যসূচী থাকবে এই কেন্দ্র-রাজ্য সম্পর্কের ও ক্ষমতার পুনর্বিন্যাস। এই মহাবৈঠকে অংশ নেবেন প্রত্যেক রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সহ অন্ততঃ তিনজন মন্ত্রী, বিরোধী দলনেতা ও আরও দুজন বিরোধী নেতা, শাসক ও প্রধান বিরোধী দল বাদে অন্যান্য রাজনৈতিক দলের মোট চারজন প্রতিনিধি, রাজ্য মানবাধিকার কমিশনের প্রধান, দুজন অর্থনীতিবিদ, দুজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব এবং বিধানসভার স্পীকার - মোট ষোলোজনের দল। কেন্দ্রের তরফে উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, অর্থমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, লোকসভা ও রাজ্যসভার স্পীকার। এছাড়া থাকবেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারপার্সন, রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্ণর, যোজনা কমিশনের প্রধান, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা, ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশনের চেয়ারপার্সন। যে রাজনৈতিক দলগুলির কোনো প্রতিনিধি বৈঠকে থাকবেন না, তারা তাদের লিখিত দলীয় বক্তব্য প্রধানমন্ত্রীর দফতর মারফত এই বৈঠকে পাঠাতে পারবেন।

    এই সব মিলিয়ে প্রায় ৬০০ জন প্রতিনিধি ২২ থেকে ২৪ শে জানুয়ারি নিজ নিজ বিষয়ে বক্তব্য রাখবেন এবং ২৫ শে জানুয়ারি একটি ঐতিহাসিক গোলটেবিল বৈঠকে মিলিত হবেন। এই গোলটেবিল বৈঠক ভারতের তথা বিশ্বের ইতিহাসের একটি সন্ধিক্ষণ বলে বিবেচিত হবে। এই বৈঠকের জন্য সরকারি উদ্যোগে একটি ৫২০ ফুট ব্যাসার্ধের গোল টেবিল বানানো হবে - যেখানে বৈঠকে উপস্থিত সমস্ত প্রতিনিধি, প্রধানমন্ত্রী সহ, সম আসনে বসে মত বিনিময় করতে পারবেন। ইয়ারফোনের মাধ্যমে প্রত্যেকের কথা বাকি প্রতিনিধিদের কানে পৌঁছাবে এবং টেবিলের চারিদিকের জায়ান্ট স্ক্রিনে তারা সকলের মুখ দেখতে পাবেন।

    এই গোলটেবিলটি ভারতের জাতীয় হেরিটেজের মর্যাদা পাবে। টেবিলের ওপর আলাদা করে কোনো টেবিল কভার থাকবে না - তার বদলে টেবিল জুড়ে ভারতবর্ষের রাজনৈতিক মানচিত্রে প্রতিটি রাজ্যের একজন করে নির্বাচিত তরুণ শিল্পী নিজেদের রাজ্যের ছবি আঁকবেন। ছবির কোনো থীম দেওয়া হবে না - সংশ্লিষ্ট শিল্পীর কল্পনায় যেভাবে তাঁর রাজ্যকে দেখবেন, সেভাবেই ফুটে উঠবে সেই রাজ্য। এই শিল্পী নির্বাচিত হবেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তের প্রতিষ্ঠিত শিল্পীদের একটি প্যানেলের মাধ্যমে - নির্বাচিত হবার জন্য শিল্পীর কোনো ডিগ্রির প্রয়োজন হবে না - সংশ্লিষ্ট প্যানেলের সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত হবে। মানচিত্রের বাইরে টেবিলের অবশিষ্ট অংশে থাকবে রামধনুর ব্যাকগ্রাউন্ড - যা লিঙ্গপরিচয়ের বিভিন্নতার স্বীকৃতি হিসাবে গণ্য হবে।

    এত অবধি যা মনে ছিল, তাই লিখলাম। হয়তো এসব কোনোদিনই হবে না। কিন্তু যদি লিখলামই, আরও একটু ভাবতে ইচ্ছে করে - ক্ষতি কী, যদি এরপরে রাজ্যসরকারগুলিও জেলাগুলিকে নিয়ে এই ধরণের বৈঠক করেন, জেলাগুলি পুরসভা ও গ্রাম পঞ্চায়েত প্রতিনিধিদের নিয়ে? কী ক্ষতি যদি প্রধানমন্ত্রী বৈঠকে আমন্ত্রণ জানান বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, চীন এবং মায়ানমারের প্রতিনিধিদের - শান্তিপ্রস্তাব এবং পারস্পরিক সহযোগিতার আহ্বান নিয়ে? যদি এই প্রত্যেকটি সীমানা হয় পরস্পরের জন্য উন্মুক্ত? আরে জাবি মশাই - এ যাত্রা না দেখলেও, এসবও নেহাৎই স্বপ্ন।

    পুনশ্চঃ এত অবধি সব ঠিক ছিল। এটা লেখার সময়ে আমাদের পশ্চিমবঙ্গের প্রতিনিধিদের নামগুলো রিলেট করতে গিয়ে কেমন হুব্বা হয়ে গেলাম।
  • মতামত দিন
  • বিষয়বস্তু*:
  • কি, কেন, ইত্যাদি
  • বাজার অর্থনীতির ধরাবাঁধা খাদ্য-খাদক সম্পর্কের বাইরে বেরিয়ে এসে এমন এক আস্তানা বানাব আমরা, যেখানে ক্রমশ: মুছে যাবে লেখক ও পাঠকের বিস্তীর্ণ ব্যবধান। পাঠকই লেখক হবে, মিডিয়ার জগতে থাকবেনা কোন ব্যকরণশিক্ষক, ক্লাসরুমে থাকবেনা মিডিয়ার মাস্টারমশাইয়ের জন্য কোন বিশেষ প্ল্যাটফর্ম। এসব আদৌ হবে কিনা, গুরুচণ্ডালি টিকবে কিনা, সে পরের কথা, কিন্তু দু পা ফেলে দেখতে দোষ কী? ... আরও ...
  • আমাদের কথা
  • আপনি কি কম্পিউটার স্যাভি? সারাদিন মেশিনের সামনে বসে থেকে আপনার ঘাড়ে পিঠে কি স্পন্ডেলাইটিস আর চোখে পুরু অ্যান্টিগ্লেয়ার হাইপাওয়ার চশমা? এন্টার মেরে মেরে ডান হাতের কড়ি আঙুলে কি কড়া পড়ে গেছে? আপনি কি অন্তর্জালের গোলকধাঁধায় পথ হারাইয়াছেন? সাইট থেকে সাইটান্তরে বাঁদরলাফ দিয়ে দিয়ে আপনি কি ক্লান্ত? বিরাট অঙ্কের টেলিফোন বিল কি জীবন থেকে সব সুখ কেড়ে নিচ্ছে? আপনার দুশ্‌চিন্তার দিন শেষ হল। ... আরও ...
  • বুলবুলভাজা
  • এ হল ক্ষমতাহীনের মিডিয়া। গাঁয়ে মানেনা আপনি মোড়ল যখন নিজের ঢাক নিজে পেটায়, তখন তাকেই বলে হরিদাস পালের বুলবুলভাজা। পড়তে থাকুন রোজরোজ। দু-পয়সা দিতে পারেন আপনিও, কারণ ক্ষমতাহীন মানেই অক্ষম নয়। বুলবুলভাজায় বাছাই করা সম্পাদিত লেখা প্রকাশিত হয়। এখানে লেখা দিতে হলে লেখাটি ইমেইল করুন, বা, গুরুচন্ডা৯ ব্লগ (হরিদাস পাল) বা অন্য কোথাও লেখা থাকলে সেই ওয়েব ঠিকানা পাঠান (ইমেইল ঠিকানা পাতার নীচে আছে), অনুমোদিত এবং সম্পাদিত হলে লেখা এখানে প্রকাশিত হবে। ... আরও ...
  • হরিদাস পালেরা
  • এটি একটি খোলা পাতা, যাকে আমরা ব্লগ বলে থাকি। গুরুচন্ডালির সম্পাদকমন্ডলীর হস্তক্ষেপ ছাড়াই, স্বীকৃত ব্যবহারকারীরা এখানে নিজের লেখা লিখতে পারেন। সেটি গুরুচন্ডালি সাইটে দেখা যাবে। খুলে ফেলুন আপনার নিজের বাংলা ব্লগ, হয়ে উঠুন একমেবাদ্বিতীয়ম হরিদাস পাল, এ সুযোগ পাবেন না আর, দেখে যান নিজের চোখে...... আরও ...
  • টইপত্তর
  • নতুন কোনো বই পড়ছেন? সদ্য দেখা কোনো সিনেমা নিয়ে আলোচনার জায়গা খুঁজছেন? নতুন কোনো অ্যালবাম কানে লেগে আছে এখনও? সবাইকে জানান। এখনই। ভালো লাগলে হাত খুলে প্রশংসা করুন। খারাপ লাগলে চুটিয়ে গাল দিন। জ্ঞানের কথা বলার হলে গুরুগম্ভীর প্রবন্ধ ফাঁদুন। হাসুন কাঁদুন তক্কো করুন। স্রেফ এই কারণেই এই সাইটে আছে আমাদের বিভাগ টইপত্তর। ... আরও ...
  • ভাটিয়া৯
  • যে যা খুশি লিখবেন৷ লিখবেন এবং পোস্ট করবেন৷ তৎক্ষণাৎ তা উঠে যাবে এই পাতায়৷ এখানে এডিটিং এর রক্তচক্ষু নেই, সেন্সরশিপের ঝামেলা নেই৷ এখানে কোনো ভান নেই, সাজিয়ে গুছিয়ে লেখা তৈরি করার কোনো ঝকমারি নেই৷ সাজানো বাগান নয়, আসুন তৈরি করি ফুল ফল ও বুনো আগাছায় ভরে থাকা এক নিজস্ব চারণভূমি৷ আসুন, গড়ে তুলি এক আড়ালহীন কমিউনিটি ... আরও ...
গুরুচণ্ডা৯-র সম্পাদিত বিভাগের যে কোনো লেখা অথবা লেখার অংশবিশেষ অন্যত্র প্রকাশ করার আগে গুরুচণ্ডা৯-র লিখিত অনুমতি নেওয়া আবশ্যক। অসম্পাদিত বিভাগের লেখা প্রকাশের সময় গুরুতে প্রকাশের উল্লেখ আমরা পারস্পরিক সৌজন্যের প্রকাশ হিসেবে অনুরোধ করি। যোগাযোগ করুন, লেখা পাঠান এই ঠিকানায় : [email protected]


মে ১৩, ২০১৪ থেকে সাইটটি বার পঠিত
পড়েই ক্ষান্ত দেবেন না। খারাপ-ভাল প্রতিক্রিয়া দিন